অরণ্য করবে অপেক্ষা

অরণ্য করবে অপেক্ষা
—————- রমিত আজাদ

মনে কি প্রচন্ড কলরব!
এতদিন ঢেকে রেখেছিলে কেন?
একি স্নিগ্ধ সংকোচ?
নাকি গুছানোর ছিলো কিছু বাকী?
মন খানি গচ্ছিত রেখে,
গুছালে হাতব্যাগ, স্যুটকেস,
হাওয়াই জাহাজের টিকেট।

তপ্ত আগুন কোন এক দুপুরে
উড়েছ গাংচীল, ছুঁয়েছো আকাশ।
ঘুর্ণায়মান ধরিত্রীর শূন্যগর্ভ উচ্চতায়,
দক্ষিণ থেকে উত্তরে,
পূরবী রূপসীর পাশ্চাত্য যাত্রা।

বেরিয়ে পড়াই দরকার ছিলো নিশ্চয়ই,
নতুন জীবনের খোঁজে।
তারপরেও পিছু টানে পিছনের অরণ্য!
যেখানে বনফুলে গচ্ছিত আছে রূপসীর মন।

ভাসো ভাসো সেই নতুন স্রোতে,
আনমনে ঋদ্ধ শীতল ভূবনে,
প্রাচুর্যের ফুলেল ধরণী হোক তব নহলী গৃহ।
নতুন ঠিকানায় নদী হোক স্বপ্ন বর্ষা জলে।
অগ্নিসখা, আগেই তো পারতে নিভাতে দাবানল,
জুড়াতে মন অগ্নিদগ্ধ তপ্ত অরণ্যের!
তবে কি নতুন দেশ সংকোচ মাড়িয়ে
সাহস যোগালো মনে?
ঠিকআছে, হলো তো অবশেষে জানা,
হোক না তা বিলম্বে।
এবার পিছনের অরণ্য করবে অপেক্ষা উন্মাদনায়,
সামনের হেমন্ত পেরিয়ে আরও একটি বরষা।
উত্তুরে বাতাসের ঝাপটায়
অস্থির অরণ্য কায়া শীতল হবে মায়ায়।

——————————————————–
তারিখ: ১০ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮
সময়: বিকাল ৩টা ৩৭ মিনিট

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.