গাছের জীবন ও ইমাম গাজ্জালী (রঃ)

গাছের জীবন ও ইমাম গাজ্জালী (রঃ)
—————————————-রমিত আজাদ

আমি তো রীতিমত অবাক হচ্ছি! গাছেরও যে জীবন আছে এটা প্রথম কে আবিষ্কার করেছিলেন?

ছোটবেলায় স্কুলের বইয়ে পড়েছিলাম যে, এটা আবিষ্কার করেছিলেন স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু (১৮৫৮ – ১৯৩৭)। পরবর্তিতে জেনেছিলাম যে, His major contribution in the field of biophysics was the demonstration of the electrical nature of the conduction of various stimuli (e.g., wounds, chemical agents) in plants, which were earlier thought to be of a chemical nature. he hypothesized that plants can “feel pain, understand affection etc. এখন তাহলে প্রশ্ন জাগে যে গাছেরও জীবন আছে এটা তাহলে কে আবিষ্কার করেছিলেন?

Plant Physiology নিয়ে কাজ করেছিলেন Sir Francis Bacon 1627 সালে এবং Stephen Hales 1727 সালে, যা স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু-র অনেক আগে। জীবন না থাকলে তো Physiology থাকে না। তার মানে তখন অলরেডী জানা ছিলো যে উদ্ভিদের জীবন আছে।

উদ্ভিদবিদ্যা নিয়ে চর্চার ইতিহাস অনেক পুরাতন। আমাদের উপমহাদেশে এটার চর্চার ইতিহাস নিদেনপক্ষে ৩০০০ বছরের পুরাতন। গ্রীক উদ্ভিদবিদ্যার জনক Theophrastus ছিলেন এরিস্টটলের ছাত্র, কাজ করেছিলেন ২৪০০ বছর আগে। উদ্ভিদের সাথে চিকিৎসা শাস্ত্রের সম্পর্ক তো ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

যাহোক আমি আজকে ইমাম গাজ্জালী (রঃ) রচিত Reality of Creation (Al-Hikmah fi Makhloqat) বইটি পড়ে তো হতবাক! গাছ যে খাদ্যগ্রহন করে, গাছ যে শিকড় দ্বারা মাটির নীচ থেকে পানি ও মিনারেল সংগ্রহ করে গাছের পাতা ও পুরো শরীরে পৌছে দেয়, আবার পাতার মধ্য দিয়ে বাতাস ও তাপ গাছের পুরো শরীরে পৌছায় (respiration ও photosynthesis ), পুরুষ ও স্ত্রী জাতীয় গাছ আছে, ইত্যাদি অনেক কিছুই তিনি লিখেছেন সেই ১০৭৮ সালে!

তারিখ: ৩১শে অক্টোবর, ২০১৭
সময়: রাত ১২ টা ১২ মিনিট

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.