আলিঙ্গন যদি করতেই হয়


আলিঙ্গন যদি করতেই হয়

————————– রমিত আজাদ

আলিঙ্গন যদি করতেই হয়,
তুমি আত্মসমর্পন করো।
আমি ছেয়ে দেব তোমার পুরোটা শরীর।
আমি ছুঁয়ে দেব এমন সব স্পর্শকাতর আয়তায়,
যেন তোমার হৃদয় তক পৌঁছে যায়
সুধা পরশনের অদৃশ্য তরঙ্গ!

প্রেম মানেই তো আলিঙ্গনের উন্মত্ত নিস্পেষণ,
আর অধরে অধর অমিয়ের তপ্ত অমৃত সেবন।
তুমি আঁকড়ে থাকো আমাকে মাধবী লতার মত।
তুমি আঁকড়ে থাকো আমাকে স্বর্ণলতিকার মায়াডোরে।
আমি বুক ভরে নেব সুবাস প্রগলভা বুনো লতার।
বারংবার ছুঁয়ে দেব উত্থিত বৃন্ত।
অদম্য প্রতিটি ইচ্ছা এঁকে দেব মেলেধরা সবগুলো পাঁপড়িতে।

উষ্ণতার তীব্রতায় থাকা নীরব রমণীয় আবাহনে
তুমি খুলে দিও মায়াবী কপাট।
আমিও উদ্ধত হবো অনায়াসে।
অশ্বারোহী বেশে প্রবেশ করবো এতকালের অনাবিষ্কৃত অন্ধ গলিতে।
যেমন যুদ্ধের ময়দানে মুগ্ধতা চায় অবিমৃশ্যকারী যোদ্ধা।
আচ্ছাদন সরিয়ে দেখে নেব পাতার আড়ালে লুকিয়ে থাকা নীল অপরাজিতা।
প্রশ্রয়ের সুযোগ নিয়ে ছুঁয়ে দেব তার মোহনীয় রমণীস্তবক।
বিবস্ত্র শ্রোণীর ব্যঞ্জনায় আল্পনা আঁকবে আমার অধৈর্য দশটি অঙুলি।
নন্দিত সুখ-যন্ত্রনায় শিহরণে শিহরণে জোয়ার জাগবে
তোমার প্রতিটি রন্ধ্রের নেশাতুর আরক্তিম প্রবাহে।

সদ্য উম্নোচিত তন্বীতনুর প্রগাঢ় রহস্য তৃষ্ণার
শিরশিরে কম্পন উপলদ্ধির মর্মোদ্ধার করতেই
মেঘেরা সাড়া দেবে সূর্যের ডাকে।
অতঃপর নামবে ঘোরতর বর্ষণ ।
শ্রাবণের বিরতিহীন বজ্রনিনাদে
সেই বারিপাত হোক সুতীব্র! ছাপিয়ে দিক আপগার একুল-ওকুল!
তোমার মেলে দেয়া শরীরের ভরা ভাদ্রের জোয়ারে
নির্দ্বিধায় দাঁপিয়ে বেড়াবো দুর্বার সমুদ্রের মোহনা,

আমি এক উদ্দাম সাঁতারু!

রচনাতারিখ: ২১শে এপ্রিল, ২০২১ সাল
রচনাসময়: দুপুর ০২টা ৫৭ মিনিট

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.