রুবাই ৩৩৬ – ৩৪৫

রুবাই ৩৩৬, ৩৩৭, ৩৩৮, ৩৩৯, ৩৪০,
৩৪১, ৩৪২, ৩৪৩,৩৪৪, ৩৪৫
———————————– রমিত আজাদ

৩৩৬।
তার চোখে ভাসা ছবি তুলে ধরে কাহারে?
তারে দেখে ক্ষণে ক্ষণে মনে পড়ে তাহারে!
সেই মুখ, সেই হাসি, সেই রাঙা লাজ-রাশি!
বারে বারে কাছে এসে সরে সরে যায় দূরে, আহারে!

৩৩৭।
উদাস নয়ন আকাশপানে, বইয়ের কায়া হাতে,
কোন অবসর মেঘবালিকার বইয়ের পাতায় কাটে?
মেঘবালিকা বইয়ের মেলায় ছড়ায় রঙের মায়া,
এই ফাগুনের বই বীথিকায় মেঘবালিকার ছায়া!
—————————- রমিত আজাদ
২৮শে ফেব্রুয়ারী, ২০২০

৩৩৮।
অস্ত গেলো সূর্য-রবি, মেঘের গায়ে রঙ মাখি;
মেঘের রঙে মন হারালো, মেঘছবিতে চায় আঁখি।
মেঘপূরী কি সাঁঝের ছায়ে সূর্যটারে দেয় বিদায়?
চন্দ্রিমাটা দিচ্ছে উঁকি, জ্বালবে প্রদীপ কৃষ্ণাভায়!

————————————– রমিত আজাদ
২৯শে ফেব্রুয়ারী, ২০২০

৩৩৯।
রেশমী কেশে ফুলের সুবাস, মেঘের শোভা তায়;
এমন চুলে মন হারালে, কাহার কিসের দায়?
দীঘল কেশে সাঁঝের ছবি, জ্ঞান হারাবে সকল কবি!
এলোকেশে বৈশাখী ঝড়, রুদ্র বায়ে উড়বে সবই!

————————————– রমিত আজাদ
২৯শে ফেব্রুয়ারী, ২০২০

৩৪০।
মেঘবালিকার উদাস নয়ন আকাশপানে চায়,
বইয়ের পাতায় হারানো মন স্মৃতির পিছু ধায়!
পুঁথির গায়ে কোন কালিতে ব্যাথার কথা লেখা?
লক্ষ হাজার বইয়ের মেলায়, কার ছবিটি আঁকা?

৩৪১।
আজি ঝড়ের দিনে ক্ষণে ক্ষণে উথলে ওঠে স্মৃতি!
আজি বাতায়নে মনে পড়ে মাতাল কোন তিথি!
আজি তপ্ত দিনে দৃষ্টি আমার যায় ছুটে যায় তায়,
আজি আগুন দিনে ফাগুন কাঁদে, চোখের জলে ছায়!

৩৪২।
শাওনের ক্ষত দিয়াছো হৃদয়ে,
নয়নের জল কেন এতটা ঝরালে?
কে দিবে জলের দাম? কে বুঝিবে ব্যাথা?
কে শুনিবে বসি তব, হৃদয়েরও কথা!

৩৪৩।
সুরের স্রোতে সোনার তরী নতুন করে ভাসবে,
সাতটি রঙের রংধনু রঙ আকাশ ভেঙে হাসবে।
লাখ বরষার বৃষ্টি দেখো মেঘের ডানায় ছুটবে,
প্রাচীন ব্যাথা মুছবে জলে, নবীন গাঁথা ফুটবে!

৩৪৪।
খোঁপার ঐ সজনে ফুলে, আমারই মনটা দোলে!
মখমলি মিষ্টি চুলে, মোলায়েম ফাগুন দোলে!
রংধনু রঙের ফুলে, অলিদের নৃত্য চলে,
মাদুলি দুলছে গলে, নিদালির মন্ত্রতলে।

৩৪৫।
তোমরা দু’জন ভাবছো কি তায়? আমার প্রিয় কোন জনা?
বলতে আমার হচ্ছে দ্বিধা, মনের মণি দুইজনা।
তোমার চোখে হাসে শশী, তার চোখে চাঁদ চন্দনা;
তুমি যদি শুকতারা হও, সেও তো তবে অঙ্গনা!

————————————————————-
রচনাতারিখ: ২৯শে ফেব্রুয়ারী, ২০২০ সাল
সময়: রাত ১০টা ৪০মিনিট

Rubai 336, 337, 338, 339, 340, 341, 342, 343, 344, 345
—————————————————– Ramit Azad

মন্তব্য করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.