হার, জিত, মনস্তাপ

হার, জিত, মনস্তাপ
——————- রমিত আজাদ

সাত সমুদ্র তেরো নদীর ওপার থেকে ফোন কল এলো।
কল্লোল: হ্যালো।
কবিতা: কেমন আছো?
কল্লোল: হু, ভালো-ই। তুমি কেমন আছো?
কবিতা: ভালো না।
কল্লোল: কেন?
কবিতা: তুমি ভালো আছো।
কল্লোল: কেন বলছো এ’ কথা?
কবিতা: তোমার ঘরে লক্ষী বৌ আছে। ঘর আলো করা সন্তান আছে। সম্মানজনক পেশা আছে। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছ। সব মিলিয়ে সাজানো একটা সংসার আছে। ভালো আছো বলবো না?
কল্লোল: এই সবকিছু কিন্তু তোমার হতে পারতো!
কবিতা: (কিছুক্ষণ নিশ্চুপ থেকে) তুমি তো বিয়ে করে ফেললে!
কল্লোল: অনলি আফটার ইয়োর রিফুজাল!

কবিতা আবারো কিছুক্ষণ নিশ্চুপ রইলো। ওর চোখে জল কিনা, টেলিফোনে তা দেখার উপায় নেই। তবে কল্লোলের তা খুব দেখতে ইচ্ছে করছিলো।

কল্লোল: আমি তোমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলাম, তোমার কি মনে পড়ে?
কবিতা: (আবারো নিশ্চুপ)
কল্লোল: তুমি প্রথমে বলেছিলে ভেবে দেখবে, পজেটিভ হওয়ার সম্ভাবনাই বেশী। তারপর আমাকে প্রত্যাখ্যান করেছিলে। এরপর ফরিদ-কে বিয়ে করলে। আমি বিয়ে করেছি তার পরে। এরপর কি কোনভাবে তুমি আমাকে দোষ দিতে পারো?
কবিতা: থাক ওসব কথা।
কল্লোল: তোমার কি আজ মনে হয় না, পাত্র হিসাবে আমি খারাপ ছিলাম না? আমাকে বিয়ে করলে তুমি অসুখী হতে না!
কবিতা: থাকনা ওসব কথা এখন! (কবিতার গলাটি ধরে এলো)
কল্লোল: কেবল চলছে তোমার দিনকাল, বিদেশের মাটিতে?
কবিতা: আজ আমি ফোনটা রাখি।

ফোনটা রেখে কল্লোলের মনে একধরনের প্রতিশোধ-প্রশান্তি এলো। কবিতার মনে কষ্ট দিতে পেরে তার ভালো-ই লাগছে। কেন কবিতা তাকে প্রত্যাখান করলো? পাত্র হিসাবে সে কি খারাপ ছিলো? কবিতা কি জানতো না যে, সে কবিতা-কে ভালোবাসে? এরপর আবার তার মনটা ব্যাথায় আচ্ছন্ন হলো। প্রিয়জনকে আপন করে না, পেলে কার মনে কষ্ট না থাকে?

ততক্ষণে কল্লোলের পেছনে এসে দাঁড়িয়েছে তার স্ত্রী মেঘনা।
মেঘনা: কার সাথে কথা বলছিলে?
কল্লোল: না, তেমন কেউ না। আমার এক বন্ধু ফোন করেছিলো লন্ডন থেকে।

মেধাবী, স্মার্ট, বিনয়ী কল্লোল-কে মেঘনা-ই চুজ করেছিলো। মেঘনার মনে হয়েছিলো সে কোন ভুল করছে না। কল্লোল একজন আদর্শ জীবনসঙ্গী হবে। বিয়ের প্রস্তাবটাও মেঘনাই দিয়েছিলো।
কল্লোলের তখন মানসিক অবস্থা ভালো ছিলো না। তাই মেঘনা-কে নিয়ে অত আর ভাবেনি সে। মনের কষ্ট লাঘব করার জন্য দ্রুতই বিয়ে করে ফেলে কল্লোল। অবশ্য বিয়ের পরে বুঝেছে যে, মেঘনা-কে বিয়ে করে সে ঠকেনি, মেঘনা ভালো স্ত্রী।
তারপরেও কল্লোল মাঝে মাঝে মনে কষ্ট পায়! কিশোর বয়স থেকে চেনা কবিতা-কে সত্যিই ভালোবাসতো সে।
কবিতা কি হেরেছে? কল্লোলের ধারনা, দাম্পত্য জীবনে অসুখী কবিতা হেরেছে। কল্লোল কি হেরেছে? কল্লোল বুঝতে পারেনা, তবে সে মনে করে, সে জেতেনি। হয়তো জিতেছে কেবল মেঘনা। মেঘনা ভাবে, অতি আপন করে যাকে পেতে সফল হলাম, একই ঘরে থেকে সে শুধু আরেকজনার কথা ভেবে মনস্তাপ পায়!!!

———————————————
তারিখ: ১১ই অক্টোবর, ২০১৮

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.