রুবাই ১৫১, ১৫২, ১৫৩, ১৫৪, ১৫৫

রুবাই ১৫১, ১৫২, ১৫৩, ১৫৪, ১৫৫
———————————- রমিত আজাদ

১৫১।
কাহারে স্মরিয়া একাকী বালিকা, নদীতীরে তমসায়?
কাহারে ডাকিছে দুঃখিনী দুহিতা, প্রবাহিনী বরষায়?
তবে কি তমসা ঘুচিবে আলোকে, মধুমতি জোছনায়?
এতকাল পরে যদি, ফিরে আসে মন নদী, ইছামতি মোহনায়!

১৫২।
অন্ন যখন থাকে পেটে, অর্থ থাকে হাতে,
বস্ত্র থাকে শীত মানাতে, কুটির থাকে রাতে,
কিছুই তখন লাগে না ভালো, মনমরা জীবন,
প্রাচুর্য-টাই ঘাততি তখন, মেঘলা থাকে মন!

১৫৩।
তারপর একদিন প্রজাপতি উড়ে যায়,
পেয়েছে সে সন্ধান নও ফুল জোছনায়।
তারপর এই ফুল থাকবে কি ঝরবে?
কার খোঁজ কে রাখে নির্দয় ধরাতে!

১৫৪।
নদীতীরে নিরাশা রসহীন বালুচর,
নাই জল, নাই ঢল, নির্জলা চরাচর,
আকাশের পানে চাহি সুধা মাগে সুষমায়,
বরষার বরিষন যদি আসে মৃদু পায়!

১৫৫।
রংধনু তায় উঠলো ফুটে মেঘলা ধুসর অম্বরে,
গর্জে ওঠা অস্ত্র বীরের বজ্র কঠিন হুংকারে!
সম্ভাবনার অপার দেশে মেঘলা কেন এই বেলা?
জাগ জনতা, দুন্দুভি ডাক, কর সূচনা নও খেলা।

—————————————————————
রচনাতারিখ: ২৭শে অক্টোবর, ২০১৯
সময়: সকাল ৯টা ৫০ মিনিট

Rubai 151, 152, 153, 154, 155
Ramit Azad

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.