Categories
অনলাইন প্রকাশনা গবেষণামূলক প্রকাশনা প্রকৌশল ও বিজ্ঞান বিজ্ঞান

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা-১,২ ,৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -১,২ ,৩, ৪, ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯
——– ডঃ রমিত আজাদ

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -১
——– ডঃ রমিত আজাদ

অপার রহস্যে ঘেরা আমাদের এই মহাবিশ্ব। আর তার মধ্যে রহস্যময় একটি সত্তা আমরা – ‘মানুষ’। এই দু’য়ের সম্পর্কও কম রহস্যময় নয়। মহাবিশ্বের বিবর্তন বা বিকাশের সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ ফলাফল মানুষ, সেই মানুষই আবার গভীর আগ্রহ নিয়ে অধ্যয়ন ও পর্যবেক্ষণ করছে তার চারপাশের মহাবিশ্বটিকে। কি এই মহাবিশ্ব? আমরা কারা? কি সম্পর্ক মহাবিশ্বের সাথে আমাদের অথবা আমাদের সাথে মহাবিশ্বের? কোথা থেকে এল এই মহাবিশ্ব? তারপর থেকে ক্রমাগত কি ঘটছে? এর শেষ কোথায়? এই সব প্রশ্ন ঘুরে ফিরে মানুষের মস্তিস্ক থেকে হৃদয় আর হৃদয় থেকে মস্তিস্ক পর্যন্ত। এইসব চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসার যতটুকু উত্তর এ যাবতকাল আমাদের জানা হয়েছে দর্শন ও বিজ্ঞানের দৃষ্টিকোন থেকে। সেইসব উত্তর ধারাবাহিকভাবে দেয়ার চেষ্টা করব আমার এই সিরিজে।

পাঠকদের অনুরোধ করব গঠনমূলক সমালোচনা করতে। আমার দেয়া কোন তথ্য যদি ভুল হয়, অনুগ্রহপূর্বক সঠিক তথ্য দিয়ে আমাকে সাহায্য করবেন।

প্রথমেই শুরু করছি গত দু’একমাসের উত্তপ্ত সংবাদ, ঈশ্বর কণা নামে ক্ষ্যত হিগস বোসন নিয়ে। কি এই হিগ্স বোসন? কেন একে নিয়ে এত হইচই? এই সংক্রান্ত আলোচনার গভীরে যেতে হলে প্রথমে শুরু করতে হবে বস্তু (matter) সংক্রান্ত আলোচনা দিয়ে।

যেকোন দর্শনের বিদ্যালয়ের জন্য বস্তুর ধারণাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইতিহাস-দর্শনের বিকাশের ধারায় বস্তুর ধারণা একাধিকবার পরিবর্তিত হয়েছে। সকল অস্তিত্ববান জিনিসের উৎস অনুসন্ধানের ধারায় দার্শনিকরা তাকে কখনো দেখেছেন পানিতে (দার্শনিক থালেস), কখনো দেখেছেন বাতাসে (দার্শনিক এ্যানেক্সিমেনেস), আবার কখনো দেখেছেন আগুনে (দার্শনিক হেরাক্লিটাস)। এদিকে দার্শনিক এমপেডোক্লেস বিশ্বাস করতেন সবকিছুর উৎস চারটি – আগুন, পানি, বাতাস এবং মাটি। আবার আমাদের উপমহাদেশের দার্শনিকরা বলেছেন পঞ্চভুতের (ক্ষিতি, অপ, তেজ, মরুত, ব্যোম – মাটি, পানি, আগুন, বাতাস, আকাশ) কথা।

ইতিমধ্যে খ্রীষ্টেপূর্ব পঞ্চম শতাব্দীতে প্রাচীন গ্রিক দার্শনিক ডেমোক্রিটাস এবং লুসিপাস বস্তুকে বোঝার জন্য একটি সম্পূর্ণ নতুন পদক্ষেপ নেন। তারা এই ধারণার অবতারনা করেন যে এই পৃথিবীর সবকিছু এমনকি মানুষের মন , ক্ষুদ্রতম, সরলতম, অবিভাজ্য এবং অদৃশ্য কণা দ্বারা গঠিত, তাঁরা এর নাম দেন পরমাণু (Atom) । যা গতিশীল অবস্থায় স্থানে অবিরত যুক্ত হচ্ছে, ভাঙছে এবং অবস্থান পরিবর্তন করছে। আমাদের উপমহাদেশে একই ধারণা দিয়েছিলেন ঋষি কণাদ। ডেমোক্রিটাস তার জীবনের কিছু সময় পারস্যে কাটিয়েছিলেন। এমনও হতে পারে যে কণাদের ধারণাটিই তিনি প্রচার করেছিলেন।

প্রাচীন গ্রীস এবং রোম-এর দার্শনিকগণ এই ধারণাটিকে বিকশিত করেন মধ্যযুগ পর্যন্ত। এরপর উদ্ভব হয় নতুন দার্শনিক ঐতিহ্যের, যার নাম স্কলাস্টিকস। স্কলাস্টিকস দর্শনের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল একটি ধর্মীয় গ্রন্থে এর দ্ব্যর্থহীন ব্যাখ্যা প্রদান করে ঈশ্বরের অস্তিত্বের প্রমাণ করা । এই রীতি চলে চতুর্থ থেকে চতুর্দশ শতাব্দী পর্যন্ত, এবং এই সময়কালে বস্তুর ধারণা নিয়ে গবেষণা ও চিন্তাভাবনা কার্যত বন্ধই থেকে যায়।

পরবর্তিতে ইসলামের স্বর্ণযুগে (Islamic Golden Age) মুসলিম দার্শনিক ও বিজ্ঞানীরাও বস্তুর ধারণা নিয়ে ব্যপক কাজ করেন। ইউরোপীয় বিজ্ঞানী ল্যাভয়সীয়ের ‘ভরের নিত্যতার সুত্রের’ আবিস্কারের যে স্বীকৃতি রয়েছে, তার কয়েক শতাব্দী আগেই মুসলিম পন্ডিত আল বিরুনী (১১শ শতাব্দী) এই নীতি আবিস্কার করেছিলেন। ল্যাভয়সীয়ে মুসলিম রসায়নবিদ এবং পদার্থবিদদের একজন শিষ্য ছিলেন এবং প্রায়ই তিনি মুসলিম বিজ্ঞানীদের বিভিন্ন বইয়ের রেফারেন্স দিতেন। মুসলিম বিজ্ঞানী আল হাইয়াম (১১শ শতাব্দী), যাকে আধুনিক আলোক বিজ্ঞানের জনক বলা হয়, তিনি আলো সম্পর্কে বলেছিলেন যে, আলো এক প্রকার কণিকার স্রোত।ইতিমধ্যে মুসলিম স্পেনের তলেদো ও কর্ডোভার জ্ঞানকেন্দ্রগুলোর আলো অন্ধকার ইউরোপে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এই আলোই পরবর্তিতে জন্ম দেয় ইউরোপীয় রেনেসাঁর।

১৬ থেকে ১৮ শতাব্দীর মধ্যে আবার বস্তুকে সঠিকভাবে বুঝতে পারার বিষয়টি জরুরী হয়ে ওঠে। ইতিমধ্যে বৈজ্ঞানিক ধারণা লক্ষণীয়ভাবে প্রসারিত হয়, এবং স্যার আইজাক নিউটনের প্রতিষ্ঠিত বলবিজ্ঞান তাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গির উপর সর্বাধিক প্রভাব বিস্তার করে। কেউ কখনো পরমাণু দেখেনি, এই বিষয়টি বিবেচনায় রেখে মনে করা হয় যে, বস্তু হলো আমাদের চারপাশের বিভিন্ন জিনিস এবং কায়ার সত্তা, যা বলবিজ্ঞানের আইন মেনে চলে (ফ্রান্সিস বেকন, থমাস হব্স এবং জন টল্যান্ড)। এই নিবন্ধে আরো যোগ করা প্রয়োজন যে বিশুদ্ধরূপে মানসিক প্রত্যাশা গুলো ছাড়া আর সকল প্রকার ফর্মেশনই বলবিজ্ঞানের অধীনস্থ আইন হিসেবে গণ্য হওয়া উচিত বলে মনে করা হয়েছিল। বলবিজ্ঞানীয় বস্তুবাদ অনুযাযী, মানসিক বিষয় ছাড়া আর কোন ফর্মেশনই থাকতে পারেনা যা বলবিজ্ঞানের আইনগুলোর অধীন হবে না । ১৮শতাব্দীর ফরাসি জড়বাদী (লা মেতর, হেলভেসিয়াস, দিদেরত, এবং বিশেষভাবে হলবাখ)-দের দ্বারা বষ্তুর ধারণার গুরুত্বপূর্ণ নতুন রূপরেখা তৈরী হয়, যারা পূর্ববর্তী দর্শনের সংকীর্ণতাকে অতিক্রম করতে পেরেছিলেন। যে চিন্তাবিদরা এই চিন্তন প্রবণতা ধরে রেখেছিলেন তারা সবসময়ই এই বিষয়ে সচেতন ছিলেন যে বলবিজ্ঞান সর্ব প্রকারের গতির বহুরূপত্ব বর্ণনা করতে পারেনা। হলবাখ (Holbach) বলেছিলেন, বস্তু হলো তাই, যা কোন না কোন ভাবে আমাদের অনুভূতিকে প্রভাবিত করে। সম্ভবত: এই বিবৃতিটিই বস্তুর ধারণার আধুনিক রূপ ।

রুশ রাষ্ট্রনায়ক ও দার্শনিক ভ. ই. লেনিন বস্তুর নিম্নরূপ সংজ্ঞা দিয়েছিলেন।বস্তু হলো সেই দার্শনিক প্রত্যয় যা বস্তুগত সত্য, যা মানুষ তার অনুভূতির দ্বারা বুঝতে পারে, এবং যার প্রতিলিপি করা যায়, যার ছবি তোলা যায় ও যা আমাদের অনুভূতিতে প্রতিফলিত হয়, আবার তা আমাদের অনুভূতির উপর একেবারেই নির্ভরশীল না হয়ে স্বাধীনভাবে অস্তিত্ববান।
(Matter is a philosophical category denoting the objective reality which is given to man by his sensations, and which is copied, photographed and reflected by our sensations, while existing independently of them.)
প্রথম দিকে সংজ্ঞাটি সুন্দর মনে হলেও পরে এর ভুল ধরা পড়ে। Matter is a philosophical category- এই কথাটি স্ববিরোধী। মানে কি দাঁড়ালো, matter হলো non-matter? কথিত আছে লেনিন নিজেই পরে এই ভুলটি লক্ষ্য করেছিলেন।

আমরা ইতিমধ্যে বস্তুর সংজ্ঞা সম্পর্কে অনেক বলেছি, কিন্তু কি আমাদের আলোচনা থেকে কোন বাস্তবসম্মত উপসংহার টানতে ব্যর্থ হয়েছে. পদার্থবিজ্ঞান বিংশ শতাব্দী শুরু করে একটি সংকটের মধ্যে দিয়ে। 1897 সালে পরীক্ষামূলকভাবে ইলেক্ট্রন আবিষ্কৃত হয়। এর দ্বারা বোঝা যা্য যে, পরমাণুর গঠন অত্যন্ত জটিল। স্পষ্টত: প্রমাণীত হয় যে পরমাণু কয়েকটি কণা, যেমন ইলেকট্রন প্রোটন (পরমাণুর কেন্দ্রস্থিত অংশের ধনাত্মক আধানযুক্ত ক্ষুদ্র কণিকা) এবং নিউট্রন-এর দ্বারা গঠিত। কিন্তু তাদের পারস্পরিক ক্রিয়া সংক্রান্ত পরবর্তী গবেষণাগুলো পদার্থবিজ্ঞানকে কানাগলিতে নিয়ে যায়।
শক্তির (energy) সংরক্ষণ নীতি, যা কিনা বস্তুর সংরক্ষণ নীতির ভিত্তি স্বরূপ, তা হলো প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের একটি মৌলিক মতবাদ। যদি আপনি প্রতিটি ২০ গ্রাম ভরের দুইটি স্বর্ণমুদ্রা নেন, এবং তদেরকে গলিয়ে একটি ধাতুপিণ্ড তৈরী করেন, আদর্শ অবস্থায় সেই ধাতুপিণ্ডটির ওজন হওয়ার কথা ৪০ গ্রাম। কিন্তু মৈলিক কণিকার জগতে প্রায়শঃই এই নিয়মের ব্যাত্যয় ঘটে। দুইটি কণিকার মিথস্ক্রিয়ায় একটি তৃতীয় কণিকার জন্ম হয়, এবং যার ভর প্রথম দুইটি কণিকার ভরের যোগফলের তুলনায় লক্ষণীয়ভাবে কম হয়। এই অবস্থাটি প্রকৃতিবিজ্ঞানীদের কাছে অবিশ্বাস্য মনে হয়, কেননা তা পদার্থবিজ্ঞানের নীতিগুলোর পরিপন্থী বলে মনে হতে থাকে। বিজ্ঞানীরা এই মনে করতে শুরু করেন যে, বস্তু কোনরূপ আলামত (trace) ছাড়াই অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে । এভাবে দার্শনিক জড়বাদ তার মৌলিকত্বের গভীরতা হারিয়ে ফেলে।

পরে অবশ্য আরও বিস্তারিত ভৌত পরিমাপ এই দেখায় যে, দুইটি কণিকার মিথষ্ক্রিয়ায় শুধুমাত্র একটি তৃতীয় কণিকা নয়, বরং ফোটন নামক একটি চতুর্থ কণিকারও জন্ম হয়। এটি আলোর কণিকা যা প্রাথমিকভাবে একটি বস্তুর উপাদান হিসেবে অজানা ছিল। এই ফোটনের ভর হিসাবের মধ্যে এনে পদার্থবিজ্ঞানের মৌলিক আইনগুলো পুনঃস্থাপিত হয়। তার মানে ঘটনাটি বস্তুর বিলীন হওয়া ছিলনা, বরং আমাদের জ্ঞাত বিষয়গুলোর বিলীন হওয়া ছিল। প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের পরবর্তী আবিষ্কারগুলোও আমাদের দার্শনিক ধারণা এইভাবে প্রসারিত ও সুস্পষ্ট করে যে, বস্তু শুধুমাত্র পদার্থ রূপেই থাকেনা, যেমনটি আমরা আগে ভাবতাম, বরং ক্ষেত্র (field) রূপেও থাকে। আলো একটি নির্দিষ্ট রূপ যাকে পদার্থও বলা যাবেনা আবার কায়াও বলা যাবেনা।আলো এতকাল যাবৎ জ্ঞাত বস্তুগুলোর মত স্থানে কোন নির্দিষ্ট সীমা দখল করেনা, কিন্তু তা ক্ষেত্র নামে বস্তুর একটি নির্দিষ্ট রূপ। আজকের প্রাকৃতিক বিজ্ঞান ইতিমধ্যে আরো কিছু ক্ষেত্রের কথা জানে, এগুলো হলো – পারমাণবিক, মহাকর্ষীয় এবং ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক। বর্তমানে আমরা আরো জানি যে, আলোর দ্বৈত সত্তা রয়েছে। আলো একই সাথে তরঙ্গ ও কণিকার মত আচরন করে। পদার্থ, শক্তি, কণিকা ও ক্ষেত্র এরা সকলেই বস্তুর রূপভিন্নতা।
বস্তুর গুনাগুন বলেতে বোঝানো হয় তার বৈশিষ্ট্যকে, যা ছাড়া কোন বস্তু টিকে থাকতে পারেনা। বস্তুর মূল বৈশিষ্ট্যের মধ্যে প্রাথমিকভাবে ধরা যায় গতি, স্থান, সময় এবং প্রতিফলন ।

পরবর্তি সিরিজে পদার্থ, শক্তি, কণিকা, ক্ষেত্র, ইত্যাদি বস্তুর রূপভিন্নতা নিয়ে এবং এর পাশাপাশি স্থান, সময় অর্থাৎ বস্তুর গুনাগুন নিয়ে আলোচনা করব।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -২

গত পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। এই পর্বে আলোচনা করব গতি নিয়ে।

গতি
গতি কথাটিকে আপাতভাবে সরল মনে হলেও এর দার্শনিক ব্যাখ্যা কিন্তু অত সহজ নয় আর দৈনন্দিন ধারণা থেকে একেবারেই ভিন্ন।
আমরা সাধারনতঃ বলে থাকি যে, একটি অবজেক্ট অন্য একটি অবজেক্টের সাপেক্ষে অবস্থান পরিবর্তন করলেই তাকে গতি বলা হয়। বলবিজ্ঞান-এর দৃষ্টিকোণ থেকে এটা সত্য, কিন্তু দার্শনিক দৃষ্টিকোণ থেকে অপর্যাপ্ত। প্রকৃতপক্ষে একটি নির্দিষ্ট অবজেক্ট-এর বাইরে অন্যান্য অবজেক্ট-এর অস্তিত্ব আছে, কিন্তু বস্তুর বাইরে কোন কিছুরই অস্তিত্ব নেই। গতির দার্শনিক ব্যখ্যার আলঙ্কারিক উপমা নিম্নের ঘটনায় দেখা যেতে পারে – গ্যাস আয়তনের বৃদ্ধি দেখা যায় যখন একটি শিশু বায়বীয় বা তরল মাধ্যমে একটি রবার বেলুন ফোলায়।

একটি হ্রদে পানির স্রোত মিশ্রিত হওয়া যদি আমরা ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করি, তাহলে আমরা স্পস্টভাবে দেখতে পাবো যে, হ্রদের পানির গতি কোন শূণ্যতা (vacuum) সৃস্টি করেনা। ইতিপূর্বে দখলকৃত পানির স্রোতকে তাৎক্ষণিকভাবেই নতুন পানির স্রোত দখল করে নেবে। বস্তুর গতি বলতে বিচ্ছিন্ন (isolated) কোন কিছু বোঝানো যাবেনা; কোন একটি পরমাণু, গ্রহ অথবা গ্যালাক্সির অবস্থানের পরিবর্তন সবসময়ই প্রতিবেশী কোন বস্তুর অবস্থানের পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত/সহগামী।
এটা উল্লেখযোগ্য যে, পরম শূণ্যতা (absolute vacuum) বলে কিছুই নেই।পুরো মহাবিশ্বই (Universe) পদার্থ (substance), কণিকা (particle) অথবা ক্ষেত্র (field) দ্বারা পরিপূর্ণ। পাশাপাশি একথা বলার অপেক্ষাই রাখেনা যে মহাবিশ্বের প্রতিটি বিন্দুতেই সদাবিরাজমান মহাকর্ষ ক্ষেত্র (gravitational field)। বস্তুর ঘনতম মিশ্রণ হলো একটি বহুল পরিচিত জ্যোতিস্ক (astronomical object) যার নাম ব্ল্যাক হোল।
বস্তুর গতি মানে তার ঘনত্ব (density), গঠন (composition), সম্পৃক্তি (saturation) এবং ঘনীভবন (concentration)-এর নিম্নসীমা থেকে ঊর্ধ্ব সীমা এবং তদ্বিপরীত ঊর্ধ্ব সীমা থেকে নিম্নসীমা পর্যন্ত অবিরাম পরিবর্তন । এই পথ স্বাভাবিকভাবেই সরলরৈখিক নয়, বরং নানা প্রকৃতির কখনো বৃত্তাকার, কখনো বিপরীতমুখী, পাশাপাশি ত্বরান্বিত (accelerated) অথবা মন্দিত (retarded) পরিবর্তন ।

দর্শন শাস্ত্রে গতির কতগুলো ধর্ম রয়েছে। এগুলো হলো বস্তুগততা (materiality), পরমতা (absoluteness) এবং সুনির্দিস্টতা (concreteness)। গতির বস্তুগততা মানে আমরা বুঝব যেখানে বস্তু নাই, সেখানে গতিও নাই। গতি কেবলমাত্র বস্তুরই ধর্ম। উধাহরণস্বরূপ, পথচারী, ইলেকট্রন, পিস্টন, ধুমকেতু এরা সকলেই গতিশীল এবং সকলেই বস্তু । গতির পরমতা বলতে আমরা এই বুঝব যে, গতিহীন কোন বস্তু হয়না। বস্তু মাত্রই গতিশীল। সকল বস্তু সকল অবস্থাতেই সর্বদাই গতিশীল। স্থিতি একটি আপেক্ষিকতা মাত্র, পরম স্থিতি বলে কিছু নেই।

গতির তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ ধর্ম হলো সুনির্দিস্টতা। বিষয়টি হলো এমন যে, যে কোন বস্তুর গতির প্রকৃতি ও রূপ নির্ভর করে বস্তুটির গঠনের উপর। গতি চিরন্তন বটে তবে তা কখনো সুনির্দিস্ট কখনো আপেক্ষিক রূপে দেখা দেয়। গতির বাহক (carrier) এবং মৌলিক আইনের (fundamental laws) উপর নির্ভর করে গতির বিভিন্ন রূপ দেখা যায়। যেমন, যান্ত্রিক (mechanical) (বাহক – মনুষের দ্বারা পরিমাপযোগ্য, অর্থাৎ অতি ক্ষুদ্র নয় আবার অতি বৃহৎ নয় এমন কায়া; আইন – নিউটনীয় (চিরায়ত) বলবিদ্যার আইন)। ভৌত (physical) অর্থাৎ তাপীয় (thermal), বৈদ্যুতিক (electrical), আলো ইত্যাদি ( বাহক – অণু, পরমাণু, ইলেকট্রন ইত্যাদি ক্ষুদ্র কণিকা, আইন – আনবিক পদার্থবিদ্যা, কোয়ান্টাম বলবিদ্যা ইত্যাদি ক্ষুদ্র কণিকার বিজ্ঞানের আইন), জৈবিক (biological) (বাহক – জীব, আইন – প্রাকৃতিক নির্বাচন (natural selection) অর্থাৎ পরিবেশের সাথে খাপ খাওয়াবার আইন)। মনস্তাত্ত্বিক (psychological) (বাহক – মস্তিস্ক এবং স্নায়ু), সামাজিক (social) ( বাহক – মানুষ এবং মানব সমাজ, আইন – সমাজবিদ্যার আইন)

এদিকে ৯০-এর দশকের ধারণাগুলো অনুযায়ী আমরা জানি যে, বিজ্ঞান যে সকল গতির প্রকারভেদের কথা বলে তার সাথে উপরের ৬টি প্রকারের পুরোপুরি মিল খুঁজে পাওয়া যায়না, বরং তা একটি বহুবিধ শাখা-প্রশাখা সম্বলিত বৃক্ষের সাথে তুলনীয়। পদার্থবিজ্ঞানীরা ভূবিজ্ঞান (geology), সাইবারনেটিক্স (cybernetics), গতির ইনফর্মেশন রূপ এবং মৌলিক কণিকা গুলোর গতি অধ্যয়ন করছে। বর্তমানে এমন সব বস্তুরও সন্ধান পাওয়া গি্যেছে যার উৎস ও গতির প্রকৃতি অন্ধকারাচ্ছন্ন। এর উজ্জ্বল উদাহরণ কোয়াজার (quasar)।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৩

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। এবারের পর্বে আলোচনা করব স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে।

স্থান ও কাল

স্থান কি ও কাল কি এই জিজ্ঞাসাও মানুষের চিরন্তন। মানব জ্ঞান ও মানব জাতির ইতিহাসে এটি মৌলিক প্রশ্ন সমূহের একটি। মানব ইতিহাসের গতিধারায় স্থান ও কালের ধারনাও পাল্টেছে বহুবার। বস্তুর এই গুনাগুন (attributes) দুইটিকে সম্মিলিত ভাবেই অধ্যয়ন করা হয়।

স্থানের প্রকৃতি, গুনাবলী ও অস্তিত্বের ধরণ নিয়ে বিতর্ক চলছে সেই অনাদিকাল থেকে। যেমন প্লেটোর ট্রিটিজ (treatise) Timaeus অথবা সক্রেটিসের khora (অর্থাত্ “স্থান”), অথবা এরিস্টটলের (ডেল্টা বইয়ের IV নং অধ্যয় ) topos (অর্থাৎ জায়গা)-এর সংজ্ঞা, অথবা ১১ তম এর শতাব্দীর আরব polymath আলহাজেন-এর “স্থান সম্পর্কিত ডিসকোর্স (Qawl fi al-Makan)”-এর মধ্যে “স্থানের জ্যামিতিক ধারণা” “space qua extension” হিসাবে আলোচিত হয়েছে।

রেনেসাঁ-র যুগেও এই সকল চিরায়ত দার্শনিক প্রশ্নগুলো আলোচিত হয়েছে । তারপর ১৭ শতাব্দীতে বিশেষত চিরায়ত বলবিজ্ঞানের প্রথম যুগে তাদেরকে পূণর্বিন্যাসও করা হয়েছে। স্যার আইজাক নিউটনের মতে, স্থান হচ্ছে পরম – অর্থাৎ স্থান স্থায়ীভাবে এবং স্বাধীনভাবে চিরকাল ছিল ও আছে। সেই স্থানে বস্তু থাকুক বা না থাকুক তার উপর স্থান নির্ভরশীল না।

গ্রীক দার্শনিক ডেমোক্রিটাস এবং এপিকুরাস মনে করতেন স্থান হলো সমসত্ত্ব (homogenous) ও অসীম শূণ্যতা, যা কম বেশী পরমাণু দ্বারা পরিপূর্ণ।

অন্যান্য প্রাকৃতিক দার্শনিকরা, যাদের মধ্যে Gottfried Leibniz-এর নাম উল্লেখযোগ্য, তিনি ভেবেছিলান যে স্থান হচ্ছে বস্তুর মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্কের একটি সংগ্রহ, যা নির্ধারিত হচ্ছে একে অপরের থেকে তাদের দূরত্ব এবং দিকবিন্যাস দ্বারা। ১৮ শতাব্দীর দার্শনিক ও ধর্মতত্ত্ববিদ জর্জ বার্কলে তার রচনা “Towards a New Theory of Vision” – এ “স্থানিক গভীরতার দৃশ্যমানতা” (visibility of spatial depth) সম্পর্কে নতুন ধরনের বিবৃতি প্রদান করেন।
পরবর্তীতে, অধিবিদ্যাবিদ (meta-physician) ইমানুএল কান্ট বলেন স্থান বা সময় কাউকেই ইন্দ্রিয়গ্রাহ্যভাবে (empirically) হৃদয়ঙ্গম করা যাবে না, তারা একটি পদ্ধতিগত কাঠামোর উপাদান যা মানুষ তার সকল অভিজ্ঞতা কাঠামোগত করার জন্য ব্যবহার করে থাকে।

উনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীতে গণিতবিদরা অ-ইউক্লিডিয় জ্যামিতি নিয়ে কাজ করতে শুরু করেন, যেখানে স্থান আর সমতল নয় বরং বক্র।
আমাদের এ যাবৎকাল যা জানা আছে তার মধ্যে সময় সম্পর্কে লিখিত প্রাচীনতম লেখাটি মিশরীয় চিন্তাবিদ প্টাহহোটেপ (Ptahhotep (c. 2650–2600 BCE))-এর তিনি বলেছিলেন: “Do not lessen the time of following desire, for the wasting of time is an abomination to the spirit.” আর্যদের প্রাচীনতম গ্রন্থ বেদ (খ্রীস্টপূর্ব ২০০০ সালে লিখিত বলে ধারণা করা হয়)-এ বিশ্বতত্ব (cosmology)-এর বর্ণনা রয়েছে। যেখানে বলা হয়েছে এই মহাবিশ্ব চক্রাকেরে বারংবার সৃস্টি, বিকাশ, ধ্বংস ও পূনর্জন্মের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি চক্রের বয়স ৪৩২০০০০ (তেতাল্লিশ লক্ষ বিশ হাজার ) বছর ।

গ্রীকরা যেমন ধারণা করেছিল যে, এই মহাবিশ্বের রয়েছে অসীম অতীত এবং এর কোন শুরু নাই। গ্রীকদের বিপরীতে মধ্যযুগীয় দার্শনিক ও ধর্মতত্ববিদরা এই ধারণা বিকশিত করেন যে, মহাবিশ্বের একটি সসীম অতীত ও প্রারম্ভ রয়েছে । এই দৃস্টিভঙ্গী উৎস হলো তিনটি আব্রাহামীক ধর্ম (Abrahamic religions): ইহুদী, খ্রীস্টান ও ইসলাম ধর্ম। যে সকল দার্শনিক এই ধারণাকে বিকশিত করেন তারা হলেন, খ্রীস্টান দার্শনিক জন ফিলিপোনাস, ইহুদী দার্শনিক সাদীয়া গাওন, মুসলিম দার্শনিক আল কিন্দি, আল গাজ্জালী প্রমুখ। অসীম অতিতের ধারণার বিপরীতে তারা দুইটি যুক্তি ব্যব হার করেন, প্রথমতঃ “সত্যিকারের অসীম বলে কোন কিছু থাকা সম্ভব না”। যা বলে “ঘটনসমুহের (events) অসীম সময়গত ক্রমাগত প্রত্যাবর্তনই হলো সত্যিকারের অসীম” (An infinite temporal regress of events is an actual infinite.”), ” “ঘটনসমুহের অসীম সময়গত ক্রমাগত প্রত্যাবর্তনের কোন অস্তিত্ব নেই (∴ An infinite temporal regress of events cannot exist)”
দ্বিতীয় যুক্তিটি হলো, ” সত্যিকারের অসীমকে পরবর্তীকালীন যোগ দ্বারা সম্পন্ন করা সম্ভব না (An actual infinite cannot be completed by successive addition.”)। ড্বিতীয় যুক্তিটি খ্যাতিমান হয়ে ওঠে ইমানুয়েল কান্ট যখন তাকে তার নিবন্ধ the first antinomy concerning time – এ ব্যবহার করেন।১১ শতকের শুরুতে মুসলিম বিজ্ঞানী আল হাজেন (Ibn al-Haytham (Alhacen or Alhazen) তার গ্রন্থ ‘আলোকবিজ্ঞান’-এ স্থান উপলদ্ধি ও তার জ্ঞানতত্ব বিষয়ক প্রয়োগ (space perception and its epistemological implications ) নিয়ে আলোচনা করেন। পূর্বে স্থানের দৃষ্টিগত যে উপলদ্ধি ছিল, আল হাজেনের পরীক্ষামূলক প্রমাণের পরে সেই ধারনা বদলে যায়। তিনি টলেমি ও ইউক্লিডের স্বজ্ঞাজনিত স্থান উপলদ্ধি ( intuitiveness of spatial perception )-কে একবাক্যে বাতিল করেন, তিনি বলেন, পারস্পরিক সম্পর্ক স্থির করার লক্ষ্যে, আকৃতি ও দূরত্ব সম্পর্কে বাস্তব ধারণা না থাকলে দৃষ্টি আমাদেরকে প্রায় কিছুই বলতে পারবে না (Without tangible notions of distance and size for correlation, sight can tell us next to nothing about such things.”

দক্ষিণ আমেরিকার ইনকারা স্থান ও কাল-কে একীভূত (single concept) মনে করত, তারা স্থান-কাল-এর একটি নাম দি্যেছে, পাচা (pacha), আন্ডিজ পর্বতমালার অধিবাসীরা এখনো এই ধারণাই পোষণ করে।

নিউটন-লেইবনিজ স্থান-কাল বিতর্কঃ
স্থান ও কাল নিজে নিজেই সত্যিকার অবজেক্ট (real objects ) নাকি তারা সত্যিকার অবজেক্ট সমূহের মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক এই নিয়ে বিতর্ক হয়েছিল দুই খ্যাতিমান বিজ্ঞানী স্যার ইসাক নিউটন ( Isaac Newton ) ও গটফ্রীড লেইবনিজ (Gottfried Leibniz)-এর মধ্যে। স্যার ইসাক নিউটন মনে করতেন স্থান ও কাল বস্তুর উপর নির্ভরশীল নয়। স্থান আরও যথাযথভাবে বললে চরম স্থান হলো একটি শূণ্য আধার যা নানাবিধ কায়া (body) ধারণ করে। এই আধার (স্থান) গতিহীন, অবিরাম ও সকল বিন্দুতে ও সকল দিকে সমসত্ত্ব (homogeneous)। এখানে কায়াগুলো থাকে তবে কায়াগুলো স্থানকে অথবা স্থান কায়াগুলোকে কোনভাবেই প্রভাবিত করেনা। একইভাবে সময় হলো পরম যা কোন কিছুর উপর নির্ভরশীল নয়। সময়ের তীর অতীত থেকে ভবিষ্যতের দিকে বহমান। স্থান যেমন কায়ার আধার সময় তেমনি ঘটনার আধার । নিউটন আরো মনে করতেন স্থান ও কাল পরস্পরের উপর নির্ভরশীল নয়।

পক্ষান্তরে স্যার আইজাক নিউটনের ধারণা বা তত্ত্বের বিরোধী আর একটি ধারণা বা তত্ত্ব প্রতিস্ঠিত হয় এরিস্টটলের শিক্ষার উপর ভিত্তি করে। এই ধারণাটি প্রতিষ্ঠা করেন গটফ্রীড লেইবনিজ । এই ধারণা অনুযায়ী স্থান ও কাল বস্তু থেকে বিচ্ছিন্ন নয় বরং তার উপর নির্ভরশীল। স্থান হলো কিছু কায়ার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক ও কাল হলো কিছু ঘটনার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক । যেখানে কায়া নাই সেখানে স্থান নাই এবং যেখানে ঘটনা নাই সেখানে কাল নাই। মহাবিশ্বের আবির্ভাবের সাথে সাথে জন্ম হয়েছে স্থান ও কালের। আবার মহাবিশ্ব কোন দিন যদি তীরোভুত হয়ে যায়, তার সাথে সাথে স্থান ও কাল-ও তীরোভূত হবে।

এদিকে জগৎবিখ্যাত বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনস্টাইন যার আপেক্ষিকতত্ত্ব (Theory of Relativity) নামের বৈপ্লবিক চিন্তাভাবনা বিজ্ঞানের জগতে সূচনা করেছে এক নতুন যুগের, তিনি স্থান ও কাল সম্পর্কে দিয়েছেন আরো একটি নতুন ধারণা। পরবর্তি পর্বে এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -8

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। এবারে পর্বে আলোচনা করব স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।

আলবার্ট আইনস্টাইনের স্থান ও কাল

প্রাচীন গ্রীক দার্শনিক ও বিজ্ঞানী এরিস্টটল বলেছিলেন, “বিশুদ্ধ চিন্তার সাহায্যেই মহাবিশ্ব নিয়ন্ত্রণকারী সকল আইন খুঁজে বের করা সম্ভব”। অর্থাৎ তাকে পরীক্ষার সাহায্যে প্রমাণের কোন প্রয়োজন নেই। ইসলামের স্বর্ণযুগে (Islamic golden age) মুসলিম বিজ্ঞানীরা পরীক্ষার সাহায্যে প্রমাণের উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন। আরো অনেক পরে গ্যালিলিও ইউরোপীয় বিজ্ঞানে পরীক্ষার সাহায্যে প্রমাণের বিষয়টির প্রচলন করেন। স্থান ও কালের ধারণায়ও তত্ত্বের পাশাপাশি পরীক্ষাণের বিষয়টিও গুরুত্ব পেতে শুরু করে। স্থান-কালের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে আরেকটি বিষয়, সেটি হলো আলোর চলাচল। এক সময় মনে করা হতো আলোর বেগ অসীম। গ্রীক দার্শনিক এমপেডোক্লেস (Empedocles) প্রথম দাবী করেন যে, আলোর গতি সসীম। তিনি যুক্তি প্রদান করেন যে, আলো গতিশীল কোন একটা কিছু, তাই অন্যান্য গতিশীল কায়ার মত তারও ভ্রমণ করার জন্য কিছু সময় প্রয়োজন। পক্ষান্তরে এরিস্টটল বলেছিলেন কোন কিছুর উপস্থিতিতে আলো হয়, সুতরাং আলো গতিশীল কিছু নয়। আধুনিক আলোক বিজ্ঞানের জনক মুসলিম পন্ডিত আল হাজেন (আল হাইয়াম) বলেছিলেন আলো অত্যন্ত উচ্চ গতি সম্পন্ন তবে তার বেগ সসীম। এবং মাধ্যম ভেদে আলোর গতির তারতম্য হয়, ঘন মাধ্যমে কম ও হালকা মাধ্যমে বেশী। তিনি আরো বলেছিলেন আলো একটি বস্তু, সুতরাং তার সঞ্চারণের জন্যে সময়ের প্রয়োজন। ১১ শতকে আল বিরুনী আলোর বেগের সসীমতা সম্পর্কে একমত প্রকাশ করেন। তিনি আরো লক্ষ্য করেন যে আলোর বেগ শব্দের বেগের চাইতে বেশী। ১৬৭৬ সালে আলোর বেগ প্রথম বারের মত পরিমাপ করেন ডেনমার্কের বিজ্ঞানী রোমার (Roemer)। উনার পরিমাপ অনুযায়ী আলোর বেগ প্রতি সেকেন্ডে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার মাইল, যা আধুনিক যুগে পরিমিত এক লক্ষ ছিয়াশি হাজার মাইল থেকে খুব দূরে নয়।

আলোর সঞ্চালন সম্পর্কে সঠিক তথ্য ১৮৬৫ সালের পূর্বে আবিস্কৃত হয়নি। সেই সময় বৃটিশ পদার্থবিজ্ঞানী জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল ( James Clerk Maxwell) বিদ্যুত ও চুম্বক সম্পর্কিত প্রচলিত আংশিক তত্ত্বগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করতে সমর্থ হন। ম্যাক্সওয়েলের সাড়া জাগানো সমীকরঙুলো ভবিষ্যদ্বানী করেছিল যে সম্মিলিত বিদ্যুত-চুম্বক () ক্ষেত্রে একটি চাঞ্চল্য হওয়া সম্ভব যা সরোবরের তরঙ্গের সাথে তুলনীয়। সেই তরঙ্গটি স্থির দ্রুতিতে (Constant speed) চলমান হবে। এবার সেই দ্রুতিটি কিসের সাপেক্ষে নির্ণিত হবে সেটি একটি বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়ায়। এর ভিত্তিতে অনুমান করা হয় ইথার নামক একটি বস্তু আছে যা সর্বত্র বিরাজমান। আলোক তরঙ্গ এই ইথারের মধ্য দিয়ে চলে।

গ্যালিলিও-র বেগের সংযোগ (বিয়োজন) সুত্র অনুযায়ী, পরস্পরের দিকে ধেয়ে আসা দুটি চলমান কায়ার আপেক্ষিক বেগ এই দুটি কায়ার পৃথক পৃথক বেগের যোগফলের সমান হবে, আর পরস্পরের থেকে দূরে সরে যাওয়া দুটি চলমান কায়ার আপেক্ষিক বেগ এই দুটি কায়ার পৃথক পৃথক বেগের বিয়োগফলের সমান হবে। অর্থাৎ, দুটি ট্রেনের পৃথক পৃথক বেগ যদি হয় যথাক্রমে ৩০ ও ৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায়, তাহলে
তারা পরস্পরের দিকে ধেয়ে আসলে কোন একটি ট্রেনের যাত্রীর কাছে মনে হবে অপর ট্রেনটি তাকে প্রতি ঘন্টায় (৪০ + ৩০) ৭০ কিলোমিটার বেগে অতিক্রম করছে। পক্ষান্তরে, প্রথম ট্রেনটিকে যদি দ্বিতীয় ট্রেনটি পিছন থেকে অতিক্রম করে তবে তা প্রতি ঘন্টায় (৪০-৩০) = ১০ কিলোমিটার বেগে অতিক্রম করবে। আলোর বেগের ক্ষেত্রে গিয়ে এই নিয়মের ব্যতিক্রম দেখা গেল। ১৮৮৭ সালে আলবার্ট মাইকেলসন ( Albert Michelson) ও এডওয়ার্ড মর্লি (Edward Morley) অতি যত্ন সহকারে একটি পরীক্ষা করেন তারা পৃথিবীর গতির অভিমুখে আলোর বেগ ও পৃথিবীর গতির অভিমুখের সমকোণে আলোর বেগের তুলনা করেন। গ্যালিলিও-র বেগের সংযোগ (বিয়োজন) সুত্র অনুযায়ী যা ভিন্ন ভিন্ন হওয়ার কথা, সেখানে তারা বিস্ময়ের সাথে দেখলেন দুটি বেগই অভিন্ন। যা ইতিহাসে মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষা নামে খ্যাত হয়ে আছে।

১৮৮৭ থেকে ১৯০৫ সাল পর্যন্ত সাল পর্যন্ত ইতিহাসে মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার নানা রকম ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করা হয়। যে সকল বিজ্ঞানী এই ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করেন তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন হেনড্রিক লোরেন্টজ ( Hendrik Lorentz)। কিন্তু সুইজারল্যান্ডের প্যাটেন্ট অফিসের একজন অখ্যাত কেরাণী ১৯০৫ সালে প্রকাশিত একটি বিখ্যাত গবেষণাপত্রে দেখিয়ে দেন যে, পরম কাল (absolute time)-এর ধারণা ত্যাগ করলেই এই ঘটনা ব্যাখ্যা করা যায়। এই অখ্যাত কেরাণীর নাম আলবার্ট আইনস্টাইন। এই নতুন তত্ত্ব যা পৃথিবী জুড়ে সাড়া ফেলে দেয় তা আজ আপেক্ষিক তত্ত্ব (theory of relativity) নামে পরিচিত। আপেক্ষিক তত্ত্বের উল্লেখযোগ্য ফলশ্রুতি হলো স্থান ও কাল সম্পর্কে আমাদের চিন্তাধারায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন। নিউটনের তত্ত্ব অনুসারে একটি স্থান থেকে স্থানে যদি আলোকের একটি স্পন্দন (pulse) পাঠানো যায়, তাহলে বিভিন্ন পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে তার ভ্রমণকাল সম্পর্কে মতৈক্য হবে। কারণ কাল পরম। পক্ষান্তরে আপেক্ষিক তত্ত্ব অনুযায়ী পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে তার ভ্রমণকাল ভিন্ন ভিন্ন হবে কেননা আলোর বেগ ধ্রুব । একইভাবে আলো কতটা দূরত্ব অতিক্রম করেছে সেটাও পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে ভিন্ন ভিন্ন হবে। অন্যকথায় আপেক্ষিক তত্ত্ব পরম কাল ও পরম স্থানের ধারণাকে শেষ করে দিয়েছে।

স্থান ও কাল যে পরম নয়, সেকথা আলবার্ট আইনস্টাইনের পাশাপাশি এরনস্ট ম্যাক্স (Ernst Mach (German pronunciation: [ˈɛɐnst ˈmax]) (February 18, 1838 – February 19, 1916))-ও বলেছিলেন।

নিউটনীয় বলবিদ্যা (চিরায়ত বলবিদ্যা) যা তিন শত বছর যাবৎ বিজ্ঞান ও দর্শনের জগতে প্রভাব বিস্তার করে ছিল, এবং আমরা ধরেই নিয়েছিলাম যে এই রহস্যময় জগতের প্রায় পুরোটাই আমরা বুঝে ফেলেছি, মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার পর স্পষ্ট বোঝা গেল যে, চিরায়ত বলবিদ্যারও সীমাবদ্ধতা রয়েছে। এবং এই রহস্যময় জগতকে যতটুকু না মনে করেছিলাম তার চাইতেও অনেক বেশী রহস্যে ভরা। অন্ততপক্ষে চিরায়ত বলবিদ্যা সবকিছু ব্যাখ্যা করতে পারেনা। আলোর দ্রুতি সম্পন্ন অথবা তার কাছাকাছি দ্রুতি সম্পন্ন কায়াগুলোর প্রতিভাস (Phenomenon) ব্যখ্যা করতে চিরায়ত বলবিদ্যা ব্যর্থ। এই বিষয়টি ব্যখ্যায় আপেক্ষিক তত্ত্ব সাফল্য প্রদর্শন করে। যদিও অনেকেই মনে করেন যে মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার ব্যাপারটি আইনস্টাইনের জানা ছিলনা, তিনি বিচ্ছিন্নভাবেই তত্ত্বটি প্রতিষ্ঠা করেন।

১৯০৫ সালে প্রতিস্ঠিত আইনস্টাইনের আপেক্ষিক তত্ত্ব ছিল সমবেগ (uniform velocity) সম্পন্ন কায়াসমুহ নিয়ে। এই আপেক্ষিক তত্ত্বের নাম পরবর্তিতে দেয়া হয়েছিল বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্ব (special theory of relativity)। এরপর তিনি অসমবেগ বা ত্বরণ (acceleration) নিয়ে কাজ করতে শুরু করেন। মহাকর্ষ বল এই ত্বরণের আওতাভুক্ত। বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের সাথে নিউটনীয় মহাকর্ষীয় তত্ত্বের অসঙ্গতি ছিল। নিউটনীয় মহাকর্ষীয় তত্ত্ব অনুযায়ী বিভিন্ন কায়ার মধ্যে আকর্ষণ বল দুরত্বের উপর নির্ভরশীল, সময়ের উপর নয়। একটি কায়াকে যদি সরানো হয় তখন অন্য কায়াটির উপর প্রযুক্ত বলের তাৎক্ষণিক পরিবর্তন হবে। একে দূরক্রিয়া (action at a distance) বলা হয়। অর্থাৎ যত দূরেই থাকুক না ক্রিয়া হবে তাৎক্ষণিক। অন্যকথায় মহাকর্ষীয় ক্রিয়া অসীম গতিতে চলমান। কিন্তু বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের দাবী অনুযায়ী আলোর দ্রুতিই সর্বচ্চো। মহাকর্ষীয় ক্রিয়ার দ্রুতি আলোর দ্রুতি অপেক্ষা বেশী হতে পারবে না। তাকে হতে হবে হয় আলোর দ্রুতির সমান অথবা কম।

১৯০৭ থেকে ১৯১৪ সাল পর্যন্ত আইনস্টাইন চেষ্টা করেছেন এমন একটি মহাকর্ষীয় তত্ত্ব প্রতিষ্ঠা করতে যার সাথে বিশেষ আপেক্ষিক তত্ত্বের সঙ্গতি থাকবে। শেষে ১৯১৫ সালে তিনি নতুন আরো একটি বৈপ্লবিক তত্ত্ব প্রতিষ্ঠা করেন যার নাম সার্বিক আপেক্ষিক তত্ত্ব (General theory of relativity)। এই বৈপ্লবিক প্রস্তাব অনুযায়ী, মহাকর্ষীয় বল অন্যান্য বলের মত নয়। আগে যেরকম অনুমান করা হয়েছিল স্থান-কাল সেরকম সমতল নয়, বরং এটা বক্র অথবা বঙ্কিম (Warped)। তার কারণ স্থান-কাল-এ ভর ও শক্তির বন্টন। আইনস্টাইনের মতে মহাকর্ষ এরই ফলশ্রতি। যেকোন গুরুভর সম্পন্ন কায়া (massive body) তার চতুর্দিকের স্থান-কাল-কে বক্র করে ফেলে। পৃথিবী যে সুর্যের চতুর্দিকে বঙ্কিম কক্ষে ঘরছে তার কারণ মহাকর্ষ নামক বল নয়, বরং সে বঙ্কিম স্থানে সরলপথের নিকটতম পথ অনুসরণ করে। সেই পথের নাম জিওডেসিক (geodesic)। এভাবে সার্বিক আপেক্ষিক তত্ত্বের গুনে আমরা স্থান সম্পরকে নতুন জ্ঞান পেলাম যে, তা বক্র। পাশাপাশি সার্বিক আপেক্ষিক তত্ত্ব এও বলে যে গুরুভর সম্পন্ন কায়ার কাছাকাছি সময়ের গতি হয় শ্লথ। এই দুটো স্টেটমেন্টই পরীক্ষার দ্বারা প্রমাণিত।

পরবর্তী দশকগুলিতে স্থান-কাল সম্পর্কে এই নতুন বোধ আমাদের মহাবিশ্ব সম্পর্কীয় ধারনায় বিপ্লব এনেছে। আমাদের প্রাচীন ধারণা ছিল: মহাবিশ্ব মূলতঃ অপরিবর্তনীয়। তার অস্তিত্ব চিরকাল ছিল এবং চিরকাল থাকবে। এর জায়গায় বর্তমান ধারণা: মহাবিশ্ব গতিশীল ও প্রসারমান। সীমিতকাল পূর্বে তার শুরু এবং ভবিষ্যতে সীমিতকাল পরে তার শেষও হতে পারে।
স্থান-কাল সম্পর্কে বিজ্ঞান আপাততঃ এখানে এসে থেমে গেলেও। এই আলোচনা এখানেই শেষ না। এই বিষয়ে দার্শনিকদের আরো কিছু বলার আছে। বিষয়টি নিয়ে আমি পরবর্তী পর্বে আলোচনা করব।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৫

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে। এবারের পর্বে আলোচনা করব স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন

দর্শন শাস্ত্র বলে ‘স্থান-কাল হলো বস্তুর অস্তিত্বের একটি রূপ’ (Space-time is the form of existence of matter )। কিন্তু এর অর্থ কি? এর ব্যখ্যা প্রাথমিকভাবে উপমার দ্বারা করা যেতে পারে। আমরা সবাই ভালোবাসা, ঘৃণা, বন্ধুত্ব এই বিষয়গুলোর সাথে পরিচিত। এখন প্রশ্ন হলো একটি কলম বা একটি গোলাপের চারার মত কি ভালোবাসার স্বাধীন সত্তা আছে? অবশ্যই নয়। ভালোবাসা হলো দুই বা ততোধিক মানুষের মধ্যে আবেগগত সম্পর্ক। যেখানে মানুষ নাই বা কোন জীবন্ত সত্তা নাই সেখানে ভালোবাসাও নাই। অনুরূপভাবে সমাজের বাইরে কি অপরাধ সংঘটিত হয়? অবশ্যই নয়। অপরাধ সমাজেরই একটি বৈশিষ্ট্য। যেখানে সমাজ নাই সেখানে অপরাধ নাই। সুতরাং দুই ধরণের বিশেষ্য আছে, এক ধরনের সুনির্দিষ্ট কিছু অবজেক্টকে বোঝায় যার স্বাধীন সত্তা আছে, আর দ্বিতীয় ধরণটির স্বাধীন সত্তা নাই সে অবজেক্টগুলোর মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্ক। যেমন, ভালোবাসা, শৃংখলা, শ্রদ্ধা, ইত্যাদি।

স্থান ও কালের ধারণা ঐ দ্বিতীয় ধরণের মধ্যে পরে। বস্তুর অনুপস্থিতিতে স্থান ও কাল স্বাধীনভাবে টিকে থাকতে পারেনা। যেখানে বস্তু নাই সেখানে স্থান ও কাল কোনটাই নাই। স্থান হলো কতগুলো কায়ার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক। যেমন চার দেয়ালে ঘেরা একটি কক্ষে যদি দশটি চেয়ার থাকে। তবে সেই স্থানটি ঐ অবজেক্টগুলো দ্বারাই গঠিত।দুটি দেয়ালকে যদি পরস্পর থেকে দূরে সরিয়ে নেই, অথবা চেয়ারগুলোর সজ্জাকে যদি পরিবর্তন করি। তাহলে স্থানও পরিবর্তিত হয়ে যাবে। আমার স্ত্রী প্রায়ই আমাদের ঘরের আসবাবপত্রের সজ্জ্বা পরিবর্তন করেন। যতবারই তিনি এটা করেন ততবারই আমার মনে হয় জায়গাটি বদলে গিয়েছে। একইভাবে সময় হলো কিছু ঘটনার মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্ক। যেমন এক মিনিট বলতে আমরা কি বুঝি? যদি ঐ কক্ষটিতে একটি দেয়াল ঘড়ি থাকে তাহলে ঘড়িটির সেকেন্ডের কাটার ১২টার ঘরে থাকার প্রথম ঘটনা ও একবার ঘুরে এসে পুনরায় ১২টার ঘরে আসার দ্বিতীয় ঘটনা, এই দুটি ঘটনার মধ্যেকার পারস্পরিক সম্পর্কই এক মিনিট। উপরন্তু সময় হলো গতির ফলাফল। উপরের ঘটনা দুটি ঘটানোর জন্য সেকেন্ডের কাটাকে গতিশীল হতে হয়েছিল। এখন ঐ কক্ষে যদি ঐ ঘড়িটি ছাড়া আর কোনই ঘড়ি না থাকে আর সেকেন্ডের কাটার বেগ যদি কম হয় (চলতি কথায় স্লো হয়), তাহলে এবার মিনিটগুলোর আকৃতি হবে বড়। উল্টোভাবে বেগ যদি বেশী হয় (চলতি কথায় ফাস্ট হয়), তাহলে মিনিটগুলোর আকৃতি হবে ছোট। পৃথিবী যখন নিজ অক্ষের চতুর্দিকে একবার ঘুরে আসে সেটাকে আমরা বলি একদিন। আবার সুর্যের চারদিকে একবার ঘুরে আসলে তাকে বলি এক বৎসর। এইসব উদাহরণ থেকে স্পস্ট বোঝা যায় যে ঘটনার উপর ও গতির উপর সময় নির্ভর করে। যেখানে গতি নাই সেখানে সময়ও নাই।

স্থান ও কাল হলো গতির সরাসরি ফলাফল। গতি যেমন সময়ের জন্ম দেয় তেমনি স্থান (কতগুলো কায়ার মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক)-কেও অবিরাম পরিবর্তিত করে। স্থান ও কাল উভয়েরই একটি একক ভিত্তি (Single foundation) রয়েছে। আর তা হলো গতিশীল বস্তু (Moving matter)। তারা হলো একটি Single common basis-এর দুটি ভিন্ন manifestation। এইভাবে কেবল পদার্থবিজ্ঞান নয়, দর্শনশাস্ত্রেও ধরা হয় স্থান ও কালের একটিই মাত্র মৌলিক উৎস রয়েছে, আর সেটি হলো বস্তুর গতি (Movement of matter)।

স্থান ও কালের আরো দুটি ধর্ম হলো পরমত্ব (absoluteness ) ও আপেক্ষিকতা ( relativity)। পরমত্ব বলতে বোঝায় বস্তুর উপর স্থান ও কালের পরম নির্ভরতা, অর্থাৎ বস্তু না থাকলে স্থানও নাই কালও নাই। আর আপেক্ষিকতা বলতে বোঝায় স্থান ও কালের ধর্ম ও বৈশিষ্ট্য নির্ভর করে যে বস্তুগুলো স্থান ও কালকে সৃষ্টি করছে তাদের প্রকৃতির উপর। আধুনিক পদার্থবিজ্ঞান তিন ধরনের স্থান ও কালকে অধ্যয়ন করে। ক্ষুদ্র (micro- ), বৃহৎ (macro- ), অতিবৃহৎ (mega-) জগৎ (world)। macro-world যেখানে আমরা বসবাস করছি সেখানে স্থান ত্রিমাত্রিক, micro- world অর্থাৎ ক্ষুদ্র কণিকার জগৎ সেখানে স্থান বহুমাত্রিক (তিন কি চারের অধিক মাত্রা আছে), অতিবৃহৎ (mega-world) জগৎ গ্রহ-নক্ষত্র-ধুমকেতু ইত্যাদির জগতে সর্বাধিক প্রভাব বিস্তারকারী মিথস্ক্রিয়া (interaction) হলো মহাকর্ষ (gravitation), এই মহাকর্ষ স্থানকে বাঁকিয়ে ফেলে, যা পূর্বেই বলা হয়েছে।

আধুনিক দর্শনে আরো কিছু সময়ের ধরণের কথাও বলা হচ্ছে যেমন, Biological time, geological time, historical time, time of chemical changes ইত্যাদি। আবার সময়ের হিসাবেরও নানা উপায় আছে যেমন এই আমরাই একই সাথে সৌর ও চন্দ্র ক্যালেন্ডার ব্যবহার করে থাকি। আবার স্পেনীয়রা দক্ষিণ আমেরিকা দখলের পর দেখেছিল যে তাদের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ইতিমধ্যে ৪১ তম শতাব্দী চলছে। তারপর খোঁজখবর নিয়ে জানা গেল যে তারা শুক্র গ্রহীয় (Venusian) ক্যালেন্ডার ব্যবহার করছে। অপেক্ষার সময় যায় ধীরে আর আনন্দের সময় যায় দ্রুত, এটা Biological time-এর একটা উদাহরণ। আলো আঁধারীর ধোকা দি্যে মুরগীকে ২৪ ঘন্টায় ২ বার ডিম পারানো যায়। আমাদের কাছে যেটা এক দিন মুরগীর কাছে সেটা দুই দিন। এটাও Biological time-এর একটা উদাহরণ। এমন আরো অনেক কিছু।

আরো একটি ইন্টারেস্টিং আলোচনা হলো বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান ও কাল। পরবর্তী পর্বে এই বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৬

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।
এবারের পর্বে আলোচনা করব বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান ও কাল নিয়ে।

বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান ও কাল

বিশ্ব জুড়ে উদ্ভুত ও টিকে থাকা সকল সংস্কৃতির ভিত্তির সাথে স্থান ও কালের গভীর ও মৌলিক সম্পর্ক রয়েছে। এইভাবে, দুজন ভিন্ন ভিন্ন ব্যাক্তির স্থান ও কাল সম্পর্কে যদি ভিন্ন ভিন্ন ধারণা থেকে থাকে, তবে নিশ্চিত থাকুন যে, তাদের সংস্কৃতিগত দৃস্টিভঙ্গীও ভিন্ন ।

এখান থেকে উদ্ভুত হয় একটি নতুন সমস্যা বা প্রশ্নের: একটি নির্দিষ্ট স্থান-কালের সংস্কৃতিতে বসবাসকারী মানুষ কি করে ভিন্ন কাঠামোর অন্য একটি স্থান-কালের সংস্কৃতিকে বুঝতে পারবে? একজন এটা কেবলমাত্র তখনই করতে পারে যখন সে নিজস্ব সংস্কৃতির সুনির্দিষ্টতা (specifics) এবং অসার্বজনীনতা (Non-universality) বিমূর্ততার মধ্যে দিয়ে অনুধাবন করতে পারে।

সাংস্কৃতিক সময় (Cultural time) বলতে আমরা এই বুঝব যে, কিছু ঘটনাবলীর (events) Standard movements যা মানুষের দ্বারা পূর্বনির্ধারিত, এবং ঘটনাগুলো ঘটেছে মানুষেরই তৈরী বিশেষ পরিবেশে। নানাবিধ সময়ে নানাবিধ মানুষ সৃষ্টি করেছে বিভিন্ন সাংস্কৃতি-কালীক আদর্শ (Cultural-temporal standards )। যার ফল হয়েছে বিভিন্ন যুগ ও মেটাযুগের (Epoch) পরিবর্তন, যা মূলতঃ ছিল একটি কালীক সংস্কৃতি থেকে আরেকটি কালীক সংস্কৃতিতে উত্তরণ। মানবজাতির ইতিহাসে আপাতঃদৃষ্টিতে তিন ধরনের সাংস্কৃতি-কালীক আদর্শ একে অপরকে পুনস্থাপিত করেছে – কাল কখনো বদ্ধ চক্র (Closed circle), কখনো বিন্দু (Point ), আবার কখনো রেখা (line)। আসুন এই বিষয়ে এবার বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

আধুনিক যুগের মানুষেরা মনে করে সাংস্কৃতিক সময় অতীত থেকে বর্তমান হয়ে ভবিষ্যতের দিকে যাচ্ছে। আবার আমাদের দূর পূর্বপুরুষরা যারা প্রাচীন সংস্কৃতিসমুহ সৃষ্টি করেছেন, তারা কালের সম্পুর্ণ ভিন্ন মডেল গ্রহন করেছিলেন। অস্ট্রেলীয় এ্যবরিজিন, প্রাচীন চীন, ও প্রাচীন ভারতীয় উপমহাদেশে কালকে চক্রাকার ও বদ্ধ জ্ঞান করা হয়েছিল।

এটা বলের অপেক্ষা রাখেনা যে, আধুনিক আমরা ও আমাদের পূর্বপুরুষেরা পৃথিবী নামক এই একই গ্রহের অধিবাসী। তারপরেও তাদের বুঝতে পারা (Understanding ) ও সংস্কৃতিগত উপলদ্ধি (perception) ছিল আমাদের থেকে একেবারেই ভিন্ন।

কালের চক্রাকার মডেল তৈরীর কারণ নিম্নরূপ হতে পারে। প্রথমতঃ তাদের দৈনন্দিন জীবনে তারা প্রতিদিন মুখোমুখী হতেন বিভিন্ন ঘটানাবলীর যারা ছিল চক্রাকার এবং দৈবাৎ (Random) অর্থাৎ অপরিক্রমশীল (Non-recurring)। দ্বীতিয়তঃ কিছু ঘটনাবলী আছে যারা Non-recurring ফলতঃ সহজে মনে রাখার মত নয়। এই কারণে তাদেরকে বোঝাও শক্ত ছিল। অপরপক্ষে, দিন ও রাতের অবিরাম পরিক্রমা (recurrence), চক্রাকারে চাঁদের কলার পূর্ণতা ও ক্ষয়। জোয়ার ভাটার চক্র, ঋতুচক্র, ইত্যাদি অসংখ্য প্রাকৃতিক চক্র ছিল তাদের কাছে সহজে অনুধাবনযোগ্য। এ কথা সকলেই জানি যে, প্রাচীন যুগের মানুষের সময় পরিমাপের জন্য আধুনিক যুগের মত এত সুক্ষ্ম যন্ত্রপাতি ছিলনা। তাই অনিবার্য্যভাবেই তাদেরকে নির্ভর করতে হতো biological time-এর উপর। (আমার দাদার দেরাজ নামের একজন ভৃত্য ছিলেন, আমি তাকে প্রশ্ন করা মাত্রই তিনি ঘড়ি না দেখেই নিখুঁতভাবে সময় বলে দিতেন, এটা পারতেন কারণ তিনি তার দেহের অভ্যন্তরস্থ biological time-এর সাহায্য নিতেন)।

চক্রাকার সময়ে ভবিষ্যৎ অজানা কিছু নয়। অবাক হবার কিছু নাই যে প্রাচীন ভাষাগুলোতে ‘ভবিষ্যৎ’ বলে কোন শব্দ ছিল না, ছিল কেবল অতীত ও বর্তমান । ‘ভবিষ্যৎ’ শব্দটির উদ্ভব অনেক পরে।

চক্রাকার সময় মডেলের ছাপ আধুনিক যুগেও আছে। যেমন আমরা প্রতি বছর জন্মদিন পালন করি। ঐদিনটি এমনভাবে উদযাপন করি যেন সে নতুন কেউ, আজই জন্ম নিল। অথবা নববর্ষকে এমনভাবে বরণ করি যেন সবকিছুই নতুনভাবে শুরু হতে যাচ্ছে।

আবার প্রাচীন মিশরীয়রা সূর্য ও চন্দ্রগ্রহন হিসাব করতে পারত না। প্রতিটি গ্রহণই তাদের কাছে ছিল অপ্রত্যাশিত। উল্কাপাতের মতই ভয়ংকর এবং দৈবাৎ। তাই তারা সূর্য ও চন্দ্রগ্রহনকে ভয় পেত। তা তাদের মনে কঠিন অনুরণন সৃষ্টি করত।

ইউরোপ মহাদেশের মানুষ বহু শতাব্দী যাবৎ বুঝতে পারেনি যে কোন পথ (route) ধরে ঘটনাবলী চলমান। এবং তারা গঠন করতে ব্যর্থ হয়েছিল উপযোগী একটি Time Matrix , যেখানে সবগুলো ঘটনাবলীকে একটি ধারাবাহিকতায় রাখা যেতে পারে । ফলে যেকোন ঘটনাকেই বর্তমানে ঘটেছে বলে ধরে নিতে হয়েছে। এটাই হলো ‘point time’। (উদাহরণস্বরূপ, আমাদের দেশে কিছু মানুষ আছে যারা বর্তমানকেই সবকিছু মনে করে যাবতীয় দুর্নীতি করে থাকে, ভবিষ্যৎের কথা ভাবেই না।) এটাকে সময়ের punctate idea-ও বলে।

প্রাচীন গ্রীকদের সংস্কৃতি সময়ের punctate idea দ্বারা বৈশিষ্ট্যমন্ডিত ছিল। গ্রীকরা universally extended time-কে কল্পনা করতে পারত না। এটাকে এইভাবে উপমা টেনে ব্যাখ্যা করা যায় যে, একটি ফুটবল ম্যাচের প্রথমার্ধের পর ফলাফল যদি হয় ৪:০। আমরা স্পস্টই বুঝতে পারি যে চূড়ান্ত ফলাফল কি হবে। একজন প্রাচীন গ্রীকের কাছে এই ৪:০ স্কোর কোন অর্থবহন করেনা। তার মতে বাকী অর্ধাংশের পর যেকোন ফলাফলই হতে পারে, তার সাথে প্রথমার্ধের কোনই সম্পর্ক নাই। কালের যেকোন মুহূর্তে ঘটনা যেকোন দিকেই মোড় নিতে পারে। এটাই হলো কালের punctate approach ।

 

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা -৭

রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

ষষ্ঠ পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে কাল নিয়ে।
এবারের পর্বে আলোচনা করব বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান নিয়ে।

আসুন এবার আমরা স্থান ও প্রাসঙ্গিক পরিবর্তন সংক্রান্ত সংস্কৃতিগত ধারণা (cultural concept) গুলো নিয়ে আলোচনা করব। গ্রীকদের সৃষ্ট স্থানের punctate ধারণা অনেক আগেই বিস্মৃত হয়ে গিয়েছে। এই ধারণা পরবর্তি দুটি সংস্কৃতি স্থান মডেল (cultural space model)-এর দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছে। স্মরণাতীত কাল থেকেই পাথরে খোদাই করে ছবি আঁকা হতো। আবার শিশুরাও চিত্রাংকন করত। এগুলো প্রাচ্যের সংস্কৃতিরও বৈশিষ্ট্য। চিত্রাংকনে Perspective Representation বলে একটি ধারণা আছে: একটি সমতলের উপরে (যেমন কগজ অথবা ক্যনভাস) কোন ছবির যেমনটি চোখে দেখেছি তেমনি করে মোটামুটি উপস্থাপন। এই জাতীয় চিত্রের দুটো বৈশিষ্ট্য হলো ১। অবজেক্ট যত দূরে হবে, আকৃতি তত ছোট হবে। ২। দৃষ্টি বরাবর লাইনগুলো ছোট হতে হবে এবং দৃষ্টির আড়াআড়ি লাইনগুলো বড় হবে।

প্রাচ্যের সংস্কৃতির অপর বৈশিষ্ট্ চিত্রাংকনে Pre-perspective Representation-এ স্থানের উপস্থাপন নিম্নরূপ হতে পারে, ইদাহরণস্বরূপ, চার দেয়াল বিশিষ্ট একটি কক্ষকে যখন কোন ক্যানভাসে আঁকা হয়, তখন তাকে একদিক থেকে দেখা তিনটি দেয়াল সম্পন্ন কক্ষ হিসাবে আঁকা হয়। যদিও, বাস্তবে আমরা এক দৃষ্টিতে দুটার বেশী দেয়াল দেখিনা। অনেক সময় কেবল একটি দেয়ালও দেখি। এই পদ্ধতিতে ছবি আঁকা হতো ১৩ শতক পর্যন্ত।

১৪ শতক থেকে শিল্পিরা ভিন্নভাবে আঁকতে শুরু করলেন। এবার তারা ছবি আঁকতে শুরু করলেন একটি জানালার মত করে যার ভিতর দিয়ে দৃষ্টি মেলে সপাচে-কে দেখা যাবে Volumetric-ভাবে, সমতলভাবে নয়। জানালার ষধারণাটি প্রচীনকালেও ছিল। তবে ইউরোপে মধ্য ১৪ শতকে এই ধারণা খ্রীষ্টধর্মের দ্বারা প্রসারিত হয়, প্রাচ্য সংস্কৃতির সাথে তার সম্পর্ককে গুরুত্ব দিয়ে, কেননা খ্রীষ্টধর্মের নিজেও প্রাচ্য দর্শন।

একটি জটিল Cultural-intelectual-religious প্রক্রিয়া Pre-perspective চিত্রাঙ্কনকে linear-perspective চিত্রাঙ্কনে নিয়ে আসে। linear-perspective চিত্রাঙ্কনে আলোককে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয় মনে হবে যেন সেটা পেইন্টিং-এর চতুষ্কোন থেকে দর্শকের আঁখিতে প্রবেশ করছে। এই জাতীয় চিত্রাঙ্কনে আলোকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়। এটা ঐ দর্শনের সাথে জড়িত যে ইশ্বর প্রথম দিবসেই আলো সৃষ্টি করেছেন। এভাবে linear-perspective চিত্রাঙ্কন একটি পবিত্র চিত্রে পরিণত হয়। এই চিত্রাঙ্কন Parallel-meridian coordinate তথা গুরুত্বপূর্ণ ভৌগলিক মানচিত্র তৈরী করতে সাহায্য করে। যা পরর্তিতে ইউরোপবাসীদের বৃহৎ ভৌগলিক আবিষ্কারে (আমারিকা, ভারত উপমাহাদেশ ও অস্ট্রেলিয়া গমণের সমুদ্রপথ) উদ্ধুদ্ধ করে।

বিভিন্ন ধরনের স্থানকে স্বাতন্ত্রমন্ডিত করা সম্ভব হয়েছিল এই পর্যবেক্ষণ করে যে তারা ঠিক কিভাবে Co-arranged। অর্থাৎ তারা কি Pre-perspective না linear-perspective চিত্রাঙ্কন পদ্ধতিতে প্রদর্শিত।

এদিকে যুগের পর যুগ Cultural space-ও নানাভাবে পরিবর্তিত হয়েছে। বহু বহু বছর মানুষ নিজেকে প্রকৃতির খুব কাছাকাছি ভাবত। তাই প্রাকৃতিক পরিবেশ ছিল Cultural space-এর একটি বিরাট অংশ জুড়ে। এবং এটাই প্রদর্শিত হয়েছে ফোকলোর, চিত্রকলা ও সঙ্গিতে। বাংলাদেশ বলি আর ইউরোপ বলি সবখানেই একটি মানব চিত্রের পিছনের পটভূমিতে ছিল নৈসর্গিক দৃশ্য। উজ্জ্বল উদাহরণ দ্যা ভিঞ্চির ‘মোনালিসা’। বিশ শতকের দিকে এসে Cultural space পরিবর্তিত হয়। এখন আমরা পটভূমিতে দেখতে পাই ইন্ডাস্ট্রি, বহুতল ভবন ইত্যাদি। বিশ শতকের শুরুতে চিত্রকলা এমন এক নতুন রূপ নেয় যা অতীতে কখনোই ছিল না। আবার ইদানিং ঐ যান্ত্রিকতায় ক্লান্ত হয়ে, ওখান থেকে সরে আসার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। মানুষ আবার বেশী বেশী করে আঁকতে শুরু করেছে বাগান, গৃহপালিত পশুপাখী, গ্রামাঞ্চল, ইত্যাদি। বলতে শুরু করেছে, ‘ফিরিয়ে দাও অরণ্য, লওহে নগর’।

কোলাহল মুখর দিবস পেরিয়ে এসেছে নিঝুম রাত,
রহস্য নেমেছে শস্যক্ষেতে ঘন কূয়াশায় চেপে,
শীতল হাওয়া মেঘের চিরেছে বুক,
ঝরিয়ে শিশির ভিজিয়েছে ঘাস,
বৃক্ষের কানে কানে ঝি ঝি-দের সুর,
শুনিয়েছে উচ্ছাস!
মেঘ, কুয়াশা, আকাশ, নদী আর এই স্থবির মাটি,
একান্তই অন্তরঙ্গ হয়ে ওঠে,
চোখের পাতা জুড়ে হাসে, নতুন স্বপ্ন ছায়া,
প্রকৃতির একি অপরূপ মায়া!!!

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা – ৮

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

ষষ্ঠ পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে কাল নিয়ে।
সপ্তম পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান নিয়ে।
এবারের অর্থাৎ অষ্টম পর্বে আলোচনা করব মহাবিশ্বের কণিকা জগৎ নিয়ে।

মহাবিশ্বের ক্ষুদ্রতম গঠন একক

পদার্থের যেসব মৌলিক উপাদানে জগৎ তৈরী হয়েছে তাদের নাগাল পাওয়ার আকাঙ্খা এই জগতের মতই পুরণো। কিন্তু বহু বহু শতাব্দী ধরে এই বিষয়টি জ্ঞানী ব্যাক্তিদের পন্ডিতি তর্ক আশ্রয় করেছিল। প্রাচীন যুগেই এ্যটোমিসম নামে একটি Natural Philosophy বিকশিত হয়েছিল। যেই দর্শন বলেছিল প্রকৃতি জগৎ দু’টি মৌলিক অংশ দ্বারা গঠিত – এ্যটম ও শূণ্যতা। এ্যটম (অতম – যাকে আর ভাঙা যায়না)। গুজরাটী ঋষি ও দার্শনিক কণাদ, খ্রীষ্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে প্রথম এই ধারণা দেন। এই নি্যে একটি মজার গল্প প্রচলিত আছে। একদিন কণাদ হাতে খাবার নি্যে হাটছিলেন, তারপর তিনি খাবার আঙুল দিয়ে ভাঙতে শুরু করলেন। ভাঙতে ভাঙতে একটা পর্যায়ে এসে আর ভাঙতে পারছিলেন না। সেখান থেকেই উনার মনে ধারণা আসে যে, মাহাবিশ্বকেও ভাঙতে ভাঙতে এমন একটি ক্ষুদ্র অংশে নিয়ে আসা যাবে যাকে আর ভাঙা যাবেনা। তিনি তার নাম দিয়েছিলেন অণু। ঋষি কণাদ ছিলেন বৈশেশিকা দর্শন বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা। এই দর্শন বিদ্যালয় বিশ্বাস করত যে, অণু অবিভাজ্য, এইরূপে অমর (eternal)। তারা আরো বিশ্বাস করত যে, অণু খালি চোখে দেখা যায়না, এবং তা হঠাৎ আবির্ভুত হয় এবং হঠাৎ তীরোহিত হয়।

বৈশেশিকা দর্শন বিদ্যালয় বলত যে, একই পদার্থের অণুগুলো মিলে দ্বিঅণু ও ত্রিঅণু পদার্থ তৈরী করে। কণাদ আরো বলেন যে, প্রভাবকের (যেমন তাপ) প্রভাবে বিভিন্ন অণু সংযুক্ত হয়ে রাসায়নিক পরিবর্তন ঘটায়। মৃন্ময় পাত্রের কালো হয়ে যাওয়া ও ফলের পেকে ওঠা ইত্যাদি ঘটনাকে তিনি উদাহরণস্বরূপ উপস্থাপন করেন।

বৌদ্ধ এ্যটোমিজমের দুইটি ধাপ রয়েছে এক, খ্রীষ্টপূর্ব ৪র্থ শতাব্দীতে তারা বলেন উপাদানের উপর নির্ভর করে চার ধরনের অণু রয়েছে, প্রত্যেকটি উপাদানের আবার নিজস্ব বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যেমন দৃঢ়তা ও গতি; দুই, খ্রীষ্টিয় পঞ্চম-সপ্তম শতাব্দীতে বৌদ্ধ দার্শনিক দিগনাগ (পঞ্চম শতাব্দী) ও ধর্মকীর্তি (সপ্তম শতাব্দী) এ্যাটম সম্পর্কে কিছু বলেছিলেন। নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বৌদ্ধ দার্শনিক ধর্মকীর্তি দিগনাগের ধারণাকে এগিয়ে নিয়ে বলেন অণু হলো বিন্দু-আকৃতির (point-sized), স্থিতিকালহীন (durationless) ও শক্তি দ্বারা গঠিত। ধর্মকীর্তি momentary atom সম্পর্কেও বলেছিলেন, অর্থাৎ যা চকিতেই অস্তিত্ববান হয় আবার চকিতেই হারিয়ে যায়।

এ্যটোমিজমের বৌদ্ধ ধারণাকে বর্ণনা করতে গিয়ে রুশ ইন্ডোলজিস্ট ফিওদর শেরবাত্স্কি (Stcherbatsky (১৮৮৬-১৯৪২)) বলেছেন – The Buddhists denied the existence of substantial matter altogether. Movement consists for them of moments, it is a staccato movement, momentary flashes of a stream of energy… “Everything is evanescent,” … says the Buddhist, because there is no stuff … Both systems [Sānkhya and later Indian Buddhism] share in common a tendency to push the analysis of Existence up to its minutest, last elements which are imagined as absolute qualities, or things possessing only one unique quality. They are called “qualities” (guna-dharma) in both systems in the sense of absolute qualities, a kind of atomic, or intra-atomic, energies of which the empirical things are composed. Both systems, therefore, agree in denying the objective reality of the categories of Substance and Quality, … and of the relation of Inference uniting them. There is in Sānkhya philosophy no separate existence of qualities. What we call quality is but a particular manifestation of a subtle entity. To every new unit of quality corresponds a subtle quantum of matter which is called guna “quality”, but represents a subtle substantive entity. The same applies to early Buddhism where all qualities are substantive … or, more precisely, dynamic entities, although they are also called dharmas (“qualities”).

গ্রীক এ্যটোমিজম:
কোন চূড়ান্ত অবিভাজ্য বস্তু আছে কি?
(Is there an ultimate, indivisible unit of matter?)

প্লেটো বা এরিস্টটলের আগেই। গ্রীক দার্শনিক লুসিপাস ও তার ছাত্র ডেমোক্রিটাস অণুর ধারণা দিয়েছিলেন। ডেমোক্রিটাস সক্রেটিস ও সোফিস্টদের সমসাময়ীক ছিলেন। ডেমোক্রিটাসের মতে এ্যটম জ্যমিতিকভাবে নয় তবে ভৌতভাবে অবিভাজ্য। দুটি এ্যটমের মধ্যে আছে শূণ্য স্থান (empty space)। এ্যটম ধ্বংসযোগ্য নয় (indestructible), সে সর্বদাই গতিশীল, এ্যটম সমূহের সংখ্যা অসীম, এবং তা বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে। এই প্রকারভেদ নির্ভর করে তার অবয়ব (shape) ও আকৃতির (size) উপর। আধুনিক বিজ্ঞানে ডেমোক্রিটাসের এই ধারণার প্রতিফলন আমরা দেখতে পাই, বিজ্ঞানের ভাষ্য অনুযাযী, ১১২ টি মৌলিক পদার্থের প্রত্যেকটির এ্যটমই ভিন্ন ভিন্ন আকৃতির। ডেমোক্রিটাস আরো বলেছিলেন যে, এ্যটমের প্রকারভেদ তাপ (heat)-এর উপর নির্ভর করে, যেমন গোলকাকৃতি (spherical) এ্যটম সব চাইতে বেশী উত্তপ্ত, যার দ্বারা আগুন গঠিত, আর এ্যটম ও ভর সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন যে, এ্যটম ভরের উপর নির্ভরশীল – ভর যত বেশী এ্যটমটিও তত বড়। ঠিক এখনেই এ্যটমিজমের কনট্রাডিকশন ধরা পড়ে। একদিকে বলা হচ্ছে এ্যটমই ক্ষুদ্রতম গঠন একক, আবার অপরদিকে বলা হচ্ছে যে, তা ভরের উপর নির্ভরশীল। যদি ভরের উপর নির্ভরশীলই হবে তাহলে এ্যটমের মৌলিকত্ব থাকল কোথায়?

গ্রীক দার্শনিক হেরাক্লিটাস বলেছিলেন যে, একই নদীতে দুবার অবগাহন করা যায়না, অর্থাৎ জগৎ-সংসার পরিবর্তনশীল; অন্যদিকে দার্শনিক পারমেনিডাস বিশ্বাস করতেন পরিবর্তন বাস্তব কিছু নয় তা হচ্ছে মায়া (illusion)।

পারমেনিডাস গতি, পরিবর্তন ও শূণ্যতা (void) ইত্যাদিকে অস্বীকার করেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে, অস্তিত্ববান সবকিছুই অনন্য (single) চারপাশে যা কিছু আছে তা সবই অপরিবর্তনীয় ভর (এই ধারণাকে বলা হয় অনন্যবাদ বা monism ), এবং গতি, পরিবর্তন সবই মায়া। পারমেনিডাস sensory experience-কে অস্বীকার করেন এবং বলেন মহাবিশ্বকে বোঝার সঠিক পথ হচ্ছে abstract reasoning। প্রথমতঃ তিনি বিশ্বাস করতেন যে শূণ্যতা (void) বলে এমন কিছু নেই যাকে আমরা nothing বলতে পারি, (আবার শূণ্যতা যদি something হয় তবে সেটা শূণ্যতা নয়)। এর ফল দাঁড়ালো এই যে, গতি বলে কিছু নাই কারণ কোন কিছুকে চলাচল করতে হলে তার শূণ্যতার প্রয়োজন হবে।

তিনি আরো বলেন যে অবিভাজ্য একটি এককের প্রয়োজন আছে, যদি সেটা manifold হয়, তাহলে void-এরও প্রয়োজন দেখা দেয় যা তাদেরকে বিভাজন করবে, কিন্তু ইতিপূর্বেই উল্লেখ করেছি যে তিনি void-এ বিশ্বাস করতেন না। ডেমোক্রিটাস পারমেনিডাসের বেশীরভাগ আরগুমেন্টই মেনে নেন, তবে পরিবর্তন একটি মায়া, এই ধারণাটি তিনি মেনে নিতে পারেননি। তিনি মনে করতেন পরিবর্তন বাস্তব, আর যদি তা না হয়, তবে মায়া কি সেটা আগে বোঝার প্রয়োজন আছে। এভাবে তিনি void-কে সমর্থন করেন এবং বলেন যে মহাবিশ্ব অনেক পারমেনিডিয়ান সত্তার দ্বারা গঠিত, যারা void-এর মধ্যে গতিশীল, আর void অসীম।

এ্যটমকে অস্বীকার:
প্লেটো ডেমোক্রিটাসের এ্যটমিজমের প্রয়োজনহীনতার আভাস দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে, মহাবিশ্ব চিরকালিন (eternal) নয়, একে সৃষ্টি করা হয়েছে। এই সৃষ্টির একাংশ হলো চারটি উপাদান আগুন, মাটি, পানি এবং বাতাস। তিনি আরো মনে করতেন যে, এই উপাদানগুলো প্রত্যেকেই জ্যমিতিকভাবে ঘনবস্তু। এরিষ্টটল মনে করতেন যে এই চারটি উপাদান এ্যটম দ্বারা সৃষ্ট নয় বরং তারা নিরবিচ্ছিন্ন (continuous)। এই উপাদানগুলোর উপর দুটা বল (force) ক্রিয়াশীল: মহাকর্ষ – মাটি ও পানির ডুবে যাওয়ার প্রবনতা, এবং লঘুত্ব – বাতাস এবং আগুনের উপরে ওঠার প্রবণতা। আমরা মহাবিশ্বের উপাদানগুলোকে পদার্থ এবং বলে বিভাজন আজও ব্যবহার করি।

এরিষ্টটলের বিশ্বাস মতে পদার্থ নিরবিচ্ছিন্ন, ফলে তাকে বিভাজন করা যায় এবং এই বিভাজনের কোন শেষ নাই। এমন কোন পদার্থ কণিকা পাওয়া সম্ভব না যাকে ভাগ করা যায়না। এদিকে ডেমোক্রিটাস বিশ্বাস করতেন যে পদার্থ বহু প্রকার দানাদার পরমানুর দ্বারা গঠিত। গ্রীক ভাষায় এ্যটম (atom) শব্দের অর্থ অবিভাজ্য। এই দ্বন্দ্ব শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে চলেছে, তবে কোন পক্ষেই বাস্তব কোন প্রমান পাওয়া যায়নি।

১৮০৩ সালে বৃটিশ বিজ্ঞানী জন ডালটন দেখালেন যে, রাসায়নিক যৌগ গুলো সব সময়ই একটি বিশেষ অনুপাতে মিশ্রণের ফলে হয়। এ তথ্য দিয়ে ব্যাখ্যা করা যায় পরমাণু গুলোর বিশেষ বিশেষ এককে গোষ্ঠিবদ্ধ হওয়া। এগুলির নাম তিনি দি্যেছিলেন অণু (molecule)। তারপরেও এ্যটোমিষ্টদের সপক্ষে চরম মিমাংশা হয়নি। একটি গুরুত্বপূর্ণ ভৌত সাক্ষ্য উপস্থিত করেছিলেন জগৎ বিখ্যাত বিজ্ঞানী আলবার্ট আইনষ্টাইন। বিশেষ আপেক্ষিকতা তত্ত্বের গবেষণাপত্রম প্রকাশের কয়েক সপ্তাহ আগে ১৯০৫ সালে তিনি দেখিয়েছিলেন যে, ব্রাউনীয় গতিকে (Brownian motion) একটি তরল পদার্থের অনুগুলির সাথে ধুলিকণার সংঘর্ষ দিয়ে ব্যখ্যা করা যায়। একটি তরল পদার্থে ভাসমান ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ধুলিকণার এলোমেলো এবং ইতস্তত বিক্ষিপ্ত গতিকে বলা হয় ব্রাউনীয় গতি।

আবার এই পরমাণু আসলে অবিভাজ্য নয়, এই সন্দেহ এর ভিতরেই দানা বাধতে শুরু করেছিল।

রহস্যময় মহাবিশ্ব ও চিরন্তন জীবন জিজ্ঞাসা-৯

প্রথম পর্বে বস্তু (matter) সম্পর্কে কিছু আলোচনা হয়েছে। দ্বিতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে গতি (motion) নিয়ে। তৃতীয় পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল (space and time) নিয়ে, ইতিহাসের গতিধারায় নিউটন-লেইবনিজ বিতর্ক পর্যন্ত। চতুর্থ পর্বে আলোচনা করা হয়েছে স্থান ও কাল সংক্রান্ত আলবার্ট আইনস্টাইনের বৈপ্লবিক চিন্তাধারা নিয়ে।
পঞ্চম পঞ্চম পর্বের আলোচনা করা হয়েছে স্থান-কাল সংক্রান্ত আরো কিছু দর্শন নিয়ে।

ষষ্ঠ পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে কাল নিয়ে।
সপ্তম পর্বে আলোচনা করেছি বিশ্ব জুড়ে নানাবিধ সংস্কৃতি ও শিল্পের ক্যাটাগোরী হিসাবে স্থান নিয়ে।
অষ্টম পর্বে আলোচনা করা হয়েছে মহাবিশ্বের কণিকা জগৎ নিয়ে। এবারের অর্থাৎ নবম পর্বে ও আলোচনা করব মহাবিশ্বের কণিকা জগৎ নিয়ে তবে তার উল্লেখযোগ্য অংশ গ্রীক অ্যটোমিজম এখানে প্রাধান্য পেয়েছে।

পারমেনিডাস ও এম্পিডক্লিস কর্তৃক প্রবর্তিত অনন্যবাদ (monism) ও বহুত্ববাদ (Polyism) মধ্যে সমন্বয় সাধনের প্রচেষ্টাই ডেমোক্রিটাস বা লুসিপাস-কে অ্যাটমিসম তত্ত্বে উপনিত করে। তারা বিশ্বাস করতেন যে, সবকিছুই পরমাণু দ্বারা গঠিত। এই পরমাণু জ্যমিতিকভাবে না হলেও বস্তুগতভাবে অবিভাজ্য। পরামাণুর পরস্পরের মধ্যে শূণ্যস্থান আছে, পরমাণু অবিনশ্বর, পরমাণু সবসময়ই গতিশীল, এবং ভবিষ্যতেও গতিশীল থাকবে।পরমাণুর সংখ্যা অসংখ্য, এমনকি এরা বিভিন্ন প্রকারের। কিন্তু এদের মধ্যে পার্থক্য শুধু আকার ও ভরের। এরিস্টটলের দাবী করেন, পরমাণুবাদীদের মতে তাপের তারতম্য অনুসারে পরমাণু বিভিন্ন হয়। যেমন গোলাকার পরমাণু। এই গোলাকার পরমাণু সবচেয়ে উত্তপ্ত হওয়ার কারণে আগুন সৃষ্টি করে। ভরের তারতম্য অনুসারে পরমাণুর মধ্যেও যে বিভিন্নতার সৃষ্টি হয় সে প্রসঙ্গে ডেমোক্রিটাসের উক্তি উল্লেখ করে এরিস্টটল বলেন, ‘যে পরমাণু যত বেশি অবিভাজ্যতা অতিক্রম করে সেই পরমাণু তত বেশি ভরবিশিষ্ট হয়’। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, পরমাণুবাদীদের মতবাদে পরমাণু সত্যিই ভরবিশিষ্ট ছিল কি-না তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। (পরমাণু ভরের উপর নির্ভর করে, আবার পরমাণু ক্ষুদ্রতম গঠন একক, এই দুইটি ধারণা পরস্পর বিরোধী)।

পরমাণুবাদে ডিটারমিনিজম এবং প্রোবাবিলিটি: প্রাচীনকালে পরমাণুবাদীদের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ অভিযোগ ছিল, তাঁরা জগতের সকল ঘটনাকেই সম্ভাবনার ফল হিসাবে ব্যাখ্যা করতেন। কিন্তু প্রকৃত সত্যটি হচ্ছে তারা কঠোর নিয়ন্ত্রণবাদী। তাঁরা বিশ্বাস করতেন জগতের প্রতিটি ঘটনাই প্রাকৃতিক নিয়মানুসারে ঘটে। কোন ঘটনাই কোন কারণ ব্যাতীত শুধু সম্ভাবনার দ্বারা সংঘটিত হতে পারে – একথা ডেমোক্রিটাস সুস্পষ্টভাবে অস্বীকার করেন। অস্তিত্ব নিয়ে লুসিপাসের সন্দেহ থাকলেও তিনি একথা বলেছিলেন বলে জানা যায়: ‘শূণ্য থেকে কিছুই সংঘটিত হয়না, কোন কারণ বা অনিবার্যতার ফলেই সবকিছু সংঘটিত হয়’। তবে একথা সত্য যে জগত আদিতে যে রূপে ছিল বর্তমানেও সেরূপ অবস্থায় থাকার কারণ সম্পর্কে তিনি কোন ব্যাখ্যা দেননি। আর এ কারণেই হয়তো জগৎ ব্যাখ্যার ক্ষেত্রে সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু জগৎ একবার সৃষ্টি হওয়ার পর এর পুনর্বিকাশ যান্ত্রিক নিয়ম দ্বারা অপরিবর্তনীয়রূপে স্থির ছিল।পরমাণুর আদি গতি নির্দেশ না করার জন্য এরিস্টটল সহ অন্যান্য দার্শনিকগণ লুসিপাস ও ডেমোক্রিটাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপন করেন। কিন্তু এই কারণ নির্দেশ না করার ক্ষেত্রে ছিল।পরমাণুবাদীগণ তাদের সমালোচকদের চেয়ে অধিকতর যৌক্তিক মনোভাবাপন্ন ছিলেন। কার্য-কারণ অবশ্যই কোন না কোন জায়গা থেকে শুরু হবে, এবং যেখান থেকেই শুরু হোক না কেন আদি কারণের কোন কারণ নির্দেশ করা যায়না।

সক্রেটিস, প্লেটো এবং এরিস্টটল উদ্দেশ্য বা পরিণতি কারণের সাহায্যে জগতের ব্যাখ্যা দেয়ার চেস্টা করেছেন, কিন্তু পরমাণুবাদীগণ এসব ধারনার সাহায্য ব্যতীতই জগতের ব্যাখ্যা দেয়ার চেস্টা করেছেন। কোন ঘটনার পরিণতি কারণ ভবিষ্যতের এমন একটি ফল যার জন্য ঘটনাটি সংঘটিত হয়। এই ধারণা মানুষের কার্যাবলীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কেন দর্জি কাপড় সেলাই করেন? মানুষের বস্ত্রের প্রয়োজন তাই। এসব ক্ষেত্রে বস্তুসমুহ যে উদ্দেশ্য সাধন করে সেই উদ্দেশ্যের দ্বারাই বস্তুসমুহের ব্যাখ্যা করা যায়। কোন ঘটনা সম্পর্কে আমরা যখন কেন প্রশ্নটি করি, তখন আমরা নিম্নের দুটি বিষয়ের যেকোন একটিকে বোঝাতে পারি: ‘এই ঘটনা কি উদ্দেশ্যসাধন করেছিল? অথবা ‘পূর্ববর্তি কোন কোন অবস্থা এই ঘটনা ঘটিয়েছিল?’ প্রথমোক্ত প্রশ্নটি একটি উদ্দেশ্যবাদী ব্যাখ্যা, অর্থাৎ পরিনতি কারণ দ্বারা ব্যাখ্যা। উপোরক্ত দুটি প্রশ্নের মধ্যে বিজ্ঞানের কোন প্রশ্নটি করা উচিৎ, বা বিজ্ঞানের দুটি প্রশ্নই করা উচিৎ কি-না একথা কিভাবে অগ্রিম জানা সম্ভব হতে পারে তা আমাদের জানা নেই। কিন্তু অভিজ্ঞতার আলোকে দেখা গিয়েছে যে, যান্ত্রিক প্রশ্ন বৈজ্ঞানিক জ্ঞানে উপনিত করে কিন্তু উদ্দেশ্যমূলক প্রশ্ন তা করেনা। পরমাণুবাদীগণ যান্ত্রিক প্রশ্নটিই করেছিলেন, এবং এর একটি যান্ত্রিক উত্তরও দিয়েছিলেন।

একথা অনুমান করা ঠিক হবেনা যে, পরমাণুবাদিদের মতবাদের পক্ষে ব্যবহৃত তাঁদের যুক্তিসমূহ সম্পুর্ণ অভিজ্ঞতাভিত্তিক। আধুনিক যুগে রসায়নবিজ্ঞানের তথ্যাবলীকে ব্যাখ্যা করার জন্য পরমাণুতত্বকে পুনরুজ্জীবিত করা হয়েছে। কিন্তু এই তথ্য গ্রীকদের জানা ছিলনা। সেই যুগে অভিজ্ঞতাভিত্তিক পর্যবেক্ষণ ও যৌক্তিক যুক্তির মধ্যে সুস্পষ্ট কোন পার্থক্য ছিল না। একথা সত্য যে পারমেনিডাস পর্যবেক্ষিত ঘটনাকে অবজ্ঞার চোখে দেখেছেন। কিন্তু এম্পিডক্লিস ও এনাক্সেগোরাস তাদের অধিবিদ্যার বেশীরভাগই পানি-ঘড়ি এবং ঘুর্ণায়মান বালতির পর্যবেক্ষণের সাথে সম্পর্কিত করেন। মুসলিম বিজ্ঞানী ও দার্শনিকদের আগে কেউই সম্ভবতঃ সন্দেহ করেননি যে, পর্যাপ্ত যুক্তি ও পর্যবেক্ষণের সমন্বয়ে একটি সম্পূর্ণ অধিবিদ্যা এবং বিশ্বতত্ব প্রতিষ্ঠা করা যেতে পারে।পরমাণুবাদীগণ এমন একটি প্রকল্পের গুরুত্ব আরোপ করেন যে কারণে দুহাজার বছরের অধিককাল পরে এ বিষয়ে কিছু প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। কিন্তু সে সময়ে তাদের এই বিশ্বাস একটি সুদৃঢ় ভিত্তির অভাবে পরিত্যক্ত হয়েছিল।

লুসিপাস পারমেনিডাসের যুক্তির সঙ্গে গতি ও পরিবর্তনের সুস্পষ্ট তথ্যাবলির সমন্বয় সাধনের পন্থা আবিষ্কারের উদ্যোগ গ্রহন করেন। এ প্রসঙ্গে এরিস্টটল বলেন, “কোন উন্মাদ ব্যাক্তি তার ইন্দ্রিয়-প্রত্যক্ষণ থেকে একথা অনুমান করবে না যে, আগুন এবং বরফ এক বস্তু। কিন্তু কিছু মানুষ অভ্যাসবশতঃই যা সঠিক এবং যাকে সঠিক বলে মনে হয় – এই দুয়ের মধ্যে কোন পার্থক্য না দেখার মত পাগলামি করে থাকে”।

অবশ্য লুসিপাস মনে করেন যে, তিনি তার মতবাদকে ইন্দ্রিয় প্রত্যক্ষণের সঙ্গে সমন্বয় সাধন করেছেন। তিনি বস্তূর অস্তিত্বশীল হওয়া এবং বস্তূর তিরোহিত হওয়া বা বস্তূর গতি এবং বস্তূর বহুত্বের ধরণা বিলোপের পক্ষপাতি নন। তিনি এসব বিষয়কে প্রত্যক্ষণের অন্তর্গত বলে মনে করেন। অপরদিকে, তিনি একত্ববাদীদের সাথে ঐক্যমত প্রকাশ করে বলেন, শূণ্যস্থান ব্যতীত কোন গতি থাকতে পারেনা। ফলশ্রতিতে যে মতবাদের উদ্ভব হয় তাকে তিনি নিম্নরূপে ব্যক্ত করেনঃ শূণ্যস্থান হলো অ-সত্বা এবং অস্তিত্বশীল বস্তুর কোন অংশই অ-সত্বা নয়; কারণ সঠিক অর্থে অস্তিত্বশীল বস্তু একটি অনপেক্ষ পূর্ণস্থান। অবশ্য এই পূর্ণস্থান (Filled space) এক নয়, বরং এই পূর্ণস্থান সংখ্যার দিক থেকে অসংখ্য অসীম। পরিমাণের সূক্ষতার কারণে এরা অদৃশ্যমান। অসংখ্য পূর্ণস্থান শূণ্যস্থানে বিচরণ করে (কারণ শূণ্যস্থান আছে) । একত্রিত হয়ে এরা বস্তুর অস্তিত্ব লাভে সাহায্য করে, আবার বিচ্ছিন্ন হয়ে এরা বস্তুর অবসান ঘটায়। অধিকন্তু সংযোগের সুযোগ পেলেই এরা কাজ শুরু করে এবং কাজের ফলাফল ভোগও করে। একত্রিত হয়েই এরা কোন কিছু সৃষ্টি করে এবং পরস্পর একত্রিত হয়। অপরপক্ষে প্রকৃত এক থেকে কখনোই বহুত্বের সৃষ্টি হতে পারেনা, কিংবা প্রকৃত বহু থেকে ‘এক’-এরও সৃষ্টি হতে পারেনা।

এখন দেখা যাবে যে, একটি বিষয়ে সকলেই একমত হবে যে, পূর্ণস্থান (Filled space)-এ কোন গতি থাকতে পারেনা। কোন বস্তু শুধু শূণ্যস্থানেই গতিশীল হতে পারে। পূর্ণস্থানে বড়জোড় আবর্তনশীল (rotational) গতি থাকতে পারে। সেই সময়ে গ্রীকদের মনে হয়েছিল যে, কোন ব্যাক্তিকে হয় পারমেনিডাসের অপর্বর্তনীয় জগৎকে নীরবে মেনে নিতে হবে অথবা শূণ্যস্থানকে স্বীকার করতে হবে।

এই পর্যায়ে, অ-সত্বার বিরুদ্ধে পারমেনিডাসের যুক্তিসমূহ পূর্ণস্থানের বিরুদ্ধে যৌক্তিকভাবে অখন্ডনীয় বলে মনে হয়। যেখানে কোন কিছুর অস্তিত্ব নেই বলে মনে হয়, সেখানে বায়ুর অস্তিত্ব আছে – এই মতবাদ আবিষ্কারের দ্বারা তার যুক্তিসমূহকে পূণরায় বলবৎ করা হয় (এই উদাহরণ যুক্তি ও পর্যবেক্ষণের একটি বিভ্রান্তির সংমিশ্রণ যা সাধারণভাবে প্রচলিত ছিল )। যদি বলি শূণ্যস্থান আছে তাহলে শূণ্যস্থান অ-সত্বা নয়, অনুরূপভাবে অ-সত্বা শূণ্যস্থান নয়। পরমাণবাদীদের মতে, একথা চিন্তা করা যতই কঠিন হোক না কেন, শূণ্যস্থান থাকতেই হবে।

উপরোক্ত সমস্যার পরবর্তি ইতিহাস আরো ইন্টারেস্টিং, পরবর্তি পর্বে এই বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

(চলবে)

ছোট ছোট বালুকণা বিন্দু বিন্দু জল,
গড়ি তোলে মহাদেশ সাগর অতল

সাহায্যকারী গ্রন্থঃ
১। From Thales to Plato
২। Greek Mathematics
৩। History of Western Philosophy: Bertrand Russel

Categories
অনলাইন প্রকাশনা কবিতা সৃজনশীল প্রকাশনা

তোমার কথা প্রায়ই মনে পড়ে, তুমি কেমন আছো?

তোমার কথা প্রায়ই মনে পড়ে, তুমি কেমন আছো?
———————————— ডঃ রমিত আজাদ

আমার মন যে কতটা খারাপ তুমি বুঝবে না,
রৌদ্র কেড়ে নেয়া কালো মেঘের থমথমে নীরবতা দেখেছ?
অথবা তুহীন শীতে জমে বরফ হয়ে যাওয়া কোন নদী?
তোমার ঐ পেলব হাতটি দাও,
স্পর্শ করতো আমার হৃদয়,
টের পাও কিছু?
তবে আমার বুকের ক্ষত গলে হৃদয়ের ভিতরে ঢুকে যাও,
এবার কি দেখতে পাও,
সব বেদনা জমাট বেধে কেমন পাথর হয়ে আছে?

আচমকা এলে, আচমকা গেলে,
এ যেন সুরের বীণা বেজেই থেমে গেল,
এ কেমন প্রেম বলতো?
তার চাইতে না এলেই পারতে।

এটি একটি অপূর্ণ কবিতা, একটি অসম্পূর্ণ গান।
না কিছুই নয়, স্রেফ তোমার জন্য
নির্মল সাদা কাগজে কলমের ধাতব নিবের নিষ্ঠুর আঁচড়

অনেকটা দেরী করেই পরিচয় হয়েছিলো আমাদের,
হয়তো তোমার জন্ম হয়েছে অনেক পরে,
অথবা আমি পৃথিবীতে এসেছি অনেক আগে,
এমনটা না হয়ে যদি সব কিছু সময়মতো হতো,
তবে কি ভিন্ন জীবন হতো আমাদের?

বাতাসে দোল খাওয়া মাধবীলতা,
কার্নিশ ছেয়ে হেসে ওঠা বাগানবিলাস,
বাগান ভরা সুহাসিনী ডালিয়া ফুলের উজ্জ্বল বর্ণচ্ছটা,
সারাটা বিকেল জুড়ে তোমার প্রতিক্ষা,
তোমার কি মনে পড়ে?

আমার কিন্তু বেশ মনে পড়ে,
তোমার চুলে রৌদ্রের খেলা,
তোমার ওড়নার ঝালর, তোমার শাড়ীর আঁচল
তোমার কপোলের লাল আভা
তোমার ভীরু চোখে উপচে পড়া হাসি,
জাপানী কিমানোর মত পরিপাটি তুমি,
অনেক কৌতুহলী চোখ এড়িয়ে,
অথবা সবগুলো চোখের সামনেই,
আমাদের নিষিদ্ধ অভিসার,
অস্হির এই পৃথিবীতে একমুঠো সুখ।

তুমি কি জানো, আমি এখনো তোমাকে খুঁজি?
ঢাকার পথে পথে খুঁজি,
ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে খুঁজি,
মোবাইলের স্ক্রীনে খুঁজি,
ফেইসবুকের পাতায় পাতায় খুঁজি,
কেন?
দু’টি প্রশ্ন করব,
তোমার কথা প্রায়ই মনে পড়ে,
তুমি কেমন আছো?
আমার কথা ভেবে,
তোমার মনও কি উন্মনা হয়না?

Categories
অনলাইন প্রকাশনা কবিতা

বিষাদ

বিষাদ
————- রমিত আজাদ

সব মেঘ শরতের রূপ সুধা দেখেনা,
সব নদী মিলনের মোহনায় মেশেনা।
সব আলো জোৎস্নার শোভা হয়ে ভরেনা,
সব জল বরষার বারি হয়ে ঝরে না।

সব দিন বর্ণিল নানা রঙে রাঙেনা,
সব ঢেউ ফুঁসে উঠে সৈকতে ভাঙেনা।
সব ছবি নয়নের শোভা স্মৃতি রয়না,
সব রোদ বিকেলের সোনা রোদ হয়না।

সব মন আনমনে হিয়া হয়ে ছোটেনা,
সব দাগ আঁক হয়ে মন জুড়ে কাটেনা।
সব কুঁড়ি কলি থেকে ফুল হয়ে ফোটেনা,
সব প্রেমে মিলনের চন্দ্রিকা ওঠেনা।

Categories
অনলাইন প্রকাশনা উপন্যাস গল্প জীবনী ও স্মৃতিকথা বিনোদন ভয়ংকর(হরর) ভালবাসা/প্রণয়লীলা ভুতুরে গল্প ভ্রমণ কাহিনী সৃজনশীল প্রকাশনা

বিষন্ন বিরিওজা-১, ২, ৩ ও ৪

বিষন্ন বিরিওজা

———————– ডঃ রমিত আজাদ

Birch_Tree_1

বিষন্ন বিরিওজা – ১
———————–

আমি ঠিক বুঝতে পারলাম না, আমার কি হয়েছে। আমার কি ঘুম ভেঙেছে, নাকি আমি ঘুমিয়েই আছি? আমার মনে হলো আমি আধো ঘুম আধো জাগ্রত একটা অবস্থার মধ্যে আছি। আমার চোখ কি খোলা? ঠিক তা বুঝতে পারলাম না। আমার মনে হলো আমার চোখ আধো বন্ধ, আধো খোলা। একটু পরে একটা অদ্ভুত অনুভূতি হলো আমার। একটা মেয়ের হাত আমার মুখের উপর। আমার কপালটা স্পর্শ করবে করবে এমন। আমি একটু ভালোভাবে চোখ মেলে দেখার চেষ্টা করলাম। কিন্তু সেটা করতে পারলাম না। চোখ কিছুতেই পুরোপুরি খুলতে পারছিনা। হাতটি আমার মুখের উপর থেকে সরে গেল। আমি ভাবলাম এবার উঠে বসব। কিন্তু কিছুই করতে পারলাম না। যেমন ছিলাম তেমনি শুয়ে আছি। একটু পর আবার হাতটি ফিরে এলো। আবারো আমার কপাল স্পর্শ করবে করবে এমন। ভীষণ অস্বস্তি হচ্ছে, পাশ ফিরতে চাইলাম, তাহলে মেয়েটির পুরো শরীরটা দেখতে পাবো। নাহ্, আবারো কিছুই করতে পারছি না। কি অদ্ভুত! এমন হচ্ছে কেন?

যখন ঘুম পুরোপুরি ভাঙল তখন সকাল নয়টা বাজে। আমি একেবারে ঝরঝরে তরতাজা। ঘুমের মধ্যে কোন সমস্যা হয়েছে এমন অনুভূতিই শরীরে নেই। বিশাল কাঁচের জানালা দিয়ে বাইরে তাকালাম। গ্রীস্মের ঝকঝকে দিন। এই প্রচন্ড ঠান্ডা দেশের গ্রীস্মের দিনগুলি অদ্ভুত সুন্দর হয়। এমনই একটি সুন্দর আগস্ট মাসের দিন। বিছানায় উঠে বসলাম। স্মৃতিতে আবার ফিরে এলো ঘটে যাওয়া অস্বাভাবিক ঘটনাটি। কি ঘটেছিল? ঠান্ডা মাথায় পুরো ঘটনাটি মনে করার চেষ্টা করলাম। সব কিছুই স্পষ্ট মনে করতে পারলাম। কিন্তু তারপরেও বুঝতে পারলাম না, এটা স্বপ্ন ছিল কিনা। আমার মন বলছে এটা স্বপ্ন নয়। আমি খুব বেশী স্বপ্ন দেখি, স্বপ্নহীন রাত আমার জীবনে ছিল মাত্র একবার। স্বপ্নের অনুভূতি ও অভিজ্ঞতার সাথে আজকের ঘটে যাওয়া ঘটনার কোন মিল নেই। কার সাথে ডিসকাস করব এই বিষয়? সেই মুহূর্তে পাশে কেউ ছিলও না। ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস্ ডরমিটরির ঐ রূমটিতে আমি একাই থাকি।

বাংলাদেশী কারো সাথে ডিসকাস করার সুযোগ এই হোস্টেলে নেই। কারণ এখানে আমি একাই বাংলাদেশী । আমার হোস্টেলটি যেই এলাকায় তার নাম আতাকারা ইয়ারোশা স্ট্রীট। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নিহত এক চেক সৈন্যের নাম আতাকার ইয়ারোশ, তারই সম্মানে স্ট্রীটটির নাম। এটি মূলতঃ একটি স্টুডেন্টস টাউন। স্ট্রীটের দুপাশে ছোট-বড় নানা সাইজের হোস্টেল। ইউক্রেনের পুরাতন রাজধানী খারকভে এত বেশী ইউনিভার্সিটি, ইনস্টিটিউট রয়েছে যে এটাকে ছাত্রছাত্রীদের শহর বলা হয়। আমার হোস্টেলে না থাকলেও আশেপাশের বিভিন্ন হোস্টেলে দু’চারজন করে বাংলাদেশী রয়েছে। তাদের কারো সাথে গিয়ে ডিসকাস করা যেতে পারে।

যাকগে, আপাততঃ বাদ দেই। এত সুন্দর উষ্ণ রৌদ্রজ্জ্বল দিন। তার উপর ভ্যাকেশন চলছে। এত সুন্দর দিনটা মাটি করার দরকার নেই। হাতমুখ ধুয়ে, ব্ল্যাক কফি, অমলেট আর টোস্ট দিয়ে একটা চমৎকার ব্রেকফাস্ট সারলাম। এখন কি করা যায়? ঘরে বসে থাকব না অবশ্যই। সামারে ঘরে বসে থাকার মত বেরসিক আমি নই। বাইরে বের হতে হবে। জিনসের প্যান্টের সাথে মানানসই হালকা নীল রঙের একটা টি শার্ট পড়লাম। তারপর রূমে তালা দিয়ে বেড়িয়ে পড়লাম বাইরে।

খারকভ শহরটি মস্কো বা কিয়েভ-এর তুলনায় সুন্দর না হলেও, ঢাকা বা দিল্লির তুলনায় অনেক অনেক সুন্দর। প্রতিটি রাস্তাই ম্যাকাডাম সড়ক। অর্থাৎ পিচ ঢালা গাড়ী চলার রা্স্তার দুপাশে চওড়া ফুটপাত। ফুটপাতের দুপাশে দুই সারি করে রাস্তার এপাশে ওপাশে চার সারিতে গাছ।বাংলাদেশ গাছের দেশ হওয়ার পরও শহরগুলো বৃক্ষহীন রুক্ষ, একেবারেই নেড়া। আর এখানে অল্প কিছু ভ্যারাইটির গাছ নিয়েই শহরগুলোকে ওরা করে তুলেছে গাছে গাছে ভরপুর। তবে এই গাছের সৌন্দর্য্য সারা বছর দেখার সুযোগ নেই। শীতমন্ডলীয় জলবায়ুর কারণে, বছরে প্রায় ছয়মাসই গাছগুলো থাকে পাতাশূণ্য। চিত্রকরদের আঁকা পত্রপল্লবহীন বৃক্ষরাজী যেমনটি আঁকা থাকে ক্যানভাসে ঠিক তেমনটিই এখানে বাস্তবে দেখা যায়। আর বাকী ছয়মাস উজ্জ্বল সবুজ পাতায় পাতায় ছেয়ে থাকা গাছগুলো ঢেকে ফেলে সমস্ত পথঘাট।

বরফ ঢাকা তুহীন শীতের পর এমন পত্রপল্লবের মায়া আর মৃদু মৃদু উষ্ণ হাওয়ার পরশ মনটাকে সারাক্ষণ ফুরফুরে রাখে। এটা ঘরে বসে থাকার সময় নয়, তাই ছেলে-বুড়ো, তরুণ-তরুনী সবাই বেরিয়ে আসে বাইরে। আমাদের তরুণদের এই সময়ের আরেকটি আকর্ষণ হলো, সংক্ষিপ্ত পোষাকের তরুনীরা। শীতকালে যে তাদের সংক্ষিপ্ত পোষাকে দেখা যায়না তা নয়, তবে সেটা ঘরের ভিতরে। আর সামারে বাইরেই দেখা যায় মিনি স্কার্ট, শর্টস ইত্যাদি পরিহিতা তরুনীদের। পুরুষ মানুষের নারীকায়ার প্রতি আকর্ষণ অস্বাভাবিক কিছু নয়। গ্রীস্মের ঘন সবুজ বৃক্ষরাজী, ফলের শোভা ও উষ্ণ হাওয়ার পাশাপাশি এটাও বেশ উপভোগ করি।
উদ্দেশ্যহীনভাবে কতক্ষণ ঘোরাঘুরি করে তারপর ক্যাফেতে ঢুকে এক কাপ কফি খেলাম। তারপর ভাবলাম কোথাও যাওয়া দরকার। কোথায় যাই? সকালের ঘটনাটি কারো সাথে শেয়ার করতে ইচ্ছে করছিল। শেষমেষ ঠিক করলাম নীলিমার কাছে যাব।

নীলিমা থাকে শহরের ভিতরেই আরেকটি স্টুডেন্টস টাউনে। আতাকারা ইয়ারোশা থেকে দশ-বারো কিলোমিটার দূরে হবে। জায়গাটির নাম ‘ৎেসলিনা গ্রাদস্কায়া’। ও পড়ে খারকভ স্টেট মেডিকেল ইনস্টিটিউশনে। উঠে গেলাম একটি ট্রলিবাসে। সোভিয়েত ইউনিয়নে যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই ভালো। ট্রান্সপোর্টের জন্য কখনো কাউকে কোন কষ্ট করতে হয়না। নানা ধরনের পাবলিক ট্রান্সপোর্ট আছে। বাস, ট্রলিবাস, ট্রাম, মেট্রো ইত্যাদি ট্রান্সপোর্ট খুব ভালো সার্ভিস দেয়। তাও সামান্য খড়চায়। প্রথম দিকে তিন রুবলের একটা মান্থলি কার্ড কিনে নিলেই মাটির উপরের সব পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ব্যাভার করা যেত। আর আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রোসহ হলে পাঁচ রুবলের মত লাগত। এই রেট চলেছে বহু বছর। সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙনের পর ভাড়া কিছুট বৃদ্ধি পেয়েছে সত্য, তারপরেও তেমন কিছু নয়। আর স্টুডেন্ট হিসাবে ৫০% ডিসকাউন্ট তো আছেই। মাসের শুরুতে একটা মান্থলি কার্ড কিনে নেই, তারপর সারা মাস যেখানে খুশী যাই। সালাম এই বিষয়ে পলিসি মেকারদের।

চলতে চলতে বেশ কয়েকটি স্টপেজ পার হয়ে টুয়েন্টি থার্ড অগাস্ট পার হয়ে দুটা রেসিডেন্সিয়াল এরিয়াকে কানেকটিং দুই লেনের একটি রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল ট্রলিবাসটি। এখানে রাস্তার দুইধারে ফরেস্ট পার্ক । সেখানে সারি সারি লাগানো আছে, বিরিওজা গাছ। এই গাছটি ইউক্রেন, রাশিয়াতে খুব কমন। ঐ ফরেস্ট পার্ক এরিয়া পেরিয়ে অবশেষে ‘ৎেসলিনা গ্রাদস্কায়া’ স্টপেজে এসে থামলো। আরো কয়েকজনের সাথে আমইও সেখানে নেমে পড়লাম। কিছু খোলা জায়গা পেরিয়ে মেডিকেল ইনস্টিটিউটের ১০ নং হোস্টেলটিতে এসে পৌছুলাম। হোস্টেলের গেটে একজন বসে থাকে, রুশ ভাষায় তাকে ভাখতিওর বলে। সে কর্কশ গলায় বলল, ” তোমার স্টুডেন্ট আইডি কার্ডটা রেখে যাও”। এই দেশে এই একটা সমস্যা সমাজতন্ত্রের কল্যাণে বুরোক্রেসি এত হাই লেভেলে আছে যে, কেউ সামান্য একটু ক্ষমতা পএলএই সেটা শো না করে ছাড়েনা। ওর কাছে কার্ডটি রেখে, উপরে উঠে গেলাম। এখানকার বিল্ডিং কোড অনুযায়ী দালান পাঁচ তলার উপরে হলেই, লিফট রাখতে হবে। এই হোস্টেলটি সাত তলা। নীলিমা থাকে ছয় তলায়। আমি লিফট পারতপক্ষে কম ব্যবহার করার চেস্টা করি। আমি যখন ল্যংগুয়েজ কোর্সে ছিলাম, তখন একটি লিফট্ দুর্ঘটনায় ফাদেল নামে আমার সিরিয়ান এক বন্ধু মারা গিয়েছিল। ও ছিল বারো তলায়। লিফটের ভিতরে ওর সুটকেসটি ঢোকানোর পরপরই লিফটের দরজা বন্ধ হয়ে যায়। ও তখন দরজা খোলার সুইচে বারংবার চাপ দিতে থাকে, এক পর্যায়ে দরজা খুলে যায়। ফাদেল নিশ্চিন্ত মনে লিফটে পা রাখে। আসলে লিফট তখন আর সেখানে ছিলনা। লিফট চলে গিয়েছিল উপরে। ম্যালফাংশন হয়ে লিফটের দরজা খুলে গিয়েছিল। পা দেয়ার সাথে সাথে ফাদেল বারো তলা থেকে নীচে পড়ে যায়। হাসপাতালে নিতে নিতেই ও মৃত্যুবরণ করে। ঘটনাটি আমার মনে গভীর দাগ কেটেছে। সেই থেকে আমি খুব সাবধানে লিফট ব্যবহার করি।

হেটে হেটে আমি ছয়তলায় উঠে গেলাম। ৬১০ নং রূমের সামনে এসে একটু সময় নিলাম। নীলিমা রূমে নাও থাকতে পারে। যদিও এখন ভ্যাকেশন চলছে, কিন্তু আমারই মতো হয়তো সামারের সুন্দর আবহাওয়া উপভোগ করতে বাইরে গিয়েছে। আবার রূমে থাকলেও, বয়ফ্রেন্ড নিয়ে বিজিও থাকতে পারে। নীলিমা কোলকাতার মেয়ে। ভারতীয় বাঙালী মেয়ে। অবশ্য ওকে দেখলে চট করে বোঝা যায়না যে, ও বাঙালী। ও শরীরে বড়সড়। গায়ের রং একটু বেশীই কালো। আবার ভারতীয় পোষাকেও ওকে আমি কখনো দেখিনি। প্যান্ট-শার্ট, স্কার্ট-টপস এই জাতীয় ইউরোপীয় বা আধুনিক পোষাক ব্যবহার করে। অনেকে ওকে আফ্রিকান বলে ভুল করে। এদিকে ওর বয়ফ্রেন্ডও আফ্রিকান। ওকে নিয়ে ভারতীয় কম্যুনিটিতে বদনামের অন্ত নেইঃ “মেয়েটার কোন কান্ডজ্ঞান নেই, শেষ পর্যন্ত একটা কালুর সাথে লাইন করল! শুধু কি লাইন? রীতিমত লীভ টুগেদার করে! না ভারতীয় মেয়েদের মান সম্মান আর কিছু রাখলো না!” নীলিমা অবশ্য পাল্টা কথা বলে, ” আহারে আমার ইন্ডিয়ান ছেলেরা! নিজেরা যে গন্ডায় গন্ডায় সাদা মেয়েদের সাথে রাত কাটাচ্ছ, লীভ টুগেদার করছ ওটা কিছু না! আর একটা ইন্ডিয়ান মেয়ে একটা আফ্রিকান ছেলের সাথে কিছু করলেই মান গেল? ওরা যদি লাইফ এনজয় করতে পারে, আমি পারব না?”

নীলিমা আমার ব্যাচমেইট। সেকেন্ড ইয়ার থেকেই ওর সাথে আমার পরিচয়। তখন থেকেই ভালো সম্পর্ক। আমি মাঝে মাঝে ওর রূমে যাই, ওও আমার রূমে আসে। কখনো একা, কখনো বয়ফ্রেন্ড নিয়ে। আমি ওর রূমের সামনে দাঁড়িয়ে ওর রূমের ভিতর গানের শব্দ শুনতে পেলাম। একটু কান খাড়া করলাম। মান্না দে’র গান বাজছে, ‘চাইনা পূণ্য করে স্বর্গে যেতে, ঐ স্বর্গকে ধরে ফেলি হাতের মুঠোয়, যদি একবার হাতখানি রাখো এহাতে’। বুঝলাম রূমে আছে। দরজায় মৃদু নক করলাম। দ্বিতীয়বার নক করার আগে একটু সময় নিলাম। তারপর আবার নক করলাম। সাথে সাথে দরজা খুলল নীলিমা।
নীলিমাঃ রিমন! আমি জানতাম এটা তুমি।
আমিঃ কি করে বুঝলে।
নীলিমাঃ তোমাকে কি আমি আজ প্রথম দেখলাম? এতগুলো বছর ধরে তোমাকে চিনি। তুমিই একমাত্র ছেলে যে প্রথমবার নক করে ধৈর্য্য ধরে অপেক্ষা করে, দ্বিতীয়বার নক কর। অন্য ছেলেরা পরপর শুধু নক করতেই থাকে // এসো ভিতরে এসো।
ভিতরে ঢুকে একটা সোফা কাম বেডে বসলাম। এখানকার ডরমিটরিতে এই ফার্নিচারটি কমন। দিনের বেলা এটি গুটিয়ে রূমটিকে ড্রইংরুমের মত সাজিয়ে রাখা হয়, আবার রাতে খুলে বেড বানিয়ে ঘুমানো হয়।
আমিঃ তারপর, বংফিম কোথায়?
নীলিমাঃ নাই।
আমিঃ নাই মানে? (মনে মনে ভাবলাম, আবার ওদের কাট আপ হয়ে গেল কিনা)
নীলিমাঃ নাই, মানে নাই। এ্যংগোলা গিয়েছে। সামার ভ্যাকেশন কাটাতে।
আমিঃ ও আচ্ছা। তাই বুঝি বসে বসে বাংলা গান শোনা হচ্ছে?
নীলিমাঃ না না। বাংলা গান তো আমি ও থাকতেও শুনি। তোর খবর কি বল?
আমিঃ উঁ, খবর খারাপ না। ভালোই। তুই দেশে যাবিনা, ছুটি কাটাতে?
নীলিমাঃ নারে, এবছর যাওয়া হবেনা। টিকিটের দাম খুব বেড়েছে। তুই যাবি?
আমিঃ না আমিও ঐ একই কারণে যেতে পারছি না।
নীলিমাঃ কি যে হলো, এই ইকোনমিক ক্রাইসিসে। ভীষণ অর্থনৈতিক সমস্যা।
আমিঃ বংফিম তো ঠিকই যাচ্ছে!
নীলিমাঃ আরে ও তো আর বাপের টাকায় যায়না। ওরা এ্যংগোলিয়ানরা, সরকারের কাছ থেকে মোটা অংকের স্টাইপেন্ড পা্য। তাতেই রাজার হালে আছে।
আমিঃ বেশ ভালো দেশ তো!
নীলিমাঃ বলতে পারিস। আমাদের মতো না। দেশের ছাত্রছাত্রীদের কোন মাথাব্যাথা নেই।
আমিঃ এংগোলার প্রেসিডেন্টতো রাশিয়াতে পড়ালেখা করেছিল।
নীলিমাঃ জানি। সেই কারণেই হয়তো সিমপ্যাথিটা বেশি। দাঁড়া, চা করি। না কি কফি খাবি।

আমিঃ চা/কফি যে কোন একটা কিছু হলেই হবে। তা চায়ের সাথে কি টা থাকবে? না কি কোলকাতা স্টাইলে বলবি, “দাদা কি খেয়ে এসেছেন না কি গিয়ে খাবেন?”
একগাল হাসলো নীলিমা,
নীলিমাঃ ফাজলামো রাখ। সবাই একরকম না। আর তুই তো জানিস, আমরা চিটাগাং থেকে মাইগ্রেট করা। ইস্ট বেঙ্গলীরা কন্জুস হয়না।
আমিঃ তুই তো আর মাইগ্রেট করিস নি। তোর দাদা করেছিল। তোর জন্ম তো কন্জুসের দেশেই।
নীলিমাঃ তা হলেও, ফ্যামিলি ট্রেডিশন থেকেই যায়। আমাকে কখনো কন্জুসামী করতে দেখেছিস?
আমিঃ না, তা দেখিনি। বরাবরই উদার। তা আজকে কি উদারতা। দেখাবি বল।
নীলিমাঃ এই নে বিস্কিট। খুব টেস্টি। নারকেল মেশানো আছে।
আমিঃ বাহ! দে খাই।
চা খেতে খেতে প্রশ্ন করল নীলিমা।
নীলিমাঃ শ্তো নোভিন্কা (নতুন কি আছে)?
আমিঃ কি নতুন চাস?
নীলিমাঃ তোর তো কোনকালে কোন গার্ল ফ্রেন্ড ছিল না। হঠাৎ গার্ল ফ্রেন্ড যদি হয়, সেটা নতুন কিছু হতে পারে।
আমিঃ না সেরকম নতুন কিছু নাই। তবে একটা আশ্চর্য্য নতুন বিষয় আছে।
নীলিমাঃ আশ্চর্য্য নতুন বিষয়! কি সেটা?

আমি সকালের পুরো ঘটনাটা ওকে খুলে বললাম। শুনে কিছুক্ষণ ঝিম মেরে রইলো নীলিমা। তারপর ধীরে ধীরে বলল
নীলিমাঃ আমরা মেডিকেলের সিনিয়র কোর্সের ছাত্রী। আর দুয়েক বৎসর পরেই ডাক্তার হয়ে যাব। বিষয়টাকে মেডিকেল পয়েন্ট অব ভিউ থেকে দেখলেই ভালো হয়। তারপরেও আমার কাছে অন্যরকমই মনে হচ্ছে। তোকে কয়েকটা প্রশ্ন করি।
আমিঃ কর।
নীলিমাঃ তুই ক’দিন হলো ঐ রূমে এসেছিস?
আমিঃ আরে নতুন। এই ভ্যাকেশনেই।
নীলিমাঃ এর আগে তোর কখনো এরকম অভিজ্ঞতা হয়েছিল?
আমিঃ না।
নীলিমাঃ তুই একটু খোঁজ নে তো। ঐ রূমে আগে কারা কারা ছিল। যারা ছিল তাদের ওরকম কোন অভিজ্ঞতা আছে কিনা।রূমটাও একটু ভালো করে চেক করে দেখিস।

আমার ডরমিটরিতে ফিরতে ফিরতে রাত হয়ে গেল। ফ্রীজ থেকে খাবার বের করে গরম করে নিয়ে খেতে খেতে টিভি সেটটা অন করলাম। প্রাইভেট চ্যানেলে একটা ম্যুভি চলছিল, ‘মিস্তিকা’ – রহস্যরোমাঞ্চ। হঠাৎ নীলিমার কথা মনে হলো – ‘রূমটাও একটু ভালো করে চেক করে দেখিস’। খাওয়া শেষ করে আমি একটু ভালো করে রূমটা দেখতে লাগলাম। রূমে শিফট হওয়ার সময় তো একেবারেই খালি ছিল। তেমন কোন কিছু তো থাকার কথা নয়। হঠাৎ দেয়ালে চোখ পড়ল। জানালার দিকে মুখ করে তাকালে ডান পাশের দেয়ালে ওয়াল পেপার হালকা ক্রীম কালারের উপর কালো আর মেরুন কালারের প্রিন্টের উপর কিছু একটা দেখলাম। ভালো করে দেখার জন্য কাছে এগিয়ে গেলাম। একটা ম্যাচের কাঠি, গাম দিয়ে ওয়াল পেপারে লগানো। ম্যাচের কাঠির রং আর ওয়াল পেপারের মূল রং একই রকম হওয়ায় চট করে চোখে পড়েনা। ম্যাচের কাঠিটার সাথে কি যেন। চোখ খুব কাছে নিয়ে দেখলাম একটা মেয়ের চুল কাঠিটা থেকে নীচের দিকে ঝুলছে। ওয়াল পেপার আর ম্যাচের কাঠির মাঝখানে চুলটা রেখে গাম দিয়ে লাগানো হয়েছে। চুলের রং দেখে বোঝা যাচ্ছে মেয়েটি স্বর্ণকেশিনী।

-birch-trees2-sunshine-in-the-green-forest

বিষন্ন বিরিওজা – ২
—————————-

কার চুল এটা? কে এই মেয়েটি? এই রূমেই কি থাকত মেয়েটি? নাকি কারো বান্ধবী ছিল? স্মৃতি হিসাবে চুলটি রেখে দিয়েছে? কি জানি! এরপর একটা ভয়াল ধারনা আমাকে ঘিরে ধরল, মেয়েটি কি বেঁচে আছে?

রূমে আমি একাই থাকি। বেশ ভয় ভয় করতে লাগলো। রাতটা কাটাবো কি করে তাই ভাবছি। ভয় কাটানোর জন্য রূমের বাইরে করিডোরে বেরিয়ে এলাম। এখন রাত বারোটার মত। কিন্তু ডরমিটরিতে এটা কোন রাত না। করিডোরে লোক চলাচল আছে। মিনি স্কার্ট পরিহিতা একটি মেয়েকে হেটে যেতে দেখলাম। বেশ সাজগোজ করেছে। এখানকার মেয়েরা সবাই খুব ফ্যাশনেবল, অতিরিক্ত সাজগোজটা স্বাভাবিক। কিন্তু মেয়েটাকে পরিচিত মনে হলোনা। আমাদের হোস্টেলের হলে চিনতাম। হোস্টেলে কারো কাছে এসেছে বোধহয়। সাজগোজ দেখে মনে হচ্ছে ডেটিং-এ এসেছে।

কিছুক্ষণ করিডোরে থেকে ভয় কিছুটা কাটলো। রূমে ফিরে গেলাম। টিভি সেট অন করাই ছিল। মিস্তিকা ছবিটি এখনও চলছে – একটি মেয়ে একটি অচেনা শহরে হারিয়ে গিয়েছে, সেখানে অদ্ভুত সব ঘটনা ঘটছে, এই নিয়ে ছবিটি। মনের এই অবস্থা নিয়ে ছবিটি আর দেখতে ভালো লাগছিল না। চ্যানেল চেইন্জ করলে হয়। নাহ্ একবারে সেটটি বন্ধই করে দিলাম। জানালা দিয়ে বাইরে তাকালাম, ঘোর অন্ধকার। প্রথম পারমাণবিক পাওয়ার প্লান্ট প্রতিষ্ঠাকারী এই দেশটায়, বিদ্যুৎের সমস্যা হয়না। বরং রাশিয়ানরাই ইউরোপে বিদ্যুৎ রপ্তানী করে। ইউক্রেন বিদ্যুৎ রপ্তানী না করলেও তাদের নিজস্ব চাহিদা বেশ ভালোই মেটে। আমার জানালার বাইরে অন্ধকার থাকার কারণ ভিন্ন। বাইরে কিছুদূর পর্যন্ত কোন বিল্ডিং নেই। ঘন গাছপালা। তারা মধ্যে বিরিওজাই বেশি। আমার ঠিক জানালা বরাবরই সাত-আটটা বিরিওজা আছে।

আমি এম্নিতে সিগারেট খাইনা। মনের অস্বস্তিটা কাটানোর জন্য একটা সিগারেট খাব ঠিক করলাম। আলমারী খুলে মার্লবোরো সিগারেটের প্যকেটটা বের করলাম। এই সিগারেটটি এখানে খুব জনপ্রিয়। কিনে রেখেছি এক প্যকেট। হঠাৎ হঠাৎ খাই। সিগারেট ধরাতে গিয়ে দেখলাম লাইটারটা খুঁজে পাচ্ছিনা। কি করা যায়? কিচেনে গিয়ে দেখি। চুলা জ্বালানো থাকলে সিগারেট ধরানো যাবে।

ফ্লোরে দুটা কিচেন আছে। আমার রূমের কাছের কিচেনটির দিকে গেলাম। কিচেনে ঢুকেই একটা ধাক্কা খেলাম। কিছুক্ষণ আগে দেখা মিনিস্কার্ট পরিহিতা মেয়েটি ওখানে আরেকটি ছেলের সাথে আলিঙ্গনাবদ্ধ অবস্থায়। একে অপরের অধরসুধা পান করছে। ছেলেটি আমাদের ফ্যাকাল্টিরই থার্ড ইয়ারের ছাত্র – ইভান। সেই মুহুর্তে ওরা দুজন গভীর আবেগে একে অপরের সান্নিধ্য উপভোগ করছিল। এসময় আমার ওখানে থাকা মানে ওদের প্রাইভেসি নষ্ট করা। সিগারেট না ধরিয়েই বেরিয়ে এলাম।

করিডোরের অপর পাশের কিচেনটার দিকে এগিয়ে গেলাম। হঠাৎ উপর তলার সিঁড়ি দিয়ে নেমে এলো মেক্সিকোর খোসে। আমাকে দেখেই চিৎকার করে বলল, “আরে রিমন, কেমন আছো? দিনকাল কেমন যাচ্ছে? হা হা হা।” ওর কথার ধরন দেখেই বুঝলাম, মাত্রাতিরিক্ত শরাব পান করেছেন। এই খোসে এম্নিতে ভদ্রলোক, কিন্তু মদের এমনই গুন, যে ভদ্রকেও অভদ্র বানিয়ে ফেলে। এই মদখোরদের দেশে আসার পর থেকে ইসলাম ধর্মের একটি আইনের প্রতি আমার বিশেষ শ্রদ্ধাবোধ তৈরী হয়েছে -‘মদ খাওয়া হারাম’। পায়ে পায়ে সরে গেলাম। খোসে সম্পর্কে প্রচলিত আছে, মাতাল অবস্থায় সে ভয়াবহ হয়ে ওঠে। একবার কার সাথে যেন বেদম মারপিট করেছিল। নাহ সিগারেট ধরানো হলোনা। রূমে ফিরে এলাম।

রাতে ভালো ঘুম এল না। ঘুমটা বারবার ছিঁড়ে ছিঁড়ে যাচ্ছিল। একবার ঘুমের মধ্যেই স্বপ্ন দেখলাম। আবছা আবছা সব কিছু … কী একটা গাছ দেখতে পেলাম, গাছটার পাতা ছোট ছোট, সবুজ সুন্দর পাতাগুলো বাতাসে তিরতির করে কাঁপছিল।

সকালে ঘুম থেকে উঠলাম সাউন্ড স্লিপ হয়নি এমন ভাব নিয়ে। যাহোক হাতমুখ ধুয়ে নাস্তা করলাম। নাস্তায় চা খাওয়ার পরও, আবার এককাপ গরম ব্ল্যাক কফি বানালাম। এখানকার কফির স্বাদ ভালো। রিয়েল বীন কিনতে পাওয়া যায়। আমি সেটা ভাঙিয়ে কফি বানাই। খুব সুন্দর সুঘ্রানে মন ভরে যায়। ধুমায়িত কফির কাপটি হাতে নিয়ে জানালার সামনে গিয়ে দাঁড়ালাম। হঠাৎ চোখে পড়ল জানালার বাইরে গাছগুলোর দিকে। আরে ঐতো কয়েকটি বিরিওজা গাছ! এই গাছই তো আজকে রাতে স্বপ্ন দেখেছি। প্রবল অস্বস্তি আমাকে ঘিরে ধরল। কিছু বইয়ে পড়েছিলাম, স্বপ্ন রঙিন হয়না, বরাবরই সাদাকালো। কিন্তু কথাটা আমি বিশ্বাস করিনা, আমি জীবনে বহু রঙিন স্বপ্ন দেখেছি। স্বপ্নে টকটকে লাল গোলাপ দেখেছি, হরেক রঙের বাহারী ফুল দেখেছি, নীল সাগরের ঢেউ দেখেছি, গতরাতেও তো সবুজ পাতা দেখলাম। কিন্তু বিষয়টা কি? বিরিওজা গাছ স্বপ্নে দেখব কেন? আবার ভাবলাম স্বপ্ন স্বপ্নই, কতকিছুই তো স্বপ্নে দেখা যায়। ফ্রয়েডের স্বপ্ন ব্যাখ্যার উপর একটা বই পড়েছিলাম। আমার অবচেতন মনে যা আছে সেটাই স্বপ্ন হয়ে ধরা দেয়। অভিজ্ঞতার বাইরে স্বপ্ন হয়না। হ্যা তাইতো, আমার জানালার বাইরে এই কয়েকদিন যাবৎ তো বিরিওজা দেখছি, তো স্বপ্নে বিরিওজা আসতেই পারে।

হঠাৎ চোখ পড়ল ওয়াল পেপারের গায়ে ম্যাচের কাঠি লাগানো সোনালী চুলটার দিকে। গতরাতে ভালোভাবে চোখে পড়েনি। ম্যাচের কাঠিটি ওখানে একা নয়। একটা চেয়ার টেনে ওটার উপরে উঠে, খুব কাছে গিয়ে দেখলাম, ম্যাচের কাঠিটির সাথেই খুব সুক্ষ একটা কঞ্চি, গাছের ডালের শেষ অগ্রভাগটি। ম্যাচের কাঠিটির সাইজে কেটে তার সাথে লাগানো। এটা বিরিওজা গাছের ডালের সুক্ষ কঞ্চি হতে পাড়ে। কয়েক সেকেন্ডের জন্য স্থির হয়ে গেলাম। ডানা ঝাপটানোর আওয়াজ পেলাম, এক ঝাক পায়রা বিরিওজা গাছগুলো থেকে গ্রীস্মের উজ্জ্বল নীল আকাশে উড়ে গেল। আমি চেয়ার থেকে পড়তে পড়তে সামলে নিলাম। আমার অস্বস্তি আরো ঘনিভুত হলো।

টুক টুক টুক। দরজায় নকের শব্দ হলো। কে আবার এলো? দরজা খুলে দেখলাম, সাশা কাস্তুচেনকা। আমার ক্লাসমেইট এই ছেলেটি খুব ভালো ও ভদ্র। কখনোই কাউকে মনে আঘাত দিয়ে কথা বলে না। আমাকে খুব পছন্দ করে। আমিও ওকে পছন্দ করি।
আমিঃ আরে আরে এসো।
আমার ডিভানটার উপরে বেশ ভদ্রভাবে বসলো সাশা।
সাশাঃ তারপরে কেমন আছো? নতুন রূমে কেমন লাগছে?
আমিঃ তুমিই তো হেল্প করলে ঐদিন, মাল টনাটানি করতে।
সাশাঃ আরে কিছুনা। বন্ধুকে যদি হেল্প করতে না পারি, তো কিসের বন্ধু।
আমিঃ তারপরেও তোমাকে আরেকবার ধন্যবাদ।
সাশাঃ বাদ দাও। তোমার কেমন কাটছে বলো? গতকাল একবার এসেছিলাম বিকালের দিকে। তুমি ছিলেনা বোধহয়।
আমিঃ না, ছিলাম না। ৎেসলিনা গ্রাদস্কায়ায় গিয়েছিলাম।
সাশাঃ তোমার বান্ধবীর কাছে?
আমিঃ আরে আরে আমার বান্ধবীর কাছে না, এ্যাংগোলার বংফিমের বান্ধবীর কাছে। আমার বন্ধু বলতে পারো।
সাশাঃ ওতো তোমার দেশী, তাই না?
আমিঃ না ঠিক দেশী নয়। ইন্ডিয়ান, আমি তো বাংলাদেশের।
সাশাঃ তোমরা একই ভাষায় কথা বলো দেখলাম!
আমিঃ হ্যাঁ ভাষা একই, তবে দেশ ভিন্ন।
সাশাঃ বুঝতে পেরেছি, ও ওয়েস্ট বেঙ্গলের তাইনা?
আমিঃ ঠিক ধরেছ।
সাশাঃ কি যেন নাম?
আমিঃ নীলিমা।
সাশাঃ মানে আছে কোন?
আমিঃ নীল আকাশ।
সাশাঃ সুন্দর নাম তো! মেয়েটা কিন্তু অত সুন্দর নয়। তবে বেশ স্মার্ট।
আমিঃ পছন্দ হয়েছে নাকি?
সাশাঃ নাহ। আমি ভাই তোমার মতই কাঠখোট্টা। কোন গার্ল ফ্রেন্ড-ট্রেন্ড নাই।
আমিঃ নাই কেন? রাশানদের মধ্যে এটা আনইউজুয়াল।
সাশাঃ আসলো না তো কেউ।
আমিঃ তুমি চ্যাম্পিয়ন ওয়েট লিফটার। পেটা শরীর, আলমারীর মত বিশাল, তোমার কাছেই তো আসার কথা।
সাশাঃ কি জানি হয়তো উল্টা ভয় পায়।
এরপর সাশা আমার দিকে তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলল।

সাশাঃ তোমার সব ঠিক আছে তো?
আমিঃ কেন?
সাশাঃ তোমাকে কেমন যেন মনে হচ্ছে। রাতে ঘুম ঠিকমতো হয়েছে তো?
আমি কিছুটা সময় চুপ করে থাকলাম। বুঝতে পারছি না কি বলব। আদৌ কিছু বলব কিনা। পাগল ঠাওরায় যদি।

সাশাঃ আরে সমস্যা হলে বল। বন্ধুর যদি কোন কাজে লাগতে পারি, আমি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করব।
আমি একটু দ্বিধা নিয়ে আস্তে আস্তে ওকে সব খুলে বললাম। সব কিছু শুনে ওও কিছুক্ষণ চুপ করে রইল। আমি তখন ভাবছি ও কি বলবে। এই কিছুদিন আগেও এদেশের মানুষজন সব নাস্তিক ছিল। এসব অতিপ্রাকৃত-ফ্রাকৃততে ওদের কোন বিশ্বাস ছিল না। যদিও এখন হুল্লোড় করে একের পর এক গীর্জা গড়ে তুলছে, তারপরেও কিছুটা রেশ তো রয়েই গেছে।

সাশাঃ অতিপ্রাকৃত কিছু হতে পারে।
আমিঃ তুমি অতিপ্রাকৃত বিশ্বাস কর? তোমাদের দেশের মানুষ তো নাস্তিক ছিল।
সাশাঃ না, আমাদের দেশের মানুষ নাস্তিক ছিল না। আমাদের সরকার নাস্তিক ছিল। কম্যুনিস্টরা নাস্তিক হয়। প্রতিটি দেশের সরকারই তাদের নীতিটিকে জনগণের ঘাড়ে চাপাতে চায়। আমাদের দেশেও তাই ঘটেছিল। এর দ্বারা কেউ প্রভাবিত হয়েছিল, কেউ হয়নি।
আমিঃ তুমি কি বিশ্বাস কর?
সাশাঃ আমি একজন খ্রীস্টান। ভাববাদী দর্শনে বিশ্বাসী। আমি ব্যাক্তিগতভাবে মনে করি, প্রকৃতি যেমন আছে, তেমনি অতিপ্রাকৃতও রয়েছে।

আমিঃ এখন আমার বিষয়টার কি হবে তাই বলো?
আবার কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে সাশা বলল।
সাশাঃ দেখি কি করা যায়। বাদ দাও। চলো বেড়াতে যাই।
আমিঃ কোথায় যাবে?
সাশাঃ গ্রীস্মকালে বেড়ানোর একটা ভালো জায়গা আছে।
আমিঃ কি নাম জায়গাটার?
সাশাঃ নামটা কিছু না, জায়গাটার কথা বলছি।
আমিঃ কি জায়গা?
সাশাঃ প্লায়াঝ।
প্লায়াঝ-এর সরাসরি ইংরেজী মিনিংটা বীচ। যেকোন জলাধারের তীর যেখানে গ্রীস্মকালে মানুষ সানবাথ করে, বেড়ায়, ইত্যাদি।

আমিঃ প্লায়াঝ-এ, যাবে?
সাশাঃ আরে সুন্দরী মেয়েদের টু-পিসে দেখতে পাবে, এর চাইতে মজা আর কিসে আছে!
আমিঃ ভুল বলোনাই। চলো যাই।
আমরা দুজনে সাঁতারের পোষাক-আষাক সরন্জাম নিয়ে বেড়িয়ে পড়লাম।

আমাদের ডরমিটরি থেকে তিন-চার কিলোমিটার দূরে একটা লেক আছে। সেখানেই প্লায়াঝ। আমরা প্রথমে ট্রামে চড়লাম। তারপর নির্দিষ্ট স্টপেজে নেমে, কিছুদূর হাটতে হলো। মনোরম প্রাকৃতিক পরিবেশ। এদিকটায় বিল্ডিং-টিল্ডিং কিছু নেই। একটা ফরেস্ট পার্কের ভিতর লেক। তারপরেও দুটা বাংলো টাইপ বাড়ী দেখলাম। একটার সামনে চেরী গাছে টসটসে চেরী ফল ধরে আছে। একটু রসনা তৃপ্তির প্রয়োজন অনুভব করলাম।
আমিঃ সাশা, দাঁড়াও।
সাশাঃ কি?
আমিঃ আসো চেরী খাই।
সাশাঃ এটা অন্য মানুষের গাছ।
আমিঃ কিসের অন্য মানুষের। দেখোনা রাস্তার উপরে।
সাশাঃ রাস্তার উপরে ঠিক আছে, তারপরেও মালিক থাকতে পারে। এই বাড়ীর সামনে যেহেতু, ওরাই হয়তো মালিক।
আমি ভালো করে আশপাশ দেখে নিলাম। নাহ্ কেউ নাই। থাকুক মালিক, আমরা এই সুযোগে চেরী খাব। কিশোর বয়সে পেয়ারা চুরীর মত একটা এ্যাডভেঞ্চার মাথায় চাপল। বেচারা সাশা অনিচ্ছা সত্বেও চেরী পারতে শুরু করল। দুজনে মিলে গাছ থেকে পারি আর খাই। টসটসে চেরীগুলো বেশ মজার। পাঁচ-ছয় মিনিট চেরী খেয়েছি, এমন সময় দরজা খোলার আওয়াজ পেলাম। এবার সাশা একটু অস্থির হয়ে গেল।

সাশাঃ চলো চলো তাড়াতাড়ি পালাই। কেউ এদিকে আসছে মনে হয়।
আমরা দ্রুত পা চালিয়ে। ওখান থেকে সরে পড়লাম। মুখে রয়ে গেল তাজা চেরীর স্বাদ।

প্লায়াঝে গিয়ে দেখলাম অনেক পরীর মেলা। কেউ ব্রুনেট, কেউ ব্লন্ড, কেউ রুসী। কেউ দীর্ঘাঙ্গী, কেউ মাঝারী গড়নের।বিস্ময়কর সুন্দরীরা টু-পিস পড়ে তাদের প্রগলভা ফিগার প্রদর্শন করছে প্লায়াঝে। অবশ্য প্রদর্শন করার উদ্দেশ্য তারা এখানে এসেছে এমন নয়। তারা এসেছে তুহীন শীতের পর গ্রীস্মের উজ্জ্বল দিনগুলিতে সোনারোদের উষ্ণতায় পুরো শরীর ভরিয়ে দিতে। এই সোনারোদের আদর পরশে তাদের শুভ্রতনু ধীরে ধীরে তাম্রবর্ণ ধারন করেবে। টুপি বা রূমাল দিয়ে মুখ ঢেকে অনকে পুরো শরীর বিছিয়ে দিয়েছে তপ্ত বালুর উপর। অনেকেই ঝাপিয়ে পড়ছে লেকের জলে। দাপাদাপি করে লেকের শান্ত নির্জন জল অস্থির করে তুলছে।

আমিঃ লেকটা মোটামুটি বড়, কোনদিকে যাব বলতো?
সাশাঃ হাটতে শুরু করি। হাটতে হাটতে যেখানে সবচাইতে সুন্দরী মেয়েদের দেখব, সেখানে থেমে যাব।
আমিঃ হা হা হা, ভালো বলেছ। পুরুষ মানুষের মনের কথা।

দুতিন ঘন্টা সাঁতার কেটে আর সানবাথ করে। ব্যাগ গুছিয়ে আমরা রওয়ানা দিলাম, ডরমিটরির উদ্দেশ্যে। ট্রামে উঠে আমি আর সাশা পাশাপাশি সীটে বসলাম। নিজেদের মধ্যে গল্পগুজব করছি, হঠাৎ লক্ষ্য করলাম আমাদের দুই সীট পরে আমাদের ডরমিটরির ইলেকট্রিসিয়ান ভাসিয়া বসে আছে। ভাসিয়া আমাদের ফ্যাকালটি থেকেই পাশ করছে। যখন পড়ত তখন আমাদের ডরমিটরিতেই থাকত। তারপর পাশ করার পর ডরমিটরির ইলেকট্রিসিয়ান হিসাবে থেকে যায়। একটা রূম পেয়েছে, ওখানেই থাকে বিয়ে-টিয়ে করেনি। বিশ বছর যাবৎ ডরমিটরিতে আছে।

সাশাঃ ট্রাম ফাঁকা আছে, চল ভাসিয়ার পাশে গিয়ে বসি।
আমিঃ ভাসিয়ার পাশে বসার দরকার কি?
সাশাঃ কথা আছে।
গিয়ে বসলাম ভাসিয়ার কাছে। আমাদের দেখে একগাল হাসল ভাসিয়া।
ভাসিয়াঃ আরে তোমরা দেখছি! কোথায় গিয়েছিলে? প্লায়াঝে?
আমিঃ হু, আর তুমি?
ভাসিয়েঃ আমি লেক ছাড়িয়ে আরো তিন স্টপেজ সামনে, একটা দালানে গিয়েছিলাম কাজে। তোমরা কেমন সময় কাটালে?
আমিঃ ভালো।
সাশাঃ তোমার সাথে কথা আছে ভাসিলি।
ভাসিয়াঃ কি কথা?
সাশাঃ তুমি তো বিশ বছর আমাদের ডরমিটরিতে আছি তাইনা?
আমিঃ হ্যাঁ, এই ফল সিজনে একুশ বৎসর হবে। হঠাৎ এ’ প্রশ্ন কেন?
সাশাঃ না একটা বিষয় জানতে চাই। তুমি কি ৩০৫ নং রূমটা সম্পর্কে কিছু জানো?
ভাসিয়াঃ ৩০৫ নং রূমে আবার কি হলো?
সাশাঃ না মানে, ঐ রূমে কারা কারা থাকত?
ভাসিয়াঃ কারা কারা থাকত মানে? এই একুশ বৎসরে তো কত লোকেই এলো-গেলো আমি সবার নাম মুখস্থ করে রেখেছি?
আমিঃ না মানে ওখানে কি অস্বাভাবিক কিছু ঘটেছিল? কোন অঘটন?
ভাসিয়া কিছু সময় চুপ করে থেকে বলল,
ভাসিয়াঃ ওখানে অস্বাভাবিক কিছু ঘটেছে বলে তো মনে পড়েনা। কেউ তো বলে নি কখনো কিছু। তবে…..
সাশাঃ তবে কি?
ভাসিয়াঃ না, মানে, একটা মেয়ে..
আমিঃ একটা মেয়ে কি?
ভাসিয়াঃ আচ্ছা তোমাদের কি হয়েছে বলতো? হঠাৎ এই প্রশ্ন কেন?
সাশাঃ রিমন কয়েকদিন হলো ঐ রূমে শিফট করেছে।
ভাসিয়াঃ রিমন শিফট করেছে তাতে কি হয়েছে?
সাশা আর আমি দুজনেই চুপ করে রইলাম। কি বলব বুঝতে পারছি না। আমার অভিজ্ঞতা যদি ওকে বলি, আর ও যদি পাগল ঠাওরায়। ভাসিয়া আবার খুব কমন ফিগার। সবার সাথে খাতির। এরপর পুরো ডরমিটরি জেনে গেলে একটা হাসাহাসি পড়ে যাবে।

একটু চুপ থেকে ভাসিয়া নিজেই বলল।
ভসিয়াঃ রিমন কোন অস্বাভাবিক কিছু কি ঘটেছে?
আমিঃ না তেমন কিছু নয়।
ভাসিয়াঃ বুঝতে পেরেছি কিছু একটা তো ঘটেছেই। না বলতে চাইলে না বলো। তবে আমি যা বলছি শোন।
আমি ও সাশা অবাক হয়ে পরস্পরের দিকে তাকালাম।
ভাসিয়াঃ বছর সাতেক আগে, ওখানে পোলিশ একটা মেয়ে থাকত। মেয়েটির নাম ছিল মাগদা।
সাশাঃ ছিল মানে? মেয়েটি কি এখন আর ইউক্রেনে নাই?
ভাসিয়াঃ সেটাই বলছি। শুধু ইউক্রেনে না, মেয়েটি এই পৃথিবীতেই নেই।
ভাসিয়ার কথা শুনে আমাদের বিস্ময় আরো ঘণীভুত হলো।

ভাসিয়াঃ মাগদা পোল্যান্ড থেকে স্কলারশীপ নিয়ে এখানে পড়তে এসেছিল। দীর্ঘাঙ্গী সুশ্রী মেয়েটি ছিল স্বর্ণকেশীনী। সদালাপী হাসিখুশী এই মেয়েটি অনেকেরই চোখে পড়েছিল। শেষ পর্যন্ত মেয়েটির সম্পর্ক হয় মরোক্কোর আবদুর রাজ্জাকের সাথে। রাজ্জাক এখন আর নেই পাশ করে ফ্রান্সে চলে গেছে। মাগদা আর রাজ্জাক খুব সুন্দর একটা জুটি ছিল। দুজনই সুশ্রী দীর্ঘকায় আর উচ্ছল ছিল। ওরা ৩০৫ নং রূমেই লীভ টুগেদার করত। মাগ্দা বিরিওজা গাছ খুব পছন্দ করত। তাই বেছে বেছে ঐ রূমটি নিয়েছিল। লক্ষ্য করেছ নিশ্চয়ই, ঐ রূমের জানালার পাশেই কয়েকটি বিরিওজা গাছ আছে। একবার শীতের ছুটিতে মাগদা পোল্যান্ড গেল। সেখান থেকে আর ফিরে আসেনি। তারপর আমরা দুঃখজনক খবর পেলাম। মাগদা বন্ধু-বান্ধব নিয়ে পাহাড়ে গিয়েছিল আইস স্কী করতে। তারপর সেখানে হারিয়ে যায়। অনেক খুঁজেও ওকে পাওয়া যায়নি।
আমিঃ পাওয়া যায়নি মানে কি? বেমালুম গায়েব হয়ে গেল?
ভাসিয়াঃ আবদুর রাজ্জাক পাগলের মত হয়ে গিয়েছিল। ঐ বছর সামারে ওর পাশ করার কথা ছিল। মাগদা ছিল ওর দু’বছরের জুনিয়র। বেচারা মাগদার শোকে পরীক্ষা ঠিকমতো দিতে পারেনি। পরবর্তি সেমিস্টারে স্পেশাল ব্যবস্থা করে ওর ডিফেন্স এ্যারেন্জ করা হয়। তারপর রাজ্জাক ফ্রান্সে চলে গিয়েছে।
সাশাঃ মাগদার কি হয়েছিল?
ভাসিয়াঃ আমাদের ডরমিটরিতে আরেকটো পোলিশ মেয়ে ছিল, মাগদাদের শহরেরই। একবছর পরে ও জানিয়েছিল, উঁচু পাহাড়ে, বরফের মধ্যে মাগদার মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছিল, এক বৎসর পরে। আরেকটি স্কী টিম মৃতদেহটি আবিষ্কার করেছিল।
সাশাঃ ভয়াবহ। মানুষের জীবনে যে কখন দুর্যোগ নেমে আসে কেউ বলতে পারেনা।

আমিঃ বেচারা আবদুর রাজ্জাক! ভালোবাসার মানুষটিকে হারালো!
ভাসিয়াঃ এবার রিমনের কি হয়েছে বলো। হঠাৎ কেন এতো কিছু জানতে চাইলে?
আমি আবারও চুপ করে রইলাম। এদিকে কথা বলতে বলতে ট্রাম আমাদের স্টপেজে চলে এলো। আমি আর সাশা নামার প্রস্তুতি নিলাম। ভাসিয়া দেখলাম বসেই আছে।
আমিঃ ভাসিয়া তুমি নামবে না?
ভাসিয়াঃ না, আমি একটু বাজারের দিকে যাব।
আমিঃ ও। যাও তাহলে।
ভাসিয়াঃ তুমি কিন্তু বললে না কি হয়েছে।
আমরা নামতে নামতে ভাসিয়া বলল।
ভাসিয়াঃ ঐ ৩০৫ নং রূমে আমিও মাস তিনেক ছিলাম, পরে ছেড়ে দিয়েছি। আমি তখন ট্রামের একেবার দরজায়, নেমে যাব যাব, এই সময় ভাসিয়ার কথা শুনে ঘুরে তাকালাম।
আমিঃ কেন ছেড়ে দিলে কেন?
ভাসিয়াঃ অস্বস্তি লাগত। কি কি সব স্বপ্ন দেখতাম!

birch-tree3-walkway

বিষন্ন বিরিওজা – ৩
—————————-

বিকাল বেলাটা সাশা আমার রূমে কাটালো। আমরা চা নাস্তা খেয়ে গল্পগুজব করে কাটালাম। এদেশে সামারে বিকালটা ভীষণ লেংদি হয়। দশটার দিকে সূর্য ডুবি ডুবি করল। আমাদের হিসাবে এটাকেই সন্ধ্যা বলতে হয়। সেসময় সাশা বলল, “চল আমার রূমে গিয়ে ডিনারটা সেরে নেই। তাই করলাম।

নিরুদ্বিগ্নভাবেই ভাবেই কেটে গেল বিকাল আর সন্ধ্যাটা। সাশার রূম থেকে আমার রূমে ফিরে দরজাটা লক করে ঘুরতেই চোখ আটকে গেল দেয়ালে সাটা সেই চুলটার দিকে। সেই মেয়েটির চুল, পোলশার মেয়ে, মাগ্‌দা যার নাম ছিল। মেয়েটি এখন আর এই পৃথিবীতে নেই। মেয়েটির চুলটি আছে। হয়তো কোন এক আবেগময় মুহুর্তে মেয়েটি তার চুল, তার শরীরের একটা অংশ দেয়ালে গেথে দিয়েছিল। তার ভালোবাসার মানুষটির জন্য। ‘আমি না থাকি, আমার শরীরের একটা অংশ তোমার সাথে থাকবে’। ‘ন হন্যতে হন্যমানে শরীরে’ – শরীরের মৃত্য হলেও আত্মার মৃত্যু হয়না। মানুষ মারা যাওয়ার পর তাকে সমাহিত করা হয় কেন? আবার হিন্দুরা পুড়িয়ে ফেলে। হিন্দু ফিলোসফি বলে, পঞ্চভুত থেকে মানুষের সৃষ্টি আবার যেন সেই পঞ্চভুতেই মিলিয়ে যায়। মুসলিম, ইহূদী আর খ্রীষ্টানরা সমাহিত করে। উদ্দেশ্য পুরো শরীরটিই যেন মৃত্তিকার অংশ হয়ে যায়। কিছুই যেন আর মাটির উপরে না থাকে। লেনিনের দেহ মমি করে রাখা হয়েছে, আজ সত্তুর বছরের উপর। নাস্তিক কম্যুনিস্টরা কাজটি করেছিল। এই নিয়ে এখন অনেক কথা হচ্ছে। ধর্মভীরুরা বলছে, এটা গ্রহনযোগ্য নয়, মৃত মানুষের দেহের স্থান মাটির উপরে নয়, মাটির নীচে। মাটির উপরে মৃতদেহ দীর্ঘকাল রাখলে তা অমঙ্গল বয়ে আনে। মৃত মেয়েটির শরীরের একটা অংশ, এখন আমার সামনে আছে। আমার রুমেই। সাথে সাথে কেমন একটা অস্বস্তি ঘিরে ধরল। জানালা দিয়ে বাইরে তাকালাম, সেখানে জমাট অন্ধকার। অকারণে গাটা ছমছম করতে লাগলো। অকারণই বা বলছি কেন? এই দুদিন যা ঘটেছে ও শুনেছি তাতে তো ভয় লাগার সুস্পষ্ট কারণই আছে। সাশাকে বললে অবশ্য আমার রূমে এসে ঘুমাতো, কিন্তু সেটা বলতে যাইনি। কেমন যেন নিজেকে কাপুরুষ মনে হয়। আবার আমি একা রুমই ভালোবাসি, তাতে প্রাইভেসি থাকে।

ভয়ভীতি দূর করে নিজের হেফাজত পাওয়ার একটাই পথ – মহান সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করা। তাই করলাম ওযু করে পাক-সাফ হয়ে এশার নামাজের সাথে আরো দুই রাকাত নামাজ পড়লাম। নামাজ পড়ার পর দোয়া করা, শুধু নিজের জন্য দোয়া করলে দোয়া কবুল হয়না, মৃত-জীবিত সবার জন্যই দোয়া করতে হয়, তাই করলাম।

ভয় বা অস্বস্তি যেটাই বলি, অনেকটাই কমে এলো। ডিভানটা খুলে বিছানা তৈরী করে গা এলিয়ে দিলাম। রূমের বাতিটা নিভিয়ে দিলাম। গাঢ় অন্ধকারে রুমটা ভরে গেল। রূমে একা থাকার কারণে এম্নিতেই একাকিত্ব বোধ করি, এখন আবারো অস্বস্তি চেপে বসলো আমার বুকে। নাহ্‌ এভাবে অন্ধকারে থাকা যাবেনা । টিভি সেটটা অন করে দিলাম। একেবারে অন্ধকার না হয়ে কিছুটা হলেও যেন আলো থাকে। শুয়ে শুয়ে টিভি দেখতে থাকলাম। পুরাতন রাশান টিভি, রিমোট সিস্টেম নাই, ভিতরে ভালভ্‌ এ্যারেন্জমেন্ট, খুব ভালো চলে। আমার আগে একজন বাঙালী ভাই ছয় বছর চালিয়েছিলেন, আমি গত চার বছর চালাচ্ছি। তারপরেও বেশ স্মুথ। ফিজিক্স ক্লাসে ডঃ ব্লেশেনকা বলেছিলেন, ভালভ্‌ এ্যারেন্জমেন্ট ইলেকট্রনিক্স ভারী হয় সত্য, কিন্তু টেকশই হয়। ভালো সার্ভিস দেয়। প্রাইভেট টিভি চ্যানেল ‘টনিস’ চলছিল। এটা খারকভ শহরের নিজস্ব চ্যানেল। এবং এটাই সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রথম প্রাইভেট টিভি চ্যানেল। একটি অ্যামেরিকান ফিল্ম চলছিলো। শুরুটাই হলো খুন দিয়ে, তারপর এই হত্যাকান্ডকে ঘিরে নানা কাহিনী। অ্যামেরিকান ফিল্মগুলোর ধরনই বোধহয় এরকম। খুন, সেক্স, টাকা এইগুলোই কাহিনীর উপকরণ। ভালো ছবি যে হয়না তা নয়, কিছু কিছু ছবি এককথায় দুর্দান্ত। কিন্তু বেশীরভাগেরই ঐ টাইপ। সেই তুলনায় রাশান ফিল্মগুলোর বেশীরভাগই অসাধারণ। বিশাল কাঁচের জানালার পর্দাটা খোলা ছিল। বাইরের অন্ধকারের দিকে তাকিয়ে, একবার ভাবলাম পর্দাটা টেনে দেই। আবার ভাবলাম, না থাক, পর্দা টেনে দিলে নিজেকে আরো বেশী বদ্ধ মনে হবে। বাইরের বিরিওজা গাছগুলোর উপরে দিনের বেলায় নীলাকাশ দেখা যায়। রাতের আকাশ নিঃসন্দেহে কালো। সেই অন্ধকারের বুক চিরে হঠাৎ আলো ফুটে উঠলো। এক বিন্দু আলো। ভুল দেখছি না তো? না ঠিকই দেখছি। একটি তারা খুব ধীরে ধীরে একপাশ থেকে আরেক পাশের দিকে যাচ্ছে।না অবাক হলা না, অলৌকিক কিছু নয়, একেবারেই লৌকিক। দেশে থাকতে একবার এরকম গতিশীল তারা দেখে অবাক হয়েছিলাম, ফিজিক্সের শিক্ষকও বলতে পারেননি। প্রথম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনকারী দেশে এসে এখন আমি জানি ওটা স্যাটেলাইট। নিজের মনে হাসলাম – জানা থাকলে স্বাভাবিক, আর অজানা অনেক কিছুকেই অনেক সময় অলৌকিক মনে হয়। বাইরের অন্ধকার, বিজ্ঞানের অনন্য উপহার টিভির হালকা আলো। সব মিলিয়ে আবছা আলো আধারী পরিবেশে ধীরে ধীরে আমার চোখে রাজ্যের ঘুম নেমে এলো।

একটা অস্পষ্ট আওয়াজ শুনে ঘুম ভেঙে গেল। চোখ মেলতে চেয়েও মেলতে পারলাম না। আমার কি ঘুম ভেঙেছে? এখন কটা বাজে? ঠাহর করার চেষ্টা করলাম ভোরের আলো ফুটেছে কি ফোটে নাই। আওয়াজটা আরেকটু স্পষ্ট হলো। ইলেকট্রিক ক্যাটল চলছে। কেউ কি ওটা চালিয়েছে?

গ্রীস্মের পাগল হাওয়ায় ঝিরঝিরে ভৌতিক শব্দ করছে বিরিওজার পাতা। মনে হলো জানালার বাইরে আলো নেই। তার মানে রাত। ধক করে উঠলো বুকটা। শুনেছি রাতের অন্ধকারেই অশুভ শক্তিরা ঘুরে বেড়ায়। ঢাকায় একবার ২১শে ফেব্রুয়ারীর মধ্যরাতে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলো। ব্যপক তদন্তের পর পুলিশ রিপোর্ট দিল, এটা অশভ শক্তির কাজ ছিল। এবং তারা ২১শে ফেব্রুয়ারীর মধ্যরাতের প্রোগ্রাম বাতিল করে, কেবলমাত্র ঐতিহ্যবাহী প্রভাত ফেরী দিয়েই অনুষ্ঠান শুরু করার সুপারিশ জানিয়েছিল।

মনে হলো ইলেকট্রিক ক্যাটলটা চালু করে কেউ ঘরের ভিতর হাটাহাটি করছে। আমার বুক দুরু দুরু করতে লাগলো। ঘাড় থেকে মেরুদন্ড বেয়ে শিরশির করে নিচের দিকে নেমে গেল ঠান্ডা ভয়ের স্রোত। সাহস সঞ্চয় করে ডাকতে শুরু করলাম, “কে? এখানে কে?” কিন্তু আমার গলা দিয়ে কোন স্বর বের হলো না। আমার ডাকার চেষ্টায় সব শব্দ থেমে গেল। এমনকি বিরিওজার পাতাগুলোও আর কাঁপছে না। নীরবতায় থমথম। আমার উৎকন্ঠা ক্রমেই বাড়ছে। আমি চোখ খোলার চেষ্টা করে কোন কাজ হলোনা, সামান্য খোলা দুটি চোখের পাতার দৃষ্টিপথে পিসিগুলো সব অস্পষ্ট করে দিচ্ছে। অন্ধকারের বুক চিরে ক্ষীণ আলোর আভাস, একি কোন আবছা ভৌতিক আলো। সবটাই কেমন অদ্ভুত আর রহস্যময় ঠেকলো আমার কাছে। এমনভাবে কত সময় পার হয়ে গেল কে জানে?

অনেক পরে পরিপূর্ণরূপে ঘুম ভাঙলো। ইতিমধ্যে রাত পেরিয়ে অন্ধকার কেটে গেছে। পূব আকাশে মেঘের বুকে সবে রঙের ছোপ লাগতে শুরু করেছে। কানে এসে বাজলো মোরগের ডাক। এদেশে আযানের ধ্বনি শোনা যায়না, গীর্জার ঘন্টাও বাজেনা। ভোর বেলা কর্কশ ডাকে ঘুম ভাঙিয়ে দেয় বলে মোরগের উপর ভীষণ রাগ হতো ঘুমকাতুরে আমার। আজ সে ডাক মধুবর্ষণ করলো আমার কানে। ঘুম ভাঙার সাথে সাথে দুঃস্বপ্নটা কেটে গেল। কে জানে সত্যিই স্বপ্ন ছিল কি-না!

নাহ্‌ এই ভৌতিক রূমে আর থাকা যাবেনা। অন্য কোন রূম খুঁজে নিতে হবে। ব্রেকফাস্ট করে হোস্টেলের কমান্ড্যন্ট-এর কাছে যাব। কমান্ড্যন্ট-এর কথা মনে হতেই মেজাজ খিচড়ে গেল। আমার বয়সী ইয়াং একটা মেয়ে। নাম স্ভেতা। গায়ে-গতরে বড়সড় বলে দেখলে বয়স্ক মনে হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেলে ম্যাচিউরড ছেলেমেয়েরা থাকে, পিএইচডি স্টুডেন্টরাও থাকে, দু’একজন ইয়াং টিচারও থাকে। এখানে বয়স্ক দায়িত্বশীল কমান্ড্যন্ট থাকা উচিত। তা না করে দায়িত্ব দিয়েছে এই ছুকরীকে। আসলে ওর দাদা ছিল এর আগের কমান্ড্যন্ট। রিটায়ার করার আগে দাদাই ইউনিভার্সিটির রেক্টরকে রিকোয়েস্ট করে, নাতনিকে চাকরীটা পাইয়ে দেয়। এখন মেয়েটি ধরাকে সরা জ্ঞান করে কাউকে তোয়াক্কা করেনা। ঘুষ ছাড়া কাজ করেনা। আমাকে দুই চোখে দেখতে পারেনা। কারণ দুয়েকবার বাক-বিতন্ডা হয়েছে। এখন আমি গিয়ে রূম চেইন্জ করতে চাইলে রূম তো চেইন্জ করবেই না, উল্টা এই রূমেই পাকা-পোক্ত থাকার ব্যবস্থা করার চেস্টা করবে। আমাকে অন্য কাউকে দিয়ে কাজটা করতে হবে।

প্যালেস্টাইনের খালেদের কাছে গেলাম। ও আমার ক্লাসমেইট। ওর স্ত্রী আবার ইউক্রেণীয়। ইউনিভার্সিটিতেই কি একটা চাকরী করে যেন। লম্বা চওড়া সুদর্শন খালেদ একসময় লেডী কিলার ছিল। এম্নিতেই আরবরা দেখতে সুন্দর হয়। মেয়েদের ভাষ্য মতে (শুধু রুশ মেয়ে নয়, ইউরোপীয়, এশিয়, দক্ষিণ আমেরিকান সব মেয়েদের মুখেই শুনেছি, পৃথিবীর সব চাইতে সুন্দর পুরুষ হলো আরবরা। তাই সব দেশের মেয়েরাই আরবদের সান্নিধ্য পাওয়ার জন্য উদগ্রীব থাকত।) আরবরাও এই সুযোগের সদ্বব্যবহার করে বেশ। খালেদও করত। হঠাৎ করেই কি হলো, নাতাশা নামের বয়সে অনেক বড় মেয়েটির সাথে ঘর-সংসার করতে শুরু করলো। প্রথমে বিষয়টা বুঝতে পারিনি, পরে ওর দেশীদের মুখেই শুনলাম। খালেদের সাথে সম্পর্কের ফলে নাতাশা হঠাৎ প্রেগনেন্ট হয়ে যায়। এরপর থেকে খালেদ নাতাশার সাথে থাকতে শুরু করে। অল্প সময় পরে ফর্মাল বিয়েটাও সেরে নেয়। ওদের একটি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। সিরিয়ার রাফাত বলল, “নাহ্‌, খালেদকে বাহবাই দেব, এরকম পরিস্থিতিতে ছেলেরা গাঁ বাচানোর চেষ্টা করে। খালেদ তা না করে নাতাশাকে বিয়ে করেছে, মেয়েটির পিতৃত্ব স্বীকার করে নিয়েছে। ওয়েল ডান!”

সেই খালেদকে গিয়ে বিষয়টা বুঝিয়ে বললাম। আমাদের কথার মাঝখানে নাতাশাও এলো। সব শুনে বলল, “ঠিক আছে কোন অসুবিধা নাই। তুমি আমার স্বামীর বন্ধু, আমি তোমাকে অবশ্যই হেল্প করব।”
আমিঃ কি করে?
নাতাশাঃ বারে! আমি তো এই স্টুডেন্ট টাউনের ডেপুটি ডিরেক্টর। আমি বললেই ডিরেক্টর তোমার সব ব্যবস্থা করে দেবে। স্ভেতার মত কমান্ড্যন্টরাতো সব আমাদের আন্ডারেই কাজ করে।
ধরে প্রাণ ফিরে পেলাম। কাজটা সহজেই হবে তাহলে। গুড!

বিকালের দিকে হোস্টেলের স্টুডেন্ট কমিটির প্রধান সের্গেই গারানঝা এলো।
গারানঝাঃ রিমন, শুনলাম রূম পাল্টাতে চাও?
আমিঃ চাই তো।
গারানঝাঃ স্ভেতা বাধা দিচ্ছে?
আমিঃ জানিনা। এখনো কিছু বলিনি। জানলে বাধা দিতেও পারে।
গারানঝাঃ না বাধা দিতে পারবে না। স্ভেতা কমান্ড্যন্ট হতে পারে, কিন্তু তোমাকে খাটো করে দেখলে হবেনা। তোমার একটা রাইট আছে। তুমি এখানে চার বছর ধরে আছো।
আমিঃ ঠিক। আমিও তাই মনে করি।
গারানঝাঃ চিন্তা করোনা। আমি আছি তোমার সাথে।
আমি মনে মনে ভাবলাম, ভালোই হলো আরেকজন পাওয়া গেল আমার পক্ষে। পরে জানতে পেরেছিলাম সের্গেই-এর সাথে স্ভেতার ঠান্ডা লড়াই চলছে। তারই রেশ ধরে সের্গেই এসেছে আমার সাথে সন্ধি করতে।

সের্গেই চলে যাওয়ার মিনিট বিশেক পর খালেদ এলো।
খালেদঃ ব্যাগ-ট্যাগ গোছাও।
আমিঃ কেন দেশে পাঠিয়ে দেবে নাকি? হা হা হা!!
খালেদঃ না দেশে না। অত ক্ষমতা এখনো হয়নি। আপাততঃ অন্য রূমে।
আমিঃ রিয়েলী।
খালেদঃ হ্যাঁ বন্ধু, আমার ওয়াইফ কল-কাঠি নেড়ে এসেছে। ডিরেক্টরের নির্দেশে স্ভেতা এখন তোমাকে অন্য রূম বরাদ্ধ করবে।
একটা প্রশান্তি বয়ে গেল আমার বুকে।
আমিঃ তোমাকে কি বলে যে ধন্যবাদ দেব!
খালেদঃ ধন্যবাদ দিতে হবেনা। আপাততঃ চা খাওয়াও এক কাপ।
তারপর ডিভানে গা এলিয়ে দিয়ে বলল।

খালেদঃ আরে বন্ধুর জন্য যদি এটুকুই করতে না পারলাম। তাহলে কিসের বন্ধু বল? তুমি আমি একই দেশের না হতে পারি। একই ধর্মের তো! মুসলমান-মুসলমান ভাই-ভাই। আমি প্যলেস্টাইনের মানুষ। আমাদের প্যলেস্টাইনের প্রতি বাংলাদেশের মানুষের দরদের কথা আমি জানি।
আমিঃ ওহ্‌হো (খুশী ও কৃতজ্ঞতার হাসি হাসলাম আমি)।
চা বানাতে বানাতে বললাম, “তোমাদের ইয়াসির আরাফাতের সাথে তো আমাদের মরহুম প্রেসিডেন্ট ………।” কথা শেষ করতে পারলাম না।
খালেদঃ জিয়াউর রহমানের কথা বলছ তো? আমি জানি ইয়াসির আরাফাত ও জিয়াউর রহমান ঘনিষ্ট বন্ধু ছিল। অনেক ছবি দেখেছি, দেশে থাকতে। তখন কি ভাবতাম জানো?
আমিঃ কি?
খালেদঃ তোমাদের গরীব হলেও একটা দেশ আছে। আমাদের সেটাও নেই।
ওর কথা শুনে আমার মনটা খারাপ হয়ে গেল। বললাম
আমিঃ হবে হবে। একদিন তোমাদেরও দেশ হবে।
আমার মন খারাপটা খালেদ বুঝতে পারলো। তাই পরিবেশ পুনরায় হালকা করার জন্য বলল।
খালেদঃ বাদ দাও, দুই কাপ চা খাব, চিনি বেশী করে দেবে?
আমিঃ মিল্ক দেব?
খালেদঃ নাহ্‌, ইংলিশ টি আমি খাইনা।

খালেদ বসে থাকতে থাকতেই স্ভেতা এলো। প্রবল জ্বরে পড়েছে, এরকম টাইট মুখভঙ্গি নিয়ে বলল।
স্ভেতাঃ এই নাও চাবি, পাঁচতলায় ৮৮ নং রূম তোমার নামে বরাদ্ধ করা হয়েছে। এই রূম ছেড়ে দিয়ে চাবিটা আমার হাতে দিয়ে দিও। দুদিন সময় দিলাম।
আমার হাতে চাবি দিয়ে ঘুরে দাড়ানোর সময় মুখ বেকিয়ে বলল,
স্ভেতাঃ তোমার হাত অনেক দূর পর্যন্ত লম্বা রিমন। উপরওয়ালা তোমাকে দুটা জিনিস দিয়েছে, একটা হলো সৌভাগ্য আরেকটা হলো মাথা। এই দুয়ের কল্যাণে অনেক দূর যেতে পারবে তুমি।

স্ভেতা চলে যাওয়ার পর খালেদ অট্টহাস্য দিয়ে উঠলো।
খালেদঃ হা হা এই প্রথম ঘাট খেয়েছে ও। ঘুষ ছাড়া কোন কাজ করেনা। এখন বুঝবে সবার কাছ থেকে ঘুষ চলেনা।
আমিঃ তোমাকে আর নাতাশাকে ধন্যবাদ।
খালেদঃ আরে রাখো ক’বার ধন্যবাদ দেবে? এখন প্রস্তুতি নাও। কবে যাবে নতুন রূমে?
আমিঃ আজই যাবো। এই ভুতের রূমে আর নয়।
খালেদঃ ঠিক আছে আজই যাও। তোমাকে মাল টানতে হেল্প করব আমি।
আমিঃ আরে না না। তোমাকে কিছু করতে হবেনা। আমি ম্যনেজ করে নেব।
খালেদঃ কাউকে না কাউকে তো লাগবেই। আমি আসবো সমস্যা নেই। ডিনারের পরে করি কাজটা?
আমিঃ ওকে। প্রবলেম সলভ্ড, আমি এখন অন্য কথা ভাবছি।
খালেদঃ কি কথা?
আমিঃ আমি না হয় এখান থেকে রেহাই পেলাম। কিন্তু তারপর? এরপর এখানে কাকে পাঠাবে? যাকে পাঠাবে সেও যদি আমার মত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়?
খালেদঃ তা জানিনা। স্ভেতাকে এখানে পাঠাতে পারলে ভালো হতো। ভুতে যদি চেপে ধরত তাহলে ওর দুর্নীতি কমত।
হা হা হা সমস্বরে হেসে উঠলাম দু’জনেই।

স্যুটকেস গোছাতে শুরু করলাম। দ্রুত করতে হবে। আজ রাতটা কিছুতেই এখানে কাটাতে চাইনা। স্যুটকেস গোছাতে গোছাতে হঠাৎ স্যুটকেসের পকেটে আবিষ্কার করলাম জিনিসটা। একটা কার্ড সাইযের পলিথিনের প্যাকেট, তার ভেতরে পেচিয়ে রাখা একটি লম্বা কালো চুল। লুবনার চুল । বিদেশে আসার সময় এই উপহারটি ও আমার হাতে তুলে দিয়েছিল। সেই থেকে আমার সাথে আছে।

birch-tree4-walkwayবার্চ গাছের সারি

বিষন্ন বিরিওজা – ৪
—————————-

জানালা গলে আলো এসে চোখে পড়ল, নতুন রূমের প্রথম ভোরের আলো। ভোরের কচি রোদ এসে পড়েছে জানালার টবে রাখা রঙিন অর্কিডগুলোর গায়ে। অর্কিডগুলোর কোন কোনটায় রাতের ঝরে পড়া দুএকটা শিশিরবিন্দু এখনো লেগে আছে। সুর্যের সোনালী আলো প্রতিফলিত হয়ে রংধনুর সাত রং ঠিকরে দিচ্ছে ঐ শিশিরবিন্দুগুলো। খোলা জানালা দিয়ে বয়ে আসছে ঝিরঝিরে দক্ষিণা হাওয়া। দূরের আকাশে কিছুক্ষণ আগে উঠেছে গনগনে লাল সূর্যটা। গতরাতটা মোটেও আতঙ্কে কাটেনি, বরং ঘুম হয়েছে বেশ নির্বিঘ্ন। ফুরফুরে মন নিয়ে উঠেছি বলেই বোধহয় সূর্যটাকে এত সুন্দর মনে হলো।

এখানেও জানালার একপাশে কিছু গাছের পাতা চোখে পড়লো। ইন ফ্যাক্ট, পাতাগুলো জানালার উপর হুমরি খেয়ে পড়েছে, হাত বাড়ালেই ছোঁয়া যাবে। কাছে এগিয়ে বোঝার চেষ্টা করলাম কি গাছ। যা ভেবেছিলাম তাই, একটি বড়সড় বিরিওজা গাছ। এই বিরিওজা গাছ কি আমার পিছু ছাড়বে না? মনে মনে অবশ্য খুশিই হয়েছি। জানালার বাইরে আকাশ অথবা গাছ না থাকলে মন ভালো লাগেনা। এই রুমটির জানালার বাইরে দুটাই আছে।

রূমটার নাম্বার ৮৮ । শুধু নাম্বার দিয়ে চলবে? শুধু নাম্বারে কেমন কাটখোট্টা মনে হয়। রূমটার একটা নাম থাকা দরকার। তাহলে বেশ কাব্যিক হবে। আমাদের কলেজের মাজহারুল হক স্যার এটা শিখিয়েছিলেন, কলেজের যে হোস্টেলের তিনি হাউস মাস্টার ছিলেন, তার প্রত্যেকটা রূমের একটা নাম দিয়েছিলেন। খুব সুন্দর সুন্দর নামে উনার হাউসটা একেবারে কাব্যিক হয়ে উঠেছিলো। আমারও সখ জাগলো এই রূমটির একটা নাম দেয়ার। কি নাম দেয়া যায়? বাস্তবতার সাথে মিল রেখে নামটা দেব? ঢাকায় একটা জায়গার নাম ভুতের গলি। শুনেছিলাম, কোন এক কালে নাকি সেখানে ভুতের উপদ্রব ছিল। আমার আগের রূমটার নাম ‘ভুতের রূম’ দিলে মোক্ষম হবে। এই রূমটার নাম ‘অভুতের রূম’ দিব? হাঃ, হাঃ, হাস্যকর মনে হবে। বাইরে বিরিওজা গাছ আছে, এর সাথে মিলিয়ে নাম দিয়ে ফেলি, ‘জানালার বাইরে বিরিওজা’, না বেশ বড় নাম হয়ে যায়। আরেকটু ছোট করা দরকার। এই কয়দিনের ভয়-ভীতি উৎকন্ঠার পর, এখন মনটা বেশ উৎফুল্ল মনে হচ্ছে। তাহলে নাম দিয়ে ফেলি – ‘উৎফুল্ল বিরিওজা’। খারাপ না আপাততঃ এই নামে চলবে, প্রয়োজন হলে পরে নাম পাল্টে ফেলা যাবে, এতো আর মানুষের নাম না যে পাল্টানো যাবেনা।

টুক টুক টুক। দরজায় নক করার শব্দ পেলাম। কে হতে পারে? এত সকালে! পরিচিত কেউই হওয়ার কথা। বিছানা ছেড়ে উঠে দরজা খুললাম। হাসি হাসি মুখ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে সাশা কাসতুচেনকা।

সাশাঃ কি, কেমন ঘুম হলো?
আমিঃ সাউন্ড স্লীপ।
সাশাঃ খারাশো! এতা রাদুয়েত (ভালো, এটা আনন্দের ব্যাপার)।
আমিঃ আসো ভেতরে আসো।
সাশা ভিতরে ঢুকে একটা চেয়ারে বসলো। আমি ডিভানটা গুছানো শুরু করলাম।

আমিঃ ব্রেকফাস্ট করেছ?
সাশাঃ করেছি।
আমিঃ না করলে আমার সাথে কর।
সাশাঃ না না, আমি ব্রেকফাস্ট করেছি।
আমিঃ তাহলে আমার সাথে চা খাও।
সাশাঃ তা খাওয়া যেতে পারে। চা খাওয়ায় আমার কখনো অরুচী হয়না।
আমিঃ হু, হু, তোমাদের রাশানদের বেশীরভাগই বলে, ‘ভদকা খাওয়ায় আমার কখনো অরুচী হয়না’।
সাশাঃ হ্যাঁ, তা ঠিক। তবে আমি যেহেতু এ্যলকোহল খাইনা। সুতরাং ঐ কথা বলার সুযোগ নাই।
আমিঃ এ্যলকোহল শব্দটা কিন্তু আরবী।
সাশাঃ তাই নাকি?
আমিঃ হ্যাঁ। কোহল শব্দের সাথে আল আর্টিকেলটি ব্যবহৃত হয়েছে। পরবর্তিতে শব্দটি বিভিন্ন ভাষায় ঢুকে গিয়েছে। ইংরেজী ও তোমাদের ভাষায় যেমন।
সাশাঃ ইন্টারেস্টিং, জানতাম না।
আমিঃ তুমি কিন্ত বেশ একসেপ্‌শন।
সাশাঃ এ্যলকোহল পান করিনা বলে?
আমিঃ সেরকমই। তোমাদের মধ্যে তো এরকম নেই। কম পান করে এমন অনেককেই জানি। কিন্তু একেবারেই পান করেনা, এরকম তোমাকেই প্রথম দেখলাম।
সাশাঃ আমার বাবাও এ্যলকোহল পান করেন না।
আমিঃ বাহ্‌। যোগ্য পিতার যোগ্য সন্তান।
সাশাঃ অবশ্য আমার ছোটভাইটি পান-টান করে।
আমিঃ তোমার ছোটভাই আছে নাকি?
সাশাঃ আছে তো।
আমিঃ কোথায় থাকে?
সাশাঃ গ্রামেই। ওখানে কাজ করে।
আমিঃ পড়েনা?
সাশাঃ না। স্কুল শেষ করেছে। তারপর আর পড়েনি। চাকরীতে ঢুকে গেল।
আমিঃ হায়ার এডুকেশন নিলে ভালো হতোনা?
সাশাঃ আমি মনে করি ভালো হতো। ওতো মনে করেনা। চাকরীতে ঢুকে গেল। একটা মেয়ের সাথে প্রেম হয়েছে। বিয়ে করবে সামনের সামারে।
আমিঃ হায়ার এডুকেশন ছাড়া কি চাকরীতে ভালো বেতন হয়?
সাশাঃ তেমন পার্থক্য নেই। তুমিতো জানো, মাত্র সমাজতন্ত্রের খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এসেছি আমরা। সমাজতান্ত্রিক সমাজে শিক্ষিত আর অল্পশিক্ষিতদের মধ্যে বেতনের পার্থক্য কম। তাই কেবল মাত্র অর্থনৈতিক কারণে হায়ার এডুকেশনের দিকে ঝোঁক নাই কারো।
আমিঃ এতে তো সমাজের ক্ষতি হয়।
সাশাঃ তা তো হয়েছেই। তুমি কি ভাবো, এদেশের সবাই সমাজতন্ত্রকে সমর্থন করতো?
আমিঃ করতো না?
সাশাঃ অবশ্যই না। যেমন আমার দাদা করতেন না। কম্যুনিস্টদের দ্বারা নির্যাতিতও হয়েছিলেন আমার দাদা। আমরা পুরো পরিবার তাই সমাজতন্ত্র বিরোধী ছিলাম।
আমিঃ আশেপাশের লোকে জানতো?
সাশাঃ ওরেব্বাস! সে কথা ওপেনলি বলার কি আর জোঁ ছিল! টিকটিকির কোন অভাব ছিলনা তখন। জানলে পরে সোজা চৌদ্দ শিকের ভিতর নিয়ে ঢোকাতো কম্যুনিস্ট সরকার।
আমিঃ এখন তোমরা খুশী?
সাশাঃ অবশ্যই খুশী। এট লিস্ট, মন খুলে কথা বলতে পারছি। যাহোক বাদ দাও। দেখি তোমার রূমটার পজিশন কেমন।
সাশা এগিয়ে গেল জানালার দিকে। বাহ্‌! এখান থেকে ভিউটা তো চমৎকার! আমার রূমটাও এই সাইডে, কিন্ত দোতলা বলে কোন সুন্দর ভিউ পাওয়া যায়না।
আমিঃ বসো, টেলিভিশন দেখো। আমি দ্রুত ফ্রেশ হয়ে নেই। তারপর চা-নাশতা খাব।
সাশাঃ ওকে।
আমি অল্প সময়েই ফ্রেশ হয়ে নিলাম। দ্রুত ব্রেকফাস্ট আর চা রেডী করলাম। ব্রেকফাস্ট বলতে ডিমভাজী, ব্রেড, বাটার, স্মিতানা আর চা।
আমিঃ আয়োজন সামান্য। স্টুডেন্টস ব্রেকফাস্ট ।
সাশাঃ রিমন! আমি তোমার রুমে এই প্রথম? যা আছে ভালোই আছে। আমি কি এর চাইতে ভালো খাই? (একটু লাজুক হেসে বললো) তবে পরিমানে একটু বেশী খাই, আরকি।
আমিঃ তোমার এই বিশাল শরীরে (আমার তিনগুন হবে) বেশী খাবার তো লাগবেই।
সাশাঃ হা হা হা, তাঠিক।
আমিঃ তোমাদের ফুড প্রোডাক্টগুলো কিন্তু খুবই ভালো। আমাদের দেশে সব ভেজাল।
সাশাঃ কি বলো? ট্রপিকাল কান্ট্রিতে তো ফ্রেশ খাবার-দাবার থাকার কথা।
আমিঃ থাকার কথা, কিন্তু আমাদের গুনধর রাজনীতিবিদ ও ব্যবসায়ীদের কারণে, আমরা ভেজালের যুগে বসবাস করি।
সাশাঃ নট গুড।
আমিঃ এই যে বাটারটা দেখছ। এটার পুস্টিগুন অনেক বেশী, তাই এর রং গাঢ় হলুদ এমনকি অনেকটা কমলা রঙের। আমাদের দেশে বাটার ফ্যকাশে। তারপর এই স্মিতানা, এটা আমাদের দেশে নাইই।
সাশাঃ নাই মানে?
আমিঃ নাই মানে, নাই। আমি এই দেশে এসে প্রথম দেখলাম। আমাদের দেশে দই নামে কাছাকাছি একটা কিছু আছে, সেটা স্বাদ চমৎকার হলেও পুস্টিগুন তোমাদের স্মিতানার ধারে কাছেও না।
অনেকটা মর্মাহত ভঙ্গিতে চায়ে চুমুক দিলো সাশা।

টুক টুক টুক। আবারো দরজায় আবারো আওয়াজ। কামিং (বললাম আমি) দরজা খুলে ঢুকলো প্যালেস্টাইনের খালেদ ।

আমিঃ ওহহো, ওয়েল কাম, ওয়েল কাম।
খালেদঃ কেমন লাগছে নতুন রূম? নাকি ভুত তোমার পিছু পিছু এখানেও চলে এসেছে?
সাশাঃ হাঃ হ্‌ হাঃ! রিমনের প্রেমে পড়লে ভুত এখানেও চলে আসবে।
আমিঃ আপাততঃ মনে হচ্ছে প্রেমে পড়েনি। রাতে সাউন্ড স্লীপ হয়েছে।
সাশাঃ প্রেমে পড়লেই ভালো হতো। ভুতের সাথে প্রেম তো আর সচরাচর হয়না। একটা কাহিনীই হতো বটে!
আমিঃ হাঃ হাঃ হাঃ! ভালো বলেছ। তোমার প্রেমের খবর কি? ছোট ভাই প্রেম করে বিয়ে-শাদি করার প্রস্তুতি নিচ্ছে, আর তোমার এখন পর্যন্ত কোন গার্ল ফ্রেন্ডই নেই।
খালেদঃ কি বলো! সাশা তোমার গার্ল ফ্রেন্ড নেই! রেয়ার, রেয়ার, রাশানদের মধ্যে ভেরি রেয়ার কেস।
সাশাঃ তোমারও তো নেই রিমন। তোমার সাথে আমার কিন্তু বেশ মিল আছে। আমি মদ্যপান করিনা, তুমিও করোনা, আমার গার্ল ফ্রেন্ড নেই, তোমারও গার্ল ফ্রেন্ড নেই।
খালেদঃ হ্যাঁ, দুজনেই সহজ-সরল, সাদা মনের মানুষ। আমি অবশ্য তোমাদের মত না। স্বাভাবিক মানুষ, মদ খাই, গার্ল ফ্রেন্ড আছে।
আমিঃ গার্ল ফ্রেন্ড আবার বানিয়েছ নাকি?
খালেদঃ (লজ্জ্বা পয়ে) না, মানে, গার্ল ফ্রেন্ড ছিল, সে এখন স্ত্রী হয়ে গিয়েছে।
সাশাঃ স্ত্রী-র অজান্তে গোপনে আবার গার্ল ফ্রেন্ড-ট্রেন্ড বানাও নাই তো?
খালেদঃ না ভাই! বিয়ের পর ঐ অভ্যাস পরিত্যগ করেছি। এখন একান্ত পত্নিনিষ্ঠ ভদ্রলোক।
আমিঃ বাহ্‌, বেশ। এটাই ভালো।
খালেদঃ ভাবলাম, বিয়ের আগে যা হয়েছে হয়েছে। বিয়ের পর ক্লীন থাকবো।
সাশাঃ চা খাওয়া শেষ। চলো বাইরে বের হই।
খালেদঃ কোথায়?
আমিঃ এই আশেপাশেই।
খালেদঃ সুন্দরীদের খোঁজে?
সাশাঃ না জাস্ট ঘোরাফেরা আরকি।
খালেদঃ আর কত একা একা ঘোরাফেরা করবে, এবার জালে দু একটা আটকাও।
আমিঃ সাশা জাল ফেলতে পারেনা। সবাই কি আর জেলে! (কপট হাসি হাসলাম)।
খালেদঃ হু, আমাকে কটাক্ষ করা হচ্ছে। তা একসময় জাল ফেলেছি অনেক। এখন স্টপ, একদম স্টপ। এবার তোমাদের পালা। জাল ফেলতে না পারলে প্র্যাকটিস করো। আস্তে আস্তে রপ্ত হয়ে যাবে।
সাশাঃ মাছ যদি ধরা না দেয়?
খালেদঃ তোমরা অভিজ্ঞতাহীন। আমার অভিজ্ঞতা থেকে বলছি। মাছ কিন্তু ধরা পড়ার জন্যই সাঁতরে বেড়ায়।
হাঃ হাঃ হাঃ, সবাই কোরাসে হাসলাম। এরপর আমরা বাইরে বের হলাম। খালেদ আমাদের সাথে এলো না। আমরা দুজনে ঘুরতে বের হলাম।

খারকভ শহরটি অনেক বড়। ৩১০ বর্গকিলোমিটার ক্ষেত্রফলের শহরটিতে মোট জনসংখ্যা দেড় মিলিয়ন। শহরটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১৬৫৪ সালে। এক সময় এটি সোভিয়ত ইউক্রনের রাজধানী ছিল। এখানে মোট ৬০ টি বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট, ৩০ টি বিশ্ববিদ্যালয়, ৬ টি যাদুঘর, ৭ টি থিয়েটার ও ৮০ টি লাইব্রেরী রয়েছে। এত বেশী সংখ্যক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকার কারণে তরুণ-তরুণীদের সংখ্যাও এখানে অনেক, তাই একে তারুণ্যের শহরও বলা হয়। খারকভ শহরের আরেকটি খ্যাতি রয়েছে, বিশ্বের বৃহত্তম জেলখানা এখানে আছে।

সোভিয়েত শহরগুলোর রাস্তাগুলো অদ্ভুত সুন্দর। চওড়া রাস্তা তার দুপাশে গাছের চওড়া ফুটপাত। দুপাশের দুই ফুটপাতের পাশেই দুই সারিতে অর্থাৎ পুরো রাস্তায় মোট চার সারিতে গাছ। পথচারিরা নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারে। ফলে পথও অত্যন্ত নিরাপদ। শহরের যোগাযোগের ব্যবস্থা সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্যান্য শহরের মতই চমৎকার। মাটির উপরে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট হিসাবে চলছে বাস, ট্রলিবাস (বিদ্যুৎ চালিত), ট্রাম, আর মাটির নীচে রয়েছে ৩৮ কিলোমিটার দীর্ঘ আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রো (সাবওয়ে), যার স্টেশন সংখ্যা ২৯ টি। যোগাযোগের খরচও খুব কম। কম্যুনিস্ট আমলে মাত্র তিন রুবল দিয়েই একটা মান্থলি কার্ড পাওয়া যেত, তাই দিয়ে আপার ও আন্ডারগ্রাউন্ড সকল পাবলিক ট্রান্সপোর্টে সারা মাস চলা যেত। এখন কিছুটা বেড়েছে তারপরেও খুবই কম। তাই আমরা মনের আনন্দে ঘুরতে পারি, যেখানে খুশী যেতে পারি।

আমি আর সাশা ঠিক করলাম আজকে মেট্রোতে চড়ে কয়েকটি স্টেশনে যাব, ঐ এলাকাগুলো ঘুরে ঘুরে দেখবো। সারাদিন ঘোরাঘুরি করলাম। বিভিন্ন মেট্রো স্টেশনে নামলাম। আশেপাশে ঘুরলাম। লাঞ্চ টাইমে একটা ক্যাফেতে বসে মুরগীর গ্রীল খেলাম। ইদানিং ক্যাফেগুলো ভালো চলতে শুরু করেছে। মাঝখানে সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙনের ঠিক পরপর করুণ অবস্থা হয়েছিলো। কোথাও কোন ক্যাফে বা ক্যন্টিন ঠিকমতো কাজ করছিলো না। যাহোক ঘোরাঘুরি বেশ হলো। সন্ধ্যার দিকে মেট্রোতে চড়ে ডরমিটরির দিকে রওয়ানা হলাম। যেতে যেতে আলাপ হচ্ছিলো
আমিঃ আজ বেশ ঘোরাঘুরি হলো।
সাশাঃ হ্যাঁ, আমিও বেশ এনজয় করেছি। সাইট সিয়িং ভালো লেগেছে।
আমিঃ তুমি তো এদেশেরই, তোমার জন্য তো নতুন কিছু না।
সাশাঃ না ঠিক তা না। আমি এদেশের হলেও খারকভের না। আমি গ্রামের ছেলে। তাই খারকভে যা দেখছি তা তো আমার কাছে নতুনই।
আমিঃ সব চাইতে বেশী কি এনজয় করেছো?
সাশাঃ বলবো?
আমিঃ বলো।
সাশাঃ মেয়েদেরকে দেখা।
আমিঃ হাঃ হাঃ।
সাশাঃ কেন তুমি এনজয় করো নাই?
আমিঃ কেন এনজয় করব না? আমি তো তোমার মতই পুরুষ মানুষ। তাছাড়া যা সুন্দরী তোমার দেশের মেয়েরা। তার উপরে স্মার্ট, পোষাক-আশাক ফ্যাশনেবল।
সাশাঃ তারও উপরে এখন, সামার। মেয়েরা বেশ শর্ট ড্রেসে চলাফেরা করে। বেশীরভাগই তো মিনি স্কার্ট পড়া।
আমিঃ হু।
সাশাঃ হু কি? লক্ষ্য করোনাই?
আমিঃ চোখ যেহেতু আছে লক্ষ্য তো করবোই।
সাশাঃ হাঃ হাঃ, চলো নেমে যাই, আমাদের স্টেশন চলে এসেছে।

ডরমিটরিতে ফিরতে ফিরতে অন্ধকার হয়ে এলো। রূমে ফিরে এসে দেখলাম আমার রূমের সামনে অপু আর কবীর ভাই দাঁড়িয়ে আছে।
এই অপু ছেলেটাকে আমি ভীষণ অপছন্দ করি। ছেলেটা খারকভে থাকে কিন্তু পড়ালেখা কিছু করেনা। ওর বড়ভাই কার্তিক সিভিল ইন্জিনিয়ারিং পড়ে। ছোট ভাইকে এখানে নিয়ে এসেছে। দেশে সম্ভবত বখে যাচ্ছিল, কোন গতি করার জন্য এখানে এনেছে। এখানেও পড়ালেখা ও করতে পারছে না, পারার কথাও না, বাংলাদেশেই পারলো না, আর এই উন্নত দেশের পড়ালেখা বোঝার যোগ্যতা ওর কোথায় ঘটে কিছু থাকতে হবে তো।ও টুকটাক কাজটাজ কিছু করে। জিজ্ঞেস করলে বলে, “বিজনেস করি”। কি বিজনেস যে করে কে জানে। কয়েক বছর যাবৎ খারকভে এই সমস্যা হচ্ছে। একসময় ভালো ছাত্র ছাড়া সোভিয়েত ইউনিয়নে স্কলারশীপ নিয়ে আসা সম্ভব ছিলনা। একেবারে ব্যতিক্রম কিছু যে ছিল না তা নয়। কম্যুনিস্ট পার্টি বা মিনিস্ট্রির মামা চাচার জোরেও দুএকজন এসেছিলো তারপরেও মিনিমাম একটা লেভেল ছিলো। এখন সেল্ফ ফাইনান্স বেসিসে পড়ালেখা চালু হওয়ায়, অনেক গরু-গাধাও প্রবেশ করছে। আবার কেউ কেউ দেশ থেকে শুধু এক বছরের টাকা নিয়ে এখানে আসে, আশা করে বাকী খরচ এখান থেকেই তুলতে পারে। যেটা আদতে সম্ভব হয়না। এবং ওদের শিক্ষা জীবনও ফার্স্ট ইয়ারেই শেষ হয়ে যায়।

কবীর ভাই বয়সে আমার বড়। কিন্তু পড়ালেখায় আমার জুনিয়র। দেশে থাকতে বাম রাজনীতি করতেন। রাজনীতিতে এতই বুদ হয়ে ছিলেন যে এইচ, এস, সি, পরীক্ষায় পেয়েছেন তৃতীয় বিভাগ। তারপর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সুযোগ ছিল না। ইচ্ছাও ছিল বলে মনে হয়না। পড়ালেখা সব শিকেয় তুলে দিয়ে রাজনীতি করতেন। বাবার হোটেলে খেয়ে বনের মোষ তাড়াতেন। কোন এক নেতার দ্বারা সম্মোহিত হয়েছিলেন, যিনি তাদের বোঝাতে এইসব প্রাতিষ্ঠানিক পড়ালেখা কিছুনা। আসল পড়ালেখা হয় আমাদের লাইব্রেরীতে। কম্যুনিস্ট বিপ্লবের উপর পড়ালেখা হয় এখানে। তোমরা বিপ্লব করবে, সমাজ পরিবর্তন করবে, সেই বিষয়ে মনযোগ দিয়ে পড়ালেখা করবে আমাদের লাইব্রেরীতে। চোখে রঙিন স্বপ্ন নিয়ে কবীর ভাই ও তার বন্ধুরা সেই পড়ালেখা করতেন। এদিকে তাদের পুরাতন ক্লাসমেটরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রী কমপ্লিট করে, মাস্টার্স-এ ভর্তি হয়েছে। এসময় সোভিয়েত ইউনিয়নের পতন ঘটলো। সারা বিশ্বের বামপন্থীরা হতবাক হয়ে দেখলো, কেমন তাসের ঘরের মতো ভেঙে গেল তাদের আদর্শের প্রিয় রাস্ট্র সোভিয়েত ইউনিয়ন। কবীর ভাইয়ের মত কর্মীরা মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়লেন – তাহলে কি এতকাল তারা যা বিশ্বাস করে এসেছেন সব ভুল? তাদের নেতারা কি তাদের সব ভুল শিখিয়েছে? নাকি তারা ইচ্ছাকৃতভাবেই দাবার গুটির মত তাদের ব্যব হার করেছে? হায়রে যে বিপ্লবের জন্য আমরা সব কিছু বিসর্জন দিলাম, সেই বিপ্লবও হলোনা, আর নিজের তো কিছু হলোইনা।

অপু ও কবীর ভাই আমাকে দেখে উল্লসিত হয়ে উঠলো।
কবীর ভাইঃ কেমন আছেন?
অপুঃ অনেকক্ষণ যাবৎ অপেক্ষা করছি বস।
আমিঃ বাইরে গিয়েছিলাম। কেমন আছেন আপনারা?
কবীর ভাইঃ ভালো, আপনি কেমন আছেন?
অপুঃ আমি আছি কোনরকম। যে অবস্থা।
আমিঃ আসুন ভিতরে আসুন।

রূমের দরজা খুলে সবাই ভিতরে ঢুকলাম। উনারা ডিভানে বসলেন। আমি ইলেকট্রিক কেট্‌লে পানি চাপালাম, চা বানানোর জন্য।
স্রেফ আড্ডা দিতে উনারা এসেছেন, শুরু হলো নানা কথাবার্তা। আমরা বাংলাদেশীরা এক জায়গায় হলে রাজনীতির আলাপ না করে পারিনা।

কবীর ভাইঃ কি অবস্থা বলেন তো? এদেশের রাজনৈতিক অবস্থা কিরকম?
অপুঃ দুরো রাজনৈতিক অবস্থা! আপনি আছেন রাজনীতি নিয়ে। এদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ।
আমিঃ রাজনৈতিক অর্থনৈতিক দুটা অবস্থাই খারাপ।
কবীর ভাইঃ কম্যুনিস্টারা ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর পরিস্থিতি কেবল খারাপের দিকেই যাচ্ছে, তাইনা?
অপুঃ শুনেন কম্যুনিস্ট-ফমুনিস্ট না, অবস্থা এম্নিই খারাপ।
কবীর ভাই বিরক্ত দৃষ্টিতে ওর দিকে তাকালো। আসলে অপু নির্জ্ঞান একটা ছেলে। লিটারারী আলাপে ওর অংশগ্রহন বেমানান। কিন্তু ও ওর লিমিটেশন বোঝেনা। বুদ্ধিমান মানুষ সেই যে নিজের লিমিটেশন বোঝে। অপু বোকা তাই নিজের লিমিটেশন বোঝনা, উপরন্তু বুদ্ধিমান সাজার চেষ্টা করে।

আমিঃ আপনি কম্যুনিস্ট মানুষ, কম্যুনিস্টদের প্রতি আপনার সফ্‌ট কর্ণার থাকারই কথা। আসলে বিষয়টা বোধহয় সেখানে না।
কবীর ভাইঃ তাহলে কোথায়?
আমিঃ এদেশে এখনঝাই করাপশন। লুটতরাজ বেশী হচ্ছে।
কবীর ভাইঃ কে করছে লুটতরাজ? কি করে করছে?
আমিঃ ক্ষমতাসীনরাই লুটতরাজ করছে। তাদেরই সুযোগটা বেশী থাকে।
কবীর ভাইঃ কিভাবে করছে?
আমিঃ নানা পথে করছে। ক্ষমতাসীনরা বুদ্ধিমান হয়, পথঘাট তাদের জানা থাকে, অনেক সময় নিজেরাই পথ তৈরী করে নেয়।
কবীর ভাইঃ ডিটেইলস বলতে পারবেন?
আমিঃ আমি একজন সাধারণ ছাত্র, তাও বিদেশী, কতটুকুই আর বুঝি বলেন।
অপুঃ আরে, বাঙালী যত ছাত্র আছে খারকভে, এদের মধ্যে আপনার মাথায়ই কিছু মাল-মশল্লা আছে।
আমিঃ অপু আবার বেশী বলে ফেলছে। যাহোক, আমি যা বুঝি, লুটতরাজের একটা উপায় হচ্ছে প্রাইভেটাইজেশন।
কবীর ভাইঃ কম্যুনিজম যেহেতু নাই প্রাইভেটাইজেশন তো হবেই।
আমিঃ হ্যাঁ, এখানেই লুটতরাজের একটা সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। ক্ষমতাসীনরা, একটা বিশেষ কৌশলে সবকিছু নিজেদের নামেই করে নিচ্ছে।
কবীর ভাইঃ কিন্তু সেটা করছে কি করে?
আমিঃ অনেকটা আমাদের দেশের এরশাদী স্টাইলে।
কবীর ভাইঃ কি রকম?
আমিঃ এরশাদ যেমন বিজাতীয়করণের নামে রাষ্ট্রায়ত্ত অনেক প্রতিষ্ঠান নাম মাত্র মূল্যে তার চামচাদের হাতে তুলে দিয়েছিলো, সেরকম আরকি।

কবীর ভাই একটু বিমর্ষ হলেন। কিছু বলতে যাবেন এই সময় অপু বললো,

অপুঃ হা হা হা এরশাদ! এই এরশাদ বুঝলেন, যা করছে! কবীর ভাই আবারো বিরক্ত চোখে ওর দিকে তাকালেন। তবে এবার মনে হলো তিনি আক্রমণাত্মক কিছু বলবেন।

কবীর ভাইঃ কি, এরশাদ আবার কি হলো?
অপুঃ আরে এরশাদকে নিয়ে কত কাহিনী!
কবীর ভাইঃ কিসের আবার কাহিনী?
অপুঃ না, মানে কত কিছু শোনা যায়না?
কবীর ভাইঃ কি শোনা যায়?
অপুঃ ঐ যে নারী ঘটিত কত কিছু।
কবীর ভাই মনে হলো মনে মনে একটু ক্ষেপেই গিয়েছেন। কারণ অপু নিজেই ঐ চরিত্রের। সোভিয়েত ইউনিয়নে আসার পর থেকে, যত সব বাজারের মেয়েমানুষ নিয়ে ওর কেচ্ছা-কাহিনী। তার মুখেই আবার সমালোচনা শুনে কবীর ভাইয়ের মেজাজ তিরিক্ষি হয়ে গেল।
কবীর ভাইঃ তা এরকম মানুষ কি কম আছে নাকি? (সরাসরি অপুকে আক্রমণ না করে ইনডায়েরেক্টলি বললেন)
অপুঃ না মানে অনেক কিছু সোনা যায় এরশাদ সম্পর্কে।
কবীর ভাইঃ তা এরকম মানুষ কি কম আছে?
অপুঃ কিন্তু এরকম করা তো ঠিক না।
(ভুতের মুখে রামনাম শুন মনে মনে আমিও বেশ কৌতুক অনুভব করলাম। এবং নীরবে শুনতে লাগলাম, তাদের কথপোকথন কোনদিকে যায়।)

কবীর ভাইঃ শুনেন অপু। এরশাদের কাছে মেয়েরা যাবেনা কেন বলুন? প্রথমতঃ এরশাদ অত্যন্ত ক্ষমতাবান একজন ব্যক্তি। দ্বিতীয়তঃ তিনি সুদর্শন। তৃতীয়তঃ তিনি অসম্ভব ধনী। সুতরাং তার কাছে মেয়েরা যাবেই। এই নিয়ে আপনার দুশ্চিন্তা না করলেও চলবে।
কবীর ভাইয়ের এরকম ঝটিকা আক্রমণে, অপু একেবারে হাবুগবু হয়ে গেল। তবু ওর ক্ষুদ্র মস্তিস্কে কবীর ভাইয়ের মিশ্রির ছুড়ি ধরতে পেরেছে কিনা সেটা হলো কথা।

পাঁচতলার ৮৮ নং রূমটা ভালোই লাগছে। এক সপ্তাহের মত হয়ে এলো ভুতের ভয় এতদিনে দূর হয়ে গেছে। সামার ভ্যাকেশন চলছে ক্লাস-ট্লাস কিছু নাই। দিনের বেলা বাইরে ঘোরাঘুরি করি। রাতে কিছু সময় টেলিভিশনে ফিল্ম দেখে আর বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিয়ে কাটে। সাশা আসে, খালেদ আসে, ইউরা আসে, মেক্সিকোর খোসে আসে, এঙ্গোলার দানিয়েল আসে, পেরুর মারিতা আর কলাম্বিয়ার খোরকে (ওরা দম্পতি) আসে। এরকম অনেকেই আসে। সবার সাথে বসে চা-টা খাই গল্প-গুজব করি, টেলিভিশন দেখি। আমার রুমটা একটা ক্লাবের মতই হয়ে গিয়েছে।

একদিন খুব ভোরে ছাদে কিসের যেন আওয়াজ শুনলাম। ঘুম ভেঙে গেল। প্রথম ধাক্কায় ভড়কে গিয়েছিলাম। আবারো ভুত নয়তো? ঘুমটা ভালোভাবে ভাঙার পর বুঝলাম, না ভুত-টুত না। সম্ভবত উপরে কেউ কিছু করছে। ছাদে তো ওঠা নিষেধ। তাছাড়া ছাদে ওঠার এক্সিটটা সবসময় বন্ধই থাকে। তাহলে বোধহয় কোন কাজটাজ চলছে। সামারে ডরমিটরিতে অনেক রকম মেরামতের কাজ চলে। কৌতুহল চেপে না রাখতে পেরে, হাতমুখ ধুয়ে ফ্রেশ হয়ে সিঁড়িঘরের দিকে গেলাম।

ডরমিটরির যে দুটো সিঁড়ি আমরা ব্যবহার করি সেগুলো পাঁচতলা পর্যন্ত। সিঁড়ি দুইটি ছাদ পর্যন্ত যায়নি। ইচ্ছাকৃতভাবেই করা হয়েছে, কারণ আইনতঃ ছাদে ওঠা নিষেধ। তাহলে কি ছাদে ওঠার কোন ব্যবস্থাই নেই? না, আছে। তার শেষ মাথায় একটা এক্সিট আছে। স্কয়ার সাইজ একটি দরজা এক্সিটটিকে আটকে রাখে। সবসময়ই দরজাটা তালাবদ্ধ থাকে। আজ আমি ঐ দিকে তাকিয়ে দেখলাম, কোন তালা নেই বরং দরজাটি খোলা, আর সেই ফাক গলে অঝোর ধারায় সোনালী রোদ ঝরে ঝরে পরে সিঁড়িঘরের আলো কয়েকগুন বাড়িয়ে দিয়েছে।খুব সিডাকটিভ মনে হলো। ভাবলাম উঠে যাই ছাদে। ছাদে ওঠা অনিয়ম, আইনে নাই, দুরো গুল্লি মারি আইনের। উঠব ছাদে, দেখবো, ডরমিটরির ছাদ থেকে চারপাশের দৃশ্যটা কেমন সুন্দর দেখা যায়। যেই ভাবা সেই কাজ। ঝটপট মই বেয়ে উঠে এক্সিটের ফাঁক গলে বেরিয়ে এলাম ছাদে।

বাহ্‌ বেশ সুন্দর তো! সামনে ছবির মত দৃশ্য। ডরমিটরির উত্তর দিকে অর্থাৎ ফ্রন্ট সাইডের একপাশে আছে একঝাক গাছপালা যার প্রথম দ্বিতীয় সারিতে আছে ঐ বিরিওজা গাছগুলো। তার পিছনে আছে আরো কিছু পাঁচতলা ডরমিটরি ও এ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিং। তারও পিছনে হালকা দেখা যাচ্ছে লেকের দৃশ্য। ঐ লেকেই কয়েকদিন আগে বেড়াতে গিয়েছিলাম। আমার কাছে মনে হয় ওটাই খারকভের সব চাইতে মনোরম জায়গা। উঁচু-নীচু ছোট-ছোট টিলায় ভরা খারকভ শহর। লেকের পিছনে টিলার পিছনে হালকা বনের দৃশ্য চোখে পড়ে কেমন স্বপ্নিল মনে হয় দিগন্তকে। দক্ষিণ দিক অর্থাৎ যেদিকটায় আমার বর্তমান রূম, সেখানে ডরমিটরির ঠিক পিছন দিকটা খালি। আসলে ওখানে একটা আন্ডারগ্রাউন্ড গ্যারেজ রয়েছে। খারকভ শহরের পশ লোকজন ওখানে তাদের গাড়ী রাখেন। তার পিছনে সারি সারি এ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিং। তবে দালান গুলো পর্যাপ্ত পরিমানে জায়গার ব্যবধান রেখে করা, ঢাকার মত গায়ের উপর গা এসে পরা দালানের মত না। দালানগুলোর ফাকে ফাকে রয়েছে বিভিন্ন রকম গাছের সারি। পূর্ব দিকেও অনুরূপ দৃশ্য, আর ঐ দিকটায় শহর অনেক দূর পর্যন্ত বিস্তৃত আমি জানি। পশ্চিম দিকে দেখা যাচ্ছে একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত গীর্জা, কম্যুনিস্ট শাসনামলে এই গীর্জা ধ্বংস করা হয়েছে। নাস্তিক শাসক ইউজেফ স্তালিন (যোসেফ স্ট্যালিন)-এর নির্দেশে এটা করা হয়েছিল। ধর্মের প্রতি কি প্রবল আক্রোশ ছিল এই কম্যুনিস্টদের। আমি মাঝে মাঝে ভাবি এই কম্যুনিস্টরা বাক স্বাধীনতার পূর্ণ সুযোগ গ্রহন করে কিন্তু ক্ষমতার আসনে বসার সাথে সাথে প্রথম সুযোগেই তারা বাক স্বাধীনতাকে হরণ করে। এত আঘাতের পরেও মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে অপূর্ব কারুকাজ করা গীর্জার চূড়াটা।

আমি আগে কখনো কবীর ভাইয়ের ডরমিটরিতে আসিনি। উনি অনেকবার বলেছিলেন। ঠিকানা দিয়েছেন কয়েকবার। আজ ঠিক করলাম কবীর ভাইয়ের ডরমিটরিতে যাবো। যেই ভাবা সেই কাজ। আতাকারা ইয়ারোশা থেকে ট্রলিবাসে উঠে গেলাম। শহর ও গাছপালার মনোরোম দৃশ্য দেখতে দেখতে দশটি স্টপেজ পর পৌঁছে গেলাম আলেকসিয়েভ্‌সকায়ার স্টুডেন্টস্‌ টাউনে। উনাদের ডরমিটরিটা হাই রাইজ। ১১ তলা। অনেকগুলো ব্লক। লিফটে করে আটতলায় উঠে গেলাম। আটটি রুমের মাঝখানে একটি কমন কিচেন আছে। ওখানে দেখলাম কবীর রান্না করছেন। আমাকে দেখে ছুটে এলেন তিনি।

কবীর ভাইঃ আরে রিমন ভাই দেখছি!
আমিঃ চলে এলাম।
কবীর ভাইঃ এযে মেঘ না চাইতে জল! কি সৌভাগ্য আমার!
আমিঃ আরে কি যে বলেন! আমরা সবাই সাধারণ মানুষ। কোনটা আপনার রুম?
কবীর ভাইঃ এই তো ডান পাশে চলুন।
রূমের ভিতরে ঢুকে দেখলাম, আশরাফ ভাই বসা। তিনিও এই ডরমিটরিতেই থাকেন। কবীর ভাইয়ের বন্ধু, একসাথেই পড়েন। আমাকে দেখে বললেন
আশরাফ ভাইঃ কি আস্চর্য্য!
আমিঃ আস্চর্য্যের কি হলো?
আশরাফ ভাইঃ ভাবছিলাম আজ একফাকে আপনার রুমে একটু যাব।
আমিঃ যাওয়া আর হলোনা, আমি নিজেই চলে এলাম।
আশরাফ ভাইঃ তাই তো দেখছি, আমাদের সৌভাগ্য!
কবীর ভাইঃ আমি ভাবতেই পারিনি যে, আপনি কখনো আমাদের রুমে আসবেন!
আমিঃ এটা বেশী হয়ে গেল কবীর ভাই। আমি কি মানুষ নই? বাহ্‌ আপনার জানালা দিয়ে বাইরের ভিউ খুব সুন্দরতো। বিল্ডিং-টিল্ডিং কিছুই তো নেই। শুধু বন আর টিলা। বেশতো!
কবীর ভাইঃ হ্যাঁ, এদিক থেকে এটাই খারকভের শেষ মাথা।
আমিঃ আমি জানতাম, এখন নিজের চোখে দেখলাম।
কবীর ভাইঃ আজ না খেয়ে যেতে পারবেন না। আপনার রুমে আমরা অনেক বার খেয়েছি। আজ আমাদের একটু খেদমত করার সুযোগ দিন।
আমিঃ আরে ওটা কিছু না। ঠিক আছে খেয়েই যাবো। আপনার রুমটা আমার ভালো লেগেছে।
কবীর ভাইঃ এভাবে একা একটা রুম আমার পাওয়ার কথা ছিল না। একা রুম পাওয়ার বুদ্ধিটা আপনিই কিন্তু আমাকে শিখিয়ে দিয়েছিলেন।
আমিঃ হু আমার মনে আছে।
আশরাফ ভাইঃ সুখে-দুঃখে আপনার পরামর্শই তো আমরা বরাবর পেয়েছি।
আমিঃ থাক, সেটা কিছুনা। এই বিদেশ বিভুঁয়ে আমরা যদি একে অপরের হাত ধরে হাত ধরে চলতে না পারি, তাহলে বাঁচবো কি করে।

রান্না-বান্নার আয়োজন শুরু হয়ে গেল। উপর তলায় শিশির ভাইকেও দাওয়াত দেয়া হলো। কবীর ভাইয়ের রূমে জমিয়ে আড্ডা বসালাম আমরা।
একটু পরে মিনহাজ ভাই এসে উপস্থিত। খারকভ কালচারাল ইনস্টিটিউটে পি, এইচ, ডি করেন। তিনি সোভিয়েতে আন্ডারগ্র্যাড করেননি। দেশে পড়ালেখা করেছেন চিটাগাং ইউনিভার্সিটিতে, এখানে পি, এইচ, ডি করতে এসেছেন, লাইব্রেরী সায়েন্সে। যারা সোভিয়েতে আন্ডারগ্রেড করেনি বাংলাদেশে করেছে, ইনাদের নিয়ে বেশ সমস্যা হয়। দেশে লেখাপড়ার মান নীচু হওয়ায়, এখানে এসে খাবি খায়। তিন বছরের জায়গায় ছয়-সাত বছর লাগে পি, এইচ, ডি করতে। মিনহাজ ভাইয়েরও একই অবস্থা, সাত বছর হয়ে গেল এখনো শেষ করতে পারছেন না। স্কলারশীপটাও জোগার করেছিলেন মিনিস্ট্রিতে কোন এক আত্মীয় ধরে। ঘুষ দিয়েছেন বলেও সোনা যায়। তবে কথা বলেন খুব বড় বড়। বাকপটুতায় ওস্তাদ। তার সাথে বসলে দুয়েক মিনিট পরেই রাজনীতির আলাপ জুড়ে দেন। চিটাগাং ইউনিভার্সিটিতে থাকাকালীন সময়ে কি কি রাজনীতি করে দেশোদ্ধার করেছেন। কোন হরতালের সময় কয়টা গাড়ী ভেঙেছেন, কোন নেতার সাথে তার কত পেয়ারের সম্পর্ক ইত্যাদি, ইত্যাদি। তথাকথিত প্রগতিশীলতার একটা ভান ধরেন।

আমাদের গল্পগুজব চলা কালে প্রিন্স ভাই এলো। বেশ ভদ্র। দাড়িওয়ালা পরহেজগার মানুষ। আমরা ঠাট্টা করে বলি, “বাবা নাম রেখেছে প্রিন্স আর আপনি হয়ে গেলেন মোল্লা। আবার খোঁজ নিলে হয়তো দেখা যাবে কারো বাবা হয়তো নাম রেখেছে মোল্লা, কিন্তু সে হয়ে গেছে প্রিন্স “। প্রিন্স ভাই হাসেন, কিছু বলে না। বুঝতে পারেন, আমরা ঠাট্টা করছি। প্রিন্স ভাই বয়সে মিনহাজ ভাইয়ের সমানই হবে। সেও দেশে পড়ালেখা করেছে । দু বছর হয় এখানে এসেছেন, তবে পড়তে আসেননি। কোন একটা ইনস্টিটিউটে নামমাত্র ভর্তি হয়ে আছেন, ভিসা ঠিক রাখার জন্যে। মূল উদ্দেশ্য ইউক্রেনকে ট্রান্‌জিট হিসাবে ব্যবহার করে জার্মানী বা ওয়েস্ট ইউরোপের কোন দেশে যাবেন। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ হওয়ায়, স্রেফ ভাগ্যের অন্বেষণে, আজকাল অনেকেই এটা করছে। খারকভ শহরেই বিশ-পচিশজন এরকম বাংলাদেশী পাওয়া যাবে।

আমরা নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করছিলাম। ছেলেরা একসাথে গল্প-গুজবে বসলে সাধারণতঃ দুটো টপিক সেখানে প্রাধান্য পায়, মেয়ে আর রাজনীতি। আমাদের এই আড্ডায় সিনিয়র-জুনিয়র একসাথে আছি তাই মেয়েমানুষ নিয়ে আলাপ করা সম্ভব না। সেকারণে রাজনীতিই প্রাধান্য পাচ্ছিলো।
মিনহাজ ভাই কথায় কথায় প্রগতিশিলতার ভাব দেখানোর জন্য ধর্মকে আক্রমণ করে কথা বলে উঠলেন। এতে পরহেজগার প্রিন্স ভাই একটু বিরক্ত হলেন
প্রিন্স ভাইঃ এভাবে কথা বলা তো ঠিক না। মানুষের আবেগ অনুভূতিকে সম্মান করা উচিৎ।
মিনহাজ ভাইঃ ফ্রীডম দরকার, ফ্রীডম
প্রিন্স ভাইঃ ফ্রীডম বলতে আপনি কি বোঝেন?
মিনহাজ ভাইঃ ফ্রীডম, আমার খুশী মত কাজ করতে পারা।
প্রিন্স ভাইঃ তাই? মনে করেন আপনি দাঁড়িয়ে আছেন, আমি আপনার পায়ের উপর একটা পারা দিলাম। আপনি প্রশ্ন করলেন, পায়ে পারা দিলেন কেন? আমি বললাম এটা আমার ফ্রীডম, আপনি কি মনে করেন যে আমি কাজটা ঠিক করেছি
মিনহাজ ভাইঃ (একটু আমতা আমতা করে) না না। ব্যপারটাতো ফিজিকাল। এখানে পুরোপরি ফ্রীডম দেয়া যায়না।
প্রিন্স ভাইঃ ও আচ্ছা এখন আপনি ফ্রীডমকে কনফাইনড্‌ করতে চাচ্ছেন। তাহলে কোন ফ্রীডম আপনি চান।
মিনহাজ ভাইঃ আমি ফ্রীডম অব স্পীচের কথা বলছি।
প্রিন্স ভাইঃ ফ্রীডম অব স্পীচ মানে কি? যা খুশী তাই বলতে পারা?
মিনহাজ ভাইঃ হ্যাঁ তাইতো।
প্রিন্স ভাইঃ যা খুশী তাই বলা কি ঠিক?
মিনহাজ ভাইঃ হ্যাঁ ঠিক
এবার প্রিন্স ভাই একটু আক্রমণাত্মক হয়ে বললো।
প্রিন্স ভাইঃ মাফ করবেন, আমি যদি বলি, আপনার বাবা একটা কুত্তার বাচ্চা ছিল, আর আপনার দাদা ছিল একটা শুয়োরের বাচ্চা, আর আপনার বৌ কি করতে জানেন?…………।
প্রিন্স ভাইকে মিনহাজ ভাই আর কথা শেষ করতে দিলেন না। চোখ-মুখ লাল করে ভীষণ ক্ষিপ্ত হয়ে বললেন,
ঃ কি যাতা বলছেন?
প্রিন্স ভাইঃ বাহ্‌, আপনিইতো এলাউ করেছেন, ‘ফ্রীডম অব স্পীচ’!
উভয়ের এরকম আক্রমণাত্মক আচরণে আমরাও একটু হকচকিয়ে গেলাম, আবার না হাতাহাতি বেধে যায়। এরপর আমি একটু নরম সুরে বললাম।
আমিঃ শুনুন, মিনহাজ ভাই কালজয়ী লেখক লেভ তলস্তয় বলেছেন, ‘লিভিং ইন দ্যা সোসাইটি, উই কান্ট এনজয় এ্যাবসোলুট ফ্রীডম’।
এবার মিনহাজ ভাই উঠে দরজা খুলে গটগট করে বেরিয়ে গেলেন।

এরমধ্যে একদিন স্টুডেন্ট টাউনে অনেক নতুন ছেলেমেয়েদের দেখতে পেলাম। প্রতি বছরই এটা ঘটে। ইউক্রেণের বিভিন্ন জায়গা থেকে ছেলেমেয়েরা ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসে। আমাদের ডরমিটরিতেও অনেককে দেখলাম। সামারে বেশীরভাগ সময় ডরমিটরি খালিই থাকে যেহেতু ছুটি কাটাতে সবাই বাড়ী চলে যায়। কিন্তু দুতিনটা দিন ভর্তিচ্ছুদের কলকাকলীতে মুখর থাকে ডরমিটরি । এদের মধ্যে থেকে যারা কোয়ালিফাই করবে তাদেরকেই এখানে দেখা যাবে সেপ্টেম্বর থেকে।

সাশা এরমধ্যে সাতদিনের জন্য গ্রামের বাড়িতে গেল। আমাকে বললো, “যাবে নাকি আমার সাথে, চলো দেখে আসি আমাদের গ্রাম”। আমি বললাম এবার থাক, ” পরে যাব কোন একসময়”। ও ঘুরে এলো। আমার জন্য নিয়ে এলে এক ব্যাগ ফল, চেরি, ভিশনা, পেরসিক, স্লিভা, ইত্যাদি। চেরি ফলটা আমি খুব বেশী পছন্দ করি। সাশা শ অন্যান্য বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে বেশ মজা করে খেলাম। দেখতে দেখতে সামার ভ্যাকেশন শেষ হয়ে গেল।

এখানে ক্লাশ শুরু হয় পহেলা সেপ্টেম্বর। সারা ইউক্রেণ জুড়ে, স্কুল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। দিনটিকে নাম দিয়েছে ‘নলেজ ডে’। আমি এই দিনটাতে ক্লাশ মিস দেইনা। খুব এনজয় করি আমি দিনটা। সবচাইতে বেশী এনজয় করে যারা নতুন ভর্তি হয়েছে তারা। সদ্য স্কুল সমাপ্ত করে বিশ্ববিদ্যালয়ে পা রেখেছে, বড় হয়ে গিয়েছে, সেই আনন্দ। নতুন জগত দেখার আনন্দ। সবচাইতে বেশী আনন্দ ঝিকিমিক করে ওঠে চোখের নতুন স্বপ্নে।

আমাদের ডরমিটরিতে স্টুডেন্ট সব ছুটি শেষে চলে এসেছে। আরও এসেছে নতুন ছাত্র-ছাত্রীরা। এই সময়টায় অনেক সিনিয়র ছাত্র বেশ তৎপর হয়ে ওঠে নতুন মেয়েদের সাথে খাতির জমাতে। রাফ ল্যগুয়েজে ওরা বলে ফ্রেশ গার্লস। ওদের মধ্যে উদ্যম থাকে কম না। ওরাও ছুটোছুটি শুরু করে ডিসকোতে যায়। এর ওর সাথে পরিচিত হয়। ধীরে ধীরে রূমে যাতায়াত শুরু হয়।

আমার উল্টা দিকের রুমে থাকে এ্যঙ্গোলার দানিয়েল। ছেলেটি খুব ভদ্র, তবে আলুর দোষ আছে। প্রায় সময়ই ওর রূমে নতুন নতুন মেয়ে দেখতে পাই। পহেলা সেপ্টেম্বরের পর প্রথম উইক এন্ড। বিকালের দিকে আমার রূমে কোন গেস্ট ছিলনা। বোরিং ফীল করছিলাম। ভাবলাম যাই একটু দানিয়েলের রূমে। দরজা নক করতেই ও দরজা খুলে আমাকে দেখেই বললো, “ওয়েলকাম, ওয়েলকাম”। আমি ভিতরে ঢুকে দেখলাম, নতুন একটি মেয়ে ওকে আগে কখনো দেখিনি। ভাবলাম এ আর এমন কি? দানিয়েলের রুমে তো প্রায়ই নতুন মেয়ে দেখা যায়। পরক্ষণেই মনে হলো। ময়েটা সেরকম নয়। খুব অল্প বয়স, এবং বেশ ভদ্র। নতুন ছাত্রী হবে বোধহয়। যা ভেবেছিলাম তাই। দানিয়েল আমাকে পরিচয় করিয়ে দিলো, “তাতিয়ানা ও রিমন, রিমন ও তাতিয়ানা। নতুন ছাত্রী ফার্স্ট ইয়ারে ভর্তি হয়েছে, আমাদের ডরমিটরিতেই রূম পেয়েছে “। ইউক্রেনীয় ললনা তাতিয়ানা ডাগর দুটি চোখ মেলে আমার দিকে তাকালো। পরক্ষণেই ও চোখ দুটি নামিয়ে নিল। একটি চঞ্চল হরিনী যেন হঠাৎ লজ্জ্বাবিধুর জড়োসড় হয়ে গেল। এদেশের মেয়েরা বেশ স্মার্ট, সাধারণত এমন করেনা। প্রথম দেখায়ই ও হঠাৎ কেন এমন লাজুকলতা হয়ে গেল? হঠাৎ কাব্য চলে এলো আমার মনে। ভাবলাম মেয়েটার একটা নাম দেয়া যাক। কি নাম দেয়া যায়? মেয়েটি বসেছিলো দানিয়েলের রূমের জানালার পাশে। ঠিক ওর পিছনেই ছিল এক সারি বিরিওজা গাছ। ইংরেজীতে এই গাছগুলোকে বার্চ গাছ বলে। সদ্য যৌবনা বালিকা বসে আছে, তার পিছনে বার্চ তরুর সারি, দৃশ্যটা খুব অপরূপ মনে হচ্ছিলো, তার সাথে মিল রেখে ওর নাম দিয়ে ফেললাম – বার্চ বনের প্রণরেনী।

বাকি পর্বগুলো (৫, ৬,৭,৮ ও ৯) পড়তে এখানে ক্লিক করুন

Categories
অনলাইন প্রকাশনা কৌতুক বিনোদন ব্যঙ্গকৌতুক ভালবাসা/প্রণয়লীলা সৃজনশীল প্রকাশনা

বাংলা কৌতুক সমগ্রঃ ২০১ থেকে ৩৩০(১৮+)

২০১)

চারটি ইনসিওরেন্স কোম্পানির মধ্যে তুমুল প্রতিযোগিতা চলছে। প্রথমটা তাদের স্লোগান ঠিক করলো – “Coverage from the cradle to the grave.”

দ্বিতীয়টি ঠিক এক কাঠি এগিয়ে বলল – “Coverage from the womb to the tomb.”

তৃতীয়টি আরেক কাঠি সরেস, বলল – “Coverage from the sperm to the worm.”

চতুর্থ কোম্পানিটি অনেক ভাবলো। ভেবে ভেবে কিছু না পেয়ে এক সময় ক্ষান্ত দিতে চাইলো। কিন্তু শেষ মুহুর্তে তারা একটা স্লোগান পেয়ে গেল – “Coverage from the erection to the resurrection.”

২০২)

চারজন লোক একটি বার এ বসে গল্প করছিলেন। হঠাৎ করে একজন উঠে ওয়াশরুম এ চলে গেল, অন্য তিনজন তখনও গল্প করতে ব্যস্ত ছিল। একসময় তারা তাদের ছেলেদের সম্বন্ধে কথা বলা শুরু করল, “সত্যি বলতে কি, আমি একটু চিন্তায়ই ছিলাম যখন আমার ছেলে বলল সে একটা গাড়ির দোকানে গাড়ি ধোয়ার কাজ করবে। কিন্তু জলদি সে সেলসম্যান হিসেবে প্রোমোশন পেল এবং এত টাকার মালিক হল যে পুরো দোকানটাই কিনে ফেলল। এখন সে অনেক ধনী এবং তার বন্ধুকে জন্মদিনে একটি মার্সিডিজ গিফট করেছে।”

দ্বিতীয় জন মাথা দোলাল তারপর বলল, “আমি আমার ছেলের ভবিষ্যৎ সম্বন্ধে কখনই নিশ্চিত ছিলাম না এমনকি যখন সে তার নিজস্ব রিয়াল এস্টেট কোম্পানি খুলে। কিন্তু এখন তার ভাগ্য খুলে গেছে। এইতো কিছুদিন আগে সে তার বন্ধুর জন্মদিনে একটা ভিলা তাকে গিফট করল।”

তৃতীয় ব্যাক্তি বলল, “আমার ছেলে শেয়ার বাজারে তার সবকিছু ইনভেস্ট করে আর ভাগ্যগুনে ত্রিশ কোটি টাকার মালিক হয়ে যায়। এখন সে কারিবিয়ানে নিজের দ্বীপ কিনে সেখানেই থাকে। এইতো সেদিন সে তার বন্ধুকে পনের লাখ টাকার শেয়ার গিফট করল।”

ইতোমধ্যে চতুর্থ লোক ওয়াশরুম থেকে ফিরে এসে শুনল অনন্যারা তাদের ছেলেদের সম্বন্ধে গল্প করছে। তখন সেও বলতে শুরু করল, “আমার স্বীকার করতেই হবে আমার ছেলে একটা অপদার্থ। সে পনের বছর আগে একটা জিমে কাজ শুরু করে আর এখন পর্যন্ত সেখানেই আছে। কিছুদিন আগে জানতে পারলাম যে আমার ছেলে সমকামী আর তার অনেকগুলো ছেলেবন্ধু (!) ও আছে।”

এটুকু শুনে বাকিরা তাচ্ছিল্যের ভঙ্গিতে তার দিকে তাকাল। কিন্তু সে বলতে থাকল, “ভালোর মধ্যে শুধু এই যে কিছুদিন আগে তার জন্মদিন ছিল আর সে একটি মার্সিডিজ, একটা ভিলা আর পনের লাখ টাকার শেয়ার গিফট পেয়েছে।”

২০৩)

দুপুরে বাসায় কেউ নেই। এক ভদ্র মহিলা কাপড় চোপড় খুলে গোসল করছেন। এমন সময় বাসার কলিং বেল বাজল। মহিলা ভাবলো, এমন দুপুর বেলায় কারও আসার কথা নয়। নিশ্চয় ফকির এসেছে। শরীর ভিজিয়েছি আবার কাপড় পড়বো? আচ্ছা কাপড় ছাড়াই লুকিং গ্লাস দিয়ে দেখি কে? যদি ফকির হয় তাহলে ভিতর থেকেই না করে দিবো ভিক্ষা দেওয়া যাবেনা। মহিলা দরজার ফুটা দিয়ে দেখেন, ফকির নয়, এসেছে পাশের বাসার অন্ধ ছেলে রাজু। মহিলা ভাবলেন, কাপড় গায়ে নেই, অন্ধ রাজুর সাথে দরজা খুলে কথা বললেও সমস্যা কি? ও তো আর দেখবেনা আমি ….। দরজা খুলে-

মহিলাঃ কি ব্যাপার রাজু তুমি এই দুপুর বেলায়, আবার তোমার হাতে মিষ্টিও দেখছি?

অন্ধ রাজুঃ জী খালাম্মা, এই মিষ্টিগুলো রাখেন, আম্মা পাঠিয়েছে।

মহিলাঃ কি কারণে মিষ্টি রাজু?

অন্ধ রাজুঃ খালাম্মা, আমি আজ সকাল থেকে দেখতে পাচ্ছি।

২০৪)

চার কাউবয় একসাথে আগুনের পাশে গোল হয়ে বসে আলোচনা করছে, সবচে’ দ্রুত কোন জিনিস।

প্রথমজন বলছে, ‘চিন্তা, বুঝলে? হাতে কাঁটার খোঁচা খেলে, কিংবা তামাকের ছ্যাঁকা খেলে কী হয়? সেটা চিন্তা হয়ে সাথে সাথে মাথায় ঘা দ্যায়!’

দ্বিতীয়জন বলছে, ‘আরে না। চোখের পাতা ফেলা হচ্ছে সবচে দ্রুত। চোখের পলক ফেলতে না ফেলতেই আবার সব আগের মতো দেখা যায়।’

তৃতীয়জন বলছে, ‘উঁহু, আলো। দ্যাখো না, সুইচ টিপতেই ঘর থেকে কিভাবে অন্ধকার সরে যায়?’

চতুর্থজন বলছে, ‘ঘেঁচু। সবচে দ্রুত হচ্ছে ডায়রিয়া।’

বাকিরা ঘাবড়ে গেলো, ‘কিভাবে, কিভাবে?’

‘গেলোবার মেক্সিকোতে গরু বিক্রির সময় ওদের তরকারি খেয়েছিলাম, বুঝলে? ব্যাটারা এতো ঝাল খায়! রাতের বেলা হোটেলের বিছানায় শুয়ে আছি, হঠাৎ পেটটা কেমন যেন করে উঠলো। তারপর আমি কোন চিন্তাও করতে পারলাম না, চোখের পাতিও ফেলতে পারলাম না, এমনকি ঘরের সুইচও টিপতে পারলাম না, তার আগেই …।’

২০৫)

এক শহুরে ভদ্রলোক একটি ফার্মহাউজ কেনার জন্য গেলো। মালিকের সাথে ফার্মহাউজ দেখতে দেখতে হঠাৎ তার নজরে পড়লো একটা বড় মৌচাক। মৌমাছিকে সে কতটা ভয় পায় তা সে মালিককে জানালো। মালিক বললো, এগুলো একটুও কামড়ায় না। কিন্তু তাতে শহুরে ভদ্রলোকের মন ভরলো না।

শেষমেষ মালিক তাকে প্রস্তাব দিলো, আপনি সব কাপড় খুলে এই গাছের সাথে দাঁড়াবেন আর আমি আপনাকে বেঁধে দিবো। এক ঘন্টার মধ্যে যদি কোন মৌমাছি আপনাকে কামড়ায় তাহলে এই ফার্মহাউজ আপনার জন্য ফ্রি। আর না কামড়ালে আপনি কিনবেন।

প্রস্তাবটা ক্রেতা ভদ্রলোকের পছন্দ হলো। ফ্রি ফার্মহাউজ পাবার জন্য রিস্কটা নেয়া যায়। শর্তমতো তাকে মৌমাছির চাকের নিচে গাছে বেঁধে মালিক চলে গেলো।

এক ঘন্টা পর মালিক ভয়ে ভয়ে ফিরে এলো, না জানি কোন মৌমাছি ক্রেতা ভদ্রলোককে কামড়ে দেয়।

ভদ্রলোক যেমন ছিলেন তেমনই বাঁধা ছিলো। মালিক তাকে জিজ্ঞেস করলো, কোন মৌমাছি কি আপনাকে কামড়েছে?

ভদ্রলোক বললো, না, কোন মৌমাছি আমাকে স্পর্শও করেনি। কিন্তু ঐ বাছুরটার কি কোন মা নেই?

২০৬)

একটা কথা বলা টিয়া পাখি প্রতিদিন টিনা’কে দেখলেই ডাকাডাকি শুরু করে দিত, “আপা, আপা, আপা”। টিনাতো খুশিতে গদগদ হয়ে যেই পাখিটার কাছে যেত, অমনি পাখিটা সুর পাল্টিয়ে বলতে শুরু করতো, “বিশ্রী, বিশ্রী”। টিনাতো রাগে ফেটে পড়লো। দোকানদারকে বেশ হুমকি দিয়ে আসলো। বেচারা নতজানু হয়ে মাফ চাইলো। পরদিন, একি ঘটনা। এবার টিনা আরো রেগে গেলো। বল্লো, এই টিয়া পাখিটার কোন ব্যাবস্থা না করতে পারলে পাড়া থেকে দোকানদারকে বিদায় করবে। তো তার পরদিন, টিনা আবারো হেটে যাচ্ছে। যথারীতি পাখিটা ডাক দিলো, “আপা, আপা”। কি জানি কি মনে করে আরেকবার টিনা কাছে এলো। পাখিটা আর কিছু বলেনা। টিনা জিজ্ঞেস করলো, “কি?”। তখন পাখিটা বল্লো, “বুঝতেই তো পারছেন!”

২০৭)

আরাম খান এর শাশুড়ি একবার ঠিক করলো, তার দুই জামাই এর কে তাকে বেশি ভালোবাসে সেটা পরীক্ষা করবে।

১ম দিন সে ১ম জামাই এর সামনে নদীতে লাফ দিলো, আর ডুবে যেতে লাগলো,দেখতে জামাই তাকে বাঁচায় কিনা।

১ম জামাই নদীতে লাফ দিয়ে তাকে বাঁচালো

শাশুড়ি তাকে খুশি হয়ে ১ম জামাই কে Karizma বাইক গিফট করলো।

পরের দিন সে ২য় জামাই(আরাম খান) এর সামনে নদীতে লাফ দিলো, একি পরীক্ষা করার জন্য।

কিন্তু এই জামাই শাশুড়ি কে দেখতে পারতো না, তাই সে বাঁচালো না। শাশুড়ি মারা গেলো।

কিন্তু পরের দিন দেখা গেলো ২য় জামাই BMW গাড়ি নিয়ে ঘুরছে।

১ম জামাই অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলো, এটা কোথায় পেলে?

আরাম খান হেসে জবাব দিলো, “আমার শ্বশুর খুশি হয়ে এটা গিফট করেছে”

২০৮)

এক লোক সুইস ব্যাঙ্কে প্রতিদিন হাজার হাজার ডলার জমা দেয়…

মানেজারের একদিন সন্দেহ হল, ভদ্রলোককে ডেকে পাঠালেন…

ম্যানেজার – আপনি প্রতিদিন এত টাকা জমা করেন, আপনার আয়ের উতস কী,

লোকটি – ভাই আমি একজন জুয়াড়ী, আমি বাজী ধরে টাকা রোজগার করি…

ম্যানেজার – কী বলেন! বাজী ধরে এত টাকা… এ অসম্ভব! নিশ্চই আপনার কোনো দুই নম্বরী ব্যবসা আছে…

লোকটি – নারে ভাই আমি সত্য বলছি। আচ্ছা চলেন আপনার সাথেই একটা বাজী হয়ে যাক…

ম্যানেজার – কী বাজী…??!!!

লোকটি – এক সপ্তাহ পরে আমি যখন আসব তখন আপনার একটা বিচী থাকবে আরেকটা নাই, ১০,০০০ ডলার বাজী…

ম্যানেজার একটু ভয় পেলো, কী জানি জুয়াড়ী মানুষ, রাস্তায় বের হলে যদি বিচী কেটে নেয়… তারপর কী একটু ভেবে সে রাজী হল…

লোকটি চলে যাবার পর ম্যানেজার তার সিকিউরিটি ডাবল করল, বাসায় ফোন করে বলল এক সপ্তাহের জন্য বাইরে যাচ্ছে, বাসায় ফিরবে না… এক সপ্তাহ সে ব্যাঙ্কেই কাটিয়ে দিলো…

এক সপ্তাহ পর … সেই লোকটি এল সাথে এক চীনা ভদ্রলোক, ম্যানেজার পকেটে হাত ঢুকিয়ে একবার দেখে নিলো… নাহ ঠিক আছে…লোকটি বলল

লোকটি – সব ঠিক আছে?

ম্যানেজার – হ্যা দুইটাই তো আছে…

লোকটি – আচ্ছা (চীনা লোককে দেখিয়ে) ইনি পরীক্ষা করে দেখবেন… আপনারা দুজন বাথরুমে যান…

বাথরুমে গিয়ে চীনা লোক ম্যানেজারের বিচী ধরে পরীক্ষা করে ফিরে এসে জানালো দুইটা বিচী আছে…

তো সেই লোক মানেজারকে ১০,০০০ ডলার দিয়ে বিদায় হল।

আধা ঘন্টা পর সেই লোক ১০,০০০ ডলার জমা দিতে এলো…!! ম্যানেজার তাকে ডেকে বললেন

ম্যানেজার – কী ব্যপার আপনি না এই মাত্র আমার কাছে বাজীতে হারলেন…!!

লোকটি – হুম তা ঠিক আছে, কিন্তু আমি ঐ চীনা ভদ্রলোকের সাথে বাজী ধরেছিলাম যে সুইস ব্যাঙ্কের ম্যানেজারের বিচী হাতানোর ব্যবস্থা করে দিব ২০,০০০ ডলার…!!

২০৯)

এক ৬০ বছর মহিলা তার বেড রুম এ অদ্ভুত শব্দ শুনতে পেলেন। তিনি দরজা খুলে ঢুকে দেখেন তার ৪০ বছর বয়সী মেয়ে vibrator ব্যবহার করছে।

“কি করছো মা?” মহিলা জিজ্ঞাস করলেন।

মেয়ে কাদো কাদো হয়ে বললঃ “মা, আমার বয়স ৪০ বছর হয়ে পড়ছে এবং আমি এতই কুৎসিত যে আমাকে কোন ছেলেই বিয়ে করতে চায় না। আমি একজন স্বামীর অভাব বোধ করছি। তাই এটাকে দিয়েই স্বামীর শূন্যতা পূরন করছি।“

মা তখন মাথা নিচু করে রুম থেকে বেড় হয়ে গেল।

পরদিন বাবা অদ্ভুত শব্দ শুনে রুম এ ঢুকে দেখেন তার ৪০ বছর বয়সী মেয়ে vibrator ব্যবহার করছে।

“কি করছো মা?” লোকটা জিজ্ঞাস করলেন।

এবারো মেয়ে কাদো কাদো হয়ে বললঃ “বাবা, আমার বয়স ৪০ বছর হয়ে পড়ছে এবং আমি এতই কুৎসিত যে আমাকে কোন ছেলেই বিয়ে করতে চায় না। আমি একজন স্বামীর অভাব বোধ করছি। তাই এটাকে দিয়েই স্বামীর শূন্যতা পূরন করছি।“

বাবা তখন মাথা নিচু করে রুম থেকে বেড় হয়ে গেল।

পরদিন মহিলা দেখতে পেল তার স্বামী এক হাতে বিয়ার আর এক হাতে vibrator নিয়ে টিভি দেখছে। মহিলা জিজ্ঞাসা করলো কি করছো?

লোকটা বললঃ আমি বিয়ার খাচ্ছি আর আমার মেয়ে জামাইকে নিয়ে টিভি দেখছি।

২১০)

দুই গর্ভবতী মহিলা সকালে হাঁটতে বেরিয়েছে। হাঁটতে হাঁটতে তারা গল্প করছে কার কি বাচ্চা হতে পারে। তো এক মহিলা বলছে জানো আমি না গর্ভবতী হবার পর খুব শুকিয়ে গেছি, কিছুই খেতে পারছি না। এসব দেখে আমার শ্বাশুড়ি বলেছেন আমার নাকি ছেলে হবে।

অন্যজন বললো তার লক্ষণ দেখে নাকি সবাই বলছে মেয়ে হবে।

তো অনেক ক্ষণ ধরেই তাদের পাশে দিয়ে ছোট্ট বল্টু মিয়া দৌড়াচ্ছিলো।

হঠাৎ সে বলে উঠলো, আন্টি আন্টি আমার না হাতি হবে।

মহিলা দুজন থমকে দাঁড়ালেন।

তারা জিজ্ঞেস করলো কিভাবে বুঝলে?

ছোট্ট বল্টু মিয়া তখন প্যান্ট খুলে দেখিয়ে বললো ………দেখেন না শুঁড়টা বেরিয়ে আছে!!!

২১১)

ক্রিসমাস পার্টিতে অনেক মাস্তি আর হুল্লোড় করার পরদিন জন প্রচন্ড মাথাব্যথা নিয়ে জাগলো। গতরাতের কথা তার কিছুই মনে ছিলো না। নিচে গিয়ে সে দেখলো তার স্ত্রী কফি বানাচ্ছে।

– গত রাতে আমি খারাপ কিছু করিনি তো? জানতে চাইলো জন।

– তেমন কিছু না, তবে তোমার বসকে সবার সামনে গালিগালাজ করেছো।

– ওই ব্যাটার মুখে আমি পেশাব করি, শয়তান একটা! জন গালি দিয়ে উঠলো।

– তুমি তাই করেছো, ফলস্বরূপ তোমাকে চাকরি থেকে বের করে দিয়েছে। স্ত্রী বললো।

– ফাক হিম! আবারো গালি দিলো জন।

– আমি তাই করেছি, ফলস্বরূপ সোমবার থেকে তুমি আবার চাকরিতে জয়েন করছো।

২১২)

রিয়াদ সাহেবের কান দুটি কাটা পড়েছে বহু আগে। তিনি একটা টিভি চ্যানেল চালান। টিভিতে খবরের জন্যে একজন রিপোর্টার খুঁজছেন তিনি।

ইন্টারভিউ বোর্ডে প্রথম প্রার্থীকে জিজ্ঞেস করলেন তিনি, ‘দেখুন, এ পেশায় খুব মনোযোগী হতে হয়, অনেক সূক্ষ্ম ব্যাপার খেয়ালে রাখতে হয়। আপনি কি আমার সম্পর্কে এমন কিছু খেয়াল করতে পারছেন?’

প্রার্থী একগাল হেসে বললো, ‘নিশ্চয়ই স্যার। আপনার তো দুটা কানই কাটা!’

রিয়াদ সাহেব গর্জে উঠলেন, ‘বেরো এখান থেকে, ব্যাটা নচ্ছাড়!’

দ্বিতীয় প্রার্থীকেও একই প্রশ্ন করলেন তিনি। ‘দেখুন, এ পেশায় খুব মনোযোগী হতে হয়, অনেক সূক্ষ্ম ব্যাপার খেয়ালে রাখতে হয়। তা, আপনি কি আমার সম্পর্কে এমন কিছু খেয়াল করতে পারছেন?’

দ্বিতীয় প্রার্থী খানিকক্ষণ চেয়ে থেকে বললো, ‘জ্বি স্যার। আপনার তো দুটা কানই কাটা!’

রিয়াদ সাহেব গর্জে উঠলেন, ‘বেরো এখান থেকে, ব্যাটা ফাজিল!’

তৃতীয় প্রার্থীকেও একই প্রশ্ন করলেন তিনি। ‘দেখুন, এ পেশায় খুব মনোযোগী হতে হয়, অনেক সূক্ষ্ম ব্যাপার খেয়ালে রাখতে হয়। আপনি কি আমার সম্পর্কে এমন কিছু খেয়াল করতে পারছেন?’

এবার প্রার্থী বললো, ‘জ্বি স্যার। আপনি কন্ট্যাক্ট লেন্স পরে আছেন।’

রিয়াদ সাহেব খুশি হয়ে বললেন, ‘বাহ, আপনি তো বেশ — তা কিভাবে বুঝলেন?’

‘সোজা। আপনি চশমা পরবেন কিভাবে, আপনার তো দুটা কানই কাটা!’

২১৩)

এক লোক ক্যালিফোর্নিয়া উপকূল ধরে সাইকেল চালাচ্ছিল। এমন সময় হঠাৎ সে ঈশ্বরের কন্ঠ শুনতে পেল। ঈশ্বর তাকে বলল তুমি এই মুহূর্তে একটি ইচ্ছার কথা বল, আমি তা পূরণ করব। সাইকেল চালক কিছুক্ষণ ভেবে বলল, আমার বাড়ি হাওয়াইতে। তুমি যদি আমেরিকা থেকে হাওয়াই পর্যন্ত একটি ব্রিজ করে দাও তাহলে আমার খুব উপকার হয়। ঈশ্বর এই কথা শুনে বলল, দেখ, আমি তোমাকে ব্রিজ তৈরী করে দিতে পারি। কিন্তু তুমিই ভেবে দেখ, এতবড় একটি ব্রিজ হবে সাগরের উপর, পিলার উঠে আসবে সাগরের তলদেশ থেকে, পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হবে, আর মানুষ একদিনে এতবড় ব্রিজ দেখে আশ্চর্য হয়ে যাবে। তার চাইতে তুমি এমন কিছু চাও যা তোমার ব্যক্তিগত উপকারে আসবে। লোকটি আরও কিছুক্ষণ ভেবে বলল, ঠিক আছে, তুমি আমাকে আমার স্ত্রীর মন বোঝার ব্যবস্থা করে দাও। এই কথা শুনে ঈশ্বর বলল, ” ইয়ে মানে ব্রিজটা তোমার কতক্ষণের ভিতর লাগবে? “

২১৪)

জজ কোর্ট। জজ আসামীর দিকে তাকিয়ে রায়ের আদেশ পড়ছেন। “তুমি বউকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারার অভিযোগে অভিযুক্ত।”

দর্শকদের ভিতর থেকে আরাম খান চিৎকার করে বলল, “হারামজাদা!”

জজ রায় পড়ে যাচ্ছেন, “তুমি তোমার শাশুড়িকেও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মেরেছো”

দর্শকদের ভিতর থেকে আরাম খান আবার বলে উঠল “হারামজাদা!!”

এইবার জজ আরাম খানকে বললেন, “আমি আপনার রাগের কারন বুঝতে পারছি। কিন্তু এটা কোর্টরুম। আর একবার আপনি এই রকম চিৎকার করলে আপনাকে বিচারে বাধা দেয়ার জন্য গ্রেফতার করা হবে। বুঝছেন?”

এইবার আরাম খান দাঁড়িয়ে বলল, “আমি গত পনের বছর ধরে ওই বদমাশ হারামজাদার প্রতিবেশি। যতবারই আমি তার কাছে একটা হাতুড়ির ধারের জন্য গেছি, সে বলছে তার কাছে হাতুড়ি নাই।”

২১৫)

বৃদ্ধ রহিম মিয়া অন্ধ মানুষ। একদিন সকাল বেলায় তিনি মার্কেটে যাচ্ছিলেন কিছু রুটি কিনতে। রুটি কেনা শেষ, তিনি বাসায় ফিরবেন, হুট করে কোথা থেকে এক কুকুর এসে রহিম মিয়ার পায়ে মুত্র বিসর্জন করলো। রহিম মিয়া ছিটকে দূরে সরে গেলেন … তারপর আহ আহ আহ করে রুটিটা ঝুলিয়ে কুকুরটার দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করতে লাগলেন … … সবাই তো তাজ্জব!!! যে লোকের গায়ে কুকুর পেশাব করে দিল, সে কিনা কুকুরটাকে তার রুটি খাওয়াতে চাচ্ছে!

একজন গিয়ে তাকে বলল, ‘রহিম মিয়া, আপনি কি মহান! ওই খারাপ কুকুরটা আপনার গায়ে পিশাব করে দিল, অথচ আপনি তাকে রুটি খাওয়াতে চাচ্ছেন!!!”

রহিম মিয়া উত্তর দিলেন, “আরে ভাই, আমি তো ওকে রুটি দিয়ে ওর পাছার অবস্থান বুঝার চেষ্টা করছি, যাতে যুতসই একটা লাথি বসাতে পারি!”

২১৬)

একদিন আরাম খান এক বারে গিয়ে দেখলো এক লোক হাঁসের নাচের খেলা দেখাচ্ছে। হাঁসটা তার নির্দেশমতো একটা পটের উপর ট্যাপ ড্যান্স করছে। দেখে তো সে দারুণ মুগ্ধ। হাঁসটা কেনার প্রস্তাব দিলো তার মালিককে। অনেক আলোচনা শেষে হাঁসটার মূল্য ১০০০০ ডলার ধার্য হলো।

দু’দিন পরেই আরাম হাস টা নিয়ে আবার সেই বারে ফিরে এলো। হাঁসের পুরোনো মালিককে বললো, তোমার ভূয়া হাঁস ফেরত নাও। আমার সামনে ওকে পটে বসিয়ে দিয়েছিলাম। কিন্তু একটা পা-ও নাচেনি।

মালিক উত্তর দিলো, তুমি কি ওর পটের নিচে মোমবাতি জ্বালিয়ে দিয়েছিলে?

২১৭)

ময়দানে সৈন্যদের খোঁজ নিতে গিয়ে জেনারেল বিস্ময়ের সাথে লক্ষ্য করলেন একজন সৈন্যও উপস্থিত নেই। কিছুক্ষণ পর হাঁপাতে হাঁপাতে এক সৈন্যে এসে হাজির।

– কি কারণে দেরি হলো? জেনারেল জানতে চাইলো।

– স্যার, ডেট- এ গিয়ে দেরি হয়ে গেছে। আসার পথে শেষ বাসটাও ধরতে পারলাম না, ট্যাক্সি ক্যাবকে থামতে বললাম, থামলো না, একটা ফার্মে গিয়ে একটা ঘোড়া কিনে রওনা দিলাম, মাঝপথে সেটা মারা গেলো। এরপর বাকি ১০ কিলোমিটার দৌড়াতে দৌড়াতে এসেছি।

অজুহাতটা জেনারেলের মনো:পুত হলো না। তারপরও যেহেতু সে এসেছে তাই তাকে ছেড়ে দিলেন।

এরপর আরো আটজন সৈন্য হাঁপাতে হাঁপাতে এলো।

– কি কারণে দেরি হলো? জেনারেল জানতে চাইলো।

– স্যার, ডেট- এ গিয়ে দেরি হয়ে গেছে। আসার পথে শেষ বাসটাও ধরতে পারলাম না, ট্যাক্সি ক্যাবকে থামতে বললাম, থামলো না, একটা ফার্মে গিয়ে একটা ঘোড়া কিনে রওনা দিলাম, মাঝপথে সেটা মারা গেলো। এরপর বাকি ১০ কিলোমিটার দৌড়াতে দৌড়াতে এসেছি। সবাই এই অজুহাত দিলো।

জেনারেল তাদের অজুহাতে ভারি সন্দিহান হয়ে পড়লেন। কিন্তু যেহেতু এই অজুহাতের কারণে প্রথম জনকে ছেড়ে দিয়েছেন তাই তিনি তাদেরকেও ছেড়ে দিলেন।

একটু পর আরেক সৈন্য হাঁপাতে হাঁপাতে এলো।

– কি কারণে দেরি হলো? জেনারেল জানতে চাইলো।

– স্যার, ডেট- এ গিয়ে দেরি হয়ে গেছে। আসার পথে শেষ বাসটাও ধরতে পারলাম না, ট্যাক্সি ক্যাবকে থামতে বললা …

– বাকিটা আমি বলি। তুমি ট্যাক্সিকে থামতে বললে, সেটা থামলো না। তারপর তুমি একটা ঘোড়া কিনলে….।

– না স্যার, আমি ট্যাক্সি পেয়েছি ঠিকই। কিন্তু একটু দূরে গিয়ে দেখি রাস্তায় অনেক মরা ঘোড়া পড়ে আছে। সেগুলোকে পাশ কাটিয়ে আসতে আসতেই দেরি হয়ে গেলো।

২১৮)

এক লোক মরুভূমিতে পথ হারিয়ে হাঁটছিলো। তৃষ্ণায় তার প্রাণ যায় যায় অবস্থা। এমন সময় সে ব্যাগ নিয়ে এক লোককে গাছের নিচে বসে থাকতে দেখলো।

– আমাকে একটু পানির সন্ধান দিতে পারবে? জানতে চাইল লোকটি।

– হ্যাঁ, যদি তুমি আমার কাছ থেকে একটা টাই কেনো যার দাম ৫০ ডলার।

রেগেমেগে তৃষ্ণার্ত লোকটি বললো, তোমার অমন উল্টাপাল্টা দামের টাই আমার দরকার নেই। পানির খবর বলো নইলে তোমার খবর আছে।

টাইওয়ালা বললো, ঠিক আছে। বলছি। এখান থেকে পাঁচ কিলোমিটার পশ্চিমে গেলে সুন্দর একটা হোটেল দেখতে পাবে। সেখানে ঠান্ডা পানি পাওয়া যায়। আমার ভাই ওই জায়গার মালিক।

লোকটি পশ্চিমে রওনা হবার পর কয়েক ঘন্টা কেটে গেলো। এরপর আবার টাইওয়ালার কাছে ফিরে এলো সে।

– হোটেলের মালিক তোর ভাই আরেক হারামজাদা, টাই ছাড়া নাকি আমাকে ওখানে ঢুকতে দিবে না!

২১৯)

বব আর জো প্রতিবেশী। দীর্ঘদিন ধরে তাদের মাঝে ঝগড়া। বব জো-কে শিক্ষা দেয়ার জন্য একটা কুকুর কিনে আনলো আর তাকে ট্রেনিং দিলো কিভাবে জো-এর বাড়িতে গিয়ে বাথরুম করতে হবে। এমনটা এক বছর চললো কিন্তু জো টুঁ শব্দটি করলো না।

বব এবার একটা গরু কিনে আনলো আর তাকে ট্রেনিং দিলো কিভাবে জো-এর বাড়িতে আর উঠানে বাথরুম করতে হবে। এমনটা এক বছর চললো, গরুটা জো-এর বাড়িঘর দুর্গন্ধময় করে দিলো। কিন্তু জো টুঁ শব্দটি করলো না।

একদিন সকালে আওয়াজ শুনে বব বাইরে এসে দেখলো একটা ১৮ চাকার ট্রাক তার উঠানের দিকে মুখ করে দাঁড়িয়ে।

– কি হচ্ছে এসব? জানতে চাইলো বব।

– ট্রাক এ আমার নতুন পোষা হাতি। জো উত্তর দিলো।

২২০)

এক আর্টিস্ট গ্যালারির মালিকের কাছে জানতে চাইলো তার কোন ছবি বিক্রি হয়েছে কী না। মালিক একটু ইতস্তত করে বললো, একটা ভালো খবর আছে আরেকটা খারাপ খবর আছে।

– ভালো খবরটা হলো, এক ব্যক্তি তোমার ছবিগুলো সম্পর্কে জানতে চাইছিলেন, তোমার মৃত্যুর পর সেগুলোর মূল্য বাড়বে কী না। আমি বলেছি হ্যাঁ। তখন তিনি সবগুলো ছবি কিনে নিয়েছেন।

– আর খারাপ খবর কী? আর্টিস্ট জানতে চাইলো।

– যে তোমার ছবিগুলো কিনেছে সে তোমার ডাক্তার।

২২১)

ভ্যালেন্টাইন ডে’তে এক তরুণী গেল আর্চি শপে।

আমাকে একটা ভালো কার্ড দেখান তো।

নিশ্চয়ই বয়ফ্রেন্ডের জন্য?

ঠিক ধরেছেন।

এটা দেখুন তো।

তরুণীটি কার্ডটি হাতে নিয়ে দেখে তাতে লেখা- ‘প্রিয়তম, এই দিনে আমার এ হৃদয় সবটাই তোমার জন্য’ কার্ডটা তরুণীটির খুব পছন্দ হলো।

হ্যা, এটাই দিন।

দোকানদার একটা কার্ড সুন্দর করে প্যাকেট করে বাড়িয়ে দিল তরুণীটির দিকে। এবার তরুণীটি বিরক্ত হয়ে বলল, একটা না, এক ডজন কার্ড দিন।

২২২)

কিছু অত্যন্ত ধনী লোকের জীবনযাপন কে আমরা শৈখিনতা বলি। আসলে তা যে কি বিরক্তিকর তাই দেখুন।

প্রশ্নঃ কি পান করবেন? ফলের জুস, চা, কফি, মিল্ক সেক, সোডা, কোল্ড ড্রিংক?

উত্তরঃ না ধন্যবাদ, শুধু চা।

প্রশ্নঃ সিলন চা, লাল চা, গ্রীন টি, হারবাল টি, আইস টি, নাকি হানি টি?

উত্তরঃ সিলন চা।

প্রশ্নঃ কোনটা? ব্লাক না হোয়াইট?

উত্তরঃ হোয়াইট

প্রশ্নঃ দুধ, কন্ডেন্স মিল্ক নাকি হোয়াইটনার?

উত্তরঃ দুধ।

প্রশ্নঃ ছাগলের, গরুর নাকি ঊটের?

উত্তরঃ গরুর দুধ দেন।

প্রশ্নঃ আফ্রিকান গরু নাকি দেশি গরুর?

উত্তরঃ দেশি।

প্রশ্নঃ ঠান্ডা নাকি গরম?

উত্তরঃ গরম।

প্রশ্নঃ ফুল ক্রিম, লো ফ্যাট নাকি ফ্যাট ফ্রি?

উত্তরঃ থাক লাগবে না, আপনি বরং হোয়াইট টি ই দিন।

প্রশ্নঃ মিষ্টি হিসেবে কি খাবেন, চিনি, সুইটনার নাকি মধু?

উত্তরঃ চিনি দিন।

প্রশ্নঃ আখের চিনি নাকি বিট সুগার?

উত্তরঃ আখের চিনি।

প্রশ্নঃ চিকন দানার নাকি মোটা দানার?

উত্তরঃ আচ্ছা বাদ দেন আমার কিছু লাগবে না। শুধু এক গ্লাস পানি দেন।

প্রশ্নঃ মিনারেল নাকি নরমাল?

উত্তরঃ মিনারেল

প্রশ্নঃ বোতলের নাকি ক্যান এর?

উত্তরঃ থাক কিছুই লাগবে না। আমি যাই।

২২৩)

নতুন দম্পতি হানিমুনে গেছে। বাথটাবে গোসল করতে করতে স্বামী ভাবছে, আমার পায়ে তো খুব দুর্গন্ধ হয়। মোজাগুলোর গন্ধ শুঁকলে অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। বিয়ের আগের দিনগুলোতে নাহয় কোনভাবে ব্যাপারটা চাপা দিয়ে রেখেছি। কিন্তু এখন কি হবে?

ওদিকে বিছানায় শুয়ে স্ত্রী ভাবছে, আমার মুখে তো বিশ্রী দুর্গন্ধ। বিয়ের আগে নাহয় কোনভাবে এটাকে লুকিয়ে রেখেছি। এখন কি হবে?

স্বামী গোসল সেরে মনস্থির করলো যে সে তার খারাপ দিকটা স্ত্রীর কাছে স্বীকার করেই ফেলবে। এই ভেবে সে বিছানায় উঠে স্ত্রীকে এক হাতে জড়িয়ে ধরলো। বললো, জানু, তোমাকে আমার একটা খারাপ দিকের কথা বলবো বলে ভাবছি।

স্ত্রী বললো, আমারও একটা কথা বলার আছে।

স্বামী বললো, তোমারটা আমি জানি, আমার মোজা খেয়ে ফেলেছো তুমি, তাই না?

২২৪)

এক সরকারি অফিসে দারুণ কাজের চাপ। দুই সহকর্মী ছুটি তো দূরে থাক, সারাদিন দম ফেলার সুযোগ পায় না।

একদিন একজন আরেকজনকে বললো, আমি জানি কিভাবে ছুটি আদায় করতে হয়।

অন্যজন জানতে চাইলো, কিভাবে?

প্রথমজন এদিক ওদিক তাকালো। দেখলো তাদের ডিপার্টমেন্টের প্রধানের কোন দেখা নেই। সে টেবিলে লাফ দিয়ে উঠে ছাদের কয়েকটা টাইলস খুলে ফেললো। সামান্য সিমেন্ট খুড়তেই সিমেন্ট আর রড দেখা গেলো। বারান্দায় ডিপার্টমেন্ট প্রধানের আওয়াজ শুনে সে রড ধরে ঝুলে পড়লো।

রুমে ঢুকে প্রধান তো অবাক। তিনি জানতে চাইলেন, এখানে কি হচ্ছে?

ঝুলতে থাকা কর্মচারী জবাব দিলো, আমি একটা বাল্ব।

প্রধান বললো, আমার মনে হয় তোমার ছুটি নেয়া উচিত। তোমাকে এখন থেকে ছুটি দেয়া হলো, ২ দিনের আগে যেন তোমার ছায়া দেখা না যায়…. এটা আমার অর্ডার।

ইয়েস স্যার –  বলে ছাদ থেকে নেমে বাইরে চলে গেলো প্রথম কর্মচারী।

দ্বিতীয়জনও বাইরে হাঁটা ধরলো। প্রধান তাকে থামালো, তুমি কোথায় যাচ্ছো শুনি?

দ্বিতীয়জন বললো, বাড়িতে। বাল্ব ছাড়া অন্ধকারে কিভাবে কাজ করবো?

২২৫)

একবার এক বাংলাদেশী সৌদি আরবে এনার্জি ড্রিংকের ব্যবসা শুরু করল।তো এনার্জি ড্রিংক খুব একটা চলছে না।কি আর করা তিনি পরামর্শ করতে গেলেন এক বিজ্ঞাপন নির্মাতার কাছে।তো বিজ্ঞাপন নির্মাতা পরামর্শ দিলেন একটা বিজ্ঞাপন তৈরী করে শহরের বিল বোর্ডে লাগিয়ে দিতে।যেই ভাবা সেই কাজ।পরদিন শহরের সব গুরুত্বপূর্ণ যায়গায় দেখা গেল এনার্জি ড্রিঙ্কের বিজ্ঞাপণ।বিজ্ঞাপনের প্রথম দৃশ্যে দেখা গেল এক লোক ঘেমে নেয়ে ক্লান্ত হয়ে পড়েছে…দ্বিতীয় দৃশ্যঃ লোকটা এনার্জি ড্রিংক খাচ্ছে…তৃতীয় দৃশ্যঃ লোকটাকে বেশ ফ্রেশ এবং মোটাতাজা লাগছে…

এই বিজ্ঞাপন দেয়ার পরদিন থেকে ওই এনার্জি ড্রিংকের বিকি-কিনি পুরাই বন্ধ হয়ে গেল…

কারণ আর কিছুই না সৌদি আরবের লোকজন পড়া শুরু করে ডানদিক থেকে……

২২৬)

এক লোক বারে মদ খেতে ঢুকলো। দীর্ঘক্ষণ ধরে মদ খেলো সে। সেই সাথে অনেকক্ষণ ধরে সে খেয়াল করলো পুরো বারে একটা মাত্র মেয়ে তার দিকে পিছন ফিরে একটা টেবিলে বসে আছে। সে উঠে গিয়ে মেয়েটাকে ধরে দিলো এক চুমু।

মেয়েটা তো রাগে চেঁচিয়ে উঠলো- এসব কি হচ্ছে?

মাতাল লোকটি বললো, মাফ করবেন, আপনাকে পেছন থেকে দেখে আমার স্ত্রী মনে করেছিলাম।

মেয়েটা এতে শান্ত তো হলোই না বরং আরো জোরে চেঁচিয়ে উঠলো, হারামজাদা, ইতর, লম্পট, বদমাশ…..

মাতালটি বললো, আরে, আপনি তো আমার স্ত্রীর মতোই চেঁচান।

২২৭)

বিদায়ের মুহূর্তে পুরাতন সিইও নতুন সিইওকে তিনটি খাম দিয়ে বললো, এই খাম তিনটা রাখুন। কোম্পানিতে সমস্যা দেখা দিলে ১, ২ তারপর ৩ নম্বর খাম খুলবেন। আশা করি আপনার সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে।

দায়িত্ব নেবার ছয়মাস পর্যন্ত নতুন সিইও খামগুলো ব্যবহারের কথা ভাবলোই না। তারপর একদিন শেয়ার মার্কেটে ব্যাপক দরপতন হলো। পেরেশান হয়ে নতুন সিইও প্রথম খামটা খুললো। তাতে লেখা ছিলো, আগের সিইওর ওপর সব দোষ চাপিয়ে দাও।

পরামর্শমতো নতুন সিইও এক সংবাদ সম্মেলন ডেকে আগের সিইওর খুব বদনাম করলো। এতে কাজ হলো। মার্কেট আবার চাঙ্গা হয়ে উঠলো।

এর এক বছর পর আবার কোম্পানির বিক্রিতে ধ্বস নামলো। এবার সিইও দ্বিতীয় খামটা খুললো। তাতে লেখা ছিলো, পুরাতনদের ছাঁটাই করে নতুন কর্মী নাও।

এবার পরামর্শ মতো কাজ করার ফলে সমস্যা থেকে কোম্পানি বেরিয়ে এলো।

এর এক বছর পর কোম্পানিতে আবার সমস্যা দেখা দিলো। এবার সিইও তিন নম্বর খাম খুললো। তাতে লেখা ছিলো, তিনটা খাম তৈরি করো।

২২৮)

সৈনিকদের ক্লাস চলছে, মেজর পড়াচ্ছেন বিজ্ঞান।

– পানি বাস্পে পরিণত হয় নব্বুই ডিগ্রী তাপমাত্রা।

একজন উঠে দাঁড়িয়ে বললো – নব্বুই না স্যার, একশোতে।

– যাদের মাথায় গোবরও নেই তাদের জন্য বলছি, পানি বাষ্পে পরিণত হয় নব্বুই ডিগ্রী তাপমাত্রায়।

– কিন্তু স্যার, বইতে যে লেখা আছে একশো ডিগ্রীর কথা!

অবাধ্য সৈনিকের বক্তব্যের সত্যতা বই ঘেঁটে পরীক্ষা করে দেখলেন মেজর। তারপর বললেন:

– সত্যিই তো! আমি আসলে সমকোণের সাথে গুলিয়ে ফেলেছিলাম।

২২৯)

উপায়ান্তর না দেখে আত্মসমর্পণের সিদ্ধান্ত নিলো আমেরিকান স্পাই। গেল সে কেজিবি অফিসের এক নম্বর কক্ষে। বললো:  আমি এসেছি অকপটে নিজের দোষ স্বীকার করতে!

– অকপট স্বীকারোক্তি ১৩৮ নম্বর ঘরে।

১৩৮ নং কক্ষে গিয়ে বললো:  আমাকে গোয়েন্দা হিসেবে পাঠানো হয়েছিল সোভিয়েত ইউনিয়নে।

– গোয়েন্দা বিষয়ে কথা থাকলে যান ২২৭ নম্বর ঘরে।

২২৭ নং কক্ষে গিয়ে বললো:  আমাকে এদেশে পাঠানো হয়েছিল স্পাই হিসেবে।

– কিসে চড়ে এসেছিলেন?

– জাহাজে।

– জলভাগ ডিল করে ৩৬৮ নম্বর ঘর।

৩৬৮ নং কক্ষে গিয়ে বললো: আমাকে এদেশে পাঠানো হয়েছিল জাহাজে করে।

– সাধারণ জাহাজ নাকি ডুবো জাহাজ?

– ডুবোজাহাজ।

– ডুবোজাহাজ বিষয়ক কথাবার্তা ৭৯৪ নং ঘরে।

৭৯৪ নং কক্ষে গিয়ে বললো: আমাকে ডুবো জাহাজে করে পাঠানো হয়েছিল এদেশে।

– সরাসরি বলুন, আপনাকে কোনো দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল নাকি দেয়া হয়নি এখনও?

– হ্যাঁ আমাকে একটি বিশেষ দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

– তাহলে আর খামোখা জ্বালাতন করছেন কেন সবাইকে? দায়িত্ব দেয়া হয়েছে পালন করুন!

২৩০)

একবার প্রেসিডেন্স ক্রুশ্চেভ গেলেন আমেরিকা সফরে। সেখানে আমেরিকান প্রেসিডেন্ট তাকে শ্রমিকদের সাথে এক মত বিনিময় সভায় নিয়ে গেলেন এবং ক্রুশ্চেভের সামনে ঘোষনা দিলেন, “আজ থেকে তোমাদের বেতন দ্বিগুণ করা হলো”। শ্রমিকরা খুব খুশি। তখন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট বললেন, “দেখলেন আমাদের শ্রমিকরা কত খুশি!”

আমেরিকান সেই প্রেসিডেন্টকে রাশিয়ায় দাওয়াত দিলেন ক্রুশ্চেভ, এবার তিনি শ্রমিকদের সাথে একটি সভায় নিয়ে গেলেন আমেরিকান প্রেসিডেন্টকে এবং বললেন, “দেখবেন আমাদের শ্রমিকরা কত খুশি এখানে।”

তিনি শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে বললেন, “আজ থেকে সবার বেতন কমিয়ে অর্ধেক করা হলো।”

প্রচন্ড করতালি।

তিনি বললেন, “আজ থেকে প্রতি ১০ জনের একজনকে শ্রমশিবিরে পাঠানো হবে।”

প্রচন্ড করতালি।

তিনি এবার বললেন, “আজ থেকে প্রতি ২০ জনের একজনকে ফাঁসিতে ঝুলানো হবে।”

এবারো প্রচন্ড করতালি। হঠাৎ একজন দাঁড়িয়ে জিজ্ঞেস করলো, “ফাঁসির দড়ি কি আমরা নিয়ে আসবো না ট্রেড ইউনিয়ন সরবরাহ করবে?”

২৩১)

এক মহিলা প্রতিদিন তার বাড়ির বারান্দায় দাঁড়িয়ে চিৎকার করে- সকল প্রশংসা আল্লাহর।

পাশের বাড়ির এক নাস্তিক তাই শুনে জবাব দেয়- আল্লাহ বলতে কিছু নেই।

একদিন মহিলা বারান্দায় দাঁড়িয়ে চিৎকার করলো- আল্লাহ, আমার বাজারটা করে দাও।

একটু পরে সে দেখলো তার বাড়ির বাইরে ব্যাগ ভর্তি তরকারি-মাছ ইত্যাদি পড়ে আছে।

সে তা দেখে চিৎকার করে বললো- সকল প্রশংসা আল্লাহর।

পাশের বাড়ির নাস্তিকটি বললো, আল্লাহ বলে কিছুই নেই। আমি ওই বাজার করে দিয়েছি।

মহিলা বললো- সকল প্রশংসা আল্লাহর। তিনি শুধু আমার বাজারই করে দেননি, শয়তানকে দিয়ে তার দামও পরিশোধ করিয়েছেন।

২৩২)

ক্যাপ্টেন সৈনিকদের ক্লাশ নিচ্ছিলেন, একজন সৈনিক দাঁড়িয়ে বললো, স্যার কুমির কি উড়তে পারে?

ক্যাপ্টেন বললেন, না, কুমির উড়তে পারেনা।

ক্যাপ্টেন ক্লাশের পড়ানোয় মন দিলেন। সৈনিকটি দাঁড়িয়েই রইলো। কিছুক্ষণ পর আবার বললো, স্যার কুমির কি উড়তে পারে?

ক্যাপ্টেন একটু বিরক্ত হয়ে বললেন, যাদের বুদ্ধি হাটুতে তাদের জন্য বলছি, কুমির উড়তে পারে না।

যথারীতি ক্যাপ্টেন পড়াচ্ছেন আর সৈনিক দাঁড়িযেই আছে। আবার একটু পর সৈনিক বললো, স্যার কুমির কি উড়তে পারে?

ক্যাপ্টেন এবার রেগে গিয়ে বললেন, যাদের মাথায় গোবর ভরা তাদের জন্য বলছি, কুমির উড়তে পারে না।

এবার সৈনিকটি বললো, কিন্তু স্যার, জেনারেল স্যার যে বলছিলেন, কুমির উড়তে পারে!

ক্যাপ্টেন এবার কয়েক মূহুর্ত ভেবে বললেন, ও জেনারেল স্যার বলেছেন নাকি? তাহলে কুমির উড়তে পারে তবে খুব নিচ দিয়ে!

২৩৩)

পোস্ট অফিসের লোকের প্রাপকের ঠিকানা ছাড়া একটি চিঠি পেল। চিঠি খোলার পর দেখা গেল এক লোক ঈশ্বরের কাছে ১০০০ টাকা চেয়ে চিঠি লিখেছে। পোস্ট অফিসের লোকদের মনে দয়া হল। তারা নিজেদের মধ্যে চাঁদা উঠিয়ে ঐ লোকের ঠিকানায় ১০০ টাকা পাঠিয়ে দিল।

এর কয়েক দিন পর ঠিকানা বিহীন আবার একটি চিঠি পাওয়া গেল। প্রাপক পূর্বের সেই লোক। খোলার পর দেখা গেল সেই লোক ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানিয়ে চিঠি দিয়েছে-

আপনার পাঠানো টাকা আমি পেয়েছি। তবে এর পর থেকে টাকা পাঠালে দয়া করে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পাঠাবেন। আমাদের দেশের পোস্ট অফিসের অবস্থাতো আপনি জানেন। আমার ধারণা আপনার পূর্বের পাঠানো ১০০০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা পোস্ট অফিসের লোকেরা মেরে দিয়েছে। আমি শুধু ১০০ টাকা পেয়েছি।

২৩৪)

একটা মা উট আর বাচ্চার মধ্যে কথা হচ্ছে।

বাচ্চা উটঃ মা আমাদের পা এত লম্বা কেন?

মা উটঃ মরুভুমিতে ভালমত দৌড়ানোর সুবিধার জন্য আমাদের পা এত লম্বা।

বাচ্চা উটঃ মা আমাদের চোখের পাপড়ি এত বড় বড় কেন?

মা উটঃ মরুভুমির বালু যেন আমাদের চোখের মধ্যে না ঢুকে সেই জন্যে আমাদের চোখের পাপড়ি এত বড় বড়।

বাচ্চা উটঃ মা আমাদের পিঠের উপর এত বড় কুজ কেন?

মা উটঃ আমাদের এই কুজের মধ্যে পানি জমা থাকে। যেন আমরা মরুভুমিতে অনেকদিল পানি ছাড়া চলাফেরা করতে পারি।

বাচ্চা উটঃ মা, আমাদের মরুভুমিতে চলাফেরা করার জন্য এত কিছু আছে, কিন্তু মা……

মা উটঃ কি বাবা?

বাচ্চা উটঃ এত কিছু থাকার পরও আমরা ঢাকা চিড়িয়াখানায় কেন?

২৩৫)

এক হিন্দু পুরোহিত, এক হুজুর আর এক রাজনীতিবিদ গাড়িতে করে যাচ্ছিলো। পথে তাদের গাড়ি নষ্ট হয়ে গেলো। ভাগ্য ভালো কাছেই একটা ফার্মহাউজ ছিলো। মালিক তাদেরকে জায়গা দিলো রাতটা থাকার জন্য। তবে মাত্র একটা ঘর তারা পেলো যেখানে মাত্র ২টা বিছানা ছিলো। ফলে কাউকে না কাউকে খোঁয়াড়ে শুতে যেতেই হতো।

হিন্দু পুরোহিত স্বেচ্ছায় খোঁয়াড়ে শুতে গেলো। একটু পর দরজায় টোকা পড়লো। দেখা গেলো হিন্দু পুরোহিত ফিরে এসেছে। সে বললো, খোঁয়াড়ে একটা গরু আছে। গরু যেহেতু পবিত্র তাই এক সাথে থাকা তার পক্ষে সম্ভব না।

অত:পর হুজুর খোঁয়াড়ে থাকতে রাজি হলো। কিন্তু একটু পরেই দরজায় টোকা দিলো সে। জানালো, খোঁয়াড়ে একটা শুয়োর আছে। ধর্মে যেহেতু শুয়োর অপবিত্র, তাই ওটার সাথে খোঁয়াড়ে থাকা তার পক্ষে সম্ভব না।

অগত্যা রাজনীতিবিদ খোঁয়াড়ে থাকতে গেলো। একটু পরে দরজায় টোকা পড়লো। এবার গরু আর শুয়োরটা এসেছে।

২৩৬)

এক বিজ্ঞানী জঙ্গলে দীর্ঘদিন যাবত যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি নিয়া গবেষনায় মত্ত। অবশেষে তিনি একটা ইঞ্জেকশন আবিস্কার কইরা ফালাইলেন। এখন টেষ্ট করানোর জন্য কেউরে পাইতেছে না।

শেষমেষ নিজের পোষা বিড়ালের উপর সেইটা প্রয়োগ কইরা দিলেন। বিলাই যৌন উন্মাদনায় উত্তেজিত হইয়া যেইখানেই ফুটা পায় সেখানেই করা শুরু করে। বিজ্ঞানী সফল হইলে ও বিলাই লইয়া বিপদে পইড়া গেলেন। বিলাইয়ের সেক্স কিছুতেই কমে না। যখন যা পায় সেইটার লগেই সেক্স করবার যায়। শেষে বিজ্ঞানী বিলাইরে ধইরা ডীপ ফ্রীজে ঢুকাইয়া রাখল যাতে মইরা গেলে সকালে ফালাইয়া দিতে পারে।

সকালে বিজ্ঞানী ফ্রীজ খুইলা তাজ্জব হইয়া গেল, দেখল বিলাই খালি ঘামাইতেছে আর ঘাম মুছতেছে।

বিজ্ঞানী জিগাইল কিরে তুই মরস নাই ? বিলাই চিল্লাইয়া কইলঃ শালা, কাচা মুরগির লগে করা যে কি কষ্ট সেইটা তুই কি কইরা বুঝবি ?

২৩৭)

সে এক আদ্যিকালের কথা।এক রাজ্যে ছিল এক বুড়ি। বুড়ির খুব দু্ঃখ। তার স্বামী মারা গেছে বহু আগে, কোন ছেলেপেলেও নেই। আছে শুধু একটা ছাগল। ভিক্ষা করে কোনরকমে নিজের আর ছাগলের পেট চলে। তো একদিন বুড়ি ভিক্ষা করছে। এক বাড়িতে তাকে ভিক্ষা দিল একটা প্রদীপ। বুড়ি ভাবল এটা দিয়ে কী করা যায়? যা থাকে কপালে ভেবে ঘষা দিল প্রদীপে।

তারপর যা হয় আর কি। এক জ্বিন এসে হাজির। বলল, হুকুম করুন। আপনার তিনটা ইচ্ছা পূরণ করব।

বুড়ি তার প্রথম ইচ্ছা জানাল, আমাকে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর রাজপ্রাসাদের মালিক বানিয়ে দাও।

“জো হুকুম”। বুড়ি রাজপ্রাসাদে এসে গেল।

আপনার দ্বিতীয় ইচ্ছা কি?

আমাকে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর রাজকন্যা বানিয়ে দাও।

তাই হল।

তৃতীয় ইচ্ছা কি?

আমার পোষা ছাগলটাকে পৃথিবীর সবচেয়ে যৌনআবেদনময় পুরুষ বানিয়ে দাও।

বুড়ির এই ইচ্ছাও পূরণ হল।

আমি এখন মুক্ত। এই বলে জ্বীন অদৃশ্য হল।

সুদর্শন যুবক (যে কিনা আগে ছাগল ছিল) এগিয়ে এল বুড়ির (যে এখন সুন্দরী রাজকন্যা) দিকে। বুড়ির নিঃশ্বাস ভারী হয়ে এল। বুড়ির কানে কানে সে বলল, আপনার কি মনে আছে শৈশবে আপনি আমাকে ছাগল থেকে খাসী করে দিয়েছিলেন???

২৩৮)

লুইসদের বাসায় গরুর খামার আছে। অনেক গরু। তো প্রতিদিন সকালে গরুর দুধ দুইতে দুইতে ওর বাবার হাত ব্যথা হয়ে যায়। তো একদিন লুইসের বাবা বাজার থেকে একদিন একটা মেশিন নিয়ে আসলো। ওইটা গাভীর স্তনে লাগিয়ে বোতাম চাপলে অটো দুধ বের হতে থাকে।

লুইস তখন কিছুটা বড় হইছে। তো ওর মাথায় একটা দুষ্টু বুদ্ধি আসলো। কেমন আরাম লাগে দেখার জন্য সে দুধ দোওয়ার মেশিনটা জায়গামত লাগিয়ে সে আরামে উপভোগ করতে লাগলো। তো কিছুক্ষণ পর লুইসের হয়ে গেলো। কিন্তু মেশিন থামে না। সে তন্ন তন্ন করে খুঁজেও মেশিনের আর কোনো বোতাম পায়না। ইতিমধ্যে তার আরো একবার হয়ে গেলো। কিন্তু মেশিন থামে না। চলছেই। লুইস দেখে যে মাত্র একটাই বোতাম মেশিনে, বার বার সে ওইটাই চেপে চলে কিন্তু মেশিন থামে না। ইতিমধ্যে আর একবার হয়ে গেলো। লুইস পাগল হয়ে গিয়ে ক্যাটালগ খুজে দেখে সেখানে লিখা…………

This machine will stop automatically after minimum one liter discharge.

২৩৯)

প্রেমিকার বিয়ে হয়ে যাবে। সে এসেছে শেষ বারের জন্য প্রেমিক এর সাথে দেখা করতে। তো প্রেমিক বলছে, তোমার তো বিয়েই হয়ে যাবে, তার আগে তোমাকে আমি আদর করতে চাই। তো প্রমিকা রাজী হইছে। প্রেমিক বলছে, তোমাকে তো মাত্র একদিনই আদর করতে পারবো, তো একটা ব্যবস্থা করি যেন অনেকবার আদর করা যায়। আমার কাছে একটা কবিরাজি ঔষধ আছে। আমি সেইটা খাই। প্রেমিকা কইছে ঠিক আছে। তো প্রেমিক, নাম হইলো আবুল, লাইট নিভায়ে দিয়ে আদর করা শুরু করছে।

একবার, দুইবার, তিনবার…….. আদর করতেছে তো করতেছেই। অনেকক্ষন পর প্রেমিকা কয়, আবুল আর কত আদর করবে, আমারতো ব্যাথা করতেছে?

:আবুল কে? ও বুঝেছি যেই লোকটা বাইরে টিকিট বিক্রি করতেছে।

২৪০)

এক পাগলের অভ্যাস ছিল গুলতি দিয়ে যে কোন কাঁচের জানালা ভাঙ্গার। তাকে ধরে মানসিক চিকিৎসালয়ে নিয়ে আসা হল। এক বছর চিকিৎসার পর ডাক্তারের ধারনা হল রোগ মুক্তি হয়েছে, তাকে ছেড়ে দেয়া যায়। ছাড়বার আগে শেষ পরীক্ষা করার জন্য ডাক্তারের চেম্বারে তাকে ডাকা হল।

ডাক্তার : স্যার, আমাদের ধারণা আপনি সম্পূর্ণ আরোগ্য লাভ করেছেন। তাই আপনাকে ছেড়ে দেয়া হবে। এবার আপনি বলুন, এখান থেকে ছেড়ে দেয়ার পর আপনি কী করবেন?

পাগল : আমি! সত্যি বলব?

ডাক্তার : বলুন।

পাগল : প্রথমে ভালো একটা স্যুট কিনব। তারপর সেটা পরে আমি রূপসী বাংলা হোটেলে যাবো ডিনার খেতে।

ডাক্তার : গুড, নর্মাল ব্যাপার, তারপর?

পাগল : তারপর সেখানে সুন্দরী এক সোসাইটি গার্লকে বলব যে, মে আই হ্যাভ এ ড্যান্স উইথ ইউ?

ডাক্তার : গুড, নর্মাল, তারপর?

পাগল : তারপর তাকে ডিনার খাওয়াবো। মদ খাওয়াবো।

ডাক্তার : ঠিক আছে, তারপর?

পাগল : তারপর তাকে হোটেলের একটা রুমে নিয়ে আসব। নীল আলো জ্বালিয়ে দেবো। স্লো মিউজিক চালিয়ে দেব।

ডাক্তার : নর্মাল সবকিছু, তারপর?

পাগল : তারপর ধীরে ধীরে শাড়ী খুলব, ব্লাউজ খুলব, পেটিকোটটা খুলে ধীরে ধীরে নামিয়ে আনব পা থেকে।

ডাক্তার : নাথিং রং, তারপর?

পাগল : এবার মেয়েটির শরীরে বাকী আছে তার আন্ডারওয়ার। এখন ধীরে ধীরে সেই আন্ডারওয়ারটি খুলে নেব আমি।

ডাক্তার : তারপর?

পাগল : তারপর আন্ডারওয়ার থেকে ইলাস্টিকের দড়িটা খুলে নেব আমি। এই ইলস্টিক দিয়ে নতুন গুলতি বানাবো। আর সেই গুলতি দিয়ে শহরের যত কাঁচের জানালা আছে সব ভেঙে চুরমার করে দিব আমি!!!

২৪১)

জনি বেশ কিছুদিন চীন ঘুরে ফিরে দেশে ফিরেছে। তো চীনে থাকা কালীন সময়ে সে ভালই মউজ মাস্তি করেছে। চীনা খাবার-দাবার থেকে শুরু করে চীনা মেয়ে-মানুষ কোনটাই তার মেন্যু থেকে বাদ যায়নি। ফলাফল স্বরূপ দেশে ফেরার এক সপ্তাহের মাথায় তার পুরুষাঙ্গ কেমন একধরনের সবুজ সবুজ গোটায় ভরে গেল। প্রচন্ড ভয়ে জনি তখনি ডাক্তারের কাছে ছুটলো। ডাক্তার সব দেখে শুনে চিন্তিত মুখে এদিক ওদিক মাথা নাড়লেন। তারপর এটা ওটা অনেক টেস্ট দিলেন। সেসব টেস্টের রেজাল্ট দেখে তার মুখ আরো গম্ভির হলো। তিনি জনিকে বললেন – মি: জনি আমি খুব দুঃখিত হয়ে জানাচ্ছি যে, আপনার যে রোগ হয়েছে তাতে আপনার ইয়েটা যদি এখনি অপারেশন করে কেটে ফেলা না হয়, তবে আপনার জীবন বাঁচানোই দায় হয়ে যাবে। জনি এ কথা শুনে হাউমাউ করে কেঁদে উঠলো – বলছেন কি ডাক্তার সাহেব?! ওটা ছাড়া এ জীবন রেখে কি হবে? সে কাঁদতে কাঁদতেই গেল তার সবচেয়ে কাছের বন্ধুর কাছে দুঃখের কথা বলবে বলে। তার বন্ধু সব শুনে বলল – শোন দোস্ত, যেহেতু তুই চীনে গিয়ে এই রোগ বাধিয়েছিস সেহেতু এই রোগের চিকিৎসা চীনা কোন ডাক্তারই ভালো জানবে। আমার পরিচিত এক চীনা ভেষজ ডাক্তার আছে। চল তার কাছে যাই। জনি যেন কিছুটা আশা ফিরে পেল, বলল – চল তবে এক্ষুনি যাই।

চীনা ডাক্তার সব দেখে শুনে ভীষন বিরক্তিতে চোখ মুখ কুঁচকে বললেন – তোমাদের দেশের এই সব ছাই পাশ ডাক্তার কি যে সব বলে না! সুযোগ পেলেই খালি ধর মার কাট কাট!! কেন বাপু, কি এমন হয়েছে যে তোমার ওটা অপারেশন করে কেটে ফেলতে হবে?! জনির চোখে আশার আলো ঝিলিক দিয়ে উঠলো – সত্যি বলছেন ডাক্তার সাহেব? আমার তাহলে অপারেশন লাগবে না? ওটা কেটে ফেলতে হবে না?

ডাক্তার বললেন – আরে না বোকা! কোন অপারেশন লাগবে না। তুমি আর এক সপ্তাহ অপেক্ষা করো। ওটার যা অবস্থা, তাতে ওটা আপনা আপনিই খসে পড়বে।

২৪২)

ছোট বোন নতুন প্রমে করতেছে, এখন ডেটিংএ যাবে। তো বড় বোন শেখায়ে দিয়েছে, যত ভাল ছেলেই হোক দেখবি শুধু সেক্স করতে চাইবে। তবে একটা বুদ্ধি বলে দেই, তাহলে আর কোন অসুবিধা হবে না। যখনই দেখবি তোর কাপড়ে হাত দিচ্ছে, বলবি, যদি আমাদের একটা বাবু হয় তাহলে কি নাম রাখবে? দেখবে ছেলেটা আর আগাবে না।

তো মেয়েটা এই কথা কয়েকবার বলেছে। সত্যি সত্যি ছেলেটা আর আগায় নাই।

তারপর একদিন, ছেলেটা যেই আদর করতে শুরু করেছে …

“আমাদের বাবু হলে কি নাম রাখবে?”

ছেলেটা পকেট থেকে একটা কনডম বের করে দেখায়া বলছে যদি এর ভিতর থেকে ও বের হতে পারে …

২৪৩)

বউ সন্দেহ করছে যে তার স্বামীর সাথে কাজের মেয়ের অবৈধ স্বম্পর্ক আছে। শিওর হওয়ার জন্য সে কাজের মেয়েকে ১ দিন ছুটি দিল কিন্তু স্বামীকে এটা বলল না।

রাতে স্বামী বাসায় এসে ঘুমোতে যাওয়ার সময় স্ত্রী আদর পেতে চাইলে স্বামী বললঃ আমার শরীর টা ভালো না। আজ থাক। এই বলে সে ঘুমিয়ে পড়লো।

স্ত্রী ঘুমের ভান করে জেগে থাকলো। মাঝ রাতে স্বামী উঠে পাশের রুমে টয়লেট এ গেল।

স্ত্রী তখন কাজের মেয়ের ঘরে গিয়ে শুয়ে পড়লো এবং লাইট বন্ধ করে দিল।

একটু পর স্ত্রী কিছু একটা অনুভব করলো। কাজ শেষ হওয়ার পর স্ত্রী লাইট জ্বালিয়ে বললোঃ তুমি নিশ্চয় আমাকে এই বিছানায় আশা করোনি !!

“অবশ্যই না ম্যাডাম”, বললো ড্রাইভার !!

২৪৪)

Batman এবং Spiderman ছুটিতে যাওয়ায় সুপারম্যান বেচারা একা হয়ে পড়লো। সে একা একা উড়ে বেড়ায়। একদিন সে সাগরের পারে উড়ছে, হঠাৎ দেখতে পেল wonder woman, কাপড় ছাড়া পা ছড়িয়ে শুয়ে আছে, সুপারম্যান ভাবলো সে রোদ পোহাচ্ছে, এইতো সুযোগ, এই ফাকে কাজটা সেরে ফেলা যাক। সুপারম্যান প্ল্যান নিল অতি দ্রুত কাজটা করা হবে। wonder woman কিছু বোঝার আগেই she will be fucked!!!!

সুপারম্যান প্রায় বিশ মাইল উপর থেকে ১০০০ মাইল বেগে নিচে নেমে এল, সরাসরি wonder woman এর জায়গা মত এ্যাটাক। ২ সকেন্ডের মধ্যে কাজ সেরে আবার উড়ে চলে গেলো। wonder woman সাথে সাথে উঠে বসে বললো!!

কি হলো!! কি হলো!!???

Wonder woman এর উপর যৌনরত Invisible man বললো , কিছুইতো বুঝলাম না, শুধু এইটুকু বলতে পারি, আমার পাছা জ্বলে যাচ্ছে !!!

২৪৫)

”exam” দেয়ার পর একটি মেয়ের চিন্তাঃ

*কত্ত লম্বা ছিল, ইস্! যদি আরেকটু সময় পেতাম।

*প্রথমে কত ভয় লাগতেছিলো,কিন্তু পরে যে কীভাবে হয়ে গেলো বুঝলাম না।

*আমি তো অজ্ঞানই হয়ে গেছিলাম, ৩ ঘন্টা পর জ্ঞান ফিরছে।

*রাতে তো একটুও শুতে পারি নাই,কেমন যেনো অদ্ভূত লাগতেছিলো।

*এরপর থেকে সব কাজ বুঝে শুনে করব।

সেক্স এর পরও মেয়েদের এই একই চিন্তা থাকে।

২৪৬)

এক মহিলার গর্ভে একসাথে তিন সন্তান। তিনি একদিন হাঁটছিলেন, এমন সময় আশেপাশের কোথাও ডাকাত পড়লো। মুহুর্মুহু গোলাগুলির আওয়াজ আসতে লাগলো কানে। হঠাৎ গুনে গুনে তিনটা গুলি এসে লাগলো মহিলার নিন্মদেশে। তিনি মূর্ছা গেলেন।

ভাগ্যের অতিমাত্র্যে মহিলা রক্ষা পেলেন। ডাক্তাররা সিদ্ধান্ত নিল বুলেটগুলো ভিতরেই রেখে দিতে, কারণ তারা দেখলো অপারেশন করাটা ঝুঁকিপূর্ণ।

ষোল বছর পরের কাহিনী। তাঁর বাচ্চাগুলো খুব ভালোমতই বড় হয়েছে এতদিন। হঠাৎ একদিন এক মেয়ে এসে কাঁদো কাঁদো হয়ে বললো, “মা মা, আমার খুব ভয় লাগছে।”

“কি মা, কি হয়েছে তোমার। আম্মুকে সব খুলে বলো।”, বললেন মহিলা।

“আজ হিসু করার সময়, আমার শরীর থেকে একটা টাটকা বুলেট বেরিয়েছে। ঠুস করে গুলি করার মত শব্দও হয়েছে।”, বললো মেয়েটি।

মহিলা ব্যাপারটা বুঝতে পারলেন। তিনি ষোল বছর আগে ঘটে যাওয়া সে রোমহর্ষক ঘটনাটি মেয়েকে খুলে বললেন।

কিছুদিন বাদে এল দ্বিতীয় মেয়েটি। সেও ভীষণ উদ্বিগ্ন, কারণ সেও তার বোনের মত পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে গিয়েছে কিছু আগেই। মা সবকিছু শোনার পর তাকেও ষোল বছর আগের ঘটনাটা খুলে বললেন। সেও আশ্বস্ত হলো।

আরো কিছুদিন গেছে। হঠাৎ মহিলাটা একদিন দেখলেন তাঁর তিন যমজ সন্তানের মধ্যে একমাত্র ছেলেটি ভয়ার্ত মুখে হাঁপাতে হাঁপাতে এল।

“কি হয়েছে, খোকা? এমন করছ কেন?”, বললো মহিলাটা।

সদ্যপ্রাপ্ত ভরাট কন্ঠে ছেলেটা ভয়ার্ত স্বরে বললো, “আম্মা, কিছুক্ষণ আগে মারাত্মক একটা ব্যাপার ঘটেছে।”

মহিলাটা আঁচ করতে পারলেন। “ও বুঝেছি। নিশ্চয়ই তুমি প্রস্রাব করতে গিয়েছিলে, আর একটা বুলেট বেরিয়েছে…তাইতো?”

“না মা, ঠিক প্রস্রাব করতে নয়।”

“তাহলে?” আশ্চর্য স্বরে বললেন মহিলা।

“যাই হোকনা কেন, ভয়ানক ব্যাপারটা হচ্ছে , আমি আমাদের কাজের বুয়াকে মেরে ফেলেছি।”

২৪৭)

এক ভদ্রলোকের বিরূদ্দ্বে তার সদ্যমৃতা বৌ এর সাথে Sex করার অভিযোগ আনা হলো।

বিচারক: আমি আমার চাকুরী জীবনে এমন জঘন্য মামলা ইতিপূর্বে আর কখোনোই পরিচালনা করিনি, কেন আপনি এটা করলেন, নিদেননপক্ষে একটি কারন কি আপনি বলতে পারবেন?

ভদ্রলোক: অবশ্যই, একটি নয়, আমি তিনটি কারণ বলতে পারবো, আপনি এখানে মোটেও নাক গলাতে পারেন না, কারণ সে আমার বৌ, আমি একদম বুঝতেই পারিনি সে মরে গেছে এবং আমাদের দাম্পত্য-জীবনে বিছানায় সবসময় তাকে আমি এ অভিনয়ই করতে দেখেছি !!!

২৪৮)

এক লোক গেল সিনেমা দেখতে। সেই সিনেমায় যৌন উত্তেজক দৃশ্যের ছড়াছড়ি। আশপাশ তাকিয়ে হঠাৎ সে দেখলো এক মহিলা তার পাজামার বাঁধন একটু আলগা করে ভিতরে মুহুর্মুহু হস্তচালনা করছেন। দেখে সুযোগসন্ধানী লোকটা নিজের আসন ছেড়ে ঠিক সে মহিলার পাশে গিয়ে বসলো। তারপর মহিলাকে বললো, “ম্যাডাম, আপনি যা করছেন সে ব্যাপারে আমি কি আপনাকে সাহায্য করতে পারি?”

মহিলাটা লোকটার দিকে বোকার মত তাকিয়ে বললো, “জ্বী পারেন।”

এত সহজে সুযোগ পেয়ে লোকটা তৎক্ষণাৎ কাজে লেগে পড়লো। বহুক্ষণ পর কর্মসিদ্ধ লোকটা যখন দেখলো যে ক্রমসঞ্চালনে তার হাত ব্যথা-ব্যথা হয়ে উঠেছে তখন সে আপনাতেই সেটা সরিয়ে নিল। হাত সরানোর পর সে দেখলো মহিলা তার সেজায়গায় এবার দুহাত ঢুকিয়েই দ্বিগুণ কম্পনাঙ্কে ঝাঁকাচ্ছে।

“কী হলো, এতক্ষণ ধরে মজা দিলাম তবুও কী আপনার খায়েশ মেটেনি?” বললো লোকটা।

মহিলা বললো, “কিন্তু দাদগুলোয় (eczema) তো এখনো চুলকোচ্ছে।”

২৪৯)

স্ত্রী মারা যাওয়ায় হক সাহেব ভয়ানক কাদতে লাগলেন। অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার পুরো সময়টা তিনি কাঁদলেন। কারো সান্ত্বনায় কাজ হলো না। এমনকি বাসায় ফেরার সময় গাড়ীতেও কাঁদতে লাগলেন। পাশে বসে থাকা তার এক বন্ধু সান্ত্বনা দিয়ে বললেন, “কেন দুঃখ করছো? যা হবার হয়েছে, এটা ভাগ্যের ব্যপার। তা এখন থেকে যদি মনকে শক্ত করার চেষ্টা কর তাহলে মাস ছয়েকের মধ্যে আর একটা বিয়ে করতে পারবে।”

হক সাহেব উত্তেজিত হয়ে বললো, “৬ মাস??? তাহলে আজ রাতে কি করবো?”

২৫০)

মলি আন্টি সাথে তার দু বান্ধবী জলি ও পলি আন্টি ব্যালকনিতে বসে বৈকালিক খোশগল্প করছেন। পলি আন্টি ভীষণ মুখরা আর যাচ্ছেতাই স্বভাবের। চা এ মুখ দিতে দিতে তিনি বললেন, “আমার হাজব্যান্ড মকবুলকে যখন আমি কষে একটা ব্লো- দেইনা, আহাহাহা…মনে হয় তার ইয়েটা যেন ঠাণ্ডা আইসক্রিম।”

“হুম”, চায়ের কাপটা মুখ থেকে নামিয়ে তাল ধরলেন জলি আন্টি। “একই ব্যাপারটা আমার জামাই, মানে তোমাদের মজনু ভাইয়ের ক্ষেত্রেও আমার মনে হয়, একেবারে ঠান্ডা।”

পলি আন্টি পাশে তাকিয়ে বললেন, “কী হে মলি, তোমার বেলায় ঘটনা কেমন?”

মলি আন্টি অপ্রস্তুত হয়ে গেলেন যেন। “ছিঃ, বলছ কি! আমি মোতালেবের ওটা মুখে নেবার কথা চিন্তাই করিনা।”

কথাটা শুনে জলি আর পলি আন্টি পরস্পরের দিকে অবাক দৃষ্টিতে তাকালেন। “বলে কী মহিলা।” বললেন জলি আন্টি। “এত ইন্টেরেস্টিং একটা বিষয় তুমি মিস করো!!”

“শোনো মলি” পলি আন্টি বললেন। “শুনেছি মোতালেব ভাই প্রায়ই তোমার সাথে খ্যাটখ্যাট করে। এবার কারণটা বুঝেছি। কারণ তুমি ওনাকে ব্লো- দাওনা। সকল পুরুষই আসলে তাদের স্ত্রীর কাছ থেকে মৌখিক আদর আশা করে। একবার শুধু করে দেখো, দেখবে ভাইসাহেবও তোমাকে কেমনটা না আদর করেন।”

পরের দিন বিকেলে, মলি-পলি-জলি আন্টি আবারও ব্যালকনিতে ফের জমায়েত হয়েছেন। মলি আন্টির ডান চোখ ঘিরে লালচে দাগ। পলি আন্টি অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলেন, “কী হে, তোমার চোখের চারপাশটায় এরকম দাগ কেন?”

“তোমার কথামত কাজটা করতে গিয়ে মোতালেবের ঘুষি খেয়েছি।”

“ড্যাম ইট!!” চেয়ার চাপড়ে বললেন জলি আন্টি। “উনি কি পাগল নাকি? শুধু শুধু তিনি ঘুষি মারতে গেলেন কেন? নাকি তুমি কোনো কামড়ে দিয়েছিলে?”

“আরে ধুর না।” বললেন মলি আন্টি “আমি শুধু জিপারটা নামিয়ে ওটাকে মুঠ করে ধরে বললাম, ‘মকবুল ভাই আর মজনু ভাইয়েরটা তো ঠান্ডা, তোমারটা এতো গরম কেন?”

২৫১)

এক লোক নগ্নতাবাদীদের দলে গিয়ে জুটলো। সে নিজের অনেক দিনের আবাস ছেড়ে তাদের সাথে গিয়ে বসবাস করতে থাকলো। একদিন তার দাদিমা তাকে চিঠি দিলেন। চিঠিতে তিনি বললেন, নাতি যেন তার বর্তমান হাল হকিকত সম্পর্কে তাঁকে লিখে জানায়, সাথে একটা ছবিও যেন জুড়ে দেয়।

লোকটা ভেবে পেল না কী করবে। সে যে একপাল ন্যাংটো মানুষের সাথে দিনে দুপুরে দিগম্বর হয়ে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে, এ ধরণের ছবি দাদিকে পাঠালে ভীষণ কেলো লাগবে। তাই সে বুদ্ধি করে তার নিজের বর্তমান অবস্থার এক ছবি অর্ধেক কেটে দাদিকে পাঠিয়ে দিল। কিন্তু ভুলবশত উপরের অর্ধাংশের বদলে নিচের অর্ধাংশ পাঠালো সে। ফলে তার চিন্তার অন্ত নেই। কিন্তু তার আবার মনে পড়লো যে দাদিমা চোখে খাটো। তিনি ছবি দেখে কিছুই ভালো করে বুঝবেন না। ফলে সে কিছুটা আশ্বস্ত হলো।

কিছুদিন পর দাদিমা চিঠি লিখে জানালেন, ‘তোমার চিঠি আর ছবির জন্য তোমাকে অশেষ ধন্যবাদ। তবে আমার মনে হয় তোমার চুলের কাটিংটা একটু বদলানো উচিত। চুলগুলোর কারণে তোমার নাককে অনেক ছোট মনে হয়।’

২৫২)

তিন বান্ধবী বারে গিয়ে ঠিক করলো আজকে তারা মদ খেয়ে পাড় মাতাল হবে। তারপর বার থেকে বের হয়ে যে যার পথে বাড়ির দিকে যাবে। পরদিন সবাই আবার বারে দেখা করবে এবং কে কি মাতলামো করলো তা শেয়ার করবে। যে সবচেয়ে বেশি মাতলামি করছে বলে প্রমানিত হবে, সে বিজয়ী হবে আর অন্য দুজন তাকে একমাস ফ্রি মদ খাওয়াবে।

পরদিন তিন জন বারে এসে তাদের মাতলামির কাহিনী এক এক করে বর্ণনা করলো।

১ম জন বলল,”আর বলিস না, গতকাল বাড়ি ফেরার সময় আমি বেখেয়াল হয়ে গাড়ি রাস্তার পাশের খালে নামিয়ে দিসি। লোকজন যখন আমাকে উদ্ধার করলো, ততক্ষণ আমার পেট থেকে ৩ টা পুটি মাছ বের হইসে।”

২য় জন বলল, “এটা কিছু হইল নাকি! তুই আমার কাহিনী শুন, গতকাল বাড়ি গিয়ে আমি টনিরে ব্লো জব দিসি!”

৩য় জন বলল,”আমার মনে হয় আমি জিতব। কারণ আমি তো গতকাল বাসায় গিয়ে চুলা জ্বালাতে গিয়ে পুরো বাড়িতে আগুন ধরে দিসি। কি মজা একমাস তোদের টাকায় ফাউ মদ খাব!”

এবার ২য় জন বলল, “তুমি মনে হয় বুঝনি যে টনি আমার হাসবেন্ড না, ও আমার পোষা কুকুর!”

২৫৩)

আরাম খান কে  নিয়ে একবার এক টিভি এক অনুষ্ঠান এর আয়োজন করলেন। যেখানে আরাম খান এর চোখ বাধা থাকবে এবং দেশের বিভিন্ন নায়িকার চুমো খাবেন। তাকে বলতে হবে কে চুমো খেলেন।

১ম বার বাংলাদেশের নায়িকা অঞ্জুঘোষ চুপে চুপে চুমো খেয়ে গেলেন। আরাম খান চোখ বাধা অবস্থায় তিন সেকেন্ডের ভেতর বলে দিলেন, এটা অঞ্জু।

সবাই খুব অবাক হলেন!!! ২য় নাম্বারে এলেন সাবানা, সবাই জানে সাবানা ভালো মেয়ে, কোন ঘটনা নেই, আরাম খান হয়তো ধরতে পারবে না। কিন্তু বিধি বাম। আরাম খান ৪ সেকেন্ডর মাথায় বলে দিলেন এটা সাবানা।

একে একে শাবনুর, ময়ূরী সবাই ফেল মারলেন। আরাম খান সবার নাম বলে দিচ্ছেন।

পাশে মমতাজ দাঁড়ানো ছিলো। তিনি নায়িকা নন। কিন্তু আরাম খান এর এই ক্ষমতা দেখে তার মাথায় রক্ত উঠে গেল। তিনি বললেন , “দাঁড়া তোকে মজা দেখাই”

তিনি তাঁর শাড়িটা তুলে তার বিশেষ জায়গাটা দিয়ে আরাম খান এর ঠোটে একটি চুমো দিলেন। আরাম খান প্রায় দুই মিনিট চোখ বন্ধ করে বসে রইলেন। তারপর বললেন। “এটা আসাদুজ্জামান নূর”।

২৫৪)

৭০ বছরের এক বৃদ্ধ আরেক বৃদ্ধের বাড়িতে দাওয়াত খেতে গেলো।

সে খুবই impressed হলো যখন তার বন্ধু তার বৃদ্ধা স্ত্রীকে ‘জান’…’ময়না’ …’কলিজার টুকরা’ বলে ডাকছিল। যাওয়ার সময় সে তার বন্ধুকে বলল, “এটা অনেক সুন্দর, বিয়ের ৪০ বছর পরেও তুমি স্ত্রীকে নাম আদর করে এত সুন্দর করে ডাকো”

বৃদ্ধ নিচু গলায় বলল, “তার নাম আমি ১০ বছর আগেই ভুলে গেছি! আমি ভয়ে তার নাম টা জিজ্ঞেস করতে পারি নি, তাই এসব বলেই ডাকি …”

২৫৫)

এক লোক গেছে ডাক্তারের কাছে। তার থাই (উরু) পুড়ে গেছে। তো, ডাক্তার প্রেস্ক্রিপশন লিখলো,

(১) বার্নল।

(২) ভায়াগ্রা।

লোকটা প্রেস্ক্রিপশন দেখে তো অবাক!! জিজ্ঞেস করলো,

বার্নল তো বুঝলাম কিন্তু ভায়াগ্রা কেন? আমার তো …ইয়ে মানে…আমার তো তেমন কোন সমস্যা নাই!!

ডাক্তার : এইটা আপনার লুংগিকে আপনার পোড়া জায়গাটা থেকে দুরে রাখতে সাহায্য করবে।

২৫৬)

কমল আর তার বউ কমলা নিদারুণ অর্থকষ্টে আছে। অনোন্যপায় হয়ে এই অর্থকষ্ট লাঘবের জন্য কমলা সিদ্ধান্ত নিল সে পতিতাবৃত্তি করবে। তো, রাতের বারোটার সময় হতভাগিনী কমলা তার ঊনপাঁজুরে স্বামী কমলকে দালাল বানিয়ে হাজির হল শাহবাগের মোড়ের দিকে। কমল বললো, “শোনো, আমি সামনে থাকবো না, আমার শরম লাগে। আমি এই খাম্বার আড়ালে দাঁড়িয়ে থাকবো। মুলোমুলির ব্যাপারে কোন সমস্যা হলে তুমি আমার সাথে এসে মোলাকাত করবে। আমি সবকিছু বাতলে দেব।”

কমলা বিজন রাতে, সস্তা মেকআপ নিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ল রাস্তার ধারে। এমন সময় তার পাশে একটা ভ্যানঅলা এসে থামলো। জিজ্ঞেস করলো, “দর কত?”

কমলা বললো, “এক রেট, একশো টাকা।

ভ্যানঅলা বললো, “ধুর! আমার আছে মোটে তিরিশ ট্যাহা।”

কমলা কী যেন ভাবলো। তারপর দৌড়ে খাম্বার আড়ালে লুকিয়ে থাকা কমলের কাছে গিয়ে বললো, “ঐ ভ্যানঅলা ব্যাটার তিরিশ টাকা আছে। এটা দিয়ে ওকে কি করা যায়।”

কমল কিছুক্ষণ ভেবে বললো, “ওই, হাত দিয়ে একটু ঘষে-মেজে দিতে পারো আর কি।”

কমলা ফের ছুটে গেলো ভ্যানঅলার কাছে, “শোনেন, তিরিশ টাকা দিয়ে আমি আপনাকে হাত দিয়ে কিছুটা সুখ দিতে পারবো, এর বেশি না।”

গোবেচারা ভ্যানঅলা তাতেই রাজি হয়ে গেল। তারপর সে কমলার কাছে এগিয়ে গিয়ে তার লুঙ্গিটা অভদ্র পরিমাণ উচ্চতায় উঠিয়ে নিল। আর আড়াল থেকে বেরিয়ে এল যা, তা দেখে কমলা স্রেফ ভিরমি খেয়ে গেল। সে কিছুক্ষণ কী যেন ভেবে, ভ্যানঅলাকে অপেক্ষা করতে বলে কমলের কাছে ছুটে গেল পুনর্বার।

“কী বউ! তোমাকে এমন উত্তেজিত দেখাচ্ছে যে” বিস্মায়পন্ন হয়ে বললো কমল।

“কমল, জান আমার!” আপ্লুত কণ্ঠে বললো কমলা। “তুমি কি ওই লোকটাকে সত্তুরটা টাকা ধার দিতে পারবে?”

২৫৭)

পিচ্চি বল্টু মিয়া ঢাকা-চট্টগ্রামগামী বাসের সিটে বসে আছে। তার পাশের সিটে এসে বসলেন এক বৃদ্ধ লোক। বাস ছাড়ার কিছু পর তিনি বল্টু মিয়া কে বললেন, “শোন পিচ্চি। যদি পুরোটা পথে আমরা দুজন যদি এরকম মুখ গোমড়া করে বসে থাকি তাহলে সময়টা অনেক বিরক্তিকর মনে হবে। কিন্তু যদি খোশ গল্প করতে করতে যাই, তাহলে দেখবে, মনে হবে আমাদের গন্তব্যের দূরত্ব যেন অনেক কমে গেছে।”

পিচ্চি বল্টু মিয়া একটা কার্টুনের বই সবেমাত্র খুলেছিল। সে মুখে বিরক্তি নিয়ে বুড়োটার দিকে তাকালো। “ঠিক আছে।”, বললো বল্টু মিয়া । “কিন্তু আমরা কি নিয়ে আলাপ করতে পারি বলুন?”

“উমম, ঠিক বুঝতে পারছিনা।”, চশমায় আঙুল ঠেকিয়ে বললো বুড়ো। “তবে, নিউক্লীয় শক্তি নিয়ে আলোচনা করলে কেমন হয়?” পরক্ষণেই সচকিত প্রস্তাব রাখলেন তিনি।

পিচ্চি বল্টু মিয়া আবারো বুড়োটার দিকে বক্রদৃষ্টি হানলো। “আচ্ছা, তবে আমাকে একটা ব্যাপার বলুন।” বললো বল্টু । “একটু বয়েস হলেতো আমাদের কুঁচকি সংলগ্ন অংশে অনেক সুন্দর একগোছা চুল ওঠে, তাইনা।”

বুড়োটা একটু ভড়কে গেলো। তবুও আলোচনা চালিয়ে যাবার খাতিরে বললো, “হ্যাঁ, তা ওঠে।”

“কিন্তু এক বড়ভাই আমাকে বলেছেন, একটু বেড়ে উঠলে সে চুলের আগা নাকি অনেকের কুঁকড়ে যায়, আবার কারোটার আগা নাকি চিরে যায়। কিন্তু কেন?”

বুড়োটা হতভম্ব হয়ে জবাব দিল, “জানিনা তো!!”

তখন বল্টু মিয়া বললো, “আচ্ছা বলেন দেখি, যে লোক বালের আগাটাও জানেনা সে নিউক্লীয় শক্তি নিয়ে কী আলোচনা করবে??”

২৫৮)

মিয়ামি থেকে বস্টনে উড়ে যাবার সময় একবার আটলান্টিক কোস্টলাইনে ভয়াবহ এক বিমান দুর্ঘটনা ঘটলো। বিমানের প্রায় সব মানুষ মারা পড়লো। অনুসন্ধানকার্যে ঝানুতম- মার্কিন গোয়েন্দাব্যুরো এফবিয়াই, তটসীমা ধরে দুর্ঘটনাস্থল আঁতিপাঁতি করে চষে ফেললো। তবুও তারা ব্ল্যাকবক্সের একরত্তি টুকরোটাও পেলনা, যা থেকে অন্তত বোঝা যেতে পারতো, ঘটনা কীভাবে ঘটেছে। পাওয়ার বেলায় পেল কেবল একটা বাঁদর, যেটা সেই সময়ে ওই বিমানেই অবস্থান করছিল। কোন এক হতভাগা যাত্রীরই পোষা ছিল সেটা। মনিব মশায় অক্কা পেলেও, সৌভাগ্যের অতিশয্যে, বিমানের একমাত্র প্রাণী হিসেবে বেঁচে ছিল শুধুমাত্র মুখপোড়া বাঁদরটাই।

এফবিয়াই-এর প্রাণী প্রশিক্ষণ বিভাগ সপ্তাহকালের অক্লান্ত চেষ্টায় বাঁদরটাকে বিভিন্ন আকার-ইঙ্গিত শেখালো, যাতে তার কাছ থেকে দুর্ঘটনার কোন হেতু বের করে আনা যায়। ট্রেনিং সম্পন্ন হবার পর বাঁদরটা মুখোমুখি হলো তদন্ত বিভাগের। তদন্তকর্মে নিয়োজিত হলো সাতিশয় অভিজ্ঞ এক অফিসার।

“দুর্ঘটনার সময় বিমানের পাইলট কি করছিল?” বাঁদরে শুধালেন অফিসার।

জানোয়ারটা তার বাঁদরপনা লিঙ্গটা উম্মুখ করে দিয়ে, তার কটিদেশ সংলগ্ন অঞ্চল আগপিছ দুলিয়ে, মুখে শব্দ করলো, “ওহ ওহ ওহ…”

দুর্ঘটনার জটটা যেন আস্তে আস্তে খুলতে লাগলো। অফিসার সাহেব ভুরু-টুরু কুঁচকে ফের জিজ্ঞেস করলেন, “তখন, সহকারি বৈমানিক করছিলটা কি?”

এবার বাঁদরটা তার নির্দিষ্ট অঙ্গটাতে হস্তস্থাপন করলো। হাতকে আগপিছ ঝাঁকিয়ে, মুখটা প্রসৃত করে শব্দ করলো, “এহ এহ এহ…”

এবার অফিসার মহাশয় আরও অস্থির হলেন। তিনি সন্ধিগ্ধ নয়নে জিজ্ঞেস করলেন। “এয়ার হোস্টেস গুলা কি করছিল বলতে পারো?”

বাঁদরটা এবার তার ডবকা নিতম্বাংশ দুটো দুহাতে পাকড়ে সামনের দিকে ঝুঁকে গেল। মুখটা ভীষণ রকম কেলিয়ে শব্দ করলো, “ইহ ইহ ইহ….” ।

অফিসার সাহেব রিলাক্স করে বসলেন। তার কাছে সবকিছু জলের মত পরিষ্কার। আয়েসী ভাবেই হঠাৎ তিনি বাঁদরটাকে জিজ্ঞেস করলেন, “এমন ভয়ানক সময়টাতে তোমার কেমন লাগছিল? কি করছিলে তুমি তখন?”

এবার বাঁদরটা একটা কাল্পনিক স্টিয়ারিং ধরে বলে, “ভ্রুম্‌ম্‌… ভ্রুম্‌ম্‌…”

২৫৯)

আরাম খান কসমেটিকসের দোকানে এসে দোকানদারকে বললেন, “আমাকে একটা লতা হারবালের ডিওডোরেন্ট দিন তো।”

“কি ধরণের” জিজ্ঞেস করলো দোকানদার। “বগলের ডিওডোরেন্ট নাকি মুখের গন্ধনাশক ডিওডোরেন্ট।”

আরাম খান সপাটে বললেন, “ধুর ওসব না। পাছার ডিওডোরেন্ট।”

দোকানি ভ্যাবচেকা খেলো। “অ্যাঁ, এইসব কি বলেন। এই ধরণের ডিওডোরেন্ট আবার হয় নাকি?”

“আরে কি দোকানদারি করেন এখনো ডিওডোরেন্টের রকম সকম জানেন না।” রেগে বললেন আরাম খান। “গত দু বছর যাবৎ আমি এই ধরণের ডিওডোরেন্ট ব্যবহার করে আসছি, আর আপনি এসে বলছেন এইগুলার অস্তিত্বই নেই। যত্তোসব।”

দোকানি আকাশ থেকে পড়লো যেন। “ঠিকাছে মানছি” বললো সে। “আপনি কি আপনার পুরোনো ব্যবহার্য একটা নমুনা এনে দেখাতে পারবেন? তাহলে হয়তো আমি নিজের ভুলটা বুঝতে পারবো।”

“ঠিকাছে।” বলে আরাম খান বেরিয়ে গেলেন।

পরের দিন একটা খালি ডিওডোরেন্ট স্টিক হাতে করে আবার সেই দোকানে এলেন তিনি। দোকানি সেটা দেখে বললো, “আরে এটাতো একটা নর্মাল ডিওডোরেন্ট।”

“কী যা তা বলছেন।” বললেন আরাম খান। “ভালো করে পড়ে দেখুন, ‘ব্যবহারবিধি’ তে কি লেখা আছে।” তারপর জিনিসটার গায়ে ‘ব্যবহারবিধি’ অংশটা নির্দেশ করে বললেন, “লেখা আছে, ‘এই গন্ধনাশকটি ব্যবহার করিতে হইলে পিছন দিকে ধরুন, তারপর আলতো করিয়া চাপ দিন…”

২৬০)

অফিসের কাজে একবার আরাম খান এক শহরে গেলেন। কিন্তু রাতে থাকার জন্য হোটেল খুজতে গিয়ে পড়লেন বিশাল এক ঝামেলায়, কারণ কোনো হোটেলে রুম পাওয়া যাচ্ছেনা! ঘুরতে ঘুরতে ক্লান্ত হয়ে শহরের শেষ প্রান্তের শেষ হোটেলে গিয়ে হাজির হলেন।

হোটেলের ম্যানেজার বলল, “খালি রুম তো নাই, কিন্তু দোতলায় একটা ডাবল রুমের একটা বেড খালি আছে। কিন্তু একটা সমস্যা আছে! পাশের বেডের লোকটি প্রচন্ড জোরে নাক ডাকে সারারাত। বেশ কয়েকজন চেষ্টা করেও রাতে ঘুমাতে পারেনি। তাই মনে হয় আপনিও পারবেন না!”

আরাম খান বললেন,”ভাই আমি থাকতে পারব, সমস্যা হবে না!”

কি আর করা, হোটেলের ম্যানেজার তাকে ওই রুমে থাকার ব্যবস্থা করে দিলেন। পরদিন সকালে আরাম খান বেশ সতেজ ও ফুরফুরে মেজাজে নিচতলায় সকালের নাস্তা করতে এলেন। হোটেলের ম্যানেজার তাকে দেখে জিগ্যেস করলেন ঘুম কেমন হয়েছে?

আরাম খান বললেন যে তিনি খুব এরচেয়ে ভালো ঘুম আর কোনদিন ঘুমাননি!

হোটেলের ম্যানেজার অবাক হয়ে বললেন, “কিভাবে সম্ভব হলো?”

জবাবে আরাম খান হাসতে হাসতে বললেন,”রাতে রুমে ঢুকেই আমি তার গালে একটা চুমু দিয়ে বললাম যে সে খুব সুন্দর! এরপর নিজের বেডে গিয়ে ঘুমিয়ে পরলাম। আর ও সারারাত বেডে বসে থাকলো!”

২৬১)

শুঁড়াইখানায় এসে আরাম খান তার মাতাল ইয়ার দোস্তদের সাথে মাতলামিতে ব্যস্ত। পানপাত্রে খানিকটুক বাংলামদ ঢেলে হুট করে একজন বলে উঠলেন, “আজকের রাতটা খুবই পয়মন্ত রাত। চল আমরা কিছু একটা উইশ করি।”

আরাম খান কলকল করে মদ ঢাললেন তার গ্লাসে। তারপর সেটা উঁচিয়ে ধরে বলতে থাকলেন, “আমি আমার সুন্দরী বউয়ের দুই পায়ের ফাঁকে বাকি জীবন কাটিয়ে দিতে চাই, হাহাহাহাহা।” এই বলে কয়েক ঢোক গিলে ফেললেন তিনি।

তার এই কামনাবাক্য সবার পছন্দ হলো। শুঁড়িঘর জুড়ে বেশ একটা রো রো শব্দ পড়ে গেল।

বাসায় ফিরে বউকে গিয়ে আরাম খান বললেন, “বুঝলে গিন্নী, আজ একটা পার্টিতে তোমাকে স্মরণ করে এমন এক সুন্দর উইশ করেছি না, আমার বন্ধুসকল তো আমার প্রশংসায় একেবারে পঞ্চমুখ।”

“অ্যাঁ! কি উইশ করলে? কোথাকার পার্টি?”

আরাম খান সম্বিত ফেরে পেলেন। তিনি জানেন, এসব মদখাওয়াখাওয়ি তার স্ত্রীর পছন্দ না, তারপর আবার তার কামনাবাক্যটাও খুব একটা শ্লীল কিছু ছিল না। আরাম খান খানিক সবর করে বললেন, “মানে বলেছিলাম কি, ওরা তো সবাই জানে যে আমরা কক্সবাজারে বাড়ি কেনার প্লান করছি। তো উদাত্ত স্বরে উইশ করলাম- তোমাকে নিয়ে আমি সুন্দর সমুদ্র সৈকতে, আবেগঘন পরিবেশে, বাকি জীবন কাটিয়ে দিতে চাই।”

স্ত্রী শুনে খুব লাজুক একটা হাসি দিলেন।

পরের দিন আরাম খানের স্ত্রী গেছে সদাইপাতি কিনতে। পথে তার সাথে দেখা হলো, সেদিনকার সেই শুঁড়িখানায় উপস্থিত থাকা আরাম খানের এক বন্ধুর।

“কী ভাবি, আরাম খান তো দেখি আপনাকে খুব ভালোবাসে। সেদিনতো তিনি কী উইশটাই না করেলন!” এইবার একটু বাঁকা হেসে তিনি বললেন, “তো, এ পর্যন্ত কবার যাওয়া হয়েছে ওজায়গায়…?”

মহিলা লাজুক হেসে বললেন, “বেশি না, মাত্র দুবার। প্রথম বার তো সে ঘুমিয়েই কাটিয়েছে সারাটা সময়, তাই আমিও তেমন মজা করার সুযোগই পাইনি। আর দ্বিতীয়বার ওখানটায় গিয়ে তার ইয়ে করতে করতেই টাইম গেছে, মানে বুঝলেন তো…” আবারো লাজুক হাসলেন তিনি, “সেসময় তার বহুমূত্র রোগটা একটু বেড়েছিল কিনা….”

২৬২)

মাদক সেবনের দায়ে দুজন ছেলেকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসলো পুলিশ। কিছুদিন কারাভোগের পর জজসাহেবের হাতে সোপর্দ করে দিল। জজসাহেব তাদের খুব করে দেখে বললেন, “দেখো। তোমাদের দেখে মনে হচ্ছে তোমাদের মধ্যে তারুণ্যের শক্তি এখনো ক্ষয়ে যায়নি। তোমাদের যদি এখুনিই পাকাপাকিভাবে জেলে পুরে ফেলার ফরমান জারি করি, তাহলে দু দুটো তরুণ সম্পদ বিফলে যাবে। তাই আমি তোমাদের ঠিকানা টুকে নিলাম, আর তোমাদের একবার সু্যোগ দিচ্ছি আবার লোকালয়ে ফিরে যাওয়ার। তোমরা যদি মাদকবিরোধী ব্যাপক প্রচারণা চালাতে পারো, আর বেশ কিছু মাদকাসক্তকে মাদকমুক্ত করতে পারো, তাহলে তোমাদের শাস্তি মওকুফের ব্যবস্থা আমি নিজেই করবো।”

এক সপ্তা পর সেই ছেলেদুটোকে আবার আদালতে হাজির করা হল। জজসাহেব প্রথমজনকে জিজ্ঞেস করলেন, “তুমি কতজনকে মাদকবিমুখ করতে পেরেছ?”

সে বললো, “সতেরো জনকে, ইওর অনার। তাদেরকে এমনভাবে প্রণোদিত করেছি যে তারা আর বাকি জীবন মাদক ছুঁয়েও দেখবে না।”

“বেশ তো”, বললেন জজসাহেব, “কীভাবে করলে?”

ছেলেটা চটপট একটা কাগজ আর একটা কলম তুলে নিয়ে দুটো বৃত্ত আকলো এভাবেঃ O o । অর্থাৎ একটা বড় আর পাশেরটা ছোট। তারপর সে বড়টার উপর আঙুল ধরে বললো, “আমি তাদেরকে বলেছি, মাদক নেয়ার আগে এটা হলো তোমাদের মস্তিষ্কের আকার।” তারপর ছোটটার দিকে আঙুল সরিয়ে বললো, “মাদক নেয়া শুরু করলে তোমাদের মস্তিষ্কের আকার ছোট হয়ে দাঁড়ায় ঠিক এমন।”

“বাহ, প্রশংসনীয় কাজ!” বললেন জজসাহেব। এবার দ্বিতীয়জনকে বললেন, “তুমি কজনকে মাদকের গ্রাস থেকে ফেরাতে পেরেছ?”

সে গম্ভীর গলায় বললো, “দুশো জনকে।”

জজসাহেব বলিহারী গেলেন। “এরমধ্যেই এত্তজন, চমৎকার! কিন্তু কীভাবে?”

প্রথমজনের আঁকা বৃত্তদুটোর ছোটটার উপর আঙুল রাখলো সে। “আমি সবাইকে বললাম, জেলে ঢোকার আগে এটা হলো তোমাদের পায়ুছিদ্রের আকার….”

২৬৩)

বিয়ে নিয়ে কথা হচ্ছে—

মার্কিন: জানো, আমাদের দেশে বিয়ে ই-মেইলে হয়।

ভারতীয়: বাহ্, খুব ভালো তো। কিন্তু আমাদের দেশে বিয়েটা শুধু ফিমেলের (নারী) সঙ্গেই হয়।

২৬৪)

অনেক আগের কাহিনী, যখন পাল তোলা জাহাজ চলাচল করতো সাগরে। তো, শুভেচ্ছা মিশনে পাঠানো ৪০০ জন সৈন্য সহ তাদের কমান্ডার ইংল্যান্ড থেকে নিউইয়র্কে ফিরছে। পালতোলা জাহাজ, তাতে আবার ইঞ্জিনও নেই, আর সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে এই জাহাজে কোন নারী সৈনিক বা ক্রু ও নেই। যেহেতু পালতোলা জাহাজ যাত্রায় প্রচুর শারীরিক পরিশ্রমের দরকার হয়, তাই সৈন্যরা যাতে দুর্বল না হয়ে পড়ে, সেজন্য কমান্ডার তাদের উপর কড়া আদেশ দিলো যে, জাহাজ নিউইওর্কে না পৌছা পর্যন্ত কেউ হাত মারতে পারবেনা। সে নিজেও মারবেনা, সেটাও গলা উচু করে বললো। তো, এইভাবে তাদের জাহাজ যাত্রা চলছে। ১ম সপ্তাহ গেলো, ২য় সপ্তাহ গেলো, ৩য় সপ্তাহ যাবার পর বেটা কমান্ডার নিজেই অস্থির হয়ে গেলো, হাত না মেরে যে আর পারা যাচ্ছেনা! অবশেষে, সে সব সৈন্যদের ডেকে বললো, জাহাজ অর্ধেক পথ চলে এসেছে, এখন সবাই হাত মারতে পারবে। তারপর সে নিজে একটা ড্রামের মাঝে হাত মেরে ইয়ে ফেললো। তার পরে বাকি সৈন্যরাও হৈ হৈ করে মনের আনন্দে হাত মেরে ঐ ড্রামে ইয়ে ফেলে অনেক দিনের কষ্ট লাঘব করলো। তো, ৪০১ জনের ইয়ে, তাই ড্রাম একেবারে ভর্তি হয়ে গেলো। তারপর, সবাই আবার নিজেদের কাজে মনোযোগ দিলো, ড্রামের দিকে আর কোনো খেয়াল রাখলো না। তার আরো ৩ সপ্তাহ পর জাহাজ যখন নিউইয়র্ক বন্দরে পৌছালো, ততোদিনে ড্রামের ইয়ে শুকিয়ে মোমের মতো হয়ে গেছে। সেটা দেখে কমান্ডারের মাথায় একটা আইডিয়া আসলো। ঐ সময় নিউইয়র্কে মোমের প্রচুর চাহিদা ছিলো, সে ড্রামের ইয়ে দিয়ে অনেক গুলো মোমবাতি বানিয়ে নিলো এবং বন্দরেই পাইকারি দোকানে চালান দিয়ে দিলো। দৈবক্রমে, সেই মোমবাতির চালানটা নিউইয়র্কের এক গার্ল কলেজ কিনে নিল। কলেজের সায়েন্স ল্যাব এর কাজে মোমবাতির প্রয়োজন ছিল।

তারপর বেশ কিছুদিন, প্রায় ৩ মাস কেঁটে গেলো, একদিন কলেজের ৫০ জন মেয়ে একসাথে উধাও! ঘটনা কি!

কিছুদিন পর জানা গেলো তারা সবাই নাকি একসাথে প্রেগন্যান্ট !!!

২৬৫)

বল্টু তার বউ-কে কুমিল্লা থেকে ফোন করল.ফোনটা এক চাকর ধরল-

চাকর : হ্যালো.

বল্টু : ম্যাম সাহেবকে ফোনটা দে.

চাকর : কিন্তু ম্যাম সাহেব তো সাহেবের সাথে বেড রুমে ঘুমাচ্ছে.

বল্টু : মানে?? সাহেব তো আমি.

চাকর : আমি এখন কি করব??

বল্টু : দুইজনকে-ই গুলি করে মেরে ফেল.

চাকর দুইজন-কে গুলি করে মারার পর,

চাকর : সাহেব, লাশ ২টা এখন কি করব??

বল্টু : লাশ ২টা বাড়ির পিছনের swimming poolএ ফেলে দে.

চাকর : কিন্তু সাহেব, বাড়ির পিছনে তো কোন swimming pool নেই.

বল্টু : নেই??? ওহ sorryতাহলে wrong number!!!!!!

২৬৬)

মেয়ে : আমি আমাদের এই প্রতিদিনের ঝগড়ায় খুবই বিরক্ত। আমাদের মধ্যে এখন understandingএর বড় অভাব। তাই আমার মতে আমাদের break up হয়ে যাওয়া-টা উচিৎ।

ছেলে : ঠিক আছে। প্রথমে চকলেট খাও।

মেয়ে : ওয়াও!!!! তুমি আমায় চকলেট দিলে, তার মানে তুমি আমাদের relationটা continueকরতে চাও???

ছেলে : না. মা বলেছে কোন শুভ কাজ করার আগে মিষ্টি মুখ করতে …

২৬৭)

ছেলে :কাল তোমায় কখন callদেব?

মেয়ে:তোমার যখন ইচ্ছা তখন

ছেলে:সকালে callদেই?

মেয়ে:ok. কিন্তু এত সকালে আমি ঘুম থেকে উঠি না.

ছেলে:তাহলে ১০টায় দেই?

মেয়ে:না,তখন বাবা বাসায় থাকে.

ছেলে:তাহলে ২টায় দেই?

মেয়ে:২টায় তো আমি lunchকরি.

ছেলে:ঠিক আছে,তাহলে ৫টায় দেই?

মেয়ে:তখন তো আমি আমার ফেভারিট সিরিয়াল দেখি.

ছেলে:তবে সন্ধ্যায়?

মেয়ে:সামনে xam,সন্ধ্যায় একটু পড়তে হবে.

ছেলে:তাহলে রাতে দেই?

মেয়ে: না না, রাতে সবাই বাসায় থাকে তখন কথা বলতে পারব না.

ছেলে:তাহলে কখন call দেব?

মেয়ে:তোমার যখন ইচ্ছা তখন!!

২৬৮)

এক লোক তার বন্ধুর বাসায় গেল। কলিং বেল টিপল। বল্টু দরজা খুলল।

লোক : তোমার বাবাকে একটু ডাক তো।

বল্টু : বাবা বাসায় নেই, বাজারে গেছে।

লোক : তাহলে তোমার বড় ভাইকে ডাক।

বল্টু : বড় ভাই তার বন্ধুদের সাথে ক্রিকেট খেলতে মাঠে গেছে।

লোক : তোমার মাকে ডাক, তিনি তো বাসায় আছে???

বল্টু : না। মা বিউটি পার্লারে গেছে.

লোক : (বিরক্ত হয়ে বলল) সবাই যখন বাইরে গেছে তখন তুমি ও কোথাও চলে যাও।

বল্টু : জ্বি, তাই তো আমি আমার বন্ধুর বাসায় চলে এসেছি…

২৬৯)

এক মেয়ে তার বান্ধবী কে বলছে, জানিস,গত কাল রাতে আমি স্বপ্নে দেখেছি, এক লোক আমাকে গুলি করে মেরে ফেলেছে.আমার এখন খুব ভয় লাগতেছে যদি সত্যি এমন হয় !!!

বান্ধবী : আরে এত চিন্তা করিস কেন? স্বপ্ন যদি সত্য হতো, তাহলে আমি প্রত্যেক দিনই Pregnant হতাম!!!!!

২৭০)

বল্টু তার গার্লফ্রেন্ডকে SMS করছে-

বল্টু : জানু কি কর???

বল্টুর গার্লফ্রেন্ড : শরীরটা ভাল লাগতেছে না, তাই শুয়ে আছি. তুমি কি কর???

বল্টু : শালি, তুই যে সিনেমা হলে বসে মুভি দেখতেছস সে সিনেমা হলে তোর পিছনে বসে বসে পপ কর্ন খাচ্ছি !!!

২৭১)

এক হাসপাতালের ওয়েটিং রুমে তিনজন লোক তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম নেয়ার অপেক্ষা করছিলো। নার্স বেরিয়ে এসে প্রথমজনকে বললো, অভিনন্দন, আপনার যমজ বাচ্চা হয়েছে।

লোকটি খুশি হয়ে বললো, আরে, আমি তো মিনোসেটা টুইনস (মিনোসেটা যমজ)- প্রতিষ্ঠানে কাজ করি।

একটু পর নার্স বেরিয়ে এসে দ্বিতীয়জনকে বললো, অভিনন্দন, আপনার ৩টি বাচ্চা একসাথে হয়েছে।

লোকটি খুশি হয়ে বললো, আরে আমি তো থ্রি-এম -এ কাজ করি।

এ কথা শুনে তৃতীয়জন খোলা জানালা দিয়ে বাইরে লাফ দিলো। নার্স বেরিয়ে এসে জিজ্ঞেস করলো বাচ্চার বাবা কোথায়। অন্য দু’জন উত্তর দিলো, জানালা দিয়ে লাফ দিয়ে নিচে পড়ে গেছে।

– কেন? নার্স অবাক।

– ও সেভেন-আপে কাজ করে। একজনের উত্তর।

২৭২)

তখন ছাত্র, সাথে অনেক নেপালী-শ্রীলঙ্কানও আছে। ওয়ার্ডে নতুন নতুন প্লেসমেন্ট। এইসময় একটাই কাজ, রোগীর হিস্ট্রি নিতে শেখা। সহপাঠী নেপালীরা ততদিনে ভাঙা ভাঙা বাংলা শিখে গেছে। এক নেপালী বন্ধু এক ডিসেন্ট্রি রোগীর হিস্ট্রি নিচ্ছিলঃ

বন্ধুঃ “আপনার কি সোমোসা?”

রোগীঃ “ফ্যাড বিষ গরার, জ্বর, দুর্বল্লাগের, ফাহানার লগে আম যার” [পেটে ব্যাথা, জ্বর, দুর্বলতা, মলের সথে বিকার যাচ্ছে]

বন্ধুটি ঝটপট লিখে ফেলেঃ Abdominal pain with fever and weakness. Also complaints of mango passing through stool.

২৭৩)

[নোটঃ ডাক্তারী ভাষায় হাতের আর পায়ের আঙুলকে বলা হয় ডিজিট।]
আল আমীন ক্লিনিকে ইমার্জেন্সীতে ডিউটি করছিলাম। তখন আওয়ামী সরকার মাত্র ক্ষমতা গ্রহণ করেছে। শেখ হাসিনা এবং তাঁর উক্তি তখন ব্যাপক আলোচিত। এক লোক আসে, সড়ক দুর্ঘটনায় তার ডান হাতের বুড়ো আঙুল থেঁতলে গেছে, সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে নখ। ভাল করে পরীক্ষা করে দেখে বুঝলাম, নখ ফেলে দিতেই হবে। রোগীকে সে কথা জানাতেই আঁৎকে ওঠে। তাঁকে অভয় দেয়ার জন্য বলি, “ভয়ের কিছু নাই, আপনি ব্যাথা পাবেন না, ডিজিটাল এনেস্থেশিয়া দিয়ে, আপনার আঙুল অবশ করে তারপর নখ ফেলব।” লোকটা বলে, “দেশ তো দেশ, এখন এনেস্থেশিয়াও ডিজিটাল হই গেসে???”

২৭৪)

নোয়াখালীতে রয়্যাল হাসপাতালে আর এম ও হিসেবে কর্মরত ছিলাম। সেখানে এক রোগী আসে Infected sebaceous cyst নিয়ে। [আমাদেরত্বকে দুই রকম গ্রন্থি থাকে, একটি ঘর্মগ্রন্থি, আরেকটি তৈলগ্রন্থি, দ্বিতীয়টিকে বলা হয় সিবেশাস গ্ল্যান্ড। কোন কারণে এর মুখ বন্ধ হয়ে গেলেভেতরে গ্রন্থির নিঃসরণ জমতে থাকে। ওখানে জীবাণুর সংক্রমণ হলে এই অবস্থারউদ্ভব হয়।] পরীক্ষা নিরীক্ষার পর জানালাম, একটা ছোট্ট অপারেশন করে ওটা কেটে ফেলতে হবে। স্বাভাবিকভাবেই অপারেশনের কথা শুনে লোকটি ঘাবড়ে যায়। তখন তাকে আশ্বস্ত করার জন্য বলি, ” ভয় পাবেন না, এটা আহামরী বিরাট কোন অপারেশন না। এমনকি এই অপারেশনের জন্য আপনাকে হাসপাতালেও ভর্তি হতে হবে না। শুধু এই ফোঁড়াটা এবং এর চারপাশটা লোকাল এনেস্থেশিয়া দিয়ে অবশ করে, টুক করে ফোঁড়াটা কেটে ফেলব, আপনি ব্যাথা দূরে থাক, একদম টেরই পাবেন না।” একটু ইতস্তত করে তিনি বলেন, “স্যার, অপারেশন করবেন যখন, ভাল জিনিস দিয়ে করেন। লোকাল কেন দিবেন, বিদেশী নাই?”

২৭৫)

ফদ্দানা মানে …

এক ফার্মেসীতে গিয়েছিলাম আম্মুর জন্য ঔষধ কিনতে। দোকানে দুই কর্মচারী। একজন আমার জন্য ঔষধ খুঁজছিল। অন্যজনের সাথে আমি কথা বলছিলাম। জানতে পারি, ইনি বগুড়া থেকে এসেছেন দুই সপ্তা হয়, এখন চাচার দোকানে কাজ শিখছেন। তখন আরেক ক্রেতা এসে দ্বিতীয় দোকানীকে বলে, “ফদ্দানা আসে না?” [‘ফদ্দানা’ আছে?] দ্বিতীয়জন অবাক, “ফদ্দানা?” লোকটা বলে, “অ, ফদ্দানা এরি। আসে না?” [হ্যাঁ, ‘ফদ্দানা’, আছে?]
দোকানীঃ “নাই”
ক্রেতাঃ “ইবা হন্ডইল্ল্যা অষূদর দোয়ান, ফদ্দানা ন বেসে!” [এইটা কিরকম ওষুধের দোকান, ‘ফদ্দানা’ বেচে না!]
ততক্ষণে প্রথম দোকানী আমার জন্য ঔষধ নিয়ে এসেছেন। তিনি জানতে চান ব্যাপার কি।
ক্রেতা আবার বলে, “ফদ্দানা নাই?”
“আসে তো।” প্রথমজনের ত্বরিত জবাব, এবং পালটা প্রশ্ন, “হন্ন্যুয়া লাইবু?” [কোনটা লাগবে?]
“বাগর ইবা, এক ফেকেট দিও” [বাঘেরটা, এক প্যাকেট দিও]
প্রথম দোকানী এবার তাঁকে এক প্যাকেট “প্যান্থার কনডম” দিয়ে দেন।

২৭৬)

এক মামার কাছে একটা জরুরী কাজে তাঁর গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীতে গিয়েছিলাম, তিনি বায়ারদের সাথে মিটিং এ ব্যস্ত থাকায় বাইরে অপেক্ষা করার সময় শুনলাম, কোন একজন উর্ধ্বতন কেউ, তাঁর অধস্তনকে ঝাড়ি দিচ্ছে, “ইউ লিস্টেন, ইউ নু টক হুন আই টক। আই গট কমপেলেন ইউ নট কামিং টাইমলি। ইউ ডু আড্ডাবাজী ইন অফিস, ইউ নু ওয়ার্ক রাইট, ইউ মিসটেক ভেরি মাচ। … শেটাপ! খবদ্দার, ইউ নু টক হুন আই টক। এম ডি সার টেল মি, হি উইল খাট ইউর বেতন। আই রিখোয়েস সার নো বেতন কাট, গিভ ওয়ান চান্স। … শেটাপ, নু টক! মাউত ক্লুস! ইউ হুদা লিস্টেন … … …

২৭৭)

স্ত্রী: এতক্ষণ ধরে ওই কাগজটিতে কী দেখছ তুমি?
স্বামী: কই, কিছু না তো!
স্ত্রী: আরে, এ যে দেখি ডাহা মিথ্যে কথা বলছ। তুমি প্রায় চার ঘণ্টা ধরে আমাদের কাবিননামা এত খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখছটা কী, শুনি?
স্বামী: না, তেমন কিছু নয়। অনেকক্ষণ ধরে খুঁজেও কেন জানি কাবিননামার মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখটা বের করতে পারলাম না।

২৭৮)

“ম্যায়নে তুঝে দিল দিয়া নাদান সামাঝকে,
তুনে উসে খা লিয়া বাদাম সামাঝকে!”

২৭৯)

এক বাসায় একটা রোবট ছিল , কেউ মিথ্যা বললে থাপ্পর মারত। এক দিন……

ছেলেঃ আমি আজ স্কুলে যাব না,আমার পেটে ব্যথা ।

রোবটঃ মারল এক থাপ্পড়।

বাবাঃ তোমার মত থাকতে কখনও মিথ্যে বলতাম না ।

রোবটঃ বাবাকে মারল এক থাপ্পড় ।

মাঃ কি হইসে?

বাবাঃ তোমার ছেলে মিথ্যা বলসে ।

মাঃ বলবে না? তোমার ই তো ছেলে ,

রোবটঃ মাকে মারল এক থাপ্পড় ।

২৮০)

রাতে শোওয়ার আগে স্ত্রীর মনে পড়ল আজ বিকেলে ছেলেকে বারান্দায় দাঁড়িয়ে পাশের বাড়ির টুনির সঙ্গে কী যেন ফিসফিস করতে দেখেছেন।

তিনি স্বামীকে ডেকে বললেন, ‘হ্যা গো শুনছ, আমাদের ছেলে বড় হচ্ছে। তোমার কি মনে হয় না ওকে কিছু ব্যাপার বুঝিয়ে বলা উচিত? তুমি বরং আজকেই ওকে সেক্সের ব্যাপারে সবকিছু বুঝিয়ে বল। তবে একবারেই সব বলে দিও না যেন, ফুল কিংবা মৌমাছি থেকে শুরু কর।’

অনিচ্ছা সত্ত্বেও স্বামী বিছানা ছেড়ে উঠে দাঁড়াল। ছেলেকে আড়ালে ডেকে নিয়ে গেল। ‘হ্যা রে বাবু, তোর কি মনে আছে, গত হপ্তায় টুনির সঙ্গে তুই আর আমি কী করেছিলাম?’

‘হ্যাঁ বাবা।’

‘মৌমাছিরাও ওগুলোই করে।’

২৮১)

এক ফরাসি তরুণী হারিয়ে গেছে।

ঘোড়ায় চড়ে এক রেড ইন্ডিয়ান এসে তাকে প্রস্তাব দিলো কাছের শহরে পৌঁছে দেয়ার।

রাজি হয়ে তরুণী তার ঘোড়ার পেছনে চড়ে বসলো। ঘোড়া ছুটতে লাগলো।

কিন্তু কোন এক বিচিত্র কারণে একটু পরপর রেড ইন্ডিয়ান লোকটি “আআআআআহহ” করে বিকট চিৎকার দিতে লাগলো।

শহরে পৌঁছে বাস স্টেশনের সামনে লোকটি নামিয়ে দিলো তরুণীকে, তারপর আরেকটা বিকট ইয়াহু চিৎকার দিয়ে উল্টোপথে ছুটে গেলো।

বাস স্টেশনের অ্যাটেন্ড্যান্ট বললো, ‘কী ব্যাপার, কী করেছেন আপনি, লোকটা অমন ক্ষেপে গেলো কেন?’

ঘাবড়ে গিয়ে তরুণী বললো, ‘কিছুই না। আমি তো ওর পেছনে ঘোড়ায় চড়ে বসেছিলাম, আর ওর হাত বাড়িয়ে ওর স্যাডলের সামনের দিকে হ্যান্ডেলটা শক্ত করে চেপে ধরে রেখেছিলাম শুধু।’

অ্যাটেন্ড্যান্ট বললো, ‘মিস, রেড ইন্ডিয়ানদের ঘোড়ায় স্যাডল থাকে না।’

২৮২)

একটা বারে এক বুড়ো কাউবয় বসে আছে, পুরো কাউবয় সাজে। এক তরুণী এসে তার পাশে বসলো।

‘তুমি কী সত্যিই একজন কাউবয়?’ জিজ্ঞেস করলো সে।

কাউবয় বললো, ‘আসলে, আমি আমার সারাজীবন কাটিয়েছি খামারে। গরু পেলে বড় করেছি, বুনো ঘোড়া পোষ মানিয়েছি, ভাঙা বেড়া সারিয়েছি … মনে হয় আমি একজন কাউবয়।’ একটু থেমে জিজ্ঞেস করলো সে, ‘তা, তুমি কী করো?’

তরুণী উত্তর দিলো, ‘আমি একজন লেসবিয়ান। সারাদিন আমি মেয়েদের চিন্তা করি। ঘুম থেকে উঠেই আমি মেয়েদের নিয়ে ভাবি। আমি যখন খাই, টিভি দেখি, ব্যায়াম করি, তখনও আমি মেয়েদের কথা ভাবি।’ এ কথা বলে মেয়েটা ড্রিঙ্ক শেষ করে উঠে চলে গেলো।

একটু পর আরেকটা মেয়ে এসে বসলো কাউবয়ের পাশে।

‘হাই, তুমি কি সত্যিই একজন কাউবয়?’ জিজ্ঞেস করলো মেয়েটা।

কাউবয় বিষণ্ন মুখে বললো, ‘আমি তো সারাটা জীবন তা-ই জানতাম, কিন্তু একটু আগে টের পেয়েছি, আমি আসলে একজন লেসবিয়ান।’

২৮৩)

এক বেদুঈন উটে চড়ে মরুভূমি পার হচ্ছে। দিনের পর দিন মরুভূমিতে চলতে চলতে হাঁপিয়ে উঠেছে সে, সেক্সের জন্যে আনচান করছে মন। একদিন সে ঠিক করলো, উটটাকেই ব্যবহার করবে সে। যে-ই ভাবা সে-ই কাজ, উটের পিঠ থেকে নেমে সে উটের পেছনে গিয়ে দাঁড়ালো। কিন্তু উট তার মতলব বুঝতে পেরে দিলো ছুট। খানিকটা ছুটে হাঁপাতে হাঁপাতে উটটাকে পাকড়াও করে আবার মরুভূমি পাড়ি দিতে লাগলো বেদুঈন। কিন্তু পরদিন ভোরে আবার তার খায়েশ হলো। আবারও সে উটের পেছনে গিয়ে দাঁড়ালো। উটও আগের মতো ছুট দিলো। বেদুঈন গালি দিতে দিতে আবার উটটাকে পাকড়াও করে পথ চলতে লাগলো।

এমনি করে একদিন সে এক হাইওয়ের পাশে এসে দাঁড়ালো। সেখানে একটা গাড়ি নষ্ট হয়ে পড়ে আছে, আর গাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে স্বল্পবসনা অপরূপ রূপসী তিন তরুণী। উট থেকে নেমে এগিয়ে গেলো সে।

‘আপনাদের কিভাবে হেল্প করতে পারি?’ জানতে চাইলো সে।

তরুণীদের একজন, সবচেয়ে আবেদনময়ী যে, লাস্যময়ী ভঙ্গিতে বললো, ‘দেখুন না, গাড়িটা নষ্ট হয়ে আছে। এখন যে কী হবে! কেউ যদি গাড়িটা ঠিক করে দিতো, তাহলে সে যা চাইতো তা-ই দিতাম আমরা।’

বেদুঈন এগিয়ে গিয়ে বনেট খুলে তিন মিনিট ঘাঁটাঘাঁটি করতেই গাড়ি আবার জ্যান্ত হয়ে উঠলো। তিন রূপসী এবার ঘিরে ধরলো তাকে। ‘বলুন কিভাবে আপনার এই উপকারের প্রতিদান দিতে পারি?’ মোহনীয় হাসি ঠোঁটে নিয়ে জানতে চাইলো তারা।

বেদুঈন খানিকটা ভেবে বললো, ‘পাঁচ মিনিটের জন্যে আমার উটটাকে একটু শক্ত করে ধরে রাখতে পারবেন?’

২৮৪)

বনের রাজা টারজান তিরিশ বছর ধরে জঙ্গলে বাস করছে, সেখানে নানারকম পশুপাখি থাকলেও কোন মানুষ নেই। উদ্ভাবনী মস্তিষ্কের অধিকারী টারজান তাই বিভিন্ন গাছের গায়ে ফুটো করে নিয়েছে, প্রথম রিপুকে মোকাবেলা করার জন্যে। মহিলা সাংবাদিক জেন একদিন জঙ্গলে গিয়ে দেখলো, টারজান মহা উল্লাসে একটি গাছের সাথে প্রেম করে চলছে।
এই দৃশ্য দেখে জেন খানিকটা ভালোবাসা, খানিকটা অনুকম্পা বোধ করলো টারজানের জন্যে, সে জামাকাপড় খুলে আড়াল ছেড়ে বেরিয়ে এসে টারজানের উদ্দেশ্যে নিজেকে নিবেদন করলো।
টারজান তখন গাছ ফেলে ছুটে এসে জেনকে অবাক চোখে কিছুক্ষণ দেখলো, তারপর জেনের পেটে কষে একটা লাথি মারলো।
পেট চেপে ধরে মাটিতে লুটিয়ে পড়লো জেন। ‘জংলি ভূত, আমি তোমাকে প্রেম নিবেদন করলাম, আর তুমি কি না আমাকে লাথি মারলে?’ চেঁচিয়ে উঠলো সে।
টারজান এগিয়ে এসে জেনকে জাপটে ধরে বললো, ‘সবসময় চেক করে দেখি, মৌমাছি আছে কি না।’

২৮৫)

বিক্রেতা: এই নিন আপনার টয়লেট পেপার। রসিদ লাগবে?

ক্রেতা: আপনি কি চান আমি এটা ব্যবহার করার পর আবার ফেরত দিতে আসি?

২৮৬)

স্কুলে বার্ষিক পরীক্ষা আরম্ভ হলো। পরীক্ষার হলে এক ছাত্রী জোরে জোরে কাঁদছে।

শিক্ষকঃ তুমি কাঁদছ কেন?

ছাত্রীঃ আমার রচনা কমন পড়েনি।

শিক্ষকঃ কেন? কী এসেছে?

ছাত্রীঃ এসেছে ‘ছাত্রজীবন’। স্যার, আমি তো ছাত্রী। ‘ছাত্রজীবন’ লিখব কীভাবে?

২৮৭)

পৃথিবীর সবচে’ ছোট্ট রুপকথার গল্পটা জানেন? না জানলে পড়ুনঃ

বহু বহু বছর আগের কথা। এক দেশে ছিল এক ছেলে আর এক মেয়ে। একদিন ছেলেটি মেয়েটিকে জিজ্ঞাসা করিল, ‘তুমি কি আমাকে বিয়ে করবে?’

মেয়েটি উত্তর দিল, ‘না।’

অতঃপর ছেলেটি সুখে-শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিল।

২৮৮)

বস বলছেন কর্মচারীকে, ‘আপনি কি মৃত্যুর পরের জনমে বিশ্বাস করেন?’

কর্মচারী: জি স্যার।

বস: হুমম্, করারই কথা। গতকাল আপনি মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীর কথা বলে অফিস থেকে ছুটি নেওয়ার পর আপনার মা অফিসে এসেছিলেন, আপনার সঙ্গে দেখা করতে!

২৮৯)

এক ভদ্রলোক গেছেন বাজারে, ডিম কিনতে।

ভদ্রলোক : এগুলো কার ডিম?

বিক্রেতা : আমার ডিম।

ভদ্রলোক : আমি মনে করেছিলাম মুরগির ডিম।

২৯০)

চার তরুণী নান এক কনভেন্টে যোগ দিতে চাইছে।

মাদার সুপিরিয়র বললেন, ‘তার আগে তোমাদের পরীক্ষা নেওয়া হবে। সবাই এক লাইনে দাঁড়াও।’

সবাই লাইনে দাঁড়ানোর পর তিনি প্রথম নানকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘বাছা, তুমি কি কখনও কোনও পুরুষের সেই প্রত্যঙ্গ স্পর্শ করেছ? করে থাকলে নিজের শরীরের কোন অঙ্গ দিয়ে স্পর্শ করেছ?’

লজ্জিত মুখে প্রথম নান বলল, ‘আঙুল দিয়ে, মাদার।’

মাদার সুপিরিয়র পবিত্র পানির একটি বাটি এগিয়ে দিলেন। ‘তোমার আঙুল এ পানিতে ডোবাও, সব পাপ ধুয়ে ফেল, পবিত্র হয়ে এসো আমাদের কনভেন্টে।’

প্রথম নান আঙুল পানিতে ডুবিয়ে কনভেন্টে ঢুকে গেল।

এবার মাদার সুপিরিয়র দ্বিতীয় নানকে বললেন, ‘কি বাছা, তুমিও স্পর্শ করেছ নাকি? স্পর্শ করে থাকলে নিজের শরীরের কোন অঙ্গ দিয়ে স্পর্শ করেছ?’

লজ্জিত মুখে দ্বিতীয় নান বললো, ‘হাত দিয়ে, মাদার।’

যথারীতি মাদার সুপিরিয়র পবিত্র পানির বাটি এগিয়ে দিলেন, হাত ধুয়ে পাপমুক্ত হয়ে দ্বিতীয় নান কনভেন্টে প্রবেশ করল।

এমন সময় চতুর্থ নান তৃতীয় নানকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে সামনে এগিয়ে এল। মাদার অবাক হয়ে বললেন, ‘ও কি, বাছা, ঈশ্বরের পথে অত তাড়া কিসের?’

চতুর্থ নান বলল, ‘উঁহু, মাদার, ও এই পানিতে বসে পড়ার আগেই আমি কুলি করতে চাই।’

২৯১)

: বলোতো মুরগির ব্রেস্ট নেই কেন ?

: মোরগের হাত নেই বলে।

২৯২)

ডান্স পার্টি হচ্ছে। এক স্মার্ট যুবক তার চেয়েও লম্বা সুন্দরী এক তরুনীকে তার সাথে নাচার আমন্ত্রন জানাল।
: ধন্যবাদ। কোনো বাচ্চাকে নিয়ে আমি নাচি না।
: সরি! মিস, আপনার যে বাচ্চা হবে তা আমি জানতাম না।

২৯৩)

প্রশ্নঃ পাত্রী দুইখান, ১ম জন পরমা সুন্দরী, যৌবনবতী কিন্ত পুরা চরিত্রহীনা আর পরের জন মহা সতী-সাধ্বী, চরিত্রবতী কিন্ত চেহারা কুৎসিত- কারে বিয়া করবেন?
উত্তরঃ সারাজীবন একা একা বিষ্ঠা খাওয়ার চাইতে- সবাই মিলে মিষ্টি খাওয়া ভালো।

২৯৪)

ছেলেঃ বাবা, বড়ভাইয়া তো দরজা খুলছে না!

বাবাঃ খুলবে খুলবে, কাল রাতে তোমার ভাইয়ার বাসর রাত ছিল তো, ক্লান্ত তাই এখনও দরজা খুলছে না।

ছেলেঃ ঠিক আছে বাবা, কিন্তু রাতে ভাই আমার কাছে কোল্ড ক্রিম চাইলে আমি তো ভুলে ফেবিকল (সুপার গ্লু) দিয়েছি। সেই জন্য চিন্তা করছি।

২৯৫)

জামাই বউ এসেছে ডাক্তার কাছে।

ডাক্তার বলল, কি হইছে?

বউ জামাইকে দেখিয়ে রাগী রাগী মুখে কয়, সে ত ৩০০% অক্ষম হয়ে পড়ছে।

-৩০০%? বুঝলাম না…

-১০০% অক্ষম কিভাবে সেটা ত আইডিয়া করতেই পারছেন, তাই না? এরপর শুনেন। সে তার জিহবা পুড়ে ফেলছে আর আঙ্গুল ভেঙ্গে বসে আছে।

২৯৬)

এক ছেলে দাদাকে বই পড়তে দেখে জানতে চাইলো, দাদু তুমি কি পড়ছো?

– ইতিহাসের বই।

– মিথ্যা কথা, তুমি সেক্সের বই পড়ছো।

– ওটা তো আমার জন্য ইতিহাসই।

২৯৭)

এক লোক সবাইকে ধাঁধাঁ জিজ্ঞেস করছে। প্রথম প্রশ্নের সঠিক জবাব দিতে পারলে ৫০০ টাকা, ২য়টা পারলে ৫০০০ টাকা। তো, একটি মেয়ে এলো। তাকে প্রথম প্রশ্ন – প্রথম মানব-মানবি কে?

মেয়ে ঃ আদম এবং ইভ।

জবাব সঠিক।

২য় প্রশ্ন – প্রথম দেখার পর ইভ আদমকে কি বলেছিল?

মেয়েটি এবার চিন্তায় পড়লো।মেয়েটি দেরি করছে দেখের লোকটি তাকে তাড়া দিলো। মেয়েটা ইতোস্ততঃ করে বল্লো – এটা তো বেশ শক্ত…’

লোকটি চেঁচিয়ে উঠলো – জবাব সঠিক, এই নিন ৫০০০ টাকা।

২৯৮)

এক বারবণিতাকে শেখ সাহেবের মনোরন্জনের জন্য মনোনিত করা হলো।

তো শেখ সাহেব প্যান্ট খুলতেই – বারবণিতাটি “ওয়াও” বলে উঠলো।

শেখ সাহেব বল্লেন, ইটস নট “ওয়াও” ইটস আ “আলিফ” !

২৯৯)

স্ত্রী স্বামীকে ই-মেইল খোলা শেখাচ্ছিলো। এক পর্যায়ে পাসওয়ার্ড সেট করার জায়গায় স্ত্রী বলে দিলো এখানে পাসওয়ার্ড সেট করো।

স্ত্রীর সাথে মজা করার জন্য স্বামী স্ত্রীকে দেখিয়ে দেখিয়ে আস্তে আস্তে টাইপ করলো- P… E…N….I….S.

কম্পিউটার উত্তর দিলো, Password denied…. Not long enough.

৩০০)

‘সুপারম্যান’ কেন স্টুপিড?!?

>>>কারণ ব্যাটা প্যান্টের উপ্রে আণ্ডারওয়্যার পড়ে

¤’ব্যাটম্যান’ কেন আরো বড় স্টুপিড?!?

>>>কারণ এই ব্যাটা প্যান্টের উপ্রে আণ্ডারওয়্যার তো পড়েই; সেই আণ্ডারওয়্যার আবার বেল্ট দিয়া আটকাইয়া রাখে

‘স্পাইডারম্যান’ কেন এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি স্টুপিড?!?

>>>কারণ এই উজবুক তার আণ্ডারওয়্যার মাথার উপরে পড়ে…

৩০১)

আমেরিকা প্রবাসী এক ইটালীয় ফ্যামিলির মেয়ে যাচ্ছে জীবনের প্রথম ডেটে। তার দাদী তাকে ডেকে বলল, শুনো। ছেলেটা তোমার হাত ধরতে চাইবে- তুমি কিন্তু সহজে হাত ধরতে দিবে না। তোমার এই কাজে আমাদের পরিবারের অসম্মান হবে।

-আচ্ছা দাদী।

-ছেলেটা হয়ত তোমাকে চুমু খেতে চাইবে- খবরদার রাজি হবে না। আমাদের পরিবারের এতে অসম্মান হবে।

-ঠিক আছে।

-ছেলেটা হয়ত তোমার বুকে হাত দিতে চাইবে- খবরদার সুযোগ দিবে না।

-হুমম। দিব না সুযোগ।

-ছেলেটা হয়ত তোমার উপর শুতে চাইতে পারে- খবরদার রাজি হবে না। আমাদের পরিবারের চরম অসম্মান হবে এতে…

মেয়ে ডেট শেষ করে বাসায় এসেছে।

-ও দাদী তুমি ত সত্য বলছিলে। সে আমার হাত ধরছে।

-অপমান!!! তারপর?

-চুমুও দিয়েছে।

-হায় খোদা!!! বুকে হাত দিয়েছে?

-হুমম।

-এরপর?

-সে যখন আমার উপর শুতে চেয়েছে- আমি রাজি হই নি।

-সাবাস!

-হ্যাঁ! আমি আমার পরিবারের অনেক অসম্মান সহ্য করেছি। শেষে নিলাম শোধ। আমি তার উপর চড়ে বসে তার ফ্যামিলির চরম অপমান করে এসেছি।

৩০২)

কোন একদিন প্রেমিক তার প্রেমিকারে রক্ত দিয়ে জীবন বাচিয়েছে। যখন তারা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল প্রেমিক তার দেয়া রক্ত ফেরৎ চাইলো। প্রেমিকা তার সেনেটারী ন্যাপকিন খুলে প্রেমিকের হাতে দিয়ে বলল, “ মাসিক কিস্তিতে পরিশোধ করবো”

৩০৩)

স্বামী(বাসর রাতে)- তুমি কি কখনো সেক্স মুভি দেখেছো ?

স্ত্রী – একবার দেখেছি

স্বামী – এখন আমরা তাই করব,যা ঐ মুভিতে হয়েছে।

স্ত্রী(চিন্তা করে)- তাইলে বাকী দুজন কই থেকে আনবে?

৩০৪)

দুই বান্ধবীর কথোপকথন
১ম জন- এক ছেলেকে আমি আজ বোকা বানাইছি
২য় জন- কেমনে ?
১ম জন-ওর কাভহ থেকে ৫০০ টাকা নিয়ে সেন্ডেলের ফাকে লুকিয়ে রেখেছিলাম,আর গাধা আমার ব্রার মধ্যে আধা ঘন্টায়ও খুজে পায় নাই!

৩০৫)

এক বাচ্চা ছেলে এক কলগার্লকে প্রশ্ন করলো, “আপনার এত টাকা,গাড়ী আছে,আপনি কি ব্যাবসা করেন?”
কলগার্ল কিছুক্ষন ভেবে বলল, আমার HOLE SALE এর ব্যাবসা আছে”

৩০৬)

বাসর রাতে স্বামী বউয়ের চোখে বারবার চুমু দিচ্ছে

বউ বলল, “ বারবার চোখে চুমু দিচ্ছ কেন?”

স্বাম , “ তোমার চোখ হলো আমার কাছে ভালোবাসার বই,শুধু পাঠ করতে মন চায়”

বউ , “ নিচে লাইব্রেরীতে আগুন জ্বলছে,আর তুমি বই নিয়ে ব্যাস্ত”

৩০৭)

এক লোক ডিভোর্স এক মহিলাকে বিয়ে করেছে।
বিয়ের পরদিন তার বন্ধু তাকে জিগাইলো-সেকেন্ড হ্যান্ড বউ কেমন।
উত্তর- খারাপ না,প্রথম ৩ ইঞ্চির পড় ব্র্যান্ড নিউ!

৩০৮)

রক্ত পরীক্ষার পর নার্স আবুলের আঙ্গুল মুখে নিয়ে চুষে দিচ্ছে (রক্ত বন্ধের জন্য)।

তা দেখে আবুলের খুশীতে লম্ফ দেয়া শুরু।

নার্সঃ কি হইছে,এত খুশী কেন?

আবুলঃ পরেরটা ইউরিন টেস্ট !! তাই !!

৩০৯)

বিছানায় এক রাউন্ড প্রেম পর্বের পর সদ্য কুমারিত্ব বিসর্জনকারিনী প্রেমিকা চিন্তা করছে, “ ঢুকলো ৭ ইঞ্চি,বেরুলো ৩ ইঞ্চি,বাকী ৪ ইঞ্চি কি ভিতরেই থেকে গেল???”

৩১০)

বউ, “ বইয়ে পড়েছি একটী পুরুষ কুকুর সারা বছর কমপক্ষে ৩০০ বার সেক্স করে,আর তুমি ১০০ বারও করো না!”

স্বামী, “ একই কুকুর একই মেয়ে কুকুরের সাথে ৩০০ বার করে এইডা কোন বইয়ে লেখা আছে?”

৩১১)

১ম জন >> এ দেশের শিক্ষাব্যবস্হা নারীজাতিকে একদম রাস্তায় বসিয়ে দিয়েছে।

২য় চন >> মানে?

১ম জন >> মানে , দেখিস না, প্রতিটি স্কুলের সামনে মা’য়েরা কেমন রাস্তায় বসে থাকে।

৩১২)

হালিমঃ কিরে মালাই, আয়নার সামনে চোখ বন্ধ করে দাঁড়িয়ে আছিস কেন?

মালাইঃ ঘুমিয়ে থাকলে চেহারাটা কেমন দেখায় একটু দেখছি, এই যা!

৩১৩)

এক লোক ফুরফুরে মনে গাড়ী নিয়ে হাওয়া খাইতে বের হৈসে। সুন্দর দিন, মৃদু মন্দ হাওয়া।

মনের সুখে সে দু এক কলি বেসুরে গলা গেয়েও ফেল্লো । হঠাৎ প্যাঁপু প্যাঁপু সাইরেন — রিয়ার ভিউ মিররে দেখে সে একটা পুলিশ কার। হাওয়া খাওয়া চাংগে তুলে সে প্রাণপণে এক্সিলেটর চেপে ধরে।

অবশেষে ১০ কিমি মুরগী-শিয়াল ধাওয়া খাওয়া শেষে সে রাস্তার পাশে গাড়ী থামায়। ক্ষিপ্ত পুলিশ অফিসার এসে জিগ্গেস করলো “ঘটনা কি ?? তুমাকে বিশাল জরিমানা করা হবে এখন, পুলিশ দেখে স্পিড বাড়ানোর মজা দেখাচ্ছি”

লোকটা বল্লো “প্লিজ, প্লিজ অফিসার আমি বিশাল ভ্রান্ত ধারমার কারনে স্পিড বাড়াইসি — গতবছর আমার বউ এক পুলিশ অফিসারের সাথে ভেগে গেসে — আমি ভাবসি ঐ ব্যাটা খন্ডারনীকে ফেরত নিয়ে আসছে”

৩১৪)

এক ফোরম্যান — বসে বসে টুলে সিগারেট খাচ্ছে –

আর শ্রমিকরা — বস্তা নাড়িয়ে ক্লান্ত হয়েযাচ্ছে

একদিন এক শ্রমিক গজগজ করতে করতে কইলো , “এই ব্যাটা ফোরম্যান টাকাও পায় আমাদের চে বেশী –আবার সারাদিন বসে বসে ঝিমায় — আমি মানি না”

সে ফোরম্যানরে গিয়া বল্লো, “কেন তুমি আমাদের লগে কাজ করো না আর মোটা টাকা বেতন পাও”

তুমি জানতে চাও — ফোরম্যান কইলো !

শ্রমিক : হ

আচ্ছা ঠিক আছে , তাহলে এই যে দেয়ালের উপরে আমি হাত রাখলাম এইখানে যদি ঘুসি দিতে পারো — তাইলে তোমার কথা আমি মেনে নিবো

শ্রমিক ব্যাটা সর্বশক্তিতে ঘুষি মেরে বসলো — আর ফোরম্যান হাত সরায় নিসে,

শ্রমিক ওরে বাবারে মারে বলে শেষ কোকাতে কোকাতে শেষ !

ফোরম্যান বল্লো , আচ্ছা এইবার বুঝছো আমি কেন বেতন বেশী পাই – এখন নিজের কাজে যাও॥

তো শ্রমিক ফিরে গেলো কাজে

২য় শ্রমিক জিগায় — কি ব্যাপার — কি হৈলো ওরে সাইজ করতে পারলি না ?

১ম শ্রমিক: না পারি নাই — দেখ তুই আমারে ঘুসি মারতে পারোস নাকি — তাইলে বুঝবো তোর বুদ্ধি বেশী

এই বলে – ১ ম শ্রমিক নাকের সামনে হাতের তালু রাখলো ।

আর ২য় শ্রমিক ঘুষি মেরে বসলো !

৩১৫)

চট্টগ্রাম শহরে ‘সাব জিরো’ নামে একটা আইসক্রিম পার্লার আছে।কালকে জিইসি মোড়ে হাটতে হাটতে ওটার সামনে যেতেই অনেক স্মৃতি মনে পড়ে গেল।ওখানকার একটা ঘটনা মনে পড়তেই নিজে নিজেই হেসে ফেললাম।আমার এক বন্ধু যে কিনা ডাউট দেয়াকে মোটামুটি শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গেছে তাকে নিয়ে স্মৃতি।প্রতিটি‍ কাজেই তার অফুরন্ত ডাউট।কোন এক বিকেলে আমার বন্ধু গেল সাব জিরো আইসক্রিম পার্লারে।সাথে আরও কয়েকজন।যখন সেলস ম্যান জানতে চাইল কে কোন ফ্লেভার নিবে,তখন আমার বন্ধুবর তার অবিস্মরণীয় ডাউট টা দিল।সে খুব মুড নিয়ে সেলস ম্যান কে জিজ্ঞেস করল “ভাই আইসক্রিম ঠাণ্ডা হবে তো?” সাথে থাকা বন্ধুরা হতবাক আর সেলস ম্যান বাকরুদ্ধ।এইরকম কথা সে বোধহয় বাপের জন্মেও শুনে নাই।

৩১৬)

সুর্যস্নান:

মারিয়ানা ঠিক করলো এবারের ছুটিটা সে হোটেলের ছাদে সুর্যস্নান করেই কাটাবে। প্রথমদিন সে শুধু প্যান্টি পরে ছাদে শুয়ে রইলো। সে খেয়াল করলো সারাদিনে কেউ ছাদে এলো না। তাই পরেরদিন সে গায়ে অবশিষ্ট কাপড়টুকুও রাখলো না যাতে পুরো শরীরে সূর্যের তাপ লাগে।

কিছুক্ষণ পর সে ছাদের সিঁড়িতে কারো পায়ের শব্দ শুনে উপুড় হয়ে শুলো আর নিচের দিকে একটা তয়লা টেনে নিলো। একটু পর ম্যানেজারের মুখ দেখা গেলো।

– ম্যাডাম, আপনি সুর্যস্নান করেন আপত্তি নেই, কিন্তু দয়া করে গতকাল যতটুকু কাপড় পরেছিলেন, পরে নিন। ম্যানেজার বললো।

– কেন? ছাদে তো কেউ আসছে না। পাশের বিল্ডিংগুলোও সব নিচু। তাহলে সমস্যা কি?

– আসলে ম্যাডাম, আপনি রোদ আসার জন্য বানানো ছাদের কাঁচের অংশটুকুতে শুয়ে আছেন।

৩১৭)

এক ছেলে রাস্তা দিয়ে হেটে যাচ্ছে। হঠাৎ দেখল এক উলঙ্গ পাগল রাস্তার পাশে উপুর হয়ে শুয়ে আছে। উলঙ্গ পাগলটাকে দেখা মাত্র তার মনে একটা ইচ্ছা জাগল। ইচ্ছাটা পূরন করার জন্য সে পাগলটার পাশে বসে পড়ল। আর বেশ কিছুক্ষণ পাগলটার পাছায় তবলা বাজাল।

তবলা বাজানো শেষ হলে যখন সে উঠে চলে যেতে লাগল তখন পাগলটা ঘুরে তাকে বলল,

” ভাই তবলা তো ভালই বাজাইলেন, এবার বাঁশিটাও বাজায় দিয়া যান।

৩১৮)

লং ড্রাইভে সারারাত কাটিয়ে সকাল বেলা রাস্তার ধারে গাড়ী থামালেন আহসান সাহেব। ঘুমুবেন ঠিক করলেন। গাড়ী লক করে শুয়ে পড়েছেন, ঠিক এমন সময় গাড়ীর দরজায় ধাক্কা। দরজাটা খুলতেই একজন জিজ্ঞেস করলেন ” আচ্ছা ভাই, কয়টা বাজে বলতে পারেন?” আহসান সাহেব বিরক্ত হলেও ভদ্রভাবেই জানালেন যে, আটটা পাঁচ বাজে।

কিছুক্ষণ পরেই আবার দরজায় ধাক্কা। দরজা খুলতেই ছোট ছেলেটা বলল, আংকেল, কয়টা বাজে,বলবেন একটু? খুবই বিরক্তির সাথে আহসান সাহেব জানালেন, আটটা বিশ বাজে। ছেলেটি বিদায় নেয়ার পর আহসান সাহেব একটা কাগজের উপর বড় করে লিখলেন “এখন কয়টা বাজে আমি জানিনা।”লেখাটি টাঙ্গিয়ে দিয়ে তিনি আবার ঘুমাতে গেলেন। ঘুমিয়েই পড়েছেন প্রায়, এমন সময় আবার দরজায় ধাক্কা। “কী চাই?” দরজা না খুলেই খেঁকিয়ে উঠলেন এবার আহসান সাহেব।

“এখন পৌনে নয়টা বাজে” গম্ভীর উত্তর এলো বাইরে থেকে!

৩১৯)

এক লোক কিছু কাগজ ফটোকপি করে খুব মন দিয়ে অরিজিনাল কাগজগুলোর সাথে মিলিয়ে দেখতে লাগল। আরেকজন প্রশ্ন করল, “এত মনোযোগ দিয়ে কি দেখছেন?”

লোকটি বলল, ” দেখছি ফটোকপিতে কোন ভুল হয়েছে কি না।”

৩২০)

থানায় গিয়ে ভদ্রমহিলা ইন্সপেক্টরকে বলছেন, “আমার স্বামী গতকাল আলু কিনতে বাজারে গেছে, এখনো ফেরেনি।”

ইন্সপেক্টর : আলুই যে রান্না করতে হবে এমন কোন কথা নেই, অন্য সবজি রান্না করুন।

৩২১)

ডাক্তার : আপনার স্বামীর বিশ্রাম দরকার। তাই কিছু ঘুমের ওষুধ প্রেসক্রাইব করলাম।

ভদ্রমহিলা : এগুলো আমার স্বামীকে কখন খাওয়াবো?

ডাক্তার : এগুলো আপনার স্বামীর জন্য নয়, আপনার জন্য।

৩২২)

বাইরে থেকে দরজা নক করছে।

ভেতর থেকে : কে?

বাইরে থেকে : আমি।

ভেতর থেকে : আমি কে?

বাইরে থেকে : আরে, আপনি কে আমি কি করে বলব?

৩২৩)

এক মেয়ে জ্বর হয়েছে বলে ডাক্তারের কাছে গেল। ডাক্তার বললেন, ‘তোমার ডেঙ্গু জ্বর হয়েছে।’

মেয়েটি বলল, ‘না ডাক্তার সাহেব, ডেঙ্গু হবে কীভাবে। জ্বর হওয়ার পর এতো কাঁপছি যে, ডেঙ্গু মশা কামড় দেয়ার সুযোগই পায়নি।’

৩২৪)

উকিল : মহাশয়, আমি জানি যে আপনি একজন বুদ্ধিমান ও সাধুলোক।

স্বাক্ষী : ধন্যবাদ আমি একটু আগে সত্যি বলার শপথ নিয়েছি, নইলে এই প্রশংসা আপনাকেও করতাম।

৩২৫)

লোক: মুরগী কতো করে ???

বিক্রেতা: স্যার, ১ম খাঁচার মুরগীর দাম ২০ টাকা করে আর ২য় খাঁচার মুরগীর দাম ২০০ টাকা করে

লোক: (অবাক হয়ে) ১ম খাঁচার মুরগীর দাম এতো কম কেন??

বিক্রেতা: স্যার, এই মুরগী গুলাতে AIDS আছে !

লোক : (কিছুক্ষণ চিন্তা করে………………… )

ঠিক আছে, আমাকে তাহলে ১ম খাঁচার মুরগীই দাও

বিক্রেতা: স্যার, আপনে AIDS ওয়ালা মুরগী কেন নিবেন ??

লোক: আমি তো খাওয়ার জন্য মুরগী নিবো !!

৩২৬)

এলাকায় নতুন একটা দোকান করেছে রফিক। কেবল দুটো জিনিসই বিক্রি হয় সেখানে—ঢোল আর বন্দুক।

একদিন তার বন্ধু বেড়াতে এসে খুব অবাক হয়। বলে, কিরে রফিক, কেমন অদ্ভুত দোকান খুলে বসে আছিস, আর কিছু নেই, শুধু ঢোল আর বন্দুক?

রফিক জবাব দেয়, তা-ই তো বেচে কুল করতে পারি না। একজন একটা ঢোল কিনে নিয়ে গেলেই হলো, পরদিন তার বউ আসে বন্দুক কিনতে ।

৩২৭)

‘নিউটন’ পড়তেন ল্যাম্পপোস্টের আলোয়, ‘ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর’ পড়তেন মোমের আলোয় আর ‘শেক্সপিয়ার’ পড়তেন মশালের আলোয়।

কিন্তু আমার প্রশ্ন হইল, উনারা দিনের আলোয় তাইলে করতেনটা কি ??

৩২৮)

এক ডাক্তার রেস্তোঁরায় ঢুকে বয় কে কোমর চুলকাতে দেখে বললেন, একজিমা আছে নাকি?

বয়: না স্যার, ওসব স্পেশাল অর্ডার এখন হবে না।

৩২৯)

সবচেয়ে অলস লোককে আমি পুরস্কার দেবো। কে সবচেয়ে অলস,হাত তোল।

একজন বাদে সবাই হাত তুলল।

>কি ব্যাপার তুমি হাত তুললেনা কেনো?

> কে আবার অত কষ্ট করে।

৩৩০)

জামাতে ইসলামী, বিএনপি আর ঐক্যজোটের তিন কর্মী মদ্যপান করা অবস্থায় সৌদী আরবে ধরা পড়। সৌদী আরবে যেহেতু প্রকাশ্যে মদ্যপানের অপরাধ অত্যন্ত গুরুতর, তাই সেখানে এর শাস্তি হচ্ছে চাবুকের বিশ দোররা বাড়ি। আরবের শেখ যখন এই তিন কর্মীকে শাস্তির জন্য ব্যবস্থা নিচ্ছিলেন, তখন শেখ বললেন, “আজ আমার প্রথম বউয়ের জন্মদিন, তাই আমি তোমাদের প্রত্যকেকে চাবুক মারার আগে একটা করে আর্জি জানাবার অনুমতি দিলাম এবং তোমাদরে আর্জি মঞ্জুর করা হবে।

লাইনের প্রথমে দাঁড়ানো ঐক্যজোটের কর্মী বলল, “শেখ তুমি যদি চাবুক মারার আগে পিঠের সাথে একটা বালিশ বেঁধে দিতে। তার আর্জি মোতাবকে বালিশ বেঁধে চাবুক মারা শুরু হলো। বালিশ চাবুকের বাড়ি ১০ টা র্পযন্ত নিল, তারপর বালিশ গেল ফেটে। ব্যথায় কুঁচকে রক্তাত্ব অবস্থায় তাকে সরানো হলো বিশ দোররার পর।

এর পরে লাইনে ছিল বিএনপির র্কমী। সে ঐক্যজোটের কর্মীর বেহাল অবস্থা দেখে আর্জি জানাল দু’টো বালিশ বাঁধার। তার আর্জি মোতাবকে ২টা বালিশ বেঁধে চাবুক মারা শুরু হলো। বালিশ চাবুকের বাড়ি ১৫ টা র্পযন্ত নিতে পারল, তার পর বালিশ গেল ফেটে। ব্যথায় কুঁচকে গোঙ্গানো অবস্থায় বিএনপি’র র্কমীকে সরানো হলো বিশ দোররার পর।

সবার শেষে লাইনে ছিল জামাত কর্মী। সে কোন কিছু বলার আগেই শেখ জামাত র্কমীকে বলল, “তুমি হচ্ছো গোলাম আযমের দলের লোক। তাই তুমি ২টা আর্জি রাখতে পার”। জামাতী কর্মী খুশীতে গদগদ হয়ে বলল, “হুযুর, আমি নাদানের মতো কাজ করেছি, তাই তুমি আমাকে চাবুকের ২০ দোররা না, ১০০ দোররা মার। শেখের চোখ আনন্দে জ্বলজল করে উঠল। বলল, “তার পরের আর্জি”? জামাত কর্মী ব্যথায় কুঁকড়ানো বিএনপি কর্মীকে আঙ্গুলের ইশারায় দেখিয়ে বলল, “বালিশ টালিশ না, তুমি ঐ ব্যাটারে (বিএনপি’র কর্মী) আমার পিঠের পেছনে বাইন্ধা দাও”।

 

(বোনাস)

একদিন এক বিশাল শপিংমলে হঠাৎ আগুন লাগলো।
লোক জন দিক বিদিক ছুটাছুটি আরম্ভ করলো। কিছু লোক শপিংমলের ভিতর আটকা পরলো।
ফায়ার সার্ভিস এর লোকজন এসে উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে মাইকে সর্ব প্রথম যে ঘোষণাটি দিল তা হল…
“মলে আগুন লেগেছে। সবাই দ্রুত মলত্যাগ করুন!!!”

০০০০০০০

বাংলা কৌতুক সমগ্রঃ ০ থেকে ১০০(১৮+)

১০১-২০০ হাসির কৌতুক (প্রাপ্তবয়স্ক ছাড়া পড়বেন না ১৮+)

Categories
অনলাইন প্রকাশনা কৌতুক ব্যঙ্গকৌতুক ভালবাসা/প্রণয়লীলা যৌন জ্ঞান ও সম্পর্ক সৃজনশীল প্রকাশনা

বাংলা কৌতুক সমগ্রঃ ০ থেকে ১০০(১৮+)

০)

তিন বন্ধু একটি বিল্ডিংয়ের ১০৮ তলায় থাকে। তারা তিনজন প্রতিদিন লিফট দিয়ে বাসায় আসা যাওয়া করে। একদিন লিফট নষ্ট হয়ে যায়। তাই তাদের সিঁড়ি দিয়ে আজ উঠতে হবে। তখন এক বন্ধু বলল, “আমাদের মধ্য হতে দুইজন দুইটা হাসির গল্প বলবে, আর একজন একটা কষ্টের গল্প বলবে। তাহলে আমরা গল্পগুলো এনজয় করতে করতে ১০৮ তলায় পৌছে যাব।  প্রথম জন একটা হাসির গল্প বলল, তারা ৪৫ তলায় পৌছে গেল। আর একজন আরেকটি হাসির গল্প বলল, তারা ৯৯ তলায় পৌছে গেল।

তৃতীয় জন বলল, “কষ্টের গল্প আর কি বলব, আমার তো ফ্ল্যাটের চাবি নিচে গাড়িতে ফেলে এসেছি!!!”

 

১)

শিক্ষক: মশা মাছি অনেক রোগ ছড়ায়, তাদের বংশ বৃদ্ধি রোধ করতে হবে।

ছাত্র: হা হা হা হি হি হি হি হি হি…..

শিক্ষক: হাসির কি হলো?

ছাত্র: স্যার এতো ছোট বেলুন বানাবেন ক্যামনে!!!

 

২)

সেদিন সি এস সি আর হাসপাতালে ডিউটি করার সময়, এক সহকর্মী বড়ভাই জিজ্ঞেস করলেন, “ক’টা বাজে দেখ তো?” উত্তর দেই, “জানি না, ঘড়ি দেয়ালেরটাও নষ্ট, আমার হাতেরটাও।” (উল্লেখ্য, তিনি যেদিকটায় বসেছিলেন, সেখান থেকে দেয়াঘড়িটা দেখা যায় না।) তিনি আমার হাতঘড়ির দিকে ভাল করে খেয়াল করে বলেন, “কই, ঘড়ি তো চলে দেখি …‌”

“শুধু সেকেন্ডের কাঁটা চলে, ঘন্টা-মিনিটের কাঁটা চলে না, নষ্ট।”

“ঘন্টা মিনিটের কাঁটা নষ্ট হইলে, এই ঘড়ি কি জন্য পড়স?” বড়ভাই তাজ্জব।

“রোগীর পাল্‌স দেখি।

 

৩)

এক মেয়ের কাছে একটি অপরিচিত নাম্বার থেকে কল আসল।

মেয়ে : হ্যালো.

ছেলে : তোমার কি কোন বয়ফ্রেন্ড আছে??

মেয়ে : হ্যাঁ আছে কিন্তু আপনি কে??

ছেলে : আমি তোর ভাই, দাঁড়া আজকে বাড়িতে আসি তোর খবর আছে!!!

কিছুক্ষণ পর মেয়েটির নিকট আবার অপরিচিত নাম্বার থেকে আরেকটি কল আসল-

মেয়ে : হ্যালো!

ছেলে : তোমার কি কোন বয়ফ্রেন্ড আছে??

মেয়ে : না।

ছেলে : তাহলে আমি কে??

মেয়ে: স্যরি স্যরি জান! আমি মনে করেছি এটা আমার ভাই।

ছেলে : আমি তোর ভাই-ই, আজ তোর একদিন কি আমার একদিন!!!

 

৪)

একদিন জুমার নামায পড়ে, বাসায় ফেরার আগে, একটা চিপাগলির ভেতর আরেকটা অতিচিপাগলির মাথায় দাঁড়িয়ে মার্লবোরো ফুঁকছিলাম, পরিচিত মুরুব্বীদের চোখ বাঁচিয়ে। ওখানে একটা ঘরের ভেতর এক পিচ্চিকে তার মা নামতা পড়াচ্ছিলেন।

মাঃ “দুই একে?”

পিচ্চিঃ (দূর করে, টেনে টেনে) “দুউউইই”

মাঃ “দুই দুগুণে?”

পিচ্চিঃ “চাআআর”

মাঃ “তিন দুগুণে?”

পিচ্চিঃ “ছঅঅয়”

মাঃ “চার দুগুণে?”

পিচ্চিঃ “আঠেরো” (!!!)

মাঃ (শাসনের কড়া সুরে) “কি? চার দুগুণে কত?”

পিচ্চিঃ (আবারো সুর করে) “আঠেরোওও”

মাঃ “ইন কি হদ্দে তুই? আবার হ” [এগুলো তুই কি বলছিস? আবার বল]

পিচ্চিঃ “আবার?”

মাঃ “অ, ফইল্লাত্তুন হ” [হ্যাঁ, প্রথম থেকে বল]

পিচ্চিঃ “দুই একে, দুউউইইই; এঁএঁ(চিন্তিন্বিত) দুই দুগুণে, চাআআর; এঁএঁ, তিন দুগুণে, ছঅঅঅয়; এঁএঁম, চার দুগুণে, আঠেরোওও …”

মাঃ “আই! তিন দুগুণে ছ, ছ আর দুইয়ে হত?”

পিচ্চিঃ (একটু চুপ থেকে) “আঠেরো”

মাঃ “এই, এইবার ফিট্ট্যুম দরি, একত্তুন দশ গুন সাই” [এইবার পিটা দেব, এক থেকে দশ গোন তো]

পিচ্চিঃ “এক, দুই, তিন, চার, পাঁচ, ছয়, সাতেরো, আঠেরো …” (!!!)

 

৫)

তখন ফার্স্ট ইয়ারে পড়ি। অ্যানাটমী ক্লাশ। কোন কারণে আমাদের নিয়মিত স্যার তখনও এসে পৌঁছান নি। আমরা হুলুস্থুল আড্ডায় মত্ত। হঠাৎ অন্য সেকশানের ব্যাচ টিচার, ঝর্ণা ম্যাডাম এসে হাজির। আমাদের কতদূর পড়া হয়েছে জেনে নিলেন। তারপর বললেন, ডিসেকশান হলে আস। সবাই গেলাম। ম্যাডাম ক্যাডাভার (মৃতদেহ) থেকে পেটের অংশ (Anterior Abdominal wall) পড়ানো শুরু করলেন। এক পর্যায়ে কোথাও একটু কনফিউশন হওয়াতে বললেন, ‘নীটার অ্যাটলাস’ বইটা আনতে। আমি আর আমার এক বন্ধু বেরুলাম লাইব্রেরীর উদ্দেশ্যে। আমাদের ক্লাশরুমের কাছাকছি আসতেই দেখি আমাদের নিয়মিত স্যার হাজির। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, “ক্লাশ খালি কেন? কোথায় সবাই?” বন্ধুটি বলে, “সবাই ডিসেকশান হলে, স্যার।” “কেন? ওখানে কেন?” এবার বন্ধুটির চট জবাব, “ওখানে ঝর্ণা ম্যাডাম বডি দেখাচ্ছেন।” (!!!)

 

৬)

প্রফেসর শেষ ক্লাসে ঘোষণা করলেন, ‘পরশু পরীক্ষা। কেউ কোনও অজুহাত দিয়ে পার পাবেন না। তবে নিকটাত্মীয়ের মৃত্যু কিংবা মারাত্মক শারীরিক অসুস্থতা হলে ভিন্ন কথা। ‘
পেছন থেকে এক ফাজিল ছোকরা বললো, ‘মাত্রাতিরিক্ত সেক্সজনিত ক্লান্তি হলে কি চলবে স্যার?’
ক্লাসে হাসির হুল্লোড় পড়ে গেলো। শব্দ থামার পর প্রফেসর বললেন, ‘উহুঁ, সেক্ষেত্রে তুমি অন্য হাতে লিখবে।

 

৭)

বাবা আর ছেলে মার্কেটে গেছে। হঠাৎ ছেলে দেখে বাপের প্যান্টের চেইন খোলা!
ছেলেঃ বাবা, বাবা, তোমার প্যান্টের চেন খোলা!
বাবাঃ স্টুপিড, এভাবে বলতে নেই। বলতে হয়, “তোমার মেকআপ বক্স খোলা”
পরের দিন একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি—–
ছেলেঃ বাবা, তোমার লিপস্টিক বের হয়ে গেছে।

 

৮)

এক ভদ্রলোক একটা মোটর গাড়ী দুঘটনার একেবারে চুরমার হয়ে গেছে । তিনি তার গাড়ী যেখানে বীমা করেছিলেন সেখানে গিয়ে টাকার দাবী করলেন । কোম্পানীর ম্যানেজার বললেন যে আপনাকে তো টাকা দেয়া হবে না । আপনাকে গাড়ীর বদলে একটা নতুন গাড়ী দেয়া হবে । ভদ্রলোক তো আৎকে ঊঠলেন । আরে আমার স্ত্রীর নামে বীমা করা , সে মরে গেলে কি আপনারা একই ব্যবস্থা করবেন ?

 

৯)

জন্ম নিয়ন্ত্রন সম্পর্কে এক অবিবাহিতা তরুনী ডাক্তার গাঁয়ের বিবাহিতা মহিলাদের বোঝাচ্ছিলেন। সব শোনার পর গাঁয়ের মহিলারা বললো,” এসব আপনের দরকার কারণ আপনের বিয়ে হয় নি, কিন্তু আমাগো সোয়ামি আছে “

 

১০)

শিক্ষক : চরিত্র বানাতে চাও তো এখন থেকে সমস্ত মহিলাদের মা বলে ডাকা শুরু কর।

ছাত্র : তাতে আমার চরিত্র তো ঠিক থাকবে, কিন্তু আমার বাবার চরিত্র ?????

 

১১)

সখিনা:তোমার স্বামী প্রতিদিনই দেখি ঠিক ৯টার সময় বাসায় ফেরে, আমার স্বামী তো পারলে বাসায়ই ফেরে না। কিন্তু তোমার স্বামী আসে, রহস্য কি?

জরিনা:আমি বাসায় সাধারণ একটা নিয়ম করে দিয়েছি। তাকে বলেছি যে সেক্স হবে ঠিক রাত ৯টায়, তুমি তখন বাসায় থাকো আর নাই বা থাকো।

 

১২)

ছোট্ট বাবুর ক্লাসে নতুন শিক্ষিকা মিস মিলি এসেছেন। তিনি প্রথমেই সকলের সঙ্গে পরিচিত হবেন। কাজেই বাচ্চাদের দিকে তাকিয়ে মিষ্টি করে বললেন, ‘ছোট্ট সুজি, তোমার বাবা মা কী করেন?’

‘আমার বাবা একজন বিজ্ঞানী, আর মা একজন ডাক্তার।’

মিষ্টি হেসে মিস মিলি বললেন, ‘ছোট্ট টুনি, তোমার বাবা মা কী করেন?’

‘আমার বাবা একজন শিক্ষক, আর মা একজন উকিল।’

‘বাহ! ছোট্ট বাবু, তোমার বাবা মা কী করেন?’

বাবু বলল, ‘আমার বাবা মারা গেছেন, আর মা একজন পতিতা।’

মিস মিলি রেগে আগুন হয়ে প্রিন্সিপালের কাছে পাঠালেন বাবুকে। মিনিট পাঁচেক পর ছোট্ট বাবু ফিরে এল।

‘তুমি প্রিন্সিপালকে বলেছ, তুমি আমার সঙ্গে কেমন আচরণ করেছ?’

‘জ্বি মিস।’ বলল বাবু।

‘তিনি কী বললেন?’

‘বললেন, আমাদের সমাজে কোনও কাজই তুচ্ছ নয়। তারপর আমাকে একটা আপেল খেতে দিলেন, আর বাসার ফোন নাম্বার লিখে রাখলেন।’

 

১৩)

এক লোকের বউ প্রেগন্যান্ট।একদিন মহিলার হঠাৎ পেটে ব্যাথা উঠসে পরে ব্যাটা তাড়াতাড়ি নিয়া গেসে ডাক্তারের কাছে। ডাক্তার টেস্ট করে কয় আরে আপনার বউয়ের তো কিছুই হয় নাই,মনে হয় পেটে গ্যাস হইসে,এইটা তারই পেইন। ঐ লোক তখন ক্ষেপে আগুন হয়ে ডাক্তারকে বলে, “মিয়া আমার লগে ফাইজলামি করেন! আমি কি সি এন জি পাম্প নাকি?”

 

১৪)

ভ্যালেন্টাইন ডে উপলক্ষে প্রেমিক-প্রেমিকা গেল একটা দামি রেস্টুরেন্টে দিনটাকে সেলিব্রেট করতে।

প্রেমিকঃ কী খাবে বলো।

প্রেমিকাঃ তুমিই অর্ডার দাও।

প্রেমিকঃ না আজ তুমি অর্ডার দিবে। তুমি তো জেনেই গেছ আমি আসলে কী খেতে ভালোবাসি।

প্রেমিকাঃ অসম্ভব! এতো লোকের মাঝে সেটা আমি করতে পারব না।

 

১৫)

এক ছেলে এবং তার নতুন বান্ধবী এক সন্ধ্যায় শহর থেকে একটু দূরে গাড়ী নিয়ে বেড়াতে বেড় হলো। গাড়ী কিছু দূর যাওয়ার পর একটা নির্জন জায়গা দেখে মেয়েটি চিৎকার দিয়ে গাড়ী থামাতে বলল। ছেলেটি গাড়ী থামিয়ে মেয়েটির দিকে তাকাল। মেয়েটি বলল-”আসলে তোমাকে বলা হয়নি যে আমি একজন কল গার্ল এবং আমার রেট ২০০০ টাকা।” ছেলেটি অবাক না হয়ে তার দিকে তাকাল এবং তার প্রস্তাবে সম্মতি দিয়ে দুজন মিলন আনন্দে কিছুক্ষণ আদিম খেলায় মত্ত হলো। দৈহিক প্রশান্তির পর বান্ধবীর পেমেন্ট দিয়ে কিছুটা ক্লান্তি নিয়ে ছেলেটা একটা সিগারেট ধরিয়ে আকাশের দিকে তাকিয়ে ধোঁয়া ছেড়ে কুন্ডলী পাকাতে লাগল। তার নির্লিপ্ততা দেখে বান্ধবী ছেলেটি কে বলল-”আমরা বসে আছি কেন? চলো ফিরে যাই।” ছেলেটি আকাশের দিকে তাকিয়ে বলল-”ও তোমাকে আগে বলা হয়নি আমি একজন টেক্সী ড্রাইভার, এখান থেকে শহরে ফেরার ভাড়া হচ্ছে ২৫০০টাকা।

 

১৬)

প্রেমিকঃ আমার প্রেমে পড়ার আগে আর কারো সঙ্গে প্রেম হয়েছিল তোমার?

প্রেমিকা চুপ।

প্রেমিকঃ কথা বলছো না যে? রাগ করলে?

প্রেমিকাঃ রাগ করি নি, আমি গুনছি।

 

১৭)

ভ্যালেন্টাইন ডে’তে এক বৃদ্ধ আর বৃদ্ধা কথা বলছে।

বৃদ্ধাঃ জানো আজ ভ্যালেন্টাইন ডে।

বৃদ্ধঃ তাই না-কি?

বৃদ্ধাঃ ওগো মনে আছে। সেই যে ৫০ বছর আগে এক ভ্যালেন্টাইন ডে’তে তোমার সঙ্গে আমার পরিচয় হয়।

বৃদ্ধঃ হ্যা হ্যা মনে থাকবে না কেন! আমি তখন প্যারিসে ব্যবসা করতাম, সব ছবির মতো মনে পড়ছে।

বৃদ্ধাঃ আর ওটা মনে নেই?

বৃদ্ধঃ কোনটা বলো তো?

বৃদ্ধাঃ আহ্ আর ন্যাকামো করো না তো।

বৃদ্ধঃ ও হ্যা হ্যা মনে পড়েছে, ঐ দিন আমি তোমার গাল কামড়ে দেই।

বৃদ্ধাঃ (দীর্ঘশ্বাস ফেলে) সেই দিন কি আর ফিরে আসবে?

বৃদ্ধঃ কেন আসবে না? দাঁড়াও বাথরুম থেকে নকল দাঁতটা লাগিয়ে আসি।

 

১৮)

একটা ফোন বুথের সাথে এক ছেলে লিখে রাখছে: বিড়াল হইতে সাবধান দুধ খাবে কিন্তু।

এক মেয়ে সেটা দেখে উত্তর লিখছে: বানর হইতে সাবধান, কলা খাবে কিন্তু।

 

১৯)

এক লোক সবসময় ক্রিকেট নিয়ে মেতে থাকে। একদিন তার বৌ গোমড়া মুখে তাকে বলল, তোমার শুধু সবসময় ক্রিকেট আর ক্রিকেট ! তুমি তো বোধহয় আমাদের বিয়ের তারিখটাও বলতে পারবে না!

লোকটি লাফিয়ে উঠে বলল, ছি ছি, তুমি আমাকে কী মনে কর! আমি কি এতই পাগল নাকি? আমার ঠিকই মনে আছে, যেবার শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ইন্ডিয়ার খেলায় টেন্ডুলকর এগার রানের মাথায় মুত্তিয়া মুরলিথরনের বলে আউট হয়ে গেল, সেদিনই তো আমাদের বিয়ে হল!

 

২০)

একলোক এক ট্রাফিক মহিলাকে বিয়ে করল। বাসর রাতের পরদিন ট্রাফিক মহিলা ১০০০ টাকা জরিমানা করল এভাবে

ওভার স্পীড ৩০০

হেলমেট না পরা ৩০০

রং ওয়ে এট্রি ৪০০ !!!

 

২১)

বাবু খুব তোতলায়। এমনটা ছোটবেলায় হতো না, এখন কেন হচ্ছে জানার জন্যে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করলো সে।

ডাক্তার তাকে আপাদমস্তক পরীক্ষা করে কারণটা খুঁজে পেলেন। তিনি জানালেন, ‘দেখুন মিস্টার বাবু, আপনার বিশেষ প্রত্যঙ্গটি অত্যন্ত দীর্ঘ। সেটির ওজনে আপনার ভোকাল কর্ডে টান পড়েছে। প্রত্যঙ্গটি কেটে খানিকটা ছোট করা হলে সম্ভবত আপনার তোতলামি সেরে যাবে। আপনি রাজি হলে আমি এখন যা আছে, তার অর্ধেকে আপনাকে নামিয়ে আনতে পারি। তবে যে অর্ধেক সরিয়ে ফেলা হবে, সেটি কিন্তু আপনাকে হস্তান্তর করা হবে না। আপনি কি রাজি?’

কী আর করা, বাবু রাজি হলো। অপারেশন সফল হওয়ার পর তার তোতলামি সেরে গেলো। কিন্তু বাবুর বান্ধবী টিনা সব জানতে পেরে ভীষণ চটে গেলো। সে হুমকি দিলো, তোতলামি নিয়ে তার কোন আপত্তি নেই, কিন্তু বাবুর অর্ধেক যদি বাবু ফেরত না নিয়ে আসে, এ সম্পর্ক সে রাখবে না। কী আর করা, মাসখানেক টিনাকে বোঝানোর চেষ্টা করে বিফল হয়ে শেষে বাবু আবার গেলো ডাক্তারের কাছে।

‘ডাক্তারসাহেব, আমার অর্ধেক আমাকে ফিরিয়ে দিন।’ আব্দার জানালো বাবু, তারপর বর্তমান পরিস্থিতি ডাক্তারকে বুঝিয়ে বললো।

কিন্তু ডাক্তার কোন জবাব দিলেন না, ভাবুক চোখে তাকিয়ে রইলেন তার দিকে।

বাবু চটে গেলো। ‘কী হলো, কথা শুনতে পাচ্ছেন না আমার? আমার অর্ধেক আমাকে ফিরিয়ে দিন।’

ডাক্তারও চটে গিয়ে বললেন, ‘প-প-প-পারবো না। যান, ভ-ভ-ভাগেন এখান থেকে।’

 

২২)

: কমিশনার সাহেব বাসায় আছেন ?

: কেন ?

: আমার একটা চারিত্রিক সার্টিফিকেট দরকার ।

: তিন মাস পরে আসেন, উনি নারীঘটিত কেসে ছয় মাসের জন্য জেলে আছেন।

 

২৩)

বিদেশের এক রেস্টুরেন্ট। তিনজন বাবুর্চি সেখানে কাজ করে। একজন চাইনিজ, একজন জাপানিজ আরেকজন বাংলাদেশী। তিনজনের ভিতর খুব রেষারেষি। একদিন একটা মাছি ঢুকছে কিচেনে। সাথে সাথে চাইনিজটা একটা ছুরি নিয়া এগিয়ে গেলো। কিছুক্ষন সাইসাই করে চালালো বাতাসে। মাছিটা পরে গেলো চার টুকরা হয়ে। সে বাকি দুইজনের দিকে তাকিয়ে বলল, ” এইভাবে আমরা আমাদের শত্রুদের চার টুকরা করে ফেলি।”

আরেকদিন মাছি ঢুকতেই জাপানিজটা এগিয়ে গেলো। সাইসাই করে ছুরি চালালো। মাছি আট টুকরা হয়ে গেলো। সে বাকি দুইজনের দিকে তাকিয়ে বলল, ” এইভাবেই আমারা আমাদের শত্রুদের আট টুকরা করে ফেলি”

পরেরদিন মাছি ঢুকছে একটা। বাংলাদেশীটা এগিয়ে গেলো। বেচারা অনেকক্ষন ছুরি চালালো। হাপিয়ে গিয়ে এক সময় চলে এলো। বাকি দুইজন বলল, “কি, তোমরা তোমাদের শত্রুদের কিছুই করো না?”

“হুমমমম…তোরা বুঝোস না কিছুই। এমন কাম করছি যে অই মাছি আর কোনোদিন বাপ হইতে পারবো না!”

 

২৪)

ছোট্র বাবুদের ক্লাসে ঢুকে মিস দেখলেন, বোর্ডে ক্ষুদে হরফে পুরুষদের বিশেষ প্রত্যঙ্গটির কথ্য নামটি লেখা।

ভীষণ চটে গিয়ে চেঁচিয়ে উঠলেন তিনি, ‘কে লিখেছে এটা?’

কেউ উত্তর দিলো না। মিস তড়িঘড়ি করে সেটা ডাস্টার দিয়ে ঘষে মুছে ফেললেন।

পরদিন আবার ক্লাসে একই কান্ড, এবার শব্দটি আরেকটু বড় হরফে লেখা।

আবারও ক্ষেপলেন মিস, ‘কে লিখেছে এটা?’কেউ উত্তর দিলো না। মিস আবার সেটা ডাস্টার দিয়ে ঘষে মুছে ফেললেন।

পরদিন আবার ক্লাসে একই কান্ড, এবার শব্দটি আরো একটু বড় হরফে লেখা।

মিস কিছু না বলে শুধু ডাস্টার ঘষে মুছে দিলেন লেখাটা।তার পরদিন আবারও একই কান্ড, এবার গোটা বোর্ড জুড়ে শব্দটি লেখা।

মিস বহুকষ্টে মেজাজ ঠিক রেখে ডাস্টার ঘষে লেখাটা মুছলেন।

তার পরদিন ক্লাসে এসে মিস দেখলেন, বোর্ডে লেখা: যত বেশি ঘষবেন, এটা ততই বাড়বে।

 

২৫)

এক ভদ্রলোক এতই অলস ছিল যে বিয়ে করে বাসররাতে স্ত্রীকে জড়িয়ে ধরে অপেক্ষায় ছিলেন কখন ভূমিকম্প হয়। হানিমুনটা তিনি ট্রেনেই সেরেছেন!!!

 

২৬)

আলাল আর দুলাল ক্রিকেট খেলা দেখছে। যখনই তামিম একটা চার মারলো তখন….

আলাল: ওরে কি গোল মারছেরে।

দুলাল: আরে বেকুব, গোল এখানে না, গোল হয় ক্রিকেট খেলার মধ্যে….

 

২৭)

ব্যাটসম্যান ছক্কা পেটাবার পর বলটা দর্শকদের ভিতরে গিয়ে পড়েছিল। একজন ফিল্ডার আস্তে আস্তে দৌড়ে গেল সেদিকে। বলটা ফেরত চাইল। কিন্তু বলটা কিছুতেই খুঁজে পাওয়া গেল না। দর্শকদের ভেতর বসে ছিল এক কমবয়েসী ছোকরা। সে খুব নিরীহ মুখে জানাল, আমার মনে হয়, বলটা বোধহয় এদিকে পড়ে নি। তবে আমি বাড়ি থেকে একটা বল নিয়ে এসেছি, আপনার খুব প্রয়োজন হলে একশ টাকা দিয়ে সেটা কিনতে পারেন। নেবেন?

 

২৮)

দুই এলিয়েন এসেছে পৃথিবীতে। ধরা যাক তাদের নাম এক্স আর ইয়। দুইজন মরুভূমিতে এসে নেমেছে। চারিদিকে কিছু নাই। দুইজন হাঁটা শুরু করল প্রাণের খোঁজে। অনেকক্ষণ হাঁটার পর তারা একটা পেট্রোল স্টেশনে এসে পৌছল। কোন একটা কারণে সেইদিন স্টেশনে কেউ নাই। নজলসহ পাইপটা মেশিনের গায়ে প্যাচিয়ে রেখে চলে গেছে। খাঁ খাঁ চারিদিক।

এরা দুইজন এগিয়ে এসে, তেল নেয়ার পাম্পটাকে অভিবাদন জানিয়ে বলল, “পৃথিবীবাসীকে স্বাগতম!”

বলাবাহুল্য, পাম্প কোন উত্তর দিলো না। এক্সের মেজাজ খারাপ হওয়া শুরু হল। সে আবার বলল, “পৃথিবীবাসীকে শুভেচ্ছা!” এবারও উত্তর নেই।

“কথা বলিস না ক্যানো?” এই বলে এক্স কোমড়ে রাখা আগ্নেয়াস্ত্র বের করল। ইয় তাড়াতাড়ি এসে এক্সের হাত চেপে ধরে বলল, “দোস্ত! ফায়ার করিস না।”

এক্স কথা শুনবে না। সে ফায়ার করবেই। কিছুক্ষন ধ্বস্তাধ্বস্তির পর এক্স ফায়ার করে দিল।

সাথে সাথে বিরাট বিস্ফোরণ। তারা দুইজন উড়ে গিয়ে পড়েছে দূরে। হাঁচড়ে-পাচড়ে উঠে দাঁড়ায় দুইজনেই। আহত হয়েছে, তবে সিরিয়াস কিছু না।

এক্স হাঁপাতে হাঁপাতে ইয় কে জিজ্ঞেস করে, “দোস্ত, তুই ফায়ার করতে মানা করছিলি, ক্যামনে বুঝলি আগে থেইক্যা?”

ইয় বলে, “গ্যালাক্সি ঘুইরা আমি কিছু শিখি আর না শিখি, একটা জিনিস শিখছি। যে ব্যাটা তার পুরুষাংগ নিজের শরীরে দুইবার পেচাইয়া এরপর সেইটা কানে গুজে রাখতে পারে, ওর লগে পাঙ্গা নিতে নাই।”

 

২৯)

১ম বন্ধুঃ জানিস আমার বউ পানিকে বিশাল ভয় পায়।

২য় বন্ধুঃ কেমনে জানলি?

১ম বন্ধুঃ আজ অফিস থেকে ফিরে দেখি গোসল করার সময়ও সিকিউরিটি গার্ডকে বাথটাবে পাহারায় রেখেছে।

 

৩০)

ক্লাস থ্রী এর দুই পিচ্চি পোলা টয়লেটে পিসাব করছে।

-দোস্ত! তোর জিনিসের ওপর চামড়া নাই ক্যান?

-আমার মুসলমানী হইছে।

– মুসলমানী কি জিনিস?

– মুসলমানীর সময় সামনের চামড়া কেটে ফেলে।

– তোর কবে করছে?

– জন্মের প্রথম সপ্তাহেই করছে।

– ব্যথা পাইছিলি দুস্ত?

– ছুটু ছিলাম ত কইতে পারি না। তবে হেভী ব্যথা পাইছিলাম এইটা শিওর। একবছর আমি হাটতেই পারি নাই!

 

৩১)

বিদেশ থেকে দুবছর পর বাড়ি ফিরে হাসান দেখল তার বউয়ের কোলে ছয় মাসের একটা বাচ্চা। হাসান বউকে বলল, এটা কার বাচ্চা?

: কার আবার, আমার।

: কী! বল, তার নাম বল! কে আমার এত সর্বনাশ করেছে!

বউ চুপ।

: বল, কে সে? নিশ্চয়ই শয়তান জামাল!

: না

: তা হলে নিশ্চয়ই শয়তান জাফর!

: না, তাও না।

: তা হলে কে?

: তুমি শুধু তোমার বন্ধুদের কথাই বলছ আমার কি কোনো বন্ধু থাকতে পারে না?

 

৩২)

রাতের মাতলামি শেষ করে পরদিন ঘুম থেকে উঠেছে বব। মাথা ব্যাথা করছে তার। গতকাল রাতে কি হইছে , কি করছে কিছুই মনে পড়ছে না।

বিছানা থেকে মাথা তুলেই দেখে পাশে দুইটা এসপিরিন আর এক গ্লাস পানি। বড়ি দুইটা খেয়ে উঠে পড়ল। তার জামা কাপড় ইস্ত্রী করে রাখা। তার পাশে একটা লাল গোলাপ। ঘরের সব কিছু বেশ পরিস্কার-সাধারনত এর পরিস্কার থাকে না। ড্রেসিং টেবিলের আয়নায় সে আবিষ্কার করে তার চোখের নিচে বড় কালো দাগ। গতকাল কি কেউ ঘুষি মেরেছে? তার কিছুই মনে পড়ে না। অফিস পার্টিতে এত মদ খাওয়া উচিত হয় নাই।

দাত মাজতে বাথরুমে ঢুকে দেখে আয়নায় লিপিস্টিক দিয়ে একটা চুমু আকা।

নিচে নোট

হানি,

তুমি ঘুমাচ্ছো দেখে আর জাগালাম না। নাস্তা রেডি আছে। আমি গ্রোসারি সেরেই আসছি। আজকে রাতে তোমার জন্য স্পেশাল রান্না হবে।

তোমার সোনাবউ

বব ডাইনিং টেবিলে গেল। তার পোলা নাস্তা করছে।

-বাপধন, গত রাইতে কি হইছিলো? আজকে সকালে দেখি সব সাজানো গোছানো, ঘর ত এত ভালা থাকে না।

-তুমার কিছু মনে নাই?

-না!

-তুমি রাইত তিনটার সময় আসছো। ঘরে ঢুকার সময় দরজায় বাড়ি খেয়ে তোমার চোখের নিচে দাগ পড়ল।

-আইচ্ছা। তারপর?

-আছাড় খেয়ে পড়ে তুমি আমাদের কফি টেবিলটা মাঝ বরাবর ভেঙ্গে ফেলছো। এরপর ড্রইং রূমের কার্পেটে একগাদা বমি করলা।

-এরপরও ঘরের সব ঠিক রইলো ক্যামনে?

-যখন তুমারে মায়ে বিছানায় নেয়ার জন্য জড়িয়ে ধরছে, তখন তুমি মায়রে কইছো, মাগী ছাইড়্যা দে আমারে! আমি বিবাহিত।

 

৩৩)

একশহরে দুই জমজ ভাই ছিল। বব আর জন। বব বিয়ে করেছিল লিসা নামের একটা মেয়েকে। কাকতালীয়ভাবে জনের লিসা নামে একটা ফিসিং বোট ছিল। আরো কাকতালীয়ভাবে ববের বউ লিসা যেদিন মারা যায় ঠিক সেইদিন জনের নৌকা লিসাও ডুবে যায়।

কয়েকদিন পর, শহরের এক বৃদ্ধা মহিলা জনের সাথে দেখা হলো। জন তার নৌকা লিসাকে হারিয়ে খুব একটা দুঃখ পায় নাই। এদিকে মহিলা ভেবেছে এইটা বব। ববের বউ মরায় সে নিশ্চয় কষ্টে আছে।

মহিলা বলল “আহা! কিরে পোলা, লিসার জন্য কষ্ট হয় রে?”

জন বলল, তেমন একটা হয় না।

কি বলিস ছোকরা!

আরে বলবেন না, যেদিন থেকে লিসা আমার হলো- সেদিনই আমি টের পেলাম আসলে লিসা বেশ খারাপ মাল। তার নিচটা বেশ ময়লা- পচা মাছের গন্ধ পেতাম। যেদিন আমি প্রথম তার ওপর উঠলাম- সে ছ্যাড়ছ্যাড় করে পানি ছেড়ে দিল। আমার মনের অবস্থাটা বুঝেন! তার পিছন দিকে তাকালে পরিষ্কারভাবেই একটা খাজ দেখা যেত। আর সামনের দিকের ছিদ্রটা যত দিন যেতে লাগল ততই বড় হতে লাগছিল। তবু তাকে দিয়ে আমার কাজ চলে যাচ্ছিল। কিন্তু শহরের চার যুবক এসে তার জীবন শেষ করে দিল। এই চাইর বদমাশ আসছিল একটু ভালো সময় কাটানোর জন্য। শহরে ভালো কিছু না পেয়ে এরা লিসাকেই পছন্দ করে ফেলল।আমি ত লিসাকে ভাড়া দিতে রাজি না। হাজার হোক লিসা আমার। কিন্তু হারামজাদাগুলা লিসার জন্য আমাকে টাকা সাধতে শুরু করল। আমি জানি লিসার ক্ষমতা নাই একসাথে চারজনকে নেয়ার- কিন্তু ওরা টাকা দিয়ে আমাকে রাজি করিয়ে ফেলল।

একটু দীর্ঘশ্বাস ফেলে জন বলল, ওরা চারজন একসাথে লিসার ওপর চড়ে বসতেই লিসা শেষ বারের মত পানি ছেড়ে দিয়ে …… শেষ হয়ে গেলো।

জনের কথা শেষ হতেই বুড়ি মাথা ঘুরে পড়ে গেলো।

 

৩৪)

স্বামী-স্ত্রী রতিক্রিয়ার সময় –

স্ত্রীঃ আজ তোমার কেমন লাগছে গো?

স্বামীঃ দারুন লাগছে ডার্লিং! ইচ্ছে করছে তোমার ভিতর চিরদিনের জন্য ঢুকে যাই! ।

বারান্দায় কাজের বুয়াঃ ঢুকে যাওয়ার আগে আমার টাকাটা দিয়ে যাবেন।

 

৩৫)

বাজার করে আসার পথে ববের গাড়ি খারাপ হয়ে গেলো। সে গাড়ি থেকে নেমে এল। তার ফার্মটা কাছেই। হেটে যেতে মিনিট দশেক লাগবে। সে আপাতত গাড়িটা ফেলে রেখে চলেই যেতে পারত। পরে মেকানিক নিয়ে এসে ঠিক করা যেত গাড়িটা। কিন্তু সমস্যা হল সাথে কিছু বাজার আছে। একটা বড় হাস, দুইটা মুরগি, একটা বালতি আর চার লিটার রঙের ডিব্বা। এতগুলা জিনিস কিভাবে নেয়া যায় সে বুঝে উঠতে পারছে না।

রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে সে এটা নিয়ে ভাবছে, এমন সময় খুব সুন্দর এবং বছর চব্বিশের এক মেয়ে তাকে জিজ্ঞেস করল, আচ্ছা, ৭৭ নম্বর ফার্মটা কোনদিকে?

-৭৭? আমার বাসার পাশেই। হেটে যেতে বড়জোর দশমিনিট লাগবে। আমিই আপনাকে সাথে নিয়ে যেতাম কিন্তু একটা হাস, দুইটা মুরগি, বালতি আর রঙের কৌটা নিয়ে হাটতে পারছি না।

-এক কাজ করেন। রঙের কৌটাটা নেন বালতির ভিতর। মুরগি দুইটা নেন দুই বগলে আর হাসটা নেন আরেক হাতে।

বব তাই করল। চমৎকার কাজ করছে। পথে কথাবার্তায় মেয়ের নাম জানা হল লিসা। সে যাচ্ছে কাজিন জনের বাসায়।

পথের এক জায়গায় বব বলল, এই ওয়ালটার পাশ দিয়ে একটা শর্টকাট – আছে। এখান দিয়ে গেলে তাড়াতাড়ি হবে।

লিসা বলল, কিন্তু খুব নির্জন মনে হচ্ছে পথ।

-তাতে কি?

-আপনি একজন যুবক। আমি একজন তরুনী। ধরেন, আপনি যদি নির্জনে আমার সাথে u know what শুরু করতে চান?

-হা হা হা! আমার একহাতে বালতি, যেটার ভিতর রঙের কৌটা, আরেক হাতে হাস। দুই বগলে দুইটা মুরগি। আমি কিভাবে আপনার সাথে জোর করে কিছু করতে পারি?

-ধরেন, আপনি বালতি থেকে রঙের কৌটাটা বের করে সেটা উল্টিয়ে হাসটা রাখলেন। হাসটা যেন না পালাতে পারে সেজন্য রঙের কৌটাটা বালতির ওপর রাখলেন। তাহলেই হল।

-ভুল করছেন। দুইটা মুরগি আছে যে, সেগুলার কি করব শুনি?

একটু হেসে লিসা বলল, মুরগি দুইটা না হয় আমিই ধরে রাখলাম।

 

৩৬)

খদ্দেরঃ সেক্স করার সময় উভয়ই মজা পাই, তাহলে তুমি আমার কাছ থেকে পয়সা নেবে কেন?

পসারিনীঃ আউটগোয়িং এই চার্জ লাগে, ইনকামিং ফ্রি!

 

৩৭)

তোর স্যুটটা তো বেশ সুন্দর। কোথায় পেলি?

: এটা আমার স্ত্রী আমাকে দিয়েছে একটা সারপ্রাইজ গিফট হিসেবে।

: কেমন সারপ্রাইজ গিফট?

: আমি অফিস থেকে ফিরে দেখি সোফার উপর এই স্যুটটা পড়ে আছে।

 

৩৮)

এক দম্পতির বিবাহবিচ্ছেদ হয়ে গেল। তাদের নাবালক মেয়েটিকে জিজ্ঞেস করা হল, তুমি কার সঙ্গে থাকতে চাও, মায়ের সঙ্গে?

মেয়েটি বলল, না, মা বড্ড পেটায়!

তাহলে বাবার সঙ্গে?

না, বাবাও ভীষণ পেটায়!

তাহলে কার সঙ্গে থাকতে চাও?

আমি ক্রিকেটার আশরাফুলের সঙ্গে থাকতে চাই। ও ভারী ভালোমানুষ, চাইলেও পেটাতে পারে না!

 

৩৯)

শহরের পাড় মাতাল, বুড়া বব গেছে চার্চে। সবার সামনে সে প্রশ্ন করল, ফাদার! আর্থেরাইটিস কিভাবে হয়?

ফাদার ববের দিকে তাকালেন। ববের হাত পা কাপছে। যুবক বয়সে ববের অপরিমিত মদ খাবার কাহিনী শহরের সবাই জানে। আরো জানে যৌবনে সে যত্র-তত্র যে কোন মেয়ের সাথে শুয়ে পড়ত। ফাদার ভাবলেন, যুবক সম্প্রদায়কে একটা শিক্ষা দেয়া দরকার। তাই তিনি খুব ভাব নিয়ে বলা শুরু করলেন।

-এটা হয় পাপীদের। যারা খায় মদ। নারী যাদের কাছে বিনোদন মাত্র। যুবকেরা শুনে রাখ, তোমাদের এই যৌবনে তোমরা যে পাপ করবে উদ্দাম সঙ্গমে আর মদে- সেই পাপ তোমাদের ধরবে বার্ধ্যকে এসে।

বব শুনে মাথা নিচু করে রাখল কিছুক্ষন। এরপর বলল, ড্যাম! আজকে পেপারে দেখলাম পোপের আর্থেরাইটিস হইছে।

 

৪০)

ডাক্তার: কনগ্রাচুলেশন! মেয়ে হয়েছে….

শ্বাশুড়ী: এতো দিন পরে হলো তাও আবার মেয়ে?

বউ: তাও তো হয়েছে…. আপনার ছেলের আশায় থাকলে তাও হতো না।

 

৪১)

গ্রীনল্যান্ডে, দুই এস্কিমো খুব সকালে এক চার্চে গিয়ে দরজা ধাক্কাতে লাগলো। এক পাদ্রি এসে দরজা খুলতেই একজন এস্কিমো প্রশ্ন করলো – আচ্ছা ফাদার, আপনাদের এখানে কি কোন বেঁটে নান কাজ করে যে কিনা তিন ফুটের মতো লম্বা?

ফাদার এদিক ওদিক মাথা নেড়ে বললেন – না হে, এরকম কোন নান এখানে কাজ করেন না।

এস্কিমোটা এবার একটু মলিন হয়ে জিজ্ঞেস করলো – আচ্ছা ফাদার, তবে কি এই এলাকার অন্য কোন চার্চে কোন বেঁটে নান কাজ করে?

ফাদার আবারো মাথা নাড়লেন – না এরকম কোন নান এ তল্লাটের কোথাও কাজ করে না।

অন্য এস্কিমোটা এবার হো হো করে হেসে উঠে মাটিতে গড়াগড়ি খেতে লাগলো। আর বলল – বলেছিলাম না ? তুই কোন নান না, রাতের আঁধারে একটা বড় পেঙ্গুইনের সাথে সেক্স করেছিস! হো হো হো হো!!!

 

৪২)

একজন ফাদার চার্চের জন্য কিছু টাকা তুলতে চান। তিনি বিশপকে জিজ্ঞেস করলেন, কিভাবে কিছু টাকা আয় করা যায় বলুন ত! চার্চে কিছু সংস্কার কাজ করা হবে। কিন্তু ফান্ডে যথেষ্ট টাকা নাই। বিশপ বুদ্ধি দিলেন, শহরে ঘোড়ার রেস হয় প্রতি সপ্তাহে। একটা ঘোড়া কিনে সেখানে অংশ নাও। পরের সপ্তাহেই ফাদার গেলেন ঘোড়া কিনতে। কিন্তু ঘোড়ার দাম শুনে তার চক্ষু চড়ক গাছে। বেচারা আর কিছু কিনতে না পেরে একটা গাধা কিনে নিয়ে চলে এলেন। শহরে এসে ভাবলেন, কিনছি যখন গাধা, সেটাকেই রেসে লাগাই। কি আর এমন হবে যদি হেরে যাই।

রেসের ময়দানের সবাইকে অবাক করে দিয়ে গাধাটা ঘোড়ার রেসেই তৃতীয় হয়ে বসল। শহর জুড়ে গাধার প্রশংসা আর তার কীর্তির আলাপ হচ্ছে। পত্রিকাগুলাও পরদিন ফলাও করে খবর ছাপাল, Father’S ASS SHOWS!!!

ফাদার গাধাটাকে খুব ভালো ভালো খাবার দেয়া শুরু করলেন। পরের সপ্তাহেও রেসে অংশ নিলেন গাধা নিয়েই। এইবার তার গাধা রেসের প্রথমেই। পরদিন বিশাল ছবি সহ সংবাদপত্রের শিরোনাম- FATHER’S ASS OUT IN FRONT!!!

ফাদার আগ্রহ নিয়ে বিশপের সাথে দেখা করতে গেলেন। ফান্ডে বেশ ভালো টাকা জমা হচ্ছে গাধাটার কারনে। এদিকে গাধাটা আবার শহরের হিরো হয়ে গেছে। কিন্তু বিশপ পেপারের হেড লাইনগুলো পছন্দই করেন নাই। তিনি ফাদারকে হুকুম দিলেন, বদমাশ গাধাকে আর রেসে দিবেন না। ফাদার তাই করলেন।রেসে কভার করতে আসা সাংবাদিকেরা জিজ্ঞেস করল গাধাটা রেসে নাই কেনো? সহজ-সরল ফাদার বলে দিলেন বিশপের নির্দেশেই এই কাজ করা হয়েছে। রেসিং ডে এর পরের দিন পেপারে আসল- BISHOP SCRATCHES FATHER’S ASS

বিশপ ত এইবার পুরা ক্ষেপা। তার কড়া নির্দেশ এলো ফাদারের কাছে। গাধাকে সরাও। ফাদার আর কি করবেন? এত শখের গাধা তার। কাছের এক সন্ন্যাসী আশ্রমে তার পরিচিত এক নান থাকেন। তিনি গাধাটা নানকে দিয়ে দিলেন। পরের দিনে পেপারে আসল, NUN HAS BEST ASS IN TOWN!!! এইবার পেপারের হেডিং দেখে বিশপ ফিট হয়ে পড়ে গেলেন। জ্ঞান ফিরে আসার পর নানকে খবর পাঠালেন, দয়া করে গাধাটা বিক্রি করে দেন।

নান তাই করলেন। নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করে দিলেন গাধাটা। পেপারে খবর চলে আসল, NUN SELLS ASS FOR 1000 Taka.

বিশপের মাথা এইবার আউলিয়ে গেছে। পেপারগুলা যা শুরু করছে!!!! গাধাটার হাত থেকে যেভাবেই হোক মুক্তি পেতে হবে। তিনি নানকে নির্দেশ দিলেন, আপনি গাধাটা আবার কিনে নেন। এরপর সেটাকে জঙ্গলে ছেড়ে দেন। এরসাথে আমাদের চার্চের যেন কোনরূপ সম্পর্ক না থাকে। নান গাধাটা কিনে ফেরত নিলেন। তারপর বনে নিয়ে ছেড়ে দিলেন। সংবাদ সম্মেলন করে জানালেন, আমার গাধাটার সাথে চার্চের কোনরূপ সম্পর্ক আর নাই। সেটাকে মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। কেউই আর গাধাটার মালিক নয়। পরেরদিন পেপারের হেডিং- NUN ANNOUNCES HER ASS IS WILD AND FREE.

সেইদিন সকালে হার্ট এটাকে বিশপ মারা গেলেন।

 

৪৩)

সেনাবাহিনীতে নিয়গের জন্য প্রার্থীদের স্বাস্থ্য পরিক্ষা করা হচ্ছে যাকে মেডিকেল চেক-আপ। সেনাবাহিনীর একজন ডাক্তার খুটিয়ে খুটিয়ে দেখছেন দরকার হলে দিগম্বর করছেন। তো একজনকে দিগম্বর করে বললেন, “এই ছোকরা, তোর পাছা এত কালো কেন? তুই কি বিড়ি, সিগারেট কিছু খাস নাকি?”

ছোকরাও বেশ ত্যাঁদোড়, “কেন স্যার, পাছা দিয়া কি ধোঁয়া বের হচ্ছে?”

 

৪৪)

আবুল মিয়ার সাথা পাশের বাসার মিতা ভাবীর অবৈধ্য সম্পর্ক আছে। আবুল তারে একটা বিদেশী ব্রা গিফট করছে। তার সাতদিন পর:

আবুল: তোমাকে যে বিদেশী ব্রা টা দিছিলাম সেইটা দিয়া কি করছো?

মিতা: সেটা তো রফিক নিয়া গেছে আমার কাছে থাকে।

আ: তার মানে তুমি রফিকের সাথেও xxx কর।

মি: তো তোমার কি ধারনা শুধু তোমার সাথেই।

আ: যাই হোক, রফিক সেটা দিয়া কি করছে।

মি: রফিকের সাথে আবার আইরিনের প্রেম। সে আইরিনকে গিফট করছে।

আ: আইরিন সেটা দিয়া কি করছে?

মি: তা তো জানিনা। কেন, কি দরকার তোমার তা দিয়া?

আ: খুব দরকার। আজ আমার বৌ দেখি সেই ব্রা-টা পইড়া আছে।

 

৪৫)

বুড়ো রিয়াদ সাহেব বিয়ে করেছেন এক কচি মেয়েকে। কিন্তু কয়েক হপ্তা পর দেখা গেলো, বিছানায় যত কায়দা কানুনই তিনি করেন না কেন, বউ বেচারির রাগমোচন হচ্ছে না।

রিয়াদ সাহেব ঠিক করলেন, তিনি ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন।

ডাক্তার সব শুনে, সব দেখে রায় দিলেন। “এক কাজ করুন। ফ্যান্টাসি সেক্স চেষ্টা করে দেখুন। ষন্ডা কোন ছোকরাকে ভাড়া করবেন। আপনারা যখন ঐসব করবেন, ছোকরা ন্যাংটা হয়ে দাঁড়িয়ে তালপাখা দিয়ে আপনাদের বাতাস করবে।”

ডাক্তারের কথা কী আর ফেলা যায়? রিয়াদ সাহেব এক ষন্ডামতো ছোকরাকে ভাড়া করে বাড়ি নিয়ে গেলেন। ডাক্তারের নির্দেশমতো কাজ করেও কোন ফল পাওয়া গেলো না। চটেমটে রিয়াদ সাহেব আবার ডাক্তারের চেম্বারে হানা দিলেন।

ডাক্তার সব শুনে, সব দেখে আবারও রায় দিলেন। “এক কাজ করুন। এবার উল্টো ফ্যান্টাসি সেক্স চেষ্টা করে দেখুন। ষন্ডা কোন ছোকরাকে ভাড়া করবেন। এবার ছোকরা আপনার স্ত্রীর সাথে যখন ঐসব করবে, আপনি ন্যাংটা হয়ে দাঁড়িয়ে তালপাখা দিয়ে ওদের বাতাস করবেন।”

মরিয়া রিয়াদ সাহেব ঠিক করলেন, তথাস্তু।

এবার একেবারে হাতেনাতে ফল পাওয়া গেলো। রিয়াদ সাহেবের বউ এক উথালপাথাল রাগমোচন লাভ করলেন।

উল্লসিত রিয়াদ সাহেব ষন্ডা ছোকরার কাঁধে টোকা দিয়ে বললেন, “এবার বুঝেছো তো ছোকরা, কিভাবে ঠিকমতো বাতাস করতে হয়?”

 

৪৬)

মহিলা হোষ্টেলে হঠাৎ বিদ্যুৎ নষ্ট হয়ে গেলে,ওয়ার্ডেন বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলো,”হ্যালো বিদ্যুৎ অফিস? আপনার লোকজন কে শিগ্গির পাঠিয়ে দিন, মেয়েরা সবাই মোমবাতি ব্যবহার করছে!”

 

৪৭)

রোমেল আর তার বউ গলফ খেলা শিখতে গেছে এক পোড়খাওয়া গলফারের কাছে। প্রথমে রোমেলের পালা। কষে বলের ওপর ক্লাব চালালো সে। বল গিয়ে পড়লো ১০০ গজ দূরে।

“উঁহু, এভাবে নয়।” এদিক ওদিক মাথা নাড়লো গলফার। “এমনভাবে ক্লাবটাকে আঁকড়ে ধরুন, যেন স্ত্রীর বুক চেপে ধরেছেন।”

এই পরামর্শ কাজে লাগিয়ে ক্লাব হাঁকালো রোমেল। এবার বল গিয়ে পড়লো ৩০০ গজ দূরে। সন্তুষ্ট হয়ে এবার রোমেলের বউকে শেখাতে বসলেন গলফার।

“কিছু মনে করবেন না ম্যাডাম, ক্লাবটাকে এমনভাবে পাকড়াও করুন, যেন আপনার স্বামীর ঐ প্রত্যঙ্গটি চেপে ধরেছেন। তারপর কষে হিট করুন।”

রোমেলের বউ হিট করলো, বল গিয়ে পড়লো ১০ গজ দূরে।

গলফার বললেন, “হুম, মন্দ নয়। এবার এক কাজ করুন, ক্লাবটাকে মুখ থেকে নামিয়ে হাত দিয়ে ধরে আবার মারুন তো দেখি!”

 

৪৮)

প্রেম চলাকালীন সময়ে প্রেমিকা প্রেমিককে বলল, এত জোরে না সোনা , প্লিজ। আমার হার্ট দুর্বল।

প্রেমিক আশ্বস্ত করল, ভয় পেও না, এটা অতদূর যাবে না।

 

৪৯)

তখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলছে। সাগরে আমেরিকা আর জাপানের যুদ্ধ জাহাজ যুদ্ধ করতেছে। হঠাত করে জাপানী জাহাজের ক্যাপ্টেন খেয়াল করলো আমেরিকার জাহাজ থেকে পানির নিচ দিয়া বেকায়দা স্টাইলে একটা মিসাইল ছুড়া হইছে। মিসাইল নির্ঘাত জাপানী জাহাজে আইসা লাগবো। মরা ছাড়া জাপানীদের আর কোনো উপায় নাই।

জাপানী ক্যাপ্টেন তার বৃদ্ধ সহকারীকে ডেকে পরিস্থিতি বুঝায় বললো।

ক্যাপ্টেন : আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করবো জাহাজকে মিসাইলের পথ থেকে সরিয়ে নিতে। কিন্তু সফল হওয়ার সম্ভাবনা কম। তুমি এক কাজ করো। নিচে আমাদের যেসব সৈন্য আছে তাদের কাছে যাও। তাদেরকে মিসাইলের কথা বলো না। বরং আমি চাই এই শেষ বেলায় তুমি তাদেরকে কিছুক্ষনের জন্য হাসাও। দেশপ্রেমিক ক্লান্ত সৈন্যরা যেনো জীবনের শেষ মুহুর্তেও একটু হাসতে হাসতে মরতে পারে।

বৃদ্ধ : স্যার, আপনি কোনো চিন্তা করবেন না। আমি আমার সাধ্যমত চেষ্টা করবো তাদের হাসাতে।

বৃদ্ধ সহকারী নিচে নামলো। সৈন্যরা তাকে দেখে উপরের খবর জানতে চাইলো…

বৃদ্ধ : ঊপরের খবর ভালো, নিচের(!!!) খবর আরো ভালো।

সৈন্যরা : নিচের খবর ভালো মানে?

বৃদ্ধ : আমি যদি বলি আমার নিচের “জিনিস”  দিয়ে জাহাজের এই মেঝেতে বাড়ি দিলে জাহাজটা ভেঙ্গে দুই ভাগ হয়ে যাবে, তাহলে কে কে অবিশ্বাস করবে?

সৈন্যরা : হাহাহাহা…বুড়ার খায়েশ দেখো…এই বয়সে কিসব কাপঝাপ কওন লাগছে।

সৈন্যরা হাসতে হাসতে মাটিতে গড়াগড়ি খাওয়া ধরলো।

বৃদ্ধ : বিশ্বাস হয় না?….দাড়া…দেখ তাহলে মজা….

এই বলে বৃদ্ধ হাটু গেড়ে বসে তার “জিনিস” দিয়ে জাহাজের পটাতনে দিলো এক বাড়ি। ঠিক সেই সময় মিসাইল এসে জাপানী জাহাজে আঘাত করলো। জাহাজ দুই ভাগ হয়ে ডুবতে লাগলো….

সৈন্যরা সবাই মারা গেলো। কাহিনীর প্রয়োজনে বেচে রইলো শুধু ক্যাপ্টেন আর বৃদ্ধ।

ক্যাপ্টেন : তোমাকে যা করতে বলছিলাম তুমি কি তা করছো?

বৃদ্ধ : জ্বি স্যার। আমি তাদেরকে শেষ সময়ে হাসাতে সাহায্য করেছি।

ক্যাপ্টেন : কিভাবে হাসাইছো?

বৃদ্ধ সব খুলে বললো। সব শুনে ক্যাপ্টেন বললো, ভালো কাজ দেখাইছো। আমি অনেক খুশি হইছি যে আমাদের দেশের জন্য যারা যুদ্ধ করছে তাদেরকে তুমি শেষ মুহুর্তের আনন্দটুকু দিতে পারছো। তবে পরেরবার থেকে তোমার “জিনিস” ব্যবহারে সাবধান থাকবে। কারণ মিসাইল আমাদের জাহাজের পাশ কেটে গেছে।

 

৫০)

বাবুর বড় বিপদ, ২৫ ইঞ্চি দীর্ঘ প্রত্যঙ্গ নিয়ে গাড্ডায় পড়েছে সে। কোনও মেয়েকে সে ঠিক খুশি করতে পারে না, আবার এই আকৃতি নিয়ে তার নিজেরও নানা হাঙ্গামা। একদিন জঙ্গলে এক দরবেশ বাবার আস্তানায় ধর্ণা দিলো সে। তার সমস্যার কথা খুলে বলে কাকুতি মিনতি করে জানালো, বাবা যদি কোনোভাবে ২৫ ইঞ্চি থেকে তাকে ১০-এ নামিয়ে আনতে পারেন, সে সারাজীবন কৃতজ্ঞ থাকবে। দরবেশ বাবা মিনিট পাঁচেক চোখ বুঁজে ধ্যান করে বললেন, “এখান থেকে সোজা উত্তর দিকে বনের এভতর পাঁচশ কদম হাঁটলে একটা কুয়ো পাবি। ওখানে বাস করে এক মাদী ব্যাং, কিন্তু মানুষের জবানে কথা বলে। তাকে শুধাবি তোকে সে বিয়ে করতে চায় কি না। যদি উত্তরে না বলে, ৫ ইঞ্চি কমে যাবে। এখন যা বেটা। হক মাওলা!”

বাবু ৫০০ কদম এগিয়ে কুয়ো খুঁজে পেলো। ভেতরে উঁকি দিয়ে দেখলো, বাস্তব, একটা ব্যাং বসে। সে গলা খাঁকরে শুধালো, “ইয়ে ব্যাংকুমারী, তুমি আমায় বিয়ে করবে?”

গম্ভীর গলায় উত্তর এলো, “না!”

বাবু টের পেলো, ২০-এ নেমে গেছে সে। কিন্তু এতেও অসুবিধা হবে ভেবে সে আবারো জিজ্ঞেস করলো, “ও ব্যাংকুমারী, তুমি আমায় বিয়ে করবে?”

আবারও গম্ভীর গলায় উত্তর এলো, “না!”

বাবু ১৫-তে নেমে এলো।

উল্লসিত বাবু আবারো জিজ্ঞেস করলো, “বলি ও ব্যাংকুমারী, তুমি আমায় বিয়ে করবে?”

এবার উত্তর এলো, “এক কথা কতবার বলবো তোকে ব্যাটা হারামজাদা? না, না, না!”

 

৫১)

দীপ্ত দশম শ্রেনীতে পড়ুয়া মেধাবী ছাত্র। ভাল ফলাফল প্রত্যাশী দীপ্ত তাই রোজ সন্ধ্যার পর যৈবতী ম্যাডামের বাড়ীতে গিয়ে প্রাইভেট পড়ে। এক বৈশাখের সন্ধ্যায় তেমনি করে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার পর কাল বৈশাখী শুরু। প্রচন্ড ঝড় আর বৃষ্টি কিছুতেই থামছে না। সন্ধ্যা গড়িয়ে অনেক রাত। ঝড় কমলেও বৃষ্টি থামছে না। অবশেষে বৃষ্টিতে ভিজেই বাড়ী ফিরতে চাইলে যৈবতী ম্যাডাম না করেন। বলেন এত রাতে এইভাবে বৃষ্টি ভিজে বাড়ী ফেরার দরকার নাই। আজ রাত আমার এখানেই ঘুমিয়ে থাকো। সকালে চলে যেও। আমি তোমার মাকে ফোন করে দিচ্ছি।

দীপ্তঃ না ম্যাডাম, আমি আপনার বাসায় রাতে থাকতে পারবনা।

ম্যাডামঃ কেন? কি সমস্যা? আমি বিছানা করে দিচ্ছি তুমি খেয়ে ঘুমিয়ে পড়।

দীপ্তঃ না ম্যাডাম, রাতে অন্যের বাসায় ঘুমাতে আমার সমস্যা আছে।

ম্যাডামঃ কি সমস্যা বল শুনি।

দীপ্তঃ না ম্যাডাম, সেটা বলা যাবে না।

ম্যাডামঃ না বললে তো তোমার সমস্যার সমাধান হবে না। তুমি বল, আমি সমাধান করে দেব।

ম্যাডামের অনেক পীড়াপিড়ির পর

দীপ্তঃ ম্যাডাম, রাতে অন্য কারোর নাভিতে আংগুল না দিয়ে ঘুমালে আমার ঘুম আসেনা।

প্রিয় ছাত্রের এমন অদ্ভুত সমস্যার কথা শুনে ম্যাডাম কিছুটা বিব্রত হলেও বিচলিত না হয়ে বললেন – ঠিক আছে, রাতে তুমি আমার নাভিতে আংগুল দিয়েই ঘুমিও।

এমন আশ্বাসের ভিত্তিতে দীপ্ত সে রাত ম্যাডামের বাসায় থেকে যায়।

পরদিন সকালে গোসল সেরে মাথার চুল ঝাড়তে ঝাড়তে ম্যাডাম লজ্জাবনত মস্তকে দীপ্তকে বলছে- দীপ্ত, কাল রাতে তুমি যেটাকে নাভি মনে করে আংগুল দিয়ে ঘুমিয়েছ সেটা আসলে নাভি ছিলনা।

উত্তরে দীপ্ত বলে- ম্যাডাম, আপনি যেটাকে আংগুল মনে করছেন, সেটাও আসলে আংগুল ছিল না।

 

৫২)

এক ভদ্রলোকের খামারে ব্রিডিং এর দরকার হলো। তিনি বাজারে গিয়ে তরতাজা এক মোরগ পছন্দ করলেন এবং দোকানিকে দাম জানতে চাইলেন। দোকানদার বলল, ২০ ডলার, তবে এর চেয়ে এই শুকনা মোরগটা নিয়ে যান আপনার কাজে লাগবে। ভদ্রলোকের ঠিক পছন্দ না হলেও দোকানদার শুকনা মোরগ এর জন্য ৪০ ডলার চাইল। ভদ্রলোক শুকনা মোরগ টাই নিলেন।

প্রথমদিন মোরগটা খামারির সব মুরগিগুলোকে প্রেগন্যান্ট করল,

দ্বিতীয়দিন সব ছাগলগুলোকে প্রেগন্যান্ট করল,

তৃতীয়দিন সব গরুগুলোকে প্রেগন্যান্ট করল

এবং পরদিন

ভদ্রলোক ঘুম থেকে উঠে দেখেন তার মোরগ মাঠের মাঝে মৃত পড়ে আছে। ভদ্রলোক হা হা করে কাছে ছুটে যেতেই মোরগ লাফ দিয়ে উঠে বলল, হতচ্ছাড়া তোর জন্য আমার টার্গেট করা কাক গুলো মিস হয়ে গেল।

 

৫৩)

দুই কালসিটে বসা চোখ নিয়ে ফিরলো জুমন। রুমমেট সুমন বললো, ‘কী রে, কী হয়েছে?’

জুমন বললো, ‘আর বলিস না। বাসে বসেছিলাম, এক মহিলা দাঁড়িয়ে যাচ্ছিলো। তো, হয়েছে কি, মহিলার শাড়িটা পেছনে এমন বিচ্ছিরি ভাবে এঁটেছিলো, ঠিকমতো দাঁড়াতে পারছিলেন না। আমি ভাবলাম, ওজায়গায় শাড়িটা আঙুল দিয়ে এক চিমটি টেনে একটু ঢিলে করে দিই, ওনার সুবিধে হবে। ঐ কাজ করতেই মহিলা পেছন ফিরে এক ঘুঁষি মারলো আমার বাম চোখের ওপর।’

‘আয় হায়। আর ডান চোখে কী হয়েছে?’

‘মার খেয়ে আমি ভাবলাম, যেমন ছিলো তেমনটাই করে দিই। তাই আঙুল দিয়ে খুঁচিয়ে আবার ওটা আগের মতো আঁটো করে দিলাম …।’

 

৫৪)

ব্যাংক এ বেশ বড় একটা লাইন। ডেস্কে বসে যে মেয়েটা টাকা ও চেক জমা নিচ্ছে সে কানে হেডফোন লাগিয়ে তার বয়ফ্রেন্ডের সাথে কথা বলছে। ফাকে ফাকে কাজ করছে। লাইনে যারা দাঁড়িয়ে আছে সবাই বিরক্ত। একজনকে দেখে মনে হল তার বিরক্তির সীমা নাই। একটু পরপর বলছে, আর কত দাঁড়িয়ে থাকব? ভালো লাগেনা।

এক পর্যায়ে তার ধৈর্যচ্যুতি হল। সে লাইন ভেঙ্গে সবার সামনে এসে মেয়েটাকে বলল, তাড়াতাড়ি করেন। আমি সারাদিন দাঁড়িয়ে থাকতে পারব না।

মেয়েটা হেডফোন সরিয়ে বলল, লাইন ধরেন।

-বালের লাইন ধরব আমি।

-বাজে কথা বলবেন না।

– মাগী তুই আমার চেক নিবি কিনা সেটা বল।

-খবরদার। আপনি বাজে ভাষা ব্যবহার করছেন। আমি ম্যানেজারকে ডাকতে বাধ্য হব।

-কুত্তী! যা তোর ম্যানেজারকে ডাক।

মেয়েটা ম্যানেজারকে ঠিকই ডেকে আনল। ম্যানেজার এসেই বলল, খারাপ ভাষায় কথা বলছেন কেনো? এইখানে সবাই সম্ভ্রান্ত লোক। আজেবাজে লোকদের এই ব্যাংক এ কোন কাজ থাকে না। এখন বলুন আপনার সমস্যা কি?

-আমি দশ কোটি টাকার এই চেকটা জমা দিতে এসে গত দেড় ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি।

ম্যানেজার চেকটা হাতে নিল। টাকার অঙ্ক দেখল। ছোট্ট একটা শিস দিল। এরপর বলল, আপনি চেক নিয়ে এসেছেন, আর এই মাগী আপনার চেক জমা নিচ্ছে না!

 

৫৫)

রেস্টুরেন্ট। চিকেন এর অর্ডার মাত্র এসে টেবিলে পৌছল। বব খাওয়া শুরু করবে এই সময় ওয়েটার এসে বলল, স্যার। থামেন। এই ডিস আপনাকে দেয়া যাচ্ছে না।

কেনো?

জন সাহেব আমাদের নিয়মিত খদ্দের। তিনি এই ডিস খান। আজকে এইটাই শেষ ডিস। সুতরাং দয়া করে এটা নিয়ে যেতে দিন। হাউসের তরফ থেকে আপনাকে আমরা অন্য একটা ডিস ফ্রি দিচ্ছি।

জন হারামজাদা কে? সে চাইলেই আমি ডিস ফেরত দিব ক্যানো? আমি দিব না। এই চিকেন আমি খাব। জন যা পারুক করুক।

ওয়েটার চলে গেলো। একটু পর এক পুলিশ অফিসার আসল। এসেই বলল, কুত্তার বাচ্চা ! আমার চিকেন দে!

বব বুঝল এর নামই জন।

সে বলল, আমার ডিস আমি খাব! কিছুতেই তোকে দিব না।

আইচ্ছা! তোকে সাবধান করে দিচ্ছি। তুই মুরগিটার যা করবি, আমিও তোর তা করমু। তুই যদি মুরগির একটা রান ছিড়স, তোর রানও আমি ছিড়মু। খবরদার! মুরগির গায়ে হাত দিবি না।

আমি মুরগির সাথে যা করমু, তুই আমার সাথে তা করবি? আইচ্ছা! দেখ শালা…এই বলেই বব মুরগির দুই পা ফাক করে, ইয়ের ভিতর দুইটা আঙ্গুল ভরে দিলো। এরপর আবার আঙ্গুল দুইটা বের করে নিজের মুখে চুষে নিল। এরপর উঠে প্যান্ট খুলল। জনের দিকে তাকিয়ে বলল, ওকে শুরু কর দেখি!

 

৫৬)

জন নয়া ফ্লাটে ঊঠছে। ওর বাবা-মা আসছে দেখতে কি অবস্থা। এসে দেখে সে একা থাকে না, তার মেয়ে রুমমেট আছে একজন। লিসা নাম তার। মেয়েটা যাকে বলে সেই রকম সুন্দরী আর রমনীয়।

ওর মার সন্দেহ হলো,

-বাবা! তোমরা দুইজন কি লিভ টুগেদার শুরু করছো?

-না মা। সে আমার রুমমেট। এর বেশি কিছু না।

-সে তোমার সাথে রাতে থাকে না?

-না। ফ্লাটে ত দুইটা বেড। এই দেখ সে এইটাতে থাকে আর আমি থাকি পাশের রূমে।

-হুম! ভালো।

পরের সপ্তাহে লিসা জনকে জানালো তার খুব দামী ঘড়িটা পাওয়া যাচ্ছে না। যেদিন জনের বাবা-মা এসেছে তার পরদিন থেকেই ঘড়িটা গায়েব। জন ভাবল এটা নিয়ে মাকে ফোন করা যায় না। তাই সে একটা চিঠি লিখল।

মা!তুমি যাওয়ার পরদিন থেকে লিসা তার ঘড়িটা খুজে পাচ্ছে না। আমি বলতে চাই না তুমি ঘড়িটা নিয়েছো, আমি এটাও বলতে চাইনা যে ঘড়িটা তুমি নাও নি। কিন্তু কথা হল, তুমি যাওয়ার পরদিন থেকে ঘড়িটা কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে না।

জনের মা উত্তর দিল, বাবা।আমি বলতে চাই না লিসা তোমার সাথে রাতে শোয়, আমি এটাও বলতে চাই না, লিসা তোমার সাথে রাতে শোয় না। কিন্তু কথা হল, লিসা যদি নিজের খাটে রাতে শুইত, তবে চাদরের নিচে ঘড়িটা পেয়ে যেত।

 

৫৭)

বই পড়ে হঠাৎই ছোট্ট হৃদয় জানতে পারল যে প্রতিটি প্রাপ্তবয়স্করই অন্তত একটি করে গোপনীয়তা আছে যেটা কোন মূল্যেই প্রকাশ করতে রাজি নয়। সে মনে মনে ভাবল, এটা নিয়ে খানিকটা মজা করা যাক। সে তার মা’র কাছে গিয়ে বলল, মা আসল সত্যটা কিন্তু আমি জানি। মা চমকে উঠে সঙ্গে সঙ্গে তাকে ৫০ টাকা দিয়ে বলল, খবরদার সোনামানিক, তোমার বাবাকে বলো না!

তারপর সে আরেকদিন তার বাবাকে বলে বসল, বাবা আসল সত্যটা কিন্তু আমি জানি। বাবা চমকে উঠে সঙ্গে সঙ্গে তাকে ১০০ টাকা দিয়ে বলল, খবরদার জাদুসোনা তোমার মাকে বলো না!

হৃদয় এতে দারুণ মজা পেয়ে গেল। তখনই দেখল তাদের বাড়ির সামনে দুধওয়ালা এসেছে দুধ দিতে। সে তার কাছেও দৌড়ে গিয়ে বলল, চাচা আসল সত্যটা আমি জানি।

দুধওয়ালা সে কথা শুনে দু’হাত বাড়িয়ে ছলছল চোখে বলে উঠল-

তবে আয় বাবা আয়, তোর আসল বাপের কোলে আয়।

 

৫৮)

তিন টিনএজ বান্ধবী এক সাথে এক ফ্ল্যাটে থাকে। একি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। পরের শনিবার থেকে তাদের পরবর্তী সেমিস্টার শুরু হবে। তাই শুক্রবার দিন তিন বান্ধবী একসাথে ডেটিং এ বেড় হলো। সারাদিন ডেটিং করার পর কাকতালীয় ভাবে সন্ধ্যায় এক সাথে তিনজন বাসায় ফিরলো।

প্রথম এক বান্ধবী উৎফুল্ল ভাবে অপর দুইজনকে বলল – রোমাঞ্চকর ডেটিং হচ্ছে বাসায় ফিরে যখন দেখবে তোমার পরিপাটি চুল এবড়ানো থেবড়ানো, নিজেকে আয়নায় দেখলে পাগলীনি মনে হবে সেটা।

দ্বিতীয় বান্ধবী প্রথম বান্ধবীর উপর লাফ দিয়ে পরে বলল – হলো না, সব চেয়ে রোমাঞ্চকর ডেটিং হচ্ছে বাসায় ফিরে যখন দেখবে তোমার সুন্দর ম্যাকাপ নিঃশেষ হয় গেছে, তোমার ঠোঁটে লিপস্টিকের লেশ মাত্র নেই সেটা।

তৃতীয় বান্ধবী চুপ করে বসে বসে তাদের কথা শুনছিলো। কোন কথা বলছিলো না। অনেকক্ষণ চুপ করে থাকার পর নিজের অন্তর্বাস খুলে দেয়ালের দিকে ছুঁড়ে মেরে বলল – “সব চেয়ে রোমাঞ্চকর ডেটিং হচ্ছে এটা হারিয়ে ফেলা।”

 

৫৯)

একদিন এক জেনারেল, এক ক্যাপ্টেন আর এক মেজর বসে বিভিন্ন ধরনের গল্প করছেন। কথায় কথায় সেক্সের কথা উঠে আসলো।

জেনারেল বলল, জান, আমার কাছে সেক্স মানে হচ্ছে ৮০% পরিশ্রম আর ২০% আনন্দ।

তারপর তিনি জিজ্ঞাসা করলেন বাদবাকিদের। জবাবে ক্যাপ্টেন বলল, আমার কাছে সেক্স মানে ৬০% পরিশ্রম আর ৪০% আনন্দ।

এবার মেজরের পালা আসলে মেজর বললেন আমার মতে সেক্স হচ্ছে ৫০% পরিশ্রম আর ৫০% আনন্দ।

ঠিক সেই সময় এক বাটলার ঢুকে পড়লে জেনারেল বলল, এই বল তো, তোর কাছে সেক্স মানে কি?

জবাবে বাটলার বললো, স্যার আমার কাছে সেক্স মানে ১০০% ই আনন্দ এতে কোন পরিশ্রমই নাই।

এর জবাব শুনে সবাই রেগে গিয়ে বলল, এটা তোকে প্রমাণ করতে হবে। না পারলে তোকে পানিশমেন্ট দেওয়া হবে। তখন বাটলার জবাবে বলে, এতো খুবই সহজ স্যার! কারণ সেক্সে যদি কোন পরিশ্রম থাকতো তাহলে তা আপনারা আমাকে দিয়েই করাতেন।

 

৬০)

বাসের সামনের সিটে এক নানের পাশে এসে বসল এক হিপ্পি। নানের চেহারা দেখে সে রীতিমত মুগ্ধ। যেভাবেই হোক এই নানকে শয্যাসঙ্গী করতেই হবে। কিন্তু কীভাবে নানকে মনের কথাটা বলা যায়। অনেক চিন্তা ভাবনার পর শেষপর্যন্ত সরাসরি নানকে সেক্সের প্রস্তাব করে বসল হিপ্পি। হিপ্পির এই প্রস্তাবে নান তো রীতিমত আশ্চর্য! এই পোলায় বলে কী!!

মনে মনে রেগে উঠলেও বিনয়ের সাথে হিপ্পির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেন নান। সামনের স্টপেজে নেমে গেলেন নান।

এদিকে হিপ্পি কিছুটা মন খারাপ করে বসে আছে বাসে। বাসের ড্রাইভার এতক্ষণের কথোপকথন সবটাই শুনেছে। ড্রাইভার বলে উঠল, “তুমি চাইলে সুন্দরী নানের সাথে সেক্স করার উপায় বাতলে দিতে পারি।“

“অবশ্যই” , আনন্দে হাতে কিল মেরে বসল হিপ্পি।

“নান প্রতি বৃহস্পতিবার রাতে স্রষ্টার কাছে প্রার্থনা করার জন্য কবরস্থানে যান। সে সময় যদি তুমি হঠাৎ সাদা আলখাল্লা পড়ে অন্ধকার থেকে বের হয়ে এসে তাকে বোঝাতে পার যে তুমি গড, তাহলে নানকে দিয়ে যে কোন কাজ করিয়ে নেওয়া সম্ভব। “

আইডিয়াটা হিপ্পির বেশ পছন্দ হয়েছে। ড্রাইভারকে ধন্যবাদ জানিয়ে বাস থেকে নেমে পড়ল সে। পরের বৃহস্পতিবারে সন্ধ্যা নামতেই সর্বাঙ্গ সাদা আলখাল্লায় ঢেকে গোরস্থানের এক চিপায় বসে নানের জন্য বসে রইল হিপ্পি। গোরস্থানে জমাট অন্ধকার। সামনে বেশি দূরে দেখা যায় না। ঘণ্টাখানেক পরে কোন একজনকে গেট থেকে ধীরে ধীরে এগিয়ে আসতে দেখা গেল। পড়নের রোব দেখে হিপ্পি নিশ্চিত হল এটাই নান। কিছুক্ষুণ পর সামনে এক জায়গায় হাঁটু গেড়ে বসে প্রার্থনায় ডুবে গেলেন নান।

“এই সুযোগ”, মনে মনে বলল হিপ্পি।

আলখাল্লাটা ভালো করে গায়ে জড়িয়ে নানের সামনে এসে ভরাট গলায় হিপ্পি বলে উঠল , “আমিই গড! এতক্ষণ ধরে তোমার সব প্রার্থনা আমি শুনেছি। তোমার সকল প্রার্থনা কবুল করা হবে। তবে তার আগে আমার প্রতি তোমার বিশ্বাস যাচাই করার জন্য তোমার পরীক্ষা নেওয়া হবে। তোমাকে আমার সাথে সেক্স করতে হবে।”

স্রষ্টার আদেশ অমান্য করার মত সাহস নানের নেই। তাই তিনি রাজি হয়ে গেলেন। তবে শর্ত অন্যভাবে করতে হবে। নান নিজের ভার্জিনিটি খোয়াতে চান না।

হিপ্পি ভেবে দেখল এই প্রস্তাব খারাপ না। তাই নানের প্রস্তাব অনুমোদন করল হিপ্পি। বেশ কিছুক্ষণ আদর সোহাগ চলল। কর্ম শেষে শ্রান্ত হিপ্পি এবার নানকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য আলখাল্লা খুলে বলল, ” এই দেখুন আমিই সেই হিপ্পি আপনি যার সাথে সেক্স করতে রাজি হন নি”

এবার হাসতে হাসতে নিজের রোব খুলতে খুলতে একটি পুরুষ কণ্ঠ জবাব দিল, “তবে রে! এই দ্যাখ আমিই সেই ড্রাইভার যে তোকে দিয়ে এতকিছু করিয়ে নিল।”

 

৬১)

দুই কুকুর গ্রামে খাবার কমে যাওয়া শহরে আসছে। এসে একজন গেছে উত্তরে একজন দক্ষিনে। একমাস পর দুইজনের দেখা। উত্তরের জন অনেক মোটাতাজা হয়ে গেছে কিন্তু দক্ষিনের জন আরও শুকায়ে গেছে। তো উত্তরের জন দক্ষিনের জনকে বলে, তুমি উত্তরে চলে আস, উত্তরে অনেক খাবার, তুমি অনেক মোটা হয়ে যাবে।

:না

:কেন?

:আমি অপেক্ষায় আছি।

:কিসের অপেক্ষা?

:আছে বলা যাবে না।

একমাস পর আবার তাদের দেখা। এইবার দক্ষিনের জন আরও শুকায়ে গেছে। কিন্তু তারপরও সে উত্তরে যাবে না। শুধু বলে সে অপেক্ষায় আছে।

আরও একমাস পর তাদের আবারও দেখা। দক্ষিনের জনের অবস্থা এইবার মরমর। তো উত্তরের জন কইছে হয় এইবার তুমি আমার সাথে আসবা না হয় কইবা তুমি কিসের অপেক্ষায় আছো।

: তাইলে শুনো। ঐ যে সাদা বাড়িটা দেখ। ঐখানে একটা নতুন বৌ আসছে। সে রান্না খুব একটা পারে না। একদিন তরকারিতে লবন বেশী দিয়া ফেলছিল। তখন জামাইডা কইছে আর একদিন যদি তরকারিতে লবন বেশী হয় তরে আমি কুত্তা দিয়া চাটামু। আমি অপেক্ষায় আছি আবার কবে তরকারিতে লবণ বেশী হবে।

 

৬২)

জসিমের সেভ করা দরকার হলো ….তাই সে গেল তার পাড়ার নাপিতের কাছে । নাপিত মাত্র জসিমের গালে ফোম লাগিয়েছে , এমন সময় জসিম বলল , “আমার গাল তা একটু ভাঙ্গা , তাই মসৃন সেভ হয়না , দয়া করে খুব সাবধানে মসৃন সেভ করে দাও।”

নাপিত করলো কি, একটা কাঠের ছোট গোল বল জসিমের গালের ভিতরে ঢুকিয়ে দিল , তারপর সেভ করা শুরু করলো। কিছুক্ষণের মাঝেই জসিম বুঝতে পারল, আসলেই খুব ভালো ও মসৃন সেভ হচ্ছে।

গালের ভিতর বলটি নিয়ে জড়ানো গলায় জসিম বলল, “খুব ভালো …. কিন্তু এখন যদি আমি বল টি গিলে ফেলি , তাহলে কি হবে?”

নাপিত একটুও বিচলিত না হয়ে বলল, “ঐটা কোনো বেপার না , সবাই যেমনে পরের দিন ফিরত দিয়া যায় , আপনেও কাইলকা আইসা ফিরত দিয়া যাইয়েন।”

 

৬৩)

নিজের ইচ্ছেশক্তি পরীক্ষার জন্যে এক ভদ্রলোক ঠিক করলেন, তিনমাস তিনি স্ত্রীর সাথে মিলিত হওয়া থেকে বিরত থাকবেন। এ ব্যাপারে তাঁর স্ত্রীর তেমন আগ্রহ না থাকলেও ভদ্রলোকের প্রস্তাবে রাজি হলেন তিনি।

প্রথম কয়েক হপ্তা তেমন একটা সমস্যা হয়নি। দ্বিতীয় মাস থেকে শুরু হলো সমস্যা। ভদ্রমহিলা তখন বোরখা পরে আর রসুন চিবিয়ে ঘুমুতে গেলেন। বহুকষ্টে দ্বিতীয় মাস কাটানোর পর তৃতীয় মাস থেকে সত্যিই খুব কষ্ট হতে লাগলো। মহিলা বাধ্য হলেন ভদ্রলোককে ড্রয়িংরূমের সোফায় ঘুমুতে পাঠানোর জন্যে, আর রাতে নিজের ঘরের দরজায় খিল এঁটে রাখতে হলো তাঁকে।

এমনি করে তিনমাস শেষ হলো। একদিন ভোরে শোবার ঘরের দরজায় টোকা পড়লো। ঠক ঠক ঠক।

বলো তো আমি কে? ওপাশ থেকে ভদ্রলোকের গলা ভেসে এলো।

আমি জানি তুমি কে! উৎফুল্ল গলায় বললেন মহিলা।

বলো তো আমি কী চাই?

আমি জানি তুমি কী চাও!

বলো তো আমি কী দিয়ে দরজায় নক করছি?

 

৬৪)

ঈশ্বর তিন দেশের প্রেসিডেন্টের কাছে জানতে চাইলেন কার কি ইচ্ছা।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট: স্যার, আমার দেশ কবে এই অর্থনৈতিক বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পারবে। ঈশ্বর বললেন-আরও ১০ বছর লাগবে। ওবামা চোখ মুছতে মুছতে বলতে লাগলেন হায় আমি ক্ষমতায় থাকতে তা আর দেখে যেতে পারব না।

চীনের প্রেসিডেন্ড: স্যার, আমার দেশ কবে অর্থনীতিতে স্বয়ং সমপূর্ণ দেশে পরিণত হবে। ঈশ্বর বললেন- আরও ২০ বছর লাগবে। চীনের প্রেসিডেন্ড চোখ মুছতে মুছতে বলতে লাগলেন হায় আমি বেচে থাকতে তা বুঝি আর দেখে যেতে পারবনা।

বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট: স্যার আমাদের দেশের সব সমস্যা কবে শেষ হবে।

এবার ঈশ্বর হাউ মাউ করে কাঁদতে শুরু করে দিলেন-হায়রে তোদের সমস্যা যে কবে শেষ হবে তা বুঝি আমি আর দেখে যেতে পারলাম না।

 

৬৫)

জন খুব সাদাসিধা নার্ভাস, শীর্ণ সাস্থ্যের একটা ছেলে। মেয়েদের প্রতি প্রবল আকর্ষণ, কিন্তু মেয়েরা তাকে থোড়াই কেয়ার করে। তাই পাশের ফ্ল্যাটে যখন নতুন একজন সুন্দরী, উন্নতবক্ষা বিবাহিতা মহিলা আসল, জনের আফসোস করা ছাড়া আর কিছুই করার ছিল না হয়তো। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি ভিন্ন। দিস গার্ল ইস সামথিং এলস। জনের মাথা মোটামুটি খারাপ হয়ে গেল তাকে দেখে। সে সিদ্ধান্ত নিল, আর ব্যাকফুটে নয়, এইবার কিছু করতেই হবে।

তাই একদিন দোয়াদুরুদ পড়ে বুকে ফুঁ দিয়ে হাজির হল সে সেই পরীর ফ্ল্যাটে। কলিংবেল টেপার পর দরজা খুলে দিল মহিলার ষন্ডামার্কা স্বামী। হাই হ্যালো বিনিময়ের পরে জন আসল কথাটা পাড়ল।

“আমি আপনার স্ত্রীর অনাবৃত বুকে চুমু খেতে চাই। এটা করতে দিলে আপনাদের ১ মিলিওন ডলার দেব”

প্রথমে এই ভয়াবহ প্রস্তাব শুনে স্বামী ভদ্রলোকতো জনকে মেরে বসে আর কি! কিন্তু পরক্ষণেই সে ভেবে দেখল “১ মিলিওন ডলার! বাপস্! এটার জন্যে একটু স্যাক্রিফাইস করা যেতেই পারে। কেউ তো আর জানছেনা।”

তো সে তার স্ত্রীর সাথে আলোচনা করে রাজী হয়ে গেল।

জন এখন তার স্বপ্নকন্যার অনাবৃত বুক দলিত মথিত করতে ব্যস্ত। ৫ মিনিট যায়, ১০ মিনিট যায়, কিন্তু জন চুমু আর খায়না, খালি….!!

মহিলা এতক্ষণ ডলারের স্বপ্নে বিভোর থাকার পর এইবার একটু অধৈর্য হয়ে গেলো।

“কি ব্যাপার, আপনি চুমু খাবেন কখন?”

সাথে সাথে জন হাত সরিয়ে নিল ওখান থেকে।

“আমি আসলে চুমু খেতে পারবনা ওখানে, কারণ আমার ঐ পরিমাণ টাকা নেই!”

A deal is a deal!

 

৬৬)

এক লোক অতি বিকট শব্দে বায়ু ত্যাগ করে। তার যেমন বিকট আওয়াজ তেমনি উৎকট গন্ধ।

তার বউ বিরক্ত।

– তুমি কি এটা ইচ্ছা করেই করো নাকি?

-ইচ্ছা করে আবার করা যায়?

-কি জানি। তবে তোমার জ্বালায় ত আর থাকতে পারছি না। দেখো কমাতে পারো কিনা।

এত কথা পুরোটাই নষ্ট হয়েছে।

পরদিন সকালেই আবার বিকট শব্দে কাজ শুরু করেছে।

বউ বিরক্ত হয়ে বলল

-তুমি যেভাবে চালিয়ে যাচ্ছো তাতে কদিন পর কিন্তু বায়ুর সাথে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে যাবে।

– তুমি কি সব কথা বলো। নাড়ি-ভুড়ি বের হবে কেনো?

-বের হবে …একশবার হবে…তুমি জোর করে এমন বিকট আওয়াজ করো।

একদিন সকালে সে অভ্যাসগত ভাবেই বিকট শব্দে ত্যাগ করছে।

তার বউ আর শুয়ে থাকতে পারল না।

উঠে যেতে যেতে বউয়ের মাথায় এসেছে এক বুদ্ধি।

নীচে নেমে ফ্রিজ থেকে মুরগি বের করল।

এরপর মুরগির নাড়ি-ভুড়ি নিয়ে এসে স্বামীর পাজামার ভিতর দিয়েছে ঢুকিয়ে।

চুপ করে নেমে এলো।

রান্না করতে করতে দুই কান খাড়া করে রাখছে সে। কখন তার স্বামী চিৎকার করে ঊঠবে।

কিছুক্ষন পর যথারীতি এক চিৎকার।

বউয়ের মুখটা আনন্দে ভরে গেছে। এইবার হইছে উচিত শিক্ষা।

আধা ঘন্টা পর নেমে এসেছে জামাই।

এসেই বলে

– ও বউ ,তুমি ঠিকই বলেছিলে। এতো জোরে পাদ দেয়া ঠিক না ।

আজকে সকালেই পাদ দিয়ে ত নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গিয়েছিল আমার।

– তাই নাকি?

-তবে বলছি কি আর। তবে খোদার রহমতে, একটু চেষ্টা করে সমস্তটা আবার ভিতরে ভরে ফেলতে পারছি।

 

৬৭)

শিকাগোর এক হাসপাতালে এক ভদ্রলোক অনেক্ষণ যাবৎ ছেলেদের টয়লেটে যেতে চাচ্ছিল কিন্তু কেউ না কেউ সবসময় ভেতরে থাকে এজন্য যেতে পারছিল না। একজন নার্স লোকটার দুর্দশা দেখছিল, সে বলল, স্যার, আপনি মেয়েদের টয়লেট ব্যবহার করতে পারেন কিন্তু আপনাকে প্রমিজ করতে হবে যে আপনি টয়লেটের দেয়ালের কোন বাটন ব্যবহার করবেন না।

ভদ্রলোক তাতে রাজী হয়ে টয়লেটে গেল, তারপর যা করার করল, এবং বসে থাকার সময় সে দেয়ালে বাটন গুলো লক্ষ্য করল। প্রত্যেকটা বাটনের গায়ে কিছু অক্ষর বসানো আছে যেমন, ww, wa, pp এবং লাল একটা বাটনে apr।

সে ভাবল বাটন গুলো চেপে দেখলে কে আর দেখবে, কিউরিসিটির জয় হল, সে ww (warm water) বাটন চাপল ইষৎ গরম পানি এসে তার পশ্চাৎদেশে স্প্রে করে দিল। কি মজার অনুভূতি, পুরুষের টয়লেটে এসব নাই কেন?

আরও ভাল কিছু হবে এটা ভেবে সে wa (warm air) বাটন চাপল, গরম পানির বদলে এবার গরম বাতাস এসে তার পশ্চাৎদেশ শুকিয়ে দিল।

যখন ঐটা শেষ হল তখন সে pp (perfume puff)বাটন চাপল এবং খুব সুগন্ধি পাউডারের একটা পাফ এসে তার তলদেশে সুগন্ধে ভরে দিল, তার মনে হল মেয়েদের রেস্টরুম আসলে আনন্দদায়ক!

পাউডারের পাফ দেয়া শেষ হলে সে apr বাটন না চেপে থাকতে পারল না, যেটায় সে ভাবছিল সবচেয়ে বেশি মজা পাওয়া যাবে।

জ্ঞান হওয়ার পরে সে দেখল হাসপাতালের বেডে শুয়ে আছে, এবং নার্স তার দিকে তাকিয়ে আছে। তার বিশেষ অঙ্গের উপর ব্যন্ডেস করা।

কি হয়েছে ! শেষ যেটা মনে পড়ছে আমি apr বাটন চাপছিলাম।

apr বাটন হল অটোম্যাটিক প্যাড রিমুভার, বালিশের নীচে তোমার পেনিস…

 

৬৮)

যুদ্ধক্ষেত্র থেকে এক সৈনিক পালিয়ে চলে আসল। সবাই বলতে লাগল-শেষ পর্যন্ত তুমি তাহলে ভয়ে কাপুরুষের মত পালিয়ে চলে এলে।

সৈনিকের উত্তর: ঠিক তা নয়। আমার যুক্তি শুনলেই তোমরা তা বুঝতে পারবে-

দেয়ার আর টু পসিবিলিটি ইন ফ্রন্ট। যুদ্ধে আমি শত্রুকে মারব, নয়ত শত্রু আমাকে মারবে। আমি শত্রুকে মারলে নো প্রবলেম।

কিন্তু শত্রু আমাকে মারলে এগেন দেয়ার আর টু পসিবিলিটি। হয় আমি আহত নতুবা নিহত হব। আহত হলে নো প্রবলেম।

কিন্তু নিহত হলে দেয়ার আর টু পসিবিলিটি। হয় ওরা আমাকে জ্বালিয়ে দেবে নয়ত কবর দেবে। জ্বালিয়ে দিলে নো প্রবলেম।

কিন্তু কবর দিলে দেয়ার আর টু পসিবিলিটি। হয় আমার কবরের উপর বড় বড় গাছ জন্মাবে, নয়তো ঘাস জন্মাবে। ঘাস জন্মালে নো প্রবলেম।

কিন্তু বড় গাছ জন্মালে দেয়ার আর টু পসিবিলিটি। গাছের কাঠ দিয়ে হয় ফার্নিচার তৈরী হবে নতুবা কাগজ তৈরী হবে। ফার্নিচার তৈরী হলে নো প্রবলেম।

কিন্তু কাগজ হলে দেয়ার আর টু পসিবিলিটি। ভাল কাগজ হলে তা দিয়ে সংবাদপত্র ছাপা হবে কিন্তু বাজে কাগজ হলে তা দিয়ে টয়লেট পেপার তৈরী হবে।

লোকজন বাথরুমে তাদের বটম সাফ করার জন্য আমাকে ব্যবহার করবে। যা আমি একজন সৈনিক হয়ে কিছুতেই সহ্য করতে পারবনা। তাই আমি যুদ্ধ করতে আগ্রহী নই। করো পায়ুর জন্য আমি আমার আয়ু বিসর্জন দিতে রাজী নই।

 

৬৯)

এক ছেলের সাথে আর এক মেয়ের প্রেম ছিল। মেয়েটা একদিন ছেলেটাকে দাওয়াত দিল, আর বললঃ  “আজ আসিয়ো আমাদের বাড়িতে, মা-বাবার সাথে তোমার পরিচয় করাইয়া দিবো, তারপরে রাতে আমরা … …

ছেলেতো খুশিতে বাকবাক। তখনি ছুটে গেল ডাক্তারের দোকানে কনডম কিনতে। দোকানদার বেডা ছেলের খুশি দেখে পাম-পট্টি দিয়ে পুরা ফ্যামিলি প্যাক গছায় দিল। লাফাইতে লাফাইতে ছেলে সন্ধ্যায় গিয়ে হাজির হল মেয়ের বাড়িতে।

শ্বশুর-শ্বাশুড়ীর (হবু) সামনে গিয়ে ছেলে সালাম দিয়ে সেইযে মাথা নিচু করল, মাথা উচুই করেনা, আধাঘন্টা পার হয়ে গেল, মাথা আর উঠেনা। হবুদের উপর সম্মান দেখে মেয়েতো আহলাদে গদগদ। ছেলের কানের কাছে ফিসফিস করে বলল, তুমি আমার বাবা-মারে সম্মান করো জানতাম, কিন্তু এত সম্মান করো তাতো জানতাম না।

ছেলে রেগে মেগে উত্তর দেয়, সেইডা ঠিক আছে, কিন্তু আমিও তো জানতাম না, তোমার বাপে কনডম বেচে।

 

৭০)

৫ বছরের দীর্ঘ ঘটনা বহুল অথচ শারীরিক ক্ষুধা বর্জিত স্বচ্ছ প্রেম জীবন, প্রেমিকার হঠা্ৎ ঠিক হয়ে যাওয়া বিয়ের মাধ্যমে শেষ হয়ে গেল। প্রেমিক বেচারার মনে যত না হতাশা, তার চেয়ে বেশী আফসোস। বেচারা রাতে ঠিকমত ঘুমাতেও পারে না। অবশেষে ১ দিন মনোবল শক্ত করে সোজাসুজি সাবেক প্রেমিকার শ্বশুর বাড়ীতে উপস্থিত হল। এত বড় ছেকা খাওয়ার পর তার কপাল এতটুকু ভালো হলো যে বাড়িতে অন্য কোন মানুষ ছিল না।

প্রেমিকাকে কাছে পেয়ে সরাসরি কাজের কথা বলল, ”আমি তোমাকে ৫ বছর ভালোবেসেছি। কোন দিন অন্যায় ভাবে কিছু চাইনি। আজ আমি একটা কিছু চাইব। আমাকে দিবা কিনা বল?”

মেয়েটি তার কথা বুঝতে পেরে মনে মনে বলে,”সর্বনাশ।” কারণ ৫ টা বছরের প্রেমের সময় ছেলেটি তাকে কখনো অসম্মান করেনি। তাঁর সম্মতি থাকার পরও ছেলেটি তাকে ভোগ করেনি। তার প্রতিদানে এতে তার রাজী হওয়া উচিত। কিন্তু হাজার হলেও সে এখন আর একজনের বউ। সে চালাকিতে উত্তর দেয়, ”কি চাও আগে তুমি বল?”

ছেলেটির প্রশ্ন,”আগে বলো দিবা কিনা?” মেয়েটি আবার একই কথা বলে। কিন্তু ছেলেটিও নাছোড়বান্দা। মেয়েটি শেষমেষ চিন্তা করে যা হবার তাই হবে। একবারই তো, প্রতিদিনই তো আর না?

সে ছেলেটিকে কথা দেয়। সে যা চাইবে তাই সে দিবে।

ছেলেটি মুখখানা গম্ভীর করে বলে,”যা বলব তাড়াতাড়ি করবা। আগে একটা গ্লাস আনো।”

মেয়েটি তাই করল। ”এবার তুমি গ্লাসটি ভর্তি করে তোমার urine দাও।”

মেয়েটি হতভম্ব হলেও তাড়াতাড়ি তাই করে ছেলেটির হাতে তাঁর urine ভর্তি গ্লাসটি ধরিয়ে দেয়।

ছেলেটি গ্লাস নিয়ে নিজের বাড়ির নিজের ঘরে এসে তাঁর “ওইটা” গ্লাসে ডুবিয়ে ধরে বলে,”নে বাবা খা। মাংস তো আর খেতে পারলি না, ঝোলই খা।”

 

৭১)

পুলা বড় হইতাসে তাই বাপ-মা ঠিক করসে এখন থেইক্যা ওই(!) সুময় হইলে তারা কইবো টাইপ রাইটার আনো।

একদিন বাপে পুলারে ডাইক্যা কয়: তুমার মারে কও টাইপ রাইটার আনতে।

কিছুক্ষণ পুলা আইয়্যা কয়: আম্মায় অহন রানতেসে পরে লইয়া আনবো কইসে।

বাপের তো মিজাজ বিলা।

আবার পোলারে কইলো তুমার মারে কও এক্ষন টাইপ রাইটার আনতে। আমার এক্ষন দরকার।

অনেক সময় পরে পুলা আইস্যা কয়: আম্মায় কইসে টাইপ রাইটার রেডী করসে। তুমারে যাইতে কইসে।

বাপে চেইত্যা কয়: হারামজাদা, তুর মারে গিয়া ক’ আমার এহন টাইপ রাইটার লাগবোনা, আমি হাতেই লেইখ্যা ফালাইসি।

 

৭২)

মাইয়া বড় হইসে তাই বাপ-মা ঠিক করসে এখন থেইক্যা ওই(!) সময় হইলে তারা কইবো চলো চিনি খাই। এইভাবেই চলতাসিলো।

কিন্তু একদিন কামের পুলা চিনতাইলো, আরে সাহেব আর বেগম সাব চিনি খাইতে হইলে রান্নাঘরে যাইবো, বেডরুমে দরজা বন্ধ কইরা কি করে।

সে একদিন উঁকি দিয়া সব দেইখ্যা নিলো আর এরপরে সাহেবের মাইয়্যার উপ্রে এপ্লাই কইরা দিসে।

একদিন ধরা খাইসে আর সাহেবের হেভ্ভী ধোলাই শুরু হইলো। মারতে মারতে তারে বাইরে নিয়া গেসে।

পাবলিকে জিগায়, অয় কি করসে এমুন ধুলাই দিতাসেন?

সাহেব তো আর কইতে কিয়ের লাইগ্যা ধোলাই।

কামের পুলা কয়, আমি কিসু করি নাই। খালি চিনি খাইসি।

পাবলিকে কয়, সামান্য চিনি খাওনের লাগি এমুন মারতাসেন?

সাহেব চেইত্যা কয়, ওরে হারামজাদা চিনি খাইবি ভালা কতা তয় পুরান বস্তা রাইখ্যা নতুন বস্তা খুললি ক্যান?

 

৭৩)

রনের সব কিছুই ঠিক ছিল। জুলির সাথে অনেক দিন প্রেম করার পর ও তাকে বিয়ে করতে যাচ্ছে। জুলির পরিবারও ওকে মেনে নিয়েছে। বিয়ের দিন তারিখও মুটামুটি ঠিক। কিন্তু সমস্যা এক জায়গাতেই। তা হলো জুলির ছোট বোন টিশা। টিশা ভীষণ সুন্দরী আর সেক্সি!

যদিও জুলিও কম সুন্দরী না। কিন্তু টিশা রনকে দেখলেই কেমন যেন করে বলে রনের মনে হয়! যেমন ইচ্ছা করে বুক, পা বের করা, ইংগিত দেয়া এসব আর কি! টিশা কিন্তু আর কারো সামনে এমন করে না। যাই হোক, এটা নিয়ে রন একটু অস্বস্তিতেই ছিল। রনের অস্বস্তি আরো বেড়ে গেলো যখন ও একদিন জুলিদের বাসায় গিয়ে দেখলো যে ওখানে টিশা ছাড়া আর কেউ নেই।

এবার টিশা সরাসরি ওকে বলেই ফেললো, “তোমাকে আমার ভালো লাগে! যেহেতু আপুর সাথে তোমার বিয়ে হতে যাচ্ছে তাই তোমাকে চিরদিনের মতো করে পাবার উপায় নেই। কিন্তু তোমার বিয়ে হবার আগে আমি তোমাকে একবারের জন্য কাছে পেতে চাই। আমি উপরের তলায় অপেক্ষা করছি।”

এই বলে টিশা উপরে চলে গেলো এবং উপর থেকে নিজের প্যান্টি খুলে ছুড়ে ফেললো! রনের মাথা ঘুরতে লাগলো! সে কোন দিকে না তাকিয়ে মূল দরজা খুলে বের হয়ে গাড়ির দিকে হাঁটতে লাগলো। একটু এগোবার পর সে দেখলো তার হবু শ্বশ্বুর ও জুলি দাঁড়িয়ে আছে!

তারা দু জনেই রনকে জড়িয়ে ধরলো! রনের হবু শ্বশ্বুর বলতে লাগলো, “আমি আজ খুব খুশি! তোমার সততা পরীক্ষা করার জন্য আমরা টিশাকে দিয়ে এই নাটকটি করিয়েছিলাম! তুমিই জুলির উপযুক্ত পাত্র!”

রন একটু হতভম্ব হয়ে ভাবতে লাগলো, “যাক আজকের ঘটনা থেকে একটি গুরুত্বপূর্ণ জিনিস শিখলাম। ভুলেও কনডম কখনও মানিব্যাগে রাখা যাবেনা! কনডম রাখার জন্য গাড়ির গ্লভস্ই উপযুক্ত জায়গা!!”

 

৭৪)

বহুদিন আগে একদেশে এক রাজা ছিল। রাজার রানীর ছিল বিশাল বক্ষ।

রাজার মন্ত্রী শ্যামের বহুদিনের স্বপ্ন রানীর বুক চাটার। কোন পথ না বের করতে পেরে সে রাজার প্রাইভেট ডাক্তার রামরে ধরল। দুঃখ খুলে বলল। মাত্র ১০০০ হাজার টাকা দিলে রাম রানীর বুক চাটার ব্যবস্থা করে দেবে। শ্যাম রাজি হলো।

পরের দিন রানী গোসলে গেলে রাম ডাক্তার তার অন্তর্বাসে চুলকানির জীবানু লাগিয়ে দিল। গোসল সেরে অন্তর্বাস পরার সাথে সাথে চুলকানি শুরু হলো। খবর পাইয়া রাজা মশাই ডাক্তার রামরে ঔষধ দিতে বলল। কায়দা করে রাম রাজারে বুঝালো, এই রোগের ঔষধ এক মাত্র মন্ত্রী শ্যামের লালায় আছে। সে যদি ঘন্টাখানেক রানীর বুক চেটে দেয়, তাহলে উপশম হবে।

রানীর দুঃখে রাজার কলজে ফাটে ফাটে অবস্থা।

তবু রাজা রাজি হলেন। এদিকে শ্যাম চাটার আগে ডাক্তার ঔষধ দিয়ে দিলেন।

তারপর ১ ঘন্টা চেটে এসে শ্যাম ভাবল ডাক্তার এই কথা রাজারে বলতে সাহস পাবে না যে, সে নিজেই চুলকানির জীবানু লাগিয়ে দিয়েছে, কাজেই ডাক্তাররে সাফ জানাইয়া দিল টাকা দিতে পারবে না।

মুচকি হাইসা ডাক্তার চলে গেল, আর বলে গেল নেক্স্ট চাটার জন্য প্রস্তুত থাকতে।

পরের দিন সারাদেশে খবর হইয়া গেল, রানীর চুলকানির জীবানু, রাজার পায়ুতে লাগছে,

চাটার লোকতো আছে চিন্তা কি।

 

৭৫)

বাংলাদেশের এক এমপি কে আমেরিকান এক মন্ত্রী তার ফার্ম হাউস এ দাওয়াত করেছেন । বাংলাদেশি এমপি ফার্ম হাউস ঘুরে ঘুরে দেখছিল আর ভাবছিল এত বড় ফার্ম হাউস মন্ত্রী বানাইলো কেমনে ? তিনি মন্ত্রী কে জিজ্ঞাস করলেন । মন্ত্রী তাকে ফার্ম হাউস এর ছাদে নিয়ে গে…লেন । আর একটি ব্রিজ দেখিয়ে বললেন ” এই ব্রিজ এর বাজেট ছিল ১০ কোটি ডলার , আমি ব্রিজ বানাইছি ৫ কোটি দিয়া বাকি টা দিয়া ফার্ম হাউস । ১০ বছর পরের ঘটনা।

এমপি ততদিনে মন্ত্রী হয়েছেন ।তিনি আমেরিকান ঐ মন্ত্রী কে তার বাসায় দাওয়াত দিলেন। আমেরিকান মন্ত্রী দেখলেন বাংলাদেশি মন্ত্রী বাসা বানান নি বানাইছেন রাজ প্রাসাদ ।আমেরিকান মন্ত্রী বাংলাদেশি মন্ত্রী কে রাজ প্রাসাদ এর রহস্য জিজ্ঞেস করলেন ।বাংলাদেশি মন্ত্রী আমেরিকান মন্ত্রী কে ছাদে নিয়ে গেলেন । এবং বললেন ঐ যে দেখছেন একটা নদী,তার উপর যে ব্রিজ টা দেখছেন সেইটার বাজেট ২০ কোটি টাকা। আমেরিকান মন্ত্রী অনেকক্ষণ নদীর দিকে তাকিয়ে থাকলেন। তারপর বললেন “কই ব্রিজ তো দেখছি না”। বাংলাদেশি মন্ত্রী বললেন ” ব্রিজ দেখবেন কেমনে পুরা টাকা দিয়া তো আমি প্রাসাদ বানাইছি” ।

 

৭৬)

একবার এক বনে কারা যেন ভায়াগ্রা ছড়িয়ে গিয়েছিল। সেই ভায়াগ্রা সেবন করে সকল পুরুষ প্রানীর যৌন কামনা ছিল তুঙ্গে। তারা সারাদিন তাদের নারী সঙ্গিনীদের সাথে যৌন খেলায় মত্ত থাকত। এক পর্যায়ে সঙ্গিনীরা বিরক্ত হয়ে বনের রাজা সিংহের কাছে বিচার দেয়। সিংহ মশাই গবেষনা করে দেখেন যে ভায়াগ্রার প্রভাব কমতে আরো এক বছর লাগবে। তাই তিনি সকল প্রানীকে তাদের ওটা কেটে জমা দিতে বলেন এবং একটা করে টোকেন দেন। কথা দেন এক বছর পর টোকেন মিলিয়ে সবার জিনিষ সবাইকে ফেরত দিবেন। অন্য সব প্রানীর মত বানর ও মন খারাপ করে তার ওটা জমা দিয়ে আসে। বাসায় এসে দেখে যে তার স্ত্রী খুশিতে বাগবাকুম।

বানরের স্ত্রীঃ হাহা এখন কি করবা? আগেই বলেছিলাম……

বানরঃ বেশী হাইসো না। এক বছর পর টের পাইবা।

বানরের স্ত্রীঃ কেন?? এক বছর পর কি হবে??

বানরঃ জমা তো দিয়ে আসছি আমার টা টোকেন আনছি ঘোড়ারটা।

 

৭৭)

বব সিগারেটখোর। সারাদিন ফুকে চলছে। ওর বঊ বিরক্ত হয়ে তাকে ধরে নিয়ে গেলো ডাক্তারের কাছে বিড়ি ছাড়ানোর জন্য। ডাক্তার বুদ্ধি দেয়। বব সেইকথা মত চলে। কয়দিন বিড়ি ফুকা বন্ধ থাকে। এইসময় বব রাতে ঘুমাতে পারে না। কয়েকটা রাত নির্ঘুম কাটিয়ে আবার সিগারেট ফুকা শুরু হয়। রাতের ঘুমও ফিরে আসে। এদিকে বার বার ডাক্তারের কাছে আসতে হচ্ছে।

শেষবার ডাক্তার বলল, এইবার আপনাকে আল্টিমেট বুদ্ধি দিচ্ছি। এইটা ফেইল করলে আমিও ফেইল। আপনাকে অন্য ডাক্তারের কাছে যেতে হবে।

বুদ্ধিটা কি?

আপনি যখন এক প্যাক সিগারেট কিনবেন তখন দুইটা সিগারেট প্যাকেট থেকে বের করে, নিজের পাছার ফুটোতে ভরে দিবেন সামান্য সময়ের জন্য। এরপর দুইটাকে বের করে এনে প্যাকেটের অন্য সিগারেটের সাথে মিশিয়ে ফেলবেন। যেহেতু আপনি জানেন না কোন দুইটা ময়লা সিগারেট, আপনি সিগারেট খেতে পারবেন না।

দুই সপ্তাহ পর ববের বউ আসছে। বব আসে নাই।

ডাক্তার জিজ্ঞেস করলেন, কি কাজ হইছে?

বব ত সিগারেট খাওয়া বন্ধ করছে। কিন্তু এখন ত আবার পাছায় দুইটা সিগারেট না ভরা পর্যন্ত সে রাতে ঘুমাতে পারে না।

 

৭৮)

এক লোকের তিনটি বিচি। সে এটা নিয়া খুবই চিন্তিত। লজ্জায় কাউকে বলতে পারছে না। উপায় না দেখে ডাক্তারের কাছে গেল ।

লোক : লজ্জিত হয়ে ডাক্তারকে বলছে, ডাক্তার সাহেব আপনার আর আমার মিলে ৫ টি।

ডাক্তার : কি বলেন বুঝতে পারছি না।

লোক : আরে আপনার আর আমার মিলে ৫ টা।

ডাক্তার : কিছুই বুঝতে পারছি না। পরিস্কার করে বলুন।

লোক : উপায় না দেখে বলল, আপনার আর আমার মিলে ৫ টি বিচি।

ডাক্তার : তাহলে কি আপনার ১ টি ??

 

৭৯)

আগুনের মতো সুন্দরী এক মেয়ে বারটেন্ডারের টেবিলে এসে বসলো এবং আংগুল দিয়ে ইশারায় বারটেন্ডারকে ডাকলো। বারটেন্ডার ঢোক গিলতে গিলতে এগিয়ে গেলো!

মেয়েটি বারটেন্ডারের গালে আদুরে ভংগিতে হাত বুলাতে বুলাতে বললো, “তুমি কি এই বারের ম্যানেজার?”

বারটেন্ডার কোন মতে জবাব দিলো, “না।”

মেয়েটি এবার বারটেন্ডারের কপাল ও চুলে আস্তে আস্তে হাত বুলাতে লাগলো এবং বললো, “ম্যানেজার কি আছে?”

বারটেন্ডার কোন মতে ঢোক গিলে গলা ভিজিয়ে বললো, “ন.. না।”

মেয়েটি এবার আংগুল দুটো ধীরে ধীরে বারটেন্ডারের কপাল নাক ছুইয়ে তার মুখের ভেতর দিয়ে দিলো!

বারটেন্ডার মন্ত্রমুগ্ধের মতো তা ধীরে ধীরে চুষতে থাকলো!

মেয়েটি এবার বারটেন্ডারের কানে ফিসফিস করে বললো, “ম্যানেজার এলে বলো যে লেডিস টয়লেটের টিস্যু শেষ হয়ে গেছে!”

 

৮০)

বব বারে ঢুকে ১২ পেগের অর্ডার দিল। বারটেন্ডার জিজ্ঞেস করল, আপনার কি হইছে? মন খারাপ?

-হ। আজকে জানলাম আমার বড় পোলা গে।

-থাক মন খারাপ করবেন না। এই রকম ত হয়।

পরের সপ্তাহে বব হাজির। এইবার পনের পেগের অর্ডার দিল।

বারটেন্ডার জিজ্ঞেস করে, এইবার কি হইছে?

-আজকে জানলাম আমার ছুটু পোলাও গে।

বারটেন্ডার বলে, আফচুস!

এর পরের সপ্তাহেই বব হাজির। বিশ পেগের অর্ডার দিল।

বারটেন্ডার জিজ্ঞেস করে, আজকে আবার কি হইল???? আপনার ফ্যামিলীতে কি কেউ নাই যে মেয়েদের পছন্দ করে?”

বব বলে, আজকে জানলাম আমার বউই মেয়েদের পছন্দ করে।

 

৮১)

বিয়ের আগে-

মেয়ে: আহ, অবশেষে। আর অপেক্ষা করতে পারছিলাম না।

ছেলে: তুমি কি চাও আমি এখান থেকে চলে যাই?

মেয়ে: একদম না! এমনটা চিন্তাও করো না।

ছেলে: তুমি কি আমাকে ভালোবাসো?

মেয়ে: অবশ্যই! সবসময়।

ছেলে: তুমি কি আমাকে কখনো ধোঁকা দিয়েছো?

মেয়ে: কক্ষনো না! এটা জিজ্ঞেস করছো কেন?

ছেলে: তুমি কি আমাকে কিস দেবে?

মেয়ে: যখনই সুযোগ পাবো।

ছেলে: তুমি কি আমাকে আঘাত করবে?

মেয়ে: তুমি কি পাগল? আমি সেরকম মেয়ে নই।

ছেলে: আমি কি তোমাকে বিশ্বাস করতে পারি?

মেয়ে: হ্যাঁ।

ছেলে: ডার্লিং!

বিয়ের পরে-

উপরের ডায়লগগুলো নিচ থেকে উপরে পড়ুন।

 

৮২)

বাগানে দাদা নাতি খেলছিলো। একটা গর্ত থেকে একটা কেঁচোকে বেরোতে দেখে নাতি বললো, দাদু, আমি এটাকে গর্তে ঢোকাতে পারবো।

দাদা তার সাথে ৫ ডলার বাজি রাখলো যে সে পারবে না কারণ কেঁচোটা খুব পিচ্ছিল আর নরম ছিলো। ধরাই কঠিন তার ওপর আবার অতটুকু গর্তে ঢোকানো!

নাতি বাজি ধরার পর বাড়ির ভিতর গিয়ে একটা স্প্রে নিয়ে এলো। কেঁচোটার সারা গায়ে ছিটিয়ে এক মিনিট অপেক্ষা করলো। ততক্ষণে কেঁচোটা স্প্রের প্রভাবে শক্ত ও সোজা হয়ে গেলো। তখন সে সেটাকে গর্তে ঢুকিয়ে দিলো। দাদা তার কথামতো ৫ ডলার দিয়ে দিলো।

একটু পর দাদা আবার নাতির সাথে দেখা করলো। এবারও তার হাতে একটা পাঁচ ডলারের নোট দিলো।

– দাদু, তুমি তো একবার টাকা দিয়েইছো। আবার কেন? নাতি অবাক!

– এটা তোর দাদির পক্ষ থেকে।

 

৮৩)

দুই সেক্স পাগল তরুন তরুনী সবে বিয়ে করেছে। বাসররাতের পর সকালে ঘুম থেকে উঠে পাশে বৌকে না পেয়ে ছেলেটা নিচে গিয়ে দেখল তার বৌ রান্নাঘরে তার জন্য অপেক্ষা করছে। ‘নাস্তায় কি খাবে গো?’ বৌ জিজ্ঞাসা করল।

‘তোমাকে’ জামাইয়ের জবাব। তাই মেয়েটা ছেলেটাকে বেডরুমে নিয়ে গেল। তারপর জামাই অফিসে চলে গেল। লাঞ্চের জন্য ঘরে আসতে আবার বৌ জিজ্ঞাসা করল, ‘দুপুরে কি খাবে, ডারলিং?’

‘তোমাকে হলেই চলবে’ বলে আবার বউকে জড়িয়ে ধরে বেডরুমে নিয়ে গেল ছেলেটা।

সন্ধ্যা অফিস থেকে ফিরে সে দেখল তার বৌ চুলার উপর বসে আছে।

‘একি করছ গো?’ ছেলেটি অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করে।

‘তোমার রাতের খাবার গরম করছি’ বউয়ের উত্তর।

 

৮৪)

স্ত্রীর দেয়া ডিনার পার্টি উপলক্ষে আরাম খান ও তার স্ত্রী খুব ব্যস্ত। সন্ধ্যায় স্ত্রীর খেয়াল হলো পার্টির জন্য চিংড়ি আনা হয়নি। কেউ কেউ চিংড়ি খেতে পছন্দ করে। তাই সে স্বামীকে বললো বাজার থেকে চিংড়ি আনতে।

চিংড়ি আনতে গিয়ে আরাম এক অপূর্ব সুন্দরী মেয়েকে দেখলো এক এপার্টমেন্টের সামনে ঘুরে বেড়াচ্ছে। সে চিংড়ি  আনার কথা ভুলে ভাবছিলো যদি মেয়েটি আমার সাথে এসে কথা বলতো তাহলে কতো ভালো হতো! একটু পর মেয়েটি তার দিকে এগিয়ে এলো। দু’জনে কথাবার্তা বলতে বলতে খুব অন্তরঙ্গ হয়ে গেলো। মেয়েটি তাকে তার এপার্টমেন্টে নিমন্ত্রণ জানালো। দু’জনে রাতটা সেখানেই কাটালো।

সকালে ঘুম ভাঙতেই স্বামীর মনে পড়লো তার স্ত্রীর ডিনার পার্টির কথা। ‘সর্বনাশ!’ বলে সে দ্রুত কাপড় পরে নিলো। তারপর বাজার থেকে চিংড়ি কিনে নিয়ে ছুটলো নিজের বাসার দিকে।

সিঁড়ি দিয়ে উঠতে গিয়ে তার হাত থেকে ব্যাগ পড়ে গেলো। চিংড়িগুলো সব সিঁড়িতে ছড়িয়ে পড়লো। তার আওয়াজ পেয়ে স্ত্রী দরজা খুলে রাগের স্বরে জানতে চাইলো সে কোথায় ছিলো গত রাতে।

স্বামী তার কথার উত্তর না দিয়ে চিংড়িগুলো দিকে তাকিয়ে বললো, এই তো, তোমরা তো প্রায় পৌঁছে গেছো। আর কয়েক কদম মাত্র।

 

৮৫)

মারিয়ানা ঠিক করলো এবারের ছুটিটা সে হোটেলের ছাদে সানবাথ করেই কাটাবে। প্রথমদিন সে বিকিনি পরে ছাদে শুয়ে রইলো। সে খেয়াল করলো সারাদিনে কেউ ছাদে এলো না। তাই পরেরদিন সে গায়ে অবশিষ্ট কাপড়টুকুও রাখলো না যাতে পুরো শরীরে সূর্যের তাপ লাগে।

কিছুক্ষণ পর সে ছাদের সিঁড়িতে কারো পায়ের শব্দ শুনে উপুড় হয়ে শুলো আর নিচের দিকে একটা তয়লা টেনে নিলো। একটু পর ম্যানেজারের মুখ দেখা গেলো।

– ম্যাডাম, আপনি সান বাথ করেন আপত্তি নেই, কিন্তু দয়া করে গতকাল যতটুকু কাপড় পরেছিলেন, পরে নিন। ম্যানেজার বললো।

– কেন? ছাদে তো কেউ আসছে না। পাশের বিল্ডিংগুলোও সব নিচু। তাহলে সমস্যা কি?

– আসলে ম্যাডাম, আমাদের এই ছাদটি কাচের তৈরী। আর আপনি ছাদের কাঁচের অংশটুকুতে শুয়ে আছেন।

 

৮৬)

এক লোক বনে পথ হারিয়ে ঘুরতে ঘুরতে এক টিলার উপরে বাড়িতে এসে হাজির হলো। সেখানে থুথ্থুরে বুড়ো এক চাইনিজ বসেছিলো।

-আমাকে রাতটা এখানে থাকতে দিন। আমি পথ হারিয়ে ফেলেছি।

বুড়ো বললো- থাকতে দিতে পারি এক শর্তে। আমার মেয়ের দিকে নজর দিলে তোমাকে তিনটি চাইনিজ শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে।

লোকটি ভাবলো, লোকটি যেমন বুড়ো তার মেয়েও তেমন বুড়ো হবে। সে রাজি হলো।

ডিনারের সময় দেখা গেলো খুব সুন্দরী এক মেয়ে তাদের সাথে যোগ দিলো। মেয়েটা তার দিকে বারবার ফিরে তাকালো কিন্তু লোকটি শাস্তির ভয়ে সেদিকে ভ্রুক্ষেপ করলো না।

রাতে শোয়ার পর তার বারবার মেয়েটার কথা মনে পড়তে লাগলো যে তার পাশের রুমে শুয়েছিলো। সে ভাবলো, বুড়ো তো ঘুমিয়েই গেছে। এই ভেবে সে পা টিপে টিপে মেয়ের রুমে গিয়ে যা করার করলো।

সকালে তৃপ্ত মনে ঘুম থেকে উঠে সে দেখলো তার বুকের উপর একটা মিডিয়াম সাইজের পাথর। আর একটা কাগজে লেখা, প্রথম চাইনিজ শাস্তি।

সে মনে মনে হেসে বললো এই শাস্তিতে আমার কি হবে। বলে সে পাথরটা জানালা দিয়ে নিচে ছুঁড়ে দিলো। এই সময় তার নজরে পড়লো জানালার পাশে একটা কাগজে লেখা- দ্বিতীয় শাস্তি- তোমার বাম অন্ডকোষের সাথে পাথরটা বাঁধা। ভয়ের সাথে লোকটি খেয়াল করলো পাথরের সাথে বাঁধা বাম অন্ডকোষের দড়িটা টান টান হতে যাচ্ছে। নিচে পাথরে পড়ে নাহয় এক আধটা হাড় ভাঙবে কিন্তু অন্ডকোষ গেলে তো….. এই ভেবে সে জানালা দিয়ে নিচের উপত্যকায় লাফ দিলো।

পাথরের সাথে গড়াতে গড়াতে সে এবার বড় একটা সাইনবোর্ড দেখতে পেলো- তৃতীয় শাস্তি, তোমার ডান অন্ডকোষ বিছানার পায়ার সাথে বাঁধা।

 

৮৭)

বুড়ো লম্পট রিয়াদ সাহেব সত্তর বছর বয়সে কুড়ি বছরে এক সুন্দরী তরুণীকে বিয়ে করলেন।

বছর ঘুরতেই খোকা হলো তাদের।

হাসপাতালের নার্স মুচকি হেসে বললো, ‘বাহ রিয়াদ সাহেব, বেশ ফর্মে আছেন মনে হচ্ছে?’

রিয়াদ সাহেব গর্বিত হাসি দিয়ে বললেন, ‘পুরনো ইঞ্জিনটাকে চালু রাখলাম আর কি।’

আরো দুবছর পর আবার খুকি হলো তার।

নার্স আবারো মুচকি হাসলো। ‘হুম, রিয়াদ সাহেব, বেশ ফর্মে আছেন।’

রিয়াদ সাহেব আবারো গর্বিত হাসি দিয়ে বললেন, ‘পুরনো ইঞ্জিনটাকে চালু রাখলাম আর কি।’

বছর দুয়েক পর আবার খোকা হলো তাঁর।

নার্স কিছু বলার আগেই রিয়াদ সাহেব বললেন, ‘পুরনো ইঞ্জিনটাকে চালু রাখলাম আর কি।’

নার্স মুচকি হেসে বললো, ‘তাহলে এবার তেল পাল্টে নিন স্যার। আপনার এবারের বাচ্চাটা নিগ্রো!’

 

৮৮)

এক ফরাসী, এক ইতালীয় আর এক বাঙালি ট্রেনে বসে নিজেদের বিবাহিত জীবন নিয়ে গল্প করছে।

ফরাসী বলছে, ‘গত রাতে আমার বউকে চারবার আদরসোহাগ করেছি। সকালে সে আমাকে চমৎকার নাস্তা বানিয়ে খাইয়েছে, আর বলেছে, আমার মতো পুরুষ সে আগে কখনো দেখেনি।’

ইতালীয় বলছে, ‘গত রাতে আমার বউকে ছয়বার আদরসোহাগ করেছি। সকালে সে আমাকে চমৎকার নাস্তা বানিয়ে খাইয়েছে, আর বলেছে, আমার মতো পুরুষ সে আগে কখনো দেখেনি।’

বাঙালি চুপ করে আছে দেখে ফরাসী তাকে প্রশ্ন করলো, ‘তা তুমি গত রাতে তোমার বউকে ক’বার আদরসোহাগ করেছো?

বাঙালি বললো, ‘একবার।’

ইতালীয় মুচকি হেসে বললো, ‘তোমার বউ সকালে তোমাকে কী বললো?’

‘ওগো, থামো, আর না …।’

 

৮৯)

স্বামীর প্রতিরাতে মাতাল হয়ে ঘরে ফেরায় অতিষ্ট হয়ে স্ত্রী অবশেষে ঠিক করলো তাকে ভয় দেখাবে। দোকান থেকে শয়তানের শিং, লেজ ওয়ালা কস্টিউম নিয়ে এসে সে দাঁড়িয়ে রইলো গেটের ঠিক বাইরে গাছের আড়ালে।

যথারীতি স্বামী মাতাল হয়ে ফিরছে। স্ত্রী শয়তানের বেশে হাউ-মাউ করে তার সামনে গিয়ে পড়লো। স্বামী ভড়কে গিয়ে জিজ্ঞেস করলো, তুমি কে?

স্ত্রী মোটা গলায় উত্তর দিলো: আমি শয়তান।

স্বামী বললো: তাই নাকি। তাহলে বাসায় চলো। তোমার বোনকে তো আমি বিয়ে করেছি।

 

৯০)

ঢাকার এক ভদ্রলোক প্রথম কোলকাতায় গেছেন। নতুন জায়গা জলবায়ু, খাবার দাবারের পরিবর্তন ও উল্টাপাল্টা খাওয়ায় তার লুজ মোশন হয়ে গেলো। ওষুধের দোকানে কেউ ওষুধ দিচ্ছে না প্রেসকিপশন ছাড়া। তার এক সঙ্গী বললো, দোস্ত, এক কাম কর, তুই ভাতটাত আর খাইচ না, চিড়া ভিজায়া, কলা-গুড়-চিনি দিয়া খা। পেটটা ঠাণ্ডা থাবো, ডিসেন্ট্রি বন্ধ অইবো।

বন্ধুর কথামতো ভদ্রলোক হোটেলের কাছাকাছি খোঁজাখুঁজি করে একটা মুদি দোকানে গিয়ে বললো, এই যে ভাই, চিড়া আছে? এক পোয়া চিড়া দেন তো।

দোকানি তার কথা বুঝতে না পেরে বললো, কি বলছেন দাদা?

ভদ্রলোক: চিড়া, চিড়া চাইছি, আছে?

দোকানি একটু অবাক হয়ে: চি-ড়া, চিড়া কি দাদা?

ভদ্রলোক বিরক্ত হয়ে, আরে চিড়া-চিড়া, চিড়া চিনলেন না, আরে ওই যে, ভাত রাইন্দা, চেপ্টা কইরা হুকায়া রাখে যে।

দোকানি একটু ইতস্তত ভঙ্গিতে বললো: ভাত রেঁধে….. চেপ্টা করে…. শুকিয়ে রাখে? এ যে চিড়ে, (চিড়ার বয়াম দেখিয়ে) এই চিড়ে চাচ্ছেন মশাই?

ভদ্রলোক: আরে হ….. এইটাইতো চিড়া।

দোকানি: তা কতটুকু দিবো।

ভদ্রলোক: এক পা দেন।

দোকানি: ও, বুঝেছি, আড়াইশো। আর কি দিবো?

ভদ্রলোক: কেলে আছে, কেলে?

দোকানি: কে-লে! কেলে আবার কি দাদা?

ভদ্রলোক দোকানের ভেতরে ঝুলে থাকা কলার কাঁদির দিকে ইশারা করলেন: ওইযে কেলে।

দোকানি বিস্ময়ের সঙ্গে বললো: ওটা কেলে না মশাই, ওটাকে কলা বলে, কলা।

এবার ঢাকাইয়া ভদ্রলোক বললেন: আরে মশাই, চিড়া যদি চিড়ে অয় তাইলে কলা কেন কেলে অইবো না?

 

৯১)

এক শহরে পরকীয়ার খুব চল। কমবেশী সবাই করছে। এরাই আবার চার্চে গিয়ে ফাদারের কাছে কনফেশন করে তারা কি করেছে। বৃদ্ধ ফাদার এইসব শুনতে শুনতে ক্লান্ত। এক রবিবারে তিনি সবাইকে বললেন আর কেউ যদি আমার কাছে পরকীয়ার কথা স্বীকার করে তবে এই শহর আমি ছাড়ছি। শহরের লোকজন আবার ফাদারকে খুবই পছন্দ করে। এরা ভাবল পরকীয়ার নতুন কোন শব্দ বা কোড ব্যবহার করতে হবে। শহরবাসী এরপর থেকে পরকীয়ার জন্য ব্যবহার করতে লাগল “আছাড়”।

” ফাদার! আমি আছাড় খাইছি এই সপ্তাহে……”

নতুন পদ্ধতি খুব ভালো কাজ করে। ফাদার কিছুই টের পাননা।

একদিন বৃদ্ধ ফাদার মারা যান। তার জায়গায় নতুন আর অল্পবয়স্ক একজন ফাদার আসে। সে ত আছাড় খাওয়ার কথা শুনতে শুনতে অবাক। সে গেলো শহরের মেয়রের কাছে।

” মেয়র! আমাদের শহরের রাস্তাগুলো ঠিক করা দরকার। লোকজন প্রচুর আছাড় খাচ্ছে”

মেয়র বুঝলেন বেচারাকে কেউ আছাড়ের মানে বুঝিয়ে দেয় নাই। আর বেকুব ফাদারটা চলে এসেছে সরাসরি তার কাছে। তার হাসি চলে আসল।

ঠিক এমন সময় ফাদার বললেন, “আমি বুঝি না কেনো আপনি হাসছেন??? আপনার বউই ত এই সপ্তাহে তিনবার আছাড় খাইছে”

 

৯২)

ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে সুন্দরী শিক্ষিকা চাকুরিতে যোগ দিলেন। পড়াতে গিয়েই টের পেলেন,যুগের ছেলেরা পাল্টেছে, অতি স্মার্ট ডিজুস পোলাপান নিয়ে ম্যাডামের বেকায়দা অবস্থা। প্রথম গ্রেডে সদ্য ভর্তি হওয়া বল্টু তো বলেই বসলো, ম্যাডাম,আমি কোনো অবস্থাতেই প্রথম গ্রেডে পড়বোনা। কারণ,প্রথম গ্রেডের সব পড়ালিখা আমি অনেক আগেই শেষ করে ফেলেছি। এমনকি আমার বড় বোন যে ৩য় গ্রেডে পড়ে ,আমি ওর চেয়ে ও স্মার্ট।কাজেই মিনিমাম ,আপনি আমাকে ৩য় গ্রেডে পড়ার সুযোগ করে দিন।

ম্যাডাম, বল্টুকে নিয়ে প্রিন্সিপাল স্যারের রুমে গেলেন। সব খুলে বললেন।

প্রিন্সিপাল স্যার বললেন, ঠিক আছে,আমি তোমাকে দুয়েক টা প্রশ্ন করবো, যদি তুমি ঠিক ঠিক উত্তর দিতে পারো ,তবে তোমাকে উপরের ক্লাশে প্রমোশন দেয়া হবে।

প্রিন্সিপাল স্যার বললেন, আচ্ছা বলতো রাজু, ৩ গুন ৩ = কত?

বল্টুর জটপট জবাব, স্যার , নয়।

আচ্ছা বলতো ৮ গুন ৮ সমান কত?

এবারও বল্টুর জবাব স্যার ৬৪।

প্রিন্সিপাল স্যার ম্যাডামকে বললেন, রাজুকে উপরের ক্লাসে প্রমোশন দেয়া যায়।

রূপবতী ম্যাডাম এবার প্রিন্সিপাল স্যার কে বললেন, স্যার আমারও কিছু প্রশ্ন ছিলো, যদি আপনি অনুমতি দেন,আমিও একটু ওর মেধা যাচাই করি। প্রিন্সিপাল স্যার এবার মাথা নেড়ে সায় দিলেন। ম্যাডাম , বল্টুকে প্রথম প্রশ্ন করলেন-আচ্ছা বল্টু বলতো, গাভীর চারটা আছে,কিন্ত আমার আছে দুটো। সে টা কি?

বল্টু চুপচাপ চিন্তা করছে,আর মিটিমিটি হাসছে।

ম্যাডাম বললেন,লজ্জা পাবার দরকার নেই বল্টু । তুমি সঠিক জবাব দিও।

বল্টু বললো, ম্যাডাম, এটা হলো-আপনার দুই পা।

ম্যাডাম এবার ২য় প্রশ্ন করলেন, আচ্ছা এবার বলতো, তোমার প্যান্টের ও জায়গায় আছে,আর আমার তা নেই সেটা কি?

বল্টু লাজে হাসে।

ম্যাডাম বলেন, লজ্জা পাওয়ার কিছু নেই বল্টু।

রাজু বলেন, ম্যাডাম এটা হলো, আমার প্যান্টের পকেট।

ম্যাডামের পরের প্রশ্নঃ আচ্ছা, বলতো,এমন একটি শব্দ যা ইংরেজে লেটার C দিয়ে শুর আর T দিয়ে শেষ। জিনিসটা গোলাকার, ডিলিশাস,ভেতরে ভেজা ভেজা, আর নরম,যা পেলে সবাই তৃপ্ত হয়।

প্রশ্ন শুনে প্রিন্সিপাল স্যারের চোখ বড় বড় হয়ে গেলো। কি বলবেন ভেবে পাচ্ছেন না। চেহারা পুরো লাল হয়ে গেছে।

বল্টু বললো, ম্যাডাম এটা হলো Cocunut.

ম্যাডের পরের প্রশ্নঃ আচ্ছা এবার বলোতো, যা খুব শক্ত হয়ে কারো ভিতরে ঢুকে, আর নরম, ভেজা,আঠালো হয়ে বের হয়ে আসে?

বল্টুর জবাব, ম্যাডাম এটা হলো বাবল গাম।

ম্যাডামঃ আচ্ছা এবার বলোতো, কোন শব্দ ইংরেজি F দিয়ে শুরু আর K দিয়ে শেষ। যে শব্দ শুনলেই শরীরে যথেষ্ট উত্তাপ আর উত্তেজনা শুরু হয়-

এ প্রশ্ন শুনে প্রিন্সপাল স্যারের আবারো, লজ্জাকর অবস্থা ।

কিন্ত বল্টুর উত্তর ,ম্যাডাম এটা হলো Fire Truck.

ম্যাডামঃ বলোতো কোন শব্দ ইংরেজি F দিয়ে শুরু আর K দিয়ে শেষ। যা মানুষ না পেলে হাত ব্যবহার করে।

বল্টুর জবাব-ম্যাডাম এটা হলো-Fork.

ম্যাডামঃ বল্টু বলতো সোনা, এ জিনিসটা কারো লম্বা, আবার কারো ছোট, একেক জনের একেক সাইজের হয়।বিয়ে করার পর জামাই আদর করে বউকে দিয়ে থাকে।

বল্টুর জবাব–ম্যাডাম এটা হলো ডাকনাম।

ম্যাডামঃ বল্টু বলতো এটা পুরুষের শরীরে কোন অংশ যেখানে কোনো হাড় নেই,তবে অনেক শিরা আছে, এক রকমের মাংসপিন্ডের সমষ্টি, উত্তেজনাকর অবস্থায় বেশী অনুভূত হয়। বিশেষ করে যা দিয়ে ভালোবাসা বাসি বুঝা যায়।

বল্টুর জবাব, ম্যাডাম এটা হলো হার্ট বা হৃদয়।

শুনার পর প্রিন্সিপাল স্যার যেন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন। ম্যাডাম কে বললেন ওকে ৮ গ্রেডেই প্রমোশন দেয়া হোক। কারণ শেষের কয়েকটি প্রশ্নের জবাব আমি নিজেই ভুল করেছি।

 

৯৩)

আরাম খানের পোলা বল্টু। বল্টু একদম নামাজ পড়ে না। আরাম বল্টুকে অনেক বুঝালেন। কিছুতেই কাজ হলোনা। শেষমেষ আরাম বল্টুকে বললেন।

: বল্টু এখন থেকে নামাজ পড়লে তোকে ৫টাকা করে দিব।

বল্টু তো কথা শুনে মহা খুশি। সে খুশিমনে নামাজ পড়তে গেল। নামাজ পড়ে এসে আব্বাকে বললো,

: আব্বা, নামাজ পড়ে এসেছি। এবার টেকা দাও।

: কিসের টাকা? তুই নামাজ পড়ছিস নেকী পাইছিস। তোকে আবার টাকা দেব কেন?

: আব্বা, আমি জানতাম তুমি এইরকম করবা। আমিও কম যাইনা। আমি নামাজ ঠিক-ই পড়ছি। কিন্তু ওজু করি নাই।

 

৯৪)

আরাম খানের ছেলে বল্টু একদিন তার বাবাকে জিজ্ঞাস করছে, “বাবা, মেয়েদের কত রকমের বুক আছে?”

আরাম খান একটু বিব্রত হলেও ছেলেকে শেখানোর স্বার্থে বললো, তিন রকমের বুক আছে।

২০ – ৩০ বছর বয়সে তাদের বুক থাকে লেবুর মতো, গোল আর মজবুত।

৩০ – ৪০ বছর বয়সে তাদের বুক থাকে নাশপাতির মতো, তখনও সুন্দর দেখায় কিন্তু একটু ঝুলে যায়।

৪০ -৫০ বছর বয়সে তাদের বুক হয় পেঁয়াজের মতো।

– পেঁয়াজের মতো? ছেলে অবাক।

– হ্যাঁ, যদি সেগুলো দেখো, তোমার কান্না পাবে।

 

৯৫)

আরাম খান আর তার স্ত্রী গিয়েছেন তাদের হানিমুনে। বউ যখন এলিভেটরের দিকে রওনা হল, খুব সুন্দর একটি মেয়ে আরাম খান কে জিজ্ঞেস করলেন তার কোন স্পেশাল চাহিদা আছে কিনা, কোনরকম দরকার হলে যেন ডেস্কে তিনি জানাতে না ভুলেন। স্ত্রী দূর থেকে মেয়েটিকে দেখে আর তার কথা শুনে খুবই মুগ্ধ হলেন। এলিভেটরে উঠতে উঠতে বললেন, এই বিদেশীদের হোটেল কত ভাল, ব্যবহার কত ভাল…সবার দিকে কী খেয়াল রাখে! আরাম খান বললেন, আরে না…এই মেয়েটি একটি প্রস্টিটিউট।

স্ত্রী কিছুতেই স্বামীর একথা বিশ্বাস করলেন না। রুমে ঢুকে তিনি স্বামীকে, প্রমাণ করতে বললেন। আরাম খান বললেন, আচ্ছা ঠিকাছে। আমি ডেস্কে ফোন করে মেয়েটিকে পাঠাতে বলছি…তুমি লুকিয়ে থাক।

মেয়েটি রুমে এসেই আরাম খানকে জিজ্ঞেস করলেন, তিনি কী চান। আরাম খান ঘাঘু লোক…সরাসরি বললেন, তিনি খুব একা বোধ করছেন, তার সঙ্গী চাই। মেয়েটি বলল, আমার একরাতের চার্জ ১৫০ ডলার। আরাম খান বললেন, অনেক বেশি চাইছ। আমি ২৫ ডলার পর্যন্ত দিতে পারি। মেয়েটি অপমানিত বোধ করে চলে গেল।

বউ অবাক হলেন; স্বামীর বুদ্ধিমত্তায় আকৃষ্ট হয়ে তিনি স্বামীকে সোহাগে-আদরে ভরিয়ে দিলেন। কিছুক্ষণ পর, তারা গেলেন হোটেলের নীচতলায় ডিনার করতে। তারা ডিনার করে রুমে ফেরত যাচ্ছেন, এমন সময় আবার সেই মেয়েটির সাথে দেখা। মেয়েটি দেখেই তাচ্ছিল্যের হাসি হেসে আরাম খানকে বললেন, দেখ ২৫ ডলারে তোমার কী জুটেছে!

 

৯৬)

এক লোক বারে গিয়ে বিয়ার খেতে থাকলো। এক সময় তার পাশে খুব সুন্দরী একটা মেয়ে এসে বসলো। তো বারে সুন্দরী মেয়ে দেখে লোকটার খুব ইচ্ছা হলো মেয়েটিকে চেখে দেখার!

প্রথম স্টেপ হিসেবে সে মেয়েটিকে ড্রিংক্স অফার করলো। কিন্তু মেয়েটির প্রতিক্রিয়া হলো দেখার মতো।

মেয়েটি সবার সামনে চিৎকার করে বলে উঠলো, “কি! আপনি আমার সাথে সেক্স করতে চান?! কক্ষনো না!!”

এই কথা বলে মেয়েটি বেরিয়ে গেলো।

লোকটি তো পুরা ভ্যাবাচেগা খেয়ে গেল! বারের সবাই তার দিকে তাকিয়ে ছিল। সে চরম লজ্জিত হলেও কিছুই হয়টি এমন ভাব নিয়ে বসে বসে বিয়ার খেতে লাগলো।

একটু সময় পর সেই মেয়েটি আবার ফিরে এসে তার পাশে বসলো।

মেয়েটি বললো, “একটু আগের ঘটনাটির জন্য দুঃখিত। আসলে আমি সাইকোলজির স্টুডেন্ট। আমি দেখতে চাইছিলাম মানুষ চরম লজ্জাজনক অবস্থায় পড়লে কি করে।”

এবার লোকটি চিৎকার করে বলে উঠলো, “কি!! শুধুমাত্র ১বার ব্লো-জবের জন্য ২০০ ডলার!! মগের মুল্লুক পাইছো??”

 

৯৭)

পিটার তার বন্ধু ববের সাথে নৌকায় ঘুরতে বের হলো। হঠাৎ প্রচন্ড ঝড় উঠলো। তারা কোনরকমে তীরের কাছে একটা ফার্ম হাউজে এসে উঠলো। দরজায় ধাক্কা দিতে একজন সুন্দরী মহিলা দরজা খুললো। দুই বন্ধু রাতে থাকার জন্য তার কাছে আশ্রয় চাইলো।

‘কিছুদিন হলো আমার স্বামী মারা গেছেন।’ মহিলা বললো। ‘আমি তোমাদের বাড়িতে জায়গা দিলে লোকে নানা কথা বলবে।’

‘ঠিক আছে, ম্যাম। আমরা বুঝতে পেরেছি। আমরা আস্তাবলে শুতে পারবো।’ পিটার বললো।

মহিলা তাতে রাজি হলেন। এবং দুই বন্ধু আস্তাবলে শুয়ে পড়লো।

পিটার ঘুমিয়ে পড়লে বব মাঝ রাতে মহিলার রুমে গেল। পরে ভোরে আবার এসে পিটারের কাছে শুয়ে পড়লো। পিটার কিছুই টের পেল না।

নয় মাস পর, পিটার সেই বিধবা মহিলার উকিলের কাছ থেকে একটা চিঠি পেলো। বন্ধু ববের কাছে গিয়ে বললো, ‘মনে আছে, আমরা কয়েক মাস আগে এক ফার্ম হাউজে এক সুন্দরী বিধবার দেখা পেয়েছিলাম?’

‘হ্যাঁ, মনে আছে।’

‘তুই কি ঐ রাতে ঘুম থেকে উঠে মহিলার সাথে কিছু করেছিলি?’

‘হ্যাঁ, স্বীকার করি, করেছিলাম।’

‘তুই কি তখন তাকে নিজের নাম না বলে আমার নাম বলেছিলি?’

‘দোস্ত, মাফ করে দে। আমার ভুল হয়ে গেছে।’ ধরা পড়ে বব বললো।

‘না-রে, বরং তোকে ধন্যবাদ জানাতে এসেছি।’ পিটার হেসে বললো। ‘ঐ বিধবা কয়েকদিন আগে মারা গেছে আর সব সম্পত্তি আমার নামে করে গেছে।’

 

৯৮)

আরাম খান গিয়েছিল একটা কথা বলা টিয়া পাখি কেনার জন্য। অনেক খুঁজে শেষে পেল একটা টিয়া পাখি, পাখিটা তাকে দেখে বলল “লাল লাল লাল!”

আরাম ভাবল আরে আমি তো লাল আন্ডারওয়ার পরেছি টিয়া টা জানল কি ভাবে।

তাই সে পরের দিন কালো আন্ডারওয়ার পরে আবার পাখিটার সামনে আসলো, এবার পাখিটা তাকে দেখে বলল “কালো কালো কালো!”

সে ভাবল কি করা যায় ।

পরের দিন সে আন্ডারওয়ার ছাড়াই আসল ।

এবার পাখি টা তাকে দেখে বলল, “শামুক! শামুক!”

 

৯৯)

দুই বন্ধুর কথোপকথোন,

১ম বন্ধু: “কিরে কি হয়েছে? এত বিমর্ষ লাগছে কেন?”

২য় বন্ধু: “তোর নিশ্চয়ই স্যালির কথা মনে আছে?”

১ম: “সেই মেয়েটি তো যাকে দেখলেই তোর ঐটা খাড়া হয়ে যায়?!”

২য়: “ফাজলামি করিস না! আমি ওকে খুবই পছন্দ করি!”

১ম: “জানি। কি হয়েছে তাই বল।”

২য়: “না মানে ওকে দেখলেই আমার ওটা দাঁড়িয়ে যায় বলে তো আমি ওর সামনেই যেতে পারতাম না লজ্জায়”

১ম: “হুমম।”

২য়: “তো আমি ওকে ফোন করে বাইরে খেতে যেতে বলি। আশ্চর্য হলো ও সাথে সাথেই রাজি হয়ে যায়!”

১ম: “আমি তো আগেই বলেছিলাম যে ও তোকে পছন্দ করে! বিশ্বাস হলো তো?”

২য়: “যাই হোক, ঐ দাঁড়িয়ে যাওয়া সমস্যার হাত থেকে বাঁচার জন্য আমি ওর বাসায় যাওয়ার আগে আমার ওটাকে ডান পায়ের সাথে টেপ দিয়ে খুব ভাল করে আটকিয়ে নিয়ে যাই!”

১ম: “বলিস কি!! তারপর?”

২য়: “আমি স্যালির বাসায় গিয়ে বেল বাজালাম। স্যালিই দরজা খুলে দিলো!”

১ম: “তারপর?”

২য়: “স্যালি পড়ে ছিল টকটকে লাল রংয়ের শর্টস্কাট!”

১ম: “এরপর কি হলো?”

২য়: “আর কি হবে! আমার পায়ের শক্ত লাথি খেয়ে স্যালি এখন হাসপাতালে! সামনের পাটির ৪টা দাঁত পড়ে গেছে ওর; লাথি খেয়ে! আমার আর প্রেম করা হলো না রে…!”

 

১০০)

এক লোক পার্টি দিয়ে তার বন্ধুদের বললো, আমার সুইমিং পুলটা জাদুর। সুইমিং পুলে নেমে যে তরল আবুলর্থের নাম করবে পুরো পুলের পানি সেই আবুলর্থ হয়ে যাবে।

তার এক বাঙালি বন্ধু পুলে নেমে বললো, কোক। সাথে সাথে পুরো পুলের পানি কোকে পরিবর্তন হয়ে গেলো। সে প্রাণ ভরে কোক খেয়ে উঠে এলো।

এবার তার এক রাশিয়ান বন্ধু নেমে বললো, ভদকা। সাথে সাথে পুরো পুলের পানি ভদকায় পরিবর্তন হয়ে গেলো। সে প্রাণ ভরে ভদকা খেয়ে উঠে এলো।

এবার তার এক আমেরিকান বন্ধু ঝাঁপ দিতেই বাঙালিটি তাকে মনে করিয়ে দিলো, আরে, তোমার পকেটে তো মোবাইল ফোনটা রয়ে গেছে।

আমেরিকান বললো, শিট!

০০০০০০০

১০১-২০০ হাসির কৌতুক (প্রাপ্তবয়স্ক ছাড়া পড়বেন না ১৮+)

বাংলা কৌতুক সমগ্রঃ ২০১ থেকে ৩৩০(১৮+)

Categories
অনলাইন প্রকাশনা কৌতুক বিনোদন ব্যঙ্গকৌতুক ভালবাসা/প্রণয়লীলা যৌন জ্ঞান ও সম্পর্ক সৃজনশীল প্রকাশনা

১০১-২০০ হাসির কৌতুক (প্রাপ্তবয়স্ক ছাড়া পড়বেন না ১৮+)

১০১)

প্রথম দিন ডেট সেরে বান্ধবীকে রাতের বেলা বাড়ি পৌঁছে দিতে এসেছে বাবু। দরজার পাশে দেয়ালে ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে বললো সে, ‘সোনা, একটা চুমো খেতে দাও আমাকে।’

“না না না! কী? তুমি পাগল হলে? এখানে দাঁড়িয়ে?”

“আরে কেউ দেখবে না। এসো, একটা চুমো।”

“না না, খুব ঝামেলা হবে কেউ দেখে ফেললে।”

“আরে জলদি করে খাবো, কে দেখবে?”

“না না, কক্ষণো এভাবে আমি চুমো খেতে পারবো না।”

“আরে এসো তো, আমি জানি তুমিও চাইছো — খামোকা এমন করে না লক্ষ্মী!”

এমন সময় দরজা খুলে গেলো, বান্ধবীর ছোট বোন ঘুম ঘুম চোখে দাঁড়িয়ে। চোখ ডলতে ডলতে সে বললো, ‘আপু, বাবা বলেছে, হয় তুমি চুমো খাও, নয়তো আমি চুমো খাই, নয়তো বাবা নিজেই নিচে নেমে এসে লোকটাকে চুমো খাবে — কিন্তু তোমার বন্ধু যাতে আল্লার ওয়াস্তে কলিংবেল থেকে হাতটা সরায়।’

 

১০২)

মার্কেটে গিয়ে আরাম খান তার বউকে হারিয়ে ফেললো। হন্তদন্ত হয়ে হাঁঠতে গিয়ে ধাক্কা খেলো আরেক জনের সাথে।

আরাম খান বললো, আমি দু:খিত, আমার স্ত্রীকে খুঁজে পাচ্ছি না। ওর চিন্তায় কোথায় যাচ্ছি খেয়াল করতে পারিনি।

দ্বিতীয় জন বললো, আমিও তো আমার স্ত্রীকে হারিয়ে ফেলেছি।

আরাম খান বললো, তোমার স্ত্রী দেখতে কেমন? তাহলে হয়তো আমি খুঁজতে সাহায্য করতে পারবো।

দ্বিতীয় জন বললো, আমার স্ত্রী লাল চুলের, সবুজ চোখ, লম্বা সুগঠিত পা আর শর্ট স্কার্ট পরে আছে। তোমার স্ত্রী দেখতে কেমন?

আরাম খান বললো, আমারটার কথা বাদ দাও। চলো তোমার স্ত্রীকে খুঁজি।

 

১০৩)

মানসিক রোগীর রোরশাখ ইঙ্কব্লট টেস্ট নিচ্ছেন মনোচিকিৎসক। হিজিবিজি কিছু কালির ছোপ রোগীকে দেখানো হয় এ টেস্টে।

প্রথম কার্ডটা এগিয়ে দিলেন তিনি। ‘বলুন তো এটা কিসের ছবি?’

‘একটা ছেলে একটা মেয়েকে জাপটে ধরে চুমু খাচ্ছে।’

দ্বিতীয় ছবিটা এগিয়ে দিলেন ডাক্তার। ‘এটা কিসের ছবি বলুন তো?’

‘ঐ ছেলেটা এবার মেয়েটার জামাকাপড় খুলে ফেলছে, আর মেয়েটা চেঁচাচ্ছে হাঁ করে।’

আরেকটা ছবি এগিয়ে দিলেন ডাক্তার। ‘এটা কিসের ছবি বলুন তো?’

‘ছেলেটা মেয়েটার চুল টেনে ধরে ঘাড়ে কামড় দিচ্ছে, আর মেয়েটা খিখি করে হাসছে।’

ডাক্তার আর পারলেন না। ‘দেখুন, দবির সাহেব আপনার রোগ খুব জটিল পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। আপনার মনটা খুবই নোঙরা, আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি।’

দবির সাহেব চটে আগুন। ‘নিজে যত রাজ্যের নোঙরা ছবি এগিয়ে দিচ্ছেন আমাকে, আর বলছেন আমার মন নোঙরা?’

 

১০৪)

এক লিফটম্যান ছিল চাকুরিতে একেবারে নতুন। কখনো ভাল ভাবে লিফট চালাতে শেখে নি। ১৭ তলায় এক লোক লিফট এ চড়ে তাকে বললো এক তলায় নিয়ে যেতে। লিফটম্যানটি এক তলায় এসে ভূলবশত প্রচন্ডভাবে ব্রেক কষলো। হটাৎ থেমে যাওয়ার কারনে সমস্ত লিফট ভয়ানক ঝাকি খেয়ে উঠলো। লিফটম্যানটি দুঃক্ষিত গলায় বললো, “আমি দুঃক্ষিত স্যার, আমি কি খুব জোরে লিফট থামিয়েছি?”

লোকটি রাগতস্বরে বললো, “না না তা কেন? আমি সব সময় আমার প্যান্ট খুলে গোড়ালীর কাছে ফেলে রাখি।”

 

১০৫)

জরিনার বাবা জরিনার জন্য পাত্র ঠিক করেছে। এদিকে জরিনার সাথে পাভেলের ৫ বছরের অফেয়ার। এটা বাবাকে জানাতেই জরিনার সুইট বাবা নিমিষেই টিপিক্যালি #বাবা কেন ভিলেন?# টাইপ আচরণ শুরু করল। এটা নিয়ে বাবা মেয়েতে তুমুল ঝগড়া। খাওয়া বন্ধ, মুখ দেখাদেখি বন্ধ ইত্যাদি মোটামুটি শেষ হবার পর অবশেষে তারা একটা ঐক্যমতে পৌছাল। ঠিক হল নদীর অপরপাড় থেকে পাভেল ও বাবার ঠিক করা পাত্র দুজনেই সাঁতার কেটে এপারে আসবে। যে আগে আসতে পারবে জরিনা তারই হবে।

যথাসময়ে প্রতিযোগিতা শুরু হল। শুরুতে দেখা গেল বাবার ঠিক করা পাত্রটি এগিয়ে গেছে। জরিনা তো ভয়ে আধমরা কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যে পাভেল তাকে ধরে ফেলল। জরিনা খুশিতে হাততালি দিচ্ছে আর চিৎকার করে উৎসাহ দিচ্ছে পাভেলকে। একপর্যায়ে প্রেমিকের শক্তি আরো বাড়ানো এবং উৎসাহ দেওয়ার জন্য একপর্যায়ে নদীর তীরে দাঁড়িয়ে তার সব কাপড়চোপড় খুলে ফেলল।এরপর হঠাৎ করে পাভেলের সাঁতারের গতি বেড়ে গেলেও তা আস্তে আস্তে কমে পাড়ের কাছাকাছি এসে একেবারেই থেমে গেল।বাবার ঠিক করা পাত্রটি জিতে গেল প্রতিযোগিতায়। পরে আনেক কষ্টে পাভেল পাড়ে ওঠার পর জরিনা রেগেমেগে বলল, তোমাকে উৎসাহ দেওয়ার জন্য এতকিছু করলাম তাও জিততে পারলে না। ছিঃ, কাপুরুষ কোথাকার।

পাভের ও সমান তেজে জবাব দিল সব দোষ তোমার, কে বলেছিল তোমাকে কাপড় খুলতে ? তুমি কাপড় খোলার পরপরইতো আমার প্রাইভেট পার্ট নদীর তলদেশের লতাগুল্মের সাথে আটকে যেতে লাগল।

 

১০৬)

এক লোক নতুন বিয়ে করছে তাই বিয়ের পরদিন বৌকে নিয়ে শ্বশুর বাড়ি গেছে । কিন্তু বৌ হল মা মরা মেয়ে, তাই শ্বশুরের মাত্র একটি ঘর এবং একটি খাট। তাই তিনজনে মিলে এক বিছানায় ঘুমাল। প্রথমে মেয়ে তারপর মেয়ে জামাই এবং সবশেষে শ্বশুর ঘুমাল। মাঝরাতে জামাই মেয়েকে বলছেঃ বৌ লোকালে দিব না ডাইরেকে দিব। ( পাঠক এখানে লোকালে =আস্তে এবং ডাইরেকে= জোরে)। মেয়ে বললঃ বাবা পাশে, লোকালেই দাও।

জামাই লোকালে দিতে লাগল। কিন্তু লোকালে সুখ আসার পর আর সামলাতে না পেরে  ডাইরেকে দিতে লাগল। তাই খাট নড়তে লাগল। একটু পরে হাই স্পীডে করার কারনে খাট নড়তে নড়তে শ্বশুর মাটিতে পরে গেল। এখন শ্বশুর বলছেঃ বাবা গাড়ি চালাবা গাড়ি চালাও, লোকালে চালাও বা ডাইরেকে চালাও, কিন্তু পেছেঞ্জার পরবো কেন ?

 

১০৭)

এক চার্চে পাদ্রি নির্বাচন করা হচ্ছে । মিস্টার জন নির্বাচক , তিনি ঠিক করলেন যে সবচেয়ে পার্থিব ভোগের উর্ধে তাকেই নেয়া হবে । ৩জন পার্থি আবেদন করল । এখন ৩ জনেরই বিশেষ অঙ্গে ঘন্টা লাগানো হল যাতে ওই জিনিস দাড়ালে ঘন্টা বেজে উঠে । এইবার তিনজনের সামনে এক সুন্দরীকে এনে প্রথমে বুকের কাপড় খুলে ফেলা হল , একজনের ঘন্টা বেজে উঠল এবং সে বাদ পড়ল , এইবার সুন্দরীর নিচের কাপড় খুলে ফেলা হল । আরেকজনের ঘন্টা বেজে উঠল এবং বাদ পড়ল , রইল বাকী এক , নির্বাচক মিস্টার জন বললেন তার মানে আমরা আমাদের পাদ্রি পেয়ে গেছি , তুমি সমস্ত ভোগ-কাম-লালসা এর উর্ধে …… এইসব বলতে বলতে তাকে জড়িয়ে ধরলেন , সাথে সাথে ঘন্টা বেজে উঠল ।

 

১০৮)

দ্বিতীয বিশ্বযুদ্ধের সময় সৈনিক সংকট দেখা দিলে কতৃপক্ষ নিয়ম করে দেয় প্রতি পরিবার থেকে একজন তরুণকে যুদ্ধে অংশ নিতে হবে। জর্জ কোন ভাবেই যুদ্ধে যাবে না। মেডিকেল ফিটনেস পরীক্ষার জন্য যখন তার ডাক পড়ল তখন সে তার গার্লফ্রেন্ড এর ইউরিন স্যাম্পল নিজের ইউরিন স্যাম্পল বলে আর্মি হাসপাতালে জমা দিয়ে দিল। তার বান্ধবীর ছিল ডায়বেটিস । ডায়বেটিস ধরা পড়লে সে আনফিট ঘোষিত হবে এবং তাকে যুদ্ধে যেতে হবে না।

পরদিনই ঐ তরুণ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে চিঠি পেল।

কংগ্রেচুলেশ! আপনি অবিলম্বে আমাদের গাইনি বিভাগে যোগাযোগ করুন। কারণ আপনি মা হতে যাচ্ছেন।

 

১০৯)

আরাম খান আর তার স্ত্রী গেছেন চিড়িয়াখানায়, ঘুরতে ঘুরতে তারা গিয়ে দাঁড়ালেন এক গরিলার খাচার সামনে, চারিদিকে নির্জনতা দেখে কি মনে করে যেন আরাম খান তার স্ত্রীকে বললেন, তুমি আমাকে যেভাবে উত্তেজিত কর, গরিলাটাকে ওভাবে করো না।

আরাম খান এর স্ত্রী আস্তে আস্তে তার টপস খুলে ফেললেন। গরিলা উত্তেজিত হয়ে পড়লো।

আরাম খান বললেন, আরও উত্তেজিত কর তারপর দেখো কি হয়। স্ত্রী এবার নিচেরটাও খুলে ফেললেন। গরিলা এবার উত্তেজিত হয়ে কাপতে লাগলো।

আরাম খান জানতেন যে খাচার দরজায় তালা ছিল না। আরাম খান দরজা খুলে তার স্ত্রীকে খাচার ভিতরে ঢুকিয়ে দিলেন আর স্ত্রীর উদ্দেশ্যে বললেনঃ “এবার গরিলাটাকে বল যে তোমার মাথা ব্যথা করছে। তোমার এখন মুড নাই” !!!

 

১১০)

আরাম খানের ছোটবেলার কাহিনী। পোলাডা একদিন দেখে এক বড় ভাই একটা মেয়েরে চুমু দিচ্ছে। বাসায় এসে আরাম খান মারে কয়, “আম্মা! চুমা দিলে কি হয়?”

ওর মা ত খুব কড়া। সে চায় পোলা ভালা থাকুক। এইসব পাপ যাতে না করে তাই ডর দেখানের লাইগ্যা আরাম খানরে কইল, “ চুমা দেয়ার পর পোলাগুলার শরীর আস্তে আস্তে পাথর হইয়া যায়, পরে মাটিত পইরা মইরা যায়।”

আরাম খান কয়, “সত্যি?”

“হ”

আরাম খান আস্তে আস্তে বড় হয়। যুবক হইলে একদিন এক মাইয়ার সাথে কথা হয়। কথায় কথায় সম্পর্ক হয়। মেয়েটা একদিন আরাম খানরে চুমা দিতে চায়। আরাম মানা করে, “আমার আম্মা কইছে মেয়েদের চুমা দিলে আমি মারা যামু।”

“বোকা! আসো।” বলে মেয়েটা এগিয়ে একটা চুমা দিল। চুমা শেষ না করতেই করতেই আরাম খান, “আম্মা ঠিকই কইছিল” বলে মাটিতে শুয়ে গড়াগড়ি দেয়া শুরু করছে।

“কি হইছে?”

“আল্লাহ রে। আমি পাত্থর হইয়া মইরা যামু। তোমারে চুমা দিতে না দিতেই আমার শরীরের একটা অংশ শক্ত হওয়া শুরু করছে!”

 

১১১)

এক দম্পতি এসেছে ডাক্তারের কাছে। স্বামীটা বেশ বয়স্ক কিন্তু স্ত্রী তরুনী। তাদের সমস্যা হলো বাচ্চা হচ্ছে না। ডাক্তার স্ত্রীর কিছু পরীক্ষা করলেন। স্বামীটিকে বললেন আপনার স্পার্ম টেস্ট করতে হবে। তাকে একটা specimen cup দেয়া হলো। বলা হলো কাপটাতে স্পার্ম নিয়ে আসবেন।

পরদিন লোকটা খালি কাপ নিয়ে এসেছে।

ডাক্তার বলল, কাপ খালি কেনো?

-বাসায় গিয়ে বাম হাতে অনেক চেষ্টা করলাম। পারলাম না। পরে মনে হলো ডান হাতে চেষ্টা করি। সেই হাতেও হলো না।

-এটা হতে পারে…আপনার বয়স ত আর কম হয় নাই। তা সাহায্য করার জন্য বউকে ডাকতে পারতেন।

-বউকে ডাকছি ত। সে হাত দিয়ে চেষ্টা করল …হলো না…মুখ দিয়ে চেষ্টা করল …হলো না…

– হয়। মাঝে মাঝে এমন হয়। তা অন্য কাউকে ডাকতে পারতেন।

-ডাকছি ত। বউয়ের বান্ধবীকে ডাকছি।

-বউয়ের বান্ধবী????

-সেও চেষ্টা করে পারল না।

-পারল না?? ডাক্তারের ভ্রু কুচকে গেছে।

-এরপর বউয়ের বন্ধু এলো। সেও চেষ্টা করল… পারল না।

ডাক্তার অবাক- বলেন কি? আপনার বউয়ের দোস্ত??একটা ছেলে??

-তবে আর বলছি কি?যাক, সারা রাতে পারলাম না। সকালে হাসপাতালে এলাম। হাসপাতালে এসে নার্সকে বললাম সাহায্য করতে।

– আমার নার্সকে?

-হ্যা। সেও চেষ্টা করল। পারে নাই।

-আপনি ত দেখি সবাইকে দিয়ে চেষ্টা করছেন।

-তা করছি। তবে আপনি বাকি আছেন।

-আআআআমি??? ডাক্তার তোতলাচ্ছে…

-হ্যা। দেখেন ত চেষ্টা করে কাপটার ঢাকনাটা খুলতে পারেন কিনা?

 

১১২)

এক বৃদ্ধ লোকের একটি বড় ফার্মহাউজ ছিলো। ফার্মহাউজের পেছনে একটা বড় পুকুর ছিলো। সে সেটাকে কেটে গভীর করলো, কিছু পিকনিক টেবিল বসালো এবং কিছু গাছপালা লাগালো যাতে এটাকে একটা পিকনিক স্পট বানানো যায়।

একদিন বিকালে লোকটি পুকুরের অবস্থা দেখার জন্য চললো। তার হাতে ছিলো একটা বালতি।

পুকুরের কাছে আসতেই তার নজরে পড়লো কিছু নারীকণ্ঠ। আরেকটু এগোতেই সে দেখলো স্বল্প বসনা কিছু মেয়ে পুকুরের পাশে হাসি-আনন্দ করছে। বৃদ্ধ ভাবলো, হয়তো তারা পাশের কোন বাড়ি থেকে এসেছে। নিজের উপস্থিতি জানানোর জন্য সে গলা খাঁকারি দিলো। তার আওয়াজ শুনে মেয়েরা সবাই গলা পানিতে নেমে গেলো। একজন বললো, চাচা, আপনি এখান থেকে না গেলে আমরা উঠবো না।

বৃদ্ধ বললো, আমি তোমাদের শরীর দেখার জন্য এখানে আসিনি। আমি পুকুরের কুমিরগুলোর জন্য খাবার এনেছি।

 

১১৩)

১ম বন্ধু: কিরে তোর মুখে ব্যান্ডেজ বাধা কেন? তোর ডান চোখটাতো অল্পের জন্য বেঁচে গেছে। কে তোর এই দশা করল?

২য় বন্ধু: আর বলিস না সকাল বেলায় অফিসে বেরোবার আগে প্যান্টের সামনের একাট বোতাম ছিড়ে গেল। আমি ব্যাচেলর মানুষ। তাই পাশের অ্যাপার্টমেন্টের মিসেস ললার সাহায্য চাইলাম।

১ম বন্ধু: বুঝতে পারছি। প্যান্টের ঐ জায়গায় বোতাম লাগাতে বলায় ভদ্রমহিলা নিশ্চয়ই ভাবলেন তুই কোন অসভ্য ইঙ্গিত করছিস। তারপর তোকে জুতা পেটা করলেন।

২য় বন্ধু: না না, তা নয়। মিসেস লরা একজন সমাজ সেবিকা। তিনি আমার সমস্যা বুঝতে পারলেন। দ্রুত সুঁই-সুতা নিয়ে আমার প্যান্টের বোতাম লাগিয়ে দিলেন।

১ম বন্ধু: তাহলে সমস্যাটা কি?

২য় বন্ধু: বোতামটা লাগানো শেষ করে মিসেস লরা যখন মাথা নিচু করে দাঁত দিয়ে সুতোটা কেটে দিচ্ছিলেন তখনই‌ উনার হাজব্যান্ড এসে উপস্থিত। তারপরতো বুঝতেই পারছিস।

 

১১৪)

এক ভদ্রলোক বীয়ার ছাড়া কিছু বোঝেন না। সন্ধ্যা হলেই তার বীয়ার চাই। তার মাসের অর্ধেক বেতন চলে যায় পাবে বীয়ারের পেছনে। তার স্ত্রী বেচারা সন্ধ্যায় একা একা থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে যান, তাই তিনি প্রার্থনা করলেন তার স্বামীকে তার কাছে ফিরিয়ে দিতে। ঈশ্বর প্রার্থনা শুনলেন, তাই একদিন স্বামীর কাছে দেবদূত এল। তাকে বললেন, তোমার একটি ইচ্ছা আমি পূরণ করব। অনেক চিন্তা ভাবনার পর, লোকটি বলল, আমার খালি বীয়ার খাওয়ার শখ, মাসের বেতনের অনেকটাই চলে যায় বীয়ারের পেছনে। এ থেকে আমি বাঁচতে চাই, তাই আমার এমন ব্যবস্থা করে দিন যাতে আমার মূত্রই যেন খুব ভাল বীয়ার হয়ে বের হয়! দেবদূত তার ইচ্ছা মঞ্জুর করলেন। লোকটি সাথে সাথে একটা গ্লাস এনে পরীক্ষা করে দেখলেন। সন্তুষ্ট হয়ে খুশিতে সে সন্ধায় আগে আগে ঘরে ফিরে গেল। স্ত্রী খুবই আনন্দিত হয়ে স্বামীকে সঙ্গ দিতে চাইলেন। স্বামীতো আরও খুশি, তিনি স্ত্রীকে একটা বীয়ারের গ্লাস নিয়ে আসতে বললেন। স্ত্রী দৌড়ে গ্লাস এনে দেখেন স্বামী নগ্ন হয়ে বসে আছেন। স্ত্রী বুঝলেন আজ কিছু একটা হবে, তাই স্বামীকে আরো উত্তেজিত করার জন্য বললেন, তিনিও আজ বীয়ার খেতে চান, আরেকটা গ্লাস নিয়ে আসছেন। স্বামী বললেন, অসুবিধা নেই, ডারলিং, গ্লাস আনতে হবেনা! আজ তুমি সরাসরি ট্যাপ থেকে খাবে!

 

১১৫)

ইদানিং জনের মধ্যে সেই নার্ভাস ভাবটা নেই। মেয়েদের সাথে সাচ্ছ্যন্দে কথা বলতে পারে।তাই রাস্তায় একদিন একটা অপরুপ পরীকে দেখে এগিয়ে গেলো কথা বলতে।

“এক্সকিউজ মি, আপনাকে যদি আমি এক মিলিওন ডলার দেই, তো আপনি কি আমার সাথে শোবেন?” স্ট্রেইটকাট কথাবার্তা জনের।

অলমাইটি ডলারস! তো এখানেও মেয়েটি একটু ভেবে রাজী হয়ে গ্যালো।

“হ্যাঁ, শোব”

“আর যদি দশ ডলার দেই?”

“হোয়াট! কি বলছেন আপনি! আমাকে আপনি কি ধরণের মেয়ে মনে করেন??” পরী পুরো ক্ষেপে গ্যাছে।

“কি ধরনের মেয়ে, সেটাতো আগেই বুঝেছি। এখন একটু দরাদরি করছি আর কি!” মিটমিটিয়ে হেসে বলল জন।

 

১১৬)

পার্কে একটা বিরাট কুকুর নিয়ে বসে আছে বাবু। এক তরুণী যাচ্ছিলো পাশ দিয়ে, দাঁড়িয়ে বললো, ‘বাহ, বেশ তো কুকুরটা!’

বাবু হাসলো। ‘হ্যাঁ। খুব রোমান্টিক ও। আর মেয়েরা তো ওকে খুব পছন্দ করে, দারুণ আদর করতে পারে কি না।”

তরুণীর চোখে আগ্রহ ফুটলো। ‘তাই?’ ফিসফিস করে জানতে চাইলো সে। বাবু বললো, ‘হ্যাঁ, দেখতে চান? চলুন আমার বাসায়।’

বাড়ি ফিরে মেয়েটাকে সাথে নিয়ে নিজের ঘরে এলো সে। মেয়েটাকে জামাকাপড় খুলতে বলে সে কুকুরটার দিকে ফিরলো, ‘কালু, এই আপুটাকে আদর করো তো!’

কালুর কোন ভাবান্তর হলো না। বাবু আবার হুকুম দিলো, তবুও সে গ্যাঁট হয়ে বসে রইলো।

এবার বাবু একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে প্যান্ট খুলতে খুলতে বললো, ‘ঠিক আছে, কালু, তোমাকে দেখিয়ে দিচ্ছি কিভাবে কী করতে হবে, কিন্তু এ-ই শেষবার, বলে দিচ্ছি!’

 

১১৭)

কোনো এক পশ্চিমী দেশে এক ভদ্রমহিলার তিন-তিনটি অবিবাহিতা মেয়ে। অনেকদিন চেষ্টা করেও কিছু না হওয়ার পরে হঠাৎ করেই তিন মেয়ের খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিয়ের ঠিক হয়ে গেলো। ভদ্রমহিলা মেয়েদের দাম্পত্যজীবন (?) নিয়ে চিন্তায় পড়ে গেলেন। তো তিনি মেয়েদের বললেন যে প্রত্যেকে যেনো হানিমুন থেকে অল্প কথায় কিছু লিখে তাকে পোস্টকার্ড পাঠায়। যাতে তিনি বুঝতে পারেন যে মেয়েদের হানিমুন কেমন চলছে।

বিয়ের দু’দিন পরে প্রথম মেয়ে হাওয়াই থেকে পোস্টকার্ড পাঠাল। তাতে শুধু লেখা – “Nescafe”!!!!

প্রথমে বেশ অবাক হলেও, কিছুক্ষন বাদে তিনি কিচেনে গিয়ে Nescafe – এর জার বের করলেন। দেখলেন তার গায়ে লেখা – “Good till the last drop”….

তিনি একটু লজ্জা পেলেও, মেয়ের খবরে আনন্দ পেলেন।

বিয়ের এক হপ্তা পরে পরের মেয়েটি ভারমন্ট থেকে পোস্টকার্ড পাঠাল। তাতে লেখা – “Rothmans”!!!! এবার তিনি আর ঘাবড়ালেন না। একটা Rothmans এর প্যাকেট নিয়ে দেখলেন তাতে লেখা – “Extra Long. King Size”….। আবার তিনি একটু লজ্জা পেলেও, আনন্দিত হলেন।

সবচেয়ে ছোটো মেয়েটি গেছিল কেপ-টাউন। তার চিঠি কিছুতেই আসে না। এক মাসের শেষে তার চিঠি এল। তাতে খুব কাঁপা-কাঁপা হাতে লেখা – “South African Airways”!!!!

ভদ্রমহিলা জল্দী লেটেস্ট একটা ম্যাগাজিন বের করে South African Airways -এর এডটা দেখলেন। দেখামাত্র তিনি সেন্সলেস হয়ে পড়লেন।

এডটার নিচে লেখা – “Ten times a day, seven days a week, both ways”!!!!!!!!

 

১১৮)

ছুটির একদিনে আরাম খান ও তার বউ জন্মদিনের ড্রেসে বাথটাবে জলকেলী করতেছে। গায়ে ফেনা লাগায়া আবার ধোয়াধুয়িও চলতেছে। এমন সময় বাসার কলিং বেল বাইজা উঠলো। আরাম খান আইলসামি কইরা কইলো “জান, তোয়ালে প্যাচাইয়া যাওনা, দেখো কে আইসে?”

আরাম খান এর বউ তাই করে। একটা তোয়ালেতে শরীর ঢাইকা দরজা খুইলা দেখে পাশের বাড়ীর আনিস ভাই। জিগাইলো কি দরকার, আরাম গোছলে আছে। আনিস একটু ভাইবা কইলো “আইছিলাম এমনিতেই, থাক পরেই আমু আবার। তয় আপনে চাইলে একটা ব্যবসা করতে পারেন। ইন্সট্যান্ট এখানেই।”

আরাম খান এর বউ উৎসাহী হয়, কয় “কিরাম ব্যবসা?”

আনিস ব্যবসার প্রস্তাব দিলো তখন, “যদি আপনে তোয়ালের উপরের অংশ খুইলা দেখান, তাইলে আমি আপনেরে ৫০০০ টাকা দিমু।”। আরাম খান এর বউ ভাবলো, শুধু তো দেখবো, ৫০০০ টাকা তো কম না। সে খুইলা দেখাইলো। আনিস চোখ ভইরা দেখলো আর দিলো ৫০০০ টাকা।

নেশা চাপসে দুইজনেরই। আনিস এইবার কইলো “যদি পুরাটাই খুইলা ফেলেন তাইলে দিমু আরো ৫০০০।”

আরাম খান এর বউ ভাবলো একি কথা, দেখবোই তো। দিলো খুইলা। আনিস দেইখা আরো ৫০০০ দিয়া গেলো গা।

আরাম খান এর বউ খুব খুশী, ১০০০০ টাকা এত সহজে ইনকাম হইলো, খুশীতে গেলো স্বামীরে জানাইতে। স্বামী রে কইলো “পাশের বাসার আনিস ভাই আইছিলো..।”

আরাম খান কথা কাইরা নিয়া কয় ” আনিসে টাকা দিছে নি, ১০০০০ টাকা পাইতাম, ধার নিছিলো।

 

১১৯)

একদিন হঠাৎ এক স্পার্ম ব্যাংকে মুখোশ দিয়ে মুখ ঢাকা এক লোক উদ্দোত পিস্তল হাতে প্রবেশ করল। কাউন্টারে এক মহিলা ছিল, তাকে পিস্তল দেখিয়ে ভয় দেখিয়ে দাঁড়া করাল। মহিলা বলল ‘এটা ব্যাংক না, এটা একটা স্পার্ম ব্যাংক, এখানে কোন টাকা-পয়সা নেই, থাকেনা’

লোকটা বলল, ‘একটা বোতল নাও, এখনই! নাও, বোতলের ছিপি খুলে সবটা এখনই খেয়ে নাও!’

মহিলা পিস্তলের মুখে সবটা খেয়ে নিল তারপর লোকটা মুখোশ খুলে ফেলল, দেখা গেল সে ঐ মহিলারই হাসবেন্ড! লোকটা তখন তার বউকে বলল,

‘দেখেছ বেবি? এটা খাওয়া মোটেই কোন কঠিন কাজ না!

 

১২০)

ডিক একটি বারে ঢুকলো ড্রিংস্ করার জন্য। একটি মার্টিনি অর্ডার করলো সে। এবং বারটেন্ডারের কাছে তার দামও জানতে চাইলো। বারটেন্ডার বললো এর দাম ২ ডলার। এটা শুনে ডিক চমকে উঠলো। কারণ অন্যবারে এর দাম কমপক্ষে ২০ ডলার হবে। খুশি মনে সে মার্টিনি শেষ করে রেড ওয়াইনের দাম জানতে চাইলো। এক বোতল রেড ওয়াইন অন্য জায়গায় ৫০ ডলারের কমে পাওয়া যায় না। কিন্তু বারটেন্ডার জানালো এক বোতল রেড ওয়াইনের দাম এখানে ৫ ডলার!

শুনে ডিক বলে উঠলো, “বলো কি! এত্ত কমে? বারের মালিক কোথায়?”

বারটেন্ডার: “সে উপরের তলায় আমার বৌ এর সাথে আছে।”

ডিক: “বারের মালিক তোমার বৌ এর সাথে কি করে?”

বারটেন্ডার: “আমি ওর ব্যাবসার সাথে যা করতেছি, তাই করে!”

 

১২১)

মাঝরাতে হঠাৎ ঘুম ভেঙে গেল স্ত্রীর। চোখ পিটপিট করে তাকিয়ে দেখলেন, স্বামী বিছানায় নেই। বিছানা থেকে নেমে গায়ে গাউন চাপালেন তিনি। তারপর স্বামীকে খুঁজতে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নেমে এলেন। বেশি খুঁজতে হলো না। রান্নাঘরের টেবিলেই বসে থাকতে দেখা গেল স্বামীপ্রবরকে। হাতে গরম এক কাপ কফি নিয়ে দেয়ালের দিকে তাকিয়ে আছেন তিনি। দেখেই বোঝা যাচ্ছে, গভীর কোনো চিন্তায় মগ্ন। মাঝেমধ্যে অবশ্য হাতের রুমাল দিয়ে চোখ থেকে পানি মুছে নিচ্ছেন, তারপর কফি খাচ্ছেন।

‘কী হয়েছে তোমার?’ রান্নাঘরে ঢুকতে ঢুকতে চিন্তিতভাবে বললেন স্ত্রী। ‘এত রাতে রান্নাঘরে কেন?’

স্বামী তাঁর স্ত্রীর দিকে তাকালেন। তারপর গম্ভীর হয়ে বললেন, ‘হঠাৎ ২০ বছর আগের কথা মনে পড়ল। খেয়াল আছে তোমার, যেদিন আমাদের প্রথম দেখা হয়েছিল। আর তার পর থেকেই তো আমরা ডেট করতে শুরু করেছিলাম। তোমার বয়স ছিল ষোলো। তোমার কি মনে পড়ে সেসব?’

স্ত্রী তাঁর স্বামীর চোখের পানি মুছে দিতে দিতে জবাব দিলেন, ‘হ্যাঁ, অবশ্যই মনে আছে।’

স্বামী একটু থেমে বললেন, ‘তোমার কি মনে আছে, পার্কে তোমার বাবা আমাদের হাতেনাতে ধরে ফেলেছিলেন?’

‘হ্যাঁ, আমার মনে আছে।’ একটা চেয়ার নিয়ে স্বামীর কাছে বসতে বসতে বললেন স্ত্রী।

স্বামী আবার বললেন, ‘মনে আছে, তোমার বাবা তখন রেগে গিয়ে আমার মুখে শটগান ধরে বলেছিলেন, ‘এক্ষুনি আমার মেয়েকে বিয়ে করো, নয়তো তোমাকে ২০ বছর জেল খাটাব আমি।’

স্ত্রী নরম সুরে বললেন, ‘আমার সবই মনে আছে।’

স্বামী আবার তাঁর গাল থেকে চোখের পানি মুছতে মুছতে বললেন, ‘আজকে আমি জেল থেকে ছাড়া পেতাম।’

 

১২২)

মিস্টার অন্ড মিসেস রবিনসন ক্রুসো জাহাজডুবি হয়ে কয়েক বছর ধরে একটা দ্বীপে আটকা পড়ে আছে। একদিন ভোরে তারা দেখতে পেলো, সৈকতে এক সুদর্শন যুবক অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে, গায়ে নাবিকের পোশাক। সুস্থ হয়ে উঠে যুবক জানালো, তারও জাহাজডুবি হয়েছে। ওদিকে মিসেস ক্রুসো প্রথম দর্শনেই এই যুবকের প্রেমে পড়ে গেছে। কয়েকদিন পর সুযোগ বুঝে ঐ যুবককে প্রেম নিবেদন করলো সে। কিন্তু রবিনসন আশেপাশে যতক্ষণ আছে, কোন কিছু করবার সুযোগ তাদের নেই।

এর কিছুদিন পর নাবিক যুবক রবিনসনকে পরামর্শ দিলো, সৈকতে একটা ওয়াচ টাওয়ার তৈরি করা হোক। সে আর ক্রুসো ওতে চড়ে পাহারা দেবে, জাহাজ দেখতে পেলে পতাকা দিয়ে সংকেত দেবে। ক্রুসোর বেশ মনে ধরলো বুদ্ধিটা। বাঁশ দিয়ে একটা উঁচু ওয়াচ টাওয়ার তৈরি করলো তারা।

পরদিন প্রথমে পাহারা দেয়ার পালা নাবিকের। সে টাওয়ারে চড়লো, নিচে ক্রুসো আর তার বউ গেরস্থালি কাজ করতে লাগলো। কিছুক্ষণ পরই যুবক চেঁচিয়ে উঠলো, ‘ছি, ক্রুসো ভাই! দিনে দুপুরেই ভাবীর ওপর এভাবে চড়াও হয়েছেন। ছি ছি ছি।’ ক্রুসো নারকেল কুড়োচ্ছিলো, সে বিব্রত হয়ে ওপরে তাকিয়ে বললো, ‘কী যে বলো, আমি কোথায়, আর ও কোথায়!’

যুবক চোখ কচলে বললো, ‘ওহহো, দুঃখিত, আমার যেন মনে হলো … সরি ভাই।’ কিন্তু ঘন্টাখানেক পর আবার চেঁচিয়ে উঠলো সে, ‘না, এবার আর কোন ভুল নেই। কী ভাই, একটু অন্ধকার হতে দিন না! এভাবে জঙলিদের মতো সক্কলের সামনে … ছি ছি ছি।’

ক্রুসো আগুন ধরাচ্ছিলো, সে চটেমটে বললো, ‘চোখের মাথা খেয়েছো নাকি ছোকরা, কী দেখতে কী দেখছো!’

যুবক খানিকক্ষণ চেয়ে থেকে মাথা নেড়ে লজ্জিতভাবে হাসলো। ‘ইয়ে, দুঃখিত, কিন্তু মনে হলো পষ্ট দেখলাম …।’

কিছুক্ষণ বাদে যুবকের পাহারা দেয়ার পালা শেষ হলো, এবার ক্রুসো চড়লো টাওয়ারে। কিছুক্ষণ টাওয়ারে পায়চারি করে ক্রুসোর চোখ পড়লো নিচে। সে খানিকক্ষণ চেয়ে থেকে আপনমনে বললো, ‘আরে, কী তামশা, ওপর থেকে দেখলে তো মনে হয়, সত্যি সত্যি নিচে ওরা ওসব কিছু করছে!’

 

১২৩)

মেয়দের ব্রেস্ট স্ট্রোক সাতার প্রতিযোগিতা চলছে। সেখানে বিশাল বক্ষা এক তরুনী অংশ নিচ্ছে। হুইসেল দেয়ার পর সবাই ঝাপিয়ে পড়েছে পানিতে।

সুইমিং পুলের এক মাথা থেকে আরেক মাথায় গিয়ে সবাই চলে এসেছে। শুধু বিশাল বক্ষা তরুনী ডুবে আর ভেসে ভেসে অনেক কষ্টে সাতরিয়ে যাচ্ছে। সে আগাচ্ছে একটু একটু করে। বাকি প্রতিযোগিরা সাতার শেষ করে তোয়ালে দিয়ে পানি শুকিয়ে নিচ্ছে। আর তরুনীটি সাতরিয়েই যাচ্ছে। বলা বাহুল্য টিভি ক্যামেরা নিয়ে সাংবাদিকরা চলে এসেছে। এরা চায় ত ফানি জিনিস। আর এই মেয়ে মাত্র (!) আধাঘন্টা দেরি করে ফেলছে সাতার শেষ করতে।

যাই হোক এক সময় সে সাতার শেষ করে। সাংবাদিক খুব আগ্রহ নিয়ে তার দিকে মাইক্রোফোন বাড়িয়ে দিয়ে প্রশ্ন করে- মিস। ব্রেস্ট স্ট্রোক সাতারের এই আইটেমে প্রথম প্রতিযোগি তিনমিনিটে সাতার শেষ করেছেন। আপনার পয়ত্রিশ মিনিট লাগার কারণ কি?

তরুনী হাপাতে হাপাতে উত্তর দিল, আমি সেই রকম মানুষ না যারা হেরে গিয়ে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে চিটিং এর অভিযোগ আনে। কিন্তু আমি শিওর , আমি বাদে বাকি সবাই সাতারের সময় হাত ব্যবহার করেছে।

 

১২৪)

একদিন এক বাসার গৃহকর্তা আর তার বৌ গলা ফাটিয়ে চেঁচিয়ে ঝগড়া করছে। একপর্যায়ে লোকটা তার বউকে বলল Whore আর শুনে মহিলা লোকটাকে বলল Pimp।

তাদের ছোট ছেলে ছিল একটা, সে শুনে বাপ মাকে বলল, ‘Whore আর Pimp মানে কি?’ বাবা মা বলল, ‘এটা কিছু না ভদ্রমহোদয় আর ভদ্রমহোদয়া, আইমিন লেডিস এন্ড জেন্টেলম্যান’

২দিন পরে এক রাতে ভালবাসার একপর্যায়ে মহিলা লোকটাকে বলে বসল ‘ফিল মাই বুবস’ আর লোকটা ৫ মিট পরে বলল ‘ফিল মাই ডিকি’ ছেলেটা এবারও ঘন্টা খানেক পরে বাবা মাকে জিজ্ঞেস করল ‘বুবস আর ডিকি মানে কি?’ উত্তর এল ‘হ্যাট আর কোট!’

তার পরেরদিন লোকটা শেভ করতে যেয়ে গাল কেটে ফেলে বলে বসল ‘শিট’! ছেলে জানতে চাইল মানে কি, বাবা বলল ‘এটা শেভিং ক্রিমের ব্যান্ড নেম!’ আরেকদিন ছেলের মা টার্কি রেডি করতে যেয়ে কি একটা ভুল করে ফেলে বলল ‘Fuck!’ ছেলে জানতে চাইলে বলল ‘এটার মানে টার্কি রেডি করা!’

বাচ্চাদের সাথে মিথ্যা বলার সমস্যাটা টের পাওয়া গেল মাসখানেক পরে। একদিন বাসায় এক মহিলা তার হাসবেন্ডকে নিয়ে যখন এসে ছেলেটার কাছে জানতে চাইল তার বাবা মা কোথায়, ছেলেটা উত্তর দিল, “ডিয়ার Whore আর Pimp, আপনারা প্লিজ আপনাদের বুবস আর ডিকি এই হ্যাঙ্গারে রাখুন। আমার বাবা মুখ থেকে শিট ধুয়ে ধুয়ে পরিস্কার করছে আর মা উপরতলায় একটা টার্কি-কে খুবই দ্রুততার সাথে Fuck করছে!”

 

১২৫)

অরিত্র বাবু কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে গেছেন প্রাকৃতিক অপূর্ব সৌন্দর্য উপভোগ করতে। সমুদ্রের কাছে গিয়ে নামতে ইচ্ছে হলো পানিতে। ড্রেস শর্ট করে সমুদ্রে নামতে যাবেন, কাছেই ২/৩ জন ষোড়শীর শর্ট ড্রেস দেখে অরিত্র বাবুর শরীরে ঘাম দেখা দিলো। তিনি একটু বেশিই সেনসেটিভ। দৃশগুলো সইতে পারেন না। আর তাই শর্টপ্যান্টের সামন দিক উঁচু হতে থাকলো। ভয়, লজ্জা আর হীনমন্যতা নিয়ে এদিক সেদিক তাকালেন  কেউ দেখছে না তো? সামনে পেছনে ডানে বামে দেখতে গিয়ে ডানে দেখলেন এক পিচ্চি মেয়ে চোখ বড় বড় করে অরিত্র বাবুর দেহের বিশেষ দিকে তাকিয়ে আছে। পুচকা মেয়েটি হয়তো বুঝতে পারছে না কেন ওখানটা উঠানামা করছে।

মহা ফ্যাসাদে অরিত্র বাবু।

তিনি স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করলেন একটু কুঁজো হয়ে দাঁড়িয়ে।সেয়ানা পিচ্চিটি অরিত্র বাবুর আর একটু সামনে এগিয়ে এলো।

আংকেল, এটা কী?

পাখি… যাও যাও ডিস্টার্ব করোনা!

পিচ্চিটি গেলো না। তবে অরিত্র বাবুর তাড়া খেয়ে অদূরে দাঁড়িয়ে রইলো। অরিত্র বাবুর মাথায় একটা বুদ্ধি খেলে গেলো। তিনি পানিতে দ্রুত ঝাপিয়ে পড়লেন। ঝাপাঝাপি করে এসে সৈকতে শুয়ে পড়লেন। বিকালের সোনালী রোদ গায়ে লেগে একটা আরাম আরাম ভাব চলে এলো। কখন যে অরিত্র বাবু ঘুমিয়ে পড়েছেন, খেয়ালই করেন নি।

ঘুম ভেঙে দেখেন তিনি হাসপাতালে।

ঘটনা কী?

অন্য সবাইও জানতে চাইলেন ঘটনা কী?

অরিত্র বাবু ফ্যাল ফ্যাল করে এদিক ওদিক তাকাতে গিয়ে হঠাৎ অনুভব করলেন উনার বিষেশ অঙ্গে ব্যান্ডেজ।

খাইছে!

ডাক্তারের প্রশ্নে অরিত্র বাবু জানালেন, কিছুই জানি না। তবে শেষ মনে পরে সৈকতে একটা পিচ্চি মেয়ে আমার চারপাশে ঘুর ঘুর করছিলো। ডাক্তার লোক পাঠালেন পিচ্চিকে ধরে আনার জন্য। পিচ্চি এসে বলে, আংকেল ঘুমিয়ে যাবার পর আমি আংকেলের পাখি আর পাখির দুইটা ডিম নিয়া খেলতে ছিলাম। হঠাৎ দেখি পাখি রাগে ফুইসা উঠছে। তাই আমি ধাক্কা দিছি। অমনি পাখি আমারে থুতু দিছে, আর তাই আমিও পাখির ডিম ভাঙার জন্য ইটের টুকরা দিয়া মারছি!

 

১২৬)

একজন স্ট্রীট ম্যাজিশিয়ান ম্যাজিক দেখাচ্ছেন কোন এক আবাসিক এলাকার এক রাস্তার উপরে। সবাই সাগ্রহে তাকে ঘিরে আছে। মূল আকর্ষণ হচ্ছে নাকি তার ম্যাজিক স্পেল আউড়ানোর সাথে সাথে কোথাও নাকি কিছু দাঁড়িয়ে যাবে আর সবাই মিলে যদি ফুঁ দেয় তবে তা বসে পড়বে।

প্রথম বারঃ হ্রিঙ্গা ত্রিঙ্গা ছট্টে… সামনে দাঁড়িয়ে থাকা বাচ্চাটির পকেট থেকে পেন্সিলটি উঠে দাঁড়িয়ে গেলো। সবাই মিলে একযোগে ফুঁ… বসে পড়লো পেন্সিলটি তার জায়গায়।

দ্বিতীয় বারঃ ম্যাজিশিয়ানের মন্ত্র… মাঝখানে দাঁড়িয়ে থাকা একজন ভদ্রমহিলার মাথা থেকে তার হেয়ার পিনটি উঠে দাঁড়ালো। সবাই আবারো ফুঁ… বসে পড়লো হেয়ার পিন।

শেষ বারঃ মন্ত্র পড়া শেষ… সবাই ফুঁ দেবার অপেক্ষায়… কিন্তু কেউ বুঝতে পারছে না কোথায় কি দাঁড়ালো…!! আকস্মিক ভাবেই পাশের এক বাড়ীর দরজা খুলে একজন ৮৫ বছরের বৃদ্ধ বেরিয়ে এসে হাঁক ছাড়লেন, “এই পাঁজির দল, নচ্ছার গুলো, খবর্দার বলে দিচ্ছি, কেউ কিন্তু ফুঁ দিবি না হতচ্ছাড়ারা”…!!

 

১২৭)

মিস মিলি ঠিক করল, ১৯ বছর বয়সেই তাকে কোটিপতি হতে হবে। কাজেই এক কোটিপতি ৯০ বছরের বুড়োকে বিয়ে করে বসলো সে। তার মতলব খুব পরিষ্কার, বুড়োকে এমন প্রেম ভালোবাসা উপহার দেবে সে, যাতে ব্যাটা হার্টফেল করে মরে। তারপর ব্যাটার সব সম্পত্তি উত্তরাধিকার সূত্রে হাতিয়ে নেবে সে। বাসর রাতে বুড়ো এসে হাজির। কিন্তু জামাকাপড় খোলার পর দ্যাখা গেল, বুড়ো হলেও সে যথেষ্ঠ সক্ষম এখনও। বুড়ো বর ড্রয়ার থেকে কন্ডম আর দু’জোড়া ছিপি বার করে এগিয়ে এলো মিলির দিকে। মিলি ভয়ে ভয়ে জিজ্ঞেস করল, “ওগুলো কিসের জন্য?”

বুড়ো প্যাকেটখানা খুলতে খুলতে বলল, “দ্যাখো এ ব্যাপারে দুটো জিনিস আমার একদম পছন্দ নয়। এক হচ্ছে, মেয়েরা যে চিৎকারটা করে, সেটা।” এই বলে সে একজোড়া ছিপি কানে গুঁজল। তারপর দ্বিতীয় জোড়া ছিপি নাকে গুঁজতে গুঁজতে বলল, “আর দ্বিতীয়ত, কন্ডম পোড়া গন্ধটাও আমার আদৌ পছন্দ নয়।”

 

১২৮)

হলিউডের একজন উঁচুদরের অভিনেতা তার অভিনীত একটা ছবি দেখার জন্য স্ত্রীকে সিনেমা হলে গিয়ে ছবি দেখার জন্য বসলেন । সিনেমার মাঝামাঝি জায়গায় নায়ক নায়িকার চুমু খাওয়ার একটা দৃশ্য দেখে অভিনেতার স্ত্রী অভিযোগ করলেন যে, আমি এতদিন তোমার সঙ্গে বিবাহিত জীবন যাপন করছি, অথচ কখনো আমাকে তুমি অমন করে চুমো খাওনি। অভিনেতা বললেন, তুমি যদি জানতে যে এই একটি চুমু খাওয়ার জন্য তারা আমায় কত টাকা পারিশ্রমিক দিয়েছে তাহলে আর অমন অভিযোগ করতে না।

 

১২৯)

এক খামার মালিক শখ করে একটা জেব্রা কিনে এনেছে আফ্রিকা থেকে।

এক ভোরে জেব্রাটা বেরিয়ে এলো তার আস্তাবল থেকে। খামারের ভেতরে ঘুরতে লাগলো সে, আর ভাবতে লাগলো, এখানে তার কাজ কী হতে পারে।

প্রথমে তার দেখা হলো একটা মুরগির সাথে। সুপ্রভাত। বললো জেব্রা। তুমি এখানে কী করো? মুরগি জবাব দিলো, সুপ্রভাত। আমি আমাদের মালিকের খাবারের জন্যে ডিম পাড়ি।

এরপর তার দেখা হলো একটা গরুর সাথে। সুপ্রভাত। বললো জেব্রা। তুমি এখানে কী করো? গরু জবাব দিলো, সুপ্রভাত। আমি আমাদের মালিকের খাবারের জন্যে দুধ দিই।

তার দেখা হলো একটা ছাগলের সাথে। সুপ্রভাত। বললো জেব্রা। তুমি এখানে কী করো? ছাগল জবাব দিলো, সুপ্রভাত। মালিক আমাকে মেরে আমার মাংস খায়।

জেব্রা কিছুটা ঘাবড়ে গিয়ে সামনে এগোলো।

এবার তার দেখা হলো একটা ষাঁড়ের। সুপ্রভাত। বললো জেব্রা। তুমি এখানে কী করো?

ষাঁড় জেব্রাকে আপাদমস্তক দেখে মুচকি হেসে জবাব দিলো, সুপ্রভাত। তুমি তোমার পাজামাটা খোলো, আমি তোমাকে দেখাচ্ছি আমি এখানে কী করি।

 

১৩০)

ফরেনসিক মেডিসিন এর ক্লাসে প্রফেসর নতুন ছাত্রদের ক্লাস নিচ্ছেন।

“ফরেনসিক মেডিসিন পড়তে তোমাদের দুইটা জিনিসের দিকে ভালো খেয়াল রাখতে হবে। প্রথমত, তোমাদের কারো কোনো রকম শুচিবাই বা ঘৃণা থাকতে পারবেনা …” এই বলে তিনি তার সামনে রাখা মৃতদেহের পাছার ভিতরে আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিলেন এবং তা চুষতে লাগলেন। “সুতরাং, তোমরাও তা কর” তিনি সবাইকে নির্দেশ দিলেন ।

পুরো ক্লাসরুম তো থ !!!!!! কি আর করা, সবাই প্রফেসর এর কথামত আঙ্গুল ঢুকিয়ে চুষতে শুরু করলো।

“দ্বিতীয় জিনিসটি হলো, তীক্ষ্ণ নজর থাকতে হবে তোমাদের” বললেন প্রফেসর, “তোমাদের মাঝে কয় জন খেয়াল করেছ যে আমি লাশটির পাছায় তর্জনী ঢুকিয়েছি, কিন্তু চুষেছি আমার মধ্যম আঙ্গুল ???”

 

১৩১)

বাচ্চাদের স্কুলের টিচার মিস তানিয়া একদিন ছুটির পর ছোট্ট বাবুকে দাঁড় করালেন।

‘এক মিনিট দাঁড়াও ছোট্ট বাবু।’ চশমার ওপর দিয়ে চাইলেন তিনি। ‘তোমার হোমওয়র্ক তো খুব খারাপ হচ্ছে ক’দিন ধরে। তোমার কি কোন সমস্যা হচ্ছে?’

ছোট্ট বাবু মাথা ঝোঁকালো। ‘জ্বি টিচার। আমি প্রেমে পড়েছি।’ মিস তানিয়া মিষ্টি হাসলেন। ‘কার প্রেমে পড়েছো?’

‘আপনার, মিস তানিয়া। আমি আপনাকে বিয়ে করতে চাই।’

‘কিন্তু ছোট্ট বাবু,’ নরম গলায় বললেন মিস তানিয়া, ‘ভেবে দ্যাখো ব্যাপারটা কেমন বোকাটে হবে? নিশ্চয়ই আমি একদিন কাউকে স্বামী হিসেবে চাইবো … কিন্তু আমি তো কোন বাচ্চা চাই না।’

‘ভয় পাবেন না মিস।’ আশ্বাস দিলো বাবু। ‘সেক্ষেত্রে আমি প্রটেকশন ব্যবহার করবো।’

 

১৩২)

এক ব্যারাকে , এক সৈনিক বাজি ধরার জন্য বিখ্যাত হয়ে গেল রাতারাতি। কারণ তারে কেউ বাজিতে হারাতে পারেনা। তাই দেখে আরেক সৈনিক ব্যরাকের দায়িত্বে থাকা ক্যাপ্টেন কে জানালো ঘটনা।

ক্যাপ্টেন কি করবে না বুঝে জানালো তার বস্‌ মেজর কে। সব শুনে মেজর বললো, আচ্ছা, ডাকো তাকে, দেখায় দেই কেমন করে হারাতে হয় বাজিতে। তো সেই বাজিকর সৈনিকের ডাক পড়লো মেজরের চেম্বারে। বাজিকর সৈনিক মেজরের চেম্বারে ঢুকেই স্যলুট দিয়ে বলে ” স্যার আপনার পাইলস্‌ আছে।”

মেজরঃ কে বললো পাইলস্‌ আছে?

বাজিকর সৈনিকঃ স্যার বাজি ধরেন , না থাকলে।

মেজরঃ ও কে, ৫০০ টাকা বাজি। প্রমাণ করো।

প্রমান করার জন্য মেজর প্যান্ট খুলে তার পশ্চাদ্দেশ দেখালো, বাজিকর সৈনিক পশ্চদ্দেশের ভিতর আঙ্গুল ঢুকিয়ে, তারপর বের করে এনে বললো, না স্যার, পাইলস নাই, আমি হেরে গেলাম”

মেজর কে ৫০০ টাকা দিয়ে সৈনিক বের হয়ে এল চেম্বার থেকে।

মেজর পরে ফোন করে ক্যাপ্টেন কে বলে, “কই, ও তো আমার কাছে বাজি তে ৫০০ টাকা হেরে গেল।”

ক্যাপ্টেনঃ “স্যার, ও যাবার আগে আমার সাথে বাজি ধরে গেছে, আপনার পাছায় আঙ্গুল দিতে পারলে ও ৫০,০০০ টাকা জিতবে। এখন তো আমারে সেই টাকা দেয়া লাগবে”

 

১৩৩)

কিন্ডারগার্টেনে তরুনী টিচার ক্লাসে খেয়াল করলেন যে এক ছাত্র বেশ অমনোযোগী। তাকে দাড় করিয়ে জিজ্ঞেস করলেন, “ বলো একটি ডালে তিনটি পাখি বসে আছে। তুমি একটি বন্দুক দিয়ে একটি পাখিকে গুলি করলে সেখানে আর কয়টি পাখি থাকবে?”

ছাত্রঃ একটিও না।

ম্যাডামঃ কেন?

ছাত্রঃ ম্যাডাম আমি যদি বন্দুক দিয়ে গুলি করি তাহলে গুলির শব্দে সবগুলো পাখি উড়ে যাবে।

ম্যাডামঃ তুমি যেভাবে চিন্তা করেছো তা আমার পছন্দ হয়েছে। কিন্তু সঠিক উত্তর হবে আর দুইটি পাখি থাকবে।

ছাত্রঃ আচ্ছা ম্যাডাম একটি আইস্ক্রীম পারলার থেকে তিনজন যুবতী হাতে আইস্ক্রীম নিয়ে বের হল। তাদের একজন হাল্কা কামড় দিয়ে দিয়ে আইস্ক্রীম খাচ্ছিল। আর একজন চেটে চেটে খাচ্ছিল। আর শেষজন পুরো আইস্ক্রীম মুখে পুরে চুষছিলো। বলুন দেখি তাদের মধ্যে কে বিবাহিত?

ম্যাডাম কিঞ্চিত বিব্রত হয়ে বললেন, যে পুরো আইস্ক্রীম মুখে পুরে চুষছিলো সেই বিবাহিত।

ছাত্রঃ আপনি যেভাবে চিন্তা করেছেন তা আমার পছন্দ হয়েছে। কিন্তু সঠিক উত্তর হবে যার হাতে ওয়েডিং রিং ছিল সেই বিবাহিত।

 

১৩৪)

মুখোশ পার্টিতে যাবে রোমেল আর তার বউ। রোমেলের বউ শেষ মিনিটে বললো, সে যাবে না, তার মাথা ধরেছে। রোমেল একটা স্পাইডারম্যানের মুখোশ পরে বেরিয়ে গেলো একাই। ঘন্টাখানেক পর রোমেলের বউ যাওয়ার মত পাল্টে একটা মুখোশ পরে নিয়ে পার্টিতে গেলো, একা একা রোমেল কী করে বেড়ায় দেখতে।

পার্টিতে গিয়ে সে দেখলো স্পাইডারম্যানের মুখোশের চারপাশে অনেক মহিলা, জমিয়ে আড্ডা মারছে রোমেল। চটে মটে রোমেলের বউও সেই ভিড়ে গিয়ে জুটলো, তারপর এক এক করে মহিলাকে হটিয়ে দিয়ে রোমেলকে দখল করলো সে। নির্জনে রোমেল তার কানে কানে কুপ্রস্তাব দিলো। মনে মনে চটে গিয়ে রাজি হলো রোমেলের বউ। ঘন্টাখানেক আদরসোহাগের পর রোমেলকে পার্টিতে রেখেই বাড়িতে ফিরে এলো সে। গভীর রাতে ক্লান্ত রোমেল বাড়িতে ফিরলো। তার বউ চিবিয়ে চিবিয়ে জানতে চাইলো, পার্টি কেমন হয়েছে। রোমেল বললো, ‘আরে ধ্যুৎ, খুব বোরিং। আমি আর আমার কয়েকজন বন্ধু কোণার ঘরে বসে তাস খেলেছি।’

‘তাই? কোন মজা হয়নি পার্টিতে?’

‘একদম না। তবে যে ব্যাটাকে আমার মুখোশটা ধার দিয়েছিলাম, ঐ শালা খুব মজা লুটেছে।’

 

১৩৫)

আরব মুল্লুকে বেড়াতে গেছে তিন ট্যুরিস্ট।

মরুভূমিতে পথ হারিয়ে দিন তিনেক ঘোরাঘুরি পর একদিন এক মরূদ্যানের সামনে হাজির হলো তারা। সেখানে শুধু মেয়ে আর মেয়ে, সবাই স্বল্পবসনা এবং সুন্দরী। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই গোবদাগাবদা চেহারার কয়েকজন মহিলা এসে তাদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে গেলো আলিশান এক প্রাসাদের ভেতর। সেখানে জোব্বাপরা এক আরব শেখ বসে গড়গড়ায় তামাক খাচ্ছে, তাকে ঘিরে আছে অপরূপ সুন্দরী কিছু যুবতী।

গড়গড়া নামিয়ে শেখ বললো, ‘আমি শেখ অমুক। এটা আমার মুল্লুক, এখানে যারা ভুল করে ঢুকে পড়ে, তাদের আমি কঠিন শাস্তি দিই।’ প্রথমজনকে জিজ্ঞেস করলো সে, ‘বলো, কী করো তুমি?’

প্রথম ট্যুরিস্ট জবাব দিলো, ‘আমি একজন পুলিশ।’

শেখ হাততালি দিলো। দুই রূপসী সামনে এসে দাঁড়ালো। শেখ হুকুম করলো, ‘যাও, এর যন্ত্রটাকে গুলি করে ঝাঁঝরা করে দাও।’ তারপর দ্বিতীয়জনকে জিজ্ঞেস করলো সে, ‘বলো, তুমি কী করো?’

দ্বিতীয় ট্যুরিস্ট জবাব দিলো, ‘আমি একজন দমকলকর্মী।’

শেখ হাততালি দিলো। আরো দুই রূপসী সামনে এসে দাঁড়ালো। শেখ হুকুম করলো, ‘যাও, এর যন্ত্রটাকে পুড়িয়ে ছাই করে দাও।’ তারপর শেষজনকে জিজ্ঞেস করলো সে, ‘বলো, কী করো তুমি?’

শেষ ট্যুরিস্ট দাঁত বের করে জবাব দিলো, ‘আমি একজন ললিপপ বিক্রেতা।

 

১৩৬)

আরাম সাহেবের বউ খুব গোপনে হাসপাতালের ইমারজেন্সীতে গাইনোকোলজিস্টের সাথে দেখা করতে চাইলেন। গাইনোকোলজিস্ট এসে জিজ্ঞেস করতেই, তিনি খুব লজ্জিতভাবে বললেন, তার ভাইব্রেটরটা গোপনাঙ্গের ভেতরে পুরোপুরি ঢুকে আটকে গেছে। ডাক্তার সব দেখে বললেন, এটা বের করতে খুব লম্বা এবং বিপদজনক অপারেশন করতে হবে। অপারেশনের টাকা তিনি দিতে পারবেন কিনা। মিসেস আরাম আরও লজ্জিতভাবে বললেন, হ্যাঁ পারবেন। কিন্তু তিনি সেই অপারেশন আপাতত করতে চাননা। বরঞ্চ ডাক্তার সাহেব যদি কষ্ট করে, ব্যাটারীটা একটু পালটে দিতেন…

 

১৩৭)

দবির আর সাবেত অনেক দিন থেকেই এক সাঠে গলফ খেলে, অনেক দিন পরে দবিরের মনে হইল সাবেত আসলে কি কাম করে?

দবিরঃ কাজ কাম কি করেন ভাই?

সাবেতঃ আমি আসলে একজন হিটম্যান, ভাড়ায় কাম করি, প্রতি হিট ১০,০০০ টাকা। মানে প্রতি বুলেট ১০,০০০ টাকা আর আমার বুলেট মিস হয় না।

দবির মনে মনে ভাবে আরে শালা! আমি তো এমনই একজন লোক খুজতাছি! এইবার বিবির জান শেষ!

দবিরঃ দোস্ত আমার একটা কাম কইরা দিবা? না না দুইটা!!?

সাবেতঃ আরে তুমি মাল দিবা আর আমি কাম করুম না! দুইটার জন্য ২০,০০০ টাকা লাগবো।

দবিরঃ ঠিক আছে তুমি আমার বিবির মুখের মধ্যে একটা গুলি করবা, শালী খালি আমার লগে চিল্লায়, খালি প্যান প্যান করে।

আর এক কুত্তার বাচ্চা আছে ওর বয় ফ্রেন্ড, ওর অই জায়গাতে একটা গুলি করে ঐটা উরায় দিবা, ঐযে মাঠের পাশেই আমার বাসা।

সাবেত তার গলফ ব্যাগ থাইকা টেলিস্কোপিক রেমিংটন পয়েন্ট ২২ রাইফেলটা বাইর কইরা অনেকক্ষন লাগাইয়া দেইখা কইল “আমি তোমার পয়সা বাঁচায়া দেই। গূল্লি একটা লাগবো”

 

১৩৮)

একটি লোকের স্ত্রী অন্তসত্তা। হাজবেন্ড ওয়াইফ দু‘জন মিলে সিদ্ধান্ত নিতে পারছেনা যে তাদের সন্তানের নাম কি হবে। এটা সবার ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে। অনেক তর্ক বিতের্কর পর স্ত্রী তার স্বামীকে বলল, “তুমি বাবার কাছে যাও। তাকে জিজ্ঞেস করে আসো যে বাচ্চাদের নাম কি করে রাখতে হয়”। স্বামীটি তৎক্ষনাৎ তার বাবা কাছে গেলে এবং বাচ্চাদের নাম কি করে রাখতে হয় তা জিজ্ঞেস করলো। বাবা মুচকী হেসে একটু নস্টালজিক হয়ে গেলেন। আনমনা ভাবে মৃত স্ত্রীর ছবির দিকে তাকিয়ে বললেন, তোর বড় ভাইয়া যখন তোর মার পেটে এলো তখন আমার পোস্টিং হিলে, চারদিকে পাহাড় আর পাহাড়। পাহাড়ের বুকে জন্মালো তাই ওর নাম রাখলাম “হিমালয়”। তোর মেঝো আপা যখন হলো তখন আমরা নৌ-বিহারে ছিলাম তাই ওর নাম রেখেছিলাম “নদী”। এসব জেনে তুই কি করবি “ফুটো কন্ডোম”

 

১৩৯)

জর্জ আর জেনী খুব ভাল বন্ধু। এরা দুই জন দুই শহরে কাজ করে। একজনের ছুটি শনিবার আরেকজনের রবিবার। ফলে দুই জনের এক সাথে দেখা হওয়া খুব দুস্কর। এবার পহেলা মে তে দুই জনের এক সাথে ছুটি। জর্জ তার গাড়ী নিয়ে জেনীকে আনতে চলে গেল। গাড়ীতে দুইজনের মনে ভালবাসার উদয় হল। যেহেতু মাত্র একদিনের ছুটি তাই তারা ঠিক করল এক মুহূর্তও নষ্ট করা ঠিক হবে না। কিছু অন্তরঙ্গ মুহূর্ত কাটানো যাক। কিন্তু গাড়ীটা ছিল খুবই ছোট। দুই জনে মিলে ঠিক করল গাড়ীর নীচের ফাঁকা জায়গায় ঢুকে পড়া যাক। নীচে বেশ জায়গা আছে আর কেউ বিরক্ত ও করবে না।

অনেকক্ষণ পর জর্জের খেয়াল হল কে যেন তাকে ডাকছে। লোকটি ছিল ট্রাফিক সার্জেন্ট।

লোকটি বলছে- ভাই আপনি কি করছেন।

জর্জ তার দিকে না তাকিয়েই উত্তর দেয়-গাড়ী ঠিক করছি।

সার্জেন্ট কিছুক্ষণ কি যেন চিন্তা করেন। তারপর গম্ভীর মুখে বলে উঠেন-দুই টা কারণে আমি আপনার কথা বিশ্বাস করতে পারছি না। প্রথমত গাড়ী ঠিক করতে হলে আপনাকে চিৎ হযে থাকতে হবে। কিন্তু আপনি উপুর হয়ে আছেন।

দ্বিতীয়ত আমি এখানে কোন গাড়ী দেখতে পাচ্ছি না। খুব সম্ভবত আপনাদের গাড়ীটি চুরি হয়ে গেছে।

 

১৪০)

স্বামী বেশ কয়দিন ধরে কোমায়। বউ বেচারা সারাক্ষণ স্বামীর বিছানার পাশে আহার-নিদ্রাহীন জীবনযাপন করছেন। হঠাৎ স্বামী কোমা থেকে ফিরে আসলেন। ডাক্তাররা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর বউকে স্বামীর কাছে যেতে দিলেন। স্বামী পরম আবেগে সজল চক্ষে স্ত্রীর হাত ধরে বললেনঃ ওগো, আমি আজ বুঝতে পেরেছি আমার কেন এই অবস্থা! তুমি সারাটা জীবন আমার দুঃখের সময়ে পাশে থেকেছ। যখন আমার চাকরী চলে গেল, তুমি পাশে ছিলে। আমার যখন ব্যবসায় বিশাল লোকসান হল, তুমি পাশে ছিলে। যখন আমাদের বাড়িটাও ব্যাংক নিলামে উঠাল, সেখানেও তুমি ছিলে আমাকে সান্ত্বনা দেয়ার জন্য। যখন ডাকাতরা আমায় গুলি করল, তুমি ছিলে আমার সেবা করার জন্য। আমার এমন কোন দুঃসময় নেই যখন তুমি আমার সাথে ছিলেনা।

স্বামীর এমন আবেগী কথায় স্ত্রীর চোখ বেয়ে জলের ধারা নামে। স্ত্রী বলেঃ ওগো এমন করে বলোনা, আমিতো তোমার পাশেই থাকব…তুমি ছাড়া আমার আর কে আছে!

স্বামীঃ হুমম! সেজন্যেই বুঝেছি…তুমিই আমার ব্যাড লাক!

 

১৪১)

ডেন্টিস্টের সাথে ইলিয়াস সাহেবের বউয়ের ভীষণ মাখামাখি চলছে। প্রায় প্রতি সপ্তাহেই মিসেস ইলিয়াস ডেন্টিস্টের চেম্বারে গিয়ে শারীরিক চাহিদা মিটিয়ে আসেন। একপর্যায়ে মিসেস ইলিয়াস আবগের আতিশয্যে বললেন, ওগো আমার প্রেমিক, আমি প্রতিদিনই তোমার কাছে আসতে চাই। ডাক্তার বললেন, হ্যাঁগো আমিও তোমায় চাই। কিন্তু তুমি যদি আর এখানে আস ইলিয়াস তো বুঝে ফেলবে।

মিসেস ইলিয়াস বললেন, আরে না…ব্যাটা গর্দভ একটা। এইযে দেখ এতবার তোমার কাছে এলাম, কিছুই বোঝেনি। ডাক্তার বললেন, কিন্তু হানি, তুমি আর আসবে কিভাবে, প্রতিদিন তোমার একটা করে দাঁত তুলতে তুলতে আজকে শেষ দাঁতটাও তুলে ফেললাম!

 

১৪২)

মিলিটারিদের সাহস পরীক্ষা করছে তাদের প্রধান। এক মিলিটারিকে দুরে দাঁড় করিয়ে রেখে মাথায় লেবু রেখে বন্দুক দিয়ে সেই লেবুটিকে গুলি করল। মিলিটারিটি একদম নড়ল না। লেবুটি ফেঁটে গিয়ে তার শার্টটিকে নষ্ট করে দিল।

তাদের প্রধান তাকে ৫০ টাকা দিয়ে বলছে- ‘সাবাস, এই টাকা দিয়ে সাবান কিনে শার্টটি ধুঁয়ে নিও’।

মিলিটারিটি বলল – ‘তাহলে আরোও ৫০ টাকা দিন, প্যান্টটিও ধুঁতে হবে।

 

১৪৩)

হাসপাতালে এক মেয়ের বাচ্চা হয়েছে। বাচ্চাকে মা থেকে পৃথক রুমে রেখে নার্স তাকে খবর দিলো, “আপনার ছেলে হয়েছে। আপনার স্বামীকে দেখছিনা যে?”

মেয়ে, “ইয়ে মানে, আমার বিয়ে হয় নি।”

নার্স, “তাহলে আপনার বয়ফেন্ড/পার্টনার কোথায়?”

মেয়ে, “আমি একা।”

নার্স, “ও আচ্ছা। আপনার ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে কথা বলার জন্য দুঃখিত। কিন্তু আপনার জানা জরুরী যে আপনার ছেলেটি কিন্তু কালো হয়েছে!”

মেয়ে, “আসলে হয়েছে কি জানেন, গত বছর আমি খুব টাকার অভাবে ছিলাম। টিউশন ফি দিতে পরছিলাম না। তাই বাধ্য হয়ে একটি পর্ন মুভিতে কাজ করতে হয়েছিলো! আর ওখানে এক নিগ্রো ছিল!”

নার্স, “আমি আসলেই দুঃখিতো। আপনার মতো অবস্থায় পড়লে যে কেউ এই কাজ করতো। আরেকটি কথা হলো আপনার ছেলেটি ব্লন্ড চুল পেয়েছে!”

মেয়ে, “না মানে ঐ মুভিতে এক সুইডিস লোকও ছিলো!”

নার্স, “ও! আমি দুঃখিত যে আমার জন্য আপনাকে ঐ সব স্মৃতি মনে করতে হচ্ছে। তবে আপনার ছেলের চোখ কিন্তু খুব ছোট ছোট!”

মেয়ে, “ইয়ে মানে ওখানে একজন জাপানি লোকও ছিলো! আপনার কি আরো কিছু বলার আছে?”

নার্স, “না না আর কিছু না!”

মেয়ে, “আমি কি আমার ছেলেকে দেখতে পারি?”

নার্স, “জি অবশ্যই পারেন। আমি নিয়ে আসছি।”

নার্স ছেলেটিকে এনে মেয়েটির কোলে দিলো। মেয়েটি বাচ্চা টিকে কোলে নিয়েই গালে জোরে একটা চড় বসিয়ে দিলো এবং বাচ্চাটি চড় খেয়ে জোরে কেঁদে উঠলো!

নার্স হতবম্ভ হয়ে ছেলেটিকে মেয়ের কাছ থেকে নিয়ে নিলো এবং বললো, “এ আপনি কি করছেন?”

মেয়েটি তখন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে বললো, “উফফ! বাঁচা গেলো! আমি তো ভেবেছিলাম কুকুরের মতো ঘেউ ঘেউ করে উঠবে!!”

 

১৪৪)

অনেক আগে একবার পোপ হুকুম দিলেন, ইহুদিদের রোম ছেড়ে চলে যেতে হবে। ইহুদিরা আদেশ শুনে বিক্ষোভে ফেটে পড়ল। অবস্থা যখন খারাপের দিকে, তখন পোপ বললেন, ‘ঠিক আছে, ওদের একটা সুযোগ দেওয়া যেতে পারে। আমার সঙ্গে তাদের কোনও প্রতিনিধি ধর্ম নিয়ে বিতর্ক করুক। যদি আমি হেরে যাই, ইহুদিরা থাকতে পারবে। আর যদি আমি জিতে যাই, ব্যাটাদের পেঁদিয়ে বিদায় করা হবে।’

ইহুদিরা এ প্রস্তাবে রাজি হয়ে তাদের এক প্রবীণ র‌্যাবাই, মি. মোশেকে নির্বাচন করল বিতার্কিক হিশেবে। কিন্তু ঝামেলা হল, মোশে ল্যাটিন জানেন না, আর পোপ ইড্ডিশ বলতে পারেন না। কাজেই নির্বাক বিতর্ক করাই স্থির হল।নির্দিষ্ট দিনে দুজন মুখোমুখি বসলেন।

পোপ প্রথমে স্থির দৃষ্টিতে মোশের দিকে তাকিয়ে হঠাৎ তিনটি আঙুল তুলে দেখালেন। জবাবে মোশে খানিক ভেবে মধ্যমা তুলে পোপকে দেখালেন।

পোপ থতমত খেয়ে খানিক চিন্তা করে আঙুল তুলে মাথার চারপাশে ঘোরালেন। জবাবে মোশে একটা আঙুল তুলে দুজনের মাঝখানে মাটির দিকে ইঙ্গিত করলেন।

পোপ বিব্রত হয়ে এবার পবিত্র রুটি আর মদের বোতল বের করলেন। জবাবে মোশে হাসিমুখে বের করলেন একটি আপেল।

পোপ উঠে দাঁড়িয়ে বললেন, ‘আমি হার স্বীকার করছি।’

সবাই পোপকে ঘিরে ধরল, ‘কী হল, মহামান্য পোপ? আমরা তো কিছুই বুঝতে পারলাম না!’

পোপ বললেন, ‘আমি প্রথমে পবিত্র ত্রিত্বর প্রতীক হিশেবে তিনটি আঙুল তুলে দেখালাম। তখন এই র‌্যাবাই একটি আঙুল তুলে দেখাতে চাইল যে অন্তত একক ঈশ্বরের প্রশ্নে খ্রিস্টান-ইহুদি একমত। তারপর আমি একটা আঙুল মাথার চারপাশে ঘুরিয়ে বলতে চাইলাম যে ঈশ্বর সর্বময়। জবাবে ইহুদি ব্যাটা আমাদের মাঝে আঙুল দেখিয়ে বলল, তিনি এই বিতর্কের স্থানেও আছেন। আমি তখন এই পবিত্র রুটি আর মদ বের করে বলতে চাইলাম যে ঈশ্বর আমাদের পাপ স্খালনের সুযোগ দেন। তখন ব্যাটা ফাজিল আপেল বের মনে করিয়ে দিল, আদমের সেই আদিম পাপের কথা। … তোমরাই বল, এর সঙ্গে তর্ক চালিয়ে যাওয়া যায়? সবকিছুর জন্যেই ওর কাছে জবাব আছে, তাই আরও নাকাল হওয়ার আগেই হার স্বীকার করে নিলাম।’

ওদিকে উল্লসিত ইহুদিরা ধরল মোশেকে। ‘কী হল? আমরা তো কিছুই বুঝলাম না … !’

মোশে বলল, ‘আমিও না। … প্রথমে ব্যাটা কিছুক্ষণ জুলজুল করে আমার দিকে তাকিয়ে থেকে ফট করে তিনটা আঙুল তুলে দেখাল, মানে হচ্ছে ইহুদিদের চলে যাওয়ার জন্যে তিনদিন সময় দিচ্ছে সে। আমার মেজাজ গেল খারাপ হয়ে, একটা আঙুল তুলে দেখালাম, যে তিনদিন সময় তোমার ইয়ে দিয়ে প্রবেশ করানো হবে। এরপর ব্যাটা আবার মাথার ওপর আঙুল তুলে ঘুরিয়ে বলতে চাইল, এই শহরের সব ইহুদিকে চলে যেতে হবে। তখন আমি মাটি দেখিয়ে বললাম, এইখানে, জনাব পোপ, আমরা এইখানে থাকব!’

‘তারপর?’

‘তারপর কী হল বুঝলাম না, ব্যাটা দুপুরের খাওয়ার বিরতি প্রস্তাব দিল!’

 

১৪৫)

এক বাংলাদেশী, এক ভারতীয় আর একজন পাকিস্তানী ঘুরতে বের হয়েছে আমাজনে।এরা ধরা পড়েছে জংলীদের হাতে। জংলীরা তিনজনকে একটা কুড়েঘরে আটকিয়ে রেখেছে। খুব চমৎকার একটা ফল খেতে দিচ্ছে তাদের। এই ফল খেয়ে তাদের চামড়া খুব মসৃন হয়ে যাচ্ছে। যেন তাদের যৌবন ফিরে আসছে। এরা তিনজনেই খুশী। এই সুখ অবশ্য বেশীদিন সইল না। একদিন সকালে জংলী সর্দার এল। এসে প্রথম ধরেছে পাকি-টাকে।

-তুমি কিভাবে মরতে চাও?

পাকিটা বলল তোমারা যে ফলটা খেতে দাও, সেই রকম মিষ্টি কোন ফল নিয়ে আস যেটা বিষাক্ত। ওটা খেয়েই আমি মরব। তার ইচ্ছা অনুযায়ী লাল একটা ফল নিয়ে আসা হল। পাকিটা “পাকিস্তান জিন্দাবাদ” বলে ফলটা খেয়ে ফেলল। তার এসে গেলো গভীর ঘুম যা আর ভাঙ্গে না। বাংগালী আর ভারতীয় দুইজন এরপর দেখল ভয়াবহ ব্যাপারগুলা।

জংলীরা পাকিটার মাথা আলাদা করে সেটাকে মমি করে রাখল । বাকি শরীরের চামড়া ছাড়াল। এরপর সেটা দিয়ে বানাল ছোট একটা ক্যানু(canoe)। এইসব দেখে ভারতীয় আর বাঙ্গালীর অবস্থা খারাপ। পনের দিন পর জংলী সর্দার আবার এল। এইবার ভারতীয়টার পালা। ভারতীয়টাও “জয় হিন্দ” বলে ফল খেয়ে মারা গেল। তার মাথার মমি করা হল, চামড়াটা দিয়ে বানানো হলো ক্যানু। কিছুদিন পরে বাঙ্গালীর পালা।

তাকে জিজ্ঞেস করা হলো কিভাবে মরবে? সে চাইলো একটা কাটা চামচ। এরপর কাটা চামচটা দিয়ে নিজের শরীরের নানা জায়গায় আঘাত করতে করতে বলল,”হারামজাদা! পারলে এইবার নৌকা বানা”

 

১৪৬)

একদা এক বিবাহিত রমনী হাটতে হাটতে ফাঁদে আটকানো এক ব্যাঙ কে দেখে উদ্ধার করল।ব্যাঙ খুশী হয়ে রমনীকে তিনটা ইচ্ছা প্রকাশ করতে বলল,যা সে পূরন করবে কিন্তু শর্ত হলো রমনীর পুরনকৃত ইচ্ছার চেয়ে ৫ গুন স্বামীকে প্রদান করবে।

রমনী খুশী হয়ে ১ম ইচ্ছা বলল,” আমি বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী মহিলা হতে চাই”

ব্যাঙ,” চিন্তা করে দেখ, তোমার স্বামী কিন্তু তোমার ৫ গুন সুন্দর হবে”

রমনী,” সে আমার স্বামী,আমি তাকে সুন্দর দেখতে চাই”

ব্যাঙ রমনীর স্বামীর প্রতি প্রেম দেখে খুশী হয়ে ১ম ইচ্ছা পূরন করলো।

রমনী এবার তার ২য় ইচ্ছা বলল,” আমি বিশ্বের সবচেয়ে ধনী মহিলা হতে চাই”

ব্যাঙ,” চিন্তা করে দেখ, তোমার স্বামী কিন্তু তোমার ৫ গুন ধনী হবে”

রমনী,” সে আমার স্বামী,তার সম্পদ আমার,আমার সম্পদ তার”

ব্যাঙ খুশী হয়ে ২য় ইচ্ছা পূরন করলো।

রমনী এবার ভেবে-চিন্তে তার ৩য় ইচ্ছা বলল,” আমি চাই আমার মাঝারী ধরনের হার্ট এটাক হোক”

ব্যাঙ অবাক আর কষ্ট পেয়ে বলল,” চিন্তা করে দেখ, তোমার স্বামী কিন্তু মারা যাবে”

রমনী,”তা নিয়ে চিন্তা নাই, আরেকটা পাবো”

 

১৪৭)

এক ব্যাংকার ভদ্রলোকের এক হেবি সুন্দরী মাইয়া আছিল। ব্যাংকার ভাবল, মাইয়াডারে যদি কোন রাজার সাথে বিয়া দিয়া যাইতো, তাইলে টাকার চিন্তা আর থাকতো না।

কিছুদিন পরেই আফ্রিকান নিগরো এক রাজা আইল ব্যাংকারের কাছে, একাউন্ট খোলার জন্য। ব্যাংকার মাইয়ারে ডাইকা রাজার সাথে বেড়াতে পাঠাল, আর মাইয়ারে কইয়া দিল, যেকোন কায়দায় জামাই বানাইতে। মেয়ে তো মোটেই রাজি না, কিন্তু কি আর করা, বাপরে তো অসন্তুস্ট করা যায় না।

বেড়াইতে যাইয়া মাইয়া রাজারে কইল, আমি যার সাথে বিয়া করবো, তারে আমার তিনডা ইচ্ছা পুরোন করা লাগবো।

সাগ্রহে রাজা কইল কি?

নং ১ – ১২৪ ক্যারেট হিরা দিয়া আমারে আংটি দিতে হবে।

এইডা কোন ব্যাপার না, আমার আছে আমি দিব।

নং ২ – আমেরিকায় আমারে ১০০ কামরার একখান বাড়ী বানাইয়া দিতে হবে।

ঐডাও পারুম। আনন্দের সাথে কইয়া ফালাইল, রাজা।

চিন্তায় পড়ে গেল মাইয়া, তাইলে কি করা যায়, এই ব্যাডারেই কি বিয়া করতে হবে?

অনেক ভাইবা চিন্তা মেয়ে বলল, পুরা ১৪ ইঞ্চি থাকন লাগব।

শুনে রাজা রাজা কাঁদতে শুরু করল, অনেক্ষণ পরে কইল, কেটে ১৪ ইঞ্ঝি করতে যদিও কষ্টে বুকটা ফাইটা যাবে, তবুও আমি রাজি!

 

১৪৮)

– ডাক্তার, আমার ছেলের মনে হয় গনোরিয়া হয়েছে। ফোনে এক রোগী তার ডাক্তারকে ফোন করলো। বাড়ির কাজের মেয়ের সাথেই সে একমাত্র আকামটি করেছে।

– ঠিক আছে, ও তো একটা বাচ্চা। ওর সাথে খারাপ আচরণ কোরো না। ডাক্তার বললো। ওকে চেম্বারে নিয়ে এসো। সব ঠিক হয়ে যাবে।

– কিন্তু ডাক্তার। আমিও তো ওই কাজের মেয়ের সাথে উল্টাপাল্টা করেছি। আমারও মনে হয় গনোরিয়া হয়েছে।

– তাহলে তুমিও চলে এসো। দু’জনের চিকিৎসা এক সাথে করে দেই।

– ডাক্তার, আমার স্ত্রীর-ও যে গনোরিয়া আছে।

– শয়তানের বাচ্চা। আগে বলবি না। ডাক্তার চেঁচিয়ে উঠলো। তার মানে আমারও গনোরিয়া হয়েছে।

 

১৪৯)

সি. আই. এ অফিসে নতুন এজেন্ট দরকার। প্রার্থী দুইজন পুরুষ, একজন মহিলা।

এদের নার্ভ কেমন শক্ত তা পরীক্ষা করতে কর্তৃপক্ষ তাদের প্রত্যেককে একটি করে পিস্তল দিল। এদের কাজ হবে পাশের রুমে এদের একজন প্রিয় মানুষ আছে। তাকে গুলি করতে হবে। তবে এদের জানানো হয়নি পিস্তলে আসলে কোন গুলি নেই।

প্রথম প্রাথী রুমে প্রবেশ করে দেখল একটি চেয়ারে হাত মুখ বাধা অবস্থায় তার স্ত্রী। প্রিয় জনকে দেখে তার চোখ দিয়ে পানি পড়তে শুরু করে। গুলি করার বদলে ছুটে গিয়ে সে তার স্ত্রীকে মুক্ত করল । ফলে এই পরীক্ষায় সে ফেল মারল।

দ্বিতীয় প্রার্থীর বেলায়ও একই ব্যাপার ঘটল।

তৃতীয় মহিলা প্রার্থী ভেতরে প্রবেশ করে তার স্বামীকে হাত বাধা অবস্থায় পেল। অনেকক্ষণ পর সেই মেয়ে হাপাতে হাপাতে বেরিয়ে আসল। রেগে মেগে বলতে লাগল আপনারা কি পিস্তল দিয়েছেন গুলিই বের হয় না। শেষ পর্যন্ত পিস্তলের বাট দিয়ে পিটিয়ে আমার স্বামীকে মারতে হয়েছে।

 

১৫০)

রমিজের মেজাজ খুব খারাপ আজকাল। ডান হাতের ব্যথা আর সারেই না। রমিজের বন্ধু জমির বলল, “ডাক্তার দেখায়া কি করবি, অনেক তো দেখাইলি, হুদাই টাকা নষ্ট। সামনের একটা মার্কেট এ ১০ টাকা দিয়া একটা কম্পিউটারে পেশাব সেম্পল দিলে এক্কেবারে ঠিক ডায়াগনোসিস আর ঠিক ওষুধ দিয়া দেয়। আমার লগে ল।”

রমিজ ভাবলো, “ঠিক ই তো!” গেল ওই কম্পিউটারের কাছে। গিয়ে তার পেশাবের সেম্পল দিল। ৫ মিনিট পরে স্লিপ বের হয়ে এলো, যাতে লিখা আছে, “তোমার টেনিস এলবো হয়েছে , প্রতিদিন ডান হাতে গরম সেঁক দিলে ১০ দিনে ঠিক হয়ে যাবে।”

রমিজ তো তাজ্জব! যাই হোক, বাসায় গিয়ে ওই অনুযায়ী সেঁক দিয়ে দেখলো, ব্যথা কমছে।

হঠাৎ রমিজ ভাবল , কম্পিউটাররে তো বোকা বানানো যায়। তাই সে করলো কি, তার বীর্য, কুকুরের মল, তার স্ত্রীর আর তার মেয়ের পেশাব টয়লেটে গিয়ে কালেক্ট করে একটা মিক্সচার বানিয়ে ওই কম্পিউটারে জমা দিল আর অপেক্ষা করতে থাকলো রেসাল্টের জন্য। ৫ মিনিট পর স্লিপ আসল, তাতে লিখা আছে , “তোমার কুকুরের উকুন হয়েছে, এন্টি ফাঙ্গাল ওষুধ খাওয়াও; তোমার মেয়ে আবার প্রেগন্যান্ট, তোমার দারোয়ানকে বের করে দাও;  তোমার বউ গতকাল এবরশন করিয়েছে , বাচ্চাটা তোমার ছিলনা। আর তুমি যদি তোমার ডান হাতে হাত মারা বন্ধ না কর, তবে তোমার টেনিস এলবো কখনই ভালো হবেনা।” ধন্যবাদ।”

 

১৫১)
মানসিক রোগীদের হাসপাতাল।

জুমনের ঘরে ঢুকলো নার্স। জুমন খাটের ওপর শুয়ে হাত দুটো সামনে বাড়িয়ে গুনগুন শব্দ করছে।

“জুমন, কী হচ্ছে এসব?”

জুমন বললো, “আমি গাড়ি চালাচ্ছি, চট্টগ্রাম যাবো।”

পরদিন রাতে নার্স দেখলো, জুমন বসে বসে ঝিমোচ্ছে। “জুমন, কী হচ্ছে এসব?”

“মাত্র পৌঁছালাম চট্টগ্রামে, বিরক্ত কোরো না।” হেঁকে বললো জুমন।

এবার পাশের ঘরে সুমনের ঘরে গেলো নার্স। দেখলো, সেখানে সুমন বিছানায় শুয়ে আপত্তিকর অঙ্গভঙ্গি করছে।

“সুমন, কী হচ্ছে এসব?” প্রশ্ন করলো নার্স।

“আহ! জ্বালাতন কোরো না। দেখতে পাও না, জুমনের বউয়ের সাথে প্রেম করছি? ঐ শালা তো গেছে চট্টগ্রাম!”

 

১৫২)

ইংরেজ শাসন আমলের রাজস্থানের মরুভুমিতে একটা দুর্গ। সেইখানে সেনাপতি হয়ে এসেছে জাত্যাভিমানী এক ইংরেজ যুবক। এসেই শুরু করছে হম্বি-তম্বি। এরে ধমকায় ত ওরে মারে। কোনো কিছু তার পছন্দ হয় না। ইন্ডিয়ানদের রুচি নাই। চোর-বাটপার সব কয়টা। প্রথম দিনেই দুর্গ পরিদর্শনের সময় সেনাপতি দেখে একটা উট বাধা। ” ওই হারামজাদা। উট এইটা কিসের জন্য? ” একজন কাচুমাচুভাবে বলল ” আমরা তিন-চার মাস একটানা দুর্গে থাকি। এইখানে কোনো মেয়ে নাই। সৈনিকরা মাঝে মাঝে খুব একা বোধ করলে এই উট ব্যাবহার করে। ” সেনাপতি ত bloody indian দের কথা শুনে থ। শুয়োরের বাচ্চারা উটকে “কামে” লাগায়…ছি ছি ছি। সে কড়া নির্দেশ দিলো যে এরপর কোনো নেটিভ হারামজাদা উট ব্যাবহার করলে তাকে ঝুলিয়ে পিটানো হবে। যাই হোক তার কড়া শাসনে দুর্গে নিয়ম-শৃংখলা ফিরে আসলো। সবাই সোজা। সব কিছু ঠিকমত চলছে। মাসের পর মাস যাচ্ছে।

এক সময় সেনাপতির একা একা লাগা শুরু করল। শালার একটা মাইয়া দেখি নাই গত চার মাস। আরো এক মাস গেলো। একদিন সকালে সে হুকুম দিলো, শুয়োরের বাচ্চারা, উটটা নিয়ে আয় আমার তাবুতে। কিছুক্ষন ধস্তা-ধস্তি হল। উটের চিৎকার শুনা গেল। এরপর সেনাপতি প্যান্টের চেইন লাগাতে লাগাতে বের হয়ে আসল। বড় বড় চোখ করে bloody indian গুলো তাকিয়ে আছে। এদের দিকে তাকিয়ে সেনাপতি বলল, খারাপ না, তোরাও কি এইভাবেই ব্যাবহার করিস?

– না হুজুর। আমরা এইটাতে চড়ে মাইলদুয়েক দূরের একটা শহরে যাই।

 

১৫৩)

বব আর লিসার বিয়ের ত্রিশতম বার্ষিকী। দুইজনেরই বয়স হয়েছে। দীর্ঘ বিবাহিত জীবনে নানা ঝামেলা এসেছে, সেই ঝামেলা পাড়িও দিয়েছে। আজ তারা চারটি ছেলে সন্তানের বাবা-মা। সুখের জীবন।

অনুষ্টান শেষে, রাতের বেলা লিসা ববকে বলল, আজকে রাতে তুমি আমাকে একটা সত্য কথা বলবে?

বলব।

তুমি বিবাহিত জীবনে আমি ছাড়া আর কয়টা মেয়ের সাথে শুয়েছো?

বব উত্তর দিতে একটু দেরি করছে। লিসা তাই বলল, দেখো, আমরা এমন বয়সে চলে এসেছি যে একজনকে ছাড়া আরেকজন চলতে পারব না। সুতরাং সত্যি কথা বললেও সমস্যা হবে না।

বব মাথা ঝাকিয়ে বলল, শুয়েছি তিনজনের সাথে…

দুইজনেও চুপ-চাপ। গলা খাকাড়ি দিয়ে বব বলল, আমারো একটা প্রশ্ন ছিল।

কি?

দেখো, আমি আমার সবকয়টা ছেলেকেই সমান চোখে দেখেছি। কোনদিন অবিচার করিনি। আজকে তোমাকে বলি , আমার ভিতর সন্দেহ ছিল জনিকে নিয়ে। সে তার বড় তিনভাইয়ের মত না। তার শারীরিক গঠনও আলাদা। সে চিকন এবং বাকি ভাইদের তুলনায় অনেক বেশি মেধাবি। যে কেউ মাথা খাটালেই বুঝবে, জনির বাপ আর বাকিদের বাপ এক পুরুষ না। আমার খুব সন্দেহ তাকে নিয়ে। তুমি সত্যি করে বলো ত, জনির বাপ আর অন্যদের বাপ কি আলাদা ব্যক্তি?

হ্যাঁ।

জনির বাপ কে?

লিসা কিছুক্ষন মাথা নিচু করে থাকে, এরপর লাজুক মুখে বলে, তুমি।

 

১৫৪)

পঞ্চাশোর্ধ এক ব্যবসায়ী, সুন্দরী এক কল গার্লের সেবা গ্রহণ করলেন এবং তাকে নগদ টাকা না দিয়ে তার অফিসে একটি বিল পাঠাতে বললেন। বিলতো আর গৃহিত সেবার নামে করা যাবে না তাই ব্যবসায়ী গার্লকে পরামর্শ দিলেন তুমি এমন একটা বিল আমার অফিসে পাঠাবে যেন আমি তোমার কাছ থেকে একটি এপার্টমেন্ট ভাড়া নিয়েছিলাম। যথারীতি গার্ল পরের সপ্তাহে ব্যবসায়ীর অফিসে একটি বিল পাঠালেন – এপার্টমেন্ট ভাড়া বাবদ ৫০০০ টাকা ।

ব্যবসায়ী স্বভাব সুলভ কারনে সেই বিলও কাটলেন। ২৫০০ টাকা কেটে বাকী আড়াই হাজার টাকা পাঠালেন গার্ল এর কাছে। বিল কাটার কারণ হিসেবে তিনি লিখলেন :

১) আমি ভেবেছিলাম এপার্টমেন্টটি (?) একদম নতুন আগে কেউ ব্যবহার করেনি, কিন্তু ভাড়া নেয়ার পর দেখলাম এটি আগেও ভাড়া হয়েছে।

২) ভাড়া নেবার সময় আমি ভেবেছিলাম এপার্টমেন্টটি (?) অনেক ছোট এবং সুন্দর, কিন্তু ভাড়া নেবার পর দেখলাম অনেকে এই এপার্টমেন্ট ব্যবহার করায় এর আকার অনেক বড়। এত বড় এপার্টমেন্ট আমার পছন্দ নয়।

৩) ভাড়া নেবার সময় আমি ভেবেছিলাম এপার্টমেন্টটি (?) অনেক গরম হবে, কিন্তু ভাড়া নেবার পর দেখলাম এটি একেবারেই ঠান্ডা।

কলগার্ল ব্যবসায়ীর এই কারণ সহ অর্ধেক পেমেন্ট পেয়ে রেগে গেলেন এবং আড়াই হাজার টাকা ফেরত পাঠিয়ে দিয়ে পুরো ৫০০০ টাকা দেবার অনুরোধ করলেন এবং ব্যবসায়ীর কারণ গুলোর বিপরীতে লিখলেন:

১) তুমি কি করে ভাবলে এত সুন্দর এপার্টমেন্টটি (?) ভাড়া না হয়ে এতদিন পরে থাকবে?

২) এপার্টমেন্টটি (?) আসলে সুন্দর এবং ছোটই ছিল, কিন্তু তোমার যদি এই এপার্টমেন্টটি ভর্তি করার মত ফার্নিচার (??) না থাকে তাহলে আমার কি করার আছে?

৩) এপার্টমেন্টটিতে (??) আসলে অনেক গরমই ছিল কিন্তু তুমিতো জানই না এটা কি ভাবে অন করতে হয়।

তাই আমার পুরো পাওনা ৫০০০ টাকাই দিতে হবে।

 

১৫৫)

আরাম খান ফাদারের কাছে গিয়ে বলল, “ফাদার , আমার দুইটা মেয়ে তোতা আছে,কিন্তু ওরা একটা কথা ছাড়া আর কিছুই বলেনা।”

ফাদার বললেন, “কি বলে ওরা?”

আরাম খান বললেন, “ওরা খালি বলে, হেই, আমরা দুই নষ্টা, আসো, স্ফূর্তি করি।”

ফাদার বললেন, “খুব খারাপ কথা ….. তবে আমার আরো দুইটা পুরুষ তোতা আছে, ওরা সারাদিন প্রভুর নাম জপ করে … ওদের সাথে রাখলে তোমার মেয়ে তোতাগুলো আর খারাপ কথা বলবেনা, ভালো হয়ে যাবে।” এই বলে ফাদার ওই মেয়ে তোতা দুইটা কে পুরুষ তোতা দুইটার খাচায় ঢুকিয়ে দিলেন। তখনও পুরুষ তোতা দুইটা চোখ বন্ধ করে অন্যদিনের মতই জপ করছিল। ঢুকিয়ে দেওয়ার পরপরই অন্যদিনের মতই মেয়ে তোতা দুইটা পুরুষ তোতা দুইটার দিকে চোখ মেরে বলল, “হেই, আমরা দুই নষ্টা, আস স্ফূর্তি করি!”

সাথে সাথে একটা পুরুষ তোতা তার চোখ খুলে অন্য তোতা কে বলল, “দোস্ত , এইবার জপ করা বন্ধ করতে পারস , আমাগো দীর্ঘদিনের আশা পূর্ণ হইসে।”

 

১৫৬)

এক ভদ্রমহিলা প্রচণ্ড জোরে কাঁদছেন শুনে একজন জিজ্ঞেস করলো, ম্যাডাম আপনি কাঁদছেন কেন?

-কী বলবো! গতকাল ডাকাত পড়েছিল আমার ঘরে,সমস্ত গয়না ডাকাতি করে নিয়ে গেছে।

-যাক! ইজ্জতটা তো বেঁচেগেছে!

– ওটা বেচেইতো গয়না কিনেছিলাম!

 

১৫৭)

এক দম্পতির বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে গেছে। কিন্তু একমাত্র বাচ্চা কার কাছে থাকবে এটা নিয়ে কোর্টের দ্বারস্থ হলো তার।বিচারক প্রথমে মহিলাকে বলল, ” বাচ্চা আপনার কাছে রাখার যৌক্তিক ব্যাখ্যা দিন।”

স্ত্রী, “আমি ১০ মাস পেটে ধারণ করেছি এবং জন্ম দেবার সময় কষ্ট ভোগ করেছি, অতএব আমার সন্তান আমার প্রাপ্য!”

বিচারক এবার স্বামীর কাছে শুনতে চাইলেন তার যুক্তি।

স্বামী, “হুজুর আমার একটা প্রশ্নের উত্তর দিন। একটি কয়েন, কফি মেশিনে ফেলার পরে কফি বের হয়ে আসলো, এই কফির মালিক কে আমি না কফি মেশিন?”

 

১৫৮)

রাতে ঘুমানোর সময় বয়ফ্রেন্ড মেয়ের ঘাড়ে টোকা দিলো, মেয়ে বিরক্ত হয়ে বললো আজ না, কাল আমার গাইনোকলজিস্টের সাথে অপোইন্টমেন্ট আছে এবং আই ওয়ান্ট টু স্মেল নাইস অন্ড ফ্রেশ দেয়্যর। বয়ফ্রেন্ড মনঃক্ষুন্ন হয়ে ঘুড়ে শুলো। একটু পর আবার টোকা, এবার গার্লফ্রেন্ড বল, “বুঝেছি, কিন্তু আমার ডায়রিয়া!” মনক্ষুণ্ণ হয় বয়ফ্রেন্ড।

কিছুক্ষণ বয়ফ্রেন্ড বললো, “বাই দ্য ওয়ে, আশা করি কাল তোমার ডেন্টিস্টের সাথে অপোইন্টমেন্ট নেই, না কি?”

 

১৫৯)

বিয়ের পর মেয়ের হাত ছেলের হাতে দেওয়া হয় কারন ছেলেটি তার হাত ব্যবহার করতে করতে ক্লান্ত…

 

১৬০)

কোন এক সিনেমা হলের টিকেট চেকারের একটা মেয়ে টিয়া পাখি ছিল। টিয়াটা কথা বলতে পারতো। মুলত: চেকারকে সাহায্য করার জন্য টিয়াটি কথা বলতো। হলের প্রতিটি শো এর আগে দর্শকরা টিকেট কেটে যখন হলে ঢুকতো তখন টিয়াটি বলত –” একে একে আয়! লাইন ধরে আয়!”

তো একদিন হঠাৎ করে টিয়াটি হারিয়ে গেল। বেচারা টিকিট চেকার অনেক খুজেও টিয়ার সন্ধান না পেয়ে আশা ছেড়ে দিল।

একদিন সকাল বেলা হাসপাতাল থেকে টিয়ার খবর এলো। চেকার হন্তদন্ত হয়ে হাসপাতালে গেলেন এবং টিয়াকে জিজ্ঞাস করলেন এতদিন তুই কোথায় ছিলি?? টিয়া বলল, আর বলিস না। তোর এখান থেকে গিয়েছিলাম জঙ্গলে। অনেক ছেলে টিয়া দেখে অভ্যাসবসত ওখানেও বলে ফেললাম “একে একে আয়! লাইন ধরে আয়”, তারপর আমি এখানে!!

 

১৬১)

এক পুলিশ হাইয়েতে যাচ্ছে। পথের মধ্যে দেখে এক লোককে ন্যাংটা করে কেউ গাছে সাথে বেধে রেখেছে। লোকটা কাদছে। পুলিশ গাড়ি থামাল। লোকটার কাছে গিয়ে জিজ্ঞেস করল, আপনার কি হইছে?

আজকে আমার দিনটাই খারাপ।

সকালে বউয়ের সাথে ঝগড়া হল।

গাড়ি নিয়ে বের হলাম,ওভার স্পীডের জন্য জরিমানা দিলাম।

পথের মাঝে একলোককে লিফট দিলাম। অই ব্যাটা গাড়িতে উঠে আমার আমার বুকে বন্দুক ধরল। সে আমার সব টাকা পয়সা নিয়ে গেছে। আমার জামা কাপড় নিয়ে গেছে। আমার গাড়িটাও নিয়ে গিয়ে আমাকে গাছের সাথে বেধে রেখে গেছে।

পুলিস সব শুনে একটু চিন্তা করল। এরপর নিজের প্যান্ট খুলা শুরু করল। লোকটা বলল, কি করছেন আপনি?

পুলিশ মুচকি হেসে বলল, “ হ! আজকে আপনার দিনটাই খারাপ”

 

১৬২)

সেক্স এজুকেশন কোর্সে তিন পিচ্চি বাজে গ্রেড পেয়েছে। একজন সি, একজন ডি আর একজন এফ।

যে সি পেয়েছে, সে চটে গিয়ে বলছে, “ম্যাডাম এটা একটা কাজ করলো? চল বেটিকে শায়েস্তা করি!”

যে ডি পেয়েছে, সে বলছে, “হ্যাঁ, চল! স্কুল ছুটি হয়ে গেলে যখন কেউ থাকবে না, তখন বেটিকে পাকড়াও করবো …!”

যে এফ পেয়েছে, সে বলছে, “হ্যাঁ, তারপর পাকড়াও করে ম্যাডামের অন্ডকোষে অ্যায়সা জোরসে একটা লাত্থি মারবো না!”

 

১৬৩)

এক লোক ডাক্তার দেখাতে গেছে কারণ তার ইয়ে দাঁড়ায় না। ডাক্তার শুনে বললেন, বিয়ে করছেন?

: না।

: প্রেমিকা আছে ?

: না।

: পরকীয়া করেন ?

: না…

: টানবাজার যান ?

: না।

: মাস্টারবেট করেন?

: না।

ডাক্তার ক্ষেপে বললেন, “ওই মিয়া, তাহলে দাড়া করায়ে কি করবেন? ক্যালেন্ডার টাঙ্গাইবেন!!!”

 

১৬৪)

ক্লাস টু-তে এক পিচ্চি মেয়ে উঠে দাঁড়িয়ে বলছে, ‘টিচার টিচার, আমার আম্মু কি প্রেগন্যান্ট হতে পারবে?’

টিচার বললেন, ‘তোমার আম্মুর বয়স কত সোনা?’

পিচ্চি বললো, ‘চল্লিশ।’

টিচার বললেন, ‘হ্যাঁ, তোমার আম্মু প্রেগন্যান্ট হতে পারবেন।’

পিচ্চি এবার বললো, ‘আমার আপু কি প্রেগন্যান্ট হতে পারবে?’

টিচার বললেন, ‘তোমার আপুর বয়স কত সোনা?’

পিচ্চি বললো, ‘আঠারো।’

টিচার বললেন, ‘হ্যাঁ, তোমার আপু প্রেগন্যান্ট হতে পারবে।’

পিচ্চি এবার বললো, ‘আমি কি প্রেগন্যান্ট হতে পারবো?’

টিচার হেসে বললেন, ‘তোমার বয়স কত সোনা?’

পিচ্চি বললো, ‘আট।’

টিচার বললেন, ‘না সোনা, তুমি প্রেগন্যান্ট হতে পারবে না।’

এ কথা শোনার পর পেছন থেকে ছোট্ট বাবু পিচ্চিকে খোঁচা দিয়ে বললো, ‘শুনলে তো? আমি তো তখনই বলেছি, আমাদের চিন্তা করার কিছু নেই।’

 

১৬৫)

চার তরুণী নান এক কনভেন্টে যোগ দিতে চাইছে।

মাদার সুপিরিয়র বললেন, ‘তার আগে তোমাদের পরীক্ষা নেওয়া হবে। সবাই এক লাইনে দাঁড়াও।’

সবাই লাইনে দাঁড়ানোর পর তিনি প্রথম নানকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘বাছা, তুমি কি কখনও কোনও পুরুষের সেই প্রত্যঙ্গ স্পর্শ করেছ? করে থাকলে নিজের শরীরের কোন অঙ্গ দিয়ে স্পর্শ করেছ?’

লজ্জিত মুখে প্রথম নান বলল, ‘আঙুল দিয়ে, মাদার।’

মাদার সুপিরিয়র পবিত্র পানির একটি বাটি এগিয়ে দিলেন। ‘তোমার আঙুল এ পানিতে ডোবাও, সব পাপ ধুয়ে ফেল, পবিত্র হয়ে এসো আমাদের কনভেন্টে।’

প্রথম নান আঙুল পানিতে ডুবিয়ে কনভেন্টে ঢুকে গেল।

এবার মাদার সুপিরিয়র দ্বিতীয় নানকে বললেন, ‘কি বাছা, তুমিও স্পর্শ করেছ নাকি? স্পর্শ করে থাকলে নিজের শরীরের কোন অঙ্গ দিয়ে স্পর্শ করেছ?’

লজ্জিত মুখে দ্বিতীয় নান বললো, ‘হাত দিয়ে, মাদার।’

যথারীতি মাদার সুপিরিয়র পবিত্র পানির বাটি এগিয়ে দিলেন, হাত ধুয়ে পাপমুক্ত হয়ে দ্বিতীয় নান কনভেন্টে প্রবেশ করল।

এমন সময় চতুর্থ নান তৃতীয় নানকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে সামনে এগিয়ে এল। মাদার অবাক হয়ে বললেন, ‘ও কি, বাছা, ঈশ্বরের পথে অত তাড়া কিসের?’

চতুর্থ নান বলল, ‘উঁহু, মাদার, ও এই পানিতে বসে পড়ার আগেই আমি কুলি করতে চাই।’

 

১৬৬)

আবুল: মফিজ, তোর জীবনটা খুব একঘেয়ে হয়ে যাচ্ছে সেটা কখন টের পাবি, বলতো?

মফিজ: কখন?

আবুল: যখন তুই তোর লিঙ্গের সাইজ মাপতে যাবি। আর এই একঘেয়েমির সাথে প্রতিবার নতুন একটা উপসর্গ যোগ হবে।

মফিজ: সেটা কী?

আবুল: হতাশা!

 

১৬৭)

আবুল: কাল রাতে ঘরে চোর এসেছিল।

মফিজ: বলিস কী!

আবুল: ঘুম ভেঙে গেলে তাকে জিজ্ঞেস করলাম, সে কী করছে? বলল, টাকা-পয়সা খুঁজছে।

মফিজ: তুই চোরটাকে ধরে পুলিশে দিস নাই?

আবুল: না…

মফিজ: তবে?

আবুল: আমিও তার সাথে টাকা-পয়সা খুঁজতে শুরু করছিলাম।

 

১৬৮)

মেয়েরা যখন বলে, সব পুরুষরাই সমান, তখন বুঝতে হবে মেয়েটির স্বামী বা বয়ফ্রেণ্ড চাইনীজ এবং চায়নাতে বেড়াতে যাওয়ার পর মেয়েটি তার স্বামী বা বয়ফ্রেণ্ডকে হারিয়ে ফেলে রাস্তায় রাস্তায় খুঁজে বেড়াচ্ছে।

 

১৬৯)

গ্রামে চাচার খামারে বেড়াতে গেছে ছোট্ট বাবু। কয়েকজন অতিথির সাথে চাচা গল্প করছে, এমন সময় সে ছুটতে ছুটতে এলো।

‘চাচা, চাচা, জলদি দেখে যাও! তোমার ষাঁড় একটা গরুকে লাগাচ্ছে !’

বিড়ম্বিত চাচা অতিথিদের কাছে ক্ষমা চেয়ে ছোট্ট বাবুকে কানে ধরে বাইরে নিয়ে এলেন। ‘শোন, এখন থেকে বলবে, “ষাঁড়টা গরুটাকে চমকে দিয়েছে”, বুঝলে? ‘

পরদিন আরো কয়েকজন অতিথির উপস্থিতিতে ছোট্ট বাবু ছুটতে ছুটতে এলো। ‘চাচা, চাচা, জলদি দেখে যাও! তোমার ষাঁড় গরুগুলোকে চমকে দিয়েছে!’

অতিথিরা সমঝদারের মতো মুচকি হাসলেন। চাচা বললেন, ‘ঠিক আছে, ছোট্ট বাবু। কিন্তু তুমি নিশ্চয়ই বলতে চাইছো যে ষাঁড়টা একটা গরুকে চমকে দিয়েছে, গরুগুলোকে নয়?’

ছোট্ট বাবু বললো, ‘না, সব গরুকেই ব্যাটা চমকে দিয়েছে, কারণ সে এখন মাদী ঘোড়াটাকে লাগাচ্ছে!’

 

১৭০)

ডন ঘরে ঢুকতেই দেখলো তার স্ত্রী জিমির সাথে শুয়ে আছে ।  সে জিমিকে বললো, বাস্টার্ড সাহস থাকে তো আয় দুটো পিস্তল নিয়ে ডুয়েল লড়ি ।  যে জিতবে লিন্ডা তার হবে ।  বলে জিমিকে নিয়ে পাশের ঘরে চলে গেল ।  পাশের ঘরে ডুয়েল যাবার সময় জিমি বললো, ডন কেন মিছিমিছি আমাদের মাঝে একজন মরবো, তারচেয়ে বরং দুজনেই মরার ভান করে শুয়ে থাকি, লিন্ডা যাকে নিয়ে কাদঁবে, লিন্ডা তার হবে ।  বলে দুজনে মটকা মেরে শুয়ে পরল এবং দুটি গুলির আওয়াজ করল ।  ডনের স্ত্রী ঘরে ঢুকে দেখল দুজনেই মরে পড়ে আছে ।  সে তখন খাটের তলা থেকে তার আরেক প্রেমিক মাইকেলকে ডেকে বললো মাইকেল চলো এসো, এরা দুজনেই মরেছে, আর কোনো বাঁধা নেই ।

 

১৭১)

গলফ খেলতে গেছে টিনা। সাঁই করে ব্যাট চালালো সে। তারপর দেখতে পেলো, তার টার্গেটের কিছুটা দূরে এক লোক হঠাৎ কোমরের নিচটা চেপে ধরে শুয়ে পড়লো।

‘নিশ্চয়ই আমার বলটা ওর ওখানটায় গিয়ে লেগেছে!’ আঁতকে উঠলো সে। তারপর ছুটে গেলো সেখানে। দেখা গেলো, লোকটা কোঁকাচ্ছে সমানে, কোমরের নিচটায় হাত চেপে রেখেছে সে। টিনা বললো, ‘ভয় পাবেন না, আমি জানি কী করতে হবে। খুব ব্যথা করছে?’

লোকটা কোনমতে বললো, ‘হ্যাঁ।’

টিনা তখন এগিয়ে গিয়ে, বেচারার প্যান্ট খুলে, মিনিট দশেক ম্যাসেজ করে দিলো। তারপর বললো, ‘এখন কেমন বোধ করছেন?’

লোকটা বললো, ‘দারুণ, কিন্তু বুড়ো আঙুলটায় এসে বল লেগেছে তো, সাংঘাতিক ব্যথা করছে।’

 

১৭২)

এক লোক বাজারে গেছে মুরগী কিনতে। সে মুরগিওয়ালাকে বলল একটা রাজশাহীর মুরগী দেও। মুরগিওয়ালা একটা মুরগি দিয়া বলল এই নেন রাজশাহীর মুরগি। লোকটা মুরগীর পাছা দেখে কইলো। অই মিয়া এইডা তো রাজশাহীর মুরগী না। এটা যশোর এর মুরগী।

মুরগিওয়ালা অনেক খুজে আরেকটা মুরগি দিয়া কইলো এই নেন রাজশাহীর মুরগি। লোকটা আবার মুরগীর পাছা দেখে কইলো, ধুর মিয়া এইডাও তো রাজশাহীর মুরগি না। এটা ফরিদপুরের এর মুরগী।

মুরগিওয়ালা এবার অনেকক্ষণ খুঁজে আরেকটা মুরগি দিয়া কইলো এই নেন এইটাতো রাজশাহীর মুরগি হইবোই।

লোকটা এবার রাইগা কইলো। কি মিয়া? কি ব্যবসা কর একটা মুরগিও চিনো না। তোমার বাড়ি কই?

এইবার মুরগিওয়ালা পিছন ফিরে লুঙ্গি উপরে তুইলা কইলো আপনেই দেইখা কয়া দেন আমার বাড়ী কই?

 

১৭৩)

পরীক্ষার আগে রাজিব ভাইয়ের পাশের বাড়ির মেয়ে সকিনা আইসা রাজিন ভাইকে বই থেকে কিছু প্রশ্ন করছে।

রাজিব ভাই মুখস্ত বিদ্ধ্যা তো, ফটা ফট উত্তর দিয়া দিছেন।

সকিনা বলছেঃ ওম্মা! তোমার তো দেখছি মাথায় মেলা জ্ঞান আছে। আমাকে একটু দিবে?

রাজিব ভাইঃ ঠিক আছে, ঠিক আছে! আমার পাশে এসে বসো।

মেয়ে পাশে এসে বসলো।

রাজিব ভাইঃ এতো দূরে কেন? আরো কাছে আসো।

মেয়ে আরেকটু কাছে আসলো।

রাজিব ভাইঃ আরে, আরো কাছে আসতে হবে।

মেয়েঃ না বাবা না! আমি আর কাছে আসতে পারব না।

রাজিব ভাইঃ ওম্মা তোমারও তো দেখছি ব্যাপক জ্ঞান আছে।

 

১৭৪)

এক হাসপাতালের করিডরে এক মহিলা আর এক পুরুষ দানকেন্দ্রের সামনে বসে অপেক্ষা করছিল। পুরুষটি মহিলা কে জিজ্ঞেস করলো, “আপনি কী দান করতে এসেছেন?”

মহিলা বলল, “আমি রক্ত দান করতে এসেছি, এর জন্য আমি ৫ ডলার পাব”

পুরুষটি বলল, “ওহ … আমি স্পার্ম দান করতে এসেছি, এর জন্য তারা আমাকে ২৫ ডলার দেবে”

মহিলাটিকে কিছুক্ষণের জন্য চিন্তিত মনে হলো, তারপর তারা খানিকক্ষণ গল্প করে নিজ নিজ বাসায় চলে গেল।

কয়েকমাস পর তাদের আবার ওই হাসপাতালের করিডরে দানকেন্দ্রের সামনে দেখা হলো। পুরুষটি মহিলাকে বলল, “এবার আমি রক্ত দিতে এসেছি, আপনি?”

মহিলাটির মুখ বন্ধ থাকায় কোনো মতে সে মাথা ঝাকিয়ে উত্তর দিল, “উমমমম মমম…”

 

১৭৫)

এক গৃহকর্মী তার মালিক গৃহকত্রীর কাছে বায়না ধরেছে তার বেতন বাড়াতে হবে।

গৃহকত্রীঃ তোমার বেতন বাড়ানো হয়েছে ছয় মাসও হয় নি। এখনি আবার বেতন বাড়ানোর আবদার কেন?

গৃহকর্মীঃ এই সময়ের মধ্যে আমি তিনটি সার্টিফিকেট পেয়েছি…। তাই বেতন বাড়ানোর জন্য আবেদন করেছি।

গৃহকত্রীঃ কি কি সার্টিফিকেট?

গৃহকর্মীঃ আমি আপনার চেয়ে ভাল কাপড় আয়রন করতে পারি।

গৃহকত্রীঃ কে দিয়েছে এই সার্টিফিকেট?

গৃহকর্মীঃ জ্বী, স্যার মানে… আপনার স্বামী……

গৃহকর্মীঃ হুম, আর কি সার্টিফিকেট পেয়েছো……

গৃহকর্মীঃ আমি আপনার চেয়ে ভাল রান্না করতে পারি…

গৃহকত্রীঃ কে বলেছে তুমি আমার চেয়ে ভাল রান্না কর? (বেশ রাগত স্বরে…)

গৃহকর্মীঃ জ্বী, আপনার স্বামী বলেছেন…

গৃহকত্রীঃ আচ্ছা ঠিক আছে, হতে পারে তুমি আমার চেয়ে ভাল রান্না কর……আমি কি চাকরানী নাকি যে ভাল রান্না জানতে হবে? বলো আরেকটি কি সার্টিফিকেট পেয়েছ?

গৃহকর্মীঃ আমি আপনার চেয়ে বিছানায় ভাল পারফর্ম করতে পারি।

কত্রী তো এবার রেগে আগুন। আমার স্বামী বলেছে এই কথা?? ওর সাথে তোমার তাহলে এইসবও হয়??

গৃহকর্মীঃ জ্বী না, আপনার স্বামী বলেনি……বলেছে আপনার গাড়ির ড্রাইভার!

গৃহকত্রীঃ (কত্রী এবার চুপ…) ঠিক আছে তোমার বেতন বাড়ায়ে দেয়া হবে…এসব নিয়ে কথা বলার দরকার নাই।

 

১৭৬)

এক তরুণী মেয়ে আর এক বুড়ো দাদু গিয়েছে ওজন মাপতে। প্রথমে মেয়েটা ওজন মাপাবার যন্ত্রে উঠলো, যন্ত্রের ভিতরে কয়েন ফেলল, টিকেট বেরিয়ে এল, ওজন ৬৪কেজি।

এবার মেয়েটা নামলো, কাধ থেকে ব্যাগটা নামাল, আবার যন্ত্রের উপর উঠলো, যন্ত্রের ভিতরে কয়েন ফেলল, টিকেট বের হয়ে এল, ওজন ৬৩কেজি।

আবার মেয়েটা নামলো, জ্যাকেটটাকে খুলল, যন্ত্রের উপর উঠলো, যন্ত্রের ভিতরে কয়েন ফেলল, টিকেট বের হয়ে এল, ওজন ৬২কেজি।

আবার মেয়েটা নামলো, ট্রাউজার খুলল, যন্ত্রের উপরে উঠলো, কয়েন শেষ।

এতক্ষণ ধরে বুড়ো দাদু সবকিছু দেখছিল। এবার সে কেশে বলল, “খুকী, চালিয়ে যাও। কয়েন লাগলে আমি দেব।”

 

১৭৭)

শফিকের খুব মাথাব্যথা থাকে আজকাল। এর জন্য অনেক ডাক্তার দেখিয়েছে … কিন্তু  কিছুই হয়নি। এর মাঝে কিছুদিন আগেই সে নতুন বিয়ে করেছে। কিন্তু ওই হারামজাদা মাথা ব্যথার জন্য সে ঠিক মত বাসরটাও উপভোগ করতে পারেনি। তাই সে এবার শেষ চিকিত্সা মনে করে এক কবিরাজের কাছে গেল।

কবিরাজ তাকে বলল, “বাবা, তোমার এই মাথা ব্যথার কারনটা আমি বের করতে পেরেছি … এটা খুব খারাপ কিন্তু বিরল একটা রোগ … … তোমার অন্ডকোষটা বড় হয়ে তোমার স্পাইনাল কর্ডের নিচে চাপ দিচ্ছে … তারই ফলস্বরূপ তোমার খুব খারাপ মাথাব্যথা হয় … যার জন্য তুমি অনেক সময় চোখে দেখতেও পাওনা!

শফিক দেখল, “তাই তো! ওই রকমই মাথাব্যথা হয় সে কবিরাজকে জিজ্ঞেস করলো, “আমার চিকিত্সা কি?”

কবিরাজ বলল, “এর একটাই চিকিত্সা … তোমার অন্ডকোষটা ফেলে দিতে হবে!”

শফিক ভাবলো, “শালার দুনিয়া, কিছুদিন আগেই বিয়া করলাম; এখন যদি অন্ডকোষ ফালায়া দিতে হয় …! হায়রে কপাল!!”

কিন্তু পরক্ষণে সে ঠিক করলো, “নাহ … এই মাথাব্যথার হাত থেকে মুক্তি চাই।”

অন্ডকোষটা ফেলে দেওয়ার পর শফিকের মনে হতে লাগলো, সে একটা নতুন মানুষ … তার মাথাব্যথাটাও আসলেই একবারেই নাই!! তাই সে একটা কাপড়ের দোকানে ঢুকলো … একটা শার্ট বানাবে। দোকানে ঢুকে শার্টের কথা বলতেই দর্জি তাকে বলল, “দেখি, … হুমমমম … কলার সাইজ ১৬”। দেখে বলে দিল দর্জি। তারপর একটা শার্ট পরালো শফিক কে। শফিক দেখল খুব সুন্দর ফিট হয়েছে। তাই সে দর্জিকে বলল, “কিভাবে নিখুঁতভাবে বললেন?” দর্জি বলল, “বাবা … ৬০ বছরের অভিজ্ঞতা … এখন একটা প্যান্টও বানাবে?”

শফিক বলল “ঠিকাছে”

দর্জি বলল “হুমমম … তোমার কোমর হবে ৩২, লম্বায় হবে ৪০”

তারপর একটা প্যান্ট পড়তে দিল। শফিক দেখল, খুব সুন্দর ফিট করেছে। সে বলল, “কিভাবে নিখুঁতভাবে বললেন?”

দর্জি বলল, “বাবা, ৬০ বছরের অভিজ্ঞতা! তো, এখন একটা জাঙ্গিয়া নিবে না?”

শফিক বলল, “আপনি বলেন, কী সাইজ হবে?”

দর্জি বলল, “হুমমমম … সাইজ হবে ৩৪”

শফিক হাসতে হাসতে বলল, “নাহ, এবার হয়নাই … আমি ১৮ বছর বয়স থেকে ২৮ সাইজ পরি … ঐটাই আমার নিখুঁত ফিট হয়।”

দর্জি বলল, “অসম্ভব, ২৮ সাইজের জাঙ্গিয়া পড়লে তোমার অন্ডকোষটা তোমার স্পাইনাল কর্ডের নিচে চাপ দিবে, তখন তোমার খুব মাথাব্যথা হবে, যার জন্য তুমি অনেক সময় চোখে দেখতেও পাবেনা।”

 

১৭৮)

১ম বন্ধু: আরে দোস্ত, আমার বউ একদম আমার কথা শুনেনা। খালি উল্টা-পাল্টা করে। কি করা যায়?

২য় বন্ধু: এইরকম মেয়ে লোকের জন্য আমার কাছে একটা ফাস্টক্লাস তরিকা আছে।

১ম বন্ধু: কি সেইটা?

২য় বন্ধু: যেইদিন তোর কথা শুনবেনা সেইদিন সামনে থেকে দুইবার, পিছন থেকে দুইবার, দাড়িয়ে দুইবার লাগাবি দেখবি সব ঠিক হয়ে যাবে।

১ম বন্ধু: এইটা কি আমার বউকে শাস্তি দেয়া না আমাকে শাস্তি দেয়া?

২য় বন্ধু: আরে না তুই এতবার করার পর এতো টায়ার্ড হয়ে যাবি যে বউয়ে উল্টা-পাল্টা করলে আর নজরে পরবেনা।

 

১৭৯)

দুই বন্ধু জমির আর নানক গলফ খেলছে। হঠাৎ নানকের একটা ফোন করার দরকার পড়ল, “কিরে জমির, তর কাছে ফোনে আছে? একটা ফোন করতাম।”

জমির বলল, “ঠিকাছে, এই নে ফোন” এই বলে সে ১২ ইঞ্চি লম্বা একটা ফোন বের করলো। ফোন দেখে তো নানক ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে গেলো। জমিরকে জিজ্ঞেস করলো, “কিরে, এই ফোন তুই পাইলি কই?”

জমির বলল, “আমার একটা দৈত্য আছে, ইচ্ছাপূরণকারী দৈত্য, ওই বেটা এই ফোন দিছে।”

নানক বলল, “দেখি তো তোর দৈত্যটা।” জমির গলফ ব্যাগ থেকে দৈত্যটা কে বের করলো। দৈত্যকে দেখেই নানক বলল, “তুমি তো ইচ্ছাপূরণকারী দৈত্য, আমি তোমার মনিবের বন্ধু, তো আমার একটা ইচ্ছা পূরণ কর।” দৈত্য বলল ,” হুকুম করেন জাহাপনা ”

নানক বলল, “আমাকে গাড়ি, বাড়ি আর নারী দাও।”

দৈত্য বলল, “জো হুকুম!” এই বলে সে ভ্যানিস হয়ে গেল। নানক তো অনেকক্ষণ ধরে অপেক্ষা করছে, কখন তার বাড়ি, গাড়ি আর নারী আসে। অপেক্ষা করতে করতে সে যখন মেজাজ খারাপের চূড়ান্ত পর্যায়ে, তখন হঠাৎ করে আকাশ থেকে একটা চুড়ি, একটা হাঁড়ি আর একটা শাড়ি পড়ল! নানকের মেজাজ তো খুব খারাপ, বলল, “কিরে ব্যাটা! চাইলাম নারী গাড়ি বাড়ি … আর ও দিল কিনা চুড়ি হাড়ি আর শাড়ি !!!”

জমির নির্লিপ্ত কন্ঠে বলল, “দোস্ত, বলতে ভুইলা গেছিলাম … আমার দৈত্যটা কানে কম শুনে … … তোর কি মনে হয়, আমি কি ১২ ইঞ্চি লম্বা ফোন চাইছিলাম?”

 

১৮০)

এক ছেলে বাবাকে এসে বলছে, “আমি পাশের বাড়ির আলোর সাথে প্রেম করতে পারি?”

বাবাঃ “বাবা একটা গোপন কথা বলি, আলো আমার মেয়ে, সে তোমার বোন হয়, তুমি অন্য মেয়ে দেখ”

কয়েকদিন পর ছেলে আবার এসে বলল “আমি কি ওই পাড়ার আঁখির সাথে প্রেম করতে পারি?”

বাবা “সেও তোমার বোন, সুতরাং অসম্ভব”

এর কয়েকদিন পর ছেলে এসে আবার বলল, “তোমার বন্ধুর মেয়ে রাখীর সাথে প্রেম করলে কোন সমস্যা?”

বাবাঃ “দুঃখজনক হলেও সেও তোমার বোন হয়”

এরপর ছেলে রেগে গিয়ে মায়ের কাছে গিয়ে বলল, “আমি যে মেয়ের সাথে প্রেম করতে চাই, সেই নাকি আমার বোন হয়। আমি কী করবো?”

মা হেসে বলল, “বাবা, তুমি যে কারো সাথে প্রেম করতে পার, কারন উনি তোমার বাবা না”

 

১৮১)

এক জাপানি ভদ্রলোক এসেছেন বাংলাদেশ ভ্রমনে। এয়ারপোর্ট থেকে বের হয়ে সামনে অপেক্ষারত একটা ট্যাক্সিতে চড়ে বসলেন হোটেলে যাওয়ার জন্য। একটু পরে একটা মোটরবাইক পাশ কাটাতেই জাপানিটা সোল্লাসে বলে উঠল, হোন্ডা, মেড ইন জাপান, ভেরী ফাস্ট!! ড্রাইভার কিছু বলল না।

একটু পরে ওভারটেক করল একটা কার, আবার জাপানির চিৎকার, টয়োটা, হাহা, মেড ইন জাপান, ভেরী ফাস্ট!! ট্যাক্সি ড্রাইভার চুপচাপ শুনল, কিছু বলল না।

এরপর একটার পর একটা গাড়ি পেছন থেকে উঠে যাচ্ছে আর জাপানি লোকটার উৎসাহ বেড়ে যাচ্ছে, কখনও মিৎসুবিশি, কখনও হোন্ডা, কখনও টয়োটা বলে লাফাচ্ছে আর মনের আনন্দে গুনকীর্তন করছে, মেড ইন জাপান, ভেরী ফাস্ট!! ভেরী ফাস্ট!!

অবশেষে, হোটেলে পৌছল তারা। ক্যাব থেকে নেমে ভাড়া দিতে গিয়ে টাসকি, এইট হান্ড্রেড টাকা? হাউ কাম?

এতক্ষণ চুপ থাকার পর কথা বলার চান্স পেয়েছে ট্যাক্সি ড্রাইভার, হাহা, ইয়ে মিটার, মেড ইন বাংলাদেশ, ভেরী ফাস্ট! ভেরী ফাস্ট!!

 

১৮২)

বাবা: আমি চাই তুমি আমার পছন্দ মত মাইয়ারে বিয়া করবা!

পোলা: নাহ, আমি নিজে পছন্দ কইরা বিয়া করুম!

বাবা: মাইয়া কিন্তুক বিল গেটসের কন্যা, খিয়াল কইরা!

পোলা: তাইলে আমি রাজি!

পরের ঘটনা, বাবা বিল গেট্সরে প্রস্তাব করতেছে~

বাবা: আমি তোমার মাইয়ার লাইগা একটা ভালা রর খুইজা বাইর করছি!

বিল গেটস: কিন্তুক আমার মাইয়াত অনেক ছুড! বিয়ার বয়স হয় নাই!

বাবা: বুঝলাম, তয় এই যুবকে কিন্তুক ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট!

বিল গেটস: আহ! আগে কয়বা ত, তাইলে আমি রাজি!

শেষে বাবা গেল ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের প্রেসিডেন্টের কাছে।

বাবা: আমি একটা পুলারে রিকমেন্ড করতাসি হেরে তুমি তোমার ভাইস প্রেসিডেন্ট কইরা নাও!

প্রেসিডেন্ট: কিন্তুক আমার প্রয়োজনের থেইকা বেশী ভাইস প্রেসিডেন্ট আসে! আর লাগব না!

বাবা: বুজলাম! কিন্তুক এই পুলাডা বিল গেট্সের মাইয়ার বাগদত্তা!

প্রেসিডেন্ট: আহ! আগে কই বা তো, তাইলে আমি রাজি!

 

১৮৩)

আমেরিকায় তখন ভয়ানক মন্দা চলছে। একদিন এক বারে এক লোক ঢুকে বারটেন্ডারকে বললো, ‘আজকে এই বারের সবাইকে আমার তরফ থেকে এক পেগ।’

বারটেন্ডার বললো, ‘তা ঠিক আছে। কিন্তু এই মন্দার সময় তোমার কাছে এতো টাকা আছে তো…?’

লোকটি একতাড়া ডলার বের করে দেখালো। বারটেন্ডার অবাক হয়ে গেলো, ‘তুমি এতো টাকা কোথায় পেলে?’

লোকটি উত্তর দিলো, ‘বাজি ধরা আমার পেশা।’

বারটেন্ডার বললো, ‘ কিন্তু বাজি মানেই তো ৫০:৫০ চান্স। তাহলে?’

লোকটি বললো, ‘ঠিক আছে, চলো ৫০ ডলার বাজি ধরি, আমি আমার ডান চোখে কামড় দিবো।’

বারটেন্ডার রাজি হলো। বাজিকর তখন তার নকল ডান চোখ খুলো কামড়ে দিলো।

বারটেন্ডার বাজিতে হেরে ৫০ ডলার দিয়ে দিলো।

বাজিকর বললো, ‘হেরে তোমার মন খুব খারাপ হয়েছে বুঝতে পারছি। চলো তোমাকে আরেকটা চান্স দেই টাকা ফেরত নেবার। এসো বাজি ধরি, আমি আমার বাম চোখে কামড় দিবো।’

বারটেন্ডার খুশি হয়ে উঠলো, ‘তোমার ডান চোখ নকল, আবার বারে তুমি দেখে দেখেই ঢুকেছো, তোমার বাম চোখটা তাহলে নকল না। আমি বাজিতে রাজি।’

বাজিকর তখন তার নকল দাঁত খোলে বাম চোখে কামড় দিলো।

‘ধুত’ – বারটেন্ডার বিরক্ত হয়ে বললো।

‘দেখলে, এভাবেই আমি আমার বাজিগুলো জিতি। এবারের ৫০ ডলার আমি তোমার কাছ থেকে নিলাম না। তার বদলে এক বোতল হুইস্কি দাও।’

এক বোতল হুইস্কি নিয়ে বাজিকর চলে গেলো জুয়ার রুমে। প্রায় সারারাত ধরে সে জুয়া খেললো আর হুইস্কির বোতলটা প্রায় খালি করে ফেললো। ভোরের দিকে সে বারটেন্ডারের কাছে এগিয়ে এলো। সে নেশার কারণে ঠিকমতো পা ফেলতে পারছিলো না।

কোনমতে বারের উপর ভর রেখে বাজিকর জড়ানো কণ্ঠে বললো, ‘আমি তোমার সাথে শেষ বাজি ধরতে এসেছি। আমি তোমার এই টেবিলের উপর দাঁড়িয়ে তোমার পেছনের একটা খালি হুইস্কির বোতলে প্রস্রাব করে দেখাবো। বাজি ১,০০০ ডলার।’

বারটেন্ডার বাজিকরকে সারারাতই হুইস্কি খেতে দেখেছে। সে নিশ্চিত সে কোনভাবেই এই বাজিতে জিততে পারবে না। তাই সে খুশি মনে রাজি হয়ে গেলো।

বাজিকর টেবিলের উপর উঠে পেছনের একটা হুইস্কির খালি বোতলে পেশাব ফেলার অনেক চেষ্টা করলো কিন্তু সে এমনভাবে কাঁপছিলো যে সে বোতল বাদে আর সব জায়গাতেই পেশাব দিয়ে ভরিয়ে দিলো।

শেষমেষ লজ্জিত কণ্ঠে বললো, ‘বারটেন্ডার, আমি পারলাম না।’

বারটেন্ডার খুশিতে লাফ দিয়ে বললে, ‘ইয়েস, আমি ১,০০০ ডলার জিতেছি।’

বাজিকর খুশিমনে তাকে ১,০০০ ডলার দিয়ে দিলো। বারটেন্ডার অবাক হয়ে বললো, ‘কি ব্যাপার! তুমি এতো সহজে হার স্বীকার করে নিলে?’

বাজিকর বললো, ‘জুয়ার রুমের লোকগুলোর সাথে আমার বাজি রয়েছে যে আমি তোমার পুরো বারে প্রস্রাব করবো কিন্তু তুমি হাসবে আর আমাকে মারবে না। ওদের সাথে আমি ৫,০০০ ডলার জিতেছি।’

 

১৮৪)

এক লোক একটা লেডিস কাপড়ের দোকান দিলো। একদিন এক সুন্দরী আসলো। দেখে লোকটার খুশী যেনো আর ধরেনা। চিন্তা করলো যে ভাবে হোক মেয়েকে পটাতে হবে। সুন্দরী দুইটা কাপড় নিলো।

লোকটাকে বললো: আচ্ছা এই কামিজের দাম কতো।

লোকটা বিগলিত হাসি দিয়ে বলে: আপনার জন্য মাত্র ১০টা কিস। মানে আমাকে দশটা কিস দিলেই হবে।

সুন্দরী: তাহলে এই জিনসের দাম কতো?

লোকটা: এইটা? আমাকে জড়ায়ে ধরে একটু আদর কইরা দিলেই হবে।

সুন্দরী বলে: ঠিক আছে। এই দুইটা আমি নিলাম। গাড়িতে আমার কাজের বুয়া আছে, সে এসে দাম দিয়ে যাবে।

 

১৮৫)

দুই চাপাবাজ, একজন ঢাকাইয়া আরেকজন কোলকাতাইয়া। দীর্ঘদিন বাদে দেখা। ঢাকাইয়া জিজ্ঞেস করলো, কি দোস্ত কেমুন আছো?

কোলকাতাইয়া: আর দাদা বোলো না। আছি বেশ। দু’আঙুলে কোলকাতাকে নাচাচ্ছি।

ঢাকাইয়া: কউ কি দোস্ত! খাড়াও তোমার এউগা পরীক্ষা লই। পাশ করলে বুঝমু কেমুন তুমি শেঠ।

কোলকাতাইয়া: ঠিক আছে, হয়ে যাক। বলো কি করতে হবে?

ঢাকাইয়া দোস্ত: ওই যে দেখবার লাগছো কাউয়্যাঠুটির গাছ, এউগা কাউয়ার বাসা ভি দেহা যাইতাছে। ওইহানে এউগা কাউয়া বয়া রইছে, ওর পেটের নিচে আন্ডা ভি আছে। এউগা আন্ডা গাছে উইঠা লয়া আইবা মাগার কাউয়া উড়বো না, পারবা?

কোলকাতাইয়া দোস্ত তর তর করে গাছে উঠে গেলো এবং কাকের পেটের তলা থেকে কাকের ডিমও নিয়ে এলো অথচ কাক টেরও পেলো না।

নেমে তৃপ্তির স্বরে সে বললো: এই নাও বন্ধু, কাকের পেটের তলা থেকে ডিম নিয়ে এলুম অথচ কাক ঠিকই বসে আছে (বাহাদুরি দেখিয়ে)।

ঢাকাইয়া: হ, তুমি কোলকাতারে দুই আঙুলে ঘুরাও ঠিকই। গাছে উইঠা কাউয়া না উড়ায়া কাউয়ার পেটের তলা থেইকা আন্ডা ভি লিয়া আইছো ঠিকই। মগর উঠোনের টাইমে যে দুই আঙুলে তোর ধুতি আমি খুইলা রাইখা দিছি দাদা, তুমি হালায় টেরই পাইলা না। নিচে চায়া দেহো পুরা কোলকাতা দেহা যাইবার লাগছে।

 

১৮৬)

একগ্রামে বন্য হাতি ঢুকে সব লন্ড ভন্ড করে ঘর বাড়ি ভেঙ্গে তছনছ করে কলাগাছ সব খাওয়া শুরু করলো । গ্রামের সবাই হাতি তাড়াতে ব্যস্ত এই ফাকে এক কিশোরি বালিকা দৌড়ে চেয়ারম্যানের কাছে খবর দিতে গেল । কিন্তু বিপদের কথা হলো এই কিশোরী আগে কখনো হাতি দেখে নাই । সে গিয়ে চেয়ারম্যান কে উত্তেজিত গলায় বলছে –  চেয়ারম্যান সাব , সর্বনাশ হইছে !! বন থেকে এক অদ্ভুত ইয়া বড় জন্তু গ্রামে ঢুকে গেছে ।

– তাই নাকি !! কিরকম দেখতে জন্তুটা ?/

– ইয়া উঁচা … আর একটা ইয়া মোটা লেজ সেই লেজ দিয়ে সে সব কলা গাছ উপড়ে ফেলছে…

– তারপর !!!

কিশোরি এবার মুখ কান লাল করে লাজুক ভঙ্গিতে বললো –  যাহ !.. তারপর সেই কলাগাছ দিয়ে কি করছে সেটা বলতে আমার লজ্জা করছে !

 

১৮৭)

এক প্রচুর ধনী মহিলা সিদ্ধান্ত নিলেন যে বিয়ে করবেন। ভাল পাত্রের জন্য প্রত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিলেন এবং তিনটি শর্ত জুড়ে দিলেনঃ

১. মহিলার গায়ে হাত তোলা যাবে না।

২. মহিলাকে ফেলে কোথাও যেতে পারবে না।

৩. মহিলাকে বিছানায় সন্তুষ্ট রাখতে হবে।

নির্ধারিত দিনে অনেকেই ভাইভা দিতে আসলো। কেউ প্রথম দুটি শর্ত পূরন করতে পারে তো ৩য় টা পারে না, কেউ ৩য় টা পূরনে সক্ষম তো ২য় টি পূরনে সক্ষম নয়। এভাবে সারা দিন চলে গেল কিন্তু কেউ ই মহিলার মন মতো হল না। মহিলা হতাশ হয়ে বসে রইলেন। তার বুঝি আর বিয়ে করা হয় না। এমন সময় সন্ধ্যার দিকে হটাৎ কলিং বেল বেজে উঠলো। মহিলা নিজেই গিয়ে দরজা খুলে দিলেন। দরজা খুলে দেখেন হাত পা নেই এমন এক ভিক্ষুক দরজার সামনে শুয়ে আছে।

মহিলাঃ তুমি কি চাও?

ভিক্ষুকঃ আমি ভাইভা দিতে আইছি।

মহিলাঃ কিন্তু সেটা কি করে সম্ভব? তুমি কি পারবে আমার তিনটা শর্ত পূরণ করতে?

ভিক্ষুকঃ জে পারমু। দেখেন আমার একটাও হাত নাই, তাই আমি আপনার গায়ে হাত তুলতে পারুম না। আমার একটাও পা নাই। আমি আপনারে রাইখা কুথাও যাইতে পারুম না।

মহিলাঃ আচ্ছা বুঝলাম, কিন্তু তিন নম্বর শর্ত টা? সেটা কি ভাবে পূরণ করবে?

ভিক্ষুকঃ ক্যান? আপনে কি আমার দেয়া কলিং বেল এর আওয়াজ শুনেন নাই?

 

১৮৮)

মেয়েদের একজন পুরুষ সঙ্গীর যে সব গুন থাকা প্রয়োজন:

১. এটা জরুরি যে পুরুষ সঙ্গীটি তোমাকে বাড়ির কাজে সাহায্য করে এবং কোন একটা জব করে।

২. এটা জরুরি যে পুরুষ সঙ্গীটি তোমাকে হাসাতে পারে।

৩. এটা জরুরি যে পুরুষ সঙ্গীটি নির্ভরযোগ্য এবং তোমাকে মিথ্যা বলে না।

৪. এটা জরুরি যে পুরুষ সঙ্গীটি তোমাকে ভালোবাসে এবং তোমাকে আদর করে।

৫. সবচেয়ে জরুরি হলো, এই চারজন ব্যক্তি যেন একজন আরেকজনকে না চেনে।

 

১৮৯)

এক অন্ধ লোক টেক্সাসে বেড়াতে গেছে। ট্রেনে সিটটাকে অনুভব করে পাশের যাত্রীকে সে বললো, ট্রেনের সিটটা তো নরমাল ট্রেনের চেয়ে বড়!

পাশেরজন জবাব দিলো, টেক্সাসে সবকিছুই বড়।

হোটেলে ওঠার পর লোকটি বারে গেলো কিছু পান করতে। অনুভব করে বুঝলো গ্লাসটা অনেক বড়। সে বললো, গ্লাস তো আসলেই বড়!

বারটেন্ডার জবাব দিলো, টেক্সাসে সবকিছুই বড়।

একটু পর লোকটির বাথরুমে যাবার প্রয়োজন হলো। বারটেন্ডারকে জিজ্ঞেস করতেই সে টয়লেটে যাবার দিকনির্দেশনা দিয়ে দিলো।

অন্ধ লোকটি কিছুদূর ঠিকমতো গিয়ে এক জায়গায় ভুল মোড় নিয়ে নিলো আর সোজা গিয়ে পড়লো হোটেলের সুইমিং পুলে। ভয়ে আতঙ্কে চেঁচিয়ে উঠলো সে, ‘কেউ ফ্লাশ কোরো না, ফ্লাশ কোরো না।’

 

১৯০)

এক ভদ্রলোকের স্ত্রী মারা গেলো। ভদ্রলোক খুব কাঁদছে। পাশের বাড়ির এক ভাবি এসে সান্ত্বনা দিচ্ছে – কাঁদবেন না ভাই। কেঁদে আর কী হবে। মানুষতো আর চিরদিন বেঁচে থাকে না।

ভদ্রলোক বললো: ভাবি, যখন আমার মা মারা গেলো, তখন আশেপাশের বয়স্ক মহিলা প্রতিবেশীরা এসে বললো, কেঁদো না, তোমার মা নেই তো কি হয়েছে আজ থেকে আমরাই তোমার মা।

যখন আমার বোন মারা গেলো, তখন আশেপাশের মধ্যবয়স্ক মহিলারা এসে সান্ত্বনা দিয়ে বললো, কেঁদো না, তোমার বোন নেই তো কি হয়েছে, আজ থেকে আমরা তোমার বোন।

কিন্তু আমার বৌ মারা যাবার পর কেউ তো ওরকম সান্ত্বনা দিতে এলো না।

 

১৯১)

ক্লাস সিক্সে অল্পবয়স্ক এক ম্যাডাম এসাইনমেন্ট দিচ্ছিলেন। এসাইনমেন্টের টাইটেলটা অনেক বড় হওয়ায় তিনি বোর্ডের অনেক উপর থেকে লেখা শুরু করলেন। এমন সময় পেছন থেকে এক ছেলের খিখি হাসি শোনা গেল। ফিরে তিনি দেখলেন রকিব হাসছে।

– তুমি কেন হাসলে?

– ম্যাডাম, আপনার অন্তর্বাস দেখা যাচ্ছিলো তাই।

– ক্লাস থেকে বেরিয়ে যাও। আগামী ৩ দিন আমার সামনে আসবে না।

রকিব বেরিয়ে গেলো মাথা নিচু করে।

ম্যাডাম আবার লেখা শুরু করলেন। এবার কালাম এর কণ্ঠে আরো জোরে হাসি শোনা গেলো। ম্যাডাম রেগেমেগে জানতে চাইলেন, কেন হাসলে?

– ম্যাডাম আপনার অন্তর্বাস পুরোটাই দেখা যাচ্ছিলো তাই।

– ক্লাস থেকে বেরিয়ে যাও। আগামী ৩ সপ্তাহ আমার সামনে আসবে না।

কালাম মাথা নিচু করে ক্লাস থেকে বেরিয়ে গেলো।

ম্যাডাম এবার লিখতে গিয়ে হাত থেকে মার্কার পড়ে গেলো। সেটা তুলতেই এক ছাত্রের হাসি শুনতে পেলেন। ফিরে তিনি দেখলেন বল্টু মিয়া ক্লাস থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে।

– তুমি কোথাও যাচ্ছো?

– ম্যাডাম, আমি যা দেখেছি তা যদি বলি তাহলে বাকি জীবন আমার আর ক্লাস করা হবে বলে মনে হয় না।

 

১৯২)

এক সিলেটি ভদ্রলোকের সাথে আরেক সিলেটি ভদ্রলোকের দেখা।

১ম জন: এবা গতবছর যে মারা গেছিলাইন, আফনে না আফনের বাই?

২য় জন: আমার বাই।

১ম জন: ইয়ার লেগাইতো খই। তেনারে দেখি, আফনারে দেখিনা খ্যান? ক্যামবাই মারা গেছিলাইন?

২য় জন: সাফে খামরাইছে।

১ম জন: খোনো?

২য় জন: খফালে।

১ম জন : আল্লায় ভাচাইছে। চক্ষু দুইটা ভাইচা গেছে। খনোৎ কবর দিছাইন?

২য় জন: ভাড়ির পেছন, ফুকুর ফাড়ে, গাছতলায়।

১ম জন: বালা খরচাইন, ছায়া ফাইবো, টান্ডা লাগবো। আল্লায় তেনারে বাঁচায়া রাখুক।

 

১৯৩)

এক সদ্য বিবাহিত দম্পতি হাওড়া ষ্টেশান থেকে দক্ষিনভারতগামী একটি ট্রেনে উঠেছে। উদ্দেশ্য মধুচন্দ্রিমা। দুজনের চোখে-মুখেই খুশীর ঝিলিক। ট্রেন চলতে শুরু করলো। এমনিতেই এ সি টু টায়ার্স কামরা, তার উপর প্যাসেঞ্জার্সও অনেক কম। স্বামী-স্ত্রী দুজনে সন্ধ্যে নাগাদ রাতের খাবার খেয়ে নিয়ে নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়লো।

স্বামী: জান্, কালকে বাজারের ব্যাগটা …রাখতে গিয়ে হাতের কব্জীটায় একটা জোর মচকা লেগেছে, খুব ব্যাথা করছে!

স্ত্রী পাশেই বসা ছিল, স্বামীর হাতটা দু-হাতে আদর করে নিজের মুখের কাছে নিয়ে এসে চকাস করে একটা চুমু খেয়ে বললো এই নাও পেইন কীলার!

মেঘ না চাইতে জল পেয়ে স্বামী উত্তেজিত হয়ে পড়লো। মনে মনে একটা ফন্দি এঁটে বললো না না! ব্যাথাটা তো এখন আর কব্জীতে হচ্ছে না। এ কাঁধে হচ্ছে।

যেমনটা হবার ছিল তেমনই হল স্ত্রী স্বামীর আরো ঘনিষ্ঠ হয়ে বসে কাঁধে একটা চকাস, চুমু জি, এই নিন আপনার পেইন কীলার।

এরপর স্বামী নিজের ঠোঁট-এর দিকে ইঙ্গিত করতেই স্ত্রী ব্যাথা কমাতে তৎপর হয়ে উঠলো…..

এখন হয়েছে কি, আপার বার্থ-এ এক দাদু অনেক্ষণ ধরে যন্ত্রনায় ছটফট করছিলো, ঘুমোতে পারছিলো না। নীচে বারবার পেইন কীলার পেইন কীলার বলা হচ্ছে শুনে কাতর হয়ে বললেন মামনি, আমার পাইলস এর যন্ত্রনাটা বেড়েছে, একটা পেইন কীলার পাওয়া যাবে, প্লিজ্?

 

১৯৪)

একটি আন্তর্মহাদেশীয় ট্রেনে এক ব্যক্তি আর এক মহিলা একই কম্পার্টমেন্টে শোওয়ার জায়গা পেয়েছেন। প্রথমে কিছুক্ষণ উসখুস করলেও দুজনেই খুব ক্লান্ত থাকায় অল্পক্ষণের মধ্যেই তারা ঘুমিয়ে পড়লেন। ভদ্রলোক উপরের বার্থে আর ভদ্রমহিলা নীচের বার্থে।

মাঝরাতে হঠাৎ ভদ্রলোকের ঘুম ভাঙল। তিনি একটু ইতস্তত করে ভদ্রমহিলাকে ঘুম থেকে জাগিয়ে বললেন দেখুন কিছু মনে করবেন না, “আমার এত ঠান্ডা লাগছে, আপনি কি দয়া করে আমার সুটকেস থেকে একটা কম্বল বার করে আমায় দেবেন?”

ভদ্রমহিলা উত্তরে বললেন “আমার আরো একটা ভালো আইডিয়া আছে। আজকের রাতের জন্য মনে করি না আমরা স্বামী আর স্ত্রী?”

ভদ্রলোক খুব অবাক আর মনে মনে খুব খুশি হয়ে বললেন “ওয়াও!!! দারুণ আইডিয়া!! তাহলে এখন আমার কি করা উচিত?”

“উঠে নিজের কম্বল নিজে নিয়া নাও, আর প্যানপ্যান কইরা আমার মাথা খারাপ কইর না তো!”

 

১৯৫)

টম আর জন, ২ বন্ধুর দেখা। ২ জনেই মোটা।

টমঃ কিরে দোস্ত ১ দিনেই তুই অমন স্লিম হলি কি করে?

জনঃ একটা স্লিমিং সেনটারে গিয়েছিলাম, তারা বলল, ১ ঘণ্টায় আমরা আপনার ৩ কে জি ওজন কমিয়ে দেব। তার জন্য আপনাকে পে করতে হবে ১০০ ডলার।

তো আমি পে করার পর তারা আমাকে উচু প্রাচির ঘেরা এক বাগানের মধ্যের এক ঘরে নিয়ে গেল। ঘরের দরজা খুলে ভিতরে গিয়ে দেখি অপূর্ব এক সুন্দরী খাটে বসে আছে । সুন্দরী আমাকে বলল ,তুমি যদি আমাকে দৌড়িয়ে ধরতে পার তাহলে আজ রাতের জন্য আমি তোমার। এই বলেই দিল দৌড়।

আমিও ছুটলাম তার পিছু পিছু। দৌড়াতে, দৌড়াতে ‌দৌড়াতে, কিছুতেই ধরতে পারলাম না।

একজন এসে বলল আপনার ১ ঘণ্টা সময় শেষ। আসুন ওয়েট মাপি।

দেখা গেল সত্যি আমার ওজন ৩ কে জি কমে গেছে ।

তবে আপসোস, মেয়েটাকে ধরতে পারলাম না।

জনের কাছ থেকে ঠিকানা নিয়ে পরের দিন ওই স্লিমিং সেন্টারে টম গিয়ে হাজির। এবং, ১০০ ডলারের প্যাকেজটি নিতে চাইলো ।

ম্যানেজার টমকে বলল, দেখুন আমাদের নতুন ১ টা প্যাকেজ এসেছে, ১ ঘণ্টায় ওজন কমবে ৬ কেজি। তার জন্য আপনাকে পে করতে হবে ২০০ ডলার।

টম ভাবল এই প্যাকেজ এর মেয়েটা নিশ্চয় আরও সুন্দরী হবে, সে ২০০ ডলার পে করল।

তাকে নিয়ে গাইড বাগানের দিকে রওয়ানা হল। টম ভাবছিল যেভাবেই হোক মেয়েটাকে আমি ধরে ফেলবোই।

নির্দিষ্ট ঘর দেখিয়ে গাইড চলে গেল।

টম দরজা ঠেলে দেখে সুন্দরী মেয়ের পরিবর্তে খাটে বসে আছে এক বিকট দর্শন নিগ্রো।

নিগ্রো বলল, যদি আমি তোমাকে দৌড়িয়ে ধরতে পারি তা হলে তোমাকে আমার সাথে আজকের রাত কাটাতে হবে এই ঘরে আর আমাকে সন্তুষ্ট করতে হবে।

 

১৯৬)

ছোট্ট জনি আর জেনি দু’জনের বয়সই ১০ বছর, কিন্তু তারা জানে তারা একে অপরকে ভালোবাসে। একদিন তারা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিলো। জনি জেনির বাবার কাছে গেলো বিয়ের কথা বলতে।

সাহসের সাথে জনি জেনির বাবার কাছে গিয়ে বললো, মি. স্মিথ, আমি আর জেনি পরস্পরকে ভালোবাসি। এজন্য আপনার কাছে জেনিকে বিয়ে করার অনুমতি চাইতে এসেছি।

মি. স্মিথ বাচ্চার মুখে এমন কথা শুনে মজা পেলেন। বললেন, জনি, তোমার বয়স তো মাত্র ১০ বছর। তোমরা দু’জন কোথায় থাকবে?

জনি কোন রকম চিন্তা না করেই বললো, জেনির রুমে থাকবো। আমার রুমের চেয়ে ওরটা বড়। দু’জনের বেশ জায়গা হয়ে যাবে।

মি. স্মিথ তার কথায় আরো মজা পেলেন। তিনি জিজ্ঞেস করলেন, তুমি তো অনেক ছোট। কোন কাজই তো করতে পারবে না। তাহলে জেনিকে খাওয়াবে কি?

জনি কোনরকম দ্বিধা না করে উত্তর দিলো, আমি প্রতি সপ্তাহে ১০ ডলার হাতখরচ পাই, জেনিও ৫ ডলার পায়। মাসে ৬০ ডলারে দু’জনের বেশ ভালোভাবেই চলে যাবে।

এবার মি. স্মিথ একটু অবাক হলেন। কারণ জনি সব উত্তর আগে থেকেই ভেবে রেখেছে। তাই তিনি এবার এমন প্রশ্ন করলেন যেটার উত্তর তৈরি করে রাখা জনির পক্ষে সম্ভব না।

মি. স্মিথ জানতে চাইলেন, তুমি তো সব বিষয়েই চিন্তা করে রেখেছো। আরেকটা উত্তর দাও তো। যদি তোমাদের ঘরে কোন বাচ্চা জন্ম নেয়, তোমরা তখন কি করবে?

জনি বললো, এখন পর্যন্ত আমরা ভাগ্যবান যে এমন কিছুই হয়নি…

 

১৯৭)

ছোট্ট বল্টু যোগ করতে শিখেছে। একদিন তার ছোট চাচু তাদের বাসায় বেড়াতে এলে বল্টু তার চাচুকে বলে, চাচু আমি না যোগ অংক করতে পারি। তুমি আমাকে ধরো তো?

: তাই নাকি ! বেশ ভাল। বলো তো দুই আর তিনে কত হয়?

বল্টু দুই হাতের আঙ্গুল গুনে বলল পাঁচ।

: আরে তুমি তো সত্যিই যোগ করতে শিখে গেছ। ভেরি গুড। কিন্তু চাচ্চু ওভাবে হাত বের করে গুনলে তো তোমার টিচার তোমাকে বকা দেবেন। এক কাজ কর তুমি তোমার দুই হাত প্যান্টের পকেটে ঢুকাও। তারপর বলো, চারে আর চারে কত হয়?

এবার বল্টু পকেটে দুই হাত নেড়েচেড়ে বলল, “নয়”।

 

১৯৮)

এক মহিলা তার ডাক্তার বন্ধুর সাথে প্রেম চালাচ্ছিল, কিন্তু বেশিদিন হওয়ার আগেই সে গর্ভবতী হয়ে গেল । তো, নয় মাসের সময় ডেলিভারির জন্য সে যখন হাসপাতালে ভর্তি হল অপারেশনের জন্য , তখনি এক পাদ্রিও তার প্রস্টেট (Prostate) অপারেশনের জন্য ভর্তি হলো। ডাক্তার তখন তার বান্ধবীকে বলল , ”আমরা পাদ্রীর অপারেশনের পর বলব যে এই বাচ্চাটা আপনার !! ‘

বান্ধবী বলল , ”কি বল এইসব , সে কি বিশ্বাস করবে ?? ”

ডাক্তার বলল , ”করতেই হবে, কারণ তাকে বলব , এটা একটা মিরাকল”

তো, নির্দিষ্ট দিনে পাদ্রীর প্রস্টেট অপারেশন হয়ে গেল … তার পরই বান্ধবীর ডেলিভারিও হলো, ডাক্তার বাচ্চাটা পাদ্রীর কাছে নিয়ে গিয়ে বলল , ”ফাদার , এই নিন আপনার বাচ্চা ”

পাদ্রী তো খুব আশ্চর্য হলেন, বললেন ”এ কিভাবে সম্ভব ?? ”

ডাক্তার বলল, ” ফাদার , আশ্চর্য আমরাও হয়েছি , এটা একটা মিরাকল … খুব কমই ঘটে ”

পাদ্রী আর কিছু বললেন না।

প্রায় ১৫ বছর হয়ে গিয়েছে এর মাঝেই , বাচ্চাটাও বড় হয়ে গেছে . একদিন পাদ্রী বাচ্চাটাকে ডাকলেন , বললেন ”তোমাকে কিছু গোপনীয় কথা বলার আছে …আমি আসলে তোমার বাবা নই ” !!

বাচ্চাটা খুব অবাক হয়ে বলল, ”মানে? তুমি আমার বাবা না ??? ”

পাদ্রী গম্ভীর স্বরে বললেন , “না। আমি তোমার মা , আর্চবিশপ তোমার আসল বাবা।

 

১৯৯)

এক দেশ এ এক রাজা ছিল। তার ছিল বিশাল বড় রাজ্য। তার হাতিশালে হাতি, ঘোড়াশালে ঘোড়া, ধন-সম্পদ কোন কিছুরই অভাব ছিল না। কিন্তু এত কিছুর পরেও রাজার মনে শান্তি ছিল না। তার কারন রাজ্যের জনসংখ্যা স্বল্পতা। তো রাজা উজির-নাজির সবাইকে খবর দিলেন জনসংখ্যা স্বল্পতার কারন বের করতে। তারা অনেক বিচার-বিশ্লেষণ করে রাজাকে বললেন এর কারন হচ্ছে রাজ্যের লোকেরা সেক্সের নিয়ম-কানুন জানে না এবং এটাতে তাদের প্রচন্ড অনিহা। রাজা পড়লেন আরেক দুঃশ্চিন্তায়, এখন রাজ্যের লোকদের তো আর ঢাক-ডোল পিটিয়ে সেক্স শেখানো যায় না। শেষে অনেক ভেবে-চিন্তে একটা উপায় বের করলেন যে, রাস্তার মোড়ে মোড়ে উলঙ্গ মেয়ের পুতুল বসানো হবে, যা দেখতে আসল মেয়ের মত। তো মেয়ে পুতুলটির সামনে দিয়ে যদি কেউ সেক্স করে পুতুলের পিছন দিয়ে চকলেট বের হবে আর পিছন দিয়ে কেউ সেক্স করলে সামনে দিয়ে আইসক্রীম বের হবে। তো রাজ্যের মানুষ চকলেট আর আইসক্রীমের লোভে পুতুলের সাথে সেক্স করতে করতে নিয়ম শিখে গেল।

কিছুদিন পরে ঘটল সমস্যাটা। লোকে এখন আর পুতুলের সাথে সেক্স করে মজা পায় না। তারা এখন সত্যিকার মেয়ে চায়। সেরকমই দুজন সৈনিক একটা মেয়েকে ধরার জন্য তার পিছন পিছন ছুটতে লাগল। একসময় মেয়েটি উপায় না দেখে জামাকাপড় খুলে মোড়ের মেয়ের পুতুলের পাশে দাড়িয়ে গেল। তো সৈনিক দুজন মেয়েটাকে আশেপাশে খুঁজে না পেয়ে ১ম সৈনিক ২য় সৈনিককে বলে, মেয়েটাকে তো পেলাম না, দৌড়াদৌড়ি করে পিপাসাও লেগেছে, আয় আইসক্রীম খেয়ে চলে যাই। তো তারা গিয়ে ঐ মেয়েটাকেই পুতুল মনে করে পিছন থেকে সেক্স করতে লাগল।

আইসক্রীম এর জন্য অপেক্ষা করতে করতে ২য় সৈনিক ১ম সৈনিককে বলল, কি ব্যপার বলত। সামনে দিয়ে আইসক্রিম বের না হয়ে এসব কি বেড় হচ্ছে?

২য় সৈনিক, গাধা এটাও বুঝস নাই? গরমে আইসক্রীম গলে গেছে।

 

২০০)

একজন ব্যাক্তি সেক্স এ ব্যাস্ত, সাথে পরে আছেন প্রোটেকশন। বহুক্ষণ পরে শুক্রাণুরা হাজির হল। হাজির হয়েই মহা বিরক্ত।

শুক্রাণুদের নেতা বলল, “দেখো বন্ধুরা, আমাদের বস কিভাবে মজা পাচ্ছে, আর আমাদের বেলুনে আটকে রেখেছে, আমাদের ডিম্বানুর সাথে মিলিত হতে দিচ্ছেনা, এইটা কি ঠিক? এসো আমরাও ডিম্বানুর কাছে যাই।”

সব শুক্রাণু চিৎকার করে বলল, “চল যাই, চল যাই!”

তারা সবাই মিলে কন্ডমের গায়ে জোরে ধাক্কা দিতে শুরু করলো, কয়েকবার ধাক্কা দিতেই, ফুটো হয়ে গেলো, নেতা চিৎকার করে বলল, “আগাও! আগাও!”

সবাই হুড়োহুড়ি করে এগুতে লাগল।

হঠাৎ দেখলো, তাদের নেতা উলটো পালাচ্ছে বলছে, “পিছাও, পিছাও!”

সবাই শুধালো, “কেনো, কেনো?”

নেতা বলল, “সামনে হাগু, সামনে হাগু!!!”

০০০০০০০

বাংলা কৌতুক সমগ্রঃ ০ থেকে ১০০(১৮+)

বাংলা কৌতুক সমগ্রঃ ২০১ থেকে ৩৩০(১৮+)

Categories
অনলাইন প্রকাশনা কবিতা দুঃসাহসিক রহস্য ও অপরাধ সৃজনশীল প্রকাশনা

প্রেমে দ্রোহে গর্জে ওঠা সৈনিক আজ নিথর নীরব