রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা-১,২ ,৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -১,২ ,৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯
——– ডঃ রমিত আজাদ

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -১
——– ডঃ রমিত আজাদ

অপার রহস্যে ঘেরা আমাদের এই মহাবিশ্ব। আর তার মধ্যে রহস্যময় একটি সত্তা আমরা – ‘মানুষ’। এই দু’য়ের সম্পর্কও কম রহস্যময় নয়। মহাবিশ্বের বিবর্তন বা বিকাশের সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ ফলাফল মানুষ, সেই মানুষই আবার গভীর আগ্রহ নিয়ে অধ্যয়ন ও পর্যবেক্ষণ করছে তার চারপাশের মহাবিশ্বটিকে। কি এই মহাবিশ্ব? আমরা কারা? কি সম্পর্ক মহাবিশ্বের সাথে আমাদের অথবা আমাদের সাথে মহাবিশ্বের? কোথা থেকে এল এই মহাবিশ্ব? তারপর থেকে ক্রমাগত কি ঘটছে? এর শেষ কোথায়? এই সব প্রশ্ন ঘুরে ফিরে মানুষের মস্তিস্ক থেকে হৃদয় আর হৃদয় থেকে মস্তিস্ক পর্যন্ত। এইসব চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসার যতটুকু উত্তর এ যাবতকাল আমাদের জানা হয়েছে দর্শন ও বিজ্ঞানের দৃষ্টিকোন থেকে। সেইসব উত্তর ধারাবাহিকভাবে দেয়ার চেষ্টা করব আমার এই সিরিজে।

পাঠকদের অনুরোধ করব গঠনমূলক সমালোচনা করতে। আমার দেয়া কোন তথ্য যদি ভুল হয়, অনুগ্রহপূর্বক সঠিক তথ্য দিয়ে আমাকে সাহায্য করবেন।

প্রথমেই শুরু করছি গত দু’একমাসের উত্তপ্ত সংবাদ, ঈশ্বর কণা নামে ক্ষ্যত হিগস বোসন নিয়ে। কি এই হিগ্স বোসন? কেন একে নিয়ে এত হইচই? এই সংক্রান্ত আলোচনার গভীরে যেতে হলে প্রথমে শুরু করতে হবে বস্তু (matter) সংক্রান্ত আলোচনা দিয়ে।

যেকোন দর্শনের বিদ্যালয়ের জন্য বস্তুর ধারণাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইতিহাস-দর্শনের বিকাশের ধারায় বস্তুর ধারণা একাধিকবার পরিবর্তিত হয়েছে। সকল অস্তিত্ববান জিনিসের উৎস অনুসন্ধানের ধারায় দার্শনিকরা তাকে কখনো দেখেছেন পানিতে (দার্শনিক থালেস), কখনো দেখেছেন বাতাসে (দার্শনিক এ্যানেক্সিমেনেস), আবার কখনো দেখেছেন আগুনে (দার্শনিক হেরাক্লিটাস)। এদিকে দার্শনিক এমপেডোক্লেস বিশ্বাস করতেন সবকিছুর উৎস চারটি – আগুন, পানি, বাতাস এবং মাটি। আবার আমাদের উপমহাদেশের দার্শনিকরা বলেছেন পঞ্চভুতের (ক্ষিতি, অপ, তেজ, মরুত, ব্যোম – মাটি, পানি, আগুন, বাতাস, আকাশ) কথা।

ইতিমধ্যে খ্রীষ্টেপূর্ব পঞ্চম শতাব্দীতে প্রাচীন গ্রিক দার্শনিক ডেমোক্রিটাস এবং লুসিপাস বস্তুকে বোঝার জন্য একটি সম্পূর্ণ নতুন পদক্ষেপ নেন। তারা এই ধারণার অবতারনা করেন যে এই পৃথিবীর সবকিছু এমনকি মানুষের মন , ক্ষুদ্রতম, সরলতম, অবিভাজ্য এবং অদৃশ্য কণা দ্বারা গঠিত, তাঁরা এর নাম দেন পরমাণু (Atom) । যা গতিশীল অবস্থায় স্থানে অবিরত যুক্ত হচ্ছে, ভাঙছে এবং অবস্থান পরিবর্তন করছে। আমাদের উপমহাদেশে একই ধারণা দিয়েছিলেন ঋষি কণাদ। ডেমোক্রিটাস তার জীবনের কিছু সময় পারস্যে কাটিয়েছিলেন। এমনও হতে পারে যে কণাদের ধারণাটিই তিনি প্রচার করেছিলেন।

প্রাচীন গ্রীস এবং রোম-এর দার্শনিকগণ এই ধারণাটিকে বিকশিত করেন মধ্যযুগ পর্যন্ত। এরপর উদ্ভব হয় নতুন দার্শনিক ঐতিহ্যের, যার নাম স্কলাস্টিকস। স্কলাস্টিকস দর্শনের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল একটি ধর্মীয় গ্রন্থে এর দ্ব্যর্থহীন ব্যাখ্যা প্রদান করে ঈশ্বরের অস্তিত্বের প্রমাণ করা । এই রীতি চলে চতুর্থ থেকে চতুর্দশ শতাব্দী পর্যন্ত, এবং এই সময়কালে বস্তুর ধারণা নিয়ে গবেষণা ও চিন্তাভাবনা কার্যত বন্ধই থেকে যায়।

পরবর্তিতে ইসলামের স্বর্ণযুগে (Islamic Golden Age) মুসলিম দার্শনিক ও বিজ্ঞানীরাও বস্তুর ধারণা নিয়ে ব্যপক কাজ করেন। ইউরোপীয় বিজ্ঞানী ল্যাভয়সীয়ের ‘ভরের নিত্যতার সুত্রের’ আবিস্কারের যে স্বীকৃতি রয়েছে, তার কয়েক শতাব্দী আগেই মুসলিম পন্ডিত আল বিরুনী (১১শ শতাব্দী) এই নীতি আবিস্কার করেছিলেন। ল্যাভয়সীয়ে মুসলিম রসায়নবিদ এবং পদার্থবিদদের একজন শিষ্য ছিলেন এবং প্রায়ই তিনি মুসলিম বিজ্ঞানীদের বিভিন্ন বইয়ের রেফারেন্স দিতেন। মুসলিম বিজ্ঞানী আল হাইয়াম (১১শ শতাব্দী), যাকে আধুনিক আলোক বিজ্ঞানের জনক বলা হয়, তিনি আলো সম্পর্কে বলেছিলেন যে, আলো এক প্রকার কণিকার স্রোত।ইতিমধ্যে মুসলিম স্পেনের তলেদো ও কর্ডোভার জ্ঞানকেন্দ্রগুলোর আলো অন্ধকার ইউরোপে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এই আলোই পরবর্তিতে জন্ম দেয় ইউরোপীয় রেনেসাঁর।

১৬ থেকে ১৮ শতাব্দীর মধ্যে আবার বস্তুকে সঠিকভাবে বুঝতে পারার বিষয়টি জরুরী হয়ে ওঠে। ইতিমধ্যে বৈজ্ঞানিক ধারণা লক্ষণীয়ভাবে প্রসারিত হয়, এবং স্যার আইজাক নিউটনের প্রতিষ্ঠিত বলবিজ্ঞান তাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গির উপর সর্বাধিক প্রভাব বিস্তার করে। কেউ কখনো পরমাণু দেখেনি, এই বিষয়টি বিবেচনায় রেখে মনে করা হয় যে, বস্তু হলো আমাদের চারপাশের বিভিন্ন জিনিস এবং কায়ার সত্তা, যা বলবিজ্ঞানের আইন মেনে চলে (ফ্রান্সিস বেকন, থমাস হব্স এবং জন টল্যান্ড)। এই নিবন্ধে আরো যোগ করা প্রয়োজন যে বিশুদ্ধরূপে মানসিক প্রত্যাশা গুলো ছাড়া আর সকল প্রকার ফর্মেশনই বলবিজ্ঞানের অধীনস্থ আইন হিসেবে গণ্য হওয়া উচিত বলে মনে করা হয়েছিল। বলবিজ্ঞানীয় বস্তুবাদ অনুযাযী, মানসিক বিষয় ছাড়া আর কোন ফর্মেশনই থাকতে পারেনা যা বলবিজ্ঞানের আইনগুলোর অধীন হবে না । ১৮শতাব্দীর ফরাসি জড়বাদী (লা মেতর, হেলভেসিয়াস, দিদেরত, এবং বিশেষভাবে হলবাখ)-দের দ্বারা বষ্তুর ধারণার গুরুত্বপূর্ণ নতুন রূপরেখা তৈরী হয়, যারা পূর্ববর্তী দর্শনের সংকীর্ণতাকে অতিক্রম করতে পেরেছিলেন। যে চিন্তাবিদরা এই চিন্তন প্রবণতা ধরে রেখেছিলেন তারা সবসময়ই এই বিষয়ে সচেতন ছিলেন যে বলবিজ্ঞান সর্ব প্রকারের গতির বহুরূপত্ব বর্ণনা করতে পারেনা। হলবাখ (Holbach) বলেছিলেন, বস্তু হলো তাই, যা কোন না কোন ভাবে আমাদের অনুভূতিকে প্রভাবিত করে। সম্ভবত: এই বিবৃতিটিই বস্তুর ধারণার আধুনিক রূপ ।

রুশ রাষ্ট্রনায়ক ও দার্শনিক ভ. ই. লেনিন বস্তুর নিম্নরূপ সংজ্ঞা দিয়েছিলেন।বস্তু হলো সেই দার্শনিক প্রত্যয় যা বস্তুগত সত্য, যা মানুষ তার অনুভূতির দ্বারা বুঝতে পারে, এবং যার প্রতিলিপি করা যায়, যার ছবি তোলা যায় ও যা আমাদের অনুভূতিতে প্রতিফলিত হয়, আবার তা আমাদের অনুভূতির উপর একেবারেই নির্ভরশীল না হয়ে স্বাধীনভাবে অস্তিত্ববান।
(Matter is a philosophical category denoting the objective reality which is given to man by his sensations, and which is copied, photographed and reflected by our sensations, while existing independently of them.)
প্রথম দিকে সংজ্ঞাটি সুন্দর মনে হলেও পরে এর ভুল ধরা পড়ে। Matter is a philosophical category- এই কথাটি স্ববিরোধী। মানে কি দাঁড়ালো, matter হলো non-matter? কথিত আছে লেনিন নিজেই পরে এই ভুলটি লক্ষ্য করেছিলেন।

আমরা ইতিমধ্যে বস্তুর সংজ্ঞা সম্পর্কে অনেক বলেছি, কিন্তু কি আমাদের আলোচনা থেকে কোন বাস্তবসম্মত উপসংহার টানতে ব্যর্থ হয়েছে. পদার্থবিজ্ঞান বিংশ শতাব্দী শুরু করে একটি সংকটের মধ্যে দিয়ে। 1897 সালে পরীক্ষামূলকভাবে ইলেক্ট্রন আবিষ্কৃত হয়। এর দ্বারা বোঝা যা্য যে, পরমাণুর গঠন অত্যন্ত জটিল। স্পষ্টত: প্রমাণীত হয় যে পরমাণু কয়েকটি কণা, যেমন ইলেকট্রন প্রোটন (পরমাণুর কেন্দ্রস্থিত অংশের ধনাত্মক আধানযুক্ত ক্ষুদ্র কণিকা) এবং নিউট্রন-এর দ্বারা গঠিত। কিন্তু তাদের পারস্পরিক ক্রিয়া সংক্রান্ত পরবর্তী গবেষণাগুলো পদার্থবিজ্ঞানকে কানাগলিতে নিয়ে যায়।
শক্তির (energy) সংরক্ষণ নীতি, যা কিনা বস্তুর সংরক্ষণ নীতির ভিত্তি স্বরূপ, তা হলো প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের একটি মৌলিক মতবাদ। যদি আপনি প্রতিটি ২০ গ্রাম ভরের দুইটি স্বর্ণমুদ্রা নেন, এবং তদেরকে গলিয়ে একটি ধাতুপিণ্ড তৈরী করেন, আদর্শ অবস্থায় সেই ধাতুপিণ্ডটির ওজন হওয়ার কথা ৪০ গ্রাম। কিন্তু মৈলিক কণিকার জগতে প্রায়শঃই এই নিয়মের ব্যাত্যয় ঘটে। দুইটি কণিকার মিথস্ক্রিয়ায় একটি তৃতীয় কণিকার জন্ম হয়, এবং যার ভর প্রথম দুইটি কণিকার ভরের যোগফলের তুলনায় লক্ষণীয়ভাবে কম হয়। এই অবস্থাটি প্রকৃতিবিজ্ঞানীদের কাছে অবিশ্বাস্য মনে হয়, কেননা তা পদার্থবিজ্ঞানের নীতিগুলোর পরিপন্থী বলে মনে হতে থাকে। বিজ্ঞানীরা এই মনে করতে শুরু করেন যে, বস্তু কোনরূপ আলামত (trace) ছাড়াই অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে । এভাবে দার্শনিক জড়বাদ তার মৌলিকত্বের গভীরতা হারিয়ে ফেলে।

পরে অবশ্য আরও বিস্তারিত ভৌত পরিমাপ এই দেখায় যে, দুইটি কণিকার মিথষ্ক্রিয়ায় শুধুমাত্র একটি তৃতীয় কণিকা নয়, বরং ফোটন নামক একটি চতুর্থ কণিকারও জন্ম হয়। এটি আলোর কণিকা যা প্রাথমিকভাবে একটি বস্তুর উপাদান হিসেবে অজানা ছিল। এই ফোটনের ভর হিসাবের মধ্যে এনে পদার্থবিজ্ঞানের মৌলিক আইনগুলো পুনঃস্থাপিত হয়। তার মানে ঘটনাটি বস্তুর বিলীন হওয়া ছিলনা, বরং আমাদের জ্ঞাত বিষয়গুলোর বিলীন হওয়া ছিল। প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের পরবর্তী আবিষ্কারগুলোও আমাদের দার্শনিক ধারণা এইভাবে প্রসারিত ও সুস্পষ্ট করে যে, বস্তু শুধুমাত্র পদার্থ রূপেই থাকেনা, যেমনটি আমরা আগে ভাবতাম, বরং ক্ষেত্র (field) রূপেও থাকে। আলো একটি নির্দিষ্ট রূপ যাকে পদার্থও বলা যাবেনা আবার কায়াও বলা যাবেনা।আলো এতকাল যাবৎ জ্ঞাত বস্তুগুলোর মত স্থানে কোন নির্দিষ্ট সীমা দখল করেনা, কিন্তু তা ক্ষেত্র নামে বস্তুর একটি নির্দিষ্ট রূপ। আজকের প্রাকৃতিক বিজ্ঞান ইতিমধ্যে আরো কিছু ক্ষেত্রের কথা জানে, এগুলো হলো – পারমাণবিক, মহাকর্ষীয় এবং ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক। বর্তমানে আমরা আরো জানি যে, আলোর দ্বৈত সত্তা রয়েছে। আলো একই সাথে তরঙ্গ ও কণিকার মত আচরন করে। পদার্থ, শক্তি, কণিকা ও ক্ষেত্র এরা সকলেই বস্তুর রূপভিন্নতা।
বস্তুর গুনাগুন বলেতে বোঝানো হয় তার বৈশিষ্ট্যকে, যা ছাড়া কোন বস্তু টিকে থাকতে পারেনা। বস্তুর মূল বৈশিষ্ট্যের মধ্যে প্রাথমিকভাবে ধরা যায় গতি, স্থান, সময় এবং প্রতিফলন ।

পরবর্তি সিরিজে পদার্থ, শক্তি, কণিকা, ক্ষেত্র, ইত্যাদি বস্তুর রূপভিন্নতা নিয়ে এবং এর পাশাপাশি স্থান, সময় অর্থাৎ বস্তুর গুনাগুন নিয়ে আলোচনা করব।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -২

গত পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। এই পর্বে আলোচনা করব গতি নিয়ে।

গতি
গতি কথাটিকে আপাতভাবে সরল মনে হলেও এর দার্শনিক ব্যাখ্যা কিন্তু অত সহজ নয় আর দৈনন্দিন ধারণা থেকে একেবারেই ভিন্ন।
আমরা সাধারনতঃ বলে থাকি যে, একটি অবজেক্ট অন্য একটি অবজেক্টের সাপেক্ষে অবস্থান পরিবর্তন করলেই তাকে গতি বলা হয়। বলবিজ্ঞান-এর দৃষ্টিকোণ থেকে এটা সত্য, কিন্তু দার্শনিক দৃষ্টিকোণ থেকে অপর্যাপ্ত। প্রকৃতপক্ষে একটি নির্দিষ্ট অবজেক্ট-এর বাইরে অন্যান্য অবজেক্ট-এর অস্তিত্ব আছে, কিন্তু বস্তুর বাইরে কোন কিছুরই অস্তিত্ব নেই। গতির দার্শনিক ব্যখ্যার আলঙ্কারিক উপমা নিম্নের ঘটনায় দেখা যেতে পারে – গ্যাস আয়তনের বৃদ্ধি দেখা যায় যখন একটি শিশু বায়বীয় বা তরল মাধ্যমে একটি রবার বেলুন ফোলায়।

একটি হ্রদে পানির স্রোত মিশ্রিত হওয়া যদি আমরা ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করি, তাহলে আমরা স্পস্টভাবে দেখতে পাবো যে, হ্রদের পানির গতি কোন শূণ্যতা (vacuum) সৃস্টি করেনা। ইতিপূর্বে দখলকৃত পানির স্রোতকে তাৎক্ষণিকভাবেই নতুন পানির স্রোত দখল করে নেবে। বস্তুর গতি বলতে বিচ্ছিন্ন (isolated) কোন কিছু বোঝানো যাবেনা; কোন একটি পরমাণু, গ্রহ অথবা গ্যালাক্সির অবস্থানের পরিবর্তন সবসময়ই প্রতিবেশী কোন বস্তুর অবস্থানের পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত/সহগামী।
এটা উল্লেখযোগ্য যে, পরম শূণ্যতা (absolute vacuum) বলে কিছুই নেই।পুরো মহাবিশ্বই (Universe) পদার্থ (substance), কণিকা (particle) অথবা ক্ষেত্র (field) দ্বারা পরিপূর্ণ। পাশাপাশি একথা বলার অপেক্ষাই রাখেনা যে মহাবিশ্বের প্রতিটি বিন্দুতেই সদাবিরাজমান মহাকর্ষ ক্ষেত্র (gravitational field)। বস্তুর ঘনতম মিশ্রণ হলো একটি বহুল পরিচিত জ্যোতিস্ক (astronomical object) যার নাম ব্ল্যাক হোল।
বস্তুর গতি মানে তার ঘনত্ব (density), গঠন (composition), সম্পৃক্তি (saturation) এবং ঘনীভবন (concentration)-এর নিম্নসীমা থেকে ঊর্ধ্ব সীমা এবং তদ্বিপরীত ঊর্ধ্ব সীমা থেকে নিম্নসীমা পর্যন্ত অবিরাম পরিবর্তন । এই পথ স্বাভাবিকভাবেই সরলরৈখিক নয়, বরং নানা প্রকৃতির কখনো বৃত্তাকার, কখনো বিপরীতমুখী, পাশাপাশি ত্বরান্বিত (accelerated) অথবা মন্দিত (retarded) পরিবর্তন ।

দর্শন শাস্ত্রে গতির কতগুলো ধর্ম রয়েছে। এগুলো হলো বস্তুগততা (materiality), পরমতা (absoluteness) এবং সুনির্দিস্টতা (concreteness)। গতির বস্তুগততা মানে আমরা বুঝব যেখানে বস্তু নাই, সেখানে গতিও নাই। গতি কেবলমাত্র বস্তুরই ধর্ম। উধাহরণস্বরূপ, পথচারী, ইলেকট্রন, পিস্টন, ধুমকেতু এরা সকলেই গতিশীল এবং সকলেই বস্তু । গতির পরমতা বলতে আমরা এই বুঝব যে, গতিহীন কোন বস্তু হয়না। বস্তু মাত্রই গতিশীল। সকল বস্তু সকল অবস্থাতেই সর্বদাই গতিশীল। স্থিতি একটি আপেক্ষিকতা মাত্র, পরম স্থিতি বলে কিছু নেই।

গতির তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ ধর্ম হলো সুনির্দিস্টতা। বিষয়টি হলো এমন যে, যে কোন বস্তুর গতির প্রকৃতি ও রূপ নির্ভর করে বস্তুটির গঠনের উপর। গতি চিরন্তন বটে তবে তা কখনো সুনির্দিস্ট কখনো আপেক্ষিক রূপে দেখা দেয়। গতির বাহক (carrier) এবং মৌলিক আইনের (fundamental laws) উপর নির্ভর করে গতির বিভিন্ন রূপ দেখা যায়। যেমন, যান্ত্রিক (mechanical) (বাহক – মনুষের দ্বারা পরিমাপযোগ্য, অর্থাৎ অতি ক্ষুদ্র নয় আবার অতি বৃহৎ নয় এমন কায়া; আইন – নিউটনীয় (চিরায়ত) বলবিদ্যার আইন)। ভৌত (physical) অর্থাৎ তাপীয় (thermal), বৈদ্যুতিক (electrical), আলো ইত্যাদি ( বাহক – অণু, পরমাণু, ইলেকট্রন ইত্যাদি ক্ষুদ্র কণিকা, আইন – আনবিক পদার্থবিদ্যা, কোয়ান্টাম বলবিদ্যা ইত্যাদি ক্ষুদ্র কণিকার বিজ্ঞানের আইন), জৈবিক (biological) (বাহক – জীব, আইন – প্রাকৃতিক নির্বাচন (natural selection) অর্থাৎ পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়াবার আইন)। মনস্তাত্ত্বিক (psychological) (বাহক – মস্তিস্ক এবং স্নায়ু), সামাজিক (social) ( বাহক – মানুষ এবং মানব সমাজ, আইন – সমাজবিদ্যার আইন)

এদিকে ৯০-এর দশকের ধারণাগুলো অনুযায়ী আমরা জানি যে, বিজ্ঞান যে সকল গতির প্রকারভেদের কথা বলে তার সাথে উপরের ৬টি প্রকারের পুরোপুরি মিল খুঁজে পাওয়া যায়না, বরং তা একটি বহুবিধ শাখা-প্রশাখা সম্বলিত বৃক্ষের সাথে তুলনীয়। পদার্থবিজ্ঞানীরা ভূবিজ্ঞান (geology), সাইবারনেটিক্স (cybernetics), গতির ইনফর্মেশন রূপ এবং মৌলিক কণিকা গুলোর গতি অধ্যয়ন করছে। বর্তমানে এমন সব বস্তুরও সন্ধান পাওয়া গি্যেছে যার উৎস ও গতির প্রকৃতি অন্ধকারাচ্ছন্ন। এর উজ্জ্বল উদাহরণ কোয়াজার (quasar)।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৩

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। এবারের পর্বে আলোচনা করব স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে।

স্থান ও কাল

স্থান কি ও কাল কি এই জিজ্ঞাসাও মানুষের চিরন্তন। মানব জ্ঞান ও মানব জাতির ইতিহাসে এটি মৌলিক প্রশ্ন সমূহের একটি। মানব ইতিহাসের গতিধারায় স্থান ও কালের ধারনাও পাল্টেছে বহুবার। বস্তুর এই গুনাগুন (attributes) দুইটিকে সম্মিলিত ভাবেই অধ্যয়ন করা হয়।

স্থানের প্রকৃতি, গুনাবলী ও অস্তিত্বের ধরণ নিয়ে বিতর্ক চলছে সেই অনাদিকাল থেকে। যেমন প্লেটোর ট্রিটিজ (treatise) Timaeus অথবা সক্রেটিসের khora (অর্থাত্ “স্থান”), অথবা এরিস্টটলের (ডেল্টা বইয়ের IV নং অধ্যয় ) topos (অর্থাৎ জায়গা)-এর সংজ্ঞা, অথবা ১১ তম এর শতাব্দীর আরব polymath আলহাজেন-এর “স্থান সম্পর্কিত ডিসকোর্স (Qawl fi al-Makan)”-এর মধ্যে “স্থানের জ্যামিতিক ধারণা” “space qua extension” হিসাবে আলোচিত হয়েছে।

রেনেসাঁ-র যুগেও এই সকল চিরায়ত দার্শনিক প্রশ্নগুলো আলোচিত হয়েছে । তারপর ১৭ শতাব্দীতে বিশেষত চিরায়ত বলবিজ্ঞানের প্রথম যুগে তাদেরকে পূণর্বিন্যাসও করা হয়েছে। স্যার আইজাক নিউটনের মতে, স্থান হচ্ছে পরম – অর্থাৎ স্থান স্থায়ীভাবে এবং স্বাধীনভাবে চিরকাল ছিল ও আছে। সেই স্থানে বস্তু থাকুক বা না থাকুক তার উপর স্থান নির্ভরশীল না।

গ্রীক দার্শনিক ডেমোক্রিটাস এবং এপিকুরাস মনে করতেন স্থান হলো সমসত্ত্ব (homogenous) ও অসীম শূণ্যতা, যা কম বেশী পরমাণু দ্বারা পরিপূর্ণ।

অন্যান্য প্রাকৃতিক দার্শনিকরা, যাদের মধ্যে Gottfried Leibniz-এর নাম উল্লেখযোগ্য, তিনি ভেবেছিলান যে স্থান হচ্ছে বস্তুর মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্কের একটি সংগ্রহ, যা নির্ধারিত হচ্ছে একে অপরের থেকে তাদের দূরত্ব এবং দিকবিন্যাস দ্বারা। ১৮ শতাব্দীর দার্শনিক ও ধর্মতত্ত্ববিদ জর্জ বার্কলে তার রচনা “Towards a New Theory of Vision” – এ “স্থানিক গভীরতার দৃশ্যমানতা” (visibility of spatial depth) সম্পর্কে নতুন ধরনের বিবৃতি প্রদান করেন।
পরবর্তীতে, অধিবিদ্যাবিদ (meta-physician) ইমানুএল কান্ট বলেন স্থান বা সময় কাউকেই ইন্দ্রিয়গ্রাহ্যভাবে (empirically) হৃদয়ঙ্গম করা যাবে না, তারা একটি পদ্ধতিগত কাঠামোর উপাদান যা মানুষ তার সকল অভিজ্ঞতা কাঠামোগত করার জন্য ব্যবহার করে থাকে।

উনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীতে গণিতবিদরা অ-ইউক্লিডিয় জ্যামিতি নিয়ে কাজ করতে শুরু করেন, যেখানে স্থান আর সমতল নয় বরং বক্র।
আমাদের এ যাবৎকাল যা জানা আছে তার মধ্যে সময় সম্পর্কে লিখিত প্রাচীনতম লেখাটি মিশরীয় চিন্তাবিদ প্টাহহোটেপ (Ptahhotep (c. 2650–2600 BCE))-এর তিনি বলেছিলেন: “Do not lessen the time of following desire, for the wasting of time is an abomination to the spirit.” আর্যদের প্রাচীনতম গ্রন্থ বেদ (খ্রীস্টপূর্ব ২০০০ সালে লিখিত বলে ধারণা করা হয়)-এ বিশ্বতত্ব (cosmology)-এর বর্ণনা রয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে এই মহাবিশ্ব চক্রাকেরে বারংবার সৃস্টি, বিকাশ, ধ্বংস ও পূনর্জন্মের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি চক্রের বয়স ৪৩২০০০০ (তেতাল্লিশ লক্ষ বিশ হাজার ) বছর ।

গ্রীকরা যেমন ধারণা করেছিল যে, এই মহাবিশ্বের রয়েছে অসীম অতীত এবং এর কোন শুরু নাই। গ্রীকদের বিপরীতে মধ্যযুগীয় দার্শনিক ও ধর্মতত্ববিদরা এই ধারণা বিকশিত করেন যে, মহাবিশ্বের একটি সসীম অতীত ও প্রারম্ভ রয়েছে । এই দৃস্টিভঙ্গী উৎস হলো তিনটি আব্রাহামীক ধর্ম (Abrahamic religions): ইহুদী, খ্রীস্টান ও ইসলাম ধর্ম। যে সকল দার্শনিক এই ধারণাকে বিকশিত করেন তারা হলেন, খ্রীস্টান দার্শনিক জন ফিলিপোনাস, ইহুদী দার্শনিক সাদীয়া গাওন, মুসলিম দার্শনিক আল কিন্দি, আল গাজ্জালী প্রমুখ। অসীম অতিতের ধারণার বিপরীতে তারা দুইটি যুক্তি ব্যব হার করেন, প্রথমতঃ “সত্যিকারের অসীম বলে কোন কিছু থাকা সম্ভব না”। যা বলে “ঘটনসমুহের (events) অসীম সময়গত ক্রমাগত প্রত্যাবর্তনই হলো সত্যিকারের অসীম” (An infinite temporal regress of events is an actual infinite.”), ” “ঘটনসমুহের অসীম সময়গত ক্রমাগত প্রত্যাবর্তনের কোন অস্তিত্ব নেই (∴ An infinite temporal regress of events cannot exist)”
দ্বিতীয় যুক্তিটি হলো, ” সত্যিকারের অসীমকে পরবর্তীকালীন যোগ দ্বারা সম্পন্ন করা সম্ভব না (An actual infinite cannot be completed by successive addition.”)। ড্বিতীয় যুক্তিটি খ্যাতিমান হয়ে ওঠে ইমানুয়েল কান্ট যখন তাকে তার নিবন্ধ the first antinomy concerning time – এ ব্যবহার করেন।১১ শতকের শুরুতে মুসলিম বিজ্ঞানী আল হাজেন (Ibn al-Haytham (Alhacen or Alhazen) তার গ্রন্থ ‘আলোকবিজ্ঞান’-এ স্থান উপলদ্ধি ও তার জ্ঞানতত্ব বিষয়ক প্রয়োগ (space perception and its epistemological implications ) নিয়ে আলোচনা করেন। পূর্বে স্থানের দৃষ্টিগত যে উপলদ্ধি ছিল, আল হাজেনের পরীক্ষামূলক প্রমাণের পরে সেই ধারনা বদলে যায়। তিনি টলেমি ও ইউক্লিডের স্বজ্ঞাজনিত স্থান উপলদ্ধি ( intuitiveness of spatial perception )-কে একবাক্যে বাতিল করেন, তিনি বলেন, পারস্পরিক সম্পর্ক স্থির করার লক্ষ্যে, আকৃতি ও দূরত্ব সম্পর্কে বাস্তব ধারণা না থাকলে দৃষ্টি আমাদেরকে প্রায় কিছুই বলতে পারবে না (Without tangible notions of distance and size for correlation, sight can tell us next to nothing about such things.”

দক্ষিণ আমেরিকার ইনকারা স্থান ও কাল-কে একীভূত (single concept) মনে করত, তারা স্থান-কাল-এর একটি নাম দি্যেছে, পাচা (pacha), আন্ডিজ পর্বতমালার অধিবাসীরা এখনো এই ধারণাই পোষণ করে।

নিউটন-লেইবনিজ স্থান-কাল বিতর্কঃ
স্থান ও কাল নিজে নিজেই সত্যিকার অবজেক্ট (real objects ) নাকি তারা সত্যিকার অবজেক্ট সমূহের মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক এই নিয়ে বিতর্ক হয়েছিল দুই খ্যাতিমান বিজ্ঞানী স্যার ইসাক নিউটন ( Isaac Newton ) ও গটফ্রীড লেইবনিজ (Gottfried Leibniz)-এর মধ্যে। স্যার ইসাক নিউটন মনে করতেন স্থান ও কাল বস্তুর উপর নির্ভরশীল নয়। স্থান আরও যথাযথভাবে বললে চরম স্থান হলো একটি শূণ্য আধার যা নানাবিধ কায়া (body) ধারণ করে। এই আধার (স্থান) গতিহীন, অবিরাম ও সকল বিন্দুতে ও সকল দিকে সমসত্ত্ব (homogeneous)। এখানে কায়াগুলো থাকে তবে কায়াগুলো স্থানকে অথবা স্থান কায়াগুলোকে কোনভাবেই প্রভাবিত করেনা। একইভাবে সময় হলো পরম যা কোন কিছুর উপর নির্ভরশীল নয়। সময়ের তীর অতীত থেকে ভবিষ্যতের দিকে বহমান। স্থান যেমন কায়ার আধার সময় তেমনি ঘটনার আধার । নিউটন আরো মনে করতেন স্থান ও কাল পরস্পরের উপর নির্ভরশীল নয়।

পক্ষান্তরে স্যার আইজাক নিউটনের ধারণা বা তত্ত্বের বিরোধী আর একটি ধারণা বা তত্ত্ব প্রতিস্ঠিত হয় এরিস্টটলের শিক্ষার উপর ভিত্তি করে। এই ধারণাটি প্রতিষ্ঠা করেন গটফ্রীড লেইবনিজ । এই ধারণা অনুযায়ী স্থান ও কাল বস্তু থেকে বিচ্ছিন্ন নয় বরং তার উপর নির্ভরশীল। স্থান হলো কিছু কায়ার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক ও কাল হলো কিছু ঘটনার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক । যেখানে কায়া নাই সেখানে স্থান নাই এবং যেখানে ঘটনা নাই সেখানে কাল নাই। মহাবিশ্বের আবির্ভাবের সাথে সাথে জন্ম হয়েছে স্থান ও কালের। আবার মহাবিশ্ব কোন দিন যদি তীরোভুত হয়ে যায়, তার সাথে সাথে স্থান ও কাল-ও তীরোভূত হবে।

এদিকে জগৎবিখ্যাত বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন যার আপেক্ষিকতত্ত্ব (Theory of Relativity) নামের বৈপ্লবিক চিন্তাভাবনা বিজ্ঞানের জগতে সূচনা করেছে এক নতুন যুগের, তিনি স্থান ও কাল সম্পর্কে দিয়েছেন আরো একটি নতুন ধারণা। পরবর্তি পর্বে এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -8

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। এবারে পর্বে আলোচনা করব স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।

আলবার্ট আইনস্টাইনের স্থান ও কাল

প্রাচীন গ্রীক দার্শনিক ও বিজ্ঞানী এরিস্টটল বলেছিলেন, “বিশুদ্ধ চিন্তার সাহায্যেই মহাবিশ্ব নিয়ন্ত্রণকারী সকল আইন খুঁজে বের করা সম্ভব”। অর্থাৎ তাকে পরীক্ষার সাহায্যে প্রমাণের কোন প্রয়োজন নেই। ইসলামের স্বর্ণযুগে (Islamic golden age) মুসলিম বিজ্ঞানীরা পরীক্ষার সাহায্যে প্রমাণের উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। আরো অনেক পরে গ্যালিলিও ইউরোপীয় বিজ্ঞানে পরীক্ষার সাহায্যে প্রমাণের বিষয়টির প্রচলন করেন। স্থান ও কালের ধারণায়ও তত্ত্বের পাশাপাশি পরীক্ষাণের বিষয়টিও গুরুত্ব পেতে শুরু করে। স্থান-কালের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে আরেকটি বিষয়, সেটি হলো আলোর চলাচল। এক সময় মনে করা হতো আলোর বেগ অসীম। গ্রীক দার্শনিক এমপেডোক্লেস (Empedocles) প্রথম দাবী করেন যে, আলোর গতি সসীম। তিনি যুক্তি প্রদান করেন যে, আলো গতিশীল কোন একটা কিছু, তাই অন্যান্য গতিশীল কায়ার মত তারও ভ্রমণ করার জন্য কিছু সময় প্রয়োজন। পক্ষান্তরে এরিস্টটল বলেছিলেন কোন কিছুর উপস্থিতিতে আলো হয়, সুতরাং আলো গতিশীল কিছু নয়। আধুনিক আলোক বিজ্ঞানের জনক মুসলিম পন্ডিত আল হাজেন (আল হাইয়াম) বলেছিলেন আলো অত্যন্ত উচ্চ গতি সম্পন্ন তবে তার বেগ সসীম। এবং মাধ্যম ভেদে আলোর গতির তারতম্য হয়, ঘন মাধ্যমে কম ও হালকা মাধ্যমে বেশী। তিনি আরো বলেছিলেন আলো একটি বস্তু, সুতরাং তার সঞ্চারণের জন্যে সময়ের প্রয়োজন। ১১ শতকে আল বিরুনী আলোর বেগের সসীমতা সম্পর্কে একমত প্রকাশ করেন। তিনি আরো লক্ষ্য করেন যে আলোর বেগ শব্দের বেগের চাইতে বেশী। ১৬৭৬ সালে আলোর বেগ প্রথম বারের মত পরিমাপ করেন ডেনমার্কের বিজ্ঞানী রোমার (Roemer)। উনার পরিমাপ অনুযায়ী আলোর বেগ প্রতি সেকেন্ডে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার মাইল, যা আধুনিক যুগে পরিমিত এক লক্ষ ছিয়াশি হাজার মাইল থেকে খুব দূরে নয়।

আলোর সঞ্চালন সম্পর্কে সঠিক তথ্য ১৮৬৫ সালের পূর্বে আবিস্কৃত হয়নি। সেই সময় বৃটিশ পদার্থবিজ্ঞানী জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল ( James Clerk Maxwell) বিদ্যুত ও চুম্বক সম্পর্কিত প্রচলিত আংশিক তত্ত্বগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করতে সমর্থ হন। ম্যাক্সওয়েলের সাড়া জাগানো সমীকরঙুলো ভবিষ্যদ্বানী করেছিল যে সম্মিলিত বিদ্যুত-চুম্বক () ক্ষেত্রে একটি চাঞ্চল্য হওয়া সম্ভব যা সরোবরের তরঙ্গের সাথে তুলনীয়। সেই তরঙ্গটি স্থির দ্রুতিতে (Constant speed) চলমান হবে। এবার সেই দ্রুতিটি কিসের সাপেক্ষে নির্ণিত হবে সেটি একটি বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়ায়। এর ভিত্তিতে অনুমান করা হয় ইথার নামক একটি বস্তু আছে যা সর্বত্র বিরাজমান। আলোক তরঙ্গ এই ইথারের মধ্য দিয়ে চলে।

গ্যালিলিও-র বেগের সংযোগ (বিয়োজন) সুত্র অনুযায়ী, পরস্পরের দিকে ধেয়ে আসা দুটি চলমান কায়ার আপেক্ষিক বেগ এই দুটি কায়ার পৃথক পৃথক বেগের যোগফলের সমান হবে, আর পরস্পরের থেকে দূরে সরে যাওয়া দুটি চলমান কায়ার আপেক্ষিক বেগ এই দুটি কায়ার পৃথক পৃথক বেগের বিয়োগফলের সমান হবে। অর্থাৎ, দুটি ট্রেনের পৃথক পৃথক বেগ যদি হয় যথাক্রমে ৩০ ও ৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায়, তাহলে
তারা পরস্পরের দিকে ধেয়ে আসলে কোন একটি ট্রেনের যাত্রীর কাছে মনে হবে অপর ট্রেনটি তাকে প্রতি ঘন্টায় (৪০ + ৩০) ৭০ কিলোমিটার বেগে অতিক্রম করছে। পক্ষান্তরে, প্রথম ট্রেনটিকে যদি দ্বিতীয় ট্রেনটি পিছন থেকে অতিক্রম করে তবে তা প্রতি ঘন্টায় (৪০-৩০) = ১০ কিলোমিটার বেগে অতিক্রম করবে। আলোর বেগের ক্ষেত্রে গিয়ে এই নিয়মের ব্যতিক্রম দেখা গেল। ১৮৮৭ সালে আলবার্ট মাইকেলসন ( Albert Michelson) ও এডওয়ার্ড মর্লি (Edward Morley) অতি যত্ন সহকারে একটি পরীক্ষা করেন তারা পৃথিবীর গতির অভিমুখে আলোর বেগ ও পৃথিবীর গতির অভিমুখের সমকোণে আলোর বেগের তুলনা করেন। গ্যালিলিও-র বেগের সংযোগ (বিয়োজন) সুত্র অনুযায়ী যা ভিন্ন ভিন্ন হওয়ার কথা, সেখানে তারা বিস্ময়ের সাথে দেখলেন দুটি বেগই অভিন্ন। যা ইতিহাসে মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষা নামে খ্যাত হয়ে আছে।

১৮৮৭ থেকে ১৯০৫ সাল পর্যন্ত সাল পর্যন্ত ইতিহাসে মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার নানা রকম ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করা হয়। যে সকল বিজ্ঞানী এই ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেন তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন হেনড্রিক লোরেন্টজ ( Hendrik Lorentz)। কিন্তু সুইজারল্যান্ডের প্যাটেন্ট অফিসের একজন অখ্যাত কেরাণী ১৯০৫ সালে প্রকাশিত একটি বিখ্যাত গবেষণাপত্রে দেখিয়ে দেন যে, পরম কাল (absolute time)-এর ধারণা ত্যাগ করলেই এই ঘটনা ব্যাখ্যা করা যায়। এই অখ্যাত কেরাণীর নাম আলবার্ট আইনস্টাইন। এই নতুন তত্ত্ব যা পৃথিবী জুড়ে সাড়া ফেলে দেয় তা আজ আপেক্ষিক তত্ত্ব (theory of relativity) নামে পরিচিত। আপেক্ষিক তত্ত্বের উল্লেখযোগ্য ফলশ্রুতি হলো স্থান ও কাল সম্পর্কে আমাদের চিন্তাধারায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন। নিউটনের তত্ত্ব অনুসারে একটি স্থান থেকে স্থানে যদি আলোকের একটি স্পন্দন (pulse) পাঠানো যায়, তাহলে বিভিন্ন পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে তার ভ্রমণকাল সম্পর্কে মতৈক্য হবে। কারণ কাল পরম। পক্ষান্তরে আপেক্ষিক তত্ত্ব অনুযায়ী পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে তার ভ্রমণকাল ভিন্ন ভিন্ন হবে কেননা আলোর বেগ ধ্রুব । একইভাবে আলো কতটা দূরত্ব অতিক্রম করেছে সেটাও পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে ভিন্ন ভিন্ন হবে। অন্যকথায় আপেক্ষিক তত্ত্ব পরম কাল ও পরম স্থানের ধারণাকে শেষ করে দিয়েছে।

স্থান ও কাল যে পরম নয়, সেকথা আলবার্ট আইনস্টাইনের পাশাপাশি এরনস্ট ম্যাক্স (Ernst Mach (German pronunciation: [ˈɛɐnst ˈmax]) (February 18, 1838 – February 19, 1916))-ও বলেছিলেন।

নিউটনীয় বলবিদ্যা (চিরায়ত বলবিদ্যা) যা তিন শত বছর যাবৎ বিজ্ঞান ও দর্শনের জগতে প্রভাব বিস্তার করে ছিল, এবং আমরা ধরেই নিয়েছিলাম যে এই রহস্যময় জগতের প্রায় পুরোটাই আমরা বুঝে ফেলেছি, মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার পর স্পষ্ট বোঝা গেল যে, চিরায়ত বলবিদ্যারও সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এবং এই রহস্যময় জগতকে যতটুকু না মনে করেছিলাম তার চাইতেও অনেক বেশী রহস্যে ভরা। অন্ততপক্ষে চিরায়ত বলবিদ্যা সবকিছু ব্যাখ্যা করতে পারেনা। আলোর দ্রুতি সম্পন্ন অথবা তার কাছাকাছি দ্রুতি সম্পন্ন কায়াগুলোর প্রতিভাস (Phenomenon) ব্যখ্যা করতে চিরায়ত বলবিদ্যা ব্যর্থ। এই বিষয়টি ব্যখ্যায় আপেক্ষিক তত্ত্ব সাফল্য প্রদর্শন করে। যদিও অনেকেই মনে করেন যে মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার ব্যাপারটি আইনস্টাইনের জানা ছিলনা, তিনি বিচ্ছিন্নভাবেই তত্ত্বটি প্রতিষ্ঠা করেন।

১৯০৫ সালে প্রতিস্ঠিত আইনস্টাইনের আপেক্ষিক তত্ত্ব ছিল সমবেগ (uniform velocity) সম্পন্ন কায়াসমুহ নিয়ে। এই আপেক্ষিক তত্ত্বের নাম পরবর্তিতে দেয়া হয়েছিল বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্ব (special theory of relativity)। এরপর তিনি অসমবেগ বা ত্বরণ (acceleration) নিয়ে কাজ করতে শুরু করেন। মহাকর্ষ বল এই ত্বরণের আওতাভুক্ত। বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের সাথে নিউটনীয় মহাকর্ষীয় তত্ত্বের অসঙ্গতি ছিল। নিউটনীয় মহাকর্ষীয় তত্ত্ব অনুযায়ী বিভিন্ন কায়ার মধ্যে আকর্ষণ বল দুরত্বের উপর নির্ভরশীল, সময়ের উপর নয়। একটি কায়াকে যদি সরানো হয় তখন অন্য কায়াটির উপর প্রযুক্ত বলের তাৎক্ষণিক পরিবর্তন হবে। একে দূরক্রিয়া (action at a distance) বলা হয়। অর্থাৎ যত দূরেই থাকুক না ক্রিয়া হবে তাৎক্ষণিক। অন্যকথায় মহাকর্ষীয় ক্রিয়া অসীম গতিতে চলমান। কিন্তু বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের দাবী অনুযায়ী আলোর দ্রুতিই সর্বচ্চো। মহাকর্ষীয় ক্রিয়ার দ্রুতি আলোর দ্রুতি অপেক্ষা বেশী হতে পারবে না। তাকে হতে হবে হয় আলোর দ্রুতির সমান অথবা কম।

১৯০৭ থেকে ১৯১৪ সাল পর্যন্ত আইনস্টাইন চেষ্টা করেছেন এমন একটি মহাকর্ষীয় তত্ত্ব প্রতিষ্ঠা করতে যার সাথে বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের সঙ্গতি থাকবে। শেষে ১৯১৫ সালে তিনি নতুন আরো একটি বৈপ্লবিক তত্ত্ব প্রতিষ্ঠা করেন যার নাম সার্বিক আপেক্ষিক তত্ত্ব (General theory of relativity)। এই বৈপ্লবিক প্রস্তাব অনুযায়ী, মহাকর্ষীয় বল অন্যান্য বলের মত নয়। আগে যেরকম অনুমান করা হয়েছিল স্থান-কাল সেরকম সমতল নয়, বরং এটা বক্র অথবা বঙ্কিম (Warped)। তার কারণ স্থান-কাল-এ ভর ও শক্তির বন্টন। আইনস্টাইনের মতে মহাকর্ষ এরই ফলশ্রতি। যেকোন গুরুভর সম্পন্ন কায়া (massive body) তার চতুর্দিকের স্থান-কাল-কে বক্র করে ফেলে। পৃথিবী যে সুর্যের চতুর্দিকে বঙ্কিম কক্ষে ঘরছে তার কারণ মহাকর্ষ নামক বল নয়, বরং সে বঙ্কিম স্থানে সরলপথের নিকটতম পথ অনুসরণ করে। সেই পথের নাম জিওডেসিক (geodesic)। এভাবে সার্বিক আপেক্ষিক তত্ত্বের গুনে আমরা স্থান সম্পরকে নতুন জ্ঞান পেলাম যে, তা বক্র। পাশাপাশি সার্বিক আপেক্ষিক তত্ত্ব এও বলে যে গুরুভর সম্পন্ন কায়ার কাছাকাছি সময়ের গতি হয় শ্লথ। এই দুটো স্টেটমেন্টই পরীক্ষার দ্বারা প্রমাণিত।

পরবর্তী দশকগুলিতে স্থান-কাল সম্পর্কে এই নতুন বোধ আমাদের মহাবিশ্ব সম্পর্কীয় ধারনায় বিপ্লব এনেছে। আমাদের প্রাচীন ধারণা ছিল: মহাবিশ্ব মূলতঃ অপরিবর্তনীয়। তার অস্তিত্ব চিরকাল ছিল এবং চিরকাল থাকবে। এর জায়গায় বর্তমান ধারণা: মহাবিশ্ব গতিশীল ও প্রসারমান। সীমিতকাল পূর্বে তার শুরু এবং ভবিষ্যতে সীমিতকাল পরে তার শেষও হতে পারে।
স্থান-কাল সম্পর্কে বিজ্ঞান আপাততঃ এখানে এসে থেমে গেলেও। এই আলোচনা এখানেই শেষ না। এই বিষয়ে দার্শনিকদের আরো কিছু বলার আছে। বিষয়টি নিয়ে আমি পরবর্তী পর্বে আলোচনা করব।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৫

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে। এবারের পর্বে আলোচনা করব স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন

দর্শন শাস্ত্র বলে ‘স্থান-কাল হলো বস্তুর অস্তিত্বের একটি রূপ’ (Space-time is the form of existence of matter )। কিন্তু এর অর্থ কি? এর ব্যখ্যা প্রাথমিকভাবে উপমার দ্বারা করা যেতে পারে। আমরা সবাই ভালোবাসা, ঘৃণা, বন্ধুত্ব এই বিষয়গুলোর সাথে পরিচিত। এখন প্রশ্ন হলো একটি কলম বা একটি গোলাপের চারার মত কি ভালোবাসার স্বাধীন সত্তা আছে? অবশ্যই নয়। ভালোবাসা হলো দুই বা ততোধিক মানুষের মধ্যে আবেগগত সম্পর্ক। যেখানে মানুষ নাই বা কোন জীবন্ত সত্তা নাই সেখানে ভালোবাসাও নাই। অনুরূপভাবে সমাজের বাইরে কি অপরাধ সংঘটিত হয়? অবশ্যই নয়। অপরাধ সমাজেরই একটি বৈশিষ্ট্য। যেখানে সমাজ নাই সেখানে অপরাধ নাই। সুতরাং দুই ধরণের বিশেষ্য আছে, এক ধরনের সুনির্দিষ্ট কিছু অবজেক্টকে বোঝায় যার স্বাধীন সত্তা আছে, আর দ্বিতীয় ধরণটির স্বাধীন সত্তা নাই সে অবজেক্টগুলোর মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্ক। যেমন, ভালোবাসা, শৃংখলা, শ্রদ্ধা, ইত্যাদি।

স্থান ও কালের ধারণা ঐ দ্বিতীয় ধরণের মধ্যে পরে। বস্তুর অনুপস্থিতিতে স্থান ও কাল স্বাধীনভাবে টিকে থাকতে পারেনা। যেখানে বস্তু নাই সেখানে স্থান ও কাল কোনটাই নাই। স্থান হলো কতগুলো কায়ার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক। যেমন চার দেয়ালে ঘেরা একটি কক্ষে যদি দশটি চেয়ার থাকে। তবে সেই স্থানটি ঐ অবজেক্টগুলো দ্বারাই গঠিত।দুটি দেয়ালকে যদি পরস্পর থেকে দূরে সরিয়ে নেই, অথবা চেয়ারগুলোর সজ্জাকে যদি পরিবর্তন করি। তাহলে স্থানও পরিবর্তিত হয়ে যাবে। আমার স্ত্রী প্রায়ই আমাদের ঘরের আসবাবপত্রের সজ্জ্বা পরিবর্তন করেন। যতবারই তিনি এটা করেন ততবারই আমার মনে হয় জায়গাটি বদলে গিয়েছে। একইভাবে সময় হলো কিছু ঘটনার মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্ক। যেমন এক মিনিট বলতে আমরা কি বুঝি? যদি ঐ কক্ষটিতে একটি দেয়াল ঘড়ি থাকে তাহলে ঘড়িটির সেকেন্ডের কাটার ১২টার ঘরে থাকার প্রথম ঘটনা ও একবার ঘুরে এসে পুনরায় ১২টার ঘরে আসার দ্বিতীয় ঘটনা, এই দুটি ঘটনার মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্কই এক মিনিট। উপরন্তু সময় হলো গতির ফলাফল। উপরের ঘটনা দুটি ঘটানোর জন্য সেকেন্ডের কাটাকে গতিশীল হতে হয়েছিল। এখন ঐ কক্ষে যদি ঐ ঘড়িটি ছাড়া আর কোনই ঘড়ি না থাকে আর সেকেন্ডের কাটার বেগ যদি কম হয় (চলতি কথায় স্লো হয়), তাহলে এবার মিনিটগুলোর আকৃতি হবে বড়। উল্টোভাবে বেগ যদি বেশী হয় (চলতি কথায় ফাস্ট হয়), তাহলে মিনিটগুলোর আকৃতি হবে ছোট। পৃথিবী যখন নিজ অক্ষের চতুর্দিকে একবার ঘুরে আসে সেটাকে আমরা বলি একদিন। আবার সুর্যের চারদিকে একবার ঘুরে আসলে তাকে বলি এক বৎসর। এইসব উদাহরণ থেকে স্পস্ট বোঝা যায় যে ঘটনার উপর ও গতির উপর সময় নির্ভর করে। যেখানে গতি নাই সেখানে সময়ও নাই।

স্থান ও কাল হলো গতির সরাসরি ফলাফল। গতি যেমন সময়ের জন্ম দেয় তেমনি স্থান (কতগুলো কায়ার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক)-কেও অবিরাম পরিবর্তিত করে। স্থান ও কাল উভয়েরই একটি একক ভিত্তি (Single foundation) রয়েছে। আর তা হলো গতিশীল বস্তু (Moving matter)। তারা হলো একটি Single common basis-এর দুটি ভিন্ন manifestation। এইভাবে কেবল পদার্থবিজ্ঞান নয়, দর্শনশাস্ত্রেও ধরা হয় স্থান ও কালের একটিই মাত্র মৌলিক উৎস রয়েছে, আর সেটি হলো বস্তুর গতি (Movement of matter)।

স্থান ও কালের আরো দুটি ধর্ম হলো পরমত্ব (absoluteness ) ও আপেক্ষিকতা ( relativity)। পরমত্ব বলতে বোঝায় বস্তুর উপর স্থান ও কালের পরম নির্ভরতা, অর্থাৎ বস্তু না থাকলে স্থানও নাই কালও নাই। আর আপেক্ষিকতা বলতে বোঝায় স্থান ও কালের ধর্ম ও বৈশিষ্ট্য নির্ভর করে যে বস্তুগুলো স্থান ও কালকে সৃষ্টি করছে তাদের প্রকৃতির উপর। আধুনিক পদার্থবিজ্ঞান তিন ধরনের স্থান ও কালকে অধ্যয়ন করে। ক্ষুদ্র (micro- ), বৃহৎ (macro- ), অতিবৃহৎ (mega-) জগৎ (world)। macro-world যেখানে আমরা বসবাস করছি সেখানে স্থান ত্রিমাত্রিক, micro- world অর্থাৎ ক্ষুদ্র কণিকার জগৎ সেখানে স্থান বহুমাত্রিক (তিন কি চারের অধিক মাত্রা আছে), অতিবৃহৎ (mega-world) জগৎ গ্রহ-নক্ষত্র-ধুমকেতু ইত্যাদির জগতে সর্বাধিক প্রভাব বিস্তারকারী মিথস্ক্রিয়া (interaction) হলো মহাকর্ষ (gravitation), এই মহাকর্ষ স্থানকে বাঁকিয়ে ফেলে, যা পূর্বেই বলা হয়েছে।

আধুনিক দর্শনে আরো কিছু সময়ের ধরণের কথাও বলা হচ্ছে যেমন, Biological time, geological time, historical time, time of chemical changes ইত্যাদি। আবার সময়ের হিসাবেরও নানা উপায় আছে যেমন এই আমরাই একই সাথে সৌর ও চন্দ্র ক্যালেন্ডার ব্যবহার করে থাকি। আবার স্পেনীয়রা দক্ষিণ আমেরিকা দখলের পর দেখেছিল যে তাদের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ইতিমধ্যে ৪১ তম শতাব্দী চলছে। তারপর খোঁজখবর নিয়ে জানা গেল যে তারা শুক্র গ্রহীয় (Venusian) ক্যালেন্ডার ব্যবহার করছে। অপেক্ষার সময় যায় ধীরে আর আনন্দের সময় যায় দ্রুত, এটা Biological time-এর একটা উদাহরণ। আলো আঁধারীর ধোকা দি্যে মুরগীকে ২৪ ঘন্টায় ২ বার ডিম পারানো যায়। আমাদের কাছে যেটা এক দিন মুরগীর কাছে সেটা দুই দিন। এটাও Biological time-এর একটা উদাহরণ। এমন আরো অনেক কিছু।

আরো একটি ইন্টারেস্টিং আলোচনা হলো বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান ও কাল। পরবর্তী পর্বে এই বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৬

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।
এবারের পর্বে আলোচনা করব বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান ও কাল নিয়ে।

বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান ও কাল

বিশ্ব জুড়ে উদ্ভুত ও টিকে থাকা সকল সংস্কৃতির ভিত্তির সাথে স্থান ও কালের গভীর ও মৌলিক সম্পর্ক রয়েছে। এইভাবে, দুজন ভিন্ন ভিন্ন ব্যাক্তির স্থান ও কাল সম্পর্কে যদি ভিন্ন ভিন্ন ধারণা থেকে থাকে, তবে নিশ্চিত থাকুন যে, তাদের সংস্কৃতিগত দৃস্টিভঙ্গীও ভিন্ন ।

এখান থেকে উদ্ভুত হয় একটি নতুন সমস্যা বা প্রশ্নের: একটি নির্দিষ্ট স্থান-কালের সংস্কৃতিতে বসবাসকারী মানুষ কি করে ভিন্ন কাঠামোর অন্য একটি স্থান-কালের সংস্কৃতিকে বুঝতে পারবে? একজন এটা কেবলমাত্র তখনই করতে পারে যখন সে নিজস্ব সংস্কৃতির সুনির্দিষ্টতা (specifics) এবং অসার্বজনীনতা (Non-universality) বিমূর্ততার মধ্যে দিয়ে অনুধাবন করতে পারে।

সাংস্কৃতিক সময় (Cultural time) বলতে আমরা এই বুঝব যে, কিছু ঘটনাবলীর (events) Standard movements যা মানুষের দ্বারা পূর্বনির্ধারিত, এবং ঘটনাগুলো ঘটেছে মানুষেরই তৈরী বিশেষ পরিবেশে। নানাবিধ সময়ে নানাবিধ মানুষ সৃষ্টি করেছে বিভিন্ন সাংস্কৃতি-কালীক আদর্শ (Cultural-temporal standards )। যার ফল হয়েছে বিভিন্ন যুগ ও মেটাযুগের (Epoch) পরিবর্তন, যা মূলতঃ ছিল একটি কালীক সংস্কৃতি থেকে আরেকটি কালীক সংস্কৃতিতে উত্তরণ। মানবজাতির ইতিহাসে আপাতঃদৃষ্টিতে তিন ধরনের সাংস্কৃতি-কালীক আদর্শ একে অপরকে পুনস্থাপিত করেছে – কাল কখনো বদ্ধ চক্র (Closed circle), কখনো বিন্দু (Point ), আবার কখনো রেখা (line)। আসুন এই বিষয়ে এবার বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

আধুনিক যুগের মানুষেরা মনে করে সাংস্কৃতিক সময় অতীত থেকে বর্তমান হয়ে ভবিষ্যতের দিকে যাচ্ছে। আবার আমাদের দূর পূর্বপুরুষরা যারা প্রাচীন সংস্কৃতিসমুহ সৃষ্টি করেছেন, তারা কালের সম্পুর্ণ ভিন্ন মডেল গ্রহন করেছিলেন। অস্ট্রেলীয় এ্যবরিজিন, প্রাচীন চীন, ও প্রাচীন ভারতীয় উপমহাদেশে কালকে চক্রাকার ও বদ্ধ জ্ঞান করা হয়েছিল।

এটা বলের অপেক্ষা রাখেনা যে, আধুনিক আমরা ও আমাদের পূর্বপুরুষেরা পৃথিবী নামক এই একই গ্রহের অধিবাসী। তারপরেও তাদের বুঝতে পারা (Understanding ) ও সংস্কৃতিগত উপলদ্ধি (perception) ছিল আমাদের থেকে একেবারেই ভিন্ন।

কালের চক্রাকার মডেল তৈরীর কারণ নিম্নরূপ হতে পারে। প্রথমতঃ তাদের দৈনন্দিন জীবনে তারা প্রতিদিন মুখোমুখী হতেন বিভিন্ন ঘটানাবলীর যারা ছিল চক্রাকার এবং দৈবাৎ (Random) অর্থাৎ অপরিক্রমশীল (Non-recurring)। দ্বীতিয়তঃ কিছু ঘটনাবলী আছে যারা Non-recurring ফলতঃ সহজে মনে রাখার মত নয়। এই কারণে তাদেরকে বোঝাও শক্ত ছিল। অপরপক্ষে, দিন ও রাতের অবিরাম পরিক্রমা (recurrence), চক্রাকারে চাঁদের কলার পূর্ণতা ও ক্ষয়। জোয়ার ভাটার চক্র, ঋতুচক্র, ইত্যাদি অসংখ্য প্রাকৃতিক চক্র ছিল তাদের কাছে সহজে অনুধাবনযোগ্য। এ কথা সকলেই জানি যে, প্রাচীন যুগের মানুষের সময় পরিমাপের জন্য আধুনিক যুগের মত এত সুক্ষ্ম যন্ত্রপাতি ছিলনা। তাই অনিবার্য্যভাবেই তাদেরকে নির্ভর করতে হতো biological time-এর উপর। (আমার দাদার দেরাজ নামের একজন ভৃত্য ছিলেন, আমি তাকে প্রশ্ন করা মাত্রই তিনি ঘড়ি না দেখেই নিখুঁতভাবে সময় বলে দিতেন, এটা পারতেন কারণ তিনি তার দেহের অভ্যন্তরস্থ biological time-এর সাহায্য নিতেন)।

চক্রাকার সময়ে ভবিষ্যৎ অজানা কিছু নয়। অবাক হবার কিছু নাই যে প্রাচীন ভাষাগুলোতে ‘ভবিষ্যৎ’ বলে কোন শব্দ ছিল না, ছিল কেবল অতীত ও বর্তমান । ‘ভবিষ্যৎ’ শব্দটির উদ্ভব অনেক পরে।

চক্রাকার সময় মডেলের ছাপ আধুনিক যুগেও আছে। যেমন আমরা প্রতি বছর জন্মদিন পালন করি। ঐদিনটি এমনভাবে উদযাপন করি যেন সে নতুন কেউ, আজই জন্ম নিল। অথবা নববর্ষকে এমনভাবে বরণ করি যেন সবকিছুই নতুনভাবে শুরু হতে যাচ্ছে।

আবার প্রাচীন মিশরীয়রা সূর্য ও চন্দ্রগ্রহন হিসাব করতে পারত না। প্রতিটি গ্রহণই তাদের কাছে ছিল অপ্রত্যাশিত। উল্কাপাতের মতই ভয়ংকর এবং দৈবাৎ। তাই তারা সূর্য ও চন্দ্রগ্রহনকে ভয় পেত। তা তাদের মনে কঠিন অনুরণন সৃষ্টি করত।

ইউরোপ মহাদেশের মানুষ বহু শতাব্দী যাবৎ বুঝতে পারেনি যে কোন পথ (route) ধরে ঘটনাবলী চলমান। এবং তারা গঠন করতে ব্যর্থ হয়েছিল উপযোগী একটি Time Matrix , যেখানে সবগুলো ঘটনাবলীকে একটি ধারাবাহিকতায় রাখা যেতে পারে । ফলে যেকোন ঘটনাকেই বর্তমানে ঘটেছে বলে ধরে নিতে হয়েছে। এটাই হলো ‘point time’। (উদাহরণস্বরূপ, আমাদের দেশে কিছু মানুষ আছে যারা বর্তমানকেই সবকিছু মনে করে যাবতীয় দুর্নীতি করে থাকে, ভবিষ্যৎের কথা ভাবেই না।) এটাকে সময়ের punctate idea-ও বলে।

প্রাচীন গ্রীকদের সংস্কৃতি সময়ের punctate idea দ্বারা বৈশিষ্ট্যমন্ডিত ছিল। গ্রীকরা universally extended time-কে কল্পনা করতে পারত না। এটাকে এইভাবে উপমা টেনে ব্যাখ্যা করা যায় যে, একটি ফুটবল ম্যাচের প্রথমার্ধের পর ফলাফল যদি হয় ৪:০। আমরা স্পস্টই বুঝতে পারি যে চূড়ান্ত ফলাফল কি হবে। একজন প্রাচীন গ্রীকের কাছে এই ৪:০ স্কোর কোন অর্থবহন করেনা। তার মতে বাকী অর্ধাংশের পর যেকোন ফলাফলই হতে পারে, তার সাথে প্রথমার্ধের কোনই সম্পর্ক নাই। কালের যেকোন মুহূর্তে ঘটনা যেকোন দিকেই মোড় নিতে পারে। এটাই হলো কালের punctate approach ।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৭

রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

ষষ্ঠ পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে কাল নিয়ে।
এবারের পর্বে আলোচনা করব বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান নিয়ে।

আসুন এবার আমরা স্থান ও প্রাসঙ্গিক পরিবর্তন সংক্রান্ত সংস্কৃতিগত ধারণা (cultural concept) গুলো নিয়ে আলোচনা করব। গ্রীকদের সৃষ্ট স্থানের punctate ধারণা অনেক আগেই বিস্মৃত হয়ে গিয়েছে। এই ধারণা পরবর্তি দুটি সংস্কৃতি স্থান মডেল (cultural space model)-এর দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে। স্মরণাতীত কাল থেকেই পাথরে খোদাই করে ছবি আঁকা হতো। আবার শিশুরাও চিত্রাংকন করত। এগুলো প্রাচ্যের সংস্কৃতিরও বৈশিষ্ট্য। চিত্রাংকনে Perspective Representation বলে একটি ধারণা আছে: একটি সমতলের উপরে (যেমন কগজ অথবা ক্যনভাস) কোন ছবির যেমনটি চোখে দেখেছি তেমনি করে মোটামুটি উপস্থাপন। এই জাতীয় চিত্রের দুটো বৈশিষ্ট্য হলো ১। অবজেক্ট যত দূরে হবে, আকৃতি তত ছোট হবে। ২। দৃষ্টি বরাবর লাইনগুলো ছোট হতে হবে এবং দৃষ্টির আড়াআড়ি লাইনগুলো বড় হবে।

প্রাচ্যের সংস্কৃতির অপর বৈশিষ্ট্ চিত্রাংকনে Pre-perspective Representation-এ স্থানের উপস্থাপন নিম্নরূপ হতে পারে, ইদাহরণস্বরূপ, চার দেয়াল বিশিষ্ট একটি কক্ষকে যখন কোন ক্যানভাসে আঁকা হয়, তখন তাকে একদিক থেকে দেখা তিনটি দেয়াল সম্পন্ন কক্ষ হিসাবে আঁকা হয়। যদিও, বাস্তবে আমরা এক দৃষ্টিতে দুটার বেশী দেয়াল দেখিনা। অনেক সময় কেবল একটি দেয়ালও দেখি। এই পদ্ধতিতে ছবি আঁকা হতো ১৩ শতক পর্যন্ত।

১৪ শতক থেকে শিল্পিরা ভিন্নভাবে আঁকতে শুরু করলেন। এবার তারা ছবি আঁকতে শুরু করলেন একটি জানালার মত করে যার ভিতর দিয়ে দৃষ্টি মেলে সপাচে-কে দেখা যাবে Volumetric-ভাবে, সমতলভাবে নয়। জানালার ষধারণাটি প্রচীনকালেও ছিল। তবে ইউরোপে মধ্য ১৪ শতকে এই ধারণা খ্রীষ্টধর্মের দ্বারা প্রসারিত হয়, প্রাচ্য সংস্কৃতির সাথে তার সম্পর্ককে গুরুত্ব দিয়ে, কেননা খ্রীষ্টধর্মের নিজেও প্রাচ্য দর্শন।

একটি জটিল Cultural-intelectual-religious প্রক্রিয়া Pre-perspective চিত্রাঙ্কনকে linear-perspective চিত্রাঙ্কনে নিয়ে আসে। linear-perspective চিত্রাঙ্কনে আলোককে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয় মনে হবে যেন সেটা পেইন্টিং-এর চতুষ্কোন থেকে দর্শকের আঁখিতে প্রবেশ করছে। এই জাতীয় চিত্রাঙ্কনে আলোকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়। এটা ঐ দর্শনের সাথে জড়িত যে ইশ্বর প্রথম দিবসেই আলো সৃষ্টি করেছেন। এভাবে linear-perspective চিত্রাঙ্কন একটি পবিত্র চিত্রে পরিণত হয়। এই চিত্রাঙ্কন Parallel-meridian coordinate তথা গুরুত্বপূর্ণ ভৌগলিক মানচিত্র তৈরী করতে সাহায্য করে। যা পরর্তিতে ইউরোপবাসীদের বৃহৎ ভৌগলিক আবিষ্কারে (আমারিকা, ভারত উপমাহাদেশ ও অস্ট্রেলিয়া গমণের সমুদ্রপথ) উদ্ধুদ্ধ করে।

বিভিন্ন ধরনের স্থানকে স্বাতন্ত্রমন্ডিত করা সম্ভব হয়েছিল এই পর্যবেক্ষণ করে যে তারা ঠিক কিভাবে Co-arranged। অর্থাৎ তারা কি Pre-perspective না linear-perspective চিত্রাঙ্কন পদ্ধতিতে প্রদর্শিত।

এদিকে যুগের পর যুগ Cultural space-ও নানাভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। বহু বহু বছর মানুষ নিজেকে প্রকৃতির খুব কাছাকাছি ভাবত। তাই প্রাকৃতিক পরিবেশ ছিল Cultural space-এর একটি বিরাট অংশ জুড়ে। এবং এটাই প্রদর্শিত হয়েছে ফোকলোর, চিত্রকলা ও সঙ্গিতে। বাংলাদেশ বলি আর ইউরোপ বলি সবখানেই একটি মানব চিত্রের পিছনের পটভূমিতে ছিল নৈসর্গিক দৃশ্য। উজ্জ্বল উদাহরণ দ্যা ভিঞ্চির ‘মোনালিসা’। বিশ শতকের দিকে এসে Cultural space পরিবর্তিত হয়। এখন আমরা পটভূমিতে দেখতে পাই ইন্ডাস্ট্রি, বহুতল ভবন ইত্যাদি। বিশ শতকের শুরুতে চিত্রকলা এমন এক নতুন রূপ নেয় যা অতীতে কখনোই ছিল না। আবার ইদানিং ঐ যান্ত্রিকতায় ক্লান্ত হয়ে, ওখান থেকে সরে আসার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। মানুষ আবার বেশী বেশী করে আঁকতে শুরু করেছে বাগান, গৃহপালিত পশুপাখী, গ্রামাঞ্চল, ইত্যাদি। বলতে শুরু করেছে, ‘ফিরিয়ে দাও অরণ্য, লওহে নগর’।

কোলাহল মুখর দিবস পেরিয়ে এসেছে নিঝুম রাত,
রহস্য নেমেছে শস্যক্ষেতে ঘন কূয়াশায় চেপে,
শীতল হাওয়া মেঘের চিরেছে বুক,
ঝরিয়ে শিশির ভিজিয়েছে ঘাস,
বৃক্ষের কানে কানে ঝি ঝি-দের সুর,
শুনিয়েছে উচ্ছাস!
মেঘ, কুয়াশা, আকাশ, নদী আর এই স্থবির মাটি,
একান্তই অন্তরঙ্গ হয়ে ওঠে,
চোখের পাতা জুড়ে হাসে, নতুন স্বপ্ন ছায়া,
প্রকৃতির একি অপরূপ মায়া!!!

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা – ৮

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

ষষ্ঠ পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে কাল নিয়ে।
সপ্তম পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান নিয়ে।
এবারের অর্থাৎ অষ্টম পর্বে আলোচনা করব মহাবিশ্বের কণিকা জগৎ নিয়ে।

মহাবিশ্বের ক্ষুদ্রতম গঠন একক

পদার্থের যেসব মৌলিক উপাদানে জগৎ তৈরী হয়েছে তাদের নাগাল পাওয়ার আকাঙ্খা এই জগতের মতই পুরণো। কিন্তু বহু বহু শতাব্দী ধরে এই বিষয়টি জ্ঞানী ব্যাক্তিদের পন্ডিতি তর্ক আশ্রয় করেছিল। প্রাচীন যুগেই এ্যটোমিসম নামে একটি Natural Philosophy বিকশিত হয়েছিল। যেই দর্শন বলেছিল প্রকৃতি জগৎ দু’টি মৌলিক অংশ দ্বারা গঠিত – এ্যটম ও শূণ্যতা। এ্যটম (অতম – যাকে আর ভাঙা যায়না)। গুজরাটী ঋষি ও দার্শনিক কণাদ, খ্রীষ্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে প্রথম এই ধারণা দেন। এই নি্যে একটি মজার গল্প প্রচলিত আছে। একদিন কণাদ হাতে খাবার নি্যে হাটছিলেন, তারপর তিনি খাবার আঙুল দিয়ে ভাঙতে শুরু করলেন। ভাঙতে ভাঙতে একটা পর্যায়ে এসে আর ভাঙতে পারছিলেন না। সেখান থেকেই উনার মনে ধারণা আসে যে, মাহাবিশ্বকেও ভাঙতে ভাঙতে এমন একটি ক্ষুদ্র অংশে নিয়ে আসা যাবে যাকে আর ভাঙা যাবেনা। তিনি তার নাম দিয়েছিলেন অণু। ঋষি কণাদ ছিলেন বৈশেশিকা দর্শন বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা। এই দর্শন বিদ্যালয় বিশ্বাস করত যে, অণু অবিভাজ্য, এইরূপে অমর (eternal)। তারা আরো বিশ্বাস করত যে, অণু খালি চোখে দেখা যায়না, এবং তা হঠাৎ আবির্ভুত হয় এবং হঠাৎ তীরোহিত হয়।

বৈশেশিকা দর্শন বিদ্যালয় বলত যে, একই পদার্থের অণুগুলো মিলে দ্বিঅণু ও ত্রিঅণু পদার্থ তৈরী করে। কণাদ আরো বলেন যে, প্রভাবকের (যেমন তাপ) প্রভাবে বিভিন্ন অণু সংযুক্ত হয়ে রাসায়নিক পরিবর্তন ঘটায়। মৃন্ময় পাত্রের কালো হয়ে যাওয়া ও ফলের পেকে ওঠা ইত্যাদি ঘটনাকে তিনি উদাহরণস্বরূপ উপস্থাপন করেন।

বৌদ্ধ এ্যটোমিজমের দুইটি ধাপ রয়েছে এক, খ্রীষ্টপূর্ব ৪র্থ শতাব্দীতে তারা বলেন উপাদানের উপর নির্ভর করে চার ধরনের অণু রয়েছে, প্রত্যেকটি উপাদানের আবার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যেমন দৃঢ়তা ও গতি; দুই, খ্রীষ্টিয় পঞ্চম-সপ্তম শতাব্দীতে বৌদ্ধ দার্শনিক দিগনাগ (পঞ্চম শতাব্দী) ও ধর্মকীর্তি (সপ্তম শতাব্দী) এ্যাটম সম্পর্কে কিছু বলেছিলেন। নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বৌদ্ধ দার্শনিক ধর্মকীর্তি দিগনাগের ধারণাকে এগিয়ে নিয়ে বলেন অণু হলো বিন্দু-আকৃতির (point-sized), স্থিতিকালহীন (durationless) ও শক্তি দ্বারা গঠিত। ধর্মকীর্তি momentary atom সম্পর্কেও বলেছিলেন, অর্থাৎ যা চকিতেই অস্তিত্ববান হয় আবার চকিতেই হারিয়ে যায়।

এ্যটোমিজমের বৌদ্ধ ধারণাকে বর্ণনা করতে গিয়ে রুশ ইন্ডোলজিস্ট ফিওদর শেরবাত্স্কি (Stcherbatsky (১৮৮৬-১৯৪২)) বলেছেন – The Buddhists denied the existence of substantial matter altogether. Movement consists for them of moments, it is a staccato movement, momentary flashes of a stream of energy… “Everything is evanescent,” … says the Buddhist, because there is no stuff … Both systems [Sānkhya and later Indian Buddhism] share in common a tendency to push the analysis of Existence up to its minutest, last elements which are imagined as absolute qualities, or things possessing only one unique quality. They are called “qualities” (guna-dharma) in both systems in the sense of absolute qualities, a kind of atomic, or intra-atomic, energies of which the empirical things are composed. Both systems, therefore, agree in denying the objective reality of the categories of Substance and Quality, … and of the relation of Inference uniting them. There is in Sānkhya philosophy no separate existence of qualities. What we call quality is but a particular manifestation of a subtle entity. To every new unit of quality corresponds a subtle quantum of matter which is called guna “quality”, but represents a subtle substantive entity. The same applies to early Buddhism where all qualities are substantive … or, more precisely, dynamic entities, although they are also called dharmas (“qualities”).

গ্রীক এ্যটোমিজম:
কোন চূড়ান্ত অবিভাজ্য বস্তু আছে কি?
(Is there an ultimate, indivisible unit of matter?)

প্লেটো বা এরিস্টটলের আগেই। গ্রীক দার্শনিক লুসিপাস ও তার ছাত্র ডেমোক্রিটাস অণুর ধারণা দিয়েছিলেন। ডেমোক্রিটাস সক্রেটিস ও সোফিস্টদের সমসাময়ীক ছিলেন। ডেমোক্রিটাসের মতে এ্যটম জ্যমিতিকভাবে নয় তবে ভৌতভাবে অবিভাজ্য। দুটি এ্যটমের মধ্যে আছে শূণ্য স্থান (empty space)। এ্যটম ধ্বংসযোগ্য নয় (indestructible), সে সর্বদাই গতিশীল, এ্যটম সমূহের সংখ্যা অসীম, এবং তা বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে। এই প্রকারভেদ নির্ভর করে তার অবয়ব (shape) ও আকৃতির (size) উপর। আধুনিক বিজ্ঞানে ডেমোক্রিটাসের এই ধারণার প্রতিফলন আমরা দেখতে পাই, বিজ্ঞানের ভাষ্য অনুযাযী, ১১২ টি মৌলিক পদার্থের প্রত্যেকটির এ্যটমই ভিন্ন ভিন্ন আকৃতির। ডেমোক্রিটাস আরো বলেছিলেন যে, এ্যটমের প্রকারভেদ তাপ (heat)-এর উপর নির্ভর করে, যেমন গোলকাকৃতি (spherical) এ্যটম সব চাইতে বেশী উত্তপ্ত, যার দ্বারা আগুন গঠিত, আর এ্যটম ও ভর সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন যে, এ্যটম ভরের উপর নির্ভরশীল – ভর যত বেশী এ্যটমটিও তত বড়। ঠিক এখনেই এ্যটমিজমের কনট্রাডিকশন ধরা পড়ে। একদিকে বলা হচ্ছে এ্যটমই ক্ষুদ্রতম গঠন একক, আবার অপরদিকে বলা হচ্ছে যে, তা ভরের উপর নির্ভরশীল। যদি ভরের উপর নির্ভরশীলই হবে তাহলে এ্যটমের মৌলিকত্ব থাকল কোথায়?

গ্রীক দার্শনিক হেরাক্লিটাস বলেছিলেন যে, একই নদীতে দুবার অবগাহন করা যায়না, অর্থাৎ জগৎ-সংসার পরিবর্তনশীল; অন্যদিকে দার্শনিক পারমেনিডাস বিশ্বাস করতেন পরিবর্তন বাস্তব কিছু নয় তা হচ্ছে মায়া (illusion)।

পারমেনিডাস গতি, পরিবর্তন ও শূণ্যতা (void) ইত্যাদিকে অস্বীকার করেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে, অস্তিত্ববান সবকিছুই অনন্য (single) চারপাশে যা কিছু আছে তা সবই অপরিবর্তনীয় ভর (এই ধারণাকে বলা হয় অনন্যবাদ বা monism ), এবং গতি, পরিবর্তন সবই মায়া। পারমেনিডাস sensory experience-কে অস্বীকার করেন এবং বলেন মহাবিশ্বকে বোঝার সঠিক পথ হচ্ছে abstract reasoning। প্রথমতঃ তিনি বিশ্বাস করতেন যে শূণ্যতা (void) বলে এমন কিছু নেই যাকে আমরা nothing বলতে পারি, (আবার শূণ্যতা যদি something হয় তবে সেটা শূণ্যতা নয়)। এর ফল দাঁড়ালো এই যে, গতি বলে কিছু নাই কারণ কোন কিছুকে চলাচল করতে হলে তার শূণ্যতার প্রয়োজন হবে।

তিনি আরো বলেন যে অবিভাজ্য একটি এককের প্রয়োজন আছে, যদি সেটা manifold হয়, তাহলে void-এরও প্রয়োজন দেখা দেয় যা তাদেরকে বিভাজন করবে, কিন্তু ইতিপূর্বেই উল্লেখ করেছি যে তিনি void-এ বিশ্বাস করতেন না। ডেমোক্রিটাস পারমেনিডাসের বেশীরভাগ আরগুমেন্টই মেনে নেন, তবে পরিবর্তন একটি মায়া, এই ধারণাটি তিনি মেনে নিতে পারেননি। তিনি মনে করতেন পরিবর্তন বাস্তব, আর যদি তা না হয়, তবে মায়া কি সেটা আগে বোঝার প্রয়োজন আছে। এভাবে তিনি void-কে সমর্থন করেন এবং বলেন যে মহাবিশ্ব অনেক পারমেনিডিয়ান সত্তার দ্বারা গঠিত, যারা void-এর মধ্যে গতিশীল, আর void অসীম।

এ্যটমকে অস্বীকার:
প্লেটো ডেমোক্রিটাসের এ্যটমিজমের প্রয়োজনহীনতার আভাস দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে, মহাবিশ্ব চিরকালিন (eternal) নয়, একে সৃষ্টি করা হয়েছে। এই সৃষ্টির একাংশ হলো চারটি উপাদান আগুন, মাটি, পানি এবং বাতাস। তিনি আরো মনে করতেন যে, এই উপাদানগুলো প্রত্যেকেই জ্যমিতিকভাবে ঘনবস্তু। এরিষ্টটল মনে করতেন যে এই চারটি উপাদান এ্যটম দ্বারা সৃষ্ট নয় বরং তারা নিরবিচ্ছিন্ন (continuous)। এই উপাদানগুলোর উপর দুটা বল (force) ক্রিয়াশীল: মহাকর্ষ – মাটি ও পানির ডুবে যাওয়ার প্রবনতা, এবং লঘুত্ব – বাতাস এবং আগুনের উপরে ওঠার প্রবণতা। আমরা মহাবিশ্বের উপাদানগুলোকে পদার্থ এবং বলে বিভাজন আজও ব্যবহার করি।

এরিষ্টটলের বিশ্বাস মতে পদার্থ নিরবিচ্ছিন্ন, ফলে তাকে বিভাজন করা যায় এবং এই বিভাজনের কোন শেষ নাই। এমন কোন পদার্থ কণিকা পাওয়া সম্ভব না যাকে ভাগ করা যায়না। এদিকে ডেমোক্রিটাস বিশ্বাস করতেন যে পদার্থ বহু প্রকার দানাদার পরমানুর দ্বারা গঠিত। গ্রীক ভাষায় এ্যটম (atom) শব্দের অর্থ অবিভাজ্য। এই দ্বন্দ্ব শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে চলেছে, তবে কোন পক্ষেই বাস্তব কোন প্রমান পাওয়া যায়নি।

১৮০৩ সালে বৃটিশ বিজ্ঞানী জন ডালটন দেখালেন যে, রাসায়নিক যৌগ গুলো সব সময়ই একটি বিশেষ অনুপাতে মিশ্রণের ফলে হয়। এ তথ্য দিয়ে ব্যাখ্যা করা যায় পরমাণু গুলোর বিশেষ বিশেষ এককে গোষ্ঠিবদ্ধ হওয়া। এগুলির নাম তিনি দি্যেছিলেন অণু (molecule)। তারপরেও এ্যটোমিষ্টদের সপক্ষে চরম মিমাংশা হয়নি। একটি গুরুত্বপূর্ণ ভৌত সাক্ষ্য উপস্থিত করেছিলেন জগৎ বিখ্যাত বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনষ্টাইন। বিশেষ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের গবেষণাপত্রম প্রকাশের কয়েক সপ্তাহ আগে ১৯০৫ সালে তিনি দেখিয়েছিলেন যে, ব্রাউনীয় গতিকে (Brownian motion) একটি তরল পদার্থের অনুগুলির সাথে ধুলিকণার সংঘর্ষ দিয়ে ব্যখ্যা করা যায়। একটি তরল পদার্থে ভাসমান ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ধুলিকণার এলোমেলো এবং ইতস্তত বিক্ষিপ্ত গতিকে বলা হয় ব্রাউনীয় গতি।

আবার এই পরমাণু আসলে অবিভাজ্য নয়, এই সন্দেহ এর ভিতরেই দানা বাধতে শুরু করেছিল।

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা-৯

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

ষষ্ঠ পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে কাল নিয়ে।
সপ্তম পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান নিয়ে।
অষ্টম পর্বে আলোচনা করা হয়েছে মহাবিশ্বের কণিকা জগৎ নিয়ে। এবারের অর্থাৎ নবম পর্বে ও আলোচনা করব মহাবিশ্বের কণিকা জগৎ নিয়ে তবে তার উল্লেখযোগ্য অংশ গ্রীক অ্যটোমিজম এখানে প্রাধান্য পেয়েছে।

পারমেনিডাস ও এম্পিডক্লিস কর্তৃক প্রবর্তিত অনন্যবাদ (monism) ও বহুত্ববাদ (Polyism) মধ্যে সমন্বয় সাধনের প্রচেষ্টাই ডেমোক্রিটাস বা লুসিপাস-কে অ্যাটমিসম তত্ত্বে উপনিত করে। তারা বিশ্বাস করতেন যে, সবকিছুই পরমাণু দ্বারা গঠিত। এই পরমাণু জ্যমিতিকভাবে না হলেও বস্তুগতভাবে অবিভাজ্য। পরামাণুর পরস্পরের মধ্যে শূণ্যস্থান আছে, পরমাণু অবিনশ্বর, পরমাণু সবসময়ই গতিশীল, এবং ভবিষ্যতেও গতিশীল থাকবে।পরমাণুর সংখ্যা অসংখ্য, এমনকি এরা বিভিন্ন প্রকারের। কিন্তু এদের মধ্যে পার্থক্য শুধু আকার ও ভরের। এরিস্টটলের দাবী করেন, পরমাণুবাদীদের মতে তাপের তারতম্য অনুসারে পরমাণু বিভিন্ন হয়। যেমন গোলাকার পরমাণু। এই গোলাকার পরমাণু সবচেয়ে উত্তপ্ত হওয়ার কারণে আগুন সৃষ্টি করে। ভরের তারতম্য অনুসারে পরমাণুর মধ্যেও যে বিভিন্নতার সৃষ্টি হয় সে প্রসঙ্গে ডেমোক্রিটাসের উক্তি উল্লেখ করে এরিস্টটল বলেন, ‘যে পরমাণু যত বেশি অবিভাজ্যতা অতিক্রম করে সেই পরমাণু তত বেশি ভরবিশিষ্ট হয়’। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, পরমাণুবাদীদের মতবাদে পরমাণু সত্যিই ভরবিশিষ্ট ছিল কি-না তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। (পরমাণু ভরের উপর নির্ভর করে, আবার পরমাণু ক্ষুদ্রতম গঠন একক, এই দুইটি ধারণা পরস্পর বিরোধী)।

পরমাণুবাদে ডিটারমিনিজম এবং প্রোবাবিলিটি: প্রাচীনকালে পরমাণুবাদীদের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ অভিযোগ ছিল, তাঁরা জগতের সকল ঘটনাকেই সম্ভাবনার ফল হিসাবে ব্যাখ্যা করতেন। কিন্তু প্রকৃত সত্যটি হচ্ছে তারা কঠোর নিয়ন্ত্রণবাদী। তাঁরা বিশ্বাস করতেন জগতের প্রতিটি ঘটনাই প্রাকৃতিক নিয়মানুসারে ঘটে। কোন ঘটনাই কোন কারণ ব্যাতীত শুধু সম্ভাবনার দ্বারা সংঘটিত হতে পারে – একথা ডেমোক্রিটাস সুস্পষ্টভাবে অস্বীকার করেন। অস্তিত্ব নিয়ে লুসিপাসের সন্দেহ থাকলেও তিনি একথা বলেছিলেন বলে জানা যায়: ‘শূণ্য থেকে কিছুই সংঘটিত হয়না, কোন কারণ বা অনিবার্যতার ফলেই সবকিছু সংঘটিত হয়’। তবে একথা সত্য যে জগত আদিতে যে রূপে ছিল বর্তমানেও সেরূপ অবস্থায় থাকার কারণ সম্পর্কে তিনি কোন ব্যাখ্যা দেননি। আর এ কারণেই হয়তো জগৎ ব্যাখ্যার ক্ষেত্রে সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু জগৎ একবার সৃষ্টি হওয়ার পর এর পুনর্বিকাশ যান্ত্রিক নিয়ম দ্বারা অপরিবর্তনীয়রূপে স্থির ছিল।পরমাণুর আদি গতি নির্দেশ না করার জন্য এরিস্টটল সহ অন্যান্য দার্শনিকগণ লুসিপাস ও ডেমোক্রিটাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন করেন। কিন্তু এই কারণ নির্দেশ না করার ক্ষেত্রে ছিল।পরমাণুবাদীগণ তাদের সমালোচকদের চেয়ে অধিকতর যৌক্তিক মনোভাবাপন্ন ছিলেন। কার্য-কারণ অবশ্যই কোন না কোন জায়গা থেকে শুরু হবে, এবং যেখান থেকেই শুরু হোক না কেন আদি কারণের কোন কারণ নির্দেশ করা যায়না।

সক্রেটিস, প্লেটো এবং এরিস্টটল উদ্দেশ্য বা পরিণতি কারণের সাহায্যে জগতের ব্যাখ্যা দেয়ার চেস্টা করেছেন, কিন্তু পরমাণুবাদীগণ এসব ধারনার সাহায্য ব্যতীতই জগতের ব্যাখ্যা দেয়ার চেস্টা করেছেন। কোন ঘটনার পরিণতি কারণ ভবিষ্যতের এমন একটি ফল যার জন্য ঘটনাটি সংঘটিত হয়। এই ধারণা মানুষের কার্যাবলীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কেন দর্জি কাপড় সেলাই করেন? মানুষের বস্ত্রের প্রয়োজন তাই। এসব ক্ষেত্রে বস্তুসমুহ যে উদ্দেশ্য সাধন করে সেই উদ্দেশ্যের দ্বারাই বস্তুসমুহের ব্যাখ্যা করা যায়। কোন ঘটনা সম্পর্কে আমরা যখন কেন প্রশ্নটি করি, তখন আমরা নিম্নের দুটি বিষয়ের যেকোন একটিকে বোঝাতে পারি: ‘এই ঘটনা কি উদ্দেশ্যসাধন করেছিল? অথবা ‘পূর্ববর্তি কোন কোন অবস্থা এই ঘটনা ঘটিয়েছিল?’ প্রথমোক্ত প্রশ্নটি একটি উদ্দেশ্যবাদী ব্যাখ্যা, অর্থাৎ পরিনতি কারণ দ্বারা ব্যাখ্যা। উপোরক্ত দুটি প্রশ্নের মধ্যে বিজ্ঞানের কোন প্রশ্নটি করা উচিৎ, বা বিজ্ঞানের দুটি প্রশ্নই করা উচিৎ কি-না একথা কিভাবে অগ্রিম জানা সম্ভব হতে পারে তা আমাদের জানা নেই। কিন্তু অভিজ্ঞতার আলোকে দেখা গিয়েছে যে, যান্ত্রিক প্রশ্ন বৈজ্ঞানিক জ্ঞানে উপনিত করে কিন্তু উদ্দেশ্যমূলক প্রশ্ন তা করেনা। পরমাণুবাদীগণ যান্ত্রিক প্রশ্নটিই করেছিলেন, এবং এর একটি যান্ত্রিক উত্তরও দিয়েছিলেন।

একথা অনুমান করা ঠিক হবেনা যে, পরমাণুবাদিদের মতবাদের পক্ষে ব্যবহৃত তাঁদের যুক্তিসমূহ সম্পুর্ণ অভিজ্ঞতাভিত্তিক। আধুনিক যুগে রসায়নবিজ্ঞানের তথ্যাবলীকে ব্যাখ্যা করার জন্য পরমাণুতত্বকে পুনরুজ্জীবিত করা হয়েছে। কিন্তু এই তথ্য গ্রীকদের জানা ছিলনা। সেই যুগে অভিজ্ঞতাভিত্তিক পর্যবেক্ষণ ও যৌক্তিক যুক্তির মধ্যে সুস্পষ্ট কোন পার্থক্য ছিল না। একথা সত্য যে পারমেনিডাস পর্যবেক্ষিত ঘটনাকে অবজ্ঞার চোখে দেখেছেন। কিন্তু এম্পিডক্লিস ও এনাক্সেগোরাস তাদের অধিবিদ্যার বেশীরভাগই পানি-ঘড়ি এবং ঘুর্ণায়মান বালতির পর্যবেক্ষণের সাথে সম্পর্কিত করেন। মুসলিম বিজ্ঞানী ও দার্শনিকদের আগে কেউই সম্ভবতঃ সন্দেহ করেননি যে, পর্যাপ্ত যুক্তি ও পর্যবেক্ষণের সমন্বয়ে একটি সম্পূর্ণ অধিবিদ্যা এবং বিশ্বতত্ব প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে।পরমাণুবাদীগণ এমন একটি প্রকল্পের গুরুত্ব আরোপ করেন যে কারণে দুহাজার বছরের অধিককাল পরে এ বিষয়ে কিছু প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু সে সময়ে তাদের এই বিশ্বাস একটি সুদৃঢ় ভিত্তির অভাবে পরিত্যক্ত হয়েছিল।

লুসিপাস পারমেনিডাসের যুক্তির সঙ্গে গতি ও পরিবর্তনের সুস্পষ্ট তথ্যাবলির সমন্বয় সাধনের পন্থা আবিষ্কারের উদ্যোগ গ্রহন করেন। এ প্রসঙ্গে এরিস্টটল বলেন, “কোন উন্মাদ ব্যাক্তি তার ইন্দ্রিয়-প্রত্যক্ষণ থেকে একথা অনুমান করবে না যে, আগুন এবং বরফ এক বস্তু। কিন্তু কিছু মানুষ অভ্যাসবশতঃই যা সঠিক এবং যাকে সঠিক বলে মনে হয় – এই দুয়ের মধ্যে কোন পার্থক্য না দেখার মত পাগলামি করে থাকে”।

অবশ্য লুসিপাস মনে করেন যে, তিনি তার মতবাদকে ইন্দ্রিয় প্রত্যক্ষণের সঙ্গে সমন্বয় সাধন করেছেন। তিনি বস্তূর অস্তিত্বশীল হওয়া এবং বস্তূর তিরোহিত হওয়া বা বস্তূর গতি এবং বস্তূর বহুত্বের ধরণা বিলোপের পক্ষপাতি নন। তিনি এসব বিষয়কে প্রত্যক্ষণের অন্তর্গত বলে মনে করেন। অপরদিকে, তিনি একত্ববাদীদের সাথে ঐক্যমত প্রকাশ করে বলেন, শূণ্যস্থান ব্যতীত কোন গতি থাকতে পারেনা। ফলশ্রতিতে যে মতবাদের উদ্ভব হয় তাকে তিনি নিম্নরূপে ব্যক্ত করেনঃ শূণ্যস্থান হলো অ-সত্বা এবং অস্তিত্বশীল বস্তুর কোন অংশই অ-সত্বা নয়; কারণ সঠিক অর্থে অস্তিত্বশীল বস্তু একটি অনপেক্ষ পূর্ণস্থান। অবশ্য এই পূর্ণস্থান (Filled space) এক নয়, বরং এই পূর্ণস্থান সংখ্যার দিক থেকে অসংখ্য অসীম। পরিমাণের সূক্ষতার কারণে এরা অদৃশ্যমান। অসংখ্য পূর্ণস্থান শূণ্যস্থানে বিচরণ করে (কারণ শূণ্যস্থান আছে) । একত্রিত হয়ে এরা বস্তুর অস্তিত্ব লাভে সাহায্য করে, আবার বিচ্ছিন্ন হয়ে এরা বস্তুর অবসান ঘটায়। অধিকন্তু সংযোগের সুযোগ পেলেই এরা কাজ শুরু করে এবং কাজের ফলাফল ভোগও করে। একত্রিত হয়েই এরা কোন কিছু সৃষ্টি করে এবং পরস্পর একত্রিত হয়। অপরপক্ষে প্রকৃত এক থেকে কখনোই বহুত্বের সৃষ্টি হতে পারেনা, কিংবা প্রকৃত বহু থেকে ‘এক’-এরও সৃষ্টি হতে পারেনা।

এখন দেখা যাবে যে, একটি বিষয়ে সকলেই একমত হবে যে, পূর্ণস্থান (Filled space)-এ কোন গতি থাকতে পারেনা। কোন বস্তু শুধু শূণ্যস্থানেই গতিশীল হতে পারে। পূর্ণস্থানে বড়জোড় আবর্তনশীল (rotational) গতি থাকতে পারে। সেই সময়ে গ্রীকদের মনে হয়েছিল যে, কোন ব্যাক্তিকে হয় পারমেনিডাসের অপর্বর্তনীয় জগৎকে নীরবে মেনে নিতে হবে অথবা শূণ্যস্থানকে স্বীকার করতে হবে।

এই পর্যায়ে, অ-সত্বার বিরুদ্ধে পারমেনিডাসের যুক্তিসমূহ পূর্ণস্থানের বিরুদ্ধে যৌক্তিকভাবে অখন্ডনীয় বলে মনে হয়। যেখানে কোন কিছুর অস্তিত্ব নেই বলে মনে হয়, সেখানে বায়ুর অস্তিত্ব আছে – এই মতবাদ আবিষ্কারের দ্বারা তার যুক্তিসমূহকে পূণরায় বলবৎ করা হয় (এই উদাহরণ যুক্তি ও পর্যবেক্ষণের একটি বিভ্রান্তির সংমিশ্রণ যা সাধারণভাবে প্রচলিত ছিল )। যদি বলি শূণ্যস্থান আছে তাহলে শূণ্যস্থান অ-সত্বা নয়, অনুরূপভাবে অ-সত্বা শূণ্যস্থান নয়। পরমাণবাদীদের মতে, একথা চিন্তা করা যতই কঠিন হোক না কেন, শূণ্যস্থান থাকতেই হবে।

উপরোক্ত সমস্যার পরবর্তি ইতিহাস আরো ইন্টারেস্টিং, পরবর্তি পর্বে এই বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

(চলবে)

ছোট ছোট বালুকণা বিন্দু বিন্দু জল,
গড়ি তোলে মহাদেশ সাগর অতল

সাহায্যকারী গ্রন্থঃ
১। From Thales to Plato
২। Greek Mathematics
৩। History of Western Philosophy: Bertrand Russel

মন্তব্য করুন..

৩ মন্তব্যসমূহ

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.