মনের আবেগ কোন বাঁধে ঠেকাবে?

মনের আবেগ কোন বাঁধে ঠেকাবে?
——— রমিত আজাদ

যার সাথে মন খুলে কথা বলা যায় সেই তো মনের মানুষ। মনের মানুষের সন্ধান হয়তো অনেকেই পায়, কিন্তু শেষতক মনের মানুষের সাথে ঘর বাধা হয়ে ওঠে না অনেকেরই। তারপর সামাজিক কারণে অথবা অন্য কোন তাড়নায় কোন একজনার সাথে ঘর বাধা হয়ে যায়। একই ঘরে একই ছাদের নীচে, একই মশারীর ভিতরে জীবনের পুরোটাই হয়তো পার করে দেয় তারা, তারপরেও মনের সম্পর্ক হয়না।

রবীন্দ্রনাথের মনের সম্পর্ক হয়েছিলো তার বৌদি বা বৌঠান কাদম্বরী দেবী-র সাথে। সেই প্যাশন থেকে বেরিয়ে আসে কত কত কাব্য! কবি তাকে নিয়ে ‘ভারতী’ পত্রিকায় লিখেছিলেন, ‘সেই জানালার ধারটি মনে পড়ে, সেই বাগানের গাছগুলি মনে পড়ে, সেই অশ্রুজলে সিক্ত আমার প্রাণের ভাবগুলিকে মনে পড়ে। আর একজন যে আমার পাশে দাঁড়াইয়া ছিল, তাহাকে মনে পড়ে, সে যে আমার খাতায় আমার কবিতার পার্শ্বে হিজিবিজি কাটিয়া দিয়াছিল, সেইটে দেখিয়া আমার চোখে জল আসে। সেই ত যথার্থ কবিতা লিখিয়াছিল। তাহার সে অর্থপূর্ণ হিজিবিজি ছাপা হইল না, আর আমার রচিত গোটাকতক অর্থহীন হিজিবিজি ছাপা হইয়া গেল।’

এই লেখাটি প্রকাশের পরেই তাদের বাড়িতে আগুন জ্বলে উঠেছিল। আর সে কারণেই যুবক রবির বিয়ের তোড়জোড় শুরু হয়। সাত পাকে বাধা হলেও, আইনসিদ্ধ স্ত্রী মৃণালিনী (ভবতারিনি) দেবী-র সাথে রবির মনের সম্পর্ক কখনোই গড়ে ওঠেনি। শোনা যায় যে স্বামীর সাহিত্য প্রতিভার বিষয়ে ভবতারিনি ছিলেন একেবারেই উদাসীন।

অনেকে রবি-কাদম্বরী সম্পর্কটিকে মিথ বলতে চান। এর পিছনে কারণ হয়তোবা রবি ঠাকুরের শেষ জীবনের ঋষিতূল্য ছবি। কিন্তু বাস্তবতা হলো এই যে মুনি-ঋষিরাও মানুষ। জৈবিক-মানসিক চাহিদার উর্ধে তারা নন। প্রেম, কাম, সাহিত্য, বিজ্ঞান, দর্শন, প্রতিভা এইগুলোর মধ্যে সম্পর্ক লিনিয়ার নয় বরং নন-লিনিয়ার। বিশাল সাহিত্য প্রতিভা লেভ তলস্তয় যৌবনে একাধিক প্রেমে আসক্ত ছিলেন, একইভাবে বিপুল বিজ্ঞান প্রতিভা আইনস্টাইনের ছিলো তিন-তিনটি এক্সট্রামেরিটাল এ্যাফেয়ার্স, বামপন্থিকূলের গুরু দার্শনিক কার্ল মার্কসেরও বিবাহ বহির্ভুত সন্তান ছিলো।

কোন ব্যাক্তির যশ যত বাড়ে, খ্যাতি যত বাড়ে ততই সে সর্বসাধারণের হয়ে যায়, সে আর কাদম্বরী বা মিলেভার থাকেনা। দীর্ঘ জীবন পরিক্রমায় কাশবনের কন্যারা আসবে এটাই তো প্রকৃতির নিয়ম। বাঁধ দিয়ে আবেগহীন সীমিত নদীর জোয়াড় হয়তো ঠেকিয়ে রাখা যায়, কিন্তু সীমাহীন মনের আবেগকে ঠেকায় এমন কোন বাঁধ সম্ভবত এখনো আবিষ্কৃত হয়নি।

প্রেম মনের চাহিদা, মনকে বেধে রাখা যায়না। একইভাবে কাম সর্বগ্রাসী তা সম্রাটের প্রতাপকেও অগ্রাহ্য করে!

তারিখ: ৩০শে মার্চ, ২০১৭
সময়: দুপুর ২টা ১৬ মিনিট

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.