অনলাইন প্রকাশনা
বিদ্রোহীর প্রতি দ্রোহের শ্রদ্ধাঞ্জলি

বিদ্রোহীর প্রতি দ্রোহের শ্রদ্ধাঞ্জলি

–বন্ধু বাংলা
“আমার দেশের সকল মাতা কাঁদবে আমার তরে / ভাববে তাদের আপন ছেলে গেছে দেশান্তরে//”

বৃদ্ধ নজরুলএক নজরুল ভক্ত (!) বলেন, নজরুল আল্লার অলি ছিলেন। ভাবছি অদুর ভবিষ্যতে এই মোসলেম সমাজে হুমায়ুন আজাদ ও অলি হয়ে যাবে!!!

নেতাজি সুভাস চন্দ্র বলছিলেন, “যুদ্ধে আমরা নজরুলের গান গাইব, তেমনি জেলখানায় আমরা নজরুলের গান গাইব”। নজরুল যাতে নজরুল না হয়ে উঠতে পারে সে জন্য এদেশের কিছু মোসলমান কবি – সাহিত্যিক কম চেষ্টা করে নাই। বিদ্রোহী কবিতার সেই চরণ ;

বৃদ্ধ নজরুল

 

 

 

 

 

“ভূলোক দ্যুলোক গোলক ভেদিয়া, খোদার আসন আরশ ছেদিয়া, উঠিয়াছি চির-বিস্ময় আমি বিশ্ব-বিধাত্রীর!”

বা,

“ধরি বাসুকির ফণা জাপটি‘, ধরি স্বর্গীয় দূত জিব্রাইলের আগুনের পাখা সাপটি‘”

বা

“পূজিছে গ্রন্থ ভন্ডের দল মূর্খরা সব শোন/ মানুষ এনেছে গ্রন্থ, গ্রন্থ আনেনি মানুষ কোন“

এমন হাজারো সাহসী উচ্চারণ আর সাম্যবাদীতার কারণে “আম জনতা মুসলমান!”; নজরুলকে কাফির বলতে দ্বিধা করে নাই।

আজ নজরুল উপেক্ষিত , কারণ নজরুলের প্রচার মানে সাম্যবাদীতার প্রচার,

নজরুলের প্রচার মানে অসাম্প্রদায়িকতার প্রচার,

নজরুলের প্রচার মানে সর্বহারার প্রচার।

তরুণ নজরুল

তরুণ নজরুলসমাজের বৈষম্যের কথা উল্লেখ করলেও রবীন্দ্রনাথের একটা বুর্জুয়া চরিত্র ছিল; সে তুলনায় নজরুল একজন প্রকৃত বিশুদ্ধ সর্বহারা কবি। তবে রবীন্দ্রনাথকে হিন্দু বা নজরুল কে মুসলমান রূপে চিহ্নিত করা মানে দুজনকেই অপমান করা। কারণ দুজন দুইরকম শ্রেণী থেকে আগত, তাই চেতনাগত পার্থক্য থাকাটাও খুবই স্বাভাবিক। রবি যদি হয় ভাবের-প্রেমের চেতনা, তবে নজরুল ঠিক এর বিপরীত; যা নজরুল নিজেই বলেছেন;

“আমি সৃষ্টি, আমি ধ্বংস, আমি লোকালয়, আমি শ্মশান,

আমি অবসান নিশাবসান !

আমি ইন্দ্রানী-সূত হাতে চাঁদ ভালে সূর্য

মম এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশরী আর হাতে রণতূর্য। [বিদ্রোহীঃ অগ্নিবীণা]

তাই তুলনা করাটাই বোকামি!!! তবে হ্যা আমার কাছে রবীন্দ্রনাথের চেয়ে নজরুল অনেক কাছের একান্ত আপনার, সর্বহারার ভাই আরেক সর্বহারা। যেহেতু;

১। “রাজার প্রাসাদ উঠেছে প্রজার জমাট রক্ত ইটে,

ডাকু ধনিকের কারখানা চলে নাশ করি কোটি ভিটে;

দিব্যি পেতেছে খল কল-ওয়ালা মানুষ পেষানো কল,

আঁখ পেষা হয়ে বাহির হতেছে ভূখারী মানব দল। [চোর ডাকাতঃ সর্বহারা]

২।“যত শ্রমিক শুষে নিংড়ে প্রজা

রাজা উজির মারছে মজা

আমরা মরি বয়ে তাদের বোঝা (রে)

এবার জুজুর দল ঐ হুজুর দলে

দলবি রে আয় মজুর দলে

দলবি রে আয় মজুর দল

ধর হাতুরী তোল কাঁধে শাবল্ ॥ [শ্রমিকের গানঃ সর্বহারা]

জয় হোক মেহনতি শ্রমিক কৃষক সর্বহারার। জয় হোক সাম্যবাদের।

আজ ২৪শে মে কবি নজরুলের ১৩৩ তম জন্মদিনে আসুন; নজরুলকে ধারণ করি আমাদের মননে, মগজে, চেতনায়।।

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.