Categories
অনলাইন প্রকাশনা

রাজতন্ত্র, প্রজাতন্ত্র ও গণতন্ত্র

রাজতন্ত্র, প্রজাতন্ত্র ও গণতন্ত্র:
একসময় ছিলো রাজতন্ত্র। মানে রাজার ইচ্ছাই আইন। রাজা যেভাবে চাইবেন সেভাবেই রাজ্য শাসন করবেন। কোন সিদ্ধান্ত গ্রহনে
রাজা প্রজাসকল বা জনগণের মতামত নেয়ার প্রয়োজন মনে করতেন না। কারণ রাজা বাহুবলে রাজ্য জয় করতো। রাজ ক্ষমতা প্রাপ্তির সাথে প্রজা বা জনতার সম্পৃক্ততা থাকতো না। তারপর গণেশ উল্টে গেলো, এলো প্রজাতন্ত্র। শাসক তার মেজাজ-মর্জি অনুযায়ী রাজ্য শাসন করতে পারবেন না। জনগণের ইচ্ছা অনুযায়ী শাসককে রাজ্য চালাতে হবে। যেকোন সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে শাসককে জনগণের মতামত নিতে হবে। কারণ শাসককে জনতা ক্ষমতায় বসিয়েছে, ক্ষমতা প্রাপ্তির সাথে রয়েছে জনতার সম্পৃক্ততা। এক্ষেত্রে একটি বড় প্রশ্ন রয়ে যায় যে, জনগণ একটা অনেক বড় বডি, তাদের সকলের একই ইচ্ছা-অনিচ্ছা হতে পারেনা। রাজ্য বা দেশের সকলের জন্যই গ্রহনযোগ্য এমন কোন নীতি নাই, হতে পারেনা। তাহলে সেই ক্ষেত্রে করণীয় কি? করণীয় একটিই, সংখ্যাগরিষ্ঠের মতামতকে প্রাধান্য দেয়া। সংখ্যাগরিষ্ঠের ইচ্ছাকেই বাস্তবায়ন করতে হবে। সংখ্যাগরিষ্ঠের নীতিই ঐ দেশের রাষ্ট্রীয় নীতি, সংখ্যাগরিষ্ঠের ভাষাই ঐ দেশের রাষ্ট্রীয় ভাষা, সংখ্যাগরিষ্ঠের ধর্মই ঐ দেশের রাষ্ট্রীয় ধর্ম, সংখ্যাগরিষ্ঠের সংস্কৃতিই ঐ দেশের রাষ্ট্রীয় সংস্কৃতি, ই্ত্যাদি। এটাই গণতন্ত্র।

মন্তব্য করুন..

By ডঃ রমিত আজাদ

মুক্তিযুদ্ধের সেই উত্তাল দিনুলোতে, অজস্র তরুণ কি অসম সাহসিকতা নিয়ে দেশমাতৃকাকে রক্ষা করেছিল!
ব্যাটা নিয়াজী বলেছিলো, “বাঙালী মার্শাল রেস না”। ২৫শে মার্চের পরপরই যখন লক্ষ লক্ষ তরুণ লুঙ্গি পরে হাটু কাদায় দাঁড়িয়ে অস্র হাতে প্রশিক্ষন নিতে শুরু করল, বাঙালীর এই রাতারাতি মার্শাল রেস হয়ে যাওয়া দেখে পাকিস্তানি শাসক চক্র রিতিমত আহাম্মক বনে যায়।
সেই অসম সাহস সেই পর্বত প্রমাণ মনোবল আবার ফিরে আসুক বাংলাদেশের তরুণদের মাঝে। দূর হোক দুর্নীতি, হতাশা, গ্লানি, অমঙ্গল। আর একবার জয় হোক বাংলার অপরাজেয় তারুণ্যের।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.