Categories
অনলাইন প্রকাশনা

রুবাই ১০১, ১০২, ১০৩, ১০৪, ১০৫

রুবাই ১০১, ১০২, ১০৩, ১০৪, ১০৫
—————————- রমিত আজাদ

১০৬।
আবার যদি পাই তোমাকে, আবার নতুন মন খুলি,
বলবো তুমি প্রাণের কলি, আর যেওনা দূর চলি!
হারিয়ে গেছে যেই সে সময়, তার কথা না আর ভাবি,
আর যেওনা এখন থেকে, বলবো আমি প্রাণ কবি।

১০৭।
চাইনে কোন গোলাপ কলি, চাইনে আমি করবী,
রূপ সাগরে ডুব দেব না, রূপ্‌সীরা সব গরবী!
রূপ না ফোটা পুষ্প নেব, জুড়িয়ে নেব প্রাণটা,
ঘাসগালিচায় বসবো সুখে, রাঙিয়ে দেব মনটা।

১০৮।
জিন্দেগী তু, বন্দেগী তু, তু হি মেরা রওশনী,
জী ভরকে দেখলু তুঝে, তু হি দিলকি গুলরাণী।
যানেকা কই আরজু থি চান্দ্‌,আযা মেরা জানেমান।
চাহ্‌-হু তেরা দিল না টুটে, লাগযা গলে মেরে জান।

(ভীনদেশী ভাষায় সামান্য প্রচেষ্টা)

১০৯।
জমিদারী জমিদারী ভিখারীর তন্ত্র,
শশ্মানেতে ছুঁড়ে দাও মেধা গণতন্ত্র!
মিঠা মিঠা বুলি বলে লিখে যাও ফর্দ,
পর্দার দাম হবে কোটি টাকা অর্থ!

১১০।
নির্মোহ তার উৎকলিকায়, তপ্ত মধুর কূজ্ঝটিকায়,
বাউল মনের একতারাটায়, সুর জেগেছে রূপের ছটায়।
বান ভেসে তার মান গিয়েছে, রাধার বেশে কলংকি,
উর্বশী তার রূপ চাপে না, জোছনা বিছায় পালংকী!
——————————————————————

রচনাতারিখ: ১২ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ সাল
সময়: বিকাল ৪টা ৪৭মিনিট

মন্তব্য করুন..

By ডঃ রমিত আজাদ

মুক্তিযুদ্ধের সেই উত্তাল দিনুলোতে, অজস্র তরুণ কি অসম সাহসিকতা নিয়ে দেশমাতৃকাকে রক্ষা করেছিল!
ব্যাটা নিয়াজী বলেছিলো, “বাঙালী মার্শাল রেস না”। ২৫শে মার্চের পরপরই যখন লক্ষ লক্ষ তরুণ লুঙ্গি পরে হাটু কাদায় দাঁড়িয়ে অস্র হাতে প্রশিক্ষন নিতে শুরু করল, বাঙালীর এই রাতারাতি মার্শাল রেস হয়ে যাওয়া দেখে পাকিস্তানি শাসক চক্র রিতিমত আহাম্মক বনে যায়।
সেই অসম সাহস সেই পর্বত প্রমাণ মনোবল আবার ফিরে আসুক বাংলাদেশের তরুণদের মাঝে। দূর হোক দুর্নীতি, হতাশা, গ্লানি, অমঙ্গল। আর একবার জয় হোক বাংলার অপরাজেয় তারুণ্যের।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.