দেশান্তরের প্রেম

দেশান্তরের প্রেম
————— রমিত আজাদ

কোন বা দেশে বসত তোমার, কোন ধর্মের তুমি;
গুরুত্ব তার দেইনি কভু, আমার দেশের আমি।

আর কেউ না জানুক মানুক, আমার দুজন জানি,
সেই যে প্রথম সলাজ নজর, সেই যে হৃদয় হানি!
সেই যে প্রথম ভরাট পুলক, নতুন চোখের আলোক!
সেই যে প্রথম মিষ্টি হাসি, মন ভোলানো দ্যূলোক!

আর কেউ না জানুক মানুক, আমার দুজন জানি,
হাত রেখে হাত কেমন পুলক, মন নিয়েছি টানি!
তোমার মুখে শুনেছিলাম গুজরাটের-ই গল্প;
কেমন সেথায় পোড়ায় গরম, তপ্ত রবির কল্প!

তোমার মুখেই শুনেছিলাম দুইটি ভাষার মিল,
‘সুখ’-কে তোমরা ‘সুখ’-ই বলো, ‘প্রেম’-কে বলো ‘প্রেম’!
ভিন্ন ভাষায় মান-অভিমান, ভিন্ন ভাষায় বাক্যালাপ,
লেখাপড়ার আলাপ ধরেই, মন হারানোর সূত্রপাত!

দর্শন আর ধর্ম ঘিরে বিজ্ঞানেরই আলাপ-সালাপ,
মুখোমুখি বসেই কেবল ফিলোসফির বাক্য-প্রলাপ!
আঁখির তারায় হারায় শশী, শশীর কি আর দোষ?
ঐ বয়সের গুণই এমন, হারায় সকল হুঁশ!

আর কেউ না জানুক মানুক, আমার দুজন জানি,
রাত জেগে তায় লিখেছিলাম ‘জন্মদিনের বাণী’।
জন্মদিনের কার্ডটি ছিলো ব্যাতিক্রমি উপহার ,
‘এক বাক্স পপি ফুল!’ আর পাপড়ি ভরা প্রেম-পাহাড়!

অধর পটে অধর রেখেই ধ্রুপদ চুমোচুমি,
চোখে চোখেও হয় যে চুমু, আমরা দুজন জানি।
মোদের চোখের দৃষ্টি মিলন, সেও তো মধুর চুম্বন!
দৃষ্টিরেখায় ছোঁয়াছুঁয়ি, মন মাতানো যৌবন।

আমি তোমার পূজার ফুলে দেইনি কভু হাত,
তুমি আমার জায়নামাজে দাওনি কোন ঘাত!
তোমার পূজোর গঙ্গাস্নানের গড়ানো সে জল,
আমাদের মাটির পদ্মা দিয়েই বইবে চিরকাল!

কোন বা দেশে বসত তোমার, কোন ধর্মের তুমি;
গুরুত্ব তার দেইনি কভু, আমার দেশের আমি।
দেশান্তরেও ভালোবাসা ছড়ায় রঙের চমক,
বিশ্বব্যাপি প্রেমের ছবি চিরন্তন ও ধ্রুবক!
——————————————————

রচনাতারিখ: ০১লা মার্চ, ২০২০ সাল
সময়: সকাল ১১টা ০৯ মিনিট

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.